মিষ্টি প্রেমের গল্প

সিনেমাটিক প্রেম – মিষ্টি ভালোবাসার গল্প

সিনেমাটিক প্রেম

সবাই কি ভালোবাসা পায়? কেউ পায় আবার কেউ বা হারায়! পাওয়ার থেকে হারানোর সংখ্যাই বেশি এ জগতে! তবুও মানুষ ভালোবাসে, প্রেমে পড়ে। কষ্ট পায়, ধোঁকা পায় তবুও আশায় বুক বাঁধে। আবার কখনো সমাজ বা পরিবার বাধ্য করে ভুলে যাবার। কিন্তু ভালোবাসার মনের মানুষটিকে কি আর ভুলে থাকা যায়? চলুন এরকম দুষ্টু মিষ্টি ও কষ্টের ভালোবাসার গল্প শুনি আজকে। 

পর্ব -১

আজ আমার কলেজে প্রথম দিন আমি যখনি কলেজে ঢুকতে যাব তখনি পরলাম বিপদে একটা মেয়ের সাথে ধাক্কা খেয়ে গেলাম। 

মেয়েটিঃ এই যে আপনি দেখতে পান না নাকি। 

আমিঃ আসলে আমি না দেখতে পাই নাই সরি। 

মেয়েটিঃ ইটসসস ওকে। 

আমিঃ আচ্ছা আপনি কোন বর্ষে পড়েন। 

মেয়েটিঃ আমি অনার্স প্রথম বর্ষে পরি আপনি। 

আমিঃ ওওও আমিও। আচ্ছা আমরাতো বন্ধু হতে পারি কারণ আমরা তো সমবয়সী। 

মেয়েটিঃ ওকে কাল ভেবে দেখবো। 

আমিঃ ইসসসস মেয়েটারতো নামটাই শুনা হইলোনা মেয়েটি ছিল দেখতে খুবই সুন্দর। চোখ গুলো টানা টানা। মুখে হালকা লিপস্টি। সব মিলয়ে খুব সুন্দর লাগছিল। তারপর নিজের ক্লাসের দিকে হাটা শুরু করলাম। চলুন, এর ফাকে আমি আমার পরিচয়টা দিয়ে দিই। আমার নাম অভ্র আমি এইবার অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র।

আপনাদের সাথে কথা বলতে বলতে আমি ক্লাসের সামনে চলে এসেছি। ক্লাসে ঢুকে সবার সাথে পরিচয় হলাম তারপর দেখলাম সেই মেয়েটি অন্য একজন এর সাথে বসে আছে। সার ক্লাসে এসে সবার নাম শুনলো তারপর ওই মেয়েটি তার নাম বললো যে সীমি। খুব সুন্দর নাম। তারপর আমি ক্লাস করে বাসায় চলে আসলাম। বাসায় আসার পর আম্মু বললো……

আম্মুঃ অভ্র কলেজের প্রথম দিন কেমন কাটলো। 

আমিঃ জি আম্মু খুব ভালো। 

আম্মুঃ আচ্ছা যাও ফ্রেশ হয়ে আসো আমি খাবার দিচ্ছ। 

আমিঃ আচ্ছা আম্মু যাচ্ছি। 

তারপর আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে চলে গেলাম। তারপর খাওয়া করে নিজের রুমে চলে গেলাম। তারপর দিলাম একটা ঘুম। ঘুম থেকে উঠে চলে গেলাম বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে তারপর সন্ধায় বাড়িতে চলে গেলাম। তারপর রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পরলাম। পরের দিন আবার কলেজে গেলাম তারপর যা হইলো…..

চলবে…

পর্ব – ২

তারপরের দিন কলেজে গিয়ে যা হইলো আবার ওই মেয়ের সাথে ধাক্কা খেলাম। 

সিমীঃ আচ্ছা প্রতিদিন ধাক্কা খাওয়ার জন্য কী আমাকেই দেখাতে পান। 
অভ্রঃ আরপ আরে রাগ করছেন কেন আমি কী ইচ্ছা করে করছি নাকি। 
সিমীঃ চুপ করেন আপনার জন্য আমার ক্লাসের দেরি হয়ে গেল। 
অভ্রঃ আচ্ছা চলুন একসাথে ক্লাসে যাই। 
সিমীঃ হুমম চলুন। 

অভ্রঃ আচ্ছা আপনাকে আমি কালকে কিছু বলছিলাম মনে আছে আপনার। 
সিমীঃ হুমমম মনে আছে যেহেতু আমরা সমবয়সী আর একই ক্লাসে পরি তাহলে আমরা বন্ধু হতেই পারি। 
অভ্রঃ আপনি আমার সম্পর্কে কিছু শুনবেন না। 
সিমীঃ হুমম অবশ্যই বলুন। 

অভ্রঃ আমার নাম হলো অভ্র চৌধুরী আর আমি এখানে আমার আব্বু আম্মু আর ছোট ভাই এর সাথে থাকি। 
সিমীঃ ওওওহহ ভালোই তো। 
অভ্রঃ আমার সম্পর্কে তো সব শুনলেন আপনার সম্পর্কে কিছু বলেন। 
সিমীঃ আমার সম্পর্কে বলার মতো কিছুই নাই। আমি গ্রামে থাকি। কিন্তু এখানে এসেছি পড়ালেখা করার জন্য।

আর আমি এখানে আমার মামা বাড়িতে থাকি। 
অভ্রঃ আচ্ছা আপনার কোন ছোট ভাই বোন নাই
সিমীঃ আছে তো আমার একটা ছোট বোন আছে। 
অভ্রঃ ওওওহহহ আচ্ছা চলুন ক্লাসের সামনে চলে এসেছি। 
সিমীঃ আচ্ছা চলুন। 

অভ্রঃ তারপর যে যার মতো ক্লাসে চলে গেলাম। তখনি সারের আগমন। সার কিছুক্ষণ ক্লাস নিয়ে চলে গেলেন। 
তারপর কালকের বানানো কিছু বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে লাগলাম। তাদের মধ্যে জীবন আর আশরাফ এর সাথে আমার ভালো বন্ধুত্ব হয়েছিল। এরই মাঝে জীবন বলে উঠলো। 
জীবনঃ আচ্ছা দোস্ত তুই সত্যি কথা বলতো তুই ওই মেয়েটির দিকে তাকিয়ে ছিলি কেন। 

অভ্রঃ আরে কোন মেয়ের কথা বলছিস। 
জীবনঃ আরে দোস্ত আমি সিমীর কথা বলছি। 
অভ্রঃ আরে না রে কী যে বলিস না। মেয়েটি খুব ভালো। তার দিকে তাকিয়ে থাকলে কেমন জানি একটা মায়ায় পরে যাই। আর আমি ওর সাথে ধাক্কা খেয়েছিলাম তাই ওকে সরি বলছিলাম এতটুকুই বুঝেছিস। 

জীবনঃ আরে দোস্ত অন্তত আমাদেরকে সত্যি কথাটা বল। কী রে আসরাফ তুই কিছু বল। 
আসরাফঃ হে রে দোস্ত বল আমরা যদি কোন সাহায্যে করতে পারি। 
অভ্রঃ আরে তোরা চুপ করবি কী যাতা বকছিস। আমি তো ওর সাথে শুধু বন্ধত্ব করার জন্য কথা বলছিলাম। 
জীবনঃ হুমম দোস্ত বুঝি বুঝি আমরাও বুঝি। 
অভ্রঃ তোরা থাক আমি গেলাম। 

আসরাফঃ আরে আরে রাগ করছিস কেন আমরাতো তোর সাথে একটু মজা করলাম। 
অভ্রঃ আচ্ছা এখন অনেক মজা করছিস চল বাসায যাব
জীবনঃ হুমম চল। 

তারপর আর কিছু না বলে আমরা যে যার বারি চলে গেলাম। বাসায় যাওয়ার পর আম্মু বললো……
আম্মুঃ অভ্র এতক্ষণ কোথায় ছিলা। 
অভ্রঃ আম্মু এমনি কলেজের বন্ধুূেদের সাথে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। 
আম্মুঃ আচ্ছা এখন যাও উপরে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নিচে এসো। 
অভ্রঃ জি আম্মু যাচ্ছি। 
আম্মুঃ হুমমম যাও। 

অভ্রঃ আমি আর কোন কথা না বলে চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। 
তারপর খাওয়া করে দিলাম একটা ঘুম। বিকালে ফোনের আওয়াজে ঘুমের বারটা বাজে গেল। ফোনের স্ক্রিনে তাকিয়ে দেখি সালা সয়তানটা ফোন দিছে। ফোন রিসিভ করার পর বলল…

আসরাফঃ দোস্ত কই তুই? 
অভ্রঃ আমিতো বাসায় দোস্ত, কেন?
আসরাফঃ আয় আমাদের এখানে সবাই অপেক্ষা করছে তোর জন্য। 

অভ্রঃ আচ্ছা, তোরা থাম আমি যাচ্ছি। 
আসরাফঃ ওকে তারাতারি আয়। 
অভ্রঃ আর কোন কথা না বারিয়ে চলে গেলাম আড্ডা দিতে। 

অনেক্ষণ আড্ডা দেওয়ার পর বারিতে গেলাম। পরের দিন যথা সময়ে কলেজে গেলাম। কলেজে গিয়ে যা দেখলাম তার জন্য আমি প্রস্তুত ছিলাম না। 
আমি দেখলাম সিমী একটা ছেলেকে ধরে মারতেছে আমিতো দেখে অবাক। কী গুন্ডি মেয়েরে ভাই এইভাবে

কি কেও কাউকে মাড়ে। আমি সিমীর কাছে গিয়ে বললাম। 
অভ্রঃ আপনি এইভাবে ছেলেটিকে মারছেন কেন। 
সিমীঃ এই ছেলেটার সাহস কিভাবে হয় আমাকে প্রপোজ করার। 

অভ্রঃ তাই জন্য কী এইভাবে মারবেন। 
সিমীঃ হুমম বেশ করেছি মেরেছি এখন আপনি যদি বেশি কথা বলেন তাহলে আপনাকেও মারবো। এখন বেশি

কথা না বলে চলুন ক্লাসে যাব। 
অভ্রঃ কী মেয়েরে ভাই হুমম চলুন। 
সিমীঃ হুমম চলেন
অভ্রঃ ক্লাসে ঢুকার পর পরলাম মহা বিপদে। আমি আমার বসার সিটে গিয়ে যা দেখলাম…..

চলবে… 

পর্ব – ৩

অভ্রঃ আমি আমার বসার সিটের সামনে গিয়ে দেখলাম যে কে যেন বসার জায়গায় চুইংগাম লাগিয়ে দিয়ছে। মাথাটা গরম হয়ে গেল পাশে তাকিয়ে দেখি আমার সয়তান বন্ধুগুলো পাগলের মতো করে হাসছে। এখন বুঝতে পারলাম যে এগুলো কার কাজ সালা তোদেরকে ক্লাস শেষে দেখে নিবো। এমন সময় সার ক্লাসে এসে পড়ে তখন আর কোথাও জায়গা না পেয়ে বাধ্য হয়ে সিমীর পাশে গিয়ে বসতে হলো। তখনি সিমী বললো…. 
সিমীঃ ওই সয়তান এখানে কেন বসলি। 

অভ্রঃ তো কি করবো আমি কি মাটিতে গিয়ে বসবো নাকি। 
সিমীঃ হুমম তাই কর বসলে তো ভালোই হতো। 
অভ্রঃ আমি কেন বসবো আপনার ইচ্ছে হলে আপনি গিয়ে বসুন আমাকে কেন বলছেন। এই কথাটা বলার পর সিমী আমার দিকে রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। আমার তো খুব ভয় করছিল কেন যে বলতে গেলাম কথাটা। 

সিমীঃ ওই কুওা তুই আমাকে কী বললি আমি মাটিতে বসবো হুমম দারা তোকে আজকে আমি মজা দেখাবো। 
অভ্রঃ আরে এই মাইয়া কয় কী আমাকে নাকি মজা দেখাবে কেন যে আজকে কলেজে আসলাম আল্লাগো বাচাঁও আমারে। 
সিমীঃ আজকে কলেজ শেষে আমার জন্য অপেক্ষা করবি। যদি কোন রকম চালাকি করছিস না তাহলে তোকে কাল মেরে এখানেই মাটি চাপা দিয়ে দিব এই বলে দিলাম। 
অভ্রঃ কি গুন্ডি মেয়েরে বাবা একটা ছেলেকে ভয় দেখায় আমিতো পুরাই অবাক। ক্লাস শেষে আমি চুপ করে বসে আছি আর ভাবছি সিমী কি আমাকে আজ মারবে। এসব ভাবছি তখনি জীবন আর আশরাফ আমার কাছে আসলো আর বললো। 

জীবনঃ কী রে দোস্ত তখন থেকে দেখছি কী যেন চিন্তা করছিস আমাদের বল কী হয়েছে। 
আসরাফঃ হে রে দোস্ত বল আমরা যদি কোন রকম সাহায্য করতে পারি। 

অভ্রঃ চুপ কর সালা তোদের জন্য তো সব হইল এখন সাহায্য করতে আসছিস। যা তোদের সাহায্যের কেন দরকার নাই আমার। 
জীবনঃ আরে আমরা ফির কি করলাম। বরং আমরা তো তোর সাহায্য করতে চাইছিলাম। কী রে আসরাফ ঠিক বললাম তো। 
অভ্রঃ তোরাা আমার সাহায্য করতে যায় আমাকে তো বিপদে ফেলায় দিলি সিমী আমাকে আজকে কলেজ ছুটির পর থাকতে বলছে জানি না আজকে আমার কপালে কি আছে আমারতো খুব ভয় করছে রে। 

জীবনঃ তোরতো খুশি হওয়ার কথা আর তুই চিন্তা করছিস হা হা হা হা হা হা হা। 
অভ্রঃ চুপ কর সালা আবার হাসছিস আজকে কলেজে ঢুকতে গিয়ে দেখি সিমী একটা ছেলেকে ধরে মারতেছিল আর আজকে যা হইলো মনে হয় আমারো কপালে মাইর লিখা আছে৷

জীবনঃ কী বলিস দোস্ত তুই তো মনে হয় আজকে শেষ দোস্ত। এখন যাই বাচেঁ থাকলে আবার দেখা হবে। 
অভ্রঃ আমিতো কিছুই বুঝলাম না ওরা দৌর দিল কেন। পিছনে তাকিয়ে দেখেতো আমার পেন্ট খারাপ করার মতো অবস্থা। সিমী আরো কয়েকটা মেয়ে আমার দিকে রাগী লুক নিয়ে এগিয়ে আসছে। সিমী আমার কাছে আসলো আর বলল…

সিমীঃ ওই কুওা এইদিকে শুন। 
অভ্রঃ আমি কাপা কাপা পায়ে এগিয়ে গেলাম তার দিকে। 

সিমীঃ তোকে আমি বলেছিলাম কলেজ ছুটির পর থাকতে আর তুই এখানে বসে আড্ডা দিচ্ছিস। 
অভ্রঃ না না আ আ আ মানে আমি এমনি বসে ছিলাম এখানে। ( আমি কাপা কাপা কন্ঠে কথা গুলো বললাম)
সিমীঃ চল আমার সাথে তোর খবর করবো আজকে। 

অভ্রঃ আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম ওর সাথে। যপ মেয়ের বাবা যেকোনো সময় যে কিছু করতে পারে। কিছুক্ষণ পর দেখলাম যে ওরা সবাই মিলে একটা কাজী অফিসে ঢুকছে আমিতো কিছুই বুঝতে পারছিনা কী হচ্ছে। তাই আর চুপ করেনা থেকে সিমীকে জিজ্ঞেস করলাম। সিমী কি হচ্ছে এসব আমিতো কিছুই বুঝতে পারছিনা। 

সিমীঃ একটু অপেক্ষা করো সব বুঝতে পারবা। 
অভ্রঃ তুমি এসব কি করতে যাচ্ছ আমার মাথায় কিছুই আসছেনা। 
সিমীঃ আহহহহ তুই চুপচাপ বসে থাক। 
অভ্রঃ তারপর একটা রুম থেকে একটা ছেলে আর একটা মেয়ে বের হয়ে আসলো একজন বরের কাপড় আর একজন বৌয়ের কাপড় পড়ে আসলো। তারপর সিমী আমাকে বললো…

সিমীঃ আরে এদের বিয়েতে তুমি সাক্ষী হিসেবে থাকবা তাইতো তোমাকে এখানে আনা হয়েছে। 
অভ্রঃ আচ্ছা আমি আরকিছু না বলে সাইন করে দিলাম তারপর তাদের বিয়েটা হয়ে গেল। তারপর সিমী ও তার বান্ধবীরা তাদের বিদায় দিয়ে চলে গেল আর সিমী আমার কাছে চলে এলো। 
সিমীঃ কি কিছুই বুঝতে পারছেন নাতো। 

অভ্রঃ হুমমম একটু বলবেন প্লিজ। 
সিমীঃ আচ্ছা শুনুন তবে ও হলো আমার সেই ছোট বেলার বন্ধু আর ওই ছেলেটি হলো ওর বিএফ আর তাদের পরিবারের লোকজন তাদের বিয়ে করতে দিচ্ছিলোনা তাই আমরা আজকে তাদের বিয়ে টা করিয়ে দিলেম। আর এইটা যদি আপনাকে আমি আগে বলতাম তাহলে কি আপনি যেতেন তাই আমি এগুলো প্ল্যান করছিলাম। 
অভ্রঃ মানে আপনি আমাকে মারতেন না। 

সিমীঃ আপনি মনে হয় খুব ভয় পাইছিলেন তাই না আমি দেখছি। হা হা হা। 
অভ্রঃ এই দেখেন একদম হাসবেন না বলে দিলাম । 
সিমীঃ আচ্ছা হাসবো না চলুন বাসায় যাওয়া যাক। 
অভ্রঃ হুমমম চলুন। আচ্ছা একটা কথা বলি যদি রাগ না করেন। 
সিমীঃ হুমমম বলেন। 

অভ্রঃ আপনার কোন বিএফ নাই। 
সিমীঃ না কোনদিন প্রয়োজন মনে করে নি। আপনার হয়তো আছে। 
অভ্রঃ না আমার কোন জিএফ নাই। আচ্ছা আজকে আমার বসার সিটে চুইংগাম লাগানো টা কি আপনার প্ল্যান ছিল। 

সিমীঃ হুমমম আমি জীবন আর আশরাফ কে বলেছিলাম নাহলেতো আপনি আমার কথা শুনতেন না। 
অভ্রঃ ওওওহহ আচ্ছা। আপনার বাসা আরো কতদূরে। 
সিমীঃ ওইতো সামনের মোরে আর ৫ মিনিট এর মতো লাগবে। 
অভ্রঃ ওওহহহ আচ্ছা চলুন। 

সিমীঃ হুমম চলুন আর আমরা যখন ভালো বন্ধু তাই আমাকে তুমি করেই বলতে পারো। 
অভ্রঃ আচ্ছা আমি চেষ্টা করব। 
সিমীঃ কিসের চেষ্টা তুমি করেই বলতে হবে। 
অভ্রঃ আচ্ছা বলব এত রাগেন কেন। 
সিমীঃ আমি এইরকমি বুঝছো। আচ্ছা তোমার নাম্বারটা দেও। 
অভ্রঃ কেন নাম্বার নিয়ে কি করবা। 
সিমীঃ আমরা এখন ভালো বন্ধু তাই তোমার নাম্বারটা দেও। 

অভ্রঃ আচ্ছা নেও 017525… কথা
বলতে বলতে আমি সিমীর বারির সামনে চলে এসেছি। 

সিমীঃ এইটাই আমার বাসা। আচ্ছা অভ্র তুমি এখন যাও আর কাল ঠিক সময়ে কলেজে চলে আসবা আর হে প্রয়োজনে তোমাকে ফোন দিব বিরক্ত হবা না তো। 
অভ্রঃ না না বিরক্ত হবার কি আছে। 
সিমীঃ আচ্ছা তাহলে এখন যাও। বাই। 
অভ্রঃ আচ্ছা বাই। আর কিছু না বলে চলে গেলাম বাড়িতে। বসায় যাওয়ার পর আম্মু বললো যে…..

আম্মুঃ অভ্র এতক্ষণ কোথায় ছিলা? আমি কখন থেকে তোমার জন্য অপেক্ষা করতেছি। 
অভ্রঃ আম্মু একটু কাজে ফাঁসে গেছিলাম তাই আসতে একটু লেট হয়ে গেল। 
আম্মুঃ কোন কাজ। 
অভ্রঃ এমনি একটা কাজ ছিল। 
আম্মুঃ আচ্ছা যাও উপরে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নিচে এসো আমি খাবার দিচ্ছি। 

অভ্রঃ জি আম্মু যাচ্ছি। আর কিছু না বলে চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। তারপর নিচে এসে সবার সাথে খাওয়া করে নিজের রুমে চলে আসলাম তারপর ফেসবুকে কিছুক্ষন ঘুরাঘুরি করে দিলাম একটা ঘুম। ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে চলে গেলাম বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়ার জন্য। তারপর অনেক্ষন ধরে আড্ডা দিয়ে বাড়িতে চলে গেলাম। পরেরদিন যথা সময়ে কলেজে চলে গেলাম। এভাবেই দিনগুলো কাটছিলো এখন আমি আর সিমী অনেকটাই ফ্রী। 

আমরা সবসময় এখন ফোনে কথা বলি। 
এমন একদিন সিমী ফোন দিয়ে যা বললো… 

চলবে… 

পর্ব – ৪

এমন একদিন সিমী ফোন দিয়ে যা বললো… 
সিমীঃ অভ্র তুই কোথায় রে। 
অভ্রঃ কেন আমিতো বাসায় রে। কোন প্রয়োজন আছে নাকি। 
সিমীঃ হুমমম আছে তুই এখনি আমার বাসার কাছে চলে আয়। 
অভ্রঃ কিন্তু এখন। 

সিমীঃ হুমমম এখনি তুই না আসলে কাল কলেজে তোর খবর করবো আমি। 
অভ্রঃ আচ্ছা থাম আমি যাচ্ছি। কি আর করার ইচ্ছা না থাকার সত্যেও যপতে হলো। আমি সিমীর বাড়ির সামনে দারিয়ে আছি কিন্তু সিমীর তো কোন দেখাই নাই। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পর দেখলাম যে সিমী আসছে। আমিতো সিমীকে দেখে আমার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। মেয়েটিকেতো আজ অসম্ভব সুন্দর লাগছে যে কেও দেখে ক্রাশ খাবে। সিমীর কথায় আমার ঘোর কাটল। 

সিমীঃ কিরে হাঁদারাম এইভাবে কী দেখছিলি। আমারতো খুব লজ্জা করছিল। 
অভ্রঃ কই নাতো আমি কিছু দেখিনি। আসলে আজকে তোকে খুব ভালো লাগছে। তাই দেখছিলাম আরকি। 
সিমীঃ কেন এর আগে কি আমি খারাপ দেখতেছিলাম। 
অভ্রঃ তুই সবসময় একলাইন বেশি বুঝিস কেন। 
সিমীঃ হুমম এখন তো বলবি। আচ্ছা চল একজায়গায় যাব আজকে। 
অভ্রঃ আচ্ছা যাব কিন্তু যাবি কথায় সেইটাতো বল। 

সিমীঃ আজকে আমার ফ্রেন্ডের বার্থডে তাই তোকে আমি সাথে নিয়ে যাব। কেন তোর কি কোন সমস্যা। 
অভ্রঃ তোর ফ্রেন্ডের বার্থডে তুই যা আমি কেন যাব। 
সিমীঃ দেখ অভ্র একদম মাথা গরম করাবি না তুই আমার সাথে যাবি কিনা বল। 
অভ্রঃ আচ্ছ বাবা যাব এতো রাগিস কেন। 

সিমীঃ হুমম জানি তুই আমার কথা শুনবি। 
(আমার গাল টেনে কথা গুলো বললো)
অভ্রঃ তুই যাকে বিয়ে করবি সেতো বিয়ের পরের দিনি পলাবে। 
(আস্তে আস্তে কথাটা বললাম)
সিমীঃ ওই কি বললি আবার বল। 
অভ্রঃ না থাক কিছু বলিনি আমি। 

সিমীঃ হুমম এখন চল দেরি হয়ে গেল তো। 
অভ্রঃ হুমম চল বাইকে ওঠ। তারপর সিমী আমাকে ধরে জরিয়ে বসলো। কেন জানি একটা আলাদা ফিলিংস কাজ করছিল নিজের মধ্যে যা ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন। এখনতো আমার গান গাইতে ইচ্ছে করছে

“এই পথ যদি না শেষ হয় তবে কেমন হতো তুমি বলোতো” 
প্রায় ৩০ মিনিট পর সিমীর বান্ধবীর বাড়িতে পৌছালাম। সিমীর বান্ধবীর নাম হলো নেহা। নেহা ও তার আরো কিছু বান্ধবী মিলে আমাদেরকে ভিতরেে নিয়ে গেল। ভিতরে অনেক লোকজন ছিল আর হবেইনা কেন বড়লোক বাবার একমাত্র মেয়ে বলপ কথা। যাই হোক সিমী ওর বান্ধবীদের সঙ্গে কথা বলছে আর আমি চুপ করে বসে আছি। এমন সময় সিমী এলো। 

সিমীঃ কি রে এই ভাবে বাচ্চাদের মতো বসে আছিস কেন যা এনজয় কর। 
অভ্রঃ না আমার এগুলো একদম ভালো লাগেনা। 
সিমীঃ হইছে আর ভদ্রলোক হতে হবে না তোকে। 

অভ্রঃ কী যে বলিস না আমিতো সেই জন্ম থেকেই ভদ্র। 
সিমীঃ হা হা হা হা হা তোর সাথে আমি পারবোনা। 
অভ্রঃ তো লাগিস কেন আমার সাথে। 
সিমীঃ হুমম এখন চল যেখানে কেক কাটবে। সবাই অপেক্ষা করছে তোর জন্য। 
অভ্রঃ ওকে চল যাই। 

তখন নেহা সবার সামনে কেক কাটলো তারপর সেখান থেকে এক টুকরো কেক নিয়ে তার আব্বু, আম্মু ও আমাকে খিলায় দিল সবাই তো অবাক নিলার কর্মকাণ্ড দেখে। যাই হোক এখন খাওয়ার পর সবাই নাকি নাচ করবে। আমি এগুলো পারি না তাই আমি চুপচাপ বসে ছিলাম এমন সময় নেহা আমার সামনে আসলো। 
নেহাঃ কি ভাইয়া আপনি এখানে একা বসে আছেন কেন সবাই কতো এনজয় করতেছে আপনিও করুন। 

অভ্রঃ না আসলে আমি এগুলো পারিনা। আর বরো কথা হলো আমার এগুলো ভালো লাগে না। 
নেহাঃ আচ্ছা চলুন আমার সাথে আমি আপনাকে শিখিয়ে দিচ্ছি। 
অভ্রঃ না না না এসবের কোনো দরকার নাই। 
নেহাঃ না দরকার আছে চলুন আমার সাথে। 

অভ্রঃ নেহা আমাকে একপ্রকার জোর করে নিয়ে গেল। নেহা জোর করে আমার এক হাত তার কোমরে ও আরেকটি হাত তার কাধে নিল। আর বল……
নেহাঃ এখন আমি যেভাবে বলব সেভাবে করবাা
অভ্রঃ আমিতো রীতিমতো অবাক হয়ে গেলাম। এই মেয়ে বলে কি এই মেয়ের আবভাব তো ভালো লাগছেনা আমার। আর অই দিকে সিমী এগুলো দেখে তার কাছে রাখা গ্লাসটা ভেঙে দিল তারপর আমার কাছে এসে বললো…

সিমীঃ অভ্র এখন বাসায় যাব চল আম্মু ফোন করছিল। 
নেহাঃ কেন রে আরেকটু থাক। 
সিমীঃ নারে আম্মু বকবে তাই যেতে হবে। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল বাড়িতে যাওয়া যাক। বাই নেহা কাল কলেজে দেখা হবে। ( সিমী কে রাগানোর জন্য কথাটা বললা)
সিমীঃ হুমম চল বাইক নিয়ে আয়। 

অভ্রঃ আচ্ছা। তারপর আমি বাইক নিয়ে সিমীর কাছে আসলাম। সিমী আমার বাইকে উঠে বসলো। তারপর আমি বাইক স্টার্ট দিলাম। তখনি সিমি বলতে শুরু করলো। 
সিমীঃ তুই একটা লুচ্চা মেয়ে দেখলে খালি টাংকি মারা দারা আজকে আমি আন্টিকে সব বলবো। 
অভ্রঃ এই নারে প্লিজ এগুলো করিস না। আমি আর এগুলো করবোনা। 
সিমীঃ না আমি আজকে কিছু শুনবোনা চল তোর বাসায়। 

অভ্রঃ আমার তো কোন দোষ নেই সেখানে তো নেহা আমাকে একপ্রকার জোর করে নিয়ে গিয়েছে। 
সিমীঃ ও বললে কি তুই চলে যাবি। 

অভ্রঃ আমি তো ইচ্ছে করে যাই নাই। ওওওহহ আপনাদের তো একটা কথা বলাই হয়নি সিমি এখন প্রায় আমার বাড়িতে আসে। যাই হোক মূল ঘটনায় আসি। হুমম আমি জানি আমি যতই বলিনা কেন সিমি আমার একটা কথাও শুনবে না। 
সিমীঃ তোর খবরতো আমি আজকে করেই ছারব। 

অভ্রঃ প্লিজ এগুলো করিস না রে। এগুলো বলতে বলতে বাড়িতে চলে আসলাম। কলিংবেল চাপ দিতেই আম্মু এসে দরজা খুলে দিল। আমার সাথে সিমি কে দেখে আম্মু বল……..
আম্মুঃ আরে সিমি মা যে আসো আসো ভিতরে আসো। 
সিমীঃ আন্টি কেমন আছেন। 

আম্মুঃ এইতো ভালো মা। তুমি কেমন আছো। 
সিমীঃ আপনার ছেলে আমাকে ভালো থাকতে দিলে থাকব। 
আম্মুঃ কি করছে অভ্র আমাকে বলো। 

সিমীঃ কি আর করবে আমার সামনে অন্য মেয়ের সাথে লুচ্চামি করছে। 
আম্মুঃ অভ্র সিমি কী সত্যি বলছে
অভ্রঃ আসলে না মানে হে আম্মু। 

আম্মুঃ তাহলে আজ তোর খাওয়া বন্ধ। 
অভ্রঃ কিন্তু আম্মু আমার কথাটা। 

আম্মুঃ আমি তোর কোন কথা শুনবো না যা নিজের রুমে যা। 
অভ্রঃ আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম নিজের রুমে। 
আমি রাগ করে বসে আছি তখন সিমির আগমন তারপর যা করল…

চলবে…

পর্ব – ৫ 

আমি রাগ করে বসে ছিলাম এমন সময় সিমির আগমন তারপরসিমি যা করল…
সিমীঃ অভ্র প্লিজ কিছু খেয়ে নে। 

অভ্রঃ না আমার খাওয়ার দরকার নাই। তুই যাতো এখন। 
সিমীঃ দেখ আমি কি জানতাম যে আন্টি এমনটা করবে। প্লিজ চল আমার সাথে। 
অভ্রঃ সিমি তুই যাতো এখান থেকে। 

সিমীঃ অভ্র আমি কিন্তু এখন কান্না করবো। প্লিজ চল না। 
অভ্রঃ -তুই কান্না কর তাতে আমার কি। (আমি জানি ও কান্না করবে না) । 
সিমীঃ অ্যা অ্যা অ্যা এ এ এ এ এ এ। 

অভ্রঃ একি এই মেয়ে তো সত্যি কান্না করছে। কিরে সিমি চুপ কর কান্না করছিস কেন। আচ্ছা চল আমি খাব। 
সিমীঃ আমি জানতাম তুই আমার কথা শুনবি বাবু। আর আমি তো কান্না করার অভিনয় করছিলাম হি হি হি হি হি হি হি হি হি। 
অভ্রঃ তুই সবসময় আমাকে এইভাবে রাজি করাইস সয়তান। 

সিমীঃ হুমমম এখন চল আন্টি অপেক্ষা করছে তোর জন্য। 
অভ্রঃ হুমমম চল। তারপর আর কিছু না বলে চলে গেলাম খাওয়ার জন্য। 
সিমীঃ আন্টি আপনি বসেন আমি খাবার দিচ্ছি। 

আম্মুঃ না মা তুমি বসো তোমাকে এগুলো করতে হবে না আমি করছি আর তুমি তো আামদের অতিথি তাইনা। 
সিমীঃ ওকে আন্টি যেইটা আপনি ভালো বুঝেন। 
(তারপর সিমি আর কোন কথা না বলে খেতে লাগলো)
অভ্রঃ আম্মু আমার খাওয়া হয়ে গেছে আমি রুমে গেলাম। 

আম্মুঃ একটু পর সিমিকে ওদের বাড়িতে গিয়ে দিয়ে আসিস। 
অভ্রঃ জি আম্মু। (সিমি খাওয়া করে আমার কাছে আসলো)
সিমীঃ হুমম চল অনেক রাত হয়ে গেল তো। 

অভ্রঃ আচ্ছা তুই থাম আমি গিয়ে বাইকটা নিয়ে আসি। 
(আমি বাইক নিয়ে সিমীর কাছে গেলাম) হুমমম উঠ তারাতারি। 
সিমীঃ হুমমম তারাতাড়ি চল এখন। 

(কিছুক্ষণ পর সিমীর বাড়ির সামনে চলে গেলাম তারপর সিমী বললো। ) অভ্র আমার একটা কথা তোকে রাখতে হবে। 

অভ্রঃ কি কথা বল রাখার মতো হলে রাখবো। 
সিমীঃ না তুই আগে বল কথাটা রাখবি। 
অভ্রঃ আচ্ছা বলবি তো কি কথা। 

সিমীঃ তোকে আামর সাথে আমার গ্রামের বাড়িতে যেতে হবে কালকে আমার চাচাতো বোনের বিয়ে। দেখ প্লিজ না করিস না। 

অভ্রঃ আরে সামনে তো আমাদের পরীক্ষা শুরু হবে আর আম্মু রাজি হবে না। 
সিমীঃ আমি আন্টিকে বলছি আর আন্টি তোকে যেতে বলেছে। 
অভ্রঃ তুই এগুলো আম্মুকে কখন বললি। 

সিমীঃ সেইটা তোকে শুনতে হবেনা। তুই যাবি কিনা বল। 
অভ্রঃ কি আর করবো ওকে যাব। কিন্তু তোর বোনের বিয়ে তাই আমি গিয়ে কি করবো বল। 
সিমীঃ আমার আব্বু আর আম্মু তোকে যেতে বলেছে আর সবচেয়ে বড় কথা হলো তুই আমার বেস্ট ফ্রেন্ড বুঝলি। 

অভ্রঃ হুমমম বুঝলাম। 
সিমীঃ আচ্ছা এখন যা অনেক রাত হয়ে গেছে তাছারা আন্টি মনে হয় চিন্তা করতেছে। 

অভ্রঃ আচ্ছা যাচ্ছি। 
সিমীঃ ওকে যা আর হে বাসায় গিয়ে একটা ফোন দিস। এখন যা বাই। 
অভ্রঃ তারপর বাইক ঘুরিয়ে চলে আসলাম বাড়িতে। বাড়িতে গিয়ে সিমি কে ফোন করলাম রিং হচ্ছে…. 
সিমীঃ হুমম বাসায় গেছিস। 

অভ্রঃ হুমম এখনি আসলাম। 
সিমীঃ আচ্ছা শুন কালকে কিন্তু সকাল ১০ টায় আমাদের ট্রেন দেরি করিস না কিন্তু। 
অভ্রঃ কালকেই যাবি। 

সিমীঃ হুমমম কালকেই যাব। কেন তোকে তো বললাম। 
অভ্রঃ ওকে আমি আম্মুকে বলে আমার সব কিছু গুছিয়ে নিচ্ছি। 
সিমীঃ আচ্ছা এখন অনেকে রাত হয়েছে ঘুমিয়ে পর আর সকালে আমি ফোন দিব। 

অভ্রঃ আচ্ছা বাই গুড নাইট। 
সিমীঃ ওকে বাই গুড নাইট। 
(তারপর আমি আম্মুর রুমে গেলাম)
অভ্রঃ আম্মু তোমার সাথে আমার কথা আছে। 
আম্মুঃ বল কি বলবি। 

অভ্রঃ তুমি নাকি সিমি কে বলছো যে ও যেন আমাকে ওর সাথে নিয়ে যায়। 
আম্মুঃ হুমম আমি বলছি কেন। 
অভ্রঃ না মানে ওইটাই শুনতে চাইছিলাম। 

আম্মুঃ আচ্ছা আমি যানি তুই কি জন্য আসছিস তোর সব আমি ওই লাগেজে গুছিয়ে রেখেছি। আর এখন যা ঘুমা গুড নাইট। 
অভ্রঃ আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম নিজের রুমে তারপর ফ্রেশ হয়ে নিলাম। কিছুক্ষণ ফেসবুকে ঘুরাঘুরি করে দিলাম একটা ঘুম একবারে সকালে ঘুম ভাঙ্গলো ফোনের আওয়াজে। ফোনের স্ক্রিনে তাকিয়ে দেখি সিমি ফোন করেছে। 

সিমীঃ ওই কুওা তুই আর কতো ঘুমাবি দেখছিস একবারো যে কয়টা বাজে। 
অভ্রঃ আমি ঘরির দিকে তাকিয়ে দেখি যে ৮টা বেজে গেছে। সিমীকে বললাম যে তুই ওয়েট কর আমি যাচ্ছি। তারপর আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে গিয়ে কিছু খেয়ে নিলাম। আম্মুর রুম থেকে আমার লাগেজ টা নিয়ে সিমীকে ফোন দিলাম। 
সিমীঃ হুমম বল। 

অভ্রঃ কোথায় তুই?
সিমীঃ তুই এক কাজ কর তুই স্টেশনে যা আমিও যাচ্ছি। 
অভ্রঃ আচ্ছা তারাতাড়ি আসিস কিন্তু। 
সিমীঃ ওকে বাই। 
(আর কিছু না বলে ফোনটা কেটে দিলাম। আমি আম্মুর কাছে গিয়ে বিদায় নিলাম )
অভ্রঃ আম্মু আমি যাচ্ছি। তোমার ভালে থেকো। 
আম্মুঃ এমন বলছিস মনে হচ্ছে আর আসবি না আচ্ছা সাবধানে যাস। 
অভ্রঃ জি আম্মু যাচ্ছি আল্লাহ হাফেজ। 

(তারপর একটা সিএনজি করে চলে গেলাম স্টেশনে। গিয়ে দেখি সিমি একা বসে আছে আমাকে দেখে উঠে দারাল)
সিমীঃ ওই কুওা তোর এখন সময় হলো আসার আমি সেই কখন থেকে বসে ছিলাম। 
অভ্রঃ আরে এইটা কি আমার দোষ। 
সিমীঃ না আমার দোষ। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল ওখানে গিয়ে বসি। 
সিমীঃ হুমম চল। সকালে খেয়েছিস কিছু। 
অভ্রঃ হুমমম খেয়েছি তুই। 

সিমীঃ আমিও। জানিস আজ অনেক দিন পর গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছি। খুব ভালো লাগছে। 
অভ্রঃ ওওওও তাই বুঝি। (অপেক্ষার প্রহর শেষ হলো ট্রেন এসে গেছে আমি আর সিমী ট্রেনে উঠে পরলাম)
সিমীঃ অভ্র দেখ জনালার দিয়ে কি সুন্দর দৃশ্যদেখা যাচ্ছে। 

অভ্রঃ হুমমম ঠিক বলছিস খুব সুন্দর। কথা বলতে বলতে সিমি আমার কাধে মাথা রেখে কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছে সে নিজেও যানেনা । অসম্ভব সুন্দর লাগছিল তাকে বতাসে চুল গুলো উরছিল। আমি প্রায় অনেকটা সময় তারদিকে এইভাবে তাকিয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল যদি সময়টা এখানে থেমে যেত তাহলে খুব ভালো হতো। আমি কখনো সিমিকে এইভাবে কখনো দেখিনি। আজকাল সিমীর পাগলামিগুলো খুব ভালোইলাগে আমার। এসব ভাবতে ভাবতে আমরা আমাদের গন্তব্যে পৌঁছে গেলাম। তারপর আমি সিমিকে ডাক দিলাম। 
সিমীঃ আমরা এসে গেছি। 
অভ্রঃ হুমমম এখন চল। 
সিমীঃ হুমম চল। 

(তারপর আমারা ট্রেন থেকে নেমে একটা সিএনজি করে সিমির গ্রামে গেলাম)
অভ্রঃ বাহ্ সিমী তোদের গ্রামটা তো খুব সুন্দর। আমারতো খুব ভালো লাগছে। 
সিমীঃ হুমম দেখতে হবেনা কার গ্রাম এইটা। 
অভ্রঃ তুই আবার শুরু করলি। 
সিমীঃ উফফ তুই কি মজাও বুঝিস না। 
অভ্রঃ আচ্ছা তোদের বাসাটা কোন দিকে। 
সিমীঃ ওই যে সামনের রাস্তা দিয়ে যেতে হবে। 

অভ্রঃ ওহহহ আচ্ছা। সিমির গ্রামটা খুবই সুন্দর যেমন নাম তেমনি সুন্দর। চারদিক সবুজ। ঠান্ডা হাওয়া বইছে। পাখিদের কিচিরমিচির শব্দ। মনে হচ্ছে সবাই যেন আমাদের স্বাগতম জানাচ্ছে। গ্রাম যে এত সুন্দর হয় তা জানতাম না। গ্রামের লোকেরা আমাকে আর সিমী কে যেভাবে দেখছে মনে হচ্ছে আমারা দুজন কোন ভূত। যাই হোক দীর্ঘ ১ ঘন্টা হাটার পর আমারা সিমীর বাড়িতে গেলাম। আবার সেই একি কাহিনী সিমীর বাড়ির লোকজনও আমাদের অবাক চোখে দেখছিল। তারপর সিমীর আব্বু আর আম্মু আসলো। আমি সালাম দিলাম

তারপর সিমীর আম্মু বললেন…..
আন্টিঃ বাবা তুমি তাহলে সেই অভ্র। 

অভ্রঃ জি আমি সেই অভ্র। আর আপনারা আমাকে চিনেন কিভাবে। 
আন্টিঃ তোমার কথাইতো সিমী আমাদেরকে বলেছিল। 

অভ্রঃ ওহহহ আচ্ছা। আমাকে আর কিছু বলতে না দিয়ে সিমী নিজেই বলতে শুরু করলো। 
সিমীঃ উফফ আম্মু আমারা অনেক জার্নি করে এসেছি। আর অভ্র খুব ক্লান্ত ওকে একটু রেস্ট নিতে দেও। 
আন্টিঃ আচ্ছা অভ্রকে তুই গেস্ট রুমে নিয়ে যা আর তুই তোর রুমে থাকবি কেমন। 
সিমীঃ ওকে আম্মু। অভ্র তুই আমার সাথে আয়। 

অভ্রঃ হুমমম চল। তারপর সিমী আমাকে একটা রুমে নিয়ে গেল ওখানে আমি আমার সব জিনিস পত্র রাখলাম। তরপর সিমী চলে গেল আর আমি ওয়াশ রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। ফ্রেশ হওয়ার পর আমি চারপাশটা ঘুরে দেখতে লাগলাম। 
তখনি সিমি আমার রুমে আসলো। 

সিমীঃ অভ্র নিচে চল খাওয়া করার জন্য সবাই অপেক্ষা করছে তোর জন্য। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল। তারপর আমি আর সিমি একসাথে নিচে গেলাম। আমি খাচ্ছিলাম আর সিমী আমাকে খাবার দিচ্ছিল। আমি বললাম তুইও বস। 
সিমীঃ তুই খা আমি পরে খাব। 

অভ্রঃ তুই বসতো। তারপর সিমী আমার পাশের চেয়ারে বসে পরলো। তখন আমি খাওয়া শেষ করে নিজের রুমে চলে গেলাম। রুমে আসার পর সিমী কিছুক্ষন পর আমার রুমে আসলো আর বলল
সিমীঃ অভ্র তুই রেডি থাকিস আমরা বিকালে গ্রামটা ঘুরে দেখবো কেমন। 
অভ্রঃ আচ্ছা ঠিক আছে। 

সিমীঃ ওকে এখন রেস্ট নে। 
অভ্রঃ সিমি চলে যাওয়ার পর আমি একটু ঘুমালাম। তারপর সিমি বিকালে আমার রুমে এসে যা করলো……

চলবে… 

পর্ব – ৬

বিকালে সিমি আমার রুমে এসে যা করল তা বলার মতো না……
অভ্রঃ সিমী আমার উপর পানি ঢেলে দিল। আমার তো মাথা গরম হয়ে গেল তখনি সিমি বলল
সিমীঃ তোকে আমি কি বলেছিলাম তোর মনে আছে। 

অভ্রঃ হুমমম তুইতো বলে ছিলি যে বিকালে ঘুরতে যাবি। 
সিমীঃ হুমমম বলেছিলাম কিন্তু তুইতো ঘুমাচ্ছিস আর আমি সেই কখন থেকে ডেকপ যাচ্ছি। আর তুই যখন উঠছিলি না তাই আমি পানি ঢেলে দিছি। 
অভ্রঃ তোকে আর কি বলব তুই আর ভালো হইলি না । 

সিমীঃ হুমম এখন যা তারাতারি ফ্রেশ হয়ে নে আমি তোর জন্য নিচে অপেক্ষা করতেছি। 
অভ্রঃ আচ্ছা যা আমি যাচ্ছি। তারপর আর কিছু না বলে চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। ফ্রেশ হওয়ার পর নিচে চলে গেলাম দেখি সিমী বসে আছে আমাকে দেখে উঠে দাড়ালো। 
সিমীঃ আরে অভ্র তোকে খুব সুন্দর লাগছে। 
অভ্রঃ হুমমম হইছে থাক আর বলতে হবে না। 
সিমীঃ আচ্ছা চল। 

(তারপর আমি আর সিমী রাস্তার একপাশ দিয়ে হাটতে লাগলাম)
অভ্রঃ আচ্ছা সিমী কালকে গ্রামের সবাই আমাকে আর তোকে ওইভাবে দেখছিল কেন। 
সিমীঃ আসলে আমি যখন গ্রামে থাকতাম তখন কোন ছেলে আমার সাথে কথা বলতে আসতোনা কারণ আমি খুব রাগি ছিলাম আর তাদেরকে মেরে বাড়ি পাঠিয়ে দিতাম। আর তুই কাল আমার সাথে আবার আমার গ্রামে আসলি তাই সবাই তোকে আর আমাকপ দেখে অবাক হয়ে গিয়েছিল। 

অভ্রঃ কেন তুই ছেলেদের মারিস কেন। 
সিমীঃ ছেলেদেরকে মারতে আমার খুব ভালো লাগে তাই। 
অভ্রঃ তাহলে আমাকে মারিস না কেন। 
সিমীঃ কারণ তুই আমার বেস্ট ফ্রেন্ড তাই। 

অভ্রঃ ওওও তাই নাকি। 
সিমীঃ হুমম। ওই যে পুকুর পাড়টা দেখছিস ওখানে আমি প্রতিদিন বিকালে যেতাম। 
অভ্রঃ ওওও আচ্ছা। 

সিমীঃ চলনা যাই ওখানে কিছুটা সময় কাটানোর জন্য। 
অভ্রঃ না আমি যদি পুকুরে পড়ে যাই তখন। 
সিমীঃ আরে চল আমি আছি না কিছু হবে না চল। 

অভ্রঃ তারপর আর কি সিমী আমাকে একপ্রকার জোর করে নিয়ে গেল ওখানে। দুজনেই চুপচাপ বসে আছি। সব নিরবতা ভেঙ্গে সিমী বলতে শুরু করল। 
সিমীঃ জনিস অভ্র আজ অনেক দিন পর এই পুরোনো জায়গাটিতে আসলাম। পুরনো সব সৃতি গুলো মনে পরছে। 
অভ্রঃ ওওও আচ্ছা কি মনে পড়ছে। 

সিমীঃ অনেক কিছু ওগুলো বলতে শুরু করলে দিন পার হয়ে যাবে। 
অভ্রঃ -ওকে অন্য একদিন বলিস শুনবো। 
সিমীঃ আচ্ছা বলব আর হে আমিতো তোকে একটা কথা বলতে ভুলেই গিয়েছিলাম। 
অভ্রঃ কোন কথা। 

সিমীঃ আজকে আমার চাচাতো বোনের গায়ে হলুদ সবাই যাবে আর তোকেও যেতে হবে। 
অভ্রঃ দেখ তুইতো জানিস আমার এগুলো একদম ভালো লাগে না। 
সিমীঃ প্লিজ অভ্র তুই না করিসনা। 

অভ্রঃ ওকে যাব। কেন জানি ওর কোন কথাই আমি না করতে পারি না। খুব মায়ায় পরে গেছি ওর। মনের অজান্তেই ওকে আমি ভালোবেসে ফেলেছি। কিন্তু কোনদিন বলিনি কারন আমাদের এই বন্ধুত্বের সম্পর্কটি নষ্ট করে দেয়। কিন্তু মনের কথা আর চেপে রাখতে পারছি না তাই ভাবছি বলেই দিব। আমি এগুলো মনে মনে বলছিলাম আর সিমী তো সেই কবে থেকে কথা বলেই যাচ্ছে। 

সিমীঃ কিরে অভ্র কি এতো চিন্তা করছিস। আমি সেই কখন থেকে বলেই যাচ্ছি আর তুই কিছুই বলছিস না। কোনো প্রবলেম নাকি। 
অভ্রঃ আরে না না এমনি ভালো লাগছিল না তাই আরকি। 
সিমীঃ আমাকে বল কি সমস্যা। 

অভ্রঃ আরে না কিছু হয়নি চল বাসায় যাব অনেক তো ঘুরা হইলো। 
সিমীঃ ওকে চল আর পাঞ্জাবি পরে রেডি থাকিস। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল এখন। বাসায় যাব। 
সিমীঃ হুমম চল। 

(সিমী হয়তো আমার থেকে এমনটা আশা করে নাই কিন্তু ও কি বুঝবে যে আমার মনে এখন কি চলছে কিছুক্ষণ পর বাসায় আসলাম)
অভ্রঃ আচ্ছা সিমী আমি একটু আমার রুমে যাচ্ছি। 

সিমীঃ আচ্ছা যা। হঠাৎ অভ্রর কি হলো ও তো এমনটা কখনো করে না কি নিয়ে এতো চিন্তিত ও। এসব সিমী ভাবছিল। 

অভ্রঃ আজ কেন জানি খুব কান্না করতে ইচ্ছা করছে আমার। ভালোবাসার মানুষটা আমার এতো কাছে তাও আমি তাকে আপন করে নিতে পারতেছি না। এর থেকে বড় কষ্ট আর কি হতে পারে। তাই আমি একটু জীবনকে ফোন দিলাম ওর সাথে কথা বললে হয়তো ভালো লাগবে। রিং হচ্ছে….. 
জীবনঃ কিরে দোস্ত কেমন আছিস। সেইযে গপলি আর একটা ফোনও করলি না। 

অভ্রঃ আরে না দোস্ত সবকিছু হঠাৎ করে হয়ে গেল। 
জীবনঃ কেমন আছিস বল। আর সিমী কেমন আছে। 
অভ্রঃ আমি ভালো আছি আর সিমীও ভালো আছে তুই কেমন আছিস রে। 
জীবনঃ আছি আরকি। কিরে তোর মনে হচ্ছে মন খারাপ। 

অভ্রঃ না রে এমনি একটু অসুস্থ। 
জীবনঃ আমি জানি তোর মন খারাপ। এখন বলতো কি হইছে। 
অভ্রঃ আরপ বললাম তো কিছু হয়নাই। 

জীবনঃ দেখ তুই আমার বন্ধু তাই আমি ভালে করেই বুঝতে পারছি যে তোর মন খারাপ। 
অভ্রঃ আরে না । 

জীবনঃ আমি জানি তোর সিমীর জন্য মন খারাপ । তুই ওকে ভালোবাসিস এই কথাটা বলে দিলেই তো পারিস। 
অভ্রঃ না রে দোস্ত তখন যদি আমাদের বন্ধুত্বের সম্পর্কটা নষ্ট হয়ে যায়। 
জীবনঃ দেখ তুই পকে ভালোবাসিস আর এইটা যদি তুই সিমীকে না বলিস তাহলে একদিন তোর এই ভূলের কারণে তুই সিমীকে হারাবি। 
অভ্রঃ এইভাবে বলিস না রে। 

জীবনঃ তুই আজকে সিমীকে তোর মনের কথাটা বলে দে। 
অভ্রঃ কিন্তু ও যদি না মানে তখন। 

জীবনঃ তাহলে তুই বসে থাক আর অন্য কেউ এসে ওকে নিয়ে যাক। 
অভ্রঃ না রে এগুলো বলিস না। 
জীবনঃ তাহলে কি বলবো। 

অভ্রঃ আচ্ছা আমি আজকেই সিমীকে নিজের মনের কথাটা বলে দিব। 
জীবনঃ হুমম ওইটাই কর। 
অভ্রঃ আচ্ছা দোস্ত এখন তাহলে রাখি। 
জীবনঃ আচ্ছা ভালে থাকিস বাই। 

অভ্রঃ ওকে বাই। তার কিছুক্ষণ পর সিমী রুমে আসলো। 
সিমীঃ কিরে কার সাথে এতো কথা বলেছিলি। 
অভ্রঃ এমনি জীবনের সাথে। 

সিমীঃ ওওও আচ্ছা নিচে আয় আম্মু ডাকছে খাওয়া করার জন্য। 
অভ্রঃ আচ্ছা তুই যা আমি যাচ্ছি। তরপর সিমী চলে গেল। আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম দেখি সবাই বসে আছে আমার জন্য। আমি গিয়ে একটা চেয়ারে বসলাম। আমি দেখলাম যে সিমী এখানে নেই। তাই আমি আন্টিকে বললাম যে সিমী কই। তখনি পিছন থেকে সিমী বলল। 
সিমীঃ আমি এখানে। কথাটা বলার পর সিমী আমার পাশের চেয়ারটিতে বসে পরল। 

আমি খাওয়া করে নিজের রুমে চলে আসলাম। তার কিছুক্ষণ পর সিমী আমার রুমে এসক বললো যে সন্ধ্যায় যাবে চাচাতো বোনের গায়ে হলুদেে। আমি শুধু মাথা নারালাম। আমি কিভাবে বলব সিমী কে আমার মনের কথা ও কি বলবে আমাকে তখন। ও কি আদও আমাকে ভালোবাসবে। এসব ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম বুঝতেই পারিনি। সন্ধ্যায় সিমী এসে আমাকে ডাকল। 
সিমীঃ কিরে ওঠ আর কতো ঘুমাবি। 

অভ্রঃ হুমমম যাচ্ছি থাম। 
সিমীঃ ওকে তারাতাড়ি আয়। 
অভ্রঃ হুমম তারপর ফ্রেশ হয়ে রেডি হয়ে নিলাম তারপর নিচে গেলাম। 
সিমীঃ হইছে তোর চল এখন অনেক দেরি হয়ে গেল তো। 
অভ্রঃ ওকে চল। তারপর বাড়ির সবাই মিলে চলে গেলাম সিমীর চাচাতো বোনের গায়ে হলুদেে। 
ওখানে গিয়ে ঘটল আরেক ঘটনা…… 

চলবে…

পর্ব – ৭

তারপর বাড়ির সবাই মিলে চলে গেলাম সিমীর চাচাতো বোনের গায়ে হলুদে। 
ওখানে গিয়ে ঘটল আরেক ঘটনা সিমীর বাসার সবাই বলছে আমাকে নাকি ছবি তুলতে হবে আর আমি এসব ছবি টবি তুলতে পারি না তাই সিমীকে গিয়ে বললাম। 
অভ্রঃ দেখ তুই ভালো করেই জানিস আমার এগুলো একদম ভালো লাগে না। 
সিমীঃ প্লিজ আমার জন্য কর। 

অভ্রঃ না রে প্লিজ আমাকে জোর করিস না। আমি আর কিছু না বলে বাইরে আসলাম। 
সিমীঃ আচ্ছা। কি হলো অভ্রর ওতো এমন ছিলনা হঠাৎ করে কি এমন হলো ওর। মনের অজান্তেই সিমী এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খুজতে লাগল। অভ্রর এরুপ আচরনে সে কিছুটা দুখিঃত। ওদিকে অভ্র একটাই চিন্তা করছে কী ভাবে সিমীকে সে নিজের মনের কথাটা বলবে। 
যাই হোক মূল ঘটনায় আসি। 

অভ্রঃ আজকে আমি সিমীকে আমার মনের কথাটা বলেই ছারব। যে করেই হোক আজকে আমি সিমী কে সব বলবই যে আমি ওকে কতোটা ভালোবাসি। 
(তাই আমি আর দেরি না করে বাড়ির ভিতরে গেলাম গিয়ে দেখি সিমী বসে কি জেন ভাবছিল আমাকে দেখে উঠে দারলো আর বললো)
সিমীঃ অভ্র তুই কথায় ছিলি আমি সেই কখন থেকে অপেক্ষা করছি তোর জন্য আর তোরতো কোন হুদিস নাই। 
অভ্রঃ সিমী তোর সাথে আমার একটু কথা আছে ছাদে আয়। 

সিমীঃ কেন এখানে বল কি বলবি। 
অভ্রঃ না এখানে বলা যাবেনা তুই প্লিজ ছাদে আয়। আমি যাচ্ছি তুই আয়। 
সিমীঃ -আচ্ছা তুই যা আমি যাচ্ছি। হঠাৎ অভ্রর কি হলো ও এমন করছে কেন। 
অভ্রঃ আমি ছাদে চলে আসলাম তার কিছুক্ষণ পর সিমী আসলো। 
সিমীঃ হুম এখন বলতো কি বলবি। 

অভ্রঃ আমি যেই কথা গুলো বলব সেগুলো মন দিয়ে শুনিস। আমি জানিনা কথাগুলো বলার পর তুই কেমন রিয়েক্ট করবি কিন্তু আমি আর এগুলো নিজের মনে চেপে রাখতে পারছিনা। বার বার খালি হারানোর ভয় কাজ করছে। 

সিমীঃ আরে আমিতো কিছুই বুঝতে পারছি না একটু পরিস্কারভাবে বল। 
অভ্রঃ সিমী আমি তোকে খুব ভালোবাসি রে। তোকে ছাড়া আমি বাচঁবোনা । মনের অজান্তেই তোকে আমি খুব ভালোবেসে ফেলেছি। আমি তোকে এতদিন বলিনি কারন তুই যদি আমাকে ছেড়ে চলে যাস। কিন্তু মনের মাঝে যখন তোকে হারানোর ভয়টা তীব্র হয়ে ওঠলো তখন আমি আর চাইলেও নিজেকে আটকে রাখতে পারলাম না। তাই তোকে আমি সব বলপ দিলাম। 

সিমীঃ ঠাসসসসসসসস আমি তো ভাবতেও পারিনি তুই এমনটা করবি। তোকে আমি খুব ভালে ভেবেছিলাম কিন্তু না তুইও একটা লুচ্চা। তোর সাথে আমি কি একটু মিশলাম আর তুই এইটাকে ভালেবাসা মনে করলি। আসলে তোরা সব ছেলেরা না একি। আমারি ভুল হয়েছিল তোকে নিজের বন্ধু বানিয়ে যা এখন আমার চোখের সামনে থেকে দূর হো। 

অভ্রঃ আমি ভাবতেই পারিনি যে সিমী এইটা করবে। আচ্ছা ভালোবাসাটাকি অপরাধ। আমি কি এমন ভুল করেছি। আমি তোকে ভালেবাসছি এইটা কি আমার ভুল। আমিতো তোর কাছে কিছু চাইনি শুধু তোর মনের কোনে একটু জায়গা চেয়েছিলাম। আমি তো তোকে নিয়ে নিজের একটা পৃথিবী তৈরি করতে চাইছিলাম। এইটা কি ভুল। 

(কান্না করতে করতে কথা গুলো বললাম)
সিমীঃ চুপচাপ..

অভ্রঃ কি হলো বল চুপ করে আছিস কেন এখন। 
সিমীঃ চুপচাপ….
অভ্রঃ তুই কি বলবি যা বলার আমি বলছি। আরে আমি তো তোকে সেই প্রথম দিন থেকেই ভালোবাসি কিন্তু কোনদিন বলিনি কারন তুই যদি খারাপ মনে করিস আমাকে। 
সিমীঃ চুপচাপ…

অভ্রঃ কিন্তু যখন তোকে হারাবার ভয় করছিল তাই নিজেকে আর আটকে রাখতে পারলাম না। আমি কত আশা নিয়ে তোকে কথাগুলো বললাম কিন্তু সেগুলো আমার আশাই থেকে গেল। 
সিমীঃ তাও চুপচাপ…. 

অভ্রঃ আসলে কিছু আশা আশাই থেকে যায় কখনো পূরণ হয়না। যানিস আমি ভাবছিলাম আজ তোকে ভালোবাসি কথাটা বলার পর তুই আমাকে জরিয়ে ধরবি আর কপালে একটা চুমু খেয়ে বলবি যে আমিও তোকে খুব ভালোবাসি অভ্র। 
কিন্তু দেখ সব কিছুই যেন উল্টো হয়ে গেল আর আমি তোর চোখে লুচ্চা হয়ে গেলাম। 

সিমীঃ দেখ অভ্র…. 
(ওকে থামিয়ে দিয়ে)

অভ্রঃ থাক তোকে আর কিছু বলতে হবে না। হয়তো তুই আমার ভালোবাসা বুঝিস নি। ওকে ভালো থাকিস আমি আজকে আর এখনি এই গ্রাম ছেড়ে চলে যাব। 
(আমি কান্না করতে করতে ছাদ থেকে নিচে চলে গেলাম)
(সিমী শুধু মাথা নিচু করে কথা গুলো শুনছিল ও যেন ওর কথা বলার ভাষাই হারায় ফেলেছে)
সিমীঃ অভ্র শুন শুন প্লিজ যাসনা…

অভ্রঃ আমি ওর কোন কথা না শুনে নিচে চলে আসলাম। 
তারপর সিমীর চাচাতো বোনের বাড়ি থেকে সিমীদের বাড়িতে চলে গেলাম আমিতো কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিনা যে সিমী আমাকে থাপ্পড় মারলো এসব ভাবতে ভাবতে সিমীদের বাড়িতে গেলাম ওখানে গিয়ে দেখি সিমীর বাবা সোফায় বসে আছে আমাকে দেখে বলল। 
আঙ্কেলঃ কি হলো বাবা তুমি এত তারাতাড়ি চলে আসলা যে আর বাকিরা কই। 
অভ্রঃ আসলে আঙ্কেল আমার আম্মুর শরীরটা খুব একটা ভালো না তাই আমাকে এখনি যেতে হবে আম্মু ফোন করছিল। 

আঙ্কেলঃ সে কী কিন্তু এখন রাতে তুমি কিভাবে যাবা। 
অভ্রঃ আপনি চিন্তা করিয়েন না আমি বাসের টিকিট কিনে নিয়েছি। 
আঙ্কেলঃ কিন্তু বাবা আজকের রাতটা থাক। কাল সকালের ট্রেনে চলে যেও। 

অভ্রঃ না আঙ্কেল আমাকে যেতেই হবে আজকে আম্মু খুবই অসুস্থ। 
আঙ্কেলঃ আচ্ছা বাবা তুমি যেইটা ভালো মনে করো আর সাবধানে যেও রাস্তাঘাট ভালো না। 
অভ্রঃ যি আঙ্কেল। তখন আর কোন কথা না বাড়িয়ে আমকে যে রুম টা দিয়েছিল থাকার জন্য সেখানে গেলাম আর নিজের সকল কিছু নিয়ে নিচে গেলাম।

তারপর আঙ্কেলের  কাছে বিদায় নিয়ে যেই বাইরে যাব তখনি সিমির সামনে পরলাম । এই আবার কখন এলো। যাই হোক আমি যখনি ওকে এরিয়ে যেতে লাগলাম তখনি সিমি পিছন থেকে আমার হাতটি ধরলো আমি কোন মতে হাতটা ছারিয়ে চলে আসলাম বাড়ির বাহিরে। তারপর একটা রিকশা করে বাস স্টান্ডে চলে গেলাম। তার কিছুক্ষণ পর একটি বাস আসলো সেটাতে করে নিজের বাসায় চলে আসলাম। তারপর কলিংবেল চাপ দিতেই আম্মু এসে দরজা খুলে দিল। আমাকে দেখে অবাক হয়ে গেল কারণ আমি কালকে গেলাম আর আজকেই আসলাম। আম্মু আমাকে দেখে বলল…

আম্মুঃ কিরে তুইতো কালকেই গেলি আর আজকেই চলে আসলি। আর তোকে দেখে মনে হচ্ছে অনেক কেঁদেছিস। কি হয়েছে বাবা তোর এই অবস্থা কেন আমাকে বল। 
অভ্রঃ না আম্মু আমার কিছু হইনি তুমি প্লিজ আমাকে এখন কোন প্রশ্ন করোনা আমাকে ভালো লাগছে না। তারপর আমি আর কিছু না বলে নিজের রুমে চলে আসলাম। অপরদিকে সিমী ভাবছে। 

সিমীঃ আমি কি করে পারলাম ওকে থাপ্পড় মারতে। ও তো ঠিকই বলছে ও আমাকে ভালোবাসে এইটা তো খারাপ কিছু না আর ও তো আমাকে জোর করেনি ভালোবাসার জন্য। নিজেকে খুব অপরাধী মনে হচ্ছে আমার। কী করে পারলাম ওকে এতোটা কষ্ট দিতে। না আমি কালই ওর কাছে ক্ষমা চাব। 
( সিমী এসব কান্না করতে করতে বলল)
আর অভ্র এদিকে ভাবছে…

অভ্রঃ আমি কি ওকে ভালোবাসি এইটা কি ভুল। না এখানেতো সিমীর কোন দোষ নেই। ওতো আমাকে শুধু নিজের ফ্রেন্ড ভাবে আর জোর করে ভালেবাসা পাওয়া যায়না। আমি না হয় ওকে নিরবেই ভালোবেসে যাব কিন্তু কোনদিন প্রকাশ করব না। 
ও ভালো থাকুক এতেই না হয় আমি আমার সুখ ও শান্তি খুজে নিব। আমি না হয় ওকে দূর থেকেই ভালোবাসব। 
( অভ্র কান্না করতে করতে এগুলো বলল)

ওদিকে অভ্রর আম্মু তার ছেলের এরুপ আচরণের কারণে খুবই চিন্তিত। তার ছেলের এমন পরিবর্তনেে তিনি খুবই হতাশ। 
ওদিকে সিমী চিন্তিত যে সে কিভাবে অভ্রর কাছে ক্ষমা চাবে। অভ্র আদও আমাকে ক্ষমা করবে এসবের পর। 
এসব এসব ভাবতে ভাবতে দুজনেই ঘুমিয়ে পড়ল। 
কাল সকালে……….

অভ্রঃ আম্মু আমি কলেজ যাচ্ছি। 
আম্মুঃ কেন কিছু খেয়ে যা আর আজকে এত দেরি করে উঠলি কেন। আমাকে বল না বাবা কি হয়েছে তোর আমাকে বল। 
অভ্রঃ না আম্মু কিছু হয়নি আর আমার খাওয়ার কোন ইচ্ছা নেই। আমি কলেজে গিয়ে দেখি সিমীও কলেজে আসছে আমাকে দেখে আমার কাছে দৌড়ে আসলো। তারপর ও যা করল…

পর্ব – ৮

আমি কলেজে গিয়ে দেখি সিমীও কলেজে আসছে আমাকে দেখে আমার কাছে দৌড়ে আসলো। তারপর ও যা করল…
সিমীঃ অভ্র প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দে আমি সত্যি কিছুই বুঝতে পারি না । আমি আসলে আমার মাথা তখন ঠিক ছিল না তাই তোকে আমি মারছিলাম। প্লিজ আমাকে তুই ক্ষমা করে দে। 

অভ্রঃ তুই আর কিছু বলবি। আমার ক্লাসের দেরি হচ্ছে। কিছু বকার থাকলে তারাতাড়ি বল। 
সিমীঃ অভ্র আমার কথাটা শুন আমি সত্যি দুখিঃ ত কালকের জন্য আসলে আমি ভাবিনি যপ এত কিছু হয়ে যাবে। 
অভ্রঃ না তুই কিছু করিস নি সব ভুল আমার। আমার বুঝা উচিত ছিল যে জোর করে ভালেবাসা পাওয়া যায়না। কিন্তু কি করব বেহায়া মন বার বার খালি ওই কথাটি মনে করিয়ে দেয়। কি করব বল এই ভালোবাসাটা শুধু একতরফা যাই হোক আমি ক্লাসে যাব তুই যদি চাস তাহলে আমার সাথে যেতে পারিস। 

আমি যখন দেখলাম ও কিছু বলছে না তখন আমি চলে আসলাম ওখানে থেকে কারণ ওখানে যদি থাকতাম তাহলে নিজের চোখের পানি আটকে রাখতে পারতাম না। আমি চলে আসলাম ক্লাসে আর সিমী ওখানে দারিয়ে কান্না করছিল। আর ভাবছিল যে যেই অভ্র আমার সাথে সয়তানি না করে ক্লাসে যেতো না যেই অভ্র আমাকে ছাড়া কলেজে ঢুকতো না।

যেই অভ্র আমাকে ফোন না দিয়ে থাকতে পারতো না আর সেই অভ্র এক রাতে এতো বদলে গেছে ভাবতেও খুব অবাক লাগছে। তাহলে কি আমি অভ্রকে হারালাম। এসব ভাবতে ভাবতে সিমীও ক্লাসে আসল আর ওর বান্ধবীদের সাথে বসে পরলো। আর আমি একা একটা সিটে বসে আছি তখনি প্রিন্সিপাল সার রুমে আসলো আর বলল

সারঃ কেমন আছো তেমরা সবাই। 
সবাইঃ ভালো আছি সার আপনি। 
সারঃ আমিও ভালো আছি আর তোমাদের ক্লাসে নতুন একজন স্টুডেন্ট এসেছে। যার সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য আমি এসেছি । নেহা এদিকে এসো। 
(তারপর বাহির থেকে একটা মেয়ে এলো)

এ হলো নেহা আর ও আজকে থেকে তোমাদের সাথেই পরবে। তারপর সার চলে গেলেন। মেয়েটি এদিক সেদিক বসার জন্য জায়গা খুজছিল তারপর দেখল যে আমার পাশের সিটটা খালি আছে তাই আমার পাশে এসে বসে পরলো। তারপর ক্লাসে সার আসলো আর ক্লাস নিতে শুরু করলো এরই ফাকে সিমী আমার দিকে দু তিনবার তাকিয়েছিল আমি দেখে না দেখার ভান করে ছিলাম। ক্লাস শেষ করে সার চলে গেলেন। তারপর আমার পাশের মেয়েটি বললো। 
মেয়েটিঃ হাই আমি নেহা আর আপনি। (আমার দিকে বন্ধুত্বের হাত বারিয়ে দিয়ে)

অভ্রঃ হাই আমি অভ্র। 
(মেয়েটির সাথে হাত মিলিয়ে)
নেহাঃ আমরা কি বন্ধু হতে পারি। 
অভ্রঃ এই কথাটা শুনে কপন জানি বুকের বাম পাশটা মোচর দিয়ে উঠল। ঠিক এই কথাটি আমিও একদিন সিমীকে বলেছিলাম। 

নেহাঃ আপনি মনে হচ্ছে খুব চিন্তিত। কোন প্রবলেম। 
অভ্রঃ কই না তো। 
নেহাঃ না মনে হলো তাই বললাম। আচ্ছা বাদ দিন কেমন আছেন বলুন। 

অভ্রঃ জি ভালো আপনি। 
নেহাঃ হুমম ভালোই আছি। 
অভ্রঃ আপনাকে দেখপতো এই শহরের মনে হচ্ছে না । 
নেহাঃ না আমি এখানে থাকি না। কিছুদিন হলো এখানে এসেছি। 

অভ্রঃ ওওও আচ্ছা। 
নেহাঃ হুমম আচ্ছা চলুন না কেন্টিনে যাই কিছু খেয়ে আসি। 
অভ্রঃ কেন আপনি যান। 
নেহাঃ এভাবে বলছেন কেন আসলে আমিতো এখানে নতুন তাই কিছুই চিনি না। 
অভ্রঃ ওওও সরি। আচ্ছা চলুন আপনাকে আমি নিয়ে যাচ্ছি। 

( নেহা যেতে যেতে আবার বক বক শুরু করল)
নেহাঃ আচ্ছা আমি আপনাকে তুমি করে বলতে পারি। 
অভ্রঃ হুমম ওকে বলিয়েন। 
নেহাঃ ওকে ধন্যবাদ। আচ্ছা আপনার বাড়িতে কতজন আছে। 
অভ্রঃ আমি আমার বাবা… মা.. আর আমার ছোট ভাই। আর আপনার। 

নেহাঃ আমার বাড়িতে আমি আম্মু আর আব্বু থাকি। 
অভ্রঃ শুধু এই কয়েকজন কেন কোন ছোট ভাই বোন নেই….?
নেহাঃ না আমি সবার ছোট। আমার একটা বড় ভাই আছে। 

অভ্রঃ ওওও আচ্ছা। আপনার বড় ভাই কি করে। 
নেহাঃ ওওও উনি একজন পুলিশ অফিসার। 
অভ্রঃ কিইইইই। 
নেহাঃ হুম এতে অবাক হওয়ার কি আছে। 
অভ্রঃ না আসলে আমি পুলিশকে খুব ভয় করি। 

নেহাঃ হা হা হা হা হা হা হা হা হা হা। আচ্ছা ভিতরে চলুন। 
অভ্রঃ হুমম চলুন। আমি তো এতক্ষণ লক্ষই করিনি যে সিমী আমাদের ফলো করছিল। আমরা যেখানে বসলাম তার পাশের টেবিলে সিমী বসলো। 
নেহাঃ কি হলো ওইদিকে কী দেখছেন। 

অভ্রঃ না না কিছু না তুমি খাবার অর্ডার করো। 
নেহাঃ না না আপনি বলুন আপনি কি খাবেন। 
অভ্রঃ না আপনি নতুন তাই আপনি বলুন। 

( তারপর নেহা কিছু খাবার অর্ডার দিল আর পাশের টেবিলে সিমী এগুলো দেখছে আর রাগে ফুলছে আমি তো কিছুই বুঝতে পারছিনা একি এই মেয়ে তো আমার দিকেই আসছে আর যেভাবে তাকিয়ে আছে মনে হচ্ছে আমাকে গিলে খাবে)
সিমীঃ অভ্র শুন তোর সাথে আমার কিছু কথা আছে। 
অভ্রঃ না তুই যা আমি একটু পরে যাচ্ছি। 

সিমীঃ তোকে আমি যেইটা বলেছি সেইটা কর। 
(রাগী কন্ঠে কথাটা বলল)
অভ্রঃ আরে আমিতো ওর এইরকম চেহারা দেখে খুবি ভয় পেয়ে গেলাম কিন্তু তাও বললাম সিমী বললাম তো তুইযা আমি পরে যাব। আর এদিকে নেহাতো আমাদের কান্ড দেখে 

কিছুই বুঝতে পারছেনা। তারপর সিমী আমার কলার ধরে ক্যান্টিন থেকে নিয়ে মাঠের এক কোণে নিয়ে গেল আর এদিকে কলেজের সবাই আমাদের দিকে হা করে তাকিয়ে আছে। তারপর সিমী বলল। 
সিমীঃ ওখানে ওগুলো কি হচ্ছিল। 
অভ্রঃ কি হচ্ছিল মানে আমি আর নেহা ওখানে খাওয়া করতেছিলাম। 
সিমীঃ তুই ওই মেয়ের সাথে কেন খেতে যাবি । 

অভ্রঃ সেটাকি আমি তোকে বকব নাকি। আর তুই কোন অধিকারে এগুলো বলছিস। 
সিমীঃ কাল আমাকে প্রপোজ করলি আর আজকে অন্য মেয়ের সাথে টাংকি মারিস। 
অভ্রঃ আমি ওগুলো কিছুই করিনি আর তুই তো আমাকে ভালোই বাসিস না তাহলে তোর লাগবে কেন।

যদি তুই আমাকে ভালোবাসতি তাহলে তোর কষ্ট হওয়ার কথা ছিল। আর 
পরবর্তীতে এগুলো কথা না বললে আমি খুশি হবো। 
সিমীঃ অভ্র তুই এক রাতের মধ্যে এতোটা বদলে গেলি কিভাবে। 
অভ্রঃ সময় ও পরিস্থিতি মানুষকে চেঞ্জ হতে বাধ্য করে। 

সিমীঃ দেখ আমি বলে দিচ্ছি তুই ওই মেয়ের সাথে একদম মিশবি না। 
অভ্রঃ কেন মিশবনা নেহা খুব ভালে একটা মেয়ে এসব বলে আমি চলে আসলাম। আর সিমি কান্না করতে থাকলো আমি মনে মনে বলছিলাম ঢ়ে দেখ এখন প্রিয়জনের অবহেলা কেমন লাগে। তারপর আমি কলেজ থেকে সজা বাসায় গেলাম। বসায় যাওয়ার পর….

আম্মুঃ অভ্র এদিকে শুন। 
অভ্রঃ জি আম্মু বলো। 
আম্মুঃ আমি কাল থেকে দেখছি তোর কিছ একটা হয়েছে। এখন সত্যি সত্যি বল কি হয়েছে। 
অভ্রঃ আরে না কিছু হয়নি। 

আম্মুঃ আমি বুঝতে পেরেছি তোর সিমীর সাথে কিছু হয়েছে তাই না। 
অভ্রঃ আরে বলছি তো কিছু হয়নাই তাও তুমি একি প্রশ্ন করছো কেন। 
আম্মুঃ শুন তুই আমার ছেলে তাই তোকে আমি ছাড়া আর কেউ ভালো বুঝতে পারবে না । আমি ভালো করেই জানি যে তোর কিছু একটা হয়েছে আচ্ছা এখন যাও আর ফ্রেশ হয়ে নিচে আসো আমি খাবার দিচ্ছিি। 

অভ্রঃ ওকে যাচ্ছি । তারপর আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। ফ্রেশ হয়ে নিচে চলে গেলাম খাওয়ার জন্য। কিছু খেয়ে আবার নিজের রুমে চলে আসলাম। আর ভাবতে লাগলাম আজকে কলেজের ঘটনাটি সিমী কেন আমার সাথে এমন করল তবে কি ও আমাকে ভালোবেসে ফেলেছে।

এসব ভাবতে ভাবতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম নিজেও জানি না। বিকালে ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে নিলাম তারপর বাইকটা নিয়ে চলে গেলাম বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়ার জন্য। ওখানে গিয়ে জীবন বলল। 
জীবনঃ কি রে দোস্ত গার্লফ্রেন্ড পেয়ে এখন দোস্তকে ভুলে গেছিস। 
অভ্রঃ হা হা হা হা। 

জীবনঃ হাসছিস কেন আমি কি কোন জোক্স বললাম নাকি। 
অভ্রঃ তারপরে আমি ওকে ওইদিনের সব ঘটনা খুলে বললাম। 
জীবনঃ কি বলিস দোস্ত আমার মনে হচ্ছে তোর কথাও ভুল হচ্ছে। আনার মনে হয় সিমীও তোকে ভালোবাসে। 

অভ্রঃ তারপর আমি ওকে আজকের ঘটনাটা বললাম। 
জীবনঃ আরে দোস্ত তুইতো প্রমান পায় গেলি। 
অভ্রঃ কোন প্রমান। 
অভ্রঃ আরে সিমী তোকে অন্য মেয়ের সাথে দেখতে পারেনা কেন জানিস। 

অভ্রঃ কেন….?
জীবনঃ ওরে পাগল কারন ও তোকে ভালোবাসে এই জন্য। এখন চল ট্রিট দিবি। 
অভ্রঃ আরে হেতো তুই কি সত্যি বলছিস। 
জীবনঃ হুমমম। 

অভ্রঃ না এখন না যখন আমাদের রিলেশন শুরু হবে তখন ট্রিট দিব। তারপর আমি বাসায় চলে আসলাম। তারপর ভাবতে লাগলাম তাহলে সিমী কি সত্যি আমাকেই ভালোবাসে। 
এভাবে ১৫ দিন কেটে গেল আমি সিমীর সাথে প্রয়োজন ছাড়া কিছু বলিনা। একদিন রাতে সিমী তার ডায়েরিতে আমার কথা লিখছিল আর কান্না করছিল। 

সিমীঃ অভ্র তুই কেন এমন করছিস আমার সাথে। জানিস আমি কতটা কষ্টে থাকি। তুই কেন নেহার সাথে মিশিশ। তুই কি বুঝিস না যে আমি তোকে অন্য কারো সাথে সহ্য করতে পারি না। জানিস তোর কথা মনে করে প্রতি রাতে আমি কাদি। জানিস অভ্র এখন তোর মতো করে কেউ আমাকে বলে না যে সিমী খাওয়া করছিস। তোর মতো করে আমকে কেউ শাসন করে না না আমি বুঝে গেছি তোকে ছাড়া আমি অসম্পূর্ন। কান্না করতে করতে সিমী বালিশ কান্নায় ভাসিয়ে দিয়েছে। এভাবে কাটছিল দিনগুলো একদিন সিমীর বাবা আমাকে ফোন দিয়ে যা বলল…….

চলবে…

পর্ব – ৯

এভাবে কাটছিল দিনগুলো একদিন সিমীর বাবা আমাকে ফোন দিয়ে যা বলল…. 
আঙ্কেলঃ অভ্র তুমি কোথায় বাবা…?

অভ্রঃ কেন আঙ্কেল আমি তো বাসায়। আর হঠাৎ ফোন দিলেন যে কোন প্রবলেম। 
আঙ্কেলঃ বাব তুমি তারাতাড়ি সিটি হাসপাতালে আসো। সিমি সুসাইট করছে। 
(আঙ্কেল কান্না করতে করতে কথাটা বলল)
অভ্রঃ এই কথাটা শুনার পর যেন আমার পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে গেল। আমার অজান্তেই চোখ দিয়ে পানির বন্যাা বয়ে যেতে লাগলো আমি কোন মতে নিজেকে সামলে নিয়ে 
আঙ্কেল কে বললাম। আঙ্কেল প্লিজ কান্না করিয়েন না আমি এখুনি যাচ্ছি। আপনি কোন চিন্তা করিয়েন না সব ঠিক হয়ে যাবে। 

তারপর আমি নিচে গেলাম আম্মুকে সব খুলে বললাম তার কিছুক্ষণ পর আমি আর আম্মু হাসপাতালে গেলাম। গিয়ে দেখি আঙ্কেল আর আন্টি অপারেশন থিয়েটারের বাইরে দারিয়ে অঝোরে চোখের পানি ফেলছে। আমি তাদের এই অবস্থা দেখে নিজের চোখের পানি আটকে রাখতে পারলাম না। আমি আঙ্কেলের কাছে গিয়ে বললাম। আঙ্কেল সিমী এখন কেমন আছে। 

আঙ্কেলঃ জানি না বাবা ডাক্তার সাহেব নিয়ে গেছেন অপারেশন থিয়েটারে। মেয়েটা যে কেন এমন করলো। কিছুদিন ধরে খাওয়া দাওয়া সব ছেড়ে দিয়েছিল সবসময় ঘরে বসে কান্না করতো। তারপর আজকে আমি যখন ওর রুমে গেলাম তখন দেখি যে ও সুসাইট করছে আর হাতে এই চিঠিটা ছিল। 
(আঙ্কেল কান্না করতে করতে কথা গুলো বলল)
অভ্রঃ কোন চিঠি আঙ্কেল। তারপর আমি আঙ্কেলের কাছ থেকে চিঠিটা নিয়ে পরতে লাগলাম। চিঠিটা ছিল এমন…….

প্রিয় অভ্র,
আশা করি তুই ভালো আছিস। 
আর আমি যানি তোর ভালো না থাকার কারণ গুলোর মধ্যে আমি একজন। আর আমি জানি তুই নেহাকে পছন্দ করিস আর সাথেই তুই ভালো ও সুখে থাকিস। 
জানিস অভ্র তোকে আমি যখন ওই নেহার সাথে দেখতাম না আমার খুব খারাপ লাগতো। 
তখন আমার খুব ইচ্ছে হতো তোকে গিয়ে জরিয়ে ধরতে আর বলতে অভ্র আমি তোকে খুব খুব ভালোবাসি। কিন্তু আমি পারতাম না কারণ তুইতো ওর সাথেই হাসি খুসি থাকতিস। 
জানিস আমার ভালো থাকার কারণ গুলের মধ্যে তুই একটি কারণ। 
তোকে ছাড়া যে আমার প্রত্যেকটা মুহূর্ত এক একটি বছর মনে হতো। 
তোকে ছাড়া কিছুই ভালো লাগতো না আমার খুব কষ্ট হচ্ছিল আমার। কিন্তু আমি চাইলেও তোকে গিয়ে বলতে পারিনি। কারণ তুইতো ওর সাথেই ভালো আছিস। আমার কারণে তোর ভালো লাগা নষ্ট হোক এইটা আমি চাই না। 
তাই এই জীবন রেখে কী লাভ যেখানে বেচেঁ থাকার জন্য কোন উদ্দেশ্য নেই। 
তুই তো আমার সব ছিলি আর যখন তুই আমার জীবন থেকে সরে গেলি তাহলে আমার আর বেচে থেকে কী হবে। তাই তুই আর নেহা ভালো থাকিস। 
ইতি
তোরই বন্ধু
সিমী। 

চিঠিটা পড়ার পর আমার চোখ দিয়ে অঝরে পানি পরতে লাগলো। এ আমি কি করলাম আমি কিভাবে পারলাম ওকে এতটা কষ্ট দিতে। আমি যেনে শুনে এইরকম ভুল কিভাবে করলাম। না আমি খুব করেছি ওর সাথে এসব ভাবছিলাম আর তখনি ডাক্তার অপারেশন থিয়েটারে থেকে বের হচ্ছেন। আমি দৌড়ে গেলাম ডাক্তারের কাছে তারপর ডাক্তার বলল। 

ডাক্তারঃ আপনারা চিন্তা করিয়েন না উনি এখন সুস্থ আছে। আপনারা ওনাকে ঠিক সময় হাসপাতালে নিয়ে আসছেন বলে এবারের যাত্রায় উনি বেচেঁ গেছেন আার উনার খেয়াল রাখবেন। 

অভ্রঃ জি ডাক্তার। আর আমরা কি ওনার সাথে দেখা করতে পারি। 
ডাক্তারঃ না এখন না উনাকে আমরা ঘুমের ইনজেকশন দিছি তাই জ্ঞান ফিরলে আপনারা দেখা করতে পারেন। 

অভ্রঃ ওকে ডাক্তার। তারপর আমরা সবাই সিমীর জ্ঞান ফেরার জন্য অপেক্ষা করছিলাম অবশেষে তার জ্ঞান ফিরলো। একে একে সবাই তার সাথে দেখা করার জন্য ভিতরে গেল 
কিন্তু আমি এখনো যাইনি আর কেনই বা যাব তার এই অবস্থার জন্য আমি দায়ী। আমি এসব ভাবছিলাম আর কান্না করছিলাম তখনি সিমীর বাবা এসে বললো যে সিমী আমাকে ডাকছে তারপর আমি ভিতরে গেলাম। তারপর সিমী সবাইকে বাহিরে যেতে বলল। 
সিমীঃ অভ্র তুই এসেছিস । আমার কাছে আয়

(তারপর আমি ওর কাছে গেলাম)
অভ্রঃ সিমী তুই এগুলো কেন করিস তুই কও একটি বার আমার কথা ভাবলি না যে আমার কি হবে। তুই জানিস আমি এতক্ষণ কিভাবে ছিলাম। তুই খুব খারাপ। আমি কান্না করতে করতে কথা গুলো বললাম। 

সিমীঃ প্লিজ অভ্র কাদিস না আমার ভুল হয়েছে। আমি আর কখনো এমন করবো না। আমি তোকে ছাড়া আর কোথায় যাবনা এই বলে সিমী আমাকে নিজের বুকে জড়িয়ে ধরলো আর কপালে একটা চুমু খেয়ে বলল আমার পাগলটাকে আমি খুব খুব ভালোবাসি। 
অভ্রঃ আমিও ওর কপালে একটা চুমু খেয়ে বললাম আমিও আমার পাগলিটাকে খুব ভালোবাসি। এই বলে আমিও ওকে বুকে জরিয়ে ধরলাম আর এভাবে যে কতক্ষণ ছিলাম জানি না। তবে মনে হচ্ছিল যেন সময়টা যদি এখানেই থেমে যেত তাহলে খুব ভালো হতো। তখনি সিমীর বাবা রুমে আসল আর হালকা একটা কাশি দিল। 

আঙ্কেলঃ এহেম এহেম এহেম… 

তারপর আমারা দুজন দেখলাম যে সবাই আমাদের দিকে একধ্যয়ানে তাকিয়ে ছিল আমরা দুজন তো তখন লজ্জায় মরে যাচ্ছিলাম। তারপর সিমীর বাবা বলতে শুরু করল। 
আঙ্কেলঃ মা তুই এখন কেমন আছিস। 
সিমীঃ জি আব্বু ভালো আছি এখন একটু। 

আঙ্কেলঃ আচ্ছা মা আর অভ্র তুমি এখন বাসায় যাও তোমার আম্মু আর তুমি অনেক্ক্ষণ হলো এসেছো। 
সিমীঃ নাাা ( সিমী কথাটা চিল্লিয়ে বলল)
সবাই তো ওর কান্ড দেখে অবাক সবাই হাসবে না কানবে বুঝতে পারছে না। তখন ওর আম্মু বলতে শুরু করলো
আন্টিঃ কেন ওরা তো অনেকক্ষণ হলে এসেছে। 

সিমীঃ না মানে তোমরা যাও অভ্র আমার সাথে এখানে থাকবে। 
তখন আমার আম্মু বলল?…
আম্মুঃ আচ্ছা সিমী অভ্র তোমার কাছে থাকবে আমরা তাহলে যাই এখন। 
সিমীঃ ওকে আন্টি। 

আমি তো কিছুই বলতে পারছিনা লজ্জায় পুরো লাল হয়ে গেছি সিমীর কান্ড দেখে সবার সামনে এসব কি বলছে ও । তার কিছুক্ষণ পর সবাই চলে গেল। শুধু আমি আর সিমী ছিলাম। তারপর আমি সিমীকে বলতে লাগলাম
অভ্রঃ কি রে তোর কি কোন কান্ড জ্ঞান নাই নাকি সনার সামনে কি কেউ এমন করে। 
সিমীঃ আমি আমার স্বামীর সাথে কি করব সেইটা কি আমাকে কারো থেকে শিখতে হবে নাকি । 

অভ্রঃ তোর সাথে আমি পারব না আচ্ছা নে এখন কিছু খেয়ে নে। 
সিমীঃ না আমি খাবো না তুই খিলায় দিবি। 
অভ্রঃ তুই কি এখন বাচ্চা হয়ে গেলি নাকি। 
সিমীঃ হুমম এখন তারাতাড়ি দেতো। 

অভ্রঃ ওকে নে হা কর। তারপর আমি ওকে খিলায় দিলাম। তখন আবার অন্য এক বায়না ধরলো। । 
সিমীঃ অভ্র তুই আমার পাশে শুবি। 
অভ্রঃ তুই এগুলো কি বলিস আর আমি তোর পাশে শুতে যাব কেন। 

সিমীঃ আমি বলেছি তাই আর এখন বেশি কথা না বলে আমার পাশে এসে শুয়ে পর। 
কি আর করার ওর পাশে শুয়ে পরলাম। 
অভ্র তোকে একটা কথা বলব। 

অভ্রঃ হুমম বল। 
সিমীঃ আমি আগে তোর বুকে আমার মথাটা রাখি। 
অভ্রঃ ওকে। তারপর ও আমার বুকে মাথা রাখলো আর বলল

সিমীঃ জানিস আজকে আমি খুব খুশি। 
অভ্রঃ কেন। 
সিমীঃ কারণ আমি আজকে আমার পাগলটাকে নিজের করে পেলাম। 
অভ্রঃ ওওওহহহ তাই। 

কিছুক্ষণ কথা বলার পর আমারা দুজনেই ঘুমিয়ে পরলাম। সকালে ঘটলো আরেক ঘটনা আমরা দুজনে একে ওপরকে জরিয়ে ধরে ঘুমিয়েছিলাম আর সবাই কেবিনে এসে এইটা দেখে হাসছিল আমরা নিজেরা নিজেকে ছেরে দিলাম। 
আম্মুঃ সিমী তুমি এখন কেমন আছো। 
সিমীঃ জি আন্টি ভালো আছি। 

আম্মুঃ হুমম আচ্ছা। আর শুনো অভ্র তুমি এখন বাসায় যাও আর ফ্রেশ হয়ে পরে এসো কেমন। 
অভ্রঃ জি আম্মু যাচ্ছি। 
সিমীঃ ওকে তারাতাড়ি আসিও। 

তারপর আমি বাসায় চলে আসলাম ফ্রেশ হশে খেতে বসলাম তখনি মায়ের ফোন তারপর আম্মু বললো যে
আম্মুঃ অভ্র তুই তারাতাড়ি হাসপাতালে আয় । 
অভ্রঃ কেন আম্মু?

আম্মুঃ সিমী তোকে ছাড়া নাকি খাওয়া করবে না। 
অভ্রঃ উফফফ ওকে থামো আমি যাচ্ছি। 
আম্মুঃ ওকে তারাতাড়ি আয়। 
অভ্রঃ জি আম্মু। 

তারপর হাসপাতালে হেলাম গিয়ে দেখি সিমী মুখ ফুলিয়ে বসে আছে আমি ওর কাছে গিয়ে বললাম। 
সিমী এগুলো কি তুই না খেয়ে আছিস কেন। 
সিমীঃ আমি তোর হাতে খাব তাই। 

অভ্রঃ কেন তুই কি নিজে খেতে পারিস না। 
সিমীঃ না তুই খিলায় দিবি বুঝলি। 
কি আর করার খিলায় দিলাম। 

তারপর বলল অভ্র আমার এখানে ভালো লাগছেনা আমি বাসায় যাব। 
অভ্রঃ ওকে তুই থাম আমি গিয়ে ডাক্তারের সাথে কথা বলে আসি। তারপর আমি ডাক্তারের রুমে গেলাম আর বললাম ডাক্তার আমরা কি ওকে বাসায় নিয়ে যেতে পারি। 

ডাক্তারঃ জি উনি এখন পুরোপুরি সুস্হ। 
অভ্রঃ ওকে ডাক্তার তারপর আমরা ওকে বাসায় নিয়ে গেলাম তবে ওর বাসায় না বমাদের বাসায় উনার জেদ উনি আমার বাসায় আমার সাথে সাথে থাকবেন। আমরা ওকে অনেক বুঝিয়েছি কিন্তু ও কারো কথাই শুনি নি। বাসায় আসার পর সিমী আমাকে কোথাও যেতে দেয় নাই সব সময় ওর কাছে রাখছে। 

সিমী এখন সুস্থ তাই আমি আর সিমী আজকে কলেজে গেলাম। 
আমকে কলেজে দেখে নেহা আমাকে দৌড়ে এসে জরিয়ে ধরলো আর এদিকে সিমী রাগে একদম লাল হয়ে গেছে তখন সিমী নেহার সাথে যা করলো…
পর্বটি দিতে দেরি হলো এই জন্য আমি আন্তরিক ভাবে দুখিঃ ত। 

চলবে…

পর্ব – ১০

আমকে কলেজে দেখে নেহা আমাকে দৌড়ে এসে জরিয়ে ধরলো আর এদিকে সিমী রাগে একদম লাল হয়ে গেছে তখন সিমী নেহার সাথে যা করলো……..
সিমীঃ ওই মেয়ে তুমি ওকে জরিয়ে ধরলে কেন। 

নেহাঃ আমি উনাকে জরিয়ে ধরেছি তাতে আপনার কি। 
সিমীঃ আমার কী মানে আমার অনেক কিছু। বাই দা ওয়ে ও আমার হবু বর ওকে তাই একটু দুরুত্ব রেখে চলবা। 
নেহাঃ আপনার কি মাথা খারাপ হইছে নাকি যে অভ্র তোমাকে ভালোবাসবে। তখন নেহা আমাকে বলল যে অভ্র সিমী কি এগুলো সত্যি বলছে। 
অভ্রঃ না মানে হ্যাঁ সত্যি। 

নেহাঃ কি কিন্তু কিভাবে….?
অভ্রঃ সে অনেক কাহিনী তোমাকে পরে বলব। এসব কথা শুনার পর নেহার মুখটি মলিন হয়ে গেল। আমি আর সিমী কিছু না বলে হাটা শুরু করলাম ক্লাসের দিকে। তখন আমি সিমীকে বললাম যে আমি আবার তোর কখন বর হলাম আর আমাদের বিয়ে ঠিক হলো কখন। 

সিমীঃ হয়নি তবে হবে কিছুদিন পর হবে বুঝলি হাঁদারাম। 
অভ্রঃ হুমম বুঝছি। 
সিমীঃ হুমম গুড এইটাই তোর জন্য ভালো হবে। 

অভ্রঃ এখনি আমার সাথে যেমন করিস আর বিয়ের পর তো মনে হয় আমাকে জালায় মারবি। 
(কথাটা আমি আস্তে আস্তে বললাম)
সিমীঃ ওই কুওা কী বললি আবার বল আমি শুনতে পাই নাই। 
অভ্রঃ তোকে আর শুনতে হবে না। 

তারপর আমরা আর কিছু না বলে ক্লাসে চলে আসলাম। কলেজে ছুটির পর আমি বন্ধুদের সাথ ক্যাম্পাসে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। তখনি জীবন বলে উঠলো। 
জীবনঃ আরে দোস্ত আমি যেইটা শুনলাম সেইটা কি সত্যি। 
অভ্রঃ আরে কি বলছিস। ( না বুঝার ভান করে)

জীবনঃ দেখ বেশি সাধু সাজতে হবে না। আমরা সব কিছু জেনে গেছি। 
অভ্রঃ আরে কি হইছে বলবি তো…..?
জীবনঃ আমি তোর আর সিমীর রিলেশনটার কথা বলছি। 

অভ্রঃ ওওও তোকে কে বললো?
জীবনঃ সেইটা তোর না জানলেও চলবে এখন বল কি ট্রিট দিবি। 
অভ্রঃ আমার কাছে কোন টাকা নেই। 

জীবনঃ তুই রিলেশন করবি আর ট্রিট দিবি না এইটা কি ঠিক বলতো। 
অভ্রঃ আরে আমি কোন রিলেশন করি না তাহলে ট্রিট দিব কেন। 

জীবনঃ তুই কি সত্যি বলছিস যে তুই রিলেশন করিস না। 
অভ্রঃ হুমমম সত্যি বলছি। 

জীবনঃ আজকে তোর কপালে দুঃখ আছে ভাই। 
অভ্রঃ কি যাতা বলছিস। 
জীবনঃ আমি সত্যি বলছি কিছুক্ষণ পর বুঝতে পারবি। 

অভ্রঃ তুই আর ভালে হবি না। 
জীবনঃ আমকে ভালো হতে হবে না। তুই ভালো থাকিস আর বেঁচে থাকলে আবার দেখা হবে। 

অভ্রঃ আরে জীবন এগুলো কি বলছিল পাগল হয়ে গেল নাকি। 
আমি যেই পিছনে ঘুরে হাটতে শুরু করবো তখনি আমি বড় ধরনের একটা শক খেলাম আমি দেখলাম যে সিমী আমার পিছনে দাড়িয়ে ছিল।

আর ওকে দেখে মনে হচ্ছে খুব রেগে আছে। কিন্তু কেন আমিতো এখন কিছুই বলিনি। ওওও আমার এখন মনে পড়লো জীবন কেন তখন ওই কথাটি বলছিল। সালা তোকে আমি দেখে নিব। তবে কি সিমী আমার সব 
কথা শুনে ফেলেছে। আমি ওকে বললাম তুই এখানে। 

সিমীঃ কেন অন্য কেউ আসবে নাকি। 
অভ্রঃ না না কি বলিস আমিতো এমনি বললাম। 
সিমীঃ তুই জীবনকে কী বললি….?

অভ্রঃ কই না তো আমিতো কাউকে কিছু বলিনি। 
সিমীঃ তাহলে কি আমি ভুল শুনলাম। 
অভ্রঃ আসলে ওরা তখন ট্রিট চাচ্ছিল তাই আমি তখন ওই কথাটি বলছিলাম এতটুকুই। 

সিমীঃ চল আমার সাথে আজকে তোর একদিন কি আমার একদিন। 
অভ্রঃ কেন তুই কি করবি আমার সাথে। 
সিমীঃ সেইটা না হয় বাসায় যায় দেখতে পাবি। 
তারপর সিমী আমাকে নিয়ে বাসায় চলে আসলো। বাসায় আসার পর আমি এক দৌড় দিলাম নিজের রুমের দিকে। তারপর আমি যেই দরজাটা লাগাতে যাব তখনি সিমি আমার রুমে ঢুকলো আর বলল। 

সিমীঃ তুই যদি রিলেশন না করিস তাহলে আমি কে বল.? আর তখন তুই কি বললি আমি শুধু তোর বন্ধু তাই না। সিমী এসব বলছিল আর আমার দিকে এগোতে লাগল আমারতো গলার পানি শুকিয়ে যাচ্ছে কি করব আমি এখন সিমী এখন আমার কাছে চলে এসেছে। ওর নিশ্বাসের শব্দ আমি শুনতে পাচ্ছি তখনি আমি বললাম। 
অভ্রঃ সিমী এগুলো কি করছিস ছার আমাকে। আর সর আমি ফ্রেশ হবো। 

সিমীঃ তোকে আজ আমি আর ছার ছিনা তুই অনেক পালিয়ে বেরিয়েছিস আমার কাছ থেকে কিন্তু আর না আজকের পর থেকে তুই আমাকে ছাড়া কোথাও যাবি না। 

তারপর সিমী আমাকে কিছু বলতে দিলনা ওর ঠোঁটের সাথে আমার ঠোটঁ এক করে দিল আমরা দুজনে ডুবে গেলাম ভালোবাসার এক অনন্য সাগরে । প্রায় ১০ মিনিট পর ও আমাকে ছেড়ে দিল আমি তো এখনো নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিনা যে কি হলো। কিন্তু মহূর্ত টা ছিল অসাধারণ। তারপর আমি চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম খাওয়ার জন্য। তখন আম্মু বললো
আম্মুঃ অভ্র আজকে তুই সিমী কে ওর বারিতে গিয়ে দিয়ে আসবি বুঝলি। 

সিমীঃ তুমি ওইটা ওকে গিয়ে বলো আমি বলতে পারবনা । 
আম্মুঃ তোর দারায় কিছু হবেনা আমাকেই সব কিছু করতে হবে। আর হে আমিও যাব তের সাথে। 

অভ্রঃ কেন তুমি যাবা কেন…..?
আম্মুঃ তোর আর সিমির বিয়ের কথাটা বলতে। 
অভ্রঃ এত তারাতাড়ি কেন আমি তো এখন কোন চাকরি করি না। 
আম্মুঃ আমি তো শুধু কথা বলব। 
অভ্রঃ ওকে তুমি যেইটা ভালো মনে করো। 

আম্মুঃ হুমমম সিমী কই ওকে তো দেখছিনা। 
অভ্রঃ ওইতো সিমী আসছে। তারপর আম্মু সিমীকে সব বলব সিমীতো খুশিতে লাফাচ্ছিল। তারপর আমরা খাওয়া করে গেলাম সিমীর৷ বাসায়। আমদের দেখে সিমীর আব্বু আর আম্মু খুবি খুশি হয়েছেন। 
তারপর আমার আম্মু বলল। 

আম্মুঃ আপনারা কেমন আছেন। সিমীর আব্বু আর আম্মু একসাথে বলল ভালো আছি। তারা আমাকে একসাথে বসতে দিল সিমী আমার পাশে বসেছে। তখনি সিমীর আব্বু বলল
আঙ্কেলঃ হঠাৎ কোন ফোন ছারাই চলে আসলেন একটা ফোনও দিতে পারতেন। 
আম্মুঃ আসলে প্রয়োজন টাই ছিল এমন তাই বলা হয়নি। 

আঙ্কেলঃ ওও কি এমন কথা। 
আম্মুঃ আসলে আমি সিমী আর অভ্রর বিয়ের কথাটা বলতে এসেছি এখানে আপনাদের মতামত তো প্রয়োজন তাই না। 
আঙ্কেলঃ আমরা আর কি বলব যখন দুজন দুজনকে ভালোবাসে। আমরাও ঠিক একই কথাই ভাবছিলাম। 
আম্মুঃ যাক তাহলে তো ভালই হলো। 

আঙ্কেলঃ হুমম তো আপনারা কখন বিয়েটা করাতে চাচ্ছেন। 
তখনি আমি বললাম। 

অভ্রঃ আসলে আঙ্কেল আমরা তো এখন পড়ালেখা করি আর আমার তো কোন চাকরি বাকরি নাই তাই আমি যখন কিছু করব তখন না হয় বিয়েটা হবে। 
এই কথাটা বলার সাথে সাথে সিমী পাশে থাকা ফুলদানিটা মাটিতে ফেলে দিয়ে ভেঙে দিল। আর বলল। 

সিমীঃ না ওগুলো চলবে না বিয়ে এই মাসে এই সপ্তাহে হবে। 
আঙ্কেলঃ কিন্তু মা অভ্রতো ঠিকি বলছে। 
সিমীঃ না কোন ঠিক নেই আমি যেইটা বলেছি সেইটাই হবে। 
আঙ্কেলঃ আচ্ছা তোর কথাই হবে। 

তারপর আর কি সিমীর জেদের কাছে সকলকে হার মানতে হলো আর এই সপ্তাহে সিমী আর আমার বিয়ে আর সেইটা ৩ দিন পর। আজকে অনেক রাত হয়েছে তাই বাসায় যেতে পারলাম সিমীদের বাসায় থাকতে হলো। রাত ১১ টা কি ১২ টা হবে তখন সিমী আমাকে জানলা দিয়ে ডাক দিচ্ছে। 
সিমীঃ ওই কুওা ওঠ আর কত ঘুমাবি ( আস্তে আস্তে বলল)

অভ্রঃ উফফফফ কে…..। 
সিমীঃ আমি তারাতারি বের হো রুম থেকে। 
অভ্রঃ উফফ তুই এত রাতে কেন। 
সিমীঃ তুই বের হবি না আমি তোর রুমে যাব বল 
অভ্রঃ না না তুই দারা আমি যাচ্ছি। 

সিমীঃ হুমম তারাতাড়ি কর। তারপর আমি বাহিরে গেলাম আর বললাম। 
অভ্রঃ কি রে এত রাতে কেন। আর কি বলবি বল। 
সিমীঃ চল ছাদে যাব। 
অভ্রঃ তোর কি মাথা ঠিক আছে এত রাতে ভূত ছাদে ঘুরে আর তুই বলছিস আমি এখন ছাদে যাব। 

সিমীঃ তুই যাবি না আমি জোর করে নিয়ে যাব বল। 
অভ্রঃ ওকে চল কি আর করব। 
সিমীঃ হুমম চল। 
( তারপর আমি আর সিমী ছাদে গেলাম)

অভ্রঃ আচ্ছা এখন বল কি বলবি। 
সিমীঃ -জানিস আজকে না আমি খুব খুশি কারণ তোকে কিছুদিন পর নিজের করে পাব। তোর ওপর থাকবে শুধু আমার অধিকার। 
অভ্রঃ হুমম জানি আচ্ছা দেখ না আজকের চাঁদ টা খুব সুন্দর। 
সিমীঃ হুমম ঠিক বলছিস। 

অভ্রঃ হুমম শুধু এইটা বললে তো হবে না। 
সিমীঃ তো কি বলব বল। 
অভ্রঃ কেন কালকে যে দিলি ওইটা দে। 

সিমীঃ যা দুষ্ট আমার তো লজ্জা করে। 
অভ্রঃ ওরে আমার লজ্জাবতী দারা। আমি কথা বলতে তার দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। আমি একদম ওর কাছে দুজনেরি নিশ্বাস ভারি হয়ে গেছে।

দুজনেরি ঠোঁট কাপছে। তারপর ওর ঠোঁট আর আমার ঠোঁট এক করে দিলাম। এভাবে অনেক্ষন ছিলাম। তারপর ছেড়ে দিলাম। 
সিমীঃ ওই কুওা একটু হলেই তো মরে যেতাম। 

অভ্রঃ না তোকে ফির আমি মারতে পারি বল। 
সিমীঃ হুমমমমম আমার সোনা। 
তারপর আমরা একসাথে অনেকটা সময় ছাদে কাটালাম। তারপর নিজ নিজ রুমে গিয়ে ঘুমিয়ে পরলাম। 

কাল সকালে……

আম্মুঃ অভ্র ওঠ বাসায় যেতে হবে তো। 
অভ্রঃ কি হয়েছে আম্মু এত সকালে ডাকছ কেন। 
আম্মুঃ কি বললি সকাল ১০ টা বাজে আর তুই বলছিস যে ডাকছি কেন। আর ৩ দিন পর তোর বিয়ে তাই অনেক কাজ আছে এখন চল। 

অভ্রঃ ওকে দারাও আমি ফ্রেশ হয়ে আসি। আমি ফ্রেশ হয়ে সিমীর আব্বু আর আম্মুর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে যেতে লাগলাম। তাখন কোথা থেকে যেন সিমী দৌড়ে আমার কাছে আসলো আর তারপর যা করল….. 
ছোট হলে ক্ষমা করবেন। কিছু সমস্যা থাকার কারনে বেশি লিখতে পারলাম না পরের পর্বটি বড় করে দিব ইনশাআল্লাহ। 

চলবে…

পর্ব – ১১

আমি ফ্রেশ হয়ে সিমীর আব্বু আর আম্মুর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে যেতে লাগলাম। তাখন কোথা থেকে যেন সিমী দৌড়ে আমার কাছে আসলো আর তারপর যা করল…

সিমীঃ অভ্র তোকে কি যেতেই হবে। 
অভ্রঃ আরে এগুলো কি বলছিস আমি যদি না যাই তাহলে আম্মু এতগুলো কাজ করবে কিভাবে। 
সিমীঃ আচ্ছা যা। আর ফোন দিবিি ওকে। তারপরে আমরা সিমীর বাসা থেকে চলে আসলাম। উফফ বাচাঁ গেল সিমী এমন করছে মনে হচ্ছে আমি কোথাও হারিয়ে যাব। পাগলিটা আমাকে খুব ভালোবাসে। 
বাসায় আসার আম্মু বলল। 

আম্মুঃ অভ্র রেডি থাকিস আমরা শপিং এ যাব কেমন। 
অভ্রঃ ওকে আম্মু। হুমম এখন নিজের রুমে যা আর রেডি হয়ে নে। 
অভ্রঃ ওকে আম্মু তারপর আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম নিজের রুমে। তরপর সিমীকে ফোন দিলাম। 
সিমীঃ হ্যালো অভ্র তুমি কি বাসায় গেছ। 

অভ্রঃ হুমমম আসলাম এখনি। 
সিমীঃ ওওও আচ্ছা তাহলে আবার কখন আসবে। তোমাকে আমি খুব মিস করছি। 
অভ্রঃ একটু অপেক্ষা কর আর ৩ দিন পর তো আমি তোমার কাছে যাবই সারাজীবন এর জন্য। 

সিমীঃ আমি আর অপেক্ষা করতে পারছিনা। আচ্ছা তোরা শপিং করতে যাবি না। 
অভ্রঃ হুমমম যাব একটু পর। 
সিমীঃ ওকে শুন তোরা যেখানে শপিং করতে যাবি আমাকে বলিস ওকে। 
অভ্রঃ কেন…?

সিমীঃ উফফ তোর এই প্রশ্ন করার অভ্যাসটা কবে যাবে। 
অভ্রঃ আচ্ছা শুন তাহলে। তারপর আমি তাকে যেখানে শপিং করতে যাব সেই জায়গার ঠিকানাটা দিয়ে দিলাম। 
সিমীঃ ওকে বাবু শপিং মলে আমার জন্য অপেক্ষা করবি বাই। উম্মাহহহহহ। 

অভ্রঃ হয় হায় এই মেয়েকে আমি জীবনে বুঝতে পারবনা। বিয়ের আগে যেইরকম করে। বিয়ের পর তো আমাকে শেষ করে দিবে। তারপর ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম আম্মুর কাছে। 
আম্মুঃ তুই এসেছিস চল এখন অনেক কাজ আছে। 
অভ্রঃ ওকে আম্মু চলো। 

আম্মুঃ হুমম চল। আমরা তখন একটা সিএনজি করে শপিং মলে গেলাম। আম্মু ভিতরে ঢুকছিল কিন্তু আমি বাহিরে দারিয়ে ছিলাম। আমাকে বাহিরে দারিয়ে থাকতে দেখে আম্মু বলল। কিরে ভিতরে চল। 

অভ্রঃ আম্মু সিমীরা বলছিল যে ওরাও নাকি এখানে শপিং করতে আসবে। আম্মু আমার কথা শুনে মুচকি মুচকি হাসছেন। 
আম্মুঃ তো ওরা কথায়….?
অভ্রঃ ওই তো আসছে। তারপর আমরা সবাই একসাথে শপিং মলে ঢুকলাম। 

আম্মুঃ অভ্র চল ওখানে যাই ওখান থেকে তোর বিয়ের শেরওয়ানি টা কিনি। 
অভ্রঃ ওকে আম্মু চল। 
আম্মুঃ ওকে চল। আর সিমী তুমি আগে তোমার বিয়ের শাড়িটা কিনে নেও তারপর না হয় বাকি শপিং গুলো একসাথে করব। 
সিমীঃ ওকে আন্টি। সিমী মন খারাপ করে চলে গেল। 

আমি একটা শেরওয়ানি নিয়ে ট্রায়াল রুমে যাচ্ছিলাম তখনি চোখ কপালে উঠে গেল এ আমি কি দেখছি সিমী তো ট্রায়াল রুমের সামনে দারিয়ে আছে। সিমী আমার কাছে আসলো আর আমার কলার ধরে দেয়ালের সাথে চেপে ধরলো আর বললো। 
সিমীঃ তুই কি মনে করছিস আমি তোকে কাছে পেয়েও ছেড়ে দিব। 

অভ্রঃ মানে আমি তো কিছু বুঝতে পারছিনা। 
সিমীঃ আমি তোর সাথে শপিং এ আসলাম কারণ তোর সাথে একটু দুষ্টুমি করব এই জন্য। 
অভ্রঃ ওই তোর কি দুষ্টুমি ছাড়া কোন কাজ নেই। 

সিমীঃ না নেই। এখন চুপ করে থাক একটাও কথা বলবি না। আমাকে আমার কাজ করতে দে। 
অভ্রঃ আরে এইটা তো……

( আমাকে আর কিছু বলতে দিলনা ওর ঠোঁটের সাথে আমার ঠোঁট এক করে দিল মনে হচ্ছে যেন দুই ঠোঁট তাদের ভালোবাসা আদান প্রদান করছে আমি ওকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিলাম)
সিমীঃ এইটা কি হলো ( একটু রেগে)
অভ্রঃ কি হইছে মানে এই পাবলিক প্লেসে কি কেউ কাউকে কিস করে এভাবে যদি কেউ এসে পরত তখন। 

সিমীঃ ওরে বাবালে আমার বরটা এত বুঝে। ( গাল টেনে)
অভ্রঃ হইছে এখন যা আমাকে যেতে হবে এখন। 
সিমীঃ ওকে যা। 

অভ্রঃ হুমম ও যাওয়ার সময় একটা মুচকি হাসি দিয়ে চলে গেল আমি তো এইটার মানে বুঝলাম না। আমি এতো না ভেবে আম্মুর কাছে গেলাম। একি সবাই আমার দিকে এমন ভাবে তাকিয়ে আছে কেন আমি কি করলাম। আমি আম্মুর কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম যে কী হইছে। 
আম্মুঃ ওরে হাঁদারাম তোর ঠোঁটে লিপস্টিক কোথা থেকে আসলো ( আম্মু হাসতে হাসতে বলল)
অভ্রঃ ইসসসসস রে আমার তো সব মানসম্মান শেষ হয়ে গেল। 

আম্মুঃ যা ওয়াশরুমে গিয়ে ধুয়ে আয়। 
অভ্রঃ ওকে। আমি তারাতাড়ি গিয়ে ঠোঁটে লাগা লিপস্টিপ গুলো ধুয়ে নিলাম। তারপর আবার আম্মুর কাছে আসলাম। 
আম্মুঃ তোর কি এই নীল শেরওয়ানিটা পছন্দ হয়েছে। 

অভ্রঃ হুমম আম্মু। তারপর আম্মু দোকানদারটিকে বলল পেক করে দিতে। তখন দেখি সিমীর শাড়ি কেনা হয়ে গেছে । 
আম্মুঃ আরে তেমাদের কি শপিং শেষ। 

সিমীঃ না আন্টি কেবলতো শাড়ি কিনলাম। 
অভ্রঃ কিইইইই এতক্ষণ ধরে কি কেউ শাড়ি কিনে. 
সিমীঃ হুমম আমি কিনি। 
অভ্রঃ ওওও আচ্ছা। 
সিমীঃ হুমম চলো এখন বাকি শপিং গুলো করে নেই
(তারপর সবার শপিং শেষে সবাই সবার বাড়িতে গেলাম)

আম্মুঃ অভ্র তোর বন্ধুূের দাওয়াত দিবি না। 
অভ্রঃ হুমম দিব তো সন্ধায় ওদের কাছে যাব। 
আম্মুঃ ওকে এখন চল কিছু খেয়ে নে। 

অভ্রঃ ওকে। আর আব্বুকে তো দেখছিনা কোথায় আব্বু। 
আম্মুঃ তোর আব্বু একটা জরুরি কাজে বাইরে গেছে। 
অভ্রঃ ওওওহহহ আচ্ছা। 

আম্মুঃ হুমমম। 
তারপর আমি আর কিছু না বলে চলে গেলাম ফ্রেশ হওয়ার জন্য। ফ্রেশ হয়ে নিচে চলে গেলাম খাওয়ার জন্য। খাওয়া শেষে…….
অভ্রঃ আম্মু আমি বাহিরে গেলাম। 

আম্মুঃ কেন কথায় যাবি। 
অভ্রঃ কেন তোমাকে তো একটু আগেই বললাম। 
আম্মুঃ ওওও হে মনে পরেছে। আচ্ছা যা আর তারাতাড়ি আসিস ওকে। 
অভ্রঃ ওকে আম্মু। তারপর আমি গেলাম জীবন আর আসরাফের কাছে। 

জীবনঃ কি রে দোস্ত কেমন আছিস। 
অভ্রঃ ভালো রে তুই। 
জীবনঃ আছি আরকি। আমদের তো ভুলেই গেছিস। 
অভ্রঃ আরে না দোস্ত আসলে একটু ব্যাস্ততায় ছিলাম। 
জীবনঃ কি এমন করছিলি। 
অভ্রঃ বিয়ের শপিং। 

জীবনঃ কার বিয়ের শপিং
অভ্রঃ কার আবার আমার বিয়ের। 

জীবনঃ কি বলিস দোস্ত। 
অভ্রঃ হুমম তোকে আসতে হবে কিন্তু আস আসরাফ কোথায়। 

জীবনঃ ও তো একটু আগেই চলে গেল। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল ওর বাসায় যাব। 

জীবনঃ ওকে চল। তারপর আমরা বাইক নিয়ে আসরাফের বাড়িতে গেলাম। কলিংবেল চাপ দিতেই আন্টি এসে দরজা খুলে দিল। 
আমি আর অভ্র একসাথে সালাম দিলাম। 
আন্টিঃ তোমরা এখন এখানে যে। 

অভ্রঃ আন্টি আসরাফ আছে। 
আন্টিঃ হুমম দারাও আমি ডেকে দিচ্ছি। 
তখন আসরাফ এলো আনি বললাম। 

অভ্রঃ দোস্ত এই কার্ডটা নে। 
আসরাফঃ এইটা কিসের কার্ড। 
অভ্রঃ আমার বিয়ের কার্ড রে। 

আসরাফঃ কিভাবে এগুলো হলো কিভাবে। 
অভ্রঃ সে না হয় পরে বলব আর আসিস কিন্তু। 
আসরাফঃ ওকে দোস্ত যাব। 

অভ্রঃ ওকে তাহলে এখন যাই। তারপর আমরা চলে হেলান জীবনকে ওর বারিতে নামিয়ে দিয়ে আমি আমার বাড়িতে চলে আসলাম। এভাবে দেখতে দেখতে বিয়ের দিন চলে আসলে আমরা আর সিমীর বিয়েটা খুব ধুমধামের সাথে হয়ে গেল বিয়ের দিন সিমীকে নীল শাড়িতে পরীর মতো লাগছিল।

এই কয়েকদিনে সিমীর সাথে একবারও কথা হয়নি। আমি ছাদে দারিয়ে আছি। তখনি ভাবি আমার কাছে আসলো

ভাবিঃ কি অভ্র তুমি এখানে দাড়িয়ে আছো কেন সিমী সেই কখন থেকে তোমার ঘরে বসে আছে। 

অভ্রঃ ওকে যাচ্ছি। 
ভাবিঃ ওকে আর বিড়ালটা মনে করে মরিও।  

অভ্রঃ ভাবি এই বিড়ালটা আবার কি। 
অভ্রঃ একটু পরেই বুঝতে পারবা৷

আমি আমার রুমের সামনে দাড়িয়ে আছি। 
ভাবি আমাকে জোর করে রুমে ঢুকিয়ে দিল। 

রুমে ঢুকার পর সিমী আমার ছুয়ে সালাম করল। আমি ওকে উঠিয়ে বললাম তোমার জায়গা আমার পয়ে না আমার বুকে। তারপর আমি ওকে আমার বুকে জরিয়ে নিলাম। আরে সিমীতো কান্না করছে। আমি বললাম কিরে তুই কান্না করছিস কেন। 

সিমীঃ তোকে আমি আমার জীবন সঙ্গী হিসেবে পেয়েছি এই জন্য। 
অভ্রঃ আরে পাগলি এতে কান্না করতে হবে। 
সিমীঃ এইটাতো খুশির কান্না। আচ্ছা আমাকে আজকে থেকে তুমি করে বলবা কারণ আমরা এখন স্বামী স্ত্রী কেমন। 
অভ্রঃ ওকে বলবো। এখন চল ঘুমাবো। 
সিমীঃ কি এখন ঘুমাবি এই বলে আমাকে মারতে লাগল। 

অভ্রঃ আরে আরে কি করেছিস আমিতো মজা করছিলাম। 
সিমীঃ চুপ কুওা আর কিছু বলবি না। এই বলে আমাকে বিছানায় ফেলে দিল। তারপর আমার উপর চরে বসলো। 
অভ্রঃ আরে আরে কি করছিস লাগছে তো। 

সিমীঃ লাগুক আজ তোকে আমি ছারবনা। আজ কোথায় পালাবি। আমি কিছু বলতে যাব এমন সময় ও ওর ঠোঁটের সাথে আমার ঠোঁট এক করে দিল। প্রায় ১০ মিনিট পর আমাকে ছেড়ে দিল। 
অভ্রঃ আর একটু হলেই তো মরে যেতাম। 
সিমীঃ অভ্র আমাী না তোর মতো একটা ছোট অভ্র চাই। এই বলে আমার বুকে মাথা লুকালো। 

অভ্রঃ ওমা তাই নাকি। তাহলে চলো ক্রিকেট টিম গঠন করার কাজ শুরু করি। 
সিমীঃ যা দুষ্টু আমার বুঝি লজ্জা করে না। 

তারপরে আর কি হয়েছিল সেটা আপনাদের না জানলেও চলবে। বিয়ে করেন তাহলে বুঝবেন। ওই দিনকার মতো ঘুমিয়ে পরলাম। 
কাল সকালে আমার ঘুম ভেঙে গেল আমি ওঠে দেখি সিমী আয়নার সামনে দাড়িয়ে চুল আচরাচ্ছে খুব মায়াবী লাগছিল তাকে। কেবলি মনে হয় গোসল করে আসলো। আমি গিয়ে ওকে পিছন থেকে জরিয়ে ধরলাম আর ঘারে একটা কিস করলাম। 

সিমীঃ কি করছো তুমি কাল রাতে কি দুষ্টুমি করে মন ভরে নি। সরো আম্মু একা কাজ করছে আমাকে যেতে হবে। 
অভ্রঃ ওকে যাও। তারপর আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম তারপর আম্মু বললো….. 

চলবে…

শেষ পর্ব

তারপর আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলাম তারপর আম্মু বললো…. 
আম্মুঃ অভ্র আজকে তুই সিমীকে ওদের বাসায় নিয়ে যাবি আর ওখানেই আজকের দিনটা থাকবি বুঝলি কি না…?
অভ্রঃ ওকে আম্মু যাব। সিমী কই…?

আম্মুঃ যা রান্না ঘরে আছে আমি কত করে বললাম তোমাকে রান্না করতে হবে না কিন্তু ও আমার কেন কথাই শুনলো না আমাকে এখানে পাঠিয়ে দিল। 
অভ্রঃ আচ্ছা তুমি দারাও আমি দেখছি। 

আম্মুঃ হুমমম যা। আমি গিয়ে দেখি সিমী কি যেন রান্না করছে আমি সজা গিয়ে ওকে জরিয়ে ধরলাম। তারপর সিমী বলল। 
সিমীঃ তুমি আবার শুরু করলা দেখছ না আমি রান্না করছি। 
অভ্রঃ কি রান্না করছ গো। 
সিমীঃ যখন খাওয়র সময় হবে তখন বললব। 

অভ্রঃ হুমম আগে একটু দুষ্টুমিতো করি তারপর না হয় যাব। 
সিমীঃ চুপ দুষ্টু খালি শয়তানি করা। 
অভ্রঃ হুমমম আর আম্মু তোমাকে আজকে তোমার বাসায় নিয়ে যেতে বলেছে। 
সিমীঃ সত্যি বলছো। 

অভ্রঃ হুমমম সত্যি। 
অভ্রঃ হুমমম তুমি খাওয়া করে রেডি থেকো কেমন। আমি ফ্রেশ হতে গেলাম। 
সিমীঃ আচ্ছা যাও। 

(তারপর আমি ফ্রেশ হওয়ার জন্য গেলাম তার কিছুক্ষণ পর সিমী ডাকতে আসলো খাওয়ার জন্য তখন আমি খেতে চলে গেলাম)
অভ্রঃ সিমী আম্মু কোথায়। 
সিমীঃ আম্মুতো আব্বুকে ডাকতে গেল এখুনি। আচ্ছা তুমি এখন খেয়ে নেও তারপর আমরা আমার বাসায় যাব কেমন। 

অভ্রঃ হুমমম ওকে তারপর আমি খেতে শুরু করলাম খাওয়ার মাঝখানে সিমী বলল। 
সিমীঃ অভ্র কেমন হয়েছে রান্নাটা….?
অভ্রঃ হুমম ভালোই হয়েছে তুমিও খেতে বসো। 
সিমীঃ না আম্মু আর আব্বু আসুক তারপর। 

অভ্রঃ আমি কিছু বলতে যাব তখনি আম্মু আব্বু আসলো আর বলল। 
আম্মুঃ মা তুমি খেয়ে নেও আমরাও খাচ্ছি। 
সিমীঃ জি আম্মু খাচ্ছি। 

( তারপর আমরা সবাই একসাথে খাওয়া করে নিলাম খাওয়া করার পর আমি আর সিমী গেলাম রেডি হওয়ার জন্য তখনি সিমী বলল)
সিমীঃ ওই আমি না শাড়ি পরতে পারি না এখন কি হবে। 
অভ্রঃ হা হা হা তুমি শাড়ি পরতে পারো না। 

সিমীঃ ওই একদম হাসবে না । ভালো হবে না বলে দিলাম। 
অভ্রঃ ওকে ওকে বাবা আসো আমি পড়িয়ে দেই। 
সিমীঃ হুমম দেও তো। 
(আমি সিমীকে শাড়ি পরিয়ে দিলাম। )

অভ্রঃ হুমম এখন দেখ কেমন লাগছে। 
সিমীঃ বাহ্হহহ তুমি তো ভালোই পারো দেখছি। 
অভ্রঃ হুম তোমার মতো নাকি এখন চলো দেরি হয়ে যাচ্ছে । 

সিমীঃ হুমম চলো যাওয়া যাক। তখন আমি আর সিমী ওদের বাসায় গেলাম ওখানে যাওয়ার পর সিমী আমাকে তার বান্ধবী ও তার বোনদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিল। আমি ওদের সাথে কথা বলছিলাম আর সিমী ওর আম্মু আব্বুর কাছে গেল আর আমি ওদের সাথে বসে আছি বর গল্প করতেছি। ওদের মধ্যে একজন বলে উঠলো। 
রিয়াঃ আপনি আমাদের দুলাভাই আমার তো বিশ্বাস হচ্ছে না। 

অভ্রঃ কেন এতে বিশ্বাস না করার কি আছে। 
রিয়াঃ কারন আপনার তো বিয়ের বয়স হয়নি। 
অভ্রঃ ওওও এই ব্যাপার। 

রিয়াঃ হুমম আপনি তো খুব হ্যান্ডসাম। 
অভ্রঃ ওওওহহ তাই নাকি। 
রিয়াঃ হুমম আপনি যদি সিঙ্গেল থাকতেন তাহলে তো আমি আপনাকে বিয়ে করে নিতাম। 
অভ্রঃ হা হা হা হা তাই নাকি

রিয়াঃ হুমম তাই। 
অভ্রঃ আপনি তাহলে চান্স মিস করছেন। 
রিয়াঃ -হা হা আপনিতো খুব মজার। 

অভ্রঃ সবাই এইটাই বলে। 
তখনি সিমি আমার কাছে আসলো আর বললো
সিমীঃ অভ্র আমার রুমে আসো কথা আছে। 

অভ্রঃ ওকে তুমি যাও আমি একটু পর যাচ্ছি। 
সিমীঃ না এখনি আসো ( রেগে গিয়ে )

অভ্রঃ আচ্ছা চলো আমি ওর পিছনে পিছনে রুমে চলে আসলাম। তারপর সিমী রুমের দরজা লাগিয়ে দিল আর আমার দিকে এগিয়ে আসতে লাগলো তারপর আমাকে এক ধাক্কায় বিছানায় ফেলে দিল আর আমার উপর চরে বসলো। আর বললো। 
সিমীঃ তুই ওই রিয়ার সাথে এতো হেসে হেসে কথা কেন বলছিল। কোই আমার সাথে তো কোনদিন এভাবে কথা বলিস নি। 
অভ্রঃ আরে আমিতো এমনি কথা বলছিলাম। 

সিমীঃ না তুই অন্য কোন মেয়ের সাথে কথা বলবি না তুই শুধু আমার বর আমার সাথেই কথা বলবি বুঝতে পারছিস। 
অভ্রঃ হুমম আমার দুষ্টু বউ। 
সিমীঃ ওই আমি দুষ্টু হুমমম। 
অভ্রঃ তো কে আমি। 
সিমীঃ হুমমম তুই। 

অভ্রঃ ওওহহ তাই তাহলে আসো একটু দুষ্টুমি করি। 
সিমীঃ এই না একদম না যাও। 
অভ্রঃ ওকে যাও। আমি মন খারাপ করার অভিনয় করে বিছানার অন্য পাশে মুখ ঘুরিয়ে শুয়ে পরলাম। 

সিমীঃ ওই অভ্র আমিতো এমনি মজা করছিলাম। 
অভ্রঃ চুপচাপ…. 

সিমীঃ এই এইদিকে ঘুরো বলছি। 
অভ্রঃ না আমি ঘুরবো না আমি রিয়ার কাছে যাব আর ওর কাছে কিস নিব ( একটু সয়তানি করে )
সিমীঃ কি বললি তুই রিয়ার কাছে যাবি হুমমম… 
অভ্রঃ হুমম ওর কাছে যাব। 

সিমীঃ দারা তোকে মজা দেখাচ্ছি। 
তারপর আমার ঠোঁটের সাথে ওর ঠোঁট চেপে ধরলো সে এক অনন্য মহূর্ত। এভাবে যে কতক্ষণ ছিলাম জানি না। তারপর আমাকে ছেড়ে দিয়ে সিমী বলল তোর এই ঠোঁটের মধ্যে 
শুধু আমার অধিকার বুঝলি এরপরও যদি ওই রিয়ার কথা বলছিস তাহলে তোর নাক ফাটিয়ে দিব বলে দিলাম
অভ্রঃ না না আমি কি ওইটা করতে পারি। 

সিমীঃ হইছে আমি জানি তুই একটা লুচ্চা মেয়ে দেখলেই খালি কথা বলা তাই না তুই এই রুমেই থাকবি রুমের বাইরে জাবি না বলে দিলাম। 
অভ্রঃ না রে আমি একা এই রুমে কি করব। 
সিমীঃ বসে থাকবি। 

অভ্রঃ প্লিজ এইটা করিস না রে। 
সিমীঃ না তোকে এইখানেই থাকতে হবে। 
অভ্রঃ না রে প্লিজ। কি আর করার আমাকে রুমে বন্দী করে চলে গেল । দুপুরে খাওয়ার সময়। 
সিমীঃ অভ্র খাবার খেয়ে নে। 

অভ্রঃ না আমি খাবনা আমার খিদে নেই। 
সিমীঃ কেন খেয়ে নে প্লিজ। 
অভ্রঃ না তুই খা যা এখান থেকে। 

সিমীঃ বুঝতে পারছি রাগ করছিস। 
অভ্রঃ না আমার ফির রাগ আছে নাকি আমি তো রোবটের মতো যেইটা বলবে সেইটাই করতে হবে। 
সিমীঃ দেখ আমি তো ভালোর জন্য বলছিলাম। 
অভ্রঃ হুমম জানি তুই যা এখন। 

সিমীঃ আমাকে পিছনে থেকে জরিয়ে ধরলো আর কান্না করা শুরু করে দিল। আমি ওকে আমার দিকে ঘুরিয়ে বললাম
অভ্রঃ আরে পাগলি কান্না করছিস কেন। 
সিমীঃ তুই আমার জন্য কষ্ট পেলি ( কান্না করতে করতে)

অভ্রঃ আরে আমি তো তোর সাথে একটু মজা করলাম তাই বলে কি তুই এইভাবে কান্না করবি। 
(ওর চোখের পানি মুছতে মুছতে কথাটা বললাম)

সিমীঃ কুওা তুই খুব খারাপ ( আমার বুকে মারতে মারতে)
অভ্রঃ আহহ্ লাগছে তো। 
সিমীঃ লাগুক সয়তান এই বলে আমাকে বিছানায় ফেলে দিল আর আমার উপর চরে বসলো। 

অভ্রঃ আরে আমি তো মরে যাব। 
সিমীঃ চুপ সয়তান। 
অভ্রঃ আচ্ছা চল খেয়ে নেই। 
সিমীঃ হুমম চল নিচে। 

অভ্রঃ হুমমম চল। 
আমারাা সবাই একসাথে খেতে বসলাম আমি খাওয়া শেষ করে রুমে চলে আসলাম। 
এভাবে একটি দিন কেটে গেল আমরা আমাদের বাসায় চলে আসলাম। 

এভাবে দুষ্টু মিষ্টি ঝগরায় আমাদের দিন গুলো কাটতে লাগলো

দীর্ঘ ৫ বছর পর……

নিশিতাঃ আব্বু দেখো না আম্মু আমাকে বকা দিচ্ছে। 
(নিশিতা হলে আমার মেয়ে)
অভ্রঃ কেন আম্মু তুমি কি করছ। 

নিশিতাঃ কিছু করিনি আব্বু। 
অভ্রঃ আচ্ছা চলো আম্মুর কাছে। 

নিশিতাঃ হুমমম চলো। 
অভ্রঃ সিমী তুমি আমার মেয়েকে কেন বকা দিছ হুমমম। 

সিমীঃ দেখ তোমার মেয়ে কি করেছে। 
অভ্রঃ তাই বলে কি ওকে বকবা। 
সিমীঃ তোমার জন্য ও এমন হচ্ছে দিন দিন। 

অভ্রঃ হুম জানি। আমি সিমীকে কোলে তুলে নিয়ে কথাটা বললাম। উল্টা সিমী আমকে বিছানায় ফেলে দিল আর নিশিতা আমাদের কান্ড দেখে হাসছে। 

সিমীঃ সয়তান একটা এই বলে আমার বুকে মাথা রাখলো। আর নিশিতাও আমর কাছে এসে আমার বুকের অন্য পাশে মাথা রাখল। এভাবে হাসি খুশি আর ভালো বাসায় তাদের 
দিন কটতে লাগল। ভালো থাকুক সকল ভালোবাসার মানুষ গুলো। 

~সমাপ্ত~ 

লেখা - সুমন 

Related posts

মিষ্টি প্রেমের গল্প – পর্ব ৬ | স্যারের সাথে প্রেম | Love Story Bangla

valobasargolpo

মিষ্টি প্রেমের গল্প – পর্ব ১১ | স্যারের সাথে প্রেম | Love Story Bangla

valobasargolpo

Leave a Comment

error: Content is protected !!