কষ্টের প্রেমের গল্প

কষ্টের প্রেমের গল্প – অসমাপ্ত ফেসবুক প্রেম | Sad Love Story

কষ্টের প্রেমের গল্প

কষ্টের প্রেমের গল্প – অসমাপ্ত ফেসবুক প্রেম: প্রতিটি মানুষের জীবনে একবার না একবার প্রেম-ভালবাসা আসে। কেউ সেই ভালবাসার মানুষটিকে সারা জীবনের জন্য কাছে পায় আবার বেশিরভাগই রচনা করে কষ্টের ভালবাসার গল্প। আজ এমনি একটা হৃদয়বিদারক প্রেমের গল্প আমরা জানব।

মনের মানুষের জন্য অপেক্ষা

একটি ছেলে ছিল যে ঢাকায় কাজ করত যার কোনও বান্ধবী ছিল না। সে সবসময় ভাবে যে একদিন সে অবশ্যই একটি মেয়ে খুঁজে পাবে যে তাকে খুব ভালবাসবে। সে তার মনের মানুষটির সন্ধানে ৩ বছর অতিবাহিত করেছিল। তারপরে সে তার গ্রামে যাওয়ার কথা ভাবল। সে প্রায় একটি বাসে বসে থাকত এবং সর্বদা টাইম পাসের জন্য ফেসবুক চালাত। একদিন যখন সে ফেসবুক চালু করেছিল, তখন একটি মেয়ের ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট আসল। সে কিছু না ভেবে রিকোয়েস্ট এসেপ্ট করে। ঢাকা থেকে তার গ্রামে আসতে ১০ ঘন্টা সময় লাগত। পরে সে দেখতে পায় যে মেয়েটি অনলাইনে রয়েছে, তাই সে চ্যাট শুরু করল। ২ ঘন্টা একটানা চ্যাট করার পরে, সেই মেয়েটি তার অনুভূতি জানিয়েছিল যে আমিও আপনার মতো ছেলের সন্ধানে, আপনার সাথে দেখা করতে চাই।

ভালবাসার গল্পের শুরু

মেয়েটি ঢাকাতে পড়াশোনা করত। ছেলেটি বলল যে আমি ঢাকা থেকে আমার গ্রামে যাচ্ছি, আমি ১-২ সপ্তাহ পরে ফিরে আসব এবং আবার দেখা করব। মেয়েটিও তার কথা শুনে তাকে পছন্দ করতে শুরু করে। সে বলল আপনার ছবি আপলোড করুন। ছেলেটি বলল আমার এখনই কোনও ছবি নেই, তবে গ্রামে পৌঁছামাত্রই ছবিটি আপলোড করব। এর পরে দুজনেই অফলাইনে গেল। অতপর সেই ছেলেটি সারা রাত তাকে নিয়ে ভাবতে শুরু করল।

সকালে ছেলেটি তার বাড়িতে পৌঁছেছিল, তারপরে সে বিকেলে ফেসবুক খুলল এবং দেখল যে মেয়েটি অনলাইন ছিল। সে প্রতিশ্রুতি পূরণ করে তার সাথে কথা বলেল। ছেলেটি ইতিমধ্যে প্রস্তুত ছিল এবং সে তার ছবি আপলোড করল। মেয়েটি তার ফটো পছন্দ করে এবং তার ছবি আগেই আপলোড করেছিল। ১০ দিন পরে ছেলেটি ঢাকা তে ফিরে আসছিল, সে খুব মরিয়া, রাত 11 টা বাজে। ঢাকা এবং তার গ্রামের মাঝে মণিপুর নামে একটি গ্রাম ছিল যেখানে চোর, ডাকাতরা থাকত। ওই এলাকায় পৌঁছে, বাসের গতি ১০০ কিলোমিটার / ঘন্টা ছিল। সেদিন বাসটি সেই নির্জন বনে খুব দ্রুত গতিতে চলেছিল এবং সেই ছেলেটি কেবল মেয়েটির স্বপ্ন দেখছিল।

কষ্টের প্রেমের গল্প শুরু যেখানে

একই সময়ে বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষ হয় এবং বাসে বসে থাকা ১০ জন মারা যায় আর ৮ জন আহত হয়। প্রেম খুঁজতে গ্রাম থেকে ঢাকা যাওয়া ছেলেটিও দুর্ঘটনার সাথে জড়িত ছিল এবং ঐ ১০ জন মারা যাওয়ার ১ জন ছিল। দুর্ঘটনার সময় পুলিশ যখন পৌঁছে তখন তারা দেখল ছেলেটির হাতে একটি মোবাইল রয়েছে এবং তাতে ফেসবুক খোলা ছিল। পুলিশ ছেলেটির লাশ পোস্টমর্টেমের জন্য প্রেরণ করল। তারপর একজন পুলিশ ছেলেটির মোবাইল হাতে নিল এবং দেখল যে একটি এসএমএস টাইপ করা, যেখানে লেখা ছিল-

শুভ জন্মদিন আমার প্রথম ভালবাসা, দীর্ঘায়ু হও, আই লাভ ইউ জান। তুমি জানো, আমি আজ খুব খুশি, তোমাকে পাওয়ার জন্য আমি কি করিনি? মন্দির, মসজিদ, গির্জা সব জায়গায় গিয়েছি, তারপরে তোমার মতো প্রেমিকাকে পেয়েছি…আমি তোমাকে চিরকাল সুখী রাখব, আমি কখনও ছেড়ে যাব না, আই লাভ ইউ জান…তুমি আমার প্রথম প্রেমের গল্প আর শেষ গল্প হয়ে থাকবে…


পুলিশটি যখন এসএমএস পড়ে, তখন তার চোখ থেকে অশ্রু আসতে শুরু করে। তারপর পুলিশটি এসএমএসগুলি কেটে তার জায়গায় একটি নতুন এসএমএস লিখে সেন্ড করল যেখানে লেখা ছিল।

আমি দুঃখিত, আমার প্রথম ভালবাসা অসম্পূর্ণ থেকেছে, আমরা না হয় স্বর্গে দেখা করব, এই পৃথিবী আমাকে হাসি বিদায় বলেছে। দয়া করে অন্য কেউ হোক আপনার ভালবাসা। আমাদের ভালবাসা হোক শুধু ব্যর্থ প্রেমের ছোট গল্প বা অসমাপ্ত প্রেমের গল্প।


শেষ পরিণতি – ব্যর্থ প্রেমের ছোট গল্প

কিছুদিন পর পুলিশ খবর পায় যে, ঐ মেয়েটি ঐদিনে হার্ট এটার্কে মারা যায় এবং মারা যাবার আগে মেসেজের রিপ্লে দিয়েছিল-

সামনা সামনি দেখা না করেও আপনাকে যে পরিমাণ ভালবেসে ফেলেছি, তা আপনাকে বলে বোঝাতে পারব না, কেন জানি বুকের বা পাসটা অবশ হয়ে আসছে, হাত কাপছে আমার, চোখ দুটো বন্ধ হয়ে আসছে, হয়তো স্বর্গে দেখা করার সময় হয়ে এসেছে আমাদের। আচ্ছা, স্বর্গে আমাকে দেখে চিনতে পারবেন তো? যদি চিনতে পার তাহলে আজকের ব্যর্থ ভালোবাসা সেদিন পূর্ণতা পাবে।

এই রিপ্লেগুলো পড়ে ওইদিনের সব পুলিশেরা শুধুই কেঁদেছিল, যা ছাড়া তাঁদের আর কিছুই করার ছিল না।

লেখা: নির্ঝর

আরো পড়ুন: মিষ্টি প্রেমের গল্প – পর্ব ১

Related posts

হৃদয়স্পর্শী ভালোবাসার গল্প – বেলা শেষে পর্ব ২১ | Love Story

valobasargolpo

প্রকৃত ভালোবাসা পর্ব ২ – রিয়েল লাভ স্টোরি | সত্যিকারের প্রেম

valobasargolpo

Leave a Comment

error: Content is protected !!