রিলেশনশিপ

গোধূলির অপরপ্রান্তে – Bhalobasar kichu golpo

গোধূলির অপরপ্রান্তে – Bhalobasar kichu golpo: আরে বাহ বাহ, খুন করেও এত সাহস তোমার, মানতে হবে। এখনো বসে আছো এখানে। আমি তো ভাবলাম দৌড় ঝাপ করতে হবে, তাই আজ সকালে জগিং করিনি, আসলে বেশি এনার্জি ওয়েস্ট করতে চাই নি।


প্রথম পর্ব

“আফিফ, আমি তোমার বাসার নিচে দাঁড়িয়ে। একটুর জন্য আসবে, প্লিজ।’

এতটুকু বলে ফোনের লাইনটা কেটে দিল নিশান্তিকা। আফিফ খুবই ঘুম কাতুরে ছেলে। তবে, নিশান্তিকার কথা শুনে সে হতবিহ্বল বসেই রইল কিছুক্ষণ। চোখ দুটি জ্বালা করছে তার।
ঘড়ির কাঁটায় ৮টা ছুঁইছুঁই।

গভীর রাতে চোখ বুজেছে আফিফ, সাদা রঙের ল্যাবটব আধ বন্ধ পড়ে আছে বিছানার কোণে। মাথা ঝিম ধরে আছে। দু~ একবার হাই তুলছে। চোখের কোণের জল বলে দিচ্ছে ঘুমটি অপূর্ণ। উষ্কখুষ্ক চুলগুলো হাত দিয়ে নাড়িয়ে চাড়িয়ে ওঠে দাঁড়াল, আরো একবার মাথা ঝুলিয়ে হাই তুলল।

কালো রঙের টি~ সার্ট হাতে নিয়ে দো~ তালায় এসে দাঁড়াল আফিফ। রেলিং ধরে নিচে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি তাক করে দেখল নিশান্তিকা সবুজ ঘাসের মাঝে বেঞ্চের কোণে বসে ছিল। বাগানের লাল গোলাপের কলি দেখতে সে মত্ত।

আফিফের দিকে দৃষ্টি পড়তেই নিশান্তিকা হাত নাড়িয়ে হাই জানাল। আফিফ নিচে নেমে এল। নিশান্তিকার পাশে বেঞ্চের অপর কোণে বসে পা দুটি সবুজ দূর্বা ঘাসের শিশির বিন্দু ছুঁয়ে দিল।
“শুভ সকাল নিশান্তিকা।’

“শুভ সকাল।’ নিশান্তিকা মিষ্টি হেসে প্রতিউত্তর দিল। আকাশের অদূরে তার দৃষ্টি।

“হঠাৎ এই অকর্মার দ্বারে কি মনে এলে?”
নিশান্তিকা একটু হাসল। টিপটিপ করে আড়চোখে নিশান্তিকার হাসির ঝলক গেঁথে নিল মনে আফিফ।

“জরুরি কিছু কথা বলতে এসেছি।’ আফিফের দিকে ঘুরে তাকাল নিশান্তিকা, চোখের দৃষ্টি স্থির।

“সময় বহমান। বলতে থাক, শুনছি আমি।’
“বলব। তোমার চোখ লাল লাল দেখাচ্ছে, নিশ্চয় ঘুম পূর্ণ হয়নি। কফি খাবে?”

নিশান্তিকার মিনুতি সুরের আবদার এড়িয়ে যাওয়ার মত নয়। ভাবলেসহীন ভঙ্গিতে আকাশের পানে চেয়ে বলে ওঠল~
“হুমম খাওয়াই যায়।’

“আচ্ছা, আমি আনছি। ততক্ষণে তুমি একটু হাঁটাহাঁটি করতে পার।’
আফিফ উজ্জ্বল হাসল। নিশান্তিকা ওঠে দাঁড়াল। আফিফ ভাবছে, এই সকাল তার প্রাপ্য ছিল। প্রথমে সুন্দরীর দেখা অতপর হাতের মিষ্টি কফির আবদার, ভাবা যায়!

“নিশান্তিকা, বলছি যে তোমার দরকারি কথা শেষ হলে, তুমি কি চলে যাবে?”

নিশান্তিকা স্বাভাবিক ভঙ্গিতে বলল~ হ্যাঁ
আফিফ একটু ভেবে আবার বলল~
“তাহলে বরং চলো আমরা হাঁটি।’ আকাশ পানে তাকিয়ে আবারও হাই তুলে আরমোরা ভাঙল আফিফ। অপেক্ষা করছিল নিশান্তিকার উত্তরের।

“আচ্ছা কফি খেয়ে না হয় হাঁটব।’

নিশান্তিকা চোখের আড়ালে চলে গেল। নিশান্তিকা যেখানে বসে ছিল সেদিকে অনেক্ষণ তাকিয়ে রইল আফিফ, চোখ দুটির স্থির দৃষ্টি তার। কোনো ভাবনা, ক্লান্তি, অবসাদ নেই।

এদিক~ সেদিক তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখে ফিরে হেঁটে এসে সেই বেঞ্চের কোণে বসল। হাতের ছোঁয়া রাখল।

“দাদিমা, সকালটা খুব সুন্দর, নিষ্পাপ, শুভ্র। গোলাপের চারায় কলি এসেছে, দেখেছ?”

আফিফের দাদিমা বাগানের ফুল গাছের পরিচর্যা করছিল। নাতির কথায় মিষ্টি হাসলেন। জলের হ্যান্ডেল রেখে মালিকে বললেন গাছের গোড়ায় মাটি খুড়ে আলগা করে দিতে।

“সকাল, ভোর ৫টায় ফোন দিয়েছিল।’ নিশান্তিকা কফির মগ আফিফের দিকে এগিয়ে দিল। কথাটা বলে বেঞ্চের কোণে বসল।
আফিফ কফিতে এক চুমুক দিয়ে ঠায় বসে রইল। এই কফির স্বাদ মুখে রুচছে না তার, চিরচেনা লাগছে। নিশান্তিকার কথায় ভ্রুক্ষেপ করল না, নিজ থেকে বলল~

“কফিটা তেতো লাগছে, সেই চিরচেনা স্বাদ।’
নিশান্তিকা চোখ টিপটিপ করে আফিফের দিকে তাকাল। ছেলেটি খুব অদ্ভুত ভাবে কথা বলে। রহস্য মিশ্রত চাহনি।

“তুমি বানিয়ে আনছি বলে চললে, আর এটা নিয়ে চলে এলে?” আফিফ কঠিন সুরে কথা বলল। কফিটির মগ বেঞ্চের মাঝে রেখে দিল। এক চুমুকে তৃষ্ণা মিটে গেছে তার।

“আফিফ, আমি আনছি বলে গিয়েছি, বানিয়ে আনছি! কখন বললাম?”

নিশান্তিকা স্বাভাবিক স্বরের কথায় আফিফ একটু আহত হলো, হয়ত সে ভেবে ছিল নিশান্তিকা বলবে~ আচ্ছা, আমি বানিয়ে আনছি। তবুও আফিফ শেষ চেষ্টা করল, ঠোঁটের কাছে আঙুল রেখে বলল~
“আমি কি তবে ভুল শুনেছি!”

নিশান্তিকা প্রতিউত্তরে শুধু হ্যাঁ সূচক মাথা ঝাকালো। আফিফ এবার ক্ষান্ত হলো।

“আচ্ছা চলো হাঁটি।’ আফিফ জোর কদমে উঠে দাঁড়াল।
“কফিটা শেষ কর, আর এই চশমাটা পড়ে নেও।’

নিশান্তিকার এগিয়ে দেওয়া চশমাটা পড়ে নিল আফিফ। ভুল বশত ঘাটের বক্সের কোণে রেখে এসেছিল। কফির মগ হাতে নিয়ে বসে পড়ল। কোনোরকম কফিটা গিলে, মগটা এক আছার দিবে। ভেবে নিল আফিফ।

“কম্পিউটার অন করে রেখে এসেছ, পাণ্ডলিপি লেখা শেষ?”
“একটু আছে, উপসংহার। হয়ে যাবে, তুমি পড়বে?”
আফিফ নিশান্তিকার দিকে স্থির দৃষ্টিতে তাকাল।

“হুমম অন্যদিন। চলো হাঁটি।’ নিশান্তিকা কিছুক্ষণ ভেবে উত্তর দিল।
দুজনে গেট পেরিয়ে পিচঢালা রাস্তায় হাঁটতে লাগল। আফিফ আসার সময় সজোড়ে দূরে আছার মেরেছে মগটা। নিশান্তিকা সামনে তাকিয়েই মুচকি হাসল।

চারিপাশে সকালের ঠাণ্ডা ঝিরিঝিরি হাওয়া। পিচঢালা রাস্তা। দু~ পাশে সারি বাঁধানো মেহগনিবৃক্ষ। শীত শেষে বসন্তের আগমন। লম্বা লম্বা গাছের নতুর কড়ির নরম ছোট ছোট পাতা। রোমাঞ্চকর সুন্দর পরিবেশ, একেবারে ঝকঝকে।

আফিফ টাউজারের পকেটে হাত ঢুকিয়ে শুভ্র আকাশ পানে তাকিয়ে ধীর পায়ে হাঁটছিল। খোলা হাওয়ায়, পুব আকাশে সূর্যিমামার হালকা ঝলমলে রোদের শুভ্র উষ্ণতায় মন মাতানো ঘ্রাণ নাক ছুঁয়ে গেল আফিফের। নিশ্চয় এটা নিশান্তিকার খোলা চুলের। ভালোবাসার মাঝে বিরাজমান জীবন নীরবতা। যেখানে লুকিয়ে থাকে অগণিত ভালোবাসা।

বেশ কিছুক্ষণ পর নিশান্তিকা সিরিয়াস ভঙ্গিতে বলে,
“সকাল, তোমার সঙ্গে দেখা করতে চায়, কিছু কথা বলবে শুধু।’
“কী বিষয়ে?”

“আঙ্কেল~ আন্টি প্রেম সম্পর্কে জেনে গিয়েছে। সকালকে চাপ দিয়েছে প্রেমের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করতে।’

“আমি কী করতে পারি, আই মিন আমরা দুজনে?”
“ওদের বিয়ের বিষয়টা তোমায় হ্যান্ডেল করতে হবে।’
“আমায় কেন?”

“যাতে আন্টিদের দু~ চারটা গুন্ডা এলে, তাদের মেরে তক্তা বানাত পার।’
“সিরিয়াসলি!

” দুজনে কিছুক্ষণ হাসল। আফিফ হাসি থামিয়ে মাথায় চুলগুলো হাত দিয়ে ঝাকালো, অতপর বলল,
“আচ্ছা, আমার কি ওদের মাঝে ইনভলব হওযা উচিত হবে?”
“ওরা যেহেতু চাচ্ছে তবে কেন নয়!”
“তোমার কি মতামত?

নিশান্তিকা রাস্তার কোণে বেঞ্চে বসে পড়ল। আফিফ এখনো আকাশের শূণ্য দৃষ্টি নিয়ে দাঁড়িয়ে। নিশান্তিকা মুখ তুলে গালে লাগা চুল গুলো কানে গুজে নিয়ে বলে~
“সকাল, প্রেমকে খুব ভালোবাসে।’


দ্বিতীয় পর্ব

“ভালবাসায় হাত দিতে নেই, তবে ভালবাসা এসে যায়।’ আফিফ মুচকি হেসে বেঞ্চের অপর কোণে বসল।

নিশান্তিকা ড্যাবড্যাব চোখে তাকিয়ে রইল সেদিকে। ছেলেটির কথায় আগা~ মাথা নেই। কখন কি যে বলে। লেখক মানুষ বলেই হয়ত। লেখকরা একটু প্রেমিক পাগলা টাইপের হয় নিশান্তিকার মতে।
দুজনে নীরবে বসে থাকে।

আফিফ দেখছে খোলা হাওয়ায় নিশান্তিকার এলোমেলো চুলে হাওয়া বয়ছে, স্নিগ্ধ, শান্তিময়, মায়াবী চেহারায় সৌন্দর্য ফুটেছে ফুলের মত। এমনি একটি মেয়ের প্রিয়তম বউ হওয়ার স্বপ্নে বিভোর থাকে সে। এই মুহূর্তে ইচ্ছে করছে তার, ভালোবাসার চাদরে আবৃষ্ট করে নিতে।

নিশান্তিকা মাথা তুলে ইশারা করতে আফিফ মুচকি হেসে এগিয়ে এসে নিজের মনের বাসনা প্রকাশ করে বলে,

“নিশান্তিকা, ডাব খাবে? শরীরের ক্ষেত্রে পুষ্টিকর, আরামদায়ক।’
“আজ নয়, অন্যদিন।’ নিশান্তিকা লজ্জারাঙা মুখে মাথা নত করে রাখে।

“অন্যদিন কেন?”

“আজ জরুরি কথা বলতে এসেছি।’
“বিষয়টা হাস্যকর। কিছু লুকাচ্ছ তুমি।’ আফিফ সহসা বলে ওঠে, এমন মুহূর্ত সে হারাতে চায় না।

“আসলে, টাকা আনিনি। ফ্রী তে নিশ্চয় বিক্রি করবে না।’ নিশু ধীরে ধীরে চিপানো সুরে বলে।

আফিফ অবাক হলো নিশান্তিকার কর্মকাণ্ডে। মেয়েটি এত লাজুক, তার জানা ছিল না।

“আচ্ছা, তবে টাকা নাহয় পরে দিয়ে দিও, আপাতত চলো।’
“উঁহু… “
“চলো…”

আফিফ উঠে দাঁড়িয়ে নিশান্তিকার এক হাত জাপটে ধরে হাটতে থাকল।
“আফিফ!”

“ভদ্রমহিলার মত চুপচাপ চলো।’
নিশান্তিকা এবার কঠিন সুরে চোখ পাকিয়ে বলল,
“আমি ভদ্রমহিলা নই।’

“তবে, ” আফিফ এক চোখ টিপ মেরে বলল। নিশান্তিকা লজ্জিত মুখে নত সুরে বলে,
“ভদ্রমেয়ে।’

আফিফ হেসে দিল প্রতিত্তোরে। নিশান্তিকা লজ্জা পেয়ে মাথা নত করে মুচকি হাসল।

দুপুরবেলা,
নিশান্তিকা কলেজ ক্যান্টিনে বসে আছে। সবে মাত্র একটি আইসক্রিমের ডিব্বা শেষ করল। প্রেম, আরো একটি এগিয়ে দিল, নিশান্তিকা উজ্জ্বল হেসে ডিব্বাটা নিয়ে নিল। প্রেম, নিশান্তিকার একমাত্র কাজিন। তিন বছরের বড় প্রেম তার থেকে। দুজনের একে সাথে বেড়ে ওঠা।

নিশান্তিকার সামনেই চেয়ারে বসে আছে আফিফ আর দীপ্ত। প্রেমের পাশে বসে আছে শ্রেয়া। প্রেমের ক্লাসমেট।

বেশ কিছুক্ষণ নীরবতা ঘিরে রাখল তাদের। শুধু নিশান্তিকা স্পুন নাড়িয়ে আইসক্রিম খেতে খেতে পা ঝুলিয়ে বসে চুপিচুপি আফিফের দিকে তাকিয়ে মিটমিট করে হাসছে। বিষয়টি দীপ্ত বেশ ভালোভাবে খেয়াল করছে।

তাই দীপ্ত নীরবতা ভেঙে প্রথমে প্রশ্ন করল,
“আচ্ছা, আমরা এখানে বসে আছি কেন?”
“প্রেমের বিয়ের প্ল্যান সাজাতে।

শ্রেয়া বলল।

দীপ্ত মনে মনে খুব বিরক্ত হলো নিশান্তিকার কর্মকাণ্ডে। আইসক্রিম খাওয়া শেষ হলে না প্ল্যান সাজাবে!এ নিয়ে চারটা শেষ করল। তবুও নাকি পেট ভরছে না। একেই বলে মেয়ের জাত। এদের কারণে যত অখাদ্য~ কুখাদ্যর যত কদোর!

“নিশান্তিকা, প্ল্যান কী?” দীপ্ত মেকি হেসে বলল।
“বলেনি এখনো! বলেছি তো।’

“কী?” সকলে অবাক হয়ে তীক্ষ্ণ চোখে তাকায় তার দিকে। নিশান্তিকা হেসে বলে,

“সকাল, খুব ভোরে বাসা থেকে পালিয়ে কাজির বাসায় যাবে। তোমরা সেখানে উপস্থিত থাকবে। কাজি সাহেব দুজনের বিয়ে দিয়ে দিবেন।’
“এক সেকেন্ড, কাজির বাসায় কেন?” দীপ্ত না বুঝে প্রশ্ন করল নিশান্তিকার কথার মাঝে।

“অত সকালে কোন কাজি সাহেব অফিস খুলবে!”
দীপ্ত মাথা ঝাকায়। ভাবনাগুলো আসলেই গভীর। নিশান্তিকার প্ল্যানে সন্তুষ্ট হয় সে।

“আইডিয়া কার?” শ্রেয়া জানতে চায়। নিশান্তিকা সকলকে উদ্দেশ্য করে বলে,

“প্রেম, শ্রেয়া আপু, আইডিয়া আফিফ দিয়েছে।’
প্রেম কিছু বলে না। সবার কথা শুনে, মাথা নিচু করে বসে আছে এক কোণে। অসহায় লাগছে তার নিজের প্রতি। সকলের আলোচনা চলতে থাকে।

“কোনভাবে সকালের সাথে যোগাযোগ করা হলো না, আর একবার পরিবারকে মানানো যায় না?”

আফিফের কথায় নিশান্তিকা কিছুক্ষণ ভেবে চেয়ার টেনে বসে বলতে থাকে সকলের উদ্দেশ্যে,
“কোনো সুরাহা হবে না আফিফ।

এমন নয় যে চেষ্টা করা হয়নি। একবার নয়, দু দুবার। প্রথমত, তুমি একজন লেখক, আমাদের এই সমাজ, দেশ, মধ্যবিত্ত পরিবারের বাবা~ মা সম্পর্কে তোমার ব্যাসিক জ্ঞান আছে। কোনো বাবা~ মা চায় না প্রেমের বিয়ে হোক, অথবা ভার্সিটির বেস্ট স্টুডেন্ট বেকার ছেলের সাথেও

দ্বিতীয়ত, ছেলে~ মেয়েদের মন বুঝতে তারা অক্ষম সেজে থাকে। পরিণয়, প্রেম সম্পর্কে তাদের ধারণা থাকে নিচু মানের। তাদের আমরা বুঝাতে চেয়েছি, সব ভালোবাসা সমান হয় না, কিন্তু তারা বুঝেছে অন্যটা। সেকেন্ড টাইম এই ভুলটা করতে গেলে আমরা বেয়াদব হয়ে যাব। ব্লা ব্লা।

“এক মিনিট, আমি যতদূর জানি ওদের রিলেশন প্রায় তিন বছর। তবে, এতদিন কোন সমস্যা হলো না কেন?”

সকলে প্রেমের দিকে তাকিয়ে মুখ চাওয়াচাওয়ি করে। প্রেমের মনের পরিস্থিতি বুঝার চেষ্টা করে। নিশান্তিকা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলে,
“আসলে সমস্যা হয়েছে সকালের ভাইকে নিয়ে। সকালকে ওই ছেলেটা সহ্য করতে পারে না। এমনিতে সৎ ভাই। এতে করে বাবা~ মায়ের কান ভারি করছে।’

“তো ওদের বিয়ে হয়ে গেলেই কী ঝামেলা শেষ?” দীপ্তের প্রশ্ন।
“ঝামেলা একটু হবেই দীপ্তদা। যতটা সহজ ভাবছি ততটা নয়, খুব জটিল।’

“যেমন!” দীপ্ত মনযোগে নিশান্তিকার কথা শুনে।
“সম্ভবত, সকালের সম্পত্তির অধিকার ছেড়ে দিতে হবে। বেচারি মেয়েটা।’

“আমার খুব খারাপ লাগছে, কি জানি, কীভাবে আছে মেয়েটি।’ শ্রেয়া মনের আক্ষেপ প্রকাশ করে।

প্রেম বুকের বা~ পাশে চিনচিন ব্যাথা অনুভব করল। সকালের ভাবনায় নিজেকে কেমন অসহায় অসহ্য ভাব হতে লাগল। এক ছুটে চলে যেতে ইচ্ছে করছে তার প্রিয়তমের দ্বারে। কিন্তু এখন সে নিরুপায়।
“আমি আর এসব কথা শুনতে চাই না। বাসায় যাব।’

প্রেমের কথায় সকলে চমকে ওঠে। প্রেমের চেহারায় ফুটে উঠেছে বেদনাদায়ক চিহ্ন। চুলগুলো সেদিক দুলছে, ফর্সা মুখটা ফ্যাকাসে রূপ ধারণ করেছে। চোখ দুটি রক্তিম রঙে ফুটে ওঠেছে। ভয়ংকার ক্রুদ্ধ দেখাচ্ছে প্রেমকে।

প্রেমের কাঁধে হাত রাখে শ্রেয়া। দীপ্ত একটা হাত চেপে ধরে। ভরসা দেখায়।

“নিজেকে শক্ত কর প্রেম। আমরা সবাই আছি তোর সাথে। আমরা জানি যে, তোরা দুজনে কত ভালোবাসিস। একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে। ভাবিস নাহ্।’

“আচ্ছা, আমাদের এখন ইতি টানা উচিত। শ্রেয়া আপু, প্রেম ভাইয়াকে বাসায় পৌঁছে দিও। আমরা এখন উঠছি।’ প্রেমের পরিস্থিতি বুঝে নিশান্তিকা এখানেই ইতি টানে। কথায় কথা বাড়তে, এতে প্রেমের কষ্ট লাগবে, খারাপ দেখাবে।

আফিফ বাদে সকলে ওঠে দাঁড়াল। খুব মনোযোগ দিয়ে প্রেমকে পর্যবেক্ষণ করছে আফিফ। শ্রেয়া পরিবেশ মজাতে প্রেমকে শুনিয়ে হেসে খেলে বলল,
“বাব্বাহ্, বোনের দেখছি সুমতি হয়েছে। প্রেম ভাইয়া, কত মধুর ডাক!”

“শ্রেয়া আপু, সুমতি আমার আগেও ছিল, এখনো আছে। তবে, ওদের বিয়ের পর যদি বলি, প্রেম শুনো, চলো আইসক্রিম খেতে যাই। তাহলে কি হবে বলত…”
“কি হবে…” সকলে উচ্চস্বরে বলে ওঠে।

“ঘূর্ণিঝড় বয়ে যাবে, প্রেমের বিয়ে দোষের বিয়েতে পরিণত হবে।’
শ্রেয়া হাসতে হাসতে প্রেমের কাঁধে হাত রেখে বলল,
“বেচারার সংসার হওয়ার আগেই ভেঙে যাবে।’

“শুধু ভেঙে যাবে কি, অকালে মৃত্যুও হতে পারে।’

সকলে মিলে হাসি মজায় মেতে ওঠল। প্রেম মনের দুঃখ কিছুটা ভুলে কিছুক্ষণ হেসে হেসে বলল,

“তারপর ভূত সেজে এসে তোকে জ্বালাব, তোলে নিয়ে গিয়ে বিয়ে করব। প্রতিদিন থাপ্পড় থেরাপি দিব। বুঝেছিস।’

“যা ভাই এবার বাসায় যা, নিজে থাপ্পড় ধেরাপি থেকে বাঁচতে প্রস্তুতি নিতে হবে তো।’

প্রেম সহ সকলে হাসছে। নিশান্তিকার সাথে ঝগড়া করছে, মন খুলে কথা বলছে। নিশান্তিকার মন ভালো হয়ে গিয়েছে প্রেমের ঠোঁটে হাসি দেখে। মনমরা শরীর নিয়ে বসে থাকতে এমন মর্মান্তিক দৃশ্য দেখতে ভালো লাগছিল তার। সে চায় না, দ্বিতীয় বার প্রেম ভালোবাসা হারানোর কষ্ট ভোগ করুক।


তৃতীয় পর্ব

পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তায় দুটি মানুষ পাশাপাশি হেঁটে চলছে। একটুখানি নীরবতা, লজ্জা, অনুরাগ, অভিমান, দুজনকে এক বাঁধনে আটকে রেখেছে।
নিশান্তিকার পাশ ঘেঁষে হাঁটছে আফিফ। সোটাম দেহ, ফর্সা, গোলগাল মুখের গঠন। শান্ত ভাব চেহারায় ফুটে উঠেছে। নিশান্তিকার খুব ভালো লাগে আফিফের সহজ সরল শান্ত মুখের দিকে তাকিয়ে থাকতে।

আচমকা নিশান্তিকা বলে ওঠে,
“শ্রেয়া আপু তোমার দিকে ১১বার তাকিয়েছে।’
আফিফ মুচকি হেসে বলে,
“আমি ক~ বার তাকিয়েছি!”
নিশান্তিকা প্রতিত্তোরে মৃদু হাসে। ঠোঁটের কোণে হাসি রাখে, চোখ মুখে প্রশান্তি ফুটে ওঠে। কারণ, আফিফ সারাক্ষণ নিশান্তিকার ধ্যানে মগ্ন ছিল। আফিফের পার্সোনালিটিতে নিশান্তিকা বরাবর সন্তুষ্ট হয়েছে।

“আজ আকাশ খুব মেঘলা, শহরজুড়ে অন্ধকারে বিষন্ন। বৃষ্টি আসবে না তো!”
নিশান্তিকা আকাশে একবার তাকিয়ে আফিফের দিকে চেয়ে চেয়ে কিছুক্ষণ পর্যবেক্ষণ করে ভেবে বলে,
“আপনি খুব গম্ভীর চঞ্চল একজন পুরুষ।’
নিশান্তিকার প্রশংসায় আপ্লুত হয়ে আফিফ ধীরে ধীরে হেসে একসময় উচ্চস্বরে হেসে ওঠে। কপাল কুঁচকে বলে,
“আর? আরো কিছু আছে?”
নিশান্তিকা লজ্জা পেয়ে নত মাথায় না সূচক মাথা নাড়ায়। চুপিচুপি প্রেমের বিষয় ভাবতে থাকে।
“আচ্ছা নিশু, তোমার কি মনে হচ্ছে না আমি তেজপাতা হয়ে যাচ্ছি।’
আচমকা আফিফের এমন ধাঁচের কথায় চমকে ওঠে। সময় নিয়ে বলে,
“অ্যা! বলেন কি?”

“হ্যাঁ, বলছি যে ওদের মাঝে নিজেকে তেজপাতা মনে হচ্ছে। আসলে, আমি গিয়ে কী করব? এটাই ভাবছি যে, শুধু তোমাদের কথা গিলব। আর মেয়েদের নজরে পড়ব।’
আফিফের কথার অর্থ বুঝতে পেরে নিশান্তিকা উচ্চস্বরে হেসে ওঠে, বলে,
“আসলে হলো, আপনি সাথে থাকলে আমি সাহস পাব।’
“সত্য বলছ?” গলার স্বর নরম করে জিগ্যেসা দৃষ্টিতে তাকায় আফিফ।
“তিন সত্য।’ নিশান্তিকা ঠোঁট টিপে হাসি আটকে বলে। আফিফ বুঝতে পেরে দুষ্টুমির ছলে বলে,
“হাহ্, চারপাশে ছেলে থাকলে মেয়েরা নাকি ভয় পায়। কখন কি হয়ে যায়! আর তোমার সাহস বাড়বে।’
“সিরিয়াসলি বলছি, আপনি থাকলে সাহস বাড়বে।’

নিশান্তিকা এবার সিরিয়াস হয়। তবু্ও আফিফ বাঁকা হেসে হাতে বাড়িয়ে দিয়ে বলে,
“হুমম তবে, কাছে আসো হাতটা ধরি দেখি কেমন সাহস বাড়ে?”
নিশান্তিকার সিরিয়াস ভাবটা নিমিষেই উধাও হয়ে যায়। উচ্চস্বরে হাসতে হাসতে পিচঢালা রাস্তায় বসে পড়ে। আফিফ মাথার চুলগুলো হালকা ঝাঁকিয়ে দিয়ে, টিপটিপ চোখে নিশান্তিকার হাসি গেঁথে নেয় মনে। মেয়েটি এত জোড়ে হাসে যে আফিফের কানে বারবার প্রতিধ্বনি বাজতে থাকে। মাঝে মাঝে মনে হয়,ঐ তো প্রিয়তম হেসে হেসে আমায় ডাকছে, খুব কাছে।
“লেখক সাহেব, আপনার সাথে থাকলে আমি পাগল হয়ে যাব একদিন, দেখে নিয়েন।’

আফিফ ফিক করে হেসে বসে পড়ে। নিশান্তিকার সাথে তাল মিলিয়ে হাসে। খুশিতে মনের মধ্যে আনন্দের ঝড় তোলে।
নিশান্তিকার বাড়ির পথে চলে এসেছে দুজনে। খপ করে নিশান্তিকার হাত চেপে ধরল আফিফ। নিশান্তিকা ভড়কে ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে থাকে। আফিফ চুপসানো গলায় বলে,
“যদি কেউ টেনে নিয়ে যায়।’
হাতের মুঠি শক্ত করে আফিফ। নিশান্তিকা লজ্জায় মাথা তুলে তাকাতে পারেনা।

গেট পেরিয়ে চলে যায় নিশান্তিকা। আফিফ বিষন্ন মনে চেয়ে চেয়ে দেখে নীড়ে ফিরছে তার প্রিয়তমা। যে নীড়ে তার স্থান নেই।
মেঘ গর্জন করে ঝপাঝপ বৃষ্টি শুরু হয়ে যায়। আফিফের গায়ের শার্ট ক্রমশ ভিজতে থাকে বৃষ্টির ফোঁটায় ফোঁটায়। প্রতিটি বৃষ্টির ফোঁটায় শরীরে শিহরণ জাগায় আফিফের।
আফসোস বাড়ে। আকাশে তাকিয়ে ভাবে আর একটু আগে কেন বৃষ্টি এলো না। অনুভূতির প্রকাশ ঘটে হৃদয়ে। প্রিয়তমা কি ফিরবে এ পথে।
নিশান্তিকা ছাতা নিয়ে এগিয়ে আসে। আফিফ বৃষ্টির মাঝে ঠায় দাঁড়িয়ে নিশান্তিকার হেঁটে আসা দেখতে থাকে। যেন সে এটাই চাইছিল মনে মনে।
“বৃষ্টির মত তুমিও সময় নিয়ে এলে, ভেজি গেছি একেবারে।’
অপরাধীর ভাবে নিশান্তিকা বলল,
“ভেবেছিলাম তুমি দূরে চলে গেছ।’
“এতটুকু আসতেও সময় নিলে।’
নিশান্তিকা এক কান ধরে ক্ষমা চায়। আফিফ মুচকি হেসে ছাতা টেনে নেয়। ৷ ভিজে চুলগুলো হালকা ঝাঁকি দিয়ে পানি সরিয়ে নেয়।
“সো তুমি যাবে কীভাবে, ভিজে যাবে তো।’

“থাক না, তুমি যেটুকু ভিজেছ, ততটুকুই ভিজব।’
নিশান্তিকা স্নিগ্ধ মুখ পানে চেয়ে থাকে আফিফ। মনে মনে ভাবে বউ সাজলে কত অপরূপ সুন্দরী দেখাবে। এক জায়গায় চোখ আটকে যায় আফিফের, কিছু সময় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলে,
“লকেটটা বাসায় এসে আড়াল করতে ভুলে গেছিলে বুঝি।’
নিশান্তিকা মাথা নত করে রাখে। মুখে আকাশে কালো ঘন মেঘের মত অন্ধকার নেমে আসে।
“একজনকে ওয়াদা দিয়েছি, ভালোবাসা না থাক ওয়াদা এখনো আছে।’
আফিফ আচমকা নিশান্তিকার কোমর জড়িয়ে ধরে। আকস্মিক টানে নিশান্তিকা ভড়কে যায়। চারিদিকে থমথমে পরিবেশ।
“আফিফ কি করছ?”

“হুসস, প্রেম আমাদের দেখছে দাঁড়িয়ে।’
নিশান্তিকা চেয়ে দেখে দেওয়ালের ওপারে গ্রীল ঘেঁষে তাদের দিকে দেখছে।
“তাহলে ধরলে কেন, ছাড়ো।’
নিশান্তিকা ছারানোর চেষ্টা করে। আফিফের কর্মকাণ্ডে রাগ প্রকাশ করে।
“আমি তো তোমার ভালোই করছি?”
আফিফ শক্ত করে ধনে নেয়। অগ্নি চোখে তাকিয়ে থাকে নিশান্তিকা।
“এতে ভালো টা কী?”
“বলছি শুনো, তোমাকে প্রেম আমার সঙ্গে একান্ত দেখলে বুঝবে কোন চক্কর আছে।’
নিশান্তিকা ভাবনায় চোখ বড় বড় হয়ে যায়।
“এতে করে কি হবে?”
“এতে করে তোমার ভূত ওর মাথা থেকে বেরিয়ে যাবে। আর জেদের বসে সকালকে বিয়ে করে নিবে।’
“সত্য বলছ?” নিশান্তিকা চুপসে যায়।

“ভরসা রাখ আমার কথায়”
নিশান্তিকা এগিয়ে দু হাত দিয়ে আফিফের গলায় হাত রাখে। কাছাকাছি আগায়। মাথা নেড়ে বলে,
“হুমম, আইডিয়া টি কাজের,তবে সকালের জন্য ওর চোখে জল এসেছে, তুমি দেখলে না।’
“তুমি আসলেই বোকা মেয়ে, ওটা ওর ন্যাকামি ছিল। ড্রামা কিং সাচ্ছে। তোমাকে দেখাচ্ছে।’
নিশান্তিকা চিন্তিত মুখে বলে,
“ও ভুল কিছু করে বসবে না তো?”
“তোমার মত বোকা না সে।’

আফিফের কথার জোর বুঝতে পারেনিশান্তিকা, ঠোঁট ফুলিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। বেশ কিছুক্ষণ আফিফের কথা ভাবে। প্রেমকি তবে সত্যই অভিনয় করছে? শেষ~ মেশ সকালকে বিয়ে করবে তো। অতীতের ভাবনায় ডুবে যায় সে।
সন্ধ্যা নেমে আসছে ক্রমশ। চারিপাশে ঘন অন্ধকার হয়ে আসছে। ঘন মেঘের স্তূপ আকাশে ছেয়ে আছে এখনো। বৃষ্টির গতি বাড়ছে, ঝপাঝপ করে ছাতার উপরে আচরে পরছে। পিচঢালা রাস্তার পানির স্রোত বয়ে চলছে অন্ধকার ড্রেনে। ধূয়ে নিয়ে যাচ্ছে হাজারও পদধূলি। যার ভীতর লুকিয়ে ছিল এক একটি প্রেমের গল্প।
“নিশু, আগামীকাল আমার সঙ্গে যাবে এক জায়গায়।’

নিশান্তিকা মাথা তুলে জিগ্যেস করে,
“কোথায়? “
“বলব কাল, সারাদিন আমরা ঘুরব সেখানে ,যাবে?”
“হুমম”
নিশান্তিকা ঘোরের মাঝে মাথা নাড়ে। দুজনেই ঠান্ডায় থরথর কাঁপতে থাকে। বেশ কিছুক্ষণ এভাবেই কেটে যায়। প্রেমের কথা সে ভুলেই যায়,সাথে বাড়ি ফেরার কথাও।
সময় যেমন থেমে নেই, তেমনি দুজনের কথার শেষ নেই। নেই কোনো ক্লান্তি, অবসাদ। এভাবেই জনম পার করতে তারা দ্বিধাবোধ করবে না। প্রকৃতির বুকে যেন একজোড়া কপোত~ কপোতী।

চতুর্থ পর্ব

সকালের হাওয়া এখনো ঠাণ্ডা। রাতের বৃষ্টির রেশটা এখনো যায়নি। বড় বড় গাছ~ পালা, মাঠের সবুজ ঘাস, পিচঢালা রাস্তা ভিজে একেবারে ঝকঝকে।

নিশান্তিকা রেলিং ঘেঁষে দাঁড়িয়ে সকালের স্নিগ্ধ পরিবেশ উপভোগ করছিল। রাতের ঘুম বেশ আরামদায়ক হয়েছে। বসন্তকালে বৃষ্টি হওয়া খুব কম দেখেছে সে। দেখলেও মনে নেই।

মনে রাখার মত কোন স্মৃতিও নেই। যেখানে স্মৃতি নেই, সে সময় মনে না থাকায় শ্রেয়।

তবে, গত রাতের ছিল। অদ্ভুত সুন্দর কেটেছে। ভাবনাবিহীন শুভ্র সকালের মতই গত রাত পার করেছে নিশান্তিকা।

পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তার অদূরে তার দৃষ্টি। প্রেম কিছু পথশিশুদের নিয়ে দাঁড়িয়ে। মাঝে মাঝে শিশুদের মাথায় হাত বুলাচ্ছে। হয়ত কোন মজার গল্প শুনাচ্ছে। প্রেম খুব ভালো গল্প বানাতে পারে। পথশিশুদের হাতে খাবারের প্যাকেট। কারো হাতে বই, খাতা, পেন্সিল।

এই কাজটাও প্রেমের করা। এ দৃশ্য প্রতিদিন নিয়ম করে দেখৈ সে। একটি ছেলের হাতে নিশান্তিকার সাদা কালো রঙের ছাতাটাও আছে।
গত রাতে,

সন্ধ্যার পরপর দুজনে দাঁড়িয়ে কথা বলছিল, আফিফ দেখতে পেল এক পথশিশু রাস্তার কোণে দাঁড়িয়ে থরথর করে কাঁপছে। সহসা আফিফ ছেলেটির দিকে ছাতাটি এগিয়ে দিতেই, ছেলেটি ছাতা নিয়ে দৌড়ে চলে গেল। আফিফের মনটা খারাপ হয়ে গেল। সঙ্গে নিশান্তিকাও।

নিশান্তিকা দেয়ালের ওপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করে দেখল, প্রেমের রুমের জানালার থাইগ্লাস বন্ধ। চারপাশে ঘুটঘুটে অন্ধকার। এদিকে ঝড়ো হাওয়া, ঝুম বৃষ্টি। কাক ভেজা অবস্থায় নিশান্তিকা বাসায় ফিরে এলো। আফিফ তখন খুবই কাঁপছিল, ছেলেটির অল্প ঠাণ্ডার ছোঁয়ায় এলার্জি দেখা যায়।

নিশান্তিকা বেশ কিছুক্ষণ পর রাস্তা থেকে দৃষ্টি সরিয়ে নিয়ে রুমের জানালার থাইগ্লাস খুলে দেয়। প্রেম তখনে দাঁড়িয়ে। নিশান্তিকা নিচে নেমে আসে। সকালে গরম গরম খাবার খাওয়া প্রয়োজন। শরীরে এনার্জি আসবে, অন্তত আফিফের জন্য এককাফ গরম কফি বানানো দরকার।

ছ~ বছরের ছেলে নেহাল, কাঁধ থেকে স্কুল ব্যাগ নামিয়ে টেবিলের এক পাশে রেখে বলল,
“গুড মর্নিং আপু, আমার টিফিন রেডি করে দাও। জলদি।’
নিশান্তিকা মিষ্টি হেসে উত্তর দিল,
“মর্নিং সোনা, দু’মিনিট টাইম দাও বাবু।’

“আপু আমি স্কুলে কীভাবে যাব।’

“তোমার ড্রাইভার চাচু চলে এসেছে। তোমায় নিয়ে যাবে।’
“তুমি যাবে না?” নেহাল অভিমানি সুরে বলল।

“হ্যাঁ, যাব। এখন চটজলদি ভদ্রছেলের মত টোস্টটা খেয়ে নাও।’ নিশান্তিকা আদুরে গলায় বলে নেহালের গাল টেনে দিল। নেহাল আবেগি স্বরে বলে ওঠল,
“আপু আমি চপস্টিক খাব।’

“আচ্ছা, দুপুরে আমরা রেস্টুরেন্টে খেতে যাব।’
“সত্যি আপু?” নেহাল খুশিতে উজ্জীবিত হয়ে ওঠল।
“তিন সত্যি।’

নেহাল, নিশান্তিকার প্রাণ। কোন আবদার সে ফেলতে পারে নাহ্। নিশান্তিকা মুখে তুলে খাইয়ে দিচ্ছে নেহালকে। মনের মাঝে কিছু মিশ্র অনুভূতি নেড়ে ওঠল। মায়েরা এভাবেই সন্তানের যত্ন নেয়। ছোট বেলায় কত না মায়ের কাছে এভাবে আবদার করত। স্মৃতির পাতা মনে পড়তেই চোখের কোণে জল চিকচিক করে ওঠে।

প্রেম দু~ তালা ভবনের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে। কলিংবেল চাপতে গিয়েও থেমে দাঁড়াচ্ছে। কিছু কিছু সময় মানুষ অজানা কারণে থেমে যায়। যার কোন উত্তর নেই।

প্রেম কাঁচের ভিতর দিয়ে তাকিয়ে দেখল, ডাইনিং টেবিলে নেহালকে ইনিয়েবিনিয়ে খাওয়ানোর চেষ্টা করছে নিশান্তিকা। ভাই~ বোনের ভালেবাসার কিছু মুহূর্ত। মন জুড়িয়ে যায় প্রেমের। হাসি মুখে কলিংবেল চাপে, দেয়ালের নেমপ্লেটে তার চোখ থমকে যায় ‘সুখপাখি ভবন’।

প্রেমকে দেখা মাত্রই নেহাল দৌড়ে এসে গলা জরিয়ে বসে। নিশান্তিকা মৃদুস্বরে হেসে প্রেমকে বলে,
“এসো প্রেম, বসো, শুভ সকাল।’
“শুভ সকাল”

প্রেম আসবে ভেবে নিশান্তিকা প্রস্তুতি নিয়েই ছিল, তবে, এসেই যাবে। এতদূর ভাবেনি।

“ব্রেকফাস্ট শেষ?” প্রেম শুকনো হেসে বলল।

“নেহালকে মাত্রই খাওয়াচ্ছি। তুমি কফি খাবে, ঢেলে দেই।’
“হ্যাঁ দেও। আর দুধের গ্লাসটা দাও, আমি খাইয়ে দিচ্ছি।’
কফির মগ এগিয়ে দিল নিশান্তিকা, প্রেম পাশে রেখে নেহালকে নিয়ে কথা বলতে থাকল। নিশান্তিকা বলল,

“প্রেম রাতে নেহাল ঘুমাতে পারছিল না। বুকে চেপে রেখে খুব কষ্টে ঘুম পারিয়েছি। নাকের ভিতর পলিপাস বেড়েছে। আজ ডক্টর দেখাতে যাব, তুমি যাবে?”

“আমি একটু ব্যাংকে যাব, টাকা তুলতে হবে। আব্বুদের টাকা পাঠাতে হবে। সময় লাগবে। আমি নাহয় পিক~ আপ করে নিব তোমাদের।’
“হুমম.” প্রেমের কথায় নিশান্তিকা মাথা নাড়ায়।
“তুমি গতরাতে ডক্টরকে কল করে ডেকে নিলে না কেন? আমায় বলতে।’

“আসলে, বৃষ্টি ছিল। আচ্ছা, তুমি কফি খাও। নেহাল এসো মেডিসিন নিয়ে আম্মুকে কল দিব। তোমার নিউ টেডিবিয়ার দেখাবে নাহ্।’
“হ্যাঁ দেখাব তো। প্রেম জানু, “

“বলো জানু।’
“আপু আমায় এত্ত বড় টেডিবিয়ার গিফট করেছে।’
“তাই, প্রেম জানুকে দেখাব তো?”
“হ্যাঁ”

“তবে নিয়ে আসো।’
“আপু যাই।’ নেহাল দাঁড়িয়ে নিশান্তিকাকে বলে।
“যাও, সাবধানে সিঁড়ি বেয়ে ওঠবে।’
“ওকে আপু”

প্রেম কফির মগ এগিয়ে নিয়ে এক চুমুক দিয়ে নিশান্তিকার দিকে তাকাল। ভেবে ভেবে বলল,

“মামুনি গতরাতে আমায় ফোন দিয়েছিল, তোমায় পায়নি তাই।’
“হ্যাঁ, আম্মু বলেছে তোমার কথা। আমার সঙ্গে কথা হয়েছে।’ নিশান্তিকা কাজ করতে করতে উত্তর দিল।
“কি বলল মামুনি।’

“বলল যে সাবধানে থাকতে আর যেন তোমার খেয়াল রাখি।’
প্রেম প্রতি উত্তরে হুমম বলল। নিশান্তিকা সিদ্ধ ডিমটার ওপর বিটলবন ছিটিয়ে দিয়ে, নেহালের টিফিন ব্যাকে ভরে দিল।
“নেহালকে নিয়ে তুমি খুব কনসার্ন থাক।’

নিশান্তিকা উদাস মনে বলে,
“বাবা~ মার অবর্তমানে আমিই ওর সব। নেহাল খুশি থাকলে আমার মাঝে প্রাণ থাকে।’

“হ্যাঁ সে তো দেখতেই পারছি, ডান হাতে মেবি গরম কিছুতে ছ্যাকা লেগেছে।’

নিশান্তিকার ডান হাতের পিটে লাল হয়ে আছে। ছ্যাকটা আসলেই বেশি লেগেছে।

“ও কিছু না। এমনি লাল।’

নিশান্তিকা এরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করল। প্রেম সহসা বলে ওঠল,
“মেডিসিন লাগিয়ে নিও।’

“কিছু হবে না। আসলে নেহাল কিছু খেতে চায় না। সব সময় বায়না করে। সিদ্ধ ডিমটুকু স্কুলে যেতে যেতে খেয়ে নেয়। মা পাগল ছেলেটা আমার কাছে ভালো আছে এই অনেক।’

নিশান্তিকার কথা মন দিয়ে শুনল প্রেম। মাথা নেড়ে হুমম বলল। প্রেমের অন্যমনস্ক দেখে নিশান্তিকা বলে,
“তুমি ঠিক আছ?”
“হ্যাঁ আছি।’
“কচু আছ।’

ফ্রুটস স্যালাটের প্লেট প্রেমের দিকে এগিয়ে দেয়,
“তোমার জন্য বানিয়েছি, আমি জানি গতরাতেও তুমি কিছু খাওনি।’
প্রেম শুকনো হাসি দেয়। মনে মনে উজ্জীবিত হয়। নিশান্তিকা আবার বলে,

“ঘুম কেমন হয়েছে? সকালের সঙ্গে কথা হয়েছে?”
প্রেমের মুখটা ধীরে ধীরে গম্ভীর হয়ে আসে। নিচু স্বরে বলে,
“হুমম হয়েছে। বলব তোমায়।’

নিশান্তিকার হাতটা টেনে নিয়ে মলম লাগিয়ে দেয় প্রেম। হাতটা শক্ত করে চেপে ধরে রাখে, যেন ছুটে গেলে এখনি হারিয়ে যাবে। নিশান্তিকা চুপটি করে বসে ভাবে, প্রেম কি মলম নিজের কাছে নিয়েই ঘুরে, নাকি ইচ্ছে করেই এনেছে।

পঞ্চম পর্ব

সকালের ঘুম ভেঙেছে খুব ভোরে। সারারাত নির্ঘুম কাটিয়ে খুব ভোরে ওঠে বসে সকাল। ঘুম হবেই বা কি করে, ঠিক সময়ে খাওয়া নেই, শরীরের যত্ন নেই, সারাক্ষণ যন্ত্রের মত মন মরা অবস্থায় শুয়ে, বসে থাকে।

গভীর রাতে বুকের ব্যাথায় ছটফট করে, দু চোখ বেয়ে নিঃশব্দে জল গড়িয়ে পড়ে। কেউ দেখেনা সে যন্ত্রণাদায়ক মুহূর্তটুকু।

ইচ্ছে করে এই ইট~ সিমেন্টর চার দেয়াল ভেঙে বদ্ধ জীবন থেকে খোলা আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে প্রাণ ভরে শ্বাস নিতে।

ঘুম ভাঙার পরপর বেশ তৃষ্ণা পেয়েছে সকালের। বিছানা ছেড়ে নেমে জল খেয়ে এসে আবারও ঠাস করে বসে পড়ল। যেন একটি যন্ত্র মানব।

জানালার ছোট ছোট ফুটো দিয়ে ভোরের আলো প্রবেশ করেছে। যার ফলাফল রুমের জায়গায় জায়গায় আলোর রেখা দেখা যাচ্ছে।
সকাল খুব বিরক্ত হলো, এত অল্প অল্প আলো সে সহ্য করতে পারে না। হয় সম্পূর্ণ আলো থাকবে না হয় সম্পূর্ণ অন্ধকার। কিছুর একটা অভাবে জীবন বিষাক্ত মনে হচ্ছে সকালের।

শেষমেশ রুমের লাইট জ্বালিয়ে নিয়ে, টেবিলে মাথা রেখে বসে রইল। বেশ কিছুক্ষণ পর উৎফুল্ল হয়ে প্রেমের সাথে কথা বলল। মন হালকা হলো।

কথা শেষে বই নিয়ে বসল। কিছুদিন পরেই এক্সাম ওদের। সকাল ভাবল, অনেকদিন হলো ক্যাম্পাসে যাওয়া হয়নি, আজ সে ক্যাম্পাসে যাবে। প্রাণ খুলে হাসবে।

প্রেমের সাথে কথা বলবে, দু~ চোখ ভরে দেখবে। এসব ভাবতেই সকালের মন আনচান আনচান করতে থাকল। হঠাৎ তার মনযোগ ক্ষুণ্ণ হলো বাহিরে কিছু পরে ভাঙার শব্দে।

নিশান্তিকা চুপিচুপি বিছানায় ওঠে বসে। ভেজা চুলগুলো হালকা ঝাঁকি দিয়ে আফিফের মুখের দিকটায় রেখে মাথায় মাথা ঠেকাল। মনে মনে দুষ্টু হাসে।

আফিফ মুখে একপাশ কাধ হয়ে ঘুমিয়ে ছিল। সম্পূর্ণ গায়ে কম্বল চাপানো।

নিশান্তিকা ভেবে ছিল আফিফ ওঠে বসবে, বকা দিবে। কিন্তু অনেক্ষণ হলো, এসবের কিছুই হলো নাহ্। নিশান্তিকা ওঠে বসে। আফিফকে সোজা করে, কম্বল সরিয়ে নেয়। তবুও ছেলের হেলদুল নেই। দুবার হালকা ধাক্কা দেয়। কিছুই হয় না। এখনো সে ঘুমে কাতর।
নিশান্তিকা এবার বিরক্ত হয়। আফিফের ডান হাতে কামর বসিয়ে দেয়।

~ আহ্, নেহাল লাগছে তো।
~ আমি নিশান্তিকা।

~ ওহ্
~ ওহ্! বেশ হয়েছে, লাগছে। এত ঘুম কাতরে কেন তুমি? এখন আমায় কেউ তুলে নিয়ে গেলেও হুসস থাকবে নাহ্।
আফিফ মুচকি হেসে ওঠে বসে।

~ কে নিয়ে যাবে, প্রেম?

নিশান্তিকা আগুন চোখে তাকায়। আফিফ চুপসে গিয়ে আবার শুয়ে পরে।
~ আফিফ!

~ উমম
~ আফিফ লিসেন, দুপুর হতে চলল। খেতে হবে কিছু নাকি…
আফিফ মাথা তুলে বলে, মাত্র ৯টা বাজে।
~ তো?
~ দুপুর হলো কই!
~ আফু, ৯টা বাজে, বুঝতে পারছ, ৯টা। ভোর হয় সেই পাঁচটায়।
~ ধুর, আপু ডাকছ কেন? আরেকটু ঘুমাতে দাও।
~ আফিফ, আমি আফু ডেকেছি, আপু নয়।
~ ঐ একই হলো।

নিশান্তিকা বিরক্ত হয়ে দমে গেল। ফোঁস করে নিঃশ্বাস ছাড়ল।
~ আচ্ছা টাইগার শরফের মত এত স্ট্রং টাইশেপস~ বাইশেপস বানালে কীভাবে?

আফিফ মুচকি হেসে বলল,
~ হুহ্ কোথায় টাইগার শরফ আর কেথায় আফিফ মাহিয়াম।
নিশান্তিকা একপ্রকার ফোঁস করে ওঠল,
~ আবার, নিজেকে টাইগারের সাথে তুলনা করছ। ওয়েট দেখাচ্ছি মজা। দাদুননন…

আফিফ ধরফরিয়ে ওঠে দাঁড়ায়।

~ দাদু কোথায়? দাদুকে ডাকছ কেন?

আফিফের ভয়ার্ত চেহারা দেখে নিশান্তিকা হেসে কুটিকুটি। নিশান্তিকার হাসির প্রভাবে আফিফ বুঝে গেল, সে এখন নিশান্তিকার বাসায়। এখানে দাদুন কীভাবে আসবে!
~ খুব না খুব হাসি পাচ্ছে। তোমার এই হাসিহাসি মুখখানা দেখার জন্য প্রেমকে ডেকে আনি।

~ যত পারো চেঁচাও, প্রেম আসবে না।

নিশান্তিকা স্বাভাবিক হয়ে যায়। সঙ্গে আফিফও। নেহালকে না দেখতে পেয়ে জিগ্যেস করে,
~ নেহাল কোথায়, নেহাল?

~ বাসায় নেই।
নিশান্তিকা হাসি থামিয়ে আনে। আফিফ জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে কিছুক্ষণ।

~ প্রেম এসে ওকে স্কুলে নিয়ে গেছে।
~ ওহ্।

আফিফ মাথা ঝুলিয়ে বাঁকা হাসি দিয়ে বলল,
~ তারমানে নিশান্তিকা, বাড়ি সম্পূর্ণ ফাঁকা।

আফিফের চাহনি দেখে নিশান্তিকা বিছানা ছেড়ে ওঠে দাঁড়িয়ে, নড়েচড়ে ঘাটের কোনে গিয়ে দাঁড়ায়।

~ বাড়ি ফাঁকা, তো তো কি হয়েছে?

আচমকা আফিফ উচ্চস্বরে হেসে ওঠে।
~ হাউ ফিল ম্যাডাম, বলো বলো, ভয় লাগছে?
~ মোটেই না।

নিশান্তিকা তবুও ভয় পাচ্ছে। তুতলে যাচ্ছে বারংবার। বুকের ভিতর ধুকধুক করছে।

আফিফ আচমকা নিশান্তিকার ভয়ার্ত চেহারা দেখে চুপসে গেল।
~ নিশু, কি হয়েছে। আমি মজা করছিলাম বোকা মেয়ে।

নিশান্তিকা গম্ভীর হয়ে যায়। কঠিন স্বরে বলে,
~ আফিফ, ওয়াশরুমে যাও। আমাদের তারাতাড়ি বের হতে হবে।
আফিফ মুচকি হেসে মাথা নাড়িয়ে এগোতে থাকে। নিশান্তিকা দূর থেকে টাওয়াল ছুড়ে মারে। আফিফ হেসে ওঠে।

~ সাওয়ার নিবে নাহ্ একদম।
~ উহু, পাক্কা এক ঘন্টা।
~ তবে রে…

আফিফ ওয়াশরুমের দরজা বন্ধ করে দেয় চটজলদি। ভিতর থেকে চেঁচিয়ে বলে,
~ নিশু, মোবাইল চার্জে বসাও। ফাস্ট।

~ আগে সরি বলো। তারপর ভেবে দেখব।
আফিফ মুচকি হেসে সরি বলে।
ওকে, সরি সরি সরি। পাগলী একটা।

নিশান্তিকা ফুলদানিতে কিছু রজনীগন্ধার গুচ্ছ ফুল রেখে দুষ্টুমি করে চলে যাচ্ছিল। থেমে দাঁড়িয়ে, কিছু একটা ভেবে মোবাইল চার্জে বসায়। চার্জে দিতেই অন মোবাইল হলো, আর ফোন অন হতেই দীপ্তের এসএমএস আসতে লাগল অহরহ।

নিশান্তিকা বাকরুদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে রইল…
চলবে…
লেট করার জন্য আমি আন্তরিক ভাবে দুঃখিত। এরপর নিয়মিত দিব।

ষষ্ঠ পর্ব

আয়নায় নিজের প্রতিবিম্ব দেখল আফিফ। এক ঝাপটা পানি দিল মুখে। প্রশান্তি ছুঁয়ে গেল চোখ মুখে। একটু আগের নিশান্তিকার বোকা বোকা চেহারার ভাবটা মনে করে আফিফ মুচকি হাসল।

নিশান্তিকাকে তুতলানোর সময় কি বোকাটাই লাগছিল।

রুম থেকে কিছু পরে যাওয়ার আওয়াজ পেল আফিফ। দুবার নিশান্তিকা বলে ডেকেও সাড়া পেল না। চোখ মুখে প্রশান্তি মেলাতে আরেক বার পানির ঝাপটা দিয়ে বেরিয়ে এলো।

নিশান্তিকার কাঁদো কাঁদো মুখের দিকে তাকিয়ে আফিফ থমকে দাঁড়ালো। আফিফকে দেখা মাত্র নিশান্তিকার গলা পাকিয়ে এলো কান্নায়, হুট করে কেঁদে ওঠে নিশান্তিকা।

আফিফ এগিয়ে এসে নিশান্তিকার বাহুডোর চেপে ধরে,
~ নিশু, এই কান্না করছ কেন? কি হলো, এই বোকা মেয়ে।

নিশান্তিকা কাঁপা হাতে মোবাইল এগিয়ে দিল, ম্যাসেজ অপশনে দীপ্তের নাম দেখে আফিফ হকচকিয়ে গেল। নিজের উপর বিরক্ত হয়ে মোবাইল বিছানায় ছুড়ে মারল।

~ নিশু, কান্না থামাও বলছি। একদম কাঁদতে না। দীপ্ত এমনি, পাগল ছেলে। ছাড়তো ওর কথা। নিশু প্লিজ। সকালবেলা মুড অফ করছ কিন্তু এবার।

নিশান্তিকা চুপিচুপি একপাশে দাঁড়িয়ে আছে। আফিফের কথার মানে সে কিছুই বুঝছে না। দীপ্তর ম্যাসেজ কি সে দেখেনি। এখনো স্বাভাবিক রিএক্ট করছে!

~ দী দীপ্ত তোমার দাদিমাকে নিয়ে হসপিটালের আছে। দাদিমা রাতে স্টোক করেছে।

নিশান্তিকার কাটা কাটা বাক্যের কথায় আফিফের দম বন্ধ হয়ে আসল। বিছানায় বসে পরল ধপাস করে, হাত থেকে টাওয়াল টা নিচে পরে গেল।

হসপিটালের বারান্দায় গ্রিল ধরে মাথা নীচের দিকে দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আফিফ। দীপ্ত করিডোর দিয়ে হেঁটে এসে আফিফের কাঁধে হাত রাখে। এতটুকু সময়ের মাঝে আফিফের মুখ বিধ্বস্ত দেখাচ্ছে। যেন সে কত দিনের ক্লান্ত পথিক। মুখে কোনো আনন্দের অনুভূতি চিহ্ন নেই।

আফিফের ভরসার হাত দীপ্ত। ভাই হোক বা বন্ধু হিসেবে, সব সময় পাশে পেয়েছে। আফিফের আপন পরিবার বলতেই যে দীপ্ত আর দাদিমা। আফিফ সোজা দাঁড়িয়ে ক্ষীণ আওয়াজ করল।
~ দীপ্ত!

~ ভয় নেই, দাদিমা এখন আউট অফ ডেঞ্জার।

দীপ্ত সহসা বলে ওঠল। আফিফ মাথা ঝুলিয়ে নিচু স্বরে বলল।
~ খুব ভয় করছিল। মনে হচ্ছিল দাদিমার হাসি মুখটা দেখতে পাব তো? আমার অনুপস্থিতিতে দাদিমার কিছু হয়ে যেত, তবে নিজেকে ক্ষমা করতে পারতাম না কখনও।

~ দেখ, দাদিমার বয়স হয়েছে, রেস্টের প্রয়োজন। তোকে নিয়ে সব সময় কনসার্ন থাকেন। গত রাতেও এ নিয়ে আলোচনা করেছে।
আফিফ জোরে আকাশের দিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলে।

ঘুরে দাঁড়িয়ে গ্রিলে পিঠ ঠৈকায়। দেখতে পায় নিশান্তিকা চুপচাপ করিডোরের এক কোনে বসে আছে।

একজন নার্স এসে জানায় পেসেন্টের জ্ঞান ফিরেছে, প্রশান্তি হেসে ছলছল চোখে আফিফের দিকে তাকায় নিশান্তিকা। আফিফ মৃদু হেসে ইশারা দেয়, নিশান্তিকা চোখের জল মুছে কেবিন নম্বর ১৩ রুমে ঢুকে।

~ তুই গতরাতে নিশান্তিকার বাসায় কাটিয়েছিস, আমি স্বপ্নেও ভাবতে পারছি না।

দীপ্তের কথায় ক্ষোভ প্রকাশ স্পষ্ট।
~ ভাই দীপ্ত, তুই যা ভাবছিস, লম্বা দম নিয়ে আবার বলে, নিশান্তিকা ওমন মেয়ে নয়।

দীপ্ত সহসা উঁচু গলায় বলে ওঠে,
~ আমি ওকে নিয়ে কিছুই ভাবছি নাহ্। ভাবছি তুই কতটা বদলে গেছিস। তুই আমার বন্ধু ছিলি? একটি শান্ত শিষ্ট অমিশুক ছেলে একটি মেয়ের বাসায় রাত থাকার সাহস দেখাতে পারে। সে আমার বন্ধু আফিফ নয়।

দীপ্ত খুব বিরক্ত আফিফের কর্মকাণ্ডে। কাছের বন্ধুর বদলে যাওয়া কেউ মেনে নিতে পারে না, দীপ্তও পারছে না। আফিফ বুঝতে পারে দীপ্ত খুব রাগ করেছে। খুব বেশি।

~ সরি দীপ্ত। আমি…

আফিফকে থামিয়ে দিয়ে দীপ্ত বলে,
~ তোর মুখে সরি মানায় না আফিফ।

হাত রেখে বলে,
~ পরিস্থিতি আমায় বাধ্য করেছিল দীপ্ত।
দীপ্ত এড়িয়ে যাওয়ার মত বলল,
~ কি বলতে চাস, খোলাখুলি বল।

আফিফ যেন এটাই চাইছিল, একটা সুযোগ। মুচকি হেসে বলে ওঠে,
~ তখন সন্ধ্যা রাত, মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। আমরা দুজনে গেটের একট দূরে দাঁড়িয়ে ছিলাম, ভিজে গেছিলাম প্রায়।
~ বাহ্। রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভিজছিলি।

দীপ্ত ব্যঙ্গ সুরে বলল। আফিফ সহসা বলে ওঠল,
~ নিশু আমায় ছাতা দিতে এসেছিল। আমি আটকে রেখেছিলাম ওকে। সেই সময় বৃষ্টি বেড়ে যায়। হঠাৎ দেখি…

আফিফ থেমে দীপ্তের দিকে তাকায়। দীপ্তের চোখ মুখে উদগ্রীব হয়ে আছে।
~ তারপর?

দীপ্ত এবার কথায় মনোযোগ দেয়। আফিফ দীপ্তের আগ্রহ বুঝতে পেরে মনে মনে হেসে বলতে থাকে একের পর এক ঘটনা।

~ হঠাৎ দেখি, দুটি ছেলে গেটের মুখে দাঁড়িয়ে আমাদের দেখছে। খুব সতর্ক সহকারে। হাতে কিছু একটা ছিল। অন্ধকারে বুঝা যাচ্ছিল না।

দীপ্ত চমকে ওঠে। ভয় পায় সহসা। কোন খারাপ কিছু শুনার অপেক্ষার সময় যেমন মানুষ ভয় পায়, ঠিক তেমনি হচ্ছে দীপ্তের মাঝে। আফিফকে নিয়ে সব সময় সে টেনশনে থাকে।

~ কি বলিস, তারপর…

~ অদ্ভুত, আমরা এগিয়ে যেতেই ছেলে দুটি অন্ধকারের আড়ালে মিলিয়ে গেল। হয়ত চলে গেছিল।

দীপ্ত শুনে কিছুক্ষণ থেমে বলল,
কিন্তু, তোরা ওখানে দাঁড়িয়ে ছিলি কেন?বৃষ্টি ছিল, বাসায় চলে যেতি।
আফিফ থেমে যায় দীপ্তের কথায়। এখন সে কি বলবে। প্রেমের বিষয় কথাটা কি বলা উচিত হবে।

হায় আল্লাহ, এ কি ভাবছে সে। তার মাঝে কি তবে সত্যি পরিবর্তন এসেছে। নিজের কলিজার টুকরো বন্ধুর থেকে সে কথা লুকাতে চাইছে। কিন্তু এখানে তো যুক্তি আছে। বিষয়টা নিশান্তিকা জড়িত। বিষয়টি আফিফের হলে এত ভাবতে হত না তার।

দীপ্ত আফিফের এক পাশে হালকা ঝাঁকি দিয়ে আবার জিগ্যেস করে। প্রেমের বিষয় বলে দেয় আফিফ। দীপ্তের চোখ মুখে কঠিন ভাব আসে।
তখনি নিশান্তিকা
কেবিন থেকে বেরিয়ে আসে…

সপ্তম পর্ব

নিশান্তিকা কেবিন থেকে বেরিয়ে আসে। আফিফ মুচকি হেসে গলার স্বর নীচে নামিয়ে কথা বলে দীপ্তের সাথে। নিশান্তিকা দূরে দাঁড়িয়ে ডাকে,
~ আফিফ
~ হ্যাঁ
~ দাদিমা এখন সুস্থ আছে, তুমি এসো।
~ আসছি।

আফিফ হাতের ইশারায় বলে আসছি। নিশান্তিকা আবার কেবিন নম্বর ১৩ রুমে ঢুকে যায়।

নিশান্তিকা চলে যাওয়ায় দীপ্ত আবার কথায় মনোযোগ দেয়।
~ তারপর, কি হলো?

~ তারপর, নিশান্তিকা কাঁপছিল, ভয়ে নয়তো ঠান্ডায়। আমার চেপে ধরল। তখন আমি কি করে একা ছেড়ে আসতাম, তুই বল।
আফিফ মুখ তুলে দীপ্তের চোখের দিকে তাকায়। দীপ্ত সহসা কিছু বলে না। পরবর্তী অংশ বলতে বলে।

~ বাসা সম্পূর্ণ ফাঁকা। ওকে নিয়ে গেট বন্ধ করে বাসায় গেলাম। নেহাল এসে আকরে ধরল। বৃষ্টি হচ্ছে বলে, নেহালকে যে দেখাশোনা করত, সেও চলে গেল। রুমে এসে মাথা মুছে ভাবছি, এখন কি

করব। ফোনটাও বন্ধ, বৃষ্টির মাঝে আমি বেরিয়ে যাই, তবে মাঝ পথে খোঁজ নিতেও পারব না। ভয় হচ্ছিল, যদি নিশান্তিকা নেহালের কোনো বিপদ হয়!

আফিফের কণ্ঠে উৎকন্ঠা। তবুও দীপ্ত নিজের জায়গায় সচল। কঠিন সুরে বলল,
~ তাই ভেবে থেকে গেলি, হুহ্!

আফিফ দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বসে। দীপ্তকে বুঝাতে পারছে না। কি করেই বা পারবে, যদি দীপ্ত না বুঝে। আসলে আমরা সকলে নিজ নিজ জায়গা থেকে সঠিক ভেবে বসে থাকি। অন্যর ভাবনাটা আমাদের সাথে মিলতে চায় না। আফিফ আবার বলে,

~ নিশান্তিকা এসে অনুরোধ কলল, যাতে থেকে যাই। নেহালও ছাড়ছিল না। আর জানিস, আমার মনে হচ্ছে রাতে ঐ দুটি ছেলে ঢিল ছুড়েছে।

দীপ্ত ভ্রু কুঁচকে ওঠল,
~ ঢিল ছুড়েছিল?
~ হ্যাঁ
~ ঔ ছেলে দুটি?

~ হয়ত, অন্ধকারে স্পষ্ট দেখি নি। তবে, ছেলে ছিল।
~ আচ্ছা আমি বিষয়টি দেখছি।

আফিফ মাথা ঝুলিয়ে হাসে। খুশি হয়।

~ তবে, আফিফ, নিশান্তিকার বাবা~ মা এসে যদি এসব জানতে পারে তখন কিন্তু বিষয়টি হাতের বাহিরে চলে যাবে।
~ দীপ্ত, আমি তখন এতকিছু ভাবিনি, ওদের সেইফ করাটাই মাথায় ঘুরছিল।

~ কিন্তু, তুই ভুলে যাচ্ছিস, প্রেম জানে। হয়ত ওই এসব করেছি।
আফিফ মুচকি হেসে ঠাণ্ডা মাথায় দীপ্তকে বুঝায়।
~ দীপ্ত, ভাই আমার, তুই বেশি ভাবছিস। প্রেম এসব কেন করবে, আর কেনই বা বলবে?

~ ভুলে যাস না, প্রেমের সাথে এক সময় ওই মেয়েটার রিলেশন ছিল।
~ একটা সময় ছিল, এখন নেই। নিশান্তিকা খুব সিরিয়াস টাইপের মেয়ে, প্রেমের জীবনে ও আর কোনে দিন ফিরবে না। ট্রাস্ট মি।
দীপ্ত তবুও ভাবে। তার প্রাণপ্রিয় বন্ধু এসবের মাঝে জড়িয়ে যাচ্ছে। সে মানতে নারাজ।

~ আফিফ আমি সত্যই এত কিছু জানতে চাই না, ভাবতে চাই না। তবে,

~ তবে,
~ তুই নিশান্তিকাকে নিয়ে বেশ সিরিয়াস, সেটা বুঝতে পারছি, ক্রমশ জড়িয়ে যাচ্ছিস। বিষয়টি আমায় খুব ভাবাচ্ছে।

দীপ্তের কথার অর্থ আফিফ বুঝতে পারে। বুকে সাহস সঞ্চয় করে সহসা বলে,

~ আমিও সত্যিই জানি না, ভালোবাসা হারালে মানুষ কি ভাবে বাঁচে। তবে নিশান্তিকাকে হারালে আমি মরেই যাব।

দীপ্ত যেন পাথর হয়ে গেছে। নড়ছে না, শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতিতে সে আটকে আছে। যে ছেলে নিজের কিসে ভালো বুঝেনা, সে অন্যর জন্য মরার কথা ভাবছে। তার বন্ধুকে সে মরতে দিবে না, কথা বলতে গিয়েও পারল না, গলাটা শুকিয়ে থমকে আছে।
~ আফিফ!

আফিফ অপরাধীর মত মাথা নীচু করে রেখে ধীরে ধীরে বলল,
~ আমি সরি দীপ্ত, তোর কথা মানতে পারিনি, নিশান্তিকাকে আমি সত্যিই খুব ভালোবাসি।

মন সায় দিল, এ মানুষটাকে ভালোবাসা যায়, ছিঁড়া যায়, আনন্দের সাথে সময় কাঁটানো যায়, নিশ্চিন্তে পাশে বসিয়ে দূর দিগন্তে পারি দিয়া যায়। যতটা পরিমান ভালোবাসা যায়, আমি ততটাই বেশি ভালোবাসি।

দীপ্ত বাকরুদ্ধ। যে ছেলেটা সারাদিন বইয়ে মুখ গুজে থাকত, কথা বলতে পছন্দ করত না, অপরিচিত মানুষের সাথে কথা বলতে পারত না, আজ সে ভালোবাসার কথা কত অনায়াসেই বলে দিল।
~ বিয়ে করবি নিশুকে?

আচমকা দীপ্তের মুখে এ কথা শুনে আফিফ চমকে ওঠল। যেন অবিশ্বাস্য। দীপ্ত সহসা উঁচু স্বরে হেসে ওঠে বলে,
~ কি রে বল। লজ্জা পাচ্ছিস, ছোট বেলার মত।

আফিফ মুচকি হেসে মাথা নিচু করে রাখে। লজ্জা পেয়েছে সে।
~ পারলে তো এখনি করে নিতাম। ওর সামনে ভালোবাসি বলতে চাইলেই গলা আটকে আসে।

~ আব্বে, বোকা ছেলে, যখন তখন ভালোবাসার কথা কেউ বলে নাকি।

আফিফ মাথা তুলে ভ্রু কুঁচকে বলে,
~ ভালোবাসি বলব নাহ্।

~ বলবি তো, তবে স্পেশাল থিওরি দিয়ে।
~ থিওরি! সেটা কি।

~ শুন আমি বুঝিয়ে দিব। তুই শুধু প্রস্তুতি নিয়ে বলবি, কবে বলবি। আর শুন, ঔই মেয়েটি যদি তোর ভালোবাসা গ্রহণ না করে, তবে আমি ওখানেই মেরে পুঁতে রাখব। বলে দিলাম।

আফিফ উঁচু স্বরে হেসে ওঠে দীপ্তের পাগলামি দেখে। একটু আগেও যে কিনা শাসন করছিল।

~ হ্যাঁ, ভালোবাসি খুব, বলে দিব।
দুপুর চারটে,

চারটে বেজে গেছে, সকাল এখনো ক্যাম্পাসে দাঁড়িয়ে। বারোটা থেকে সে প্রেমের অপেক্ষায় বসে আছে, অথচ প্রেমের আসার খবর নেই। এতদিন পর সে সুযোগ পেয়েছে, বাসা থেকে বেরিয়ে প্রেমকে একনজর দেখার। সময় যেতে থাকল ক্রমশ, বাসায় ফিরলে রাগ ঝারবে সবাই, তবুও বসে আছে প্রেমের অপেক্ষায়।

চারটা বিশে ক্যাম্পাসে এসে গাড়ি থেকে নামল প্রেম। এতক্ষণ তার সাথে নিশান্তিকা আর নেহাল ছিল। হসপিটাল থেকে ওদের পিক~ আপ করে রেস্তোরাঁয় গিয়েছে, এরপর শপিংমল। বাসায় পৌঁছে দেওয়ার সময়ও প্রেম বলেনি নিশান্তিকাকে সকালের সঙ্গে দেখা করবে। কারণ, নিশান্তিকা জানলে তাকে তখনি আসতে হত। যেই সময়টা প্রেম হাতছাড়া করতে চায় নি।

প্রেমকে দেখা মাত্র সকাল দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরল। দু~ চোখ ভরে নোনাজল গড়িয়ে পরল প্রেমের বুকে।

~ এত লেট করলে কেন? কত কষ্ট হচ্ছিল জানো।
~ সরি, তেমায় আর কষ্ট পেত দিব না।

সকাল মাথা তুলে তাকিয়ে বলল,
~ আমি তোমার কাছে চলে আসব প্রেম।

প্রেম মুচকি হেসে সকালের গালে লাগা জল মুছে দেয়। হাতের শপিং ব্যাগ সকালের হাতে দেয়।
~ এতে কি আছে?

ব্যাগে বেনারসি আর কিছু অর্নামেন্টস আছে। সকাল ছলছল চোখে প্রেমের দিকে তাকায়। আবারও জড়িয়ে ধরে শক্ত হাতে।

প্রেম খেয়াল করে সকাল আগপর থেকে শুকিয়ে গেছে। শরীরের যত্ন নেই। চোখ দুটি কোটরের ভিতর চলে গেছে। চোখের নিচে কালি জমেছে, হাত পা মুখ বিবর্ণ কালচে দেখাচ্ছে।

~ সকাল, আমায় একটু সময় দিবে এখনি।

~ এখনি। সকাল ভিজানো গলায় বলল। প্রেম জোর দিয়ে বলল,
~ হ্যাঁ এখনি
~ কিন্তু বাসায় ফিরতে রাত হয়ে যাবে।
~ আমি তোমায় পৌঁছে দিব।

~ হ্যাঁ, কিন্তু, কোথায় যাব।
~ চলো, আমার বাসায়।

সকাল মাথা নেড়ে প্রেমের সাথে গাড়িতে গিয়ে বসে।

অষ্টম পর্ব

ভোর হয়েছে, পিচঢালা রাস্তায় হালকা কুয়াশার বুকে হিরহির হাওয়া বয়ে চলছে।

ভোর পাঁচটা বাজে। দীপ্ত সবাইকে নিয়ে পিচঢালা রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে। প্রেম গিয়েছে সকালকে এগিয়ে আনতে। সামনেই কাজির বাসায় যাবে সকলে।

নিশান্তিকা দাদিমার কাছে নেহালকে রেখে এসেছে। আফিফ ঘুমের কারণে ঢলতে ঢলতে নিশান্তিকার হাত ধরে হেঁটে এসেছে এতদূর।
গতকাল রাত ৮টায় দাদিমাকে নিয়ে বাসায় ফিরেছে আফিফ। নিশান্তিকা সেখানেই উপস্থিত ছিল। যাতে খুব ভোরে দুজনে মিলে সকালকে নিয়ে কাজির বাসায় পৌঁছাতে পারে।

গভীর রাত পর্যন্ত দুজনে গল্প করে কাটিয়ে দিয়েছে। যার ফলাফল আফিফের ঘুম পূর্ণ হয় নি।

~ এই আফিফ, এবার ওঠে দৌড় দে নয়তো…
দীপ্তের কথায় ভ্রুক্ষেপ করল না আফিফ। হাই তুলে চোখ ডলতে ডলতে বলল,

~ ওদের বিয়ের কাজ শেষ? আমরা যাই তবে।

দীপ্ত সহসা তীক্ষ্ণ দৃষ্টি আকর্ষণ করে তাকায় আফিফের দিকে। আফিফ মাথা ঝুলিয়ে নিচু স্বরে বিরবির করে। নিশান্তিকার দিকে তাকিয়ে দেখে, সে ঠোঁট টিপেটিপে হাসছে। আফিফ সহসা বোকাসোকা ভাবে চলে যায়।

নিশান্তিকার মন মেজাজ আজ বেশ ফুরফুরে। লাল শাড়ি পরেছে, চোখে গাঢ় কাজল, ঠোঁটে লিপিস্টিক লাগিয়েছে, দু~ হাতে কাঁচের চুরি। ভাইয়ের বিয়ে বলে কথা, যদিও সে আফিফের কথায় সেজেগুজে এসেছে। যেন এক শুভ্র নির্মল নিষ্পাপ লাল টকটকে কনে পরী।

নিশান্তিকার হাত চেপে ধরল আফিফ। হাত দিয়ে ইশারায় দেখালো প্রেম সকালকে নিয়ে এগিয়ে আসছে। আফিফ হাত চেপে হাঁটার গতি বাড়ালো।

~ আফিফ, ওরা আসছে। আমায় টেনে কোথায় নিয়ে যাচ্ছ।
~ নিশু, গতরাতে বলেছিলাম তোমায় একটা জায়গায় নিয়ে যাব, সেখানেই।

দুজনেই কুয়াশার বুকে লুকিয়ে গেল। দীপ্ত প্রাণ খুলে হাসলো। নিশান্তিকা কত সহজেই আফিফের সাথে মেতে আছে। এটা দেখে সে খুশি হয়েছে ভীষণ। বন্ধুর সুখের ঠিকানা খুঁজে পেয়েছে, এ সময় তাকে যে পাশে থাকতেই হতো।

ছোট একটি গার্ডেন বাড়ি। চারপাশে শুধু ফুলের সমাহার। একটি বেঞ্চে আফিফ আর নিশান্তিকা বসে আছে। ফুলের সুবাসের হাওয়া বয়ছে ধীরে ধীরে।

চারপাশে ফুলের টপ, কিছু ফুলের গাছ লাগানো। ফুলের সুবাসে টানে উড়ে এসে কলির ওপর বসেছে উড়ন্ত ভ্রমর। নিশান্তিকার চোখ আটকে যায় রঙ্গন ফুলের ওপর। কি সুন্দর ছোট ছোট পাপড়ি, লাল টকটকে।

নিশান্তিকা এ বাড়িতে আগেও এসেছে। বহুবার এসেছে। প্রথম যেদিন এসেছিল, সেদিন দেখা হয়েছিল

আফিফের সঙ্গে। বেঞ্চে চাদর মুড়িয়ে শুয়ে আছে একটি ছেলে, উষ্কখুষ্ক চুল, বিবর্ণমুখ, বিষেদে ভরপুর দু~ চোখে।

বেঞ্চের সামনেই ছিল একটি কবর। কবরের পাশে ছিল, লাল সাদা রঙের গোলাপ ফুল।

গোলাপের পাপড়িগুলো একের পর এক ঝরে পড়ছিল কবরের ওপর। সেদিন জানতে পারে কবরটি আসলে আফিফের মায়ের। প্রায়শই এখানে সে রাত কাটায়।
নিশান্তিকা সেদিনের পর থেকে প্রায় আসা যাওয়া করত।

কিন্তু আফিফের দেখা মিলত নাহ্। খুব মায়া হতো আফিফের মায়াবী মুখের দিকে তাকিয়ে। যারা ভালোবাসার কাঙাল হয়, তারা অনেক মায়াবী মুখের হয়। শান্ত গঠন, খুব সহজ সরল। আফিফ সেরকমই একটি ছেলে। এক অজানা মায়ার টানে নিশান্তিকা বারবার এখানে আসত।

হঠাৎ একদিন পিচঢালা রাস্তায় দেখা হয় দুজনের। এরপর ক্যাম্পাসে, বইমেলায়, নেহালের স্কুল গেটে। আফিফ বলত, ফুলের টপ দিতে এসেছে, তাই শুনে নিশান্তিকা মনে মনে হাসত। ছোট ছোট কথায় কথায় দুজনের মাঝে গড়ে ওঠে এক গভীর মমতার বন্ধুত।

তুমি আমার বর্ণনাহীন প্রেম প্রেয়সী,
আমার হৃদয়ের অব্যক্ত ভালোবাসা।

তুমি তো লতাবিহঙ্গের মত জড়িয়ে থাকা,
আমার অনুভূতিতে শিহরণ জাগানো আশা।

রজনীগন্ধার মন মাতানো সুবাসের মতো,
আমাকে মোহিত করে তোমার অনুভব।

গোলাপের পাপড়ির আলতো স্পর্শের মতো,
তোমার ছোঁয়ায় আমি যেন ভুলে যাই সব।

ঝিনুকের বুকে লুকিয়ে থাকা মুক্তোর মতো,
তোমার মাঝেই আমি ডুবে যেতে চাই।

আমি যে তোমার চাতক পাখি,
তোমার হৃদয় খাঁচায় দিও গো ঠাঁই।

তোমাতেই আমার ভানার সমাপ্তি হয়,
তুমিই তো আমার কল্পনার পারম্ভীকা।

তোমাকে তোমার চেয়েও বেশি ভালোবাসি,
তুমিই তো আমার ভালোবাসা নিশান্তিকা।
(সিহাব আহমেদ)

নিশান্তিকা অস্থির ভাব প্রকাশ করল। আফিফ হুট করে এত কিছু উপহার দিবে, ভাবতেও পারে নি। বেশ কিছুক্ষণ পর নিশান্তিকা নিচু স্বরে বিরবির করে বলল,

~ কবিতার শব্দগুলো খাপছাড়া হয়ে গেল না, লেখক সাহেব!
আফিফ হেসে নিশান্তিকার হাতের মুঠোয় নিয়ে বলে,
~ আমি মানুষটি যে খাপছাড়া, তাই আমার কবিতা গুলোও খাপ বিহীন।

মজার ছলে নিশান্তিকা বলে ওঠে,
~ লাগাম ধরতে দিচ্ছেন না কেন, কাউকে?
~ তোমায় তো বলছি, ধরছ না কেন!

দমে যাওয়ার মেয়ে নিশান্তিকা নয়, সেও জোর কদমে বলে,
~ আপনি তো লেখক মানুষ, হাজারও মেয়ে আপনার প্রেমে দেওয়ানা, একপ্রকার পিছনে লাইন লেগে আছে।

একজনকে ধরিয়ে দিন।

~ প্রিয়, তাদের যে তোমার মত দীঘল কালো কেঁশ নেই, নীল হরিণী চোখের মায়া নেই, তীক্ষ্ণ দৃষ্টির ছায়া নেই, খাড়া নাকের ডগায় লাল বিন্দু নেই, আলতা রাঙা পায়ের নূপুরের ঝনঝন শব্দ নেই, কোমল হাতের স্পর্শ নেই, মোলাম গোলাপি ঠোঁটের মুচকি হাসি নেই। ভালোবাসি বলার নরম মিষ্টি সুরের কণ্ঠ নেই। তাদের ভালোবাসি কি করে বলো!

~ ওহ্! আচ্ছা। এতেই আমার ভালোবাসার কারণ। যদি হয়ত বা আমি কুৎসিত হতাম, তখন…
নিশান্তিকার অভিমান হয়। তাই সে গম্ভীর হয়ে বসে থাকে। যদিও সে আফিফের প্রশংসায় আপ্লুত হয়েছে।

আফিফ মুচকি হেসে বলে,
~ হুম হয়ত বা তুমি আমার চোখেই পরতে না।
~ সত্যি কি তাই? নিশান্তিকার অভিমান গাঢ় হয়।
~ সত্যি তাই, এটাই বাস্তব।

~ যেদিন আমার বয়স হয়ে যাবে, তখন তো কুঁকড়ানো সাদা চুল হবে, চোখের জ্যোতি কমে যাবে, দৃষ্টির ছায়া হারিয়ে য়াবে, মোলাম ঠোঁটে শুষ্কতা বিরাজ করবে, কণ্ঠে আসবে রুক্ষতা, কোমল হাতের স্পর্শ হবে খসখসে, তখন…

~ ততদিনে তোমার ভালোবাসার আঙিনায় আমি ছেয়ে যাব। মধুর তৃষ্ণা মিটে যাবে। শখ আল্লাদ ধীরে ধীরে থেমে যাবে। তোমার কোলে মাথা রেখে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করার অপেক্ষার প্রহর গুনব।

নিশান্তিকা আজও ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে দেখে আফিফের চোখ ~ মুখে। অদ্ভুত এক মায়া, কত সুন্দর ভাবে পাগলামিতে মেতে থাকে প্রেমিক পাগল ছেলেটা। প্রেমিক পাগল না~ হলে এমন ভাবে এ কথা কেউ, কখনো, কোনদিন কাউকে বলেছে? এত ভালোবাসে ছেলেটা তাকে!

সে কি তার ভাগ্যলিখনে লেখা আছে!
আফিফ মুচকি হেসে নিশান্তিকার হাত দুটো বুকের বা পাশে আগলে রেখে বলে,

~ তোমায় এত ভালোবাসি যে প্রথম দিনের চুম্বনটি হুট করেই দিয়েছিলাম সহজেই। ভুলেই গেছিলাম আমার প্রতি মুহূর্তের ভালোবাসার মানুষটিকে বলাই হয়নি, ভালোবাসি।

প্রতি মুহূর্তে তোমার অনুভূতি, কেয়ারিং আমায় আগলে রাখতে যে ভুলেই গেছিলাম আমি তোমার কাছে অধিকারের দিক থেকে অপরিচিত। অথচ, তুমি আমার হৃদয় জুড়ে সবটা আছো। আমার ভালোবাসা নিশান্তিকা।

আফিফের অনুভূতি প্রকাশে নিশান্তিকা বাকরুদ্ধ। এতটা প্রশান্তি সে কোনোদিন উপভোগ করে নি। আজ তাদের সম্পর্কের একটি পরিচয় হলো। আফিফের হৃদয়ের ধুকধুক কাঁপনিতে নিশান্তিকার হার্টবিট জোড়ছে ধকধকানি বাড়তে থাকলো। এত লজ্জায় সে কখনোই পড়ে নি।

আফিফ লাল শাড়ির আচল টেনে ঘোমটা দিয়ে দিল নিশান্তিকার মাথায়। নিশান্তিকা লজ্জা পেয়ে নত মাথায় বসে রইল।
~ বাহ্, ঘোমাটায় তোমায় সত্যি নতুন বউ বউ লাগছে।

নিশান্তিকা লজ্জা রাঙা মুখে মুচকি হাসে। গালদুটো রঙ্গন ফুলের মত লাল টকটকে হয়ে যায়।

নবম পর্ব

উত্তপ্ত দুপুর, সূর্যের তীক্ষ্ণ রশ্মি পৃথিবীর বুকে উত্তাপ ছড়াচ্ছে। চারপাশে আলোয় চকচক করছে ভীষণ। পৃথিবীও যেন শান্ত নেই, যে যার মত জীবনের সাথে লড়ে যাচ্ছে। কেউ সুখে আছে, অথবা কেউ ভীষণ দুঃখে আছে।

কেউ এই বাহিরের উত্তপ্ত দুপুরের রোদের তীক্ষ্ণ রশ্মির সাথে মিলে ছুটে চলছে, যতদূর পথ দেখা যায়, ছুটেই চলছে, কেউ বা বিষন্নতা একাকীত্বের বেদনায় ঘর বন্দী পড়ে আছে। বাহিরের তীক্ষ্ণ রশ্মিতে তার শরীর মন হিরহির করে জ্বলে ওঠছে। জীবনের মানে খুঁজে চলার নিয়মেই চলছে এ পৃথিবী।
নিশান্তিকা আজ জীবনের মানে খুঁজে পেয়েছে। আফিফকে আঁকরে ধরে সে এজীবন কাটিয়ে দিবে। প্রিয় মানুষটি সাথে থাকলে সে সময় হয় স্বর্গের সমতুল্য। নিশান্তিকার মনেও আনন্দের সঞ্চার সৃষ্টি হয়েছে।

পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তায় দুপুরের রোদের ঝিকিমিকি আলোর রেখার মাঝে দুজনে হেঁটে চলছে। যেখানে কোনো ক্লান্তি, অবসাদ নেই। মনের ভিতর পুষ্পরিত নতুনত্বের কলি জেগেছে। অনুভূতির চাদরে দুজনে মুড়িয়ে হেঁটে চলছে তাদের গন্তব্যে। এ গন্তব্য যেন এখানেই থমকে দাঁড়ায়।
~ আফিফ, সকাল~ প্রেমের বিয়ে হয়ে গেছে এতক্ষণে বলো।
আফিফ প্রসন্ন হাসির রেখা টানল ঠোঁটে। নিশান্তিকার চোখ~ মুখে এত বেশি খুশির ঝলক সে কোনোদিন দেখেনি। আফিফ মাথা ঝাকিয়ে নিশান্তিকার এক হাত শক্ত করে ধরে রাখল। নিশান্তিকা প্রসন্ন হেসে আফিফের দিকে তাকায়।
~ নিশু,আজ তুমি খুব খুশি।

~ খুব খুশি। এই খুশি যেন আমার আজীবন থাকে।
~ থাকবে, কারণ আমি তোমার পাশে আছি।
নিশান্তিকা লজ্জা রাঙা মুখে মুচকি হেসে মাথা নিচু করে হাঁটতে শুরু করল। আফিফের প্রতিটি কথায় এখন তার লজ্জা ছুঁয়ে উড়ে বেড়ায় চারপাশে।
~ নিশু, এই শুনোনা।
নিশান্তিকার বুকের মাঝে ধুকপুক শুরু হয়ে যায়। এমন আদরে ডাক আফিফের মুখে সে কোনোদিন শুনে নি। অজানা আনন্দে তার মন পুলকিত হয়ে ওঠে। অস্থিরতা বাড়ে হৃদয়ে, যেন এই আবার আফিফ বলে ওঠবে, নিশু, এই শুনোনা।
নিশান্তিকার থেমে দাঁড়াতে আফিফ আবার হেসে বলে,
~ এই নিশু
~ হুমম, নিশান্তিকা জড়ানো সুরে হুমম বলে। আফিফ সহসা মুচকি হেসে বলে,
~ বলছি, চলো না আজ আমরা দুজনে বিয়ে করে নেই।

নিশান্তিকার সর্বাঙ্গে কাঁপুনি ওঠে যায়, সারা শরীরে শিহরণ বয়ে চলে ধীরে ধীরে। ভিতরে ভিতরে অদ্ভুত রকমের কাঁপুনি ওঠে নিশান্তিকা, অথচ বাহির থেকে সে স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।
যখন প্রিয় মানুষটি বলে বিয়ে করে নেই,তখন সেই মেয়েটির কতটা আনন্দ হতে পারে,অন্য কেউ তা পরিমাপ করতে পারবে নাহ্ কখনো।
নিশান্তিকার মনে হলো সে বারবার শুনছে, আফিফ বলছে, নিশু এই শুনোনা, চলোনা বিয়ে করে নেই এখনি।
উত্তপ্ত দুপুর থমকে দাঁড়ালো, ঝিরিঝিরি হাওয়া শো শো শব্দ করে বয়ে গেল। পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তার চারপাশে আলোয় আলোকিত হয়ে আনন্দের বাজনা বাজিয়ে দিল, অদ্ভুত অনুভূতিতে ছেয়ে গেল পিচঢালা রাস্তার চারপাশ। সেই সাথে নিশান্তিকা মনে আনন্দের ঝড় বয়ে গেল।

দুপুর দেরটা, পরিশ্রান্ত লাগছে চারপাশের পরিবেশ, একেবারে থমথমে। এক গুমোট পরিস্থিতি বিরাজ করছে। যেন খানিক পরে পরিবেশ ঝড় ওঠবে, বিশাল ঝড়।
লং~ টাইম অতিবাহিত হওয়ার পর নিশান্তিকা আর আফিফ ফিরে এলো কাজির বাড়ির সামনে।

প্রেমেদের এখানেই থাকার কথা ছিল। দীপ্ত আজ সকাল থেকে আফিফকে আর বিরক্ত করেনি। সারা সময়টা সে নিশুর সঙ্গে একান্তই কাটাতে বলেছে।
নিশান্তিকা হতবাক দাঁড়িয়ে রইল বেশ কিছুক্ষণ। থরথর করে কাঁপতে থাকল সে, কপাল বেয়ে ঘাম বেরিয়ে চলছে,রোদের আলোয় চিকচিক করছে মুখের ছায়ায়। উত্তপ্ত দুপুরের সূর্যের তীক্ষ্ণ রশ্মি নিশান্তিকাকে বিরক্ত করে চলছে অনবরত। চারপাশের কোলাহলে সে চোখে ঝাপসা দেখতে পাচ্ছে ধীরে ধীরে। মনের ভিতর ধুকধুক করছে, অজানা ভয়ে,আশংকায় গলা শুকিয়ে আসছে। ঢোক গিলতে কষ্ট হচ্ছে তার, অনবরত জোরে জোরে শ্বাস ওঠানামা করছে।

কাজি সাহেবের বাড়ির সামনে ঝটলা বেধেছে। দু’টি এম্বুলেন্সসহ পুলিশের গাড়ি। চার~ পাঁচজন পুলিশ কর্মকর্তারা এদিক সেদিক দেখছে আর কথা বলছে। কাজি সাহেব মাথায় হাত দিয়ে দুয়ারে বসে আছে। হসপিটালের লোকজন, মানুষের কথার আনাগোনা নিশান্তিকাকে প্রচণ্ড রকম অস্থির করছে। এম্বুলেন্সের হর্ণের অনবরত শব্দ মাথার ভিতর করাঘাত করেই চলছে। কত অসহ্য যন্ত্রণা হচ্ছে।
আফিফ শক্ত করে নিশান্তিকাকে জড়িয়ে নিয়ে সামনে এগিয়ে যায়। দীপ্ত এক পুলিশ কর্মকর্তার সাথে কথা বলছে। আফিফকে দেখে এগিয়ে আসে। চোখ~ মুখে বিধস্ত প্রতিচ্ছবি। আফিফের চোখে হাজারও প্রশ্নের আঁকিবুঁকি করছে। যার উত্তর দীপ্ত সহসা মুখ ফুটে বলতে পারবে নাহ্।

প্রেম মাটিতে হাঁটু গেড়ে বসে আছে। প্রেমের কোলে সকালের মৃতদেহ আবিষ্কৃত করল নিশান্তিকা। এ মুহূর্তে তার নিজেকে বিশ্বাস হচ্ছে না, কিছুতেই। নিশান্তিকা বাকরুদ্ধ। মাথা ঝিমঝিম করছে তার। সকাল তার বেস্টফ্রেন্ড। আজ ওদের বিয়ে ছিল, আর এখনি সে একটি মৃতদেহ মাত্র। নিশান্তিকা জোরে শ্বাস নিল কয়েকবার, শক্ত হতে চাইল। কিন্তু চোখের সামনে প্রেমের কোলে সকালের মৃতদেহ সে সহ্য করতে পারছে নাহ্। আফিফের থেকে নিজেকে ছারিয়ে নিয়ে পিছন থেকে প্রেমকে শক্ত করে জড়িয়ে নিয়ে ডুকরে কেঁদে ওঠল। এমন সে আশা করেনি।
হসপিটালের সাদা পোশাক পরা দুটি লোক স্ট্রেচারে করে কাজির ঘর থেকে একটি মেয়ের লাশ নিয়ে এম্বুলেন্সে পাঠানো হলো। আফিফ বিস্ময় প্রকাশ করল দীপ্তের দিকে তাকিয়ে। সময় যেন একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে চলছে সবার সাথে। কিন্তু কে করছে?কেন হচ্ছে? চারপাশে শুধু ধোঁয়াশার কুয়াশা উড়ছে।

প্রেমের থেকে সকালকে ছাড়ানোর চেষ্টা করছে সবাই। কিন্তু বিফলে যাচ্ছে। বুকের মধ্যে খুব শক্ত করে আগলে রেখেছে সকালকে। প্রেম নিষ্পলক চোখে মায়া মাখানো সকালের মুখের দিকে তাকিয়ে দেখছে। এত মায়াবী কেউ হয়। নিস্তব্ধত হয়ে সে বসে আছে। চারপাশের কোলাহল সে শুনতে পাচ্ছে না, মনের ভিতর কোনে অনুভূতি নেড়ে ওঠছে না, শুধু ভাবছে, সকাল তাকে একা রেখে চিরতরে ঘুমিয়ে গেল, কেন হলো এমনটা। সকালকে এখনি ওঠবে হবে, এখনি। কিন্তু সকাল ওঠছে নাহ্। বহুবার বলার পরও ওঠছে না, এখন সে ক্লান্ত শরীরে নিষ্পাপ মুখের দিকে ভাবছে, এখন তারা কত আনন্দের মুহূর্ত কাটাতো।

~ দীপ্ত, এসব কি হচ্ছে এখানে?
দীপ্ত সহসা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আফিফের কাঁধে হাত রাখে, বলে,
~ সবকিছু হুট করেই চোখের সামনে হয়ে গেল। প্রথমে আমরাও হতবাক দাঁড়িয়ে দেখেছি মাত্র।
~ মানে, সকালের কি হয়ে ছিল।
~ তোরা চলে যাওয়ার পর প্রায় ঘন্টা খানেক সময় কাজির দরজার পাশে দাঁড়িয়ে ছিলাম।
~ কেন?

~ কাজি বাসার দরজা খুলে নি। বহু রিকুয়েষ্টের পর খুলেছে। ওদের বিয়ে নিয়ে তেমন কিছু বলে নি আর জিগ্যেস ও করেনি কিছু। অদ্ভুত!
আফিফ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে শুধু দীপ্তের কথা শুনছে, বলার ভাষা নেই তার।
~ তারপর ওদের বিয়ে হওয়ার পর বাহিরে সকালের পরিবার আসে, খুব ঝগড়াঝাটি হয়। এর মাঝে শুনি কাজির মেয়ে বিষ খেয়েছে, আমি জলদি এম্বুলেন্স ডাকি। ততক্ষণে লেট হয়ে যায়।
~ তারপর…
এদিকে সকালের সাথে ওর পরিবারের ঝগড়া থামছে নাহ্। সকালকে ওর ভাই গায়ে হাত তুলেছে পর্যন্ত। প্রেম রেগে গিয়েছিল, কিন্তু কিছু সময় পর সকাল নেতিয়ে পরে নিচে।
~ হোয়ার্ট! হঠাৎ করেই মানে।

~ হ্যাঁ, হুট করেই। যদিও ওকে আগে থেকে দূর্বল লাগছিল। এখন সকালের মৃত্যু কীভাবে হয়েছে, সে তো, প্রোস্টমোটেম রিপোর্ট আসার পরই জানা যাবে।
দীপ্তের কথায় আফিফ মনোযোগ দেয় নাহ্। অদূরে দাঁড়িয়ে থাকা দুটি ছেলেকে চেয়ে থাকে। মনে করে কোথায় যেন দেখেছে এদেরকে। এ মুহূর্তে তা মনে পড়ে না।
নিশান্তিকা কান্না থামিয়ে প্রেমকে ঝাপটে ধরে, সকালকে ছেড়ে দিতে বলে, প্রেম ধীরে ধীরে বাধন আলগা করে দেয়। সকালের লাশ নিয়ে তারা চলে যায়। প্রেম এক দৃষ্টিতে চেয়ে চেয়ে দেখে, তখনি হাত পা নড়তে থাকে, মনের মাঝে অনুভূতি নেড়ে ওঠে, শরীরে শিহরণ জাগে, জোরে জোরে শ্বাস নেয়, প্রাণ আটকে আসে তার। প্রেমের অবস্থা বেগতিক দেখে নিশান্তিকা ভয় পেয়ে যায়, যদি চিৎকার দিয়ে ওঠে তবে সে প্রেমকে কীভাবে সামলাবে।

দূর থেকে একটি ছেলে প্রেমের দিকে লাঠি ছুড়ে মারে। প্রেমের সেদিকে খেয়াল নেই। নিশান্তিকা দেখা মাত্র চিৎকার দিয়ে ওঠে প্রেমকে বুকের মাঝে ঝাপটে ধরে। লাঠি এসে নিশান্তিকার পিঠে পরে। নিশান্তিকা সহ প্রেম সেখানেই জ্ঞান হারায়।

আফিফ দাঁড়িয়ে সবকিছু চেয়ে দেখে। কিন্তু হাত পা নড়াতে পারে না। এক মুহূর্তে সব কিছু থমকে দাঁড়ায়। চোখের সামনপ এত কিছু ঘটে যাচ্ছে অথচ কে আসল কাল পিঠ, বুঝতে পারছে না। এরপর কি আরো কোনো ঘটনার চমক অপেক্ষা করছে তাদের জন্য?সেই চমক কি সবাই মেনে নিতে পারবে। এই মুহূর্তে আফিফের মাথা ঝিমঝিম করে ওঠল।

দশম পর্ব

আজ সোমবার, সকাল বেলা, সময় ৮টা।

সকালের মৃত্যুর দুই দিন হয়েছে। সেদিনের সেই মুহূর্ত টুকু মনে পড়লে নিশান্তিকার শরীরে ভয়ংকর শিহরণ জাগে। নিজেকে সামলে নেয়ার চেষ্টা করে, কিন্তু এত বড় অস্বাভাবিক একটি ঘটনা ঘটে গেল যে, নিশান্তিকার চিন্তা ভাবনা ক্রমশ জট পাকিয়ে আসে।

প্রত্যেকের জীবনে একটি দাগ কেটে গিয়েছে সকালের মৃত্যুতে। এ দাগ কি কোনোদিন মুছবে নাকি আরো ক্ষত~ বিক্ষত করবে!

নিশান্তিকা সেটা জানে না। এসব সে ভাবতে চায় না। গত দুদিনের সময় সে মনে রাখতে চায় না।

গত ৭২ ঘন্টায় প্রত্যেকের জীবন পাল্টে গেছে। চাইলেও ভুলা সম্ভব নয়। অথচ এমনটা হওয়ার আশা ছিলনা। বিধাতা তার ভাগ্য নিয়েই কেন এত খেলে। ৷ নিশান্তিকা ভাবতে পারেনা, মাথা ব্যাথায় কুঁকরে ওঠে। বিছানা ছেড়ে ওঠে দাঁড়িয়ে দোতালায় পৌঁছায়।

বারান্দার গ্রিলে মাথা ঠেকিয়ে দাঁড়ায় নিশান্তিকা, চোখের দৃষ্টি তার পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তার শূন্য পথে।

নিশান্তিকার বুকের মাঝে ধুকপুক ধুকপুক করে, শূন্যতায় কেউ আঘাত হানে, চিরচির ব্যাথা অনুভব করে সে।

এমন কোনো সকাল ছিল না, ঐ রাস্তায় দাঁড়িয়ে পথশিশুদের সঙ্গে প্রেমকে দেখেনি। হাতে থাকতো খাবারের প্যাকেট, আর আদর্শ লিপির বই।

এই নিয়মিত নিয়মটি যেন প্রেমের জীবনের বাধ্য নিয়ম ছিল। আর এ দৃশ্যর প্রতিদিনের সাক্ষী হতো নিশান্তিকা। সকালবেলা চোখ খুলে পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তার চিত্রটি ছিল নিশান্তিকার চোখের একটি অঙ্কিত দৃশ্য। যা কখনো ভুলে যাওয়া দুঃসাধ্য।

আর আজ, এখন যা ধোয়াশা। এমন দৃশ্য তার চোখে আর কোনোদিন পরবে কি! প্রেম সেই আগের মত হেঁটে এসে পিচঢালা রাস্তায় দাঁড়াবে!

নিশান্তিকা অস্থির হয়ে উত্তর খুঁজে। কে দিবে জীবনের এ উত্তর। বুকের মাঝে খুব বেশি ব্যাথা অনুভব করে সে। উত্তর পায় না। শুধু ভাবে।

আফিফ দরজার কোণে দাঁড়িয়ে দাদিমাকে এক পলক দেখে বিরবির করে ডাকে,
~ দাদিমা
আনোয়ারা বেগম নামাজের চকিতে বসে বসে তসবিহ হাতে গুনছিলেন।

ভোর হয়েছে। পূর্ব আকাশে সূর্য কিরণময় ছড়াচ্ছে ধীরে ধীরে। কিছু মুহূর্ত বাদেই হয়ত পৃথিবী রৌদ্রজ্বল হয়ে ওঠবে।
নাতির সুর পেয়ে তিনি চোখ তুলে তাকালেন, কাছে ডাকলেন সহাস্যে।

~ আয়, আমার কাছে আয় ভাই।

বাড়িটা দোতালা, নিচতলায় ডয়িংরুম সহ দুটি বেডরুম। একটি ছোট আকারের রুমে আনোয়ারা বেগম নামাজের ঘর বানিয়েছেন।

একপাশে ছোট একটি বিছানা, অন্যপাশে জানালা, জানালা ঘেঁষে নামাজের চকি। একটি আলমারি, আর দুটি বইয়ের তাক। পূর্ব দিকের এই জানালাটি ভোরের আগে খোলা হয়। আনোয়ারা বেগম চকিতে বসে বসে দিনের আলো ফুটা দেখেন আর তসবিহ গুনেন। এসব তার প্রতিদিনের রুটিন।

দিনের অর্ধেক সময় তার এখানেই কাটে। বাকিটা সময় নিচের গার্ডেনে। এ ভাবেই সময় কাটাতে সে পছন্দ করেন।

মাঝে মাঝে বইয়ের তাক দেখে ইসলামিক বই, উপন্যাস, কবিতা পড়েন। বয়স প্রায় ষাট বছর। বেশি চাপ নিতে বা সহ্য করতে পারেন নাহ্।
তবে এর মাঝে নিজের প্রাণপ্রিয় নাতির খেয়াল তিনি ঠিকই রাখেন। এক নজর আড়াল হলেই তিনি ছটফট করে।

~ দাদিমা, তোমার শরীর কেমন আছে? আফিফ হেঁটে এসে আনোয়ারা বেগমের কোল ঘেঁষে বসে, মাথাটা এলিয়ে দেয় কোলের আঁচলে। আফিফের মাথায় হাত বুলিয়ে দেন আনোয়ারা বেগম, একমাত্র স্নেহের ছায়া তার। তিনি সহাস্যে জবাব দেন।

~ আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি। দাদুভাই, তুমি ঠিক নেই, তাই না।
~ নেই দাদিমা, আমি ঠিক নেই। কিছুই ঠিক নেই।
আফিফ অস্থির গলায় জবাব দেয়।

~ দাদুভাই, মনের অস্থিরতা দূর করো। শক্ত হও।

আফিফ আবারও ছটফটিয়ে উঠে অস্থির ভাবে বলে,
~ পারছি না দাদিমা, নিশুর বিধস্ত মুখের চাহনি আমি আর দেখতে পারছি না। আমি পারছি না নিশুর আবদার, আক্ষেপ মেনে নিতে।
আফিফের অসহায় কণ্ঠে আনোয়ারা বেগম কেঁপে ওঠেন, ভয় সংশয় বাড়ে মনে মনে। কি বলে সান্ত্বনা দিবেন তিনি।

~ দাদুভাই, তুমি নিশুকে ফিরিয়ে দিয়েছ গতকাল?

আফিফ দীর্ঘশ্বাস ফেলে, কান্নায় গলা আটকে আসে। আনোয়ারা বেগমকে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরে। জড়ানো গলায় বলে,
~ উপায় ছিল না দাদিমা।

~ ভুল করলে দাদুভাই, ওর মন খুব নরম, ওর দূর্বল জায়গায় তুমি ভয় পাইয়ে দিছো।

আনোয়ারা বেগম কেঁপে ওঠেন, নিজের মাঝেও অস্থিরতা কাজ করে। আফিফ শক্ত কণ্ঠে বলে,
~ কিন্তু ওকে লড়তে শিখতে হবে।

~ তোমাকে ওর পাশে প্রয়োজন।
আনোয়ারা বেগম আফিফের মুখ দু হাতপর মুঠোয় নিয়ে বলেন। আফিফ সহসা জবাব দেয়।

~ আমি আড়াল থেকে সব সময় ওর পাশে আছি।
আফিফের মাথায হাত বুলিয়ে দেন, ঠোঁটে হাসি এঁকে কথা বলেনআনোয়ারা বেগম। গতকাল নিশান্তিকা এসেছিল, সেই কথোপকথন আফিফের থেকে শুনেন। আফিফকে সান্ত্বনা দেয়, বুঝান। ৷ নিশান্তিকা ভয় পেয়ে তার কাছে ছুটে এসেছে।
~ কিসের ভয় নিশুর!

আফিফের প্রশ্নের উত্তর দেয় আনোয়ারা বেগম।
~ তোমাকে হারানোর ভয় দাদুভাই, তোমাকে। ওর মন খুব নরম, অল্পতেই ভয় পায়।

ও ভয় পেয়েছি, যদি তোমায় হারিয়ে ফেলে।
আফিফ অন্যমনস্ক হয়ে বলে,
~ সত্য বলছ দাদিমা।

~ এটাই সত্যি, ও তোমায় ভালোবাসে। যদি হারিয়ে ফেলে সেই ভয়ে ছুটে এসেছে।

~ কিন্তু দাদিমা নিশুর এখন প্রেমের পাশে দাঁড়ানো উচিত। আমি ওকে সেটাই বুঝিয়েছি।

আনোয়ারা বেগম সহসা বলেন,
~ ওর হয়ত সেখানেই ভয়। মেয়েটা দূর্বল প্রকৃতির।

আফিফ ভাবনায় পড়ে যায়। কোনো কথা খুঁজে পায় না মনে, এখন সে কি বলবে। নিশান্তিকা কি সত্যি তার জীবন থেকে এক সময় চলে যাবে! আফিফ ভেবে পায় না।

সে কি তবে গতকাল নিশুকে ফিরিয়ে দিয়ে ভুল করেছে! কি এমন চেয়েছিল মেয়েটি, শুধু বুকের বা পাশে সারাক্ষণ ঠাঁই। সব সময় নজরের আলখাল্লায় বন্দী রাখতে।
আফিফের ভাবনা দেখে আনোয়ারা বেগম সহসা হেসে বলেন,
~ সব ঠিক হয়ে যাবে একদিন। সময়ের উপর ছেড়ে দাও। এত ভেবোনা।

আফিফ অন্যমনস্ক হয়েই বিরবির করে বলে,
~ সত্য বলছ, সব ঠিক হয়ে যাবে!
~ দাদিমার কথায় ভরসা আছে তো তোমার।
~ হুমমম.

আফিফ মাথা তুলে মাথা নাড়ে। আবার চোখ বুঝে পরম যত্নে দাদিমার কোলে মাথা রেখে বসে। ২৫টা বছর এই কোল তাকে ছায়া দিয়েছে, রক্ষা করেছে৷ মা~ বাবা মমতায় বড় করেছে, ছায়া হয়েছে। আদর যত্নে ভরিয়ে রেখেছে।

কোনোদিন বুঝতে দেয়নি সে অনাথ। আসলেই তো, সে অনাথ কীভাবে হয়। যার সাথে এমন মমতাময়ী দাদিমা থাকে, সে কোনোদিন অনাথ হতে পারে না। আফিফ অনাথ নয়। তার সঙ্গে দাদিমা আছে।

নিশান্তিকা রিপোর্ট হাতে নিয়ে বসে থাকে। প্রেমকে কি বলবে সে…

এগারো পর্ব

নিশান্তিকা রিপোর্ট হাতে নিয়ে নিস্তব্ধত বসে থাকে। প্রেমকে কি বলবে সে? এত প্রসার প্রেম কীভাবেই বা নিবে! নিশান্তিকা ভাবনা চিন্তা শেষ করপ ফাইল ড্রয়ারে রেখে দেয়। সময় হলেই সে প্রেমকে জানাবে, এর আগে নয়।

জানালার পর্দাটা সরিয়ে নেয় নিশান্তিকা। দিনের আলো এসে আলোকিত ভরিয়ে দেয় রুমের ভিতর। থাইগ্লাস এক পাশে খুলে দেয়। এক ফালি রোদ এসে পড়ে ঘরের মেঝেতে। সকালের হাওয়া বয়ে যায় চারপাশে। আহ্, ক্ষণিকের প্রশান্তি।

বিছানায় নেহাল আর প্রেম ঘুমিয়ে ছিল। কারো উপস্থিতি টের পেয়ে নেহাল ওঠে বসল। দু হাতের মুঠো দিয়ে চোখ ডলে হাই তুলল কয়েকবার। নিশান্তিকাকে দেখা মাত্রই হেসে ওঠে।

~ গুড মর্নিং আপু। আমার আজ খুব ভালো ঘুম হয়েছে।
নেহালকে বুকে জরিয়ে নেয় নিশান্তিকা। সযত্নে আগলে রাখে বাহুডোরে।

~ মর্নিং সোনা। যাও ফ্রেশ হয়ে আসো।
~ এখনি
~ হ্যাঁ, বেলা বাড়ছে।

~ ওকে, এখনি যাচ্ছি। গিভ মি 5মিনিট,
নেহাল মুখে হাত দিয়ে ভেবে মাথা ঝুলিয়ে আবার বলে,
~ নো নো 10মিনিটস।

নিশান্তিকা উচ্চ স্বরে হেসে ওঠে। মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বলে,
~ ওকে, মাই ডিয়ার ভাই।

নেহাল ওয়াশরুমে চলে যায়। দু’জনের কথোপকথনে প্রেম চোখ মেলে তাকালো, তবে ওঠে বসল না। আবার চোখ বুঝে ঘুমানো ভাবে চলে গেল। নিশান্তিকা এগিয়ে এসে প্রেমের পাশে বসল, মাথায় হাত বুলিয়ে কপালে আর পিঠে হাত রাখল।

~ প্রেম, প্রেম, ওঠে বসো। সোজা হও।

প্রেম…
প্রেমের জাগানো উপস্থিতি বুঝতে পারে নিশান্তিকা।
~ আহ্ প্রেম। কথা শুনো আমার, অনেক বেলা হয়েছে।
প্রেম সোজা হয়ে টানটান হয়ে শুয়ে থাকে।

নিশু প্রেমের কপালে আবার হাত রাখে। সস্তির শ্বাস ছেড়ে বলে,
~ জ্বরটা হয়ত একেবারেই নেই। গতরাতে বুঝেছিলাম, জ্বর কমে আসছে। এখন কেমন লাগছে তোমার?

প্রেম কিছু বলে না। চোখ মেলে তাকিয়ে থাকে।

নিশান্তিকা কিছু বলার সাহস পায় না। এ দু~ দিনে সে অনেক কথাই বলেছে, প্রেম কিছু বলেনি, শুধু শুনেছে। মানসিক আঘাতে সে বেশ বিধস্ত হয়েছে। সকালের মৃত্যু তাকে এক গভীর যন্ত্রণার সাগরে ভাসিয়ে দিয়ে গেছে। উপরের দিক থেকে দেখা যায়, মানুষ গুলো স্থির, শক্ত।

অথচ ভিতর থেকে সকলে এক অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে, ভেঙে পরেছে, বিধস্ত হয়েছে বহুবার। সবার আগের পৃথিবীটাই যেন বদলে গেছে। এক নতুন জগতের পৃথিবীতে প্রবেশ করেছে তারা।

নেহাল এসে নিশুর সামনে দাঁড়ায়।

নিশু টাওয়াল দিয়ে নেহালের হাত মুখ মুছে দেয়। নতুন জামা পড়িয়ে দেয়। প্রেম নির্বাক চেয়ে চেয়ে দেখে। নেহাল মাঝে মাঝে নিজের কথা বলে। হাসে, মাথা ঝুলায়। সে এখন এ বাড়িতে খুশি ব্যক্তি।

কারণ, প্রেম তার সাথে থাকে। আপু তার পাশে থাকে সব সময়, বাসা থেকে আর বের হয় না। তাকে স্কুলেও যেতে হয় না। এসবের পিছনে কারণ সে জানতেও চায় না। তার মনে আনন্দ হচ্ছে, এর থেকে বেশি কিছু সে চায় না।

জানতে চায় না তার প্রেম জানু হঠাৎ কেন অসুস্থ হয়ে এ বাড়িতে থাকে। আগেরবার জোর করলেও যে থাকতে না, সেটা সে খুশিতে ভুলে যায়।
~ আপু,
~ হুমম
~ আমি আজ নিজেই ব্রাশ করে নিয়েছি।

~ এই তো আমার গুড বয়ের মত কাজ।
~ আমি বড় হয়ে যাচ্ছি বলো আপু।

নিশান্তিকা হেসে ওঠে,
~ হ্যাঁ, আমার ছোট্ট ভাইটা বড় হয়ে ওঠছে দিনে দিনে।

নেহাল আপ্লুত হয়ে হেসে হেসে আবার বলে,
~ আব্বু ~ আম্মু এসে দেখবে, আমি এত্ত বড় হয়ে গেছি। বলো।

নিশান্তিকা, নেহালকে রেডি করা শেষ হলে বলে,
~ হ্যাঁ, তোমায় খুব আদর করবে। এখন নিচে যাও, খাবার রেডি আছে।

~ তুমিও চলো।
~ আমি তোমার প্রেম জানুকে নিয়ে আসছি।
~ ওকে আপু, প্রেম জানুু, তুমি জলদি ফ্রেশ হয়ে নিচে এসো।
নেহাল নিচে চলে যায়। নিশান্তিকা মনে মনে অনেক কথা ভেবে নিজেকে প্রস্তুতি নিয়ে প্রেমের পাশে বসে।

~ প্রেম ওঠ, ওঠে বসো। ফ্রেশ হয়ে কিছু খেতে হবে তোমাকে।

প্রেম কিছু বলল না। নিশান্তিকা আবার বলল,
~ প্রেম ওঠ, ওঠে বসো। কিছুক্ষণ চুপ থেকে বলে, মেডিসিন নিতে হবে, তার জন্য কিছু খেতে হবে তোমাকে।

প্রেম ওঠে বসে খাটের ওপাশে হেলান দিয়ে নির্বাক চেয়ে দেখে, তবুও কিছু বলে না। নিশান্তিকা এবার বিরক্ত হয়। মুখ ফুলিয়ে বসে থাকে বেশ কিছুক্ষণ।

একটা মানুষের সামনে কতক্ষণ বসে বসে কথা বলা যায়, যদি সে কথা বলতে আগ্রহ না থাকে। তবুও নিশান্তিকা যথা সম্ভব শান্ত হয়ে বসে বলে,

~ তোমার শরীর কি দূর্বল লাগছে, মাথা যন্ত্রণা করছে না তো, বলো। কি হলো, বলো।

প্রেম কিছু বলল না। নিশান্তিকা এবার চরম বিরক্ত হয়। এসব আর সে নিতে পারছে না। অসুস্থ মানুষ টি যদি না বলে কিসে তার খারাপ লাগছে তাহলে তাকে সুস্থ কীভাবে করবে সে।

নিশান্তিকা ওঠে দাঁড়িয়ে শক্ত হয়ে মুখের উপর বলে দেয়,
~ আর কত জ্বালাবে আমায়, আমি ট্রায়াড ফর ইয়োর কোম্পানি।
প্রেমের মাঝে কোনো পরিবর্তন সে দেখতে পায় না।
~ ধ্যাৎ…

নিশান্তিকা চলে যেতে চাইলে প্রেম খপ করে ডান হাত ধরে ফেলে, নিশান্তিকা কিছুটা চমকে ওঠে ঘুরে তাকায়। প্রেম মাথা তুলে বলে,
~ মাত্র আড়াইদিন জ্বালিয়েছি, এর মাঝেই বিরক্ত হয়ে গেলে!

আকষ্মিক প্রেমের রুক্ষ স্বরে এমন কথায় নিশান্তিকা অপ্রস্তুত হয়ে পড়ে। বিধস্ত মুখের চাহনি, চোখ~ মুখ শুকনো, মাথার চুলগুলো এলোমেলো হয়ে আছে প্রেমের।

নিশান্তিকা অন্য হাত নিজের কপালে ঠেকায়। প্রেমের হঠাৎ এমন রুপে নিশান্তিকা থমথমে হয়ে যায়। এখন কি বলবে সে, এমন পরিস্থিতি আসবে সে কখনো কল্পনাও করে নি। কি বলে দিল সে? মুখ ফুসকে কথা বলাটি যদি সে ফিরিয়ে নিতে পারত, তাহলে বোধহয় এই পরিস্থিতি থেকে সে মুক্তি পেত।

এত এত টেনশন, পারিপার্শ্বিক ঝামেলা, কিছু কিছু ঘটনা মেনে নেওয়ার চাপের মুখোমুখিতে নিশান্তিকা বিরক্ত হয়ে ওঠছে, মেজাজ সব সময় খিটখিটে হয়ে থাকে। আর সামলে ওঠতে পারছিল না। তবুও এমন ভাবে কথা বলা উচিত হয় নি।

উত্তেজনায় মুখ ফুসকে বেরিয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে কোথাও কোনো প্রশান্তি খুঁজে পাচ্ছে না সে। তার এখন একটু প্রশান্তি প্রয়োজন। প্রেম কবে তাকে বুঝবে!

প্রেম হাত চেপে রাখায় নিশান্তিকা খুব ব্যাথা পাচ্ছিল। কথা বলার বাহানা পেয়ে নিশু বলল,
প্রেম, ব্যাথা লাগছে, হাতটা ছাড়ো।

প্রেম একবার হাতের দিকে তাকিয়ে আবার নিশান্তিকার মুখের দিকে তাকিয়ে হাত ছেড়ে দেয়। নিশান্তিকা সস্তি পেয়ে প্রেমের পাশে বসে মুখটা ফ্যাকাসে নিয়ে ধীর কণ্ঠে বলে,
~ না আসলে, তুমি কোনো উত্তর দিচ্ছেলে না, তাই বিরক্ত লাগছিল কিছুটা।

প্রেম শুধু শুনে যায় কিছু বলে না। নিশান্তিকা স্বাভাবিক হয়ে মুচকি হেসে বলে,

প্রেম, যা হবার ছিল, হয়ে গেছে। আমাদের এতে কারো হাত নেই। তুমি নিজেকে সামলে নেও। নিজের জন্য হলেও স্বাভাবিক জিবনে ফিরে আসো।

প্রেম গম্ভীর মুখে বলে,
~ হুমমম, আর কিছু বলবে না।

নাহ্। নিশান্তিকা না সূচক মাথা ঝাকায়। এতটুকু সে বলতে পেরেছে সেই ঢেরবেশি।

প্রেম স্বাভাবিক গলায় নিশান্তিকার সাথে আলোচনা করছে।
~ উকিল এসেছিল।

~ হ্যাঁ, গতরাতে। আমার সাথে কথা হয়েছে।

~ তোমায় এত ট্রেস নিতে কে বলেছে। আমায় জানাতে।
~ তুমি এমনিতেই সিক। তাছাড়া বিষয়টি পারিবারিক। সেক্ষেত্রে আমি দায়িত্ব নিতেই পারি।

~ ভুল বললে, বিষয়টা আমার। আমায় জড়িয়ে।
নিশান্তিকা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলে,
~ সেটুকু বুঝার ক্ষমতা তোমার নেই।
~ যাইহোক, উকিল কি বলল।

~ সেটা কি এখনি জানতে হবে। আমি…
নিশান্তিকাকে থামিয়ে প্রেম বলে,
~ হ্যাঁ তো কখন? আমায় জানতে হবে। আমি এখন সুস্থ আছি। বিষয়টি দেখার সময় হয়েছে।

নিশান্তিকা বিরক্ত সুরে বলে,
~ পুরোপুরি সুস্থ হও। তারপর ভাবা যাবে। এখনি এত চাপ নিতে হবে না।

~ নিশু, আমি এখন সুস্থ, উকিল কি বলল…
~ না ঠিক নেই। সম্পূর্ণ সুস্থ হও। যাও ফ্রেশ হয়ে আসো।

প্রেম আর কিছু বলে না। নিশান্তিকাও বলে না। আজ তার ভালো লাগছে, প্রেম স্বাভাবিক ভাবে কথা বলছে এখন।

প্রেমের এখন সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়া প্রয়োজন, শক্ত হওয়া প্রয়োজন। না~ হলে সকালের মৃত্যুর রহস্য সে সমাধান করতে পারবে না। প্রেমই তাকে একনাত্র সাহায্য করতে পারবে।

কিন্তু প্রেমকে বিশ্বাস করা কি ঠিক হবে, চোখের সামনে সব কিছুই যে ধোয়াশা। নিশান্তিকা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভাবনায় মত্ত ছিল, তখনি নেহাল এসে পিছন থেকে কোমরে হাত রেখে আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে নেয়।

ভয়ে ডুকরে কেঁদে ওঠে। নিশান্তিকা হতবিহ্বল দাঁড়িয়ে থাকে, পরিস্থিতি বুঝার চেষ্টা করে,
প্রেম বিছানা ছেড়ে এগিয়ে আসে…

পর্ব ~ বারো

ঠিকানা~ ফুলবাড়ি।

আফিফ ফুলবাড়ি এসেছে। মাঝের বেঞ্চটায় এক কোণে এসে বসে। পাশেই দীপ্ত এসে বসে। চারপাশে এক নজর চোখ বুলিয়ে আফিফের কাঁধে হাত রাখে।

চারপাশে ফুলের সমাহার। হৃদয় ছোঁয়া ঘ্রাণ। উপরে মস্ত বড় নীল আকাশ। অনেকক্ষণ মায়ের কবরের দিকে তাকিয়ে দেখে আফিফ।

এখানে তার সুখের স্বর্গ ঘুমিয়ে আছে। আফিফ ভাবে, আজ মা বেঁচে থাকলে হয়ত জন্মদাতা পিতা তার কাছে থাকত।

একটি সুখের পরিবার হতো। নতুন কোনো সদস্য আসত, হয়ত দীপ্তের মত ভাই নয়ত নেহালের মত আদরে ছোট ভাই, আর বোন হতো…।

ফুলবাড়িতে দুজন মালি ফুল গাছের পরিচর্যা করে। বাড়ির মালিক এসেছে দেখতে পেয়ে ভিতর থেকে জল~ খাবার এনে দিলেন মালি মনু মিয়া।

~ সাহেব, ম্যামসাহেবা কেছা হে?

দীপ্ত, আফিফ ভ্রু কুঁচকে ওঠল। মনু মিয়ার দিকে তাকিয়ে রইল। বেশ অমায়িক ভাব চেহারায়। বয়স আনুমানিক কত তা সে নিজেও জানে নাহ্। খেটেখুটে খাওয়া মানুষ সে। দুজনের চমকানোর বিষয় লোকটি হিন্দি বলছে!

মনু মিয়া দুজনের চাহনি দেখে ফিক করে হেসে ওঠলেন। তিনি সহাস্যে জবাব দিলেন,
~ আসলে, আমি অনেকক্ষণ যাবত দেখতেছি, আপনেরা অন্যমনস্ক। ভাই ভাবলাম কিছু বলে চমকে দেয়া যাক। এই বুড়ো মাথায় যা আইছে, তাই খাটাইলাম।

দীপ্ত সহসা উঁচু স্বরে হেসে ওঠে, আফিফও হাসে। মনু মিয়া আপ্লুত হয়ে হাসি মুখে দাঁড়িয়ে থাকে।

বিষয়টি দুজনের বেশ মনে ধরেছে। ফুলবাড়িতে এসে আসলেই মন খারাপ মানায় নাহ্। চারপাশে এত এত সৌন্দর্যের সমারোহ। এক বার চোখ বুলালেই মনে প্রাণে আন্তরিকতায় ভরে যায়। এক মুহূর্ত মনে হয়, যদি গোলাপ হতাম এক মুহূর্তের জন্য, তবে হয়ত প্রিয়তমের হৃদয়ের স্থান মিলত।

~ মনু চাচা, বাগানে আরো কিছু গোলাপের চারা এনে রেখো।
আফিফের কথায় মনু মিয়া সহাস্যে জবাব দেয়। তার মুখে সব সময় উজ্জীবিত হয়ে থাকে, হেসে হেসে কথার জবাব দেয়া তার স্বভাব।
~ আচ্ছা সাহেব।

আফিফ মুচকি হেসে আরো কিছু বলার মাঝে দীপ্ত সহসা উঁচু স্বরে বলে ওঠে,

~ আহ্ মনু চাচু। কী সব পুরনো আমলের মত সাহেব, বাবু বলছ। কিছু নিউ ভার্সন বলো, শুনি।
মনু মিয়া উজ্জ্বল হাসলেন।

হাসি তামাশা করতে তার ভীষণ ভালো লাগে। এতে করে সব সময় আনন্দে থাকা যায়, মজাদার সময় কেটে যায়। বেশ রসিকতার মানুষ সে। দীপ্তের সাথে সে মজায় মেতে ওঠে।

~ আচ্ছা, মনু চাচা, বলো তো। এই হিন্দি ভাষা তুমি শিখলে কীভাবে।
~ সে অনেক আগের দিনের কথা, বহুত কাহিনি। তোমরা শুনলে, আমিভি বলতে রাজি।

দীপ্ত সহসা হেসে বলে,
~ হ্যাঁ বলো বলো। শুনছি।

~ শুনেন তবে, তখন দেশে যুদ্ধ চলে, সাল ১৯৭১। আমার বয়স ভারি হলেও কিশোর বয়স হবে, তোমরা যারা বলো।

স্কুল কলেজের পাশেই ছিল টিনের চালের ঘর। মায় ছিলনা, আমি আর বাপে মিলে কোনোরকম খেটেখুটে বেঁচে থাকতাম। এর মাঝেই মেলেটারি আসল। প্রাণ যাওনের ভয়ে বাপে মেলেটারির সঙ্গ দিল।

আমিও বাপের কথা মত কিছু টুকটাক কাজ~ কাম করে দিতাম তাগো, মানে মেলেটারিগো। এই চা আনা, এইটা আনা, ওইটা করা। পয়সাও দিত, দু~ আনা, এক আনা।

দীপ্ত বেশ মনোযোগ দিয়ে শুনছিল। আর মনু মিয়ার ভাব ভঙ্গি দেখছিলো।

~ বাহ্, বেশ ইন্টারেস্টিং তো। তারপর…

আফিফ দুজনের আড্ডায় যোগ দিল। তার আগের দিনের গল্প শুনতে বেশ ভালোই লাগে। দাদির থেকে সে কতরকম ভাষায় গল্প শুনেছে।

মনু মিয়া ভালোই শুদ্ধ ভাষায় প্রকাশ করার চেষ্টা করছে। লেখাপড়া না জানলেও চালচলনে বেশভূষা ভালোই। তার মাঝে কোনো জটিলতা নেই, সংশয় নেই। নিজের অবস্থান নিয়েও সে অনেক সুখীভাব।

মনু মিয়া উৎসাহিত হয়ে হাসিমুখে আবার বলতে লাগলেন,
~ তারপর, আমি তাগো লগে পাক্কা ৬মাস ছিলাম।

মুখে মুখে এমন আজব ভাষা শুনেছি। আমার বাপে তো সম্পূর্ণ ভাবে হিন্দি বলা শিখে গেছিলো। আমিভি বহুত কুছ শেখা। বাপের কাছ থেইকাও মেলা কিছু শিখছি, কথা বলতে কি যে মজা লাগত। এহনো মনে আছে আমার। বহুত কুছ। তবে আমি যুদ্ধও করেছি তাগো লগে।

দীপ্ত খুশি হয়ে হাত তালি দিয়ে বলল,
~ বাহ্, বাহ্, তারপর কী কী পারো বলতো শুনি।

দীপ্ত বন্ধুপ্রতিম মানুষ। আনন্দ থাকতে বেশ পছন্দ করে। এমুহূর্তে সে আফিফের জন্য হাসি তামাশা করছে, যাতে আফিফ একটু প্রশান্তি পায়।

আফিফও মন খুলে হাসল মনু মিয়ার কথায়। কিছুক্ষণ যাবত হেসে, অনেক কথা বলার মাঝে নিজেকে ব্যাস্ত রাখল। বেশ সাচ্ছন্দ্যে সময় কেটে যাচ্ছে তার। মন হালকা হলো। শরীর সতেজ হতে থাকল ধীরে ধীরে। দাদিমা বুঝি এই জন্যই এখানে আসতে বলেছিল।

মনু মিয়া ভিতর থেকে প্লেটে কিছু পিঠা এনে দীপ্তের সামনে দিল, দীপ্ত তো মহাখুশি। আহ্, সকাল সকাল মজার পিঠা!
~ আব্বে মনু কাক্কু, তুমি তো কামাল করে দিছো।
দীপ্ত সহসা পিঠা তুলে খেয়ে নিল।

~ ওয়াও, হোয়াট এ টেস্টি! এই পিঠার নাম কি চাচা?
মনু সাহেব সহাস্যে দুলে দুলে বললেন,
~ নাড়ো আর তক্তি বানিয়েছি, গাছের নারকেল দিয়ে।
~ তুমি বানিয়েছ?

দীপ্ত অবাক হলো। মনু মিয়া গর্বিত ভাবে প্রকাশ করল,
~ হ্যাঁ, সাহেব। খুবই সহজ।

~ বাহ্, বেশ স্বাদ লাগছে।

মনু মিয়া উজ্জ্বল হাসলেন। আপ্লুত হলেন। সহাস্যে বললেন,
~ ধন্যবাদ সাহেব। তক্তিটা মুখে দিন।

দীপ্ত সহসা এক টুকরো তক্তি মুখে দিল,
~ ওয়াও, লা জবাব। এই আফিফ এই নে। হা কর।

~ তুই গেল। সারারাস্তা আমার মাথা খেয়েছিস। এখন পিঠা চাবা।
দীপ্ত নাড়ো মুখে দিতে দিতে বলল,
~ এই শুন, সারা রাস্তা আমায় হাঁটিয়ে এনেছিস।

সকাল বেলা পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তায় হাঁটার মজাই অন্যরকম। তোর এই অন্যরকম আনন্দের ঠেলায় আমি ক্লান্ত। খুবই ক্লান্ত ভাই।

আফিফ কিছু বলেনা। দীপ্তের বকবক শুনে। মনে হয় কতদিন সে এসব শুনেনি। তার ভালো লাগে শুনতে।

আফিফকে ঝাঁকি দিয়ে দীপ্ত বলে,
~ এই আফিফ, তোকে এসব কে শিখেযেছে রে?

~ নিশান্তিকা।

আফিফ আপন মনে বিরবির করে। নিশান্তিকার কথা ভাবে। কী করছে এখন সে? কেমন আছে? বড্ড জানতে ইচ্ছে করছে। এই সময় নিশু থাকলে কতই না মজা হতো। পাগলিটা এখানে আসলে কত খুশি হয়। এক ছুটে যেতে ইচ্ছে করছে তার প্রিয়তমের দ্বারে।

আফিফ চুপ দেখে দীপ্ত আবার ঝাঁকি দিয়ে উঁচু স্বরে বলে,
~ এই আফিফ, চেহারার কি হাল করেছিস।

আফিফ এরিয়ে যাওয়ার মত বলে,
~ দাদিমার মত কথা বলা বাদ দে তো।

~ আমি যদি জানতাম প্রেমে পড়লে তুই এমন কাহিল হয়ে যাবি, তাহলে কখনোই প্রেমে পরতে দিতাম নাহ্।

আফিফ আবার এরিয়া যাওয়া সুরে বলে,
~ তোর খাওয়া শেষ হলে এবার আমরা উঠি।

~ আরেকটু বসি প্লিজ। বড্ড ক্লান্ত লাগছে। কতটা পথ হেঁটে এসেছি একবার ভাব।

আফিফ বিরক্ত প্রকাশ করে। এখনাে বসে থাকলে তার নিশান্তিকার কথা মনে পরবে। মায়ের কথা মনে পড়বে। খুব বেশি যন্ত্রণা হবে বুকে।

দীপ্তের কাঁধে হাত রাখে আফিফ। মিটমিট করে হেসে ওঠে। হাসি হাসি মুখে দীপ্তকে ইশারায় গেটের দিকে তাকাতে বলে।

গেট দিয়ে একটি সুশীলা মেয়ে তাদের দিকে এগিয়ে আসছে। তা দেখে দীপ্তের গলায় নাড়ো আটকে যায়। কাঁশকে থাকে খকখক করে।

মেয়েটি আশায় দীপ্ত খুব বিরক্ত হয়। কিছুতেই সে এখন আফিফের থেকে কাছ ছাড়া হবে না। কোনো বাহানায় নাহ, আফিফের কথাও শুনবে না। দীপ্ত মন স্থির করে, সে এখন আফিফকে নিয়ে এখান থেকে অন্যকোথাও চলে যাবে।

তেরো পর্ব

দীপ্তের কাঁধে হাত রাখে আফিফ। মিটমিট করে হেসে ওঠে। হাসি হাসি মুখে দীপ্তকে ইশারায় গেটের দিকে তাকাতে বলে।

গেট দিয়ে একটি সুশীলা মেয়ে তাদের দিকে এগিয়ে আসছে। তা দেখে দীপ্তের গলায় নাড়ো আটকে যায়। কাঁশকে থাকে খকখক করে।

মেয়েটি আসায় সে খুব বিরক্ত হয়। কিছুতেই সে এখন আফিফের থেকে কাছ ছাড়া হবে না। কোনো বাহানায় নাহ, আফিফের কথাও শুনবে না। দীপ্ত মনস্থির করে, সে এখন আফিফকে নিয়ে এখান থেকে অন্যকোথাও চলে যাবে।

আফিফ বাঁকা ঠোঁটে হেসে দীপ্তের কাঁধে হাত রেখে বলে,
~ চল, এবার শান্তিতে বসে থাক।

আফিফ মিটমিট করে হাসতে থাকে। দীপ্তের চুপসানো মুখটা দেখতে তার ভালোই লাগে। দীপ্ত বিরক্ত প্রকাশ করে বলে,
~ ও এখানে কি করছে?

~ আমি কি জানি, তোর খোঁজেই এসেছে। আমায় কেন বলছিস!
মেয়েটি এগিয়ে এসে মিষ্টি হাসে। দীপ্ত মিনমিনিয়ে বসে থাকে।

আফিফ সহাস্যে হাত নাড়িয়ে বলে,
~ হেই, হাই ইতু। হোয়াট’স অ্যাপ?
~ হ্যালো আফিফ। আই এম ফাইন।

আফিফ মুচকি হেসে দীপ্তের কাঁধে হাত রেখে বলে,
~ সো, মিস ইতু। ডাক্তারি রেখে হঠাৎ ফুলবাড়িতে পদার্পণ করলে যে?
ইতু অপ্রস্তুত হাসে। দাঁড়িয়ে থাকতে অসস্থি হয়। তবুও ঠোঁটে হাসির রেখা টেনে বলে,
~ আসলে, দীপু, আ দীপের সাথে কিছু বিষয়ে কথা ছিল।

আফিফ দু’বার কেশে ভাব নিয়ে বলে,
হুমম দীপু, ওয়াও দীপ। হোয়াট এ নেম। বাই দি ওয়ে, এখানে দীপু কে?

এই বলে আশেপাশে চোখ বুলিয়ে নেয়। ভাবটা এমন সে দীপু নামে কাউকে চিনে নাহ্।

দীপ্ত সহসা কঠিন হয়ে হাতের কনুই দিয়ে আফিফের পেটে গুতা দিলে, আফিফ হাসতে হাসতে গড়াগড়ি খেতে থাকে।

ইতু পাশে বসে দীপ্তের মুখের দিকে তাকিয়ে মিটমিট করে হাসছিল। দীপ্তের কান ঝালাপালা হয়ে যাচ্ছে চারপাশের হাসির শব্দে। রাগ হচ্ছে নিজের কর্মকাণ্ডে।

দীপ্ত রাগে দাঁতে দাঁত চেপে বলে, আফিফ।

দীপ্তের ধমক খেয়েও আফিফ হাসি থামায় না।

ইতুর হাত ধরে দীপ্ত হেঁটে চলছে পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তায়। নিজের লজ্জা লুকাতে যখন সে ব্যার্থ হলো, তখন ইতুর হাত ধরে টেনে ফুলবাড়ি থেকে বেরিয়ে আসে।

আফিফ চেঁচিয়ে বলে,
~ এই দীপু, এই দীপ, লাল গোলাপ ফুলটা নিয়ে যাহ্। কাজে লাগবে।
ইতু থামিয়ে বলে,
~ আরে আফিফ ডাকছে, ফুলটা নিয়ে আসো।

দীপ্ত আরো ক্ষেপে যায়।

~ চলো বলছি। আফিফকে পড়ে দেখছি আগে তোমায় দেখি নেই।

ইতু মনে মনে খুব খুশি হয়। কিন্তু বান্দর টা একবারও তার দিকে তাকাচ্ছে না। এত সুন্দর করে সে সেজে এসেছে। দেখবে বলেও দেখবে না, সে জানে। তবুও, দীপ্তের ভালোবাসার কাঙাল ইতু।

একটু ভালোবাসলে কি হয়! এই ছেলের কাছে নাকি ভালোবাসার সময় নেই। ভালোবাসতে নাকি সময়ের প্রয়োজন হয়।

একটি খোলা মাঠের কোণে এসে দুজনে দাঁড়ায়।
~ এই এই ঋতুর বাচ্চা। এই…
ইতু সহসা মুখ গোমড়া ভাবে বলে,
ইতু, আমার নাম ইতু।

দীপ্ত চোখ গরম করে তাকায় এক নজর, ইতু মাথা নিচু করে নেয়। দীপ্ত এক ধমক দিয়ে বলে,
~ তোকে বলেছিলাম আফিফের সামনে হাজির হতে। বলেছিলাাম।
~ উহু, তুমি বলেছিলি,

~ তাহলে তুই কেন ফুলবাড়িতে গেলি। আফিফের সামনে ফাইলটা দিতে চাইছিলি তুই, বল। গাধি একটা।

দীপ্তের আরেক দফা ধমক খেয়ে ইতু একেবারে চুপ হয়ে যায়। মাথা নিচু করে রাখে। সে চায়নি ফুলবাড়ি যেতে। প্রথমে বাসায় গিয়েছিল, দাদিমা জোর করে ফুলবাড়িতে পাঠিয়ে দিল। বলল, ওখানে গেলে ভালো লাগবে, যাও। আর সে কি এতটাই বোকা, আফিফের সামনে সিক্রেট ফাইল ধরিয়ে দিত।

দীপ্ত হাত বাড়িয়ে বলে,
~ দে ফাইলটা দে আমায়।

ইতু ব্যাগ থেকে একটি নীল রঙের ফাইল এগিয়ে দেয়।
~ এটা কপি ফাইল।

দীপ্ত ফাইলটা ছোঁ মেরে নিয়ে বলে,
~ আসলটা কোথায়।

~ নিশান্তিকা আপুর কাছে।

~ হোয়াট? রিপোর্ট নিশান্তিকা সাবমিট করেছে?
~ হ্যাঁ, নিশু আপু করেছে। দাও, রিপোর্ট বুঝিয়প দেই।
~ নিশান্তিকা যেহেতু রিপোর্ট সাবমিট করেছে, আমি বুঝতে পারব। তোর মত গাধি নই।

ইতু ক্ষেপে যায় সহসা। তার কাজ নিয়ে কেউ কথা বললে বিরক্ত হয়। কিন্তু সে দীপ্তের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করতে পারবে না। করলেও দীপ্ত আমলে নেবে না, তাই অযথা এখন আর সে রাগ দেখায় না। ইতু কঠিন হয়ে বলে,
~ নিশু আপু শুধু রিপোর্ট সাবমিট করেনি।

~ মানে?

দীপ্ত অবাক হয়, চোখ পাকিয়ে তাকিয়ে থাকে ইতুর দিকে।
~ হ্যাঁ, নিশান্তিকা আপু হসপিটালে গিয়েছিল, হেড হিসেবে জয়েন করেছে। সকালের ডেডবডি তার আন্ডারে।

~ বাহ্, এত দারুণ হয়েছে। নিশু আমায় জানায় নি কেন। ওয়েট ফোন দিচ্ছি।

~ পরে দিও তুমি। এখন আমার কথা শুনো।
দীপ্ত সহসা উঁচু স্বরে বলে,
~ তুই আবার কি বলবি।

ইতু সহসা উত্তেজিত হয়ে উঁচু স্বরে বলে,
~ মানে আমি ওই হসপিটালের একজন রেসপন্সিবল ডক্টর। এটা করা ঠিক হচ্ছে কি?

দীপ্ত চোখ পাকিয়ে নরম সুরে আদরে গলায় বলে,
~ তাহলে কি তুই আমার সাথে থাকবি নাহ্।
ইতু থমথমে খেয়ে যায়। নরম হয়ে বলে,
~ সে তো থাকবই, এমনি বললাম।

দীপ্ত সহসা হেসে ওঠে। নিজেকে বাহবা দেয়। কখন কোন মেডিসিন দিতে হয়, সে খুব ভালো করেই জানে।

এটা সকালের মেডিক্যাল রিপোর্ট। দীপ্ত মন দিয়ে ভেবে বলে, এখন কিছুটা মাথায় আসছে। সকালের মৃত্যুর কারণ এটা হতেই পারে না। আরো বিশেষ কিছু আছে, যা আমাদের নজরে পরছে না।

দীপ্ত ভাবছে প্রেম খুনি, সপটা প্রমাণ করে দিবে। আফিফ, নিশান্তিকার জবন থেকে প্রেমকে বহু দূরে নির্বাসন দিবে।

সেই চেষ্টায় দীপ্ত উদ্যম। অন্যদিকে নিশান্তিকা আসল অপরাধীকে খোঁজার চেষ্টা করছে। সে বিশ্বাস করে না, প্রেম নিজের ভালোবাসার মানুষকে মেরে ফেলবে। প্রেমকে আগলে রেখে যে করেই হোক সে আসল সত্য সবার প্রকাশ্যে আনবে।

ইতু দূরে কাউকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখছে, তাদের প্রতিই যেন নজর। তবে ইতু আমলে নিল না। যে কেউ হতে পারে। সে দীপ্তের কথায় মনোযোগ দেয়।

~ কিন্তু দীপ, তুমি আফিফকে এসবের থেকে আড়ালে রাখছ কেন।
~ সেটা তোর বুঝার বয়স হয়নি।

দীপ, আমি একজন সফল গাইনোলজিস্ট। একজন ডাক্তার হয়ে গেছি, তুমি বলছ বয়স হয়নি।

~ হ্যাঁ, তো, নিশান্তিকার থেকে বড় ডক্টর তো হয়ে যাসনি। ভাবের ডিব্বা। হুহ্।

ইতু মনে মনে ক্ষোভ প্রকাশ করে। অস্থির হয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে। অদূরে দূটি ছায়ায় চোখের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। দীপ্ত মোবাইল নিয়ে কি যেন করছে, আর ফাইলে চোখ বুলাচ্ছে। এমন একটা ভাব, যেন ডাক্তার ~ পুলিশের মত তদন্ত করছে।

নিশান্তিকা টেরেসের এক কোণে চেয়ারে বসে আছে। নেহাল বল নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করে খেলছে।

পশ্চিমা আকাশে গোধূলির আলোয় রাঙিয়ে নিয়েছে। নীল সাদা আকাশের রক্তিম বর্ণের গোটা গোটা রঙের মেলা বসেছে। সেই আলোয় শহরের আনাচে~ কানাচে ছেয়ে গেছে, রক্তিম বর্ণের রঙের মেলা বসেছে শহরে।

এ যেন এক শান্তির ছোঁয়ার শিহরণ। অনুভবের এক অন্যরূপ জাগরণ।

নিশান্তিকা গোধূলির আলোয় নিজেকে রাঙিয়ে আপন মনে আফিফের কথা ভাবছিল। ছেলেটি তাকে পাগলের মত ভালোবাসে। সে বুঝেছিল সকালের মৃত্যুর দিন থেকে।

কথা ছিল, এমনি এক গোধূলির বিকেলে পিচঢালা রাস্তায় দুজনে হাতে হত রেখে হাঁটবে, গোধূলির অপরপ্রান্তে কি আছে, তারা দেখতে যাবে। গোধূলির অপরপ্রান্তে এই রঙিন দুনিয়ার ঝলসানো রক্তিম আলোর ছায়া থাকে নাকি বিশাল এক অন্ধকারের পাহাড় থাকে।

অথচ…
এ দু দিন যতটা সম্ভব অদূরে থেকে পাশে থাকার চেষ্টা করেছে আফিফ। নিজের পরিবার মেনে আগলে রেখেছে। প্রেমের পাশে ভাইয়ের মতো থেকেছে।

সব থেকে বড় বিষয়, নিশান্তিকার ভালোবাসার প্রতি সে বিশ্বাস রেখেছে। প্রেমের পাশে থাকতে, খেয়াল রাখতে বলেছে,। বুঝিয়ে দিয়েছে, কাউকে ভালোবেসে তাকে পাওয়াটাই সব নয়, বিশ্বাস করে অন্যর ভালোর জন্য ছেড়ে দেওয়াটা ভালোবাসার বিশাল এক ত্যাগ।

নেহাল বল খেলায় মত্ত ছিল। হটাৎ প্রেমের কথা জানতে চাইল। নিশান্তিকা অস্থির হয়ে দাঁড়িয়ে যায়। সে ভাবেই নি, প্রেম কোথায় যে গেল!

আবার সকালের বাড়িতে যাইনি তো, তাহলে যে সর্বনাশ হয়ে যাবে। নিশান্তিকা ঘাবড়ে গেল। বেরিয়ে যাওয়ার সময় তখন প্রেমকে আটকানো উচিত ছিল।

নিশান্তিকা আবার বসে পড়ে, দুশ্চিন্তা ঘিরে ধরে চারপাশ,
~ উফফ্ প্রেম কোথায় তুমি!

পর্ব _১৪

সন্ধ্যা নেমেছে শহরে প্রায়। গোধূলির শেষ বেলা। আকাশে রক্তিম বর্ণের ছায়াপথের মেলা মিলেছে।
আফিফ গেট দিয়ে প্রবেশ করার পথে বাগানের দিকে তীক্ষ্ণ চোখে তাকায়।

আফিফের হাতে কিছু ফুলের টব ছিল, ভৃত্য এসে টবগুলো নিয়ে বাগানের এক কোণে নিয়ে রাখে।

আফিফ বলে দেয় গাড়িতে আরো কিছু টব আছে।

আফিফ হেঁটে এসে বাগানের মাঝে একটি চেয়ার টেনে বসে। মুখে তার গম্ভীর ভাব। সে প্রথমেই লক্ষ্য করেছে দাদিমাসহ নিশু আর নেহাল বসে ছিল।
~ আয় দাদুভাই,।

আনোয়ারা বেগম মাথায় হাত বুলিয়ে দিলেন আফিফের।
~ কেমন কাটালে সময়?
~ ভালো দাদিমা।

~ এখন ভালো লাগছে!
~ হুমম
আফিফ মাথা নেড়ে হুমম বলে। আনোয়ারা বেগম লম্বা এক নিঃশ্বাস নেয়। নাতির ভালো থাকায় সেও খুশি।

নিশান্তিকা চুপিসারে বসে ছিল, কথা বলার স্পেসিফিক কারণ সে খুঁজে পাচ্ছে না। তবে, তার মনে হাজার কথার আনাগোনা। যা সে ব্যক্ত করার জন্য ভিতরে ভিতরে ছটফট করছে।

আনোয়ারা বেগম নেহালকে কাছে টেনে বলল,
~ দাদুভাই, নিশুরা এসেছে কিছুক্ষণ হলো। তোমার জন্য অপেক্ষা করছে।

আফিফ চোখ পিটপিট করে নিশান্তিকার দিকে তাকায়। ধূসর রঙের লং থ্রি~ পিস পরেছে আজ। বা~ পাশে কালো রঙের উড়না টানানো। একপাশে চুলগুলো হালকা বাতাসে উড়ছে। চোখে গাঢ় কাজল। ঠোঁট জুড়া গোলাপি রঙের দেখাচ্ছে। চোখ মুখে এক অস্থির লজ্জা ভাব। চোখ তুলে তাকিয়ে দেখে আবার নীচে নামিয়ে রাখে।

আফিফ মুচকি হাসল। প্রয়িতমার দর্শন পেয়ে মন প্রফুল্ল হলো।

আনোয়ারা বেগম দুবার কেঁশে ওঠলেন। দুজনেই একটু নড়েচড়ে বসল। নিশু কানের নিচে চুলগুলো গুজে দিয়ে মুখ ফিরিয়ে তাকাল। আফিফ আবারও গম্ভীর মুখে বসে রইল।

দাদিমা নেহালকে নিয়ে ওঠে দাঁড়ালেন।

~ দাদুভাই, তোমরা কথা বল। ছোট দাদুভাই চলো আমরা ভিতরে যাই।
~ ভিতরে কেন যাব আমরা।

~ কারণ, সন্ধ্যা নামছে৷ চারপাশে অন্ধকার হবে, এরপর ভূত আসবে।
নেহাল জড়োসড়ো হয়ে আনোয়ারা বেগমের হাত ধরে ভিতরে চলে গেল। ভূতে তার ভিষণ ভয়। এর চেয়ে ভালো ভিতরে গিয়ে হালুয়া খাওয়া।

আফিফ উঠে দাঁড়িয়ে বাগানের একপাশে বেঞ্চের কোণে বসল। পিছনে হালকা ঝুঁকে পা দুটো নীচের দূর্বা ঘাসের ওপর এলিয়ে দিল।
নিশান্তিকা কথা বলার প্রস্তুতি নিয়ে, একটি শপিং ব্যাগ হাতে নিয়ে আফিফের পাশে গিয়ে বসল।

ব্যাগটি এগিয়ে দিয়ে নরম সুরে বলল~ এটা তোমার জন্য।
আফিফ ক্ষানিক হেসে ব্যাগটা নিয়ে প্রতিত্তোরে বলল,
~ কেমন আছো?

~ ভালো
~ হঠাৎ, এ বিকেলে এখানে?

নিশান্তিকা কথা বলতে দ্বিধাবোধ করল এখন। গলা আটকে আসল। কি বলবে সে? প্রেম বাসায় নেই, একপ্রকার প্রেমকে খুঁজতে বেরনোই ছিল তার উদ্দেশ্য।

হাঁটতে হাঁটতে এখানে এসে পৌঁছেছে।
তবুও যা সত্য সেটা সাহস করে বলতেই হবে। অনন্ত মিথ্যার আশ্রয় নিবে না সে। আফিফ নিশ্চয় সাহায্য করতে পারবে। প্রেমকে খুঁজে পাওয়া ভিষণ জরুরি এখন।

আচমকা আফিফ এক হাত শক্ত করে ধরে নিশান্তিকার।

~ বুঝতে পারছি, বসে বসে কারণ খুঁজছ, পাচ্ছনা। কারণ আমার কাছে আসতে তোমার কারণের দরকার হয় না। ভালোবাসো তাই।

নিশান্তিকার দু চোখে জল চিকচিক করে ওঠে। তাকে এক নজর দেখার জন্য সারাক্ষণ ছটফট করেছে সে।

আফিফ কোমল সুরে আবার বলে,
~ ভালোবাসায় কোনো স্পেসিফিক কারণ থাকতে নেই। কিন্তু তুমি আমার কাছে আসতে গিফট দেওয়ার বাহানা খুঁজছ।

নিশু অবাক হয় এ কথায়। কি বুঝাতে চায় সে, আমি তাকে ভালোবাসো বলে মোহ দেখাচ্ছি। এত ঠুকনো ভাবনা সে ভাবছে।

নিশান্তিকার অভিমান হলো। নিশান্তিকা নিজ ইচ্ছায় তো কাছে এসে বলেনি, ভালোবাসো। সে তাকে ভালোবাসতে আহ্বান করেছে।
নিশান্তিকার মাঝে রাগ হয়, ভিষণ। একপ্রকার দুঃখ ও হয়।

কেন সে এখানে আসতে গেল! সেই ভেবে আফসোস করে, এখানে না আসলে আফিফের এসব কথা হয়ত তার শুনতে হত না।
~ কি ভাবছ?

~ তুমি কি বলতে চাচ্ছ, তোমাকে দেখার জন্য আমি বাহানা খুজব। এমনটা কখনোই হবে না।

~ আমি জানি। তুমি খুঁজবে না।

~ হ্যাঁ, খুঁজব না। আমি তোমায় ভালোবাসি। যখন খুশি তখন আসব।
~ বারন করলেও আসবে।

~ হ্যাঁ অবশ্যই। তোমার মুখের বারন আমি কেন শুনব। যেখানে আমি আমার মনের বারন শুনছি নাহ।

আফিফ প্রশান্তি হাসে। নিশান্তিকা গাল ফুলিয়ে বসে থাকে। ভালোবাসি বলে কি, সে আজ বেহায়ার মত কথা শুনাবে। তবে, কেন সে ভালোবাসা শিখালো।

আফিফ মুচকি হেসে নিশান্তিকার মাথা নিজ কাঁধে রাখে। শক্ত হাতে জড়িয়ে ধরে। নিশান্তিকার গলা পাকিয়ে আসে কান্নায়।

~ আমি দুঃখিত নিশু। সেদিনের ব্যবহারের জন্য ক্ষমাপ্রার্থী। আমি তোমাকে ভালোবাসি এ কথা মিথ্যে নয় যদিও…

নিশান্তিকা মাথা তুলে ঠায় বসে থাকে। আফিফকে বুঝার অনুভব করে। আফিফ কি বলছে এসব। আফিফ একদিন তাকেই বলেছিল, যদি দুজনের মাঝে একজন ভুল করে, তবে সে ভুল অন্যজনের ধরতে নেই।

ভালোবেসে মেনে নিতে নয়। রাগ, অভিমান বাড়াতে নেই। যতবার পারো বলো, ভালোবাসি। ভালোবাসায় কোনো ক্লান্তি রেখো না। মনের মত তাকে মানিয়ে নেও।
~ নিশু।

~ হুমমম
~ তোমাকে আমি খুব ভালোবাসি। আমি শুধু চেয়েছিলাম, তুমি নিজ দায়িত্বে পরিস্থিতি সামলে ওঠ। আমি তোমার পাশে সব সময় থাকতাম। কিন্তু তুমি সেদিন যা আবদার করেছিলে, সেটা মানলে প্রেমের প্রতি অন্যায় হত।

নিশান্তিকা কিছু বলে না। আফিফ আবার নিশান্তিকার মাথা কাঁধে মিশিয়ে রাখে।

~ তুমি পারবে তো?
~ জানি না।

~ প্রেমের পাশে এখন তোমাকে প্রয়োজন।
~ জানি, তাই তুমি দূরে ঢেলে দিয়েছ।

আফিফ মুচকি হেসে চুপ করে বসে থাকে। নিশান্তিকাকে অনুভব করে। হৃদয়ের মাঝে প্রশান্তি খুঁজে পায়। মনে হয়, কত জনম বাদে সে নিজেকে সুখী অনুভব করছে।
~ নিশু
~ হুমম
~ কিছু বলবে আমায়।
~ হ্যাঁ
~ বলো।

~ তোমার দেখা পাই না, কত ঘন্টা হয়েছে, গুনেছ? আমি গুনেছি!
আফিফের মনে বিষন্ন ভাব আসে। নিশুকে সে যে অনেক বেশি মনে করেছে, সেটা যে নিশু জানে নাহ্। যদি জানত, তবে ভালোবাসায় কোনো মান, অভিমান থাকত না।
~ নিশু
~ হুমম

~ আমি সারাদিন ফুল বাড়িতে ছিলাম। আজ মায়ের মৃত্যু বার্ষিকি ছিল।
নিশান্তিকা শীতল হয়ে লেপ্টে থাকে আফিফের বুকে। আফিফের কথায় সে থমকে যায়। আজ আফিফের মায়ের মৃত্যু বার্ষিক, আর সেটা তাকে জানালো না। একবার! সে কি পারত না ফুলবাড়ি যেতে, তাও আজকের দিনে।

নিশান্তিকা ঝট করে উঠে দাঁড়িয়ে ফিরে হাঁটে। আফিফ উঠে দাঁড়িয়ে বলে, নিশু, কি হলো।

~ তুমি আমায় একবারও জানালে না। এখন শেষে সন্ধ্যায় বলছ।
~ না, আসলে আমি চাই নি এসবের মাঝে তুমি…
~ হ্যাঁ, আমি তো তোমার কেউ না। তোমার কষ্টে আমার কি আসে যায়। তোমার কষ্ট দেখতে তো আমার খুব খুশি লাগে।

নিশান্তিকার চাপা কান্না বেরিয়ে আসে সহসা। কথা বলতে পারেনা। আফিফ এসে নিশুকে বুকে জড়িয়ে নেয়। আফিফকে ঝাপটে ধরে নিশান্তিকা কেঁদে ওঠে।

~ বোকা মেয়ে, সামনে বছর তোমায় ঠিক নিয়ে যাব। কাঁদে না।
~ তুমি আমায় সব সময় মিথ্যে আশ্বাস দাও। আমার খুব ক্লান্ত লাগে মাঝে মাঝে।

আফিফের চোখে জল ভরে আসে। এমন দিন সে দেখতে চায় নি। এমনটা কেন হলো তার সাথে ! আজ তাদের বিয়ের দুদিন, অথচ একে অপরের কত দূরে তারা। তার ভাগ্য কি সুখের ছোঁয়া আসবে না কখনো। নিশান্তিকাকে নিয়ে ভালোবাসার ছোট্ট একটি ঘর বাঁধার স্বপ্ন কি তবে স্বপ্নই থেকে যাবে। এ ভাবেই কি তবে মনের দূরত্ব বাড়তে থাকবে।

বড় ভয় হচ্ছে মনে। সেদিন কি সে একটু স্বার্থপর হলে খুব খারাপ হতো। নিশান্তিকারও আবদার পূর্ণ হতো। এ বাড়ির বউ সেজে গুজে সারাক্ষণ ঘুরে বেড়াত তার সামনে দিয়ে। সুখী সংসার হতো। কেন সে স্বার্থপর হলো না!

আচ্ছা, স্বার্থপর হলেই কি কালো ছায়া দূর হতো। প্রেম কি তাদের জীবনে ফিরে আসত না। আর সেদিন কীভাবে সে প্রেমকে ছন্নছাড়া ছেড়ে দিত একা রাস্তায়। নিশান্তিকাকে যে তখন প্রেমের খুব দরকার ছিল।

সকালের মৃত্যুতে প্রেম গভীর শোক পেয়েছে, গভীর দুঃখের মাঝে প্রেম নিশুকে জড়িয়ে নিয়েছে, ছায়া খুঁজেছে, সেটা যে আফিফ নিজ চোখে দেখেছে। এরপরও প্রেমের থেকে নিশুকে সে কীভাবে আলাদা করত। যেটা উচিত ভেবেছে, সেটাই করেছে সে। প্রেম সামলে ওঠলে নিশান্তিকা তার একদিন হয়ে যাবে। এটা তার বিশ্বাস, সেদিনের অপেক্ষায় সে থাকবে।

পর্ব _১৫

সন্ধ্যা নেমেছে শহরে,
অন্ধকার গাঢ় হয়ে অন্ধকারের শহরে চারপাশ বুকে জড়িয়ে নিয়েছে। পিচঢালা রাস্তা, পাশে দাঁড়ানো ল্যামপোস্টের ক্ষীণ আলো।
আফিফের হাতে হাত রেখে নিশান্তিকা আপন মনে হেঁটে চলছে, নিশান্তিকার বাড়ির পথে।

নেহালকে প্রেম এসে নিয়ে গিয়েছে। প্রেম সম্ভবত হসপিটালে গিয়েছিল, সকালের মৃত্যুর খবর জানতে, এটা নিশান্তিকার ধারণা।
~ নিশু,

নিশান্তিকা ঘেঁষে দাঁড়ায় আফিফের, মাথা তুলে অন্ধকারে আফিফের মুখের দিকে তাকিয়ে চেয়ে দেখে।
~ হুমমম বলো,

আফিফ হাতটা আরো শক্ত করে জড়িয়ে নেয়। কিছু সময় চুপ থেকে হাঁটার সময় সহসা বলে ওঠে,
~ আমাদের এখনো বাসর হয়নি!

নিশান্তিকা অন্ধকারে মাঝেও লজ্জিত হয়ে দাঁড়িয়ে যায়। হাত পা শক্ত হয়ে আসে।

ঘটনাক্রমে সেদিন আফিফের সঙ্গে বিয়ে হয়ে গেলেও, তাদের বাসর এখনো হয়নি। এটা মনে করা যতটা না লজ্জাকর ছিল, তার থেকেও বেশি লজ্জা পেল আফিফের কথায়।

বিয়েটা হলো ঠিকই, অথচ দুজন ব্যতিত কেউ জানে না। নিশান্তিকা খুশিতে কত উত্তেজিত হয়ে ভেবেছিল, কখন প্রেমকে বলবে, আজ সেও প্রিয় মানুষকে আপন করে পেয়েছে।

দুঃখজনক হলেও মানতে হয়েছে, এসেই দাঁড়াতে হয়েছে সকালের মৃতদেহের সামনে!
~ নিশু,
~ হুমম
নিশান্তিকা প্রথমে অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছিল, আফিফের ডাকে তড়িঘড়ি করে আবার হাঁটতে থাকে।

~ নিশু, আমি জানি। তুমি লজ্জা পাচ্ছ। তুমি লজ্জা পেলে খুব মায়াবতী লাগে।

আফিফের কথায় নিশান্তিকা দাঁড়িয়ে যায়। কষ্ট ভরা মনে আফিফের দিকে চেয়ে দেখে। বুকের মাঝে ধরফর করে ওঠে। ভাবে, তার জন্য নিষ্পাপ মানুষটি কষ্ট ভোগ করছে।

ল্যামপোস্টের ক্ষীণ আলোয় নিশান্তিকার বেদনাভরা, বিষন্ন চাহনি দেখে আফিফের মনে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। নিজের প্রতি বিরক্ত হয়। এ মুহূর্তে কেন সে এমন কথা বলল। এতে করে নিশান্তিকা দূর্বল হয়ে যেতে পারে, নিজের লক্ষ্য স্থির রাখতে হবে তাকে।

~ নিশু, তুমি ঠিক আছো। আমি কিন্তু তোমায় কথাটি এমনি বলেছি। তুমি চাপ নিও না।

নিশান্তিকা সহসা উঁচু স্বরে বলে,
~ আফিফ, আমি তোমায় খুব কষ্ট দিয়েছি, তাই না। খুব বিরক্ত করেছি তোমার জীবনে এসে।

আফিফ ফিক করে হেসে ওঠে। কি বোকা বোকা কথা বলছে নিশান্তিকা!

~ কি হলো, হাসছ কেন। বলো, আমি তোমায় কষ্ট দিয়েছি তাই না।
আফিফ মুচকি হাসে, চেষ্টা করে বুকের মাঝে যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পাওয়ার, কারণ ভালোবাসার মানুষ কাছে থেকেও দূরে, এর চেয়ে যন্ত্রনা আফিফ এর আগে কখনো পায় নি।

~ বোকা মেয়ে, কি সব বলছ তুমি। আমি তোমায় পেয়ে খুব খুশি।
নিশান্তিকা সহসা বলে ওঠে,

~ আমি জানি। আমি জানি তোমার কষ্ট হয়। ভালোবাসার মানুষ কাছে না পাওয়ার আক্ষেপ। কবুল মেনে বিয়ে করা বউকে হারানোর এক ভয়ের যন্ত্রণা প্রতি মুহূর্তে।

আমি বুঝতে শিখেছি এখন আফিফ। তুমি কতটা যন্ত্রণাময় মুহূর্ত কাটাচ্ছ।

আমার জীবনের সাথে লড়ে যাচ্ছ তুমি, সঙ্গী হয়ে সব সময় পাশে আছো। অথচ সেই আমি, তোমার কপালের ঘামটুকু মুচে দেয়ার সময় পাশে থাকি না। তুমি এ জীবন ডিজার্ভ করো না।

~ নিশু, আমার কথা শুনো।
~ আমি জানি তুমি কি বলবে আফিফ। বলবে যে তোমার ইচ্ছে অনুযায়ী চলছ তুমি। কিন্তু আমি,
~ নিশু, আমি তোমায় ভালোবাসি।

বিশ্বাস করি, ভরসা রাখি। আমি এটাও জানি, তুমি আমায় হাজারও প্রতিকুলের মাঝে দূরে ঢেলে দিবে না। আমি ব্যতিত তুমি যেমন অপূর্ণ, তেমনি তুমি ব্যতিতও যে আমি অপূর্ণ। এখন এসব ভুলভাল কথা বলা বন্ধ করো, বোকা মেয়ে।

একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে।

~ ঠিক হবে? প্রেম কি স্বাভাবিক হতে পারব বল না।
আফিফ বুকের মাঝে জড়িয়ে নেয় নিশান্তিকাকে।

~ ইনশাআল্লাহ হবে। এখন আমাদের প্রেমের পাশে দাঁড়ানো খুব প্রয়োজন।

~ আমি আর প্রমের কষ্ট দেখতে পারছি না। সব কিছু তছনছ করে দিল প্রেমের মৃত্যুতে।

~ একদিন সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে। ভরসা রাখো নিয়তির উপর।
আফিফের বুকে মাথা রেখে দাঁড়িয়ে ভাবে নিশান্তিকা।

প্রেম নিজেকে সামলে নিচ্ছে একটু একটু করে। জীবন থেমে যাওয়ার নয়। থমকে দাঁড়ালেই দুনিয়া থেমে যায় না। সময় বয়ে চলে, আর সময়ের সঙ্গে চারপাশে চলাচল থেকেই যায়। একই সময় কত বিচিত্র ঘটনাই না ঘটে যায় পৃথিবীর বুকে।

একটা সময় সকাল হয়। ভোরের আলো নেমে আসে পৃথিবীর বুকে। প্রশান্তির রাত শেষে জেগে ওঠে শুভ্র সকাল। সময়ের কাঁটা বাড়তে বাড়তে মানুষের কোলাহল বাড়ে পিচঢালা রাস্তায়। ভর দুপুরে ছুটে চলে নিজ নিজ গন্তব্যে, জীবম বাঁচানোর তাগিদে।

একটা সময় সন্ধ্যা নামে, অন্ধকার ঘিরে ধরে চারপাশে। তবুও শহরে কোলাহলের শেষ থাকে না। রাত ক্রমশ গভীর হয়। সকলে প্রশান্তিরর নিদ্রায় ডুবে যায়।

এভাবেই প্রেমকে মানিয়ে নিতে হবে পৃথিবীর বুকে। গ্রহণ করতে হবে নিজের নিয়তিকে। সাদরে আগলে নিতে হবে বুকের জমানো কষ্ট। কারণ, এ কষ্ট যে নিজের, নিজের ভিতরের। অন্যর উপর এ কষ্ট না বর্তিত যায় আর না ভাগ করে নেওয়া যায়। যাই থাকে, সবটা নিজেরই থাকে।

অনেক সময় হলো, এ জীবন নিয়ে সে দোটানায় ভুগছে। আর নয়, এবার তাকে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। সকাালের খুনিকে সঠিক শাস্তি দিতে হবে।

পর্ব _১৬

সুখপাখি ভবন,
ভোরের সময়। দু~ বার কলিং বেল বেজে ওঠল।

নিশান্তিকা মাত্রই ফ্রেশ হয়ে নীচে নেমেছে। গতরাতে প্রেমের সঙ্গে হাজারো কথা বলার চেষ্টা করেও পারেনি, প্রেম একবারও মুখ খুলেনি।

শেষমেশ নিশান্তিকা নিজেই বিরক্ত হয়ে নেহালকে নিজের কাছে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।

কলিং বেলের শব্দ শুনে নিশান্তিকা আরো বিরক্ত হলো। এত সকালে কে আসতে পারে?
একমাত্র প্রেমই আসত যখন তখন। কিন্তু প্রেম তো এখন এ বাসাতেই আছে।

নিশান্তিকা ডোর খুলে দেখল, অপরিচিত এক মধ্যবয়সী মহিলা দাঁড়িয়ে আছে।

নিশান্তিকা একটু চমকেই ওঠল। অপরিচিত কাউকে সে সহ্যই করতে পারে নাহ।

নিশান্তিকাকে দেখা মাত্রই যেন মহিলার ফ্যাকাসে মুখে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত দেখা দিল।
~ কে আপনি?

~ ভিতরে আসতে পারি মা, তোমার সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা ছিল।
~ আমার সঙ্গে আপনার কিসের কথা?

~ তুমি নিশান্তিকা, তাই না?

নিশান্তিকা অবাক হয়ে শুধু হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়ে। আশ্চর্য, মহিলা তাকে চেনে অথচ…
মধ্যবয়সী মহিলাটি এক দীর্ঘ দম নিয়ে বললেন,
~ আমি সকালের জন্মদাত্রী জননী।

নিশান্তিকার পিলে চমকে ওঠল। সকালের মা! তার কাছে এসেছে কি কারণে? আমার সাথে এনার কি এমন কথা যার মাঝে এত উৎকন্ঠা!
~ নিশু কে এসেছে?

প্রেমের কথা শুনেই নিশান্তিকা ডোর চাপিয়ে দেয়। ভয়ে ভয়ে পিছনে ফিরে তাকায়।

~ কেউ না, তুমি এত জলদি নীচে এসেছ?
~ হ্যাঁ, আসলে ভেবেছি একটু হাঁটতে যাব বাহিরে।

ল। বাহিরে যাওয়ার সময় সকালের মাকে দেখতে পেলে, যদি কোনো অঘটন…! প্রেমকে সে কারো সামনে আসতে দিবে না। সকালের মায়ের সামনে তো নয়ই, সকালের মা৷ কেন এসেছে সে জানে না।

কিন্তু প্রেমের সামনেও পরতে দেওয়া যাবে নাহ্। তাই রাগি স্বরে প্রেমকে ধমকালো।

~ প্রেম, পাগলের মত প্রলাপ বকো না। তুমি এখনো সিক। যাও উপরে আর চুপচাপ রেস্ট নিবে। গতকাল না বলে চলে গেছ কিছু বলিনি, আজ কিন্তু…
প্রেম কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে কিছু বলতে যাবে তখনি নিশান্তিকা ধমকে ওঠে,
~ যাও উপরে, নেহালের ঘুম ভেঙে যাবে।

প্রেম আর কথা না বাড়িয়ে উপরে চলে গেল। নিশান্তিকা সকালের মাকে ভিতরে এনে শোফায় বসালো। খুব নীচু সুরে কথা বলতে চাইল তার সাথে যাদে উপরে কেউ শুনতে না পায়।

~ আপনি বসুন। আপনি এখানে কেন এসেছেন?
আমার কথা বলা আছে তোমার সাথে।

নিশান্তিকা সহসা উঁচু স্বরে বলে ওঠে,
~ আপনার আসল পরিচয় বলুন
~ আমার নাম সায়রা খাতুন। সকাল আমার মেয়ে। মেয়ের মৃত্যুর খবর জানতে পেরে আমি আর থাকতে পারলাম নাহ্।

সকালের মা কথা বলার সময় চাপা গলায় কুঁকড়ে ওঠলেন। চোখের জল মুছে আবার বললেন,
~ তোমার সাথে আমার অনেক কথা আছে মা। সকালের মৃত্যুর খবর পেয়েই আমি একদিন আগে বিদেশ থেকে ফিরলাম।

নিশান্তিকা নিচু স্বরে বলল,
~ আমায় আপনার কি প্রয়োজন।

~ এসেই খোঁজ~ খবরে জানতে পারলাম, সেদিন সকালের বিয়ে হওয়ার ছিল, আর সেদিনই আমার মেয়েটা এভাবে পৃথিবী ত্যাগ করবে আমি ভাবতেও পারিনি।

সায়রা খাতুন আবারো চাপা স্বরে কাঁদতে থাকেন। নিশান্তিকা বেশ বিপদে পড়ে যায়। না পারছে বলতে আর না পারছে সহ্য করতে। প্রেম যদি আবার নিচে নামে!

~ আন্টি শান্ত হোন। সকালের মৃত্যুতে আমরা সকলে আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।

~ দোষটা আমারই, মেয়েটা আমারই জন্য আজ পৃথিবীতে বাঁচতে পারল নাহ্।

নিশান্তিকা চুপিচুপি মহিলার কথা শুনে যায়। এই মুহূর্তে সে কি বা করতে পারে, ফ্যাক নয়ত। মাথা কাজ করছে না নিশান্তিকার। এ সব ন্যাকামি নয়ত!উফফ্
প্রেম নিচে নামলেই ভালো হবে।

~ মামুনি, তোমার কাছে আমি কেন এসেছি, জানো।
~ হ্যাঁ হ্যাঁ, বলুন।

~ তোমার আর প্রেমের সঙ্গে আমার অনেক কথা আছে। আমার মেয়ে সকাল এমনি মরেনি, খুন হয়েছে।

নিশান্তিকার যেন দম আটকে আসল সায়রা খাতুনের কথায়। উত্তেজনায় শিরা উপশিরায় রক্ত টগবগিয়ে ছুটছে,
~ কি কি বলছেন এসব আন্টি!
~ হ্যাঁ, আমি সঠিক বলছি।

নিশান্তিকা কোনোভাবে নিজেকে শান্ত রাখতে পারছে না। সায়রা খাতুন যেন তা বুঝতে পারল।

~ শান্ত হও মা, আমি তোমার ক্ষতি চাই না। তুমি শুধু আমার কথা মন দিয়ে শুনো।

নিশান্তিকা শুধু মৃদু হাসল। ভিতরে ভিতরে ছটফট করতে থাকলো। কি বলবে তিনি। এমন কিছু নয়ত যা শুনার জন্য নিশান্তিকা অপ্রস্তুত হয়ে পড়বে। কিন্তু তাকে যে এখন শান্ত থাকতেই হবে।

সায়রা খাতুন তার জীবনের অনেক কথা নিশান্তিকার কাছে ব্যাক্ত করে। নিশান্তিকা শুধু চুপিচুপি শুনে যায়, আর মাথা নাড়ে। কিছুটা বুঝতে পারে৷ ইনি আসলেই সকালের জন্মদাত্রী মা। সায়রা খাতুন তাদের একটি ফ্যামিলি ফটো, আর সকালের ছোট বড় হওয়ার ফটো দেখালো।

~ আসলে, তোমায় আমি শুরু থেকে বলছি, আমার সঙ্গে সকাল~ সন্ধ্যার বাবার পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। আমরা সুখী দম্পতি ছিলাম নাহ্। যার কারণে আমাদের বিচ্ছেদ হয়।

নিশান্তিকা একটু চমকে ওঠল, সহসা আলে ওঠল,
~ আপনি এখনি কি বললেন? সকাল~ সন্ধ্যা! সন্ধ্যা কে?

~ সন্ধ্যা আমার আরেকটা মেয়ে, সম্পর্কে সকালের আপন বোন হয়।
~ ওহ আচ্ছা।

~ সন্ধ্যা আমার সঙ্গে থাকে। ছোট থেকে। বিচ্ছেদের সময় সকাল ওর বাবার সঙ্গে থেকে যায়। বাবাকে ও খুব ভালোবাসত।

সায়রা খাতুন দীর্ঘশ্বাস ছাড়েন। আরো কিছুক্ষণ কথা বলে, সন্ধ্যার পিক দেখালেন।

~ সকাল~ সন্ধ্যা জমজ বোন। আমার জমজ মেয়ে।

নিশান্তিকার শরীরে হিম শীতল হাওয়া বয়ে গেল। হুবহু এক চেহারার গঠন, তবে একটু বেশি স্মার্ট। সকালের চেহারার মত আরেকটা মেয়ে জীবত আছে, এটা যদি প্রেম জানতে পারে…!

পর্ব _১৭

~ সন্ধ্যা এখন কোথায় আছে আন্টি?

সায়রা খাতুন একটু অবাক হলেন নিশান্তিকাকে উদ্বীগ্ন দেখতে পেয়ে।
~ সন্ধ্যা আমার সঙ্গে এসেছে দেশে। ও এখন হোটেলে আছে।
নিশান্তিকা কিছুক্ষণ ভেবে বলল,
~ আন্টি একটা কথা বলি, হাইপার হবেন না। সিরিয়াসলি নিবেন বিষয়টা।

~ কি এমন কথা নিশান্তিকা?

আন্টি, সকাল কারো শিকারী হয়েছে এ বিষয়ে আমিও জানি। আমার মনে হচ্ছে, সন্ধ্যার জীবনেও ঝুঁকি আছে। আপনি সন্ধ্যাকে হোটেল থেকে বের হতে বারণ করবেন। সব সময় চোখে চোখে রাখবেন।
সায়রা খাতুন নির্বাক চেয়ে আছে নিশান্তিকার দিকে। নিশান্তিকা এক টানে কথা গুলো বলে লম্বা দম নিল। এখন হালকা লাগছে কথাগুলো বলে।

তুমি এসব কি বলছ?

নিশান্তিকা আবার বুঝিয়ে বলে,
~ আন্টি আপনি এক মেয়েকে হারিয়েছেন বলে দুঃখ, দ্বিতীয় মেয়েকে মৃত্যুসজ্জায় না দেখতে চাইলে, প্লিজ আমার কথা মানুন।
সায়রা খাতুন মলিন মুখে বসে থাকে।

আন্টি, আপনি দুঃখ পাবেন না। সকালের মৃত্যুর সঠিক খুনিকে আমি খুঁজে বের করব। সকালের পোস্টমটম আমি করেছি। কিছু তথ্য আর প্রমাণ আমার হাতে আছে।

সায়রা খাতুন ডুকরে কেঁদে ওঠলেন।
~ আমি আমার মেয়েটাকে শেষ দেখাও দেখতে পারলাম নাহ।
দেখতে পারবেন আন্টি, ভরসা রাখুন।

সায়রা খাতুন চোখের জল মুছে অবাক নয়নে নিশান্তিকার দিকে চেয়ে থাকে। মেয়েটি তাকে কতটা বিশ্বাস করেছে, সহজেই। তিনি এবার নিজেকে শান্ত করে, কিছু কথা বলল, যা শুনে নিশান্তিকার দম আটকে যাওয়ার উপক্রম হলো।

সায়রা খাতুনকে বেশিক্ষণ বসিয়ে রাখতে পারল না নিশান্তিকা। প্রেম যেকোনো সময় নিচে আসতে পারে। তাকে বিদায় দিয়ে নিশান্তিকা ট্রে নিয়ে ওপরের রুমে চলে গেলো।

প্রেম ল্যাপটপ নিয়ে বসেছিল, নিশান্তিকা ছোট করে ডাক দিল,
প্রেম
~ হ্যাঁ, এসেছ তুমি। এতক্ষণ লাগে আসতে। দেখো নেহাল ওয়াশরুমে আছে।

~ তুমি জাগিয়েছ?

~ নো, নিজেই জেগেছে কিছুক্ষণ হলো। হি ইজ স্টিল গুড ম্যান।
হ্যাঁ, দেখতে হবে তো কার ভাই!

প্রেম হাসলো। তবে জিগ্যেস করল না, কার ভাই বলতে কাকে বুঝাল, প্রেম নাকি নিশান্তিকা?

(এটার উত্তর পাঠকরাই দিবে নাহয়)
নিশান্তিকা টেবিলের উপর নেহালের দুধের গ্লাস রাখল, প্রেমের দিকে এগিয়ে এসে বলল,

~ নিজের কাজ এখন নিজেই করতে শিখেছে। তোমার কফি।
~ নেহাল বড় হচ্ছে। তাছাড়া, তুমি নেহালকে সময় দিচ্ছ কোথায়। সারাদিন তো হসপিটালেই ঘেঁষে থাকো।

নিশান্তিকা শুধু প্রতিত্তোরে মৃদু হাসল। প্রেম খুব স্বাভাবিক হয়ে কথা বলছে এখন। নিশান্তিকা যদিও অবাক কম হচ্ছে, কারণ সে দেখেছে, গতদিন থেকে প্রেম অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে চলাফেরা করছে।

প্রেম আর নিশান্তিকা দো~ তালার ছাদে এসে বসল।

~ প্রেম, একটা কথা জিগ্যেস করব।

~ হ্যাঁ, একটা কেন, আরো বেশি করো।
~ না একটাই করব।

~ আচ্ছা, করো।
~ সকালের কোনো বোন আছে তোমার জানা মতে।
~ হ্যাঁ, আছে তো।

নিশান্তিকা চমকালো, তবে স্বাভাবিক ভাবে প্রশ্ন করল,
~ ওহ আচ্ছা। তুমি সব জানো তবে, সকাল বলেছে?
~ এটা আরেকটা প্রশ্ন হয়ে গেল।

নিশান্তিকা হাসল। প্রেমও মৃদু হাসল।

~ আচ্ছা, তবে আরেকটা করলাম। তুমি শুধু উত্তর দাও।
~ ওকে, উহু, সকাল বলেনি।
~ তাহলে,
প্রেম হেসে বলল, শুনবে তুমি?
~ হ্যাঁ, বলো। জানার জন্যই তো জিগ্যেস করেছি।
~ ফেসবুক একাউন্ট থেকে প্রথমে জেনেছি। আইডি রিম্যামবারিং করার সময়।

~ তারপর?
~ তারপর, গতকাল দুপুরের পর যখন বের হলাম। তখন সামনা সামনি দেখেছি।

~ হোয়াট! তুমি রিয়াক্ট করো নি।
~ সেই ঘটনা আজ নয়, অন্যদিন বলব। এখন প্রেসার দিও না, আর নিও না। বুঝলে।

নিশান্তিকা মাথা ঝুলালো।
~ হুমম, আচ্ছা।
নিশান্তিকা উচ্চ স্বরে চেঁচিয়ে ওঠল,
~ এই, তুমি কি বললে!

প্রেম তো অবাক~ কি কি বললাম।
~ একটু আগে বললে?

~ কি বলেছি?

~ আরে, বোকা। একটু আগে বললে না যে সকালের আইডি রিম্যামবারিং করেছ।
~ হ্যাঁ, তো। এত খুশি হওয়ার…
~ তারমানে তুমি পাসওয়ার্ড জানো।

~ হ্যাঁ, দিয়েছিল সকাল। কখনো কাজে লাগেনি। ওর মৃত্যুর পর লাগলো।

~ এখন কাজে লাগবে, খুব কাজে লাগবে।
~ মানে, কি কাজে?

~ তুমি আমায় আগে কেন বলোনি। সকালের ফেবু আইডির পাসওয়ার্ড আছে!
~ বললে কি হতো।

~ বোকা ছেলে৷, ম্যাসেন্জার অন করো। তারপর বলছি, আই থিঙ্ক আমরা কোনো বিশেষ তথ্য পেতে পারি।

প্রেম হাবলার মত চেয়ে রইল নিশান্তিকার দিকে।
~ এই প্রেম, করো কুয়েকলি।

~ কিন্তু নিশান্তিকা, এটা কীভাবে করি। সকালের পার্সোনাল বিষয় থাকতে পারে। আমি তোমায় এভাবে ঘাটতে দিতে পারি নাহ।
~ ওরে আমার লয়াল ছেলে রে। আমায় সময় তো ঠিকই পাসওয়ার্ড চাইতা। ভুলে গেলি ভন্ড।

~ দেখো নিশু, তখন আমরা আবেক বয়সী ছিলাম। এখন আমি ম্যাচিউড। এখন আমি স্বয়ং সম্পূর্ণ একজন যুবক।

~ ও হো, প্রেম। ট্রাস্ট মি। আমি পার্সোনাল বিষয় ঘাটব না। জাস্ট দেখব, কোনো তথ্য বা ক্লু আছে কিনা। সুযোগের সত ব্যবহার রা উচিত সঠিক সময়ে। আমাদের সকালের মৃত্যুর সঠিক খবর বের করতেই হবে। ট্রাস্ট করো ইয়ার।

প্রেম তবুও আমলে নিলো না। অনেকটা সময় বাদে প্রেম রাজি হলো। কিন্তু সময় ১০মিনিট মাত্র। ল্যাপটপ এ ম্যাসেন্জার অন করে নিশান্তিকার দিকে এগিয়ে দিল।

নিশান্তিকা ল্যাপটপ স্কিনে চোখ রাখতেই বাড়ির কলিং বেল বেজে ওঠল।
বারংবার বাজতেই চলল….

পর্ব _১৮

নিশান্তিকা ল্যাপটপ স্কিনে চোখ রাখতেই বাড়ির কলিং বেল বেজে ওঠল।
বারংবার বাজতেই চলল….
~ এই যে মিস্টার অ্যান্ড মিসেস, কলিং বেলের শব্দে আমার ডিস্টার্ব হচ্ছে, কেউ দরজা খুলবে নাকি,
নেহালের কথায় নিশান্তিকা~ প্রেম হাবলার মত মুখ চাওয়া চাওয়ি করে উচ্চ স্বরে হেসে ওঠল।

নেহালও হেসে দিল।
~ এখনি খুলছি মাই ডিয়ার ব্রাদার।

~ হ্যাঁ, যাও যাও, সারাজীবন আমায় তোমাদের দুজনকে পরিচালনা করতে হবে!

নিশান্তিকা আবারও হাসল প্রাণ খুলে। নেহাল এসব কথা মাঝে মাঝেই বলে। কারণ, ও মনে করে এটা ওর পরিবার সারাজীবন এভাবেই থাকবে।

প্রেম এগিয়ে এসে নেহালকে জড়িয়ে ধরে বলে,
~ আহা, মাই ডিয়ার ব্রাদার, মনের কথাগুলো বললে তুমি, তোমার বোনকে বলো, বৃদ্ধ বয়সেও যেন আমায় এভাবে কেয়ার করে।
~ আপু, তোমায় কেয়ার করে কোথায়, তোমায় তো সারাদিন ডাটে।

~ সেই ডাটাটাই আমি চাই বাবুনি, কারণ, এটাই ভালোবাসা।
~ ডাটা খাবে, খুব মজা। নেহাল ~ প্রেম উচ্চ স্বরে হেসে ওঠে। নেহাল হাসতে হাসতে বসে যায়।

নিশান্তিকা এক মুহূর্তের জন্য থমকে গেল। প্রেম এসব কি ভাবছে, আর কি সব বলছে। প্রেমের চোখ মুখে আনন্দে ঝর্ণা ঝড়ছে, যা নিশান্তিকার চোখ এড়িয়ে যায় নি। এই ভাবনাটুকু কি আদৌও সম্ভব হবে!

নেহালকে কোলে করে প্রেম পাশ কাটিয়ে চলে গেল, যাওয়ার আগে নিশান্তিকার নাকটা টেনে দিলো, হালকা জড়িয়ে নিয়ে কানের লতিতে ছোট্ট একটা চুমু খেলো।

আফিফ এসেছে। সাথে দীপ্তও ছিল। দীপ্ত কিছুক্ষণ এক সঙ্গে কথা বলে বেড়িয়ে গেল। বলে গেলো, অগ্যাতো ফলো করা ছেলে দুটিকে আটক করা হয়েছে।

নিশান্তিকা কথার ফাঁকে সকালের ম্যাসেন্জার ঘেঁটে নিল মন দিয়ে।
প্রেম বিদায় নিয়ে নেহালকে স্কুলে ড্রপ করতে চলে গেল। প্রেম এখন খুব স্বাভাবিক জীবনযাপন করছে। যেন, ওর জীবনে সব কিছু স্বাভাবিক, সাজানো গোছানো।

আফিফ আর নিশান্তিকা একান্ত বসে রইল। নিশান্তিকা মনে মনে বেশ কিছুক্ষণ ভাবল। অতপর, রেলিং ঘেঁষে শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে বলল,
~ আফিফ, আমায় যদি একটা সময় ছেড়ে দিতে হয় তোমাকে! তাহলে কি করবে তুমি, মানবে?

আফিফ দাঁড়িয়ে ছিল কিছুক্ষণ, এরপর খুব উচ্চ স্বরে হেসে ওঠল। ওর হাসিতে যেন নিশান্তিকা সহ আকাশ পাতাল কেঁপে কেঁপে ওঠছে। এমন হাসি সে কখনো হাসেনি। হাসতে হাসতে আফিফ দাঁড়ানো থেকে বসে পড়ল।

নিশান্তিকা অস্থির হয়ে আফিফের হাসি মাখানো মুখের দিকে চেয়ে দেখছে, একটা কথায় আফিফের এত হাসির অর্থ কি!
~ আফিফ, হাসছ কেন?

তবুও আফিফ হাসতে থাকে। যেন খুব মজার কথা শুনেছে।
আফিফ এগিয়ে এসে নিশান্তিকার সামনে দাঁড়িয়ে কাঁধে হাত চেপে বলে,

~ বোকা মেয়ে। তুমি আমার একমাত্র বউ, বিয়ে করা বউকে কীভাবে কেউ ছাড়তে পারে বলো তো? আমি আমার বউকে ছাড়ব না।

কোনো কালেই নাহ্। হ্যাঁ, তুমি যদি আমার প্রেমিকা হতে তাহলে ভেবে দেখতাম। কিন্তু, তোমার কপালে এই আফিফ আগেই ঘাপটি মেরে বসে আছে।

আফিফ আবারো উচ্চ স্বরে হাসতে থাকে।

নিশান্তিকার শিরা উপশিরায় হীম শীতল হাওয়া বয়ে যায়। গলার স্বর আটকে যায়, কোনো কথা খুঁজে পায় না সে!

আফিফের বউ সে, এ কথা তাকে এত প্রশান্তি দিচ্ছে যে…! অথচ সে কতটা স্বার্থপরের মত কথা বলছিল, প্রেমের কথায় সে এতটাই মগ্ন ছিল, যার প্রভাবে আফিফকে সে এত বড় কথা বলে দিল!
আফিফ কষ্ট পেয়েছি নিশ্চয়।

নাহ্, এ ভাবে চলে না। আফিফের সঙ্গে মোকাবেলা যখন হয়েই গেল, তাহলে সে প্রেমের সঙ্গেও করবে।

আফিফকে সে ভালোবাসে, খুব বেশি। আফিফকে ছাড়া সে বাঁচার কথা আর ভাববে নাহ্….
~ এই নিশু
~ হ্যাঁ,
~ তারপর, তুমি আমায় এমন কথা বললে কেন?

~ আসলে আফিফ, সকালের মৃত্যুর পর আমায় মাঝে মাঝে খুব ভয় হয়, যদি কখনো আমিও সেভাবে মরে…
~ নিশু, এমন কিছুই হবে নাহ্। আমি হতে দিব না।

~ আফিফ, আমরা চাইলেই মৃত্যুকে ফিরাতে…
~ এবার ঠাঠিয়ে এক চর দিব। ভুলেও এসব মাথায় আনবে নাহ।
নিশান্তিকা মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে থাকে। প্রেমের কথা সে এড়িয়ে গেল, তা নয়। এই ভয় সে সকালের মৃত্যুর দিন থেকেই পেয়ে আসছে। আমরা কেউ জানি নাহ্, সামনে কি হবে।

আফিফ বলে, ~ এই নিশু।

~ হ্যাঁ, বলো।

~ আমি ভেবেছিলাম প্রেম তোমায় কিছু বলেছে।
নিশান্তিকা এক ধ্যানে চেয়ে থাকে সামনে।
~ তোমার এমন মনে হলো কেন?

আফিফ মুচকি হেসে বলে,
~ সকালের মৃত্যুর পর প্রেমের একজন সঙ্গী দরকার ছিল, আর সেটা তুমি ছাড়া অন্যকেউ হতে পারত নাহ। তাই, ও হয়ত তোমায় এখন চাচ্ছে জীবন সঙ্গী হিসেবে।

~ আমি ছাড়াও আরো একজন আছে।
~ হ্যাঁ?কে সে?

~ সময় হলে বলব তোমায়। এখন চলো তো।
~ কোথায়?

~ ভুলে গেলে, আজ সকালের ডেড বডি রিলিজ দেওয়ার শেষ তারিখ।
~ ওহ হ্যাঁ, চলো।
~ হ্যাঁ, চলো।
নিশান্তিকা হসপিটালে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিল। আজ সবার জন্য খুব বড় চমক অপেক্ষা করছে, বিশেষ করে স্পেশাল একজনের জন্য।

নিশান্তিকার ঠোঁটের বাঁকা হাসির দিকে আফিফ তীক্ষ্ণ চোখে তাকিয়ে দেখে। আপাতত সে কিছু একটা নিয়ে গভীর ভাবনায় ডুবে আছে।

পর্ব _১৯

নিশান্তিকা হসপিটালে এসেছে। সকালের মৃতদেহ রিলিজ দেওয়া হবে আজকে।

এই পাঁচ দিন সকালের মৃতদেহ নিশান্তিকার আন্ডারে ছিল। পোস্টমর্টেম নিজেই করেছে। তবে, মুখটা কাটাকাটি করা হয়নি। নিশান্তিকা চেয়েছিল, যেন শেষ মুহূর্তে প্রেম শেষ বারের মত দেখতে পারে।

নিশান্তিকা শেষ বারের মত সকালের মুখের দিকে তাকালো, সকালের ডান গালে একটি তিল আছে। যেটা সন্ধ্যার গালে নেই।
সন্ধ্যা আজ প্রথম তার জমজ বোনকে দেখল, সেটাও কবরস্থানে। অদ্ভুত অনুভূতির চাদরে জড়িয়ে নিল তার অবশ মন। এতদিন সে জানতও না তারই মত একই চেহারার একজন মেয়ে আছে, যে এখন মৃত।

সন্ধ্যা মায়ের দিকে চেয়ে দেখল, তার মা কেমন নিসাড় হয়ে দাঁড়িয়ে আছে, অথচ এতদিন সে চোখের জলে স্নান করেছে। ছটফট করেছে। আর এখন মূর্তির মতো দাঁড়িয়ে শুধু সকালের মুখের দিকে তাকিয়ে আছে।

সন্ধ্যা অদূরে চেয়ে দেখলো, তার পিতা সরোয়ার হোসেন দাঁড়িয়ে আছে, চোখে জল আছে কিনা বুঝতে পারছে না সে।

এই অচেনা লোকটির সঙ্গে তার কিছুক্ষণ হলো পরিচয় হয়েছে। অথচ, এতদিন সে জানতো তার ফাদার মৃত।

সন্ধ্যার দম আটকে আসছে ক্রমশ। চারপাশের সবকিছু অসহ্য লাগছে, দূরে কোথায় পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করছে।

সন্ধ্যা মেয়েটি খুবই চঞ্চল। বিদেশের হাওয়ায় বড় হয়েছে। চাল~ চলন খুবই উন্নত। বেশ সুন্দরী। বিদেশি বিদেশি একটা ভাব থাকে সব সময়। খুব স্মার্ট। সব সময় ইংলিশে কথা বলে। বাংলা ভাষা খুব একটা বুঝে না। যতটুকু মায়ের থেকে শুনা আর কি।

তবে, খুব নরম ভদ্র। কারো সাথে শত্রুতা করার মন মানসিকতা তার মাঝে নেই। জটিল মুক্ত তার জীবনের পথচলা।

প্রেমের সঙ্গে তার পরিচয় এই তো সেদিন। কিন্তু সেদিনই জানতে পারল৷ তার বোনের বেটার হাফ প্রেম।

এরপর খুবই আন্তরিক ভাবে কথা বলা শুরু করে। প্রেমও কথা বলে। সন্ধ্যা অনেকটা সময় কথা বলে, আর প্রেম মাঝে মাঝে হু, হ্যাঁ বলে। কারণ, প্রেম দেখছিল, তার সামনে আরেকটা সকাল বসে আছে। কি সুন্দর ভাবে কথা বলছে।

প্রেমের খুব ভালো লাগে সন্ধ্যার সঙ্গে কথা বলতে। সন্ধ্যাকে বলতে ইচ্ছে করে, তুমি কি সকাল হয়ে আমার সাথে বাসা বাধবে, না ঐ দূর আকাশে উড়ে যাবে!

পরেরদিন,
নিশান্তিকা ডোর খুলে ঘরে প্রবেশ করল। মাত্রই নেহালকে স্কুলে ছেড়ে এসেছে।

আফিফ সরাসরি দো~ তালায় গিয়ে বসলো। নিশান্তিকা রিপোর্ট টা ড্রয়ারে রেখে আফিফের পাশে গিয়ে বসলো।
~ প্রেম এখনো বাসায় ফিরেনি?
~ উহু, আগামীকাল থেকেই গায়েব।

~ হুমম, এখনো সামলে উঠতে পারেনি সকালের আকস্মিক মৃত্যু!
~ হ্যাঁ, দেখে মনে হয় স্বাভাবিক। যাইহোক, শুনো কিছু তথ্য কালেক্ট করেছি।

~ অনেক কিছু। আগামী দিন খুব সাবধানে থাকতে হবে।
~ কেন?

~ আগামী দিনই সকালের মৃত্যুর উদঘাটন করব আমি।
~ খুনি কিন্তু আঁচ করতে পেরেছে। খুব দ্রুত হামলাও করতে পারে।
~ সে আর বলতে। প্রেমকে নিয়ে ভয়!

~ ইন্সপেক্টর ইমতিয়াজ আহমেদ লক্ষ্য রাখবেন বলেছে।
~ হুমম, তবে যাই বলো, গত রাতের মিশনে ইমতিয়াজ আহমেদ হেল্প না করলে খুব বড় ঝামেলা হয়ে যেত।

গতরাতের কথা মনে পড়তেই নিশান্তিকার গায়ে কাঁটা দিল। কতটা রিস্ক নিয়েছিল তারা।

দীপ্ত ~ ইতু গিয়েছিল কাজির বাসায়। এ কয়দিন নজরে নজরে রাখা হয়েছিল কাজির বাড়ি। আগামীকাল গিয়েছিল তথ্য কালেক্ট করতে, অনেকটা শিউর হতে।

অন্যদিকে, নিশান্তিকা ~ আফিফ গিয়েছিল সকালের বাসায়। সঙ্গে ছিল ইন্সপেক্টর ইমতিয়াজ আহমেদ। যিনি ইতুর একমাত্র ভাই। সকালের বাসায় তল্লাশি করার বাহানায় তারা কারো মুখের শান্ত চাহনির রহস্য খুঁজতে গেছিল।

~ নিশু
~ হু বলো
~ তোমায় একটা কথা বলা হয়নি।

কি কথা। নিশান্তিকা ল্যাপটপ থেকে চোখ সরিয়ে নিয়ে আফিফের দিকে তাকিয়ে আছে।

~ একটা খারাপ ঘটনা ঘটে গেছে।

নিশান্তিকা অস্থির হয়ে তাকিয়ে থাকে।

~ আসলে, গত রাতে ইতু একটু আহত হয়েছে।

হোয়াট! কীভাবে। তুমি আমায় এখন বলছ, কি লুকাচ্ছ বলো তো।
~ দীপ্তের সাথে ইতু জেদ করে না গিয়ে পারল না। দীপ্তকে বাঁচাতে গিয়ে ইতুর ইনজুরি হয়। ইমতিয়াজ যাতে না জানে তাই ইতু কাউকে বারণ করেছে। তবে, দীপ্ত সামলে নিয়েছে।

~ ইশশ্, ভালোবেসে মেয়েটি কতটা সাহস দেখালো। অথচ, তোমার বন্ধু সেটা বুঝল না।

~ এখন বুঝবে।

আফিফ মুচকি হাসে। নিশান্তিকা হাসির অর্থ বুঝে নেয়।
নিশান্তিকার এক হাত নিজ হাতের মুঠোয় নিয়ে আফিফ বলে,
~ তোমায় নিয়েও আমার খুব ভয় হয়। নিজের এক্সের জন্য কতটা রিস্ক নিচ্ছ।

নিশান্তিকা একপ্রকার ফোঁস করে ওঠে।

~ আফিফ, প্রেম আমার এক্স নয়, আমার কাজিন ভাই হয়।
আফিফ হেসে বলে, বুঝেছি মহারাণী, এভাবে তাকিয়ে গিলে ফেলবে নাকি।
নিশান্তিকা মাথা নিচু করে বলে,
~ তুমি আছো তো পাশে, এক্স কেন, এক্সের ভূত ও আমায় কিছু করতে পারবে নাহ্।

ইতু বেডে শোয়া থেকে ওঠে বসল। দীপ্ত সাহায্য করল। ইতু এখন সুস্থ আছে।

দীপ্তের চোখ~ মুখ ফোলে একাকার। এক মুহূর্তের জন্য মনে হয়েছিল, তার প্রেয়সীকে এই বুঝি চিরতরে হারিয়ে ফেলল।
ইতু, খুব ভালোবাসি।

বিস্ময়ে চোখ ফেরাতে পারছে না ইতু। এতটুকু শুনার জন্য সে কতটা মরিয়া হয়ে থাকত সব সময়।

এই ইতু, হারাতে পারব না কখনো। যদি হারাতে হয়, আমি বাঁচতে পারব না।

ইতুর চোখে জল টলমল করছে। বেশ কিছু প্রমাণ কালেক্ট করতে গিয়ে সে যে ভয়ংকর রিস্ক নিয়েছিল, এর জন্য সে এখন আনন্দে নাচতে ইচ্ছে করছে।
এই ইতু, রাগ করেছিস। বিশ্বাস কর, তোকে আমি পরিচয়ের দিন থেকে ভালোবাসি।

ইতুর চোখের জল গাল বেয়ে গড়িয়ে পড়ে,
বোকা প্রেমিক, ভালোবাসিস বলেই তো তোর সঙ্গে আঠার মতো লেগে থেকেছি। হারানোর ভয় যে আমারও আছে।

দীপ্তের মাঝে তোলপাড় যেন এক নিমিষে নিভে গেল। এই পাগলীকে সে খুব ভালোবাসে।

পরম আবেশে বুকে জড়িয়ে নেয়। কপালে ঠোঁট ছোঁয়ায়। এই কপালে সে কতবার ইতুর ঘুমন্ত অবস্থায় চুমু খেয়েছে, সেটা ইতুও জানতে পারিনি কখনো।

পর্ব _২০

ভোরের সময়,
দিনের আলোয় উজ্জ্বল রশ্মিতে ফুটে ওঠেছে চারপাশ। প্রেম বেঞ্চের এক কোণে বসে সন্ধ্যার ঘুমন্ত মুখের দিকে শান্ত চোখে তাকিয়ে দেখছে।

ঘুমন্ত অবস্থায় পৃথিবীর সকল মেয়েদের মাসুম লাগে, ঠিক সন্ধ্যার মতো। কতটা সুন্দর, নিষ্পাপ।

বেলা বাড়ছে, ওদের এখন বাসায় ফেরা উচিত। প্রেম এবার সন্ধ্যাকে ডাকতে গিয়েও থেমে যায়। মেয়েটি ঘুমচ্ছে, এভাবে ডাকা উচিত হবে না।

গত দুপুর থেকে দুজনে এক সঙ্গে আছে। হাঁটতে হাঁটতে বেশ দূরে চলে এসেছে। একটা গার্ডেন দেখতে পেয়ে সন্ধ্যা বায়না করে সেখানে যেতে। গার্ডেনের ভিতর একটা বেঞ্চ পেয়ে সন্ধ্যা খুশিতে লাফিয়ে বসে পড়ে,

থ্যাক্স গড, নাউ আই ফিল রিল্যাক্সড।

প্রেম হেসে পাশে বসে। চারপাশে চোখ বুলিয়ে দেখে অসংখ্য ফুলের টপ। ফুলের সুবাস ছড়িয়ে চারপাশে অন্যরকম আবেশ তৈরি করেছে।

প্রেম লক্ষ্য করল, গার্ডেনের ঠিকানা নাম ফুলবাড়ি। এই সেই ফুলবাড়ি, যার জন্য নিশান্তিকা একপ্রকার উন্মাদ।

এত এত প্রশংসা শুনেছে যে সকাল কতবার এখানে আসার বায়না করেছে, অথচ হয়ে ওঠেনি। আর আজ অদ্ভুত ভাবে সন্ধ্যাকে সঙ্গী বানিয়ে এই বাড়িতে পদার্পণ করল। জীবনের মোরে ঘুরে ফিরে কতকিছু ঘটে যায়, নিজেদের অজানতেই।

~ ওয়াও, হোয়াট এ বিউটিফুল প্লেস!
সন্ধ্যার আকর্ষণ দেখে প্রেম শুকনো হাসলো।
~ সন্ধ্যা, এই সন্ধ্যা।

সন্ধ্যা ঘুম ঘুম চোখে নির্বাক তাকিয়ে দেখে। তার বুঝতে সময় লাগে, কোথায় আছে সে। চারপাশে চোখ বুলিয়ে দেখে, ধীরে ধীরে উঠে বসে।
~ ওহ মাই গড, মর্নিং!

সন্ধ্যা বোকার মতো বসে রইল, সকাল হয়ে গেছে। এখন বাড়ি ফিরলে মামুনি নিশ্চয় বকা দিবে।
~ বাসায় ফিরবে?

সন্ধ্যা হতাশ হয়ে মাথা নাড়ায়। এখানে এতটা মুগ্ধ হয়ে সময় কাটাচ্ছিল যে বাড়ি ফেরার কথা মনেই হয়নি।
সুখপাখি ভবনে কলিং বেল বেজে ওঠল।

নিশান্তিকা এসে দরজা খুলে দিল। ইন্সপেক্টর ইমতিয়াজ আহমেদ এসেছেন। উপর থেকে প্রেমও নিচে নেমে এলো।
~ হাই নিশান্তিকা, প্রেম। হোয়াট’স আপ?

প্রেম বাঁকা চোখে ইমতিয়াজ আহমেদকে দেখে সোজা শোফায় গিয়ে বসে পড়ল।

নিশান্তিকা কিছুটা হতাশ হয়ে শুকনো হাসি দিয়ে ইমতিয়াজ আহমেদকে বসতে দিলেন।

ইমতিয়াজ আহমেদ হাসি মুখে বললেন,
~ আপনার শরীর কেমন আছে মি.প্রেম।

প্রেম এমন ভাবে তাকালো যেন তিনি অপ্রাসঙ্গিক কোনো প্রশ্ন করেছেন। প্রেমের মনে হলো তাকে খোঁচা মেরে কথা বলা হচ্ছে।
~ আমার মনে হয় সরাসরি মূল প্রসঙ্গে যাওয়া উচিত। আপনার আগমন সম্পর্কে জানতে পারলে খুশি হতাম।

নিশান্তিকা চোখ রাঙিয়ে প্রেমের হাত চেপে বলে,
~ প্রেম, কি হচ্ছে এসব।

প্রেম কিছু বলে না। শক্ত হয়ে বসে থাকে। এই লোকটাকে তার একদমই পছন্দ নয়। কেমন বাঁকা ত্যাড়া কথা বলে। প্রেমের এখনো মনে আছে, সকালের মৃত্যুর দিন তাকে কীভাবে হেনস্তা করেছিল। এমন ভাবে বলছিল, যেন প্রেমকে খুনী প্রমাণ করার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে আছে।

ইমতিয়াজ আহমেদ হেসে জবাব দিলেন,
~ প্রেম সাহেব৷ হাইপার হবেন না।

আপনি অযথা হাইপার থাকেন, শান্ত থাকুন। আমার আগমন সম্পর্কে অবশ্যই জানতে পারবেন। আপাতত একটি নিউজ দিতে এসেছি।

প্রেম তাচ্ছিল্য হেসে বলে,
~ এর জন্য বাড়ি বয়ে আসতে হয় বুঝি।

ইমতিয়াজ আহমেদ হাসলেন।

~ প্রেম সাহেব, নিউজটা মুখোমুখি বলার মজাই আলাদা, সাথে গরম গরম ঘরোয়া চায়ের স্বাদ।

প্রেম রাগ কন্ট্রোল করে বলে,
~ ফর ইউর কাইন্ড ইনফরমেশন, আমার নাম প্রেম সাহেব নয়, প্রেমানুভ মাহমুদ, ডাক নাম প্রেম। আর আপনার সামনে চা নয়, কফি পড়ে আছে।

নিশান্তিকা এবার প্রেমকে থামিয়ে বলল,
~ ইমতিয়াজ ভাই, আমাদের মন মানসিকতা কারো ঠিক নেই, আপনি প্লিজ, প্রেমের কথায় হাইপার হবেন না।

ইমতিয়াজ আহমেদ হেসে বললেন,

~ মিস নিশান্তিকা, আমি সবটাই বুঝি। প্রেম অবুঝ প্রেমিক। ইটস ওকে।

প্রেম মনে মনে অনেকটা রাগ পুশে রাখল। অসহ্য লাগে এই লোকের হাসি দেখলে, নিশ্চয় কোনো শয়তানি লুকিয়ে আছে।
~ নিশান্তিকা, আমি তোমার সকল তথ্য ঘেঁটে দেখেছি, আমার মতে, সময় থাকতে রেট করা প্রয়োজন।

~ সরাসরি এ্যাকশন নিবেন। অনেক অশান্তি পেয়েছি ঐ বদমাশটার জন্য।
~ হ্যাঁ, অবশ্যই।

~ এর শেষ দেখতে চাই, যত দ্রুত সম্ভব।
~ অবশ্যই, আর কোনো সাহায্য লাগলে, বলবেন।
~ জি আচ্ছা।

ইমতিয়াজ আহমেদ দরজার কাছে এসে প্রেমের দিকে তাকিয়ে দুষ্টুমি হাসি দিয়ে বলল,
~ প্রেম সাহেব, আসি তবে। সাবধানে থাকবেন।

প্রেম রাগ দেখিয়ে উপরে চলে গেল। নিশান্তিকা দরজা আটকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ল।


পর্ব ২১ বা শেষপর্ব

~ তারপর বলুন মি.সরোয়ার সাহেব, কী কারণে নিজের মেয়েকে হত্যা করলেন, একটুও অনুশোচনা হলো না৷ আপনার।

বাড়ির ভিতর পিনপতন নীরবতা চলছে, সবার মাঝেই উৎসুক ভাব। সকলে নিজেদের মাঝে চাওয়া চাওয়ি নিবেদন করছে। ইমতিয়াজ আহমেদের কথায় অনেকে হতাশ হয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন।
সরোয়ার হোসেন ঘামতে ঘামতে বসে পড়লেন।

~ এসব আপনি কি বলছেন। আমি আমার মেয়েকে হত্যা করেছি!
ইমতিয়াজ আহমেদ হাসলেন, সকালের দিকে দৃষ্টি নিবেদন করে বললেন

~ আমি জানি, আপনি এই জঘন্য তমো কাজটা করেন নি৷ বা করতেও পারবেন নাহ। কিন্তু, কে করেছে সেটা নিশ্চয় আপনি জানেন।
এবার তার টনক নড়ল, ভয়ে, অনুশোচনায় মাথা নিচু করে বসে রইলেন।

~ কি সরোয়ার সাহেব, আপনি বলবেন না আমিই বলব।

প্রেম মাথা নিচু করে বসে ছিল, এবার মাথা উঁচিয়ে ইমতিয়াজ আহমেদকে দেখলো। অসহ্য লাগছে তার, এত হেঁয়ালি করছে কেন? যত ঢং। নিশান্তিকা, প্রেমের কাঁধে হাত রাখল।
দীপ্ত আর ইতু তখনি এসে পৌঁছালো। ইতুকে হসপিটাল থেকে রিলিজ দেওয়া হয়েছে।

সরোয়ার হোসেনের দ্বিতীয় স্ত্রী একপর্যায়ে তীব্র স্বরে বললেন,
দেখুন অফিসার, আপনাদের হেয়ালি বন্ধ করুন, আসল কাহিনী ক্লিয়ার করুন, নয়ত চলে যান এখান থেকে অযথা সময় নষ্ট করবেন না আমাদের।
ওহ হো, ম্যাডাম সেটা আপনার ছেলেকেই জিগ্যেস করুন না হয়!
ইমতিয়াজ আহমেদ এখন ক্ষিপ্র গতিতে গিয়ে সরোয়ার হোসেনের ছেলে, সোহেলকে ঝাপটে ধরল,

আরে বাহ বাহ, খুন করেও এত সাহস তোমার, মানতে হবে। এখনো বসে আছো এখানে। আমি তো ভাবলাম দৌড় ঝাপ করতে হবে, তাই আজ সকালে জগিং করিনি, আসলে বেশি এনার্জি ওয়েস্ট করতে চাই নি।

সোহেল রেগে বলল,
ফাজলামি পাইছেন মিয়া, যাকে তাকে খুনী প্রমাণ করে দিচ্ছেন।
প্রমাণ ওহ হ্যাঁ, প্রমাণ। আমি কখন তোমায় খুনী প্রমাণ করলাম!
সোহেল আরো রেগে গেল,

~ দেখুন, ভালো হবে না বলে দিচ্ছি। আমার বাবার অনেক সম্পত্তি, যার একমাত্র মালিক আমি। আর আমার বাবার হাতও অনেক লম্বা। আমায় ঠিক নির্দোষ প্রমাণ করে ছাড়িয়ে আনবে।

~ তোর কোন বাপ বাঁচায় আমিও দেখব, জানোয়ার একটা।

সায়রা খাতুনের কথায় সবাই হকচকিয়ে গেল। তার রাগে মাথার তার ছিঁড়ে যাচ্ছে। রাগে দুঃখে কান্নায় ভেঙে পরলেন তিনি।
এমন ছেলে জন্ম দিয়েছিলে তুমি, যে নিজের বড় বোনকে হত্যা করতে অনুশোচনা বোধ করে না।

সরোয়ার হোসেনের উদ্দেশ্য সায়রা খাতুন চেঁচিয়ে ওঠল।
ঐ মেয়েটা আমার সৎ বোন ছিল, আমার পথের কাঁটা ছিল, সম্পত্তির ভাগিদার ছিল, ওকে এই পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিয়ে আমার কোনো অনুশোচনা বোধ নেই। কে জানত, আরেক ভাগিদার এসে জুটবে, না~ হলে এরও একই ব্যবস্থা করতাম।

সায়রা খাতুন, নিজের সর্বশক্তি দিয়ে সোহেলের গালে চর বসিয়ে দিল। প্রেম উত্তেজিত হয়ে সোহেলের উপর ঝাপিয়ে পড়ল,
এই, এই সালা, একবার হাত লাগিয়ে দেখা সন্ধ্যার গায়। তোকে এখানেই পুতে দিব।

আফিফ এসে প্রেমকে থামালো, ছাড়ো প্রেম। এর ব্যবস্থা এখন আইন করবে।

~ রাখো তোমার আইন, কিসের কি করবে। আইনের উপর আমার কোনো ভরসা নেই। সালাটা এখন সন্ধ্যার দিকে নজর দিছে, কতবড় কলিজা ওর।

আফিফ বুঝিয়ে শুনিয়ে প্রেমকে ধরে রাখে। নিশান্তিকার দিকে তাকায় আফিফ। নিশান্তিকার ঠোঁটের হাসি আফিফকে সব কিছু বুঝিয়ে দেয়। প্রেমের নতুন জীবন সঙ্গী চলে এসেছে।
অফিসার, ওকে আপনারা নিয়ে যান।

সরোয়ার হোসেনের কথায় সোহেল হতবাক হয়ে যায়। বাবা, আমায় বিশ্বাস করো, আমি কিছু করিনি। এ এরা আমায় ফাঁসাচ্ছে।

সরোয়ার হোসেন তেড়ে এসে বলেন,
সেদিন তোর হাতে বিষের কৌটা দেখে যদি বুঝতাম, তুই আমার কলিজার টুকরো মেয়েকে হত্যা করার প্লান করছিস, তাহলে সেদিন সেখানেই তোকে আমি মেরে ফেলতাম।

সরোয়ার হোসেনের স্ত্রী কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন,
কি বলছ তুমি, সোহেল আমাদের একমাত্র ছেলে, এই বংশের প্রদীপ।
আর সকাল, সকাল এ বংশের কেউ না!

হ্যাঁ, ও কি আমার মেয়ে নয়। কি দিয়েছি আমি মেয়েটিকে, কতটুকু সুখ দিতে পেরেছি। কখনো কোনোদিন প্রয়োজন ব্যতিত মুখ ফুটে কিছু চায় নি পর্যন্ত। কেমন বাবা আমি! নিজের প্রতি নিজের রাগ হচ্ছে। অফিসার, নিয়ে যান আমার সামনে থেকে।

স্বামীর মুখের উপর কথা বলার সাহস পায় না সোহেলের জননী। সরোয়ার হোসেন হাত জোর করে মাথা নিচু করে সায়রা খাতুনের কাছে মাফ চায়।

ইমতিয়াজ আহমেদ, সোহেলের হাতে হাত কড়া পড়িয়ে নিয়ে যায়।
একে একে সকলে বাসা থেকে বের হয়ে যায়।

প্রেম এক নজর সন্ধ্যাকে দেখে, মেয়েটি অদ্ভুত ভাবে দাঁড়িয়ে আছে। যেন অচিরে কাউকে খুঁজছে।

মেয়েটিকে দেখতে কতটা স্নিগ্ধ লাগছে।

প্রেম একা পথে বাসায় চলে যায়।
ইতুকে কোলে নিয়ে দীপ্ত বের হয়, ইতু গলা জড়িয়ে আদরে গলায় বলে,

এই দীপ, এবার ভাইয়াকে বলে, জলদি আমায় তোমার বউ করে নেও।

~ খুব শীঘ্রই তোমায় বউ বানাব মহারাণী, সিংগেল লাইফ নিয়ে এখন আমি ত্যানাত্যানা।

ইতু শরীর দুলিয়ে হাসতে থাকে।

নিশান্তিকা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে আপনমনে পিচঢালা রাস্তায় পা রাখে। প্রশান্তি হেসে প্রাণ ভরে শ্বাস নেয়।

~ আফিফ, আমার আজ খুব হালকা লাগছে।

আফিফ মুচকি হেসে নিশান্তিকার বা~ হাতটা চেপে ধরল।
নিশু, আমার হাতে হাত হাঁটবে, যাবে একবার ফুলবাড়ির আঙিনায়।
নিশান্তিকা একটু লজ্জা পেল। এখন সে আফিফের ভালোবাসায় জ্বলবে, বেশ বুঝতে পারছে।

~ এই নিশু,
~ হু,
~ বলো না একবার, যাবে?
~ হ্যাঁ, যাব।

~ তবে…
নিশান্তিকা দাঁড়িয়ে একদম নিয়ে বলল,
~ আফিফ, আম্মু আব্বু বলেছে, তারা হজ্ব থেকে ফেরার পর যেন আমাদের বাসর হয়, এর আগে নয়।

আফিফ ক্যাবলার মত কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে উচ্চ স্বরে হেসে ওঠে। নিশান্তিকা লজ্জায় কিছু বলতে পারে না।

~ তবে, চলো প্রেম করি বিন্দাস। এটাই বলতে চেয়েছিলাম মহারাণী।
নিশান্তিকা ঠোঁট উলটিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে, আফিফ হেসে নিশান্তিকার হাত টেনে হাঁটতে থাকে।

গোধূলির বিকেল,
পিচঢালা ঝকঝকে রাস্তায় প্রেম আপন মনে হেঁটে চলছে। আজ মনের ভিতর বেশ ধুকধুক করছে, অস্থির লাগছে।
পাশে কারো অস্তিত্ব পেয়ে প্রেম তাকিয়ে দেখে সন্ধ্যা শাড়ি পড়ে হাঁটছে।

প্রেম ক্ষীণ হাসলো।

~ বাঙালি মেয়েরা শাড়ি পড়লে বলে প্রেম নিবেদনের সময় হয়!
সন্ধ্যার কথায় প্রেম বেশ সময় নিয়ে হাসলো। সন্ধ্যা বোকার মত চেয়ে দেখছে প্রেমকে। তার কি বাংলা বলায় কোথায় ভুল হলো, মায়ের থেকে সে কত প্র্যাক্টিস করল!

~ আমার হাতে হাত রেখে হাঁটতে পারবে গোধূলির অপরপ্রান্তে। যেখানে শুধু অন্ধকার আর অন্ধকারের বাসা বাঁধানো অন্ধকার।
~ হ্যাঁ, পারব হাঁটতে, ওহ নো, পারব হাঁটতে।
প্রেম হেসে হাতটা বাড়িয়ে দিল,
~ তবে, ধরো শক্ত হয়ে।

সন্ধ্যা কি বুঝল, আর কি বা বুঝে বলল, প্রেম জানে না। সন্ধ্যা নিজেও জানে না। সে তো বাংলা বাক্যও সঠিক ভাবে বলতে পারে না।
শুধু জানে তার সঙ্গে প্রেম থাকলেই হলো। দুজনে হাঁটতে হাঁটতে বহুদূর চলছে, দৃষ্টির অগোচরে।

লেখনীতে – মেহরুন্নেছা সুরভী

সমাপ্ত

(পাঠক আপনাদের ভালোলাগার উদ্দেশ্যেই প্রতিনিয়ত আমাদের লেখা। আপনাদের একটি শেয়ার আমাদের লেখার স্পৃহা বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। আমাদের এই পর্বের “গোধূলির অপরপ্রান্তে – Bhalobasar kichu golpo” গল্পটি আপনাদের কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন। পরবর্তী গল্প পড়ার আমন্ত্রণ জানালাম। ধন্যবাদ।)

আরো পড়ূন – সেলেব্রিটি – অসাধারণ একটি অনুগল্প

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!