ছোট গল্প

আমি ভালোবাসি শুধু তোমাকে – Bangla Romantic Love story

আমি ভালোবাসি শুধু তোমাকে – Bangla Romantic Love story: আমি নওরিন এর ভালবাসা পাই নি তো কি হয়েছে? ওকে ভালবাসার ক্ষমতা শুধু আমারই। আমি কখনও তোমার সামনে যেয়ে দাঁড়াব না। আমি কখনোই তোমার সুখে হাত বাড়াব না। কিন্তু আমি দূর থেকে তোমায় ভালবাসব।


মূলগল্প

কলেজ লাইফ থেকেই আমি টিউশনি করি। আসলে ছেলেপুলে পড়িয়ে আমার ভাল লাগত। তাছাড়া আমি একটা কোচিংএ ক্লাসও নিচ্ছিলাম। কলেজ লাইফ থেকেই আমি Accounting Sir হিসেবে বেস সুপরিচিত ছিলাম। আমি তখন NDC তে 2nd year এ পড়ি। কোচিংএ ক্লাস নিচ্ছিলাম। এক নতুন মুখ দেখলাম হঠাৎ করে।

সে শেষ বেঞ্চে বসে নির্বাক কথা বলতেছিল আর এক মেয়ের সাথে। আমি এগিয়ে যেয়ে বললাম। হ্যালো আমাকে কি দেখতে পাচ্ছ না? সে আমাকে ধুপ করে প্রশ্ন করে বসল

  • তুমি কি এখানের স্টুডেন্ট?
  • তোমার কি মনে হয়?
  • তাইতো মনে হচ্ছে
  • তাইলে একটু সরে বস। তোমার সাথে বসি আজকে।
  • তুমি তো আজিব ছেলে। কি বেহায়া তুমি।

এই কাহিনী দেখে সবাই মিটিমিটি হাসছিল আর ওর পাসের মেয়ে ওকে কাঁধ দিয়ে ধাক্কা দিচ্ছিল। কিন্তু ও তার ইশারা কিছুই বুঝল না।

একটু পরে যখন আমি বোর্ডের সামনে যেয়ে লেকচার দেয়ার ভঙ্গিতে দাঁড়ালাম তখন তার হুস হল। তার বিস্মিত আর ভয় মাখানো মুখ দেখে আর ছেলেপুলের ব্যাকগ্রাউন্ডে হাসি শুনে আমার যা মজা লাগতেছিল কি আর বলব।

কিছু দিন পর তার মা আমার সাথে যোগাযোগ করল। বলল ও আর কোচিংএ এসে পড়তে পারবে না। সে আমাকে তার বাসায় যেয়ে পড়ানোর অনুরোধ করল। প্রথম প্রথম রাজি হচ্ছিলাম না। পরে টাকার পরিমাণ শুনে এক বাক্যে রাজি হয়ে গেলাম।

ভালই চলছিল। হঠাৎ একদিন সে শাড়ি পরে পড়তে আসল। অবশ্য আমি তার দিকে ভাল মত তাকাইও নি। আসলে আমি প্রচণ্ড খামখেয়ালি টাইপ এর ছেলে ছিলাম। যাই হোক, তাকে আমি প্রথম বারের মত শাড়ি পরা দেখলাম। আমি কিছু না বলে বললাম,

বই বের করো। আজকে তোমাকে ফাইনাল অ্যাকাউন্ট করাব

  • আমি আজকে পড়ব না
  • তাইলে আমাকে ফোন করে না বলে দিলেই পারতে
  • কেন পড়ব না তা জানতে চান না?
  • Nope। but I think u wanna tell me the reason। so give the reality of ur wish….
    u don’t have to know
    Today ur birthday
  • how do u know?
  • তুমি আসার আগে আমি তোমার টেবিলে একটা Birthday Card দেখেছি। এটা তোমার ফ্রেন্ড দিয়েছে।
  • OK। I better go now…
  • তুমি তো আজকে পড়বে না আমি আর থেকে কি করব?
  • আজকে আমার Birthday। আমাকে Gift না দিয়েই চলে যাচ্ছেন?
  • Ok। বল কি Gift চাও?
  • যা চাই তাই দিবেন?
  • তোমার Birthday বলে কথা। দিব দিব। সাধ্যে কুলালে দিব বৈকি।
    ও আমাকে একটা Paper দিল আর বলল এটা দেখেন
  • আমি আপনার জন্য খাবার নিয়ে আসতেছি।
    Paper এ রঙ্গিন কালিতে লেখা ছিল।

EFBS TBNJO WIBJ
TPNFUIJOH WFSZ TUSBOHF IBT
IBQQFOE UP NE. J BN JO
MPWF XJUI ZPV. QMFBTF IPME
NF JO ZPVS BSNT.
OPXSJO

যারা হুমায়ুন আহমেদের বই পরে তাদের আর এই কথাটার মানে কি তা বুঝতে দেরি হওয়ার কথা না।
সে খাবার নিয়ে ভয়ে ভয়ে রুমে ঢুকল। খাবার টেবিলে রেখে সে ভিতু চেহারায় নিচের দিকে তাকিয়ে রইল। আমি খাচ্ছি আর বলতেছি।

  • ওহ খুব মজা হইসে তো।

সে জরানো কণ্ঠে বলল।- এটা কি আমার গিফট?

ভাল মত পড়াশুনা করো। তুমি এখনও অনেক ছোট। মাত্র 9 এ পড়।
তাছাড়া। I’m not eligible for U। U don’t deserve me. U’ll regret.

  • Why?
  • ‘caz I can’t care u। I’m too much eccentric। I’m unable to make u happy। I’m so introvert। U’ll regret later।
    সে আর কিছুই বলল না। সে may be কাঁদতে ছিল। কিন্তু তার অশ্রু জল আমার পক্ষে তার কপোলে ছুঁয়ে মুছার সাহস হয় নি।

আমি পারি নি ওকে ফিরিয়ে দিতে। ওর মায়া ভরা মুখ আমার আত্ম হনন করেছে। কেন জানি মনে হল নিজের জন্য নয়। ওর জন্যই ওকে ভালবাসতে হবে।খুব বেশি একটা ভালবেসে ফেলেছিলাম ওকে। যে মেয়েটাকে এত দিন ভাল করে দেখা হয় নি। তাকে একদিন খুব মন দিয়ে দেখলাম।

এত মায়া। এত সুধা। এত রূপ। এত কিরণ আমি যেন মুগ্ধ হয়ে গেলাম। বেশি সৌন্দর্যে যেন আমি wordless হয়ে গেলাম। পরীরাও এত সুন্দরী হতে পারে বলে আমার মনে হয় না।

ওকে আমি HSC exam পর্যন্ত পড়ালাম। ইতোমধ্যেই খবর আসে ওরা full family DV lottery পেয়েছে। ওরা America চলে যাবে। এই কথা শুনে মেয়ের কান্না আর থামায় কে। অনেক বুঝালাম তোমার লাইফ অনেক সুন্দর হবে তুমি Well Established হয়ে যাবা। ওদের যাওয়ার দিন ঘনিয়ে এলো। চলে যাওয়ার আগে সে আমাকে বিয়ে করার বায়না ধরল। সে কিছুতেই যাবে না।

আমি তখন BBA 3rd year এ পড়ি। আমি বুঝালাম তুমি ওখানে যাও তারপর আমি BBA শেষ করে একটা চাকরি নিয়েই তোমাকে বিয়ে করে ফেলব। মাত্র দুই এক বছরই তো। যাওয়ার আগে জরিয়ে ধরে সে কি কান্না।

Skype তে ভালই কথা হতো। কিন্তু gradually ও কথা বলা কমিয়ে দিতে লাগল। এমন অবস্থা হল যে ও সপ্তাহে একদিন কথা বলত। আমি FB তে ওর Pix দেখে মাথা ঘুরে পরে যেতাম। ওর Dress Up আমাকে ভেঙ্গে ফেলতে লাগল। তাও আমি ওকে কিছু বলতাম না। থাক ওখানের Culture এর সাথে তো ওকে চলতে হবে। বেচারি মনে হয় সময় পায় না। তাই কম কথা বলে। আরে ও তো আমারই। আমাকে ছেরে যাবে কোথায়?

প্রায় ১ বছর পর আমি ওকে বললাম আমার BBA শেষ হয়ে গেছে আমি তোমাকে নিয়ে এখন চিন্তা করতে চাই। কিন্তু ও বলে ওর এখন সময় দরকার। আমি ওকে সময় দেই কিন্তু ওর আর সময় শেষ হয় না। আমাকে প্রচুর Ignore করা শুরু করল। আমি ওর জন্য জান প্রাণ দিয়ে সকল টিউশনি ছেরে দিয়ে IELTS এর জন্য পরা শুরু করলাম।

আমি সারা দিন রাত পড়তাম। আল্লাহের রহমতে আমি MBA তে 1st Class পাই ও IELTS এ খুব ভাল Result করি। CMA করার জন্য আমি America তে Scholarship পাই। আমি আনন্দে আত্মহারা হয়ে যেয়ে কল করে ওকে Surprise টা দিলাম। কিন্তু ও আমাকে আরও বড় Surprise দিল।

আমার নওরিন নাকি আরও দুই বছর আগেই বিয়ে করে ফেলেছে। ও কি বলে এগুলা? খুব দুষ্ট তো। তাই আমার সাথে মজা করতাছে। ও আমার নওরিন। শুধু আমার। আমার নওরিন আমার আত্মার সাথে মিসে আসে। আমার নওরিন যাকে মন চায় তাকে বিয়ে করুক। এতে আমার কোন Headache নাই।

আমি নওরিন এর ভালবাসা পাই নি তো কি হয়েছে? ওকে ভালবাসার ক্ষমতা শুধু আমারই। আমি কখনও তোমার সামনে যেয়ে দাঁড়াব না। আমি কখনোই তোমার সুখে হাত বাড়াব না। কিন্তু আমি দূর থেকে তোমায় ভালবাসব। আমি ভালোবাসি। আমার 9 এ পরা ছোট্ট ভীত সন্ত্রস্ত নওরিনকে ভালোবাসি। ও সারা জীবন আমার কাছে 9 এ পড়া সেই ছোট্টটিই থাকবে।

লেখা – মুহাম্মদ ফয়সাল কবির

সমাপ্ত

(পাঠক আপনাদের ভালোলাগার উদ্দেশ্যেই প্রতিনিয়ত আমাদের লেখা। আপনাদের একটি শেয়ার আমাদের লেখার স্পৃহা বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। আমাদের এই পর্বের “আমি ভালোবাসি শুধু তোমাকে – Bangla Romantic Love story” গল্পটি আপনাদের কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে অবশ্যই জানাবেন। পরবর্তী গল্প পড়ার আমন্ত্রণ জানালাম। ধন্যবাদ।)

আরো পড়ূন – অভিমানী – ভালোবাসার মান অভিমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button