ভালোবাসার গল্প

তুমি আমার ভালোবাসা – ভালোবাসার গল্প কথা

ভালোবাসার গল্প কথা

তুমি আমার ভালোবাসা – ভালোবাসার গল্প কথা: ভালোবাসা কত বিচিত্র! যার সাথে রাগারাগি, অসহ্য বিরক্তি কাজ করে একদিন তার প্রতি অসম্ভব মায়ার টান কাজ করে। ভালোবেসে ছুটে যেতে ইচ্ছে করে তার কাছে। চলুন এরকম একটি মিষ্টি প্রেমের গল্প পড়ি।


পর্ব ১

ভার্সিটির একগাদা লোকের সামনে। কষিয়ে চর মেরেছি একটা ছেলেকে। চর মারার আগে পর্যন্ত জানতাম না। এই ছেলে কে?

এখন যখন জেনেছি তখন। ভীষণ ভয় করছে আল্লাহ মালুম। এই শয়তান ছেলে কি করে। আমার মতো মাসুম বাচ্চার সাথে। ছেলেটার চোখমুখ লাল হয়ে গিয়েছে। যেন চোখ দিয়ে ধ্বংশ করবে আমাকে। কিন্তু আমি ভয় পেলেও। মুখে সেটা স্বীকার করছি না। এমন ভাব করছি। যেন আমি ভয় পাইনি। ছেলেটা হুংকার দিয়ে বলে উঠলো।

_ হাউ ডেয়ার ইউ? তোমার সাহস কি করে হয়? আমাকে ফরিদ কে থাপ্পর মারার?
আমিও গলা খেকিয়ে বললাম!

_ আপনার সাহস কি করে হয়? আমার কোমরে হাত দেয়ার? যখন আমি ভার্সিটি তে ঢুকলাম। তখন দেখি এই ছেলেটা। আর এরসাথে আরো কয়েকটা ছেলে মেয়ে মিলে। ভার্সিটির কিছু ছেলে মেয়েকে। র‍্যাগিং করছে আমি আবার এসব ভয় পাই। তাই এসব দেখেও না দেখার। ভান করে পাশ কাটিয়ে চলে আসছিলাম ঠিক তখন। ওদের দলের এক চামচা।

আমাকে ডাক দেয় এতেও আমি দাড়াইনি। আর তখন এই ছেলেটা। ওখান থেকে এসেই আমার কোমর ধরে। আমাকে ওর দিকে ঘোরায়। সত্যি বলতে আমি একে দেখেই। বড়সর ক্রাশ খাই কিন্তু ওইযে। আমার কোমরে হাত দিয়েছে। এতে করে মেজাজ বিগরে যায়। কোনোকিছু চিন্তা না করেই। ঠাস করে এক থাপ্পর বসিয়ে দেই।

ছেলেটা চিৎকার করে বললো।

_ ডু ইউ নো? হু এ্যাম আই?

_ আপনি নিজেই তো জানেন না। আপনি কে? আমি কি করে জানবো?
আমার কথা শুনে সবাই হেসে দিলো। এতে ছেলেটা আরো রেগে গিয়ে বললো!

_ আমি চাইলে এক্ষুনি। তোমাকে এই ভার্সিটি থেকে বের করে দিতে পারি। তোমার মত একটা মিডল ক্লাস মেয়ে। আমাকে ফাহিম চৌধুরী কে থাপ্পর মেরেছো। এটা তো আমি মানবো না। তোমাকে তো আমি!
বলেই আমাকে থাপ্পর মারতে গেলো। হু আমি কি কম নাকি? একে তো নিজে দোষ করেছে।

তাই আমি থাপ্পর মেরেছি। ভুল কি করেছি? আমাকে মিডল ক্লাস বললো। শালা তুই জানিস? আমি মিডল ক্লাস কি না? আবার আমাকে থাপ্পর মারতে এসেছে। খপ করে বাংলা মুভির মতো। শয়তানটার হাত ধরে ফেললাম।

_ শুনুন মিস্টার ফরিদ নাকি অফরিদ? ওয়াট এভার আই হ্যাব নো ইন্টারেস্ট ইউআর নেম। এনিওয়ে আপনি ভুল করেছেন। তাই আমি আপনাকে থাপ্পর মেরেছি আর তাই। আমার মনে হয়না আমি ভুল করেছি। যার যা প্রাপ্য আমি অলওয়েজ। তাকে ঠিক সেটাই দিয়ে থাকি।

যেমন একটু আগে আপনার প্রাপ্যটা সুন্দর করে। আপনাকে দিয়েছি এতে আপনি যাই করুন না কেন। আই জাস্ট ডোন্ট কেয়ার। আর আপনি আমাকে তার জন্য। থাপ্পর মারতে পারেন না। ইউ হ্যাব নো রাইট, গট ইট?

কথাগুলো বলে আমি চলে এলাম। আহ এখন ভাল লাগছে। কিন্তু ফরিদ এসব হজম করতে পারেনি। ও অগ্নিদৃষ্টি দিয়ে আমাকে দেখছে। হাহ তাতে আমার কি? আমি ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে চলে এলাম। এর মাঝে আমার প্রানপ্রিয় বেষ্টু লিমা। হাপাতে হাপাতে আমার কাছে এলো। ভ্রু কুঁচকে বললাম!

_ কি রে তোর এই অবস্থা? আজ তো আমরা একসাথে আসিনি। তোকে কি কুকুর তাড়া করেছে?
লিমা চোখ গরম করে বললো।

_ তুই এটা কি করলি মিম?

_ কেন কি করেছি আমি?

আমার কথায় লিমা চেচিয়ে বললো!
_ ফরিদ ভাইয়া কে কেন চর মারলি?

এতক্ষণে বুঝলাম কেন এমন করছে।

_ শোন লিমা উনি ভুল করেছে। তাই আমি ওনাকে থাপ্পর মেরেছি। আর আমি যা করেছি। একদম ঠিক করিছি। ওই লুচু পোলার সাহস কি করে হলো? আমার কোমরে হাত দেয়ার? আর তুই ওর হয়ে কথা বলছিস? নেকা কান্না করে বললাম। লিমা বেচারী হা করে তাকিয়ে আছে। কিছুক্ষন চুপ থেকে বললো!

_ আসলে আমি ওনার হয়ে কথা বলিনি। তুই জানিস না ওই ফরিদ ভাইয়া। এই ভার্সিটির ভিপি আর তাছাড়া। এই ভার্সিটির মালিক ওনার বাবা। উনি যদি এখন তোকে বের করে দেয়। তখন কি করবি?

লিমাের কথা শুনে বিরক্ত লাগছে। হোক ওই ছেলে যা ইচ্ছে তাই হোক। তাতে আমার কি? লিমাে’র কথায় মনে হচ্ছে। এই সারা দুনিয়াতে এই একটাই ভার্সিটি। বিরক্তির ডিব্বা এই মেয়েটা। বেশ চেচিয়ে বললাম!

_ কেন রে বের করলে কি হবে? এই দুনিয়ায় ভার্সিটি কি একটা? সবসময় এমন ভীতু হয়ে থাকিস কেন তুই? ভীতুর ডিম একটা।

_ আর তুমি বুঝি ভয় পাওনা?

কারো কথা শুনে আমি আর লিমা। দুজনেই পিছন ফিরে তাকালাম। দেখলাম ফরিদ আর ওর চামচাগুলো। দাত কেলিয়ে দাড়িয়ে আছে। এই দাত কেলানো দেখে বুঝলাম এরা। এখানে আমাদের টাইট দিতে এসেছে। লিমা তো রীতিমত আমার পেছনে লুকিয়ে গেলো। ইচ্ছে করছে এই মেয়েকে লাথি মারি জোড়ে। আমি বিরক্তি নিয়ে বললাম।

_ এখানে কি চাই? কেন এসেছেন? আরেক গালে থাপ্পর খেতে? তাহলে দুরে দাড়িয়ে আছেন কেন? কাছে আসুন থাপ্পর খান আর চলে যান। ফরিদ’র সাথে থাকা ছেলে মেয়েগুলো। ওরা মনে হয় আমার কথা শুনে। আকাশ থেকে পড়লো আর ফরিদ। দাতে দাত চেপে বললো।

_ তোমার আমাকে ভয় লাগছে না? আমি তোমার কি করতে পারি। তুমি জানো?

_ কি করবেন আপনি? শুধু তো বলেই যাচ্ছেন।

বলতে বলতে ফরিদ আমার হাত ধরে। হ্যাচকা টানে ঠাস করে। আমাকে নিচে ফেলে দিলো। নিচে ইটের টুকরো ছিলো। যার কারনে হাতে অনেক ব্যথা পেলাম। হাত জ্বালা করছে খুব। তাকিয়ে দেখলাম হাত ছিলে রক্ত বের হচ্ছে। আমি রেগে গিয়ে বললাম।

_ এটা কি করলেন আপনি?

ফরিদ একটু নিচু হয়ে বললো।

_ সবে তো শুরু এরপর দেখো। তোমার সাথে আর কি কি হয়? তুমি আমাকে থাপ্পর মেরেছো। আই উইল নট স্পেয়ার ইউ। মাইন্ড ইট!

ফরিদ ওর চামচাদের নিয়ে চলে গেলো। আর লিমা এসে আমাকে তুললো। আমি শুধু ভাবছি এই ছেলেটা দেখতে। যতটা সুন্দর মনটা ততটাই খারাপ। শালার এর উপড় ক্রাশ খাওয়া ভুল। কিন্তু আমার কি দোষ?

এই ছেলেটা মানে ফরিদ। লম্বা ৬.২” হবে চোখগুলো মায়াবী। এমন চোখ মেয়েদের হয় বেশীরভাগ। সিল্কি চুলগুলো কপাল ছুয়ে আছে। ফর্সা ডার্ক রেড ঠোট। আর ঠোটের নিচের ওই কালো তিল। ইস যে কেউ ক্রাশ খেতে বাধ্য। আমিও ইচ্ছে করে ক্রাশ খাইনি। বাধ্য হয়েই ক্রাশ খেয়েছি হু হু। নাহলে আমার বয়েই গিয়েছে। ইতিমধ্যে বাড়ি চলে এসেছি। বাড়ি এসেই রুমে এলাম আজ। আজ আর কারো সাথে কথা বলিনি। অবশ্য বাবা এখন অফিসে মা রান্নাঘরে। আর আমার গুনধর ভাইয়া।

সে তো গিলতে আর টিভি দেখতে ব্যস্ত। আমি রুমে এসে শাওয়ার নিয়ে নিলাম। উফ হাতে জ্বালা করছিলো। শয়তানটার গুষ্টি উদ্ধার করে দিয়েছি। শাওয়ার নিয়ে চুলগুলো শুকিয়ে নিচে নেমে এলাম। ভাইয়া এখনো টিভি দেখছে। রিমোট নিয়েই হানি বানি তে দিলাম। আমার অনেক পছন্দের কার্টুন। ভাইয়া চোখ গরম দিয়ে বললো!

_ রিমোট দে বলছি। এগুলো কি দেখিস?

_ তুই তো সারাদিন টিভি দেখিস। তখন কি আমি কিছু বলি? এখন যা নিজের রুমে গিয়ে টিভি দেখ।
আমার কথায় ভাইয়া। তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলো। আর চেচিয়ে বললো!

_ তুই জানিস না? আমার রুমের টিভি নষ্ট হয়ে গিয়েছে।
_ তো আমি কি করবো?

আমাদের কথায় রান্নাঘর থেকে মা চলে এলো। এসে মা রেগে বললো!
_ আবির, মিম এসব কি? তোরা কি বাচ্চা আছিস? এভাবে এখনো রিমোট নিয়ে ঝগড়া করিস।
আমি ইনোসেন্ট ফেস করে বললাম!

_ মা আমি তো বাচ্চাই তাইনা?
_ হ্যা ১৮ বছরের বাচ্চা।

বলেই ভাইয়া হু হা করে হাসতে লাগলো। আর আমি মুখ ভেংচি কেটে চলে এলাম। আসলে আমার ঘুম পাচ্ছে। তাই ঘুমাতে চলে এলাম। বিছানায় ঠাস করে শুয়ে পড়লাম। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘুমের রাকিব্যে পাড়ি জমালাম।

সন্ধ্যায় ঘুম ভাঙলো। এত ঘুম পাগলি আমি কি বলবো? যাইহোক সন্ধ্যায় ঘুম ভাঙার পর। ওযু করে মাগরিবের নামাজ পড়ে নিলাম। তারপর ভার্সিটির পড়া পড়লাম। এরমাঝে ফরিদ’র কথা মনে পড়েনি। হঠাৎ মনে পড়ে গেলো। কাল ভার্সিটিতে গেলে যদি আবার কিছু করে।

শুনেছি ফরিদ খুবই খারাপ একটা ছেলে। যাকে বলে ক্যারেক্টারলেস। সারাদিন নাকি মেয়েদের সাথে। ফ্লার্ট করে বেরায়। আর হাজারটা গার্লফ্রেন্ড। বড়লোকের বিগড়ে যাওয়া ছেলে। তাতে আমার কিছুনা। আমার টেনশন আমি তো থাপ্পর মেরেছি। এখন আমার সাথে যদি উল্টা পাল্টা করে। তখন আমি কি করবো?

এদিকে ফরিদ ও ভাবছে। কি করে আমাকে শাস্তি দেয়া যায়। ফরিদ শয়তানি হেসে বললো!
_ তোমাকে আমি ছাড়বো না। চরের শাস্তি ঠিক কি হতে পারে। সেটা তুমি হারে হারে টের পাবে। এই ২৩ বছরের জীবনে। কেউ আমার সাথে চোখ তুলে কথা বলেনি।

শুধু মাম্মা, পাপা ছাড়া। আর তুমি? এমন শিক্ষা দেবো। সারাকিবীবন মনে রাখবে। জাস্ট ওয়েট এন্ড ওয়াচ। আই উইল টিচ ইউ এ গুড লেসন। এখন শুধু কালকের অপেক্ষা। কাল থেকেই তোমার খারাপ সময় শুরু।

অতঃপর সকাল হলো। আমি রেডি হয়ে নিলাম ভার্সিটি যাওয়ার জন্য। একটা আকাশী কালার চুরিদার পড়েছি। কানে আকাশী কালার ঝুমকো। চুলগুলো ছেড়ে দিয়েছি। ঠোটে হালকা লিপস্টিক। আমি আবার অত সুন্দরী নই। যে বলবো অপ্সরী লাগছে আমাকে।

তবে আমার একটা স্বপ্ন আছে আমি যাকে বিয়ে করবো। সে আমাকে তার অপ্সরী ভাবলেই হবে। বাবা- মা- ভাইয়া কে বলে। লিমা কে নিয়ে ভার্সিটি তে চলে এলাম। গেইট দিয়ে ভেতরে যেতেই। দুরুম করে আমি নিচে পড়লাম। আর কিছুতে লেগে। আমার জামা পিঠের দিকে শব্দ হলো।

আমি বুঝতে পারছি জামার চেইন ছিড়ে গিয়েছে। পাশ থেকে হাসির শব্দ পেলাম। তাকিয়ে দেখি ফরিদ হাসছে। বুঝতে পারলাম কাজটা ফরিদ’র। কিন্তু এখন আমার কান্না পাচ্ছে। পিঠের দিকে জামা ছিড়ে গিয়েছে। আর আমার ওরনাটাও পাতলা। এখন আমি কি করবো? তখনই কেউ একজন এসে। আমার গায়ে তার শার্ট খুলে দিলো। তাকিয়ে তাকে দেখে তো আমি অবাক। লিমাও ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছে। বুঝলাম আমার মতো লিমাও অবাক হয়েছে।


পর্ব ২

আমি সামনের ব্যক্তি কে দেখে অবাক হলাম। লিমা ও বেশ অবাক হলো। আমার সামনে জনী ভাইয়া দাড়িয়ে আছে। হয়তো ভাবছেন অবাক হওয়ার কি আছে? কারন গতকাল দুপুরেও আমি। জনী ভাইয়ার সাথে কথা বলেছি। ভাইয়া তখনও বলেনি যে আজ আসবে। জনী ভাইয়া আমেরিকা থাকে। আমি উত্তেজিত হয়েই বললাম।

_ জনী ভাইয়া তুমি?

জনী ভাইয়া একবার লিমাে’র দিকে তাকালো। লিমা নিজের চোখ ফিরিয়ে নিলো। এরপর ভাইয়া আমার হাত ধরে। আমাকে উঠিয়ে দাড় করিয়ে। ফরিদ’র সামনে গিয়ে দারালো। ফরিদ’র পা থেকে মাথা অবদি দেখছে। আমি আর লিমা বুঝতে পারছি না। ভাইয়া একচুয়েলি কি করতে চাইছে। ব্যাপারটাতে ফরিদ যে বেশ বিরক্ত বোঝা যাচ্ছে। অতঃপর ফরিদ বলেই ফেললো।

_ হে ইউ কি করছেন আপনি?

জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।
.
_ ফাহিম চৌধুরী রাইট? এই ভার্সিটির ভিপি এবং। এই ভার্সিটির মালিকের ছেলে। তা তুমি কি জানোনা? ভিপিদের কি কাজ?

ফরিদ রাগী ভাবে বললো, মানে?
জনী ভাইয়াও এবার ঝাঝালো গলায় বললো।

_ আমি কি বলতে চাইছি। আই হোপ তুমি বুঝতে পারছো। ভার্সিটির ভিপিদের কাজ হচ্ছে। ভার্সিটিতে কেউ ভুল করলে। কেউ অন্যায় করলে সেটার সমাধান করা। কিন্তু তুমি ভার্সিটির ভিপি হয়েও। তুমি নিজেই একটা ভুলের দোকান। লজ্জা করলো না তোমার? একটা মেয়ের সাথে এমন করতে? শুনেছি ছেলে মেয়েদের রেয়েগিং করো। তা ভিপি কি তোমাকে এর জন্য বানিয়েছে?

ফরিদ তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে বললো।

_ যখন জানেন আমি কে? তাহলে আমার সাথে এভাবে কথা বলতে। আপনার ভয় লাগছে না? আপনি জানেন? আমি আপনার কি হাল করতে পারি। আর আমি ওই মেয়েটার সাথে। যা করেছি একদম ঠিক করেছি। ওর সাহস কি করে হয়? সবার সামনে আমাকে থাপ্পর মারার? যার সাথে কেউ চোখ তুলে কথা বলেনা। সেই ফরিদ কে ওইটুকু একটা মেয়ে কি না। সবার সামনে থাপ্পর মারলো?

আমার মেজাজ গরম হয়ে গেলো। এই শয়তান ছেলে কে। আমি কি এমনি থাপ্পর মেরেছি? ও ভুল করেছে বলেই তো মেরেছি। আমিও পাশ থেকে বললাম।
_ আমিও একদম ঠিক করেছি। আপনি যা করেছেন। তার জন্য থাপ্পর আপনার প্রাপ্য। আগেও বলেছি এখনও বলছি!

এবার ফরিদও হেসে বললো।
_ ও রিয়েলি? তা আমিও দেখবো এই তেজ কি করে থাকে। জনী ভাইয়া এবার রেগে গেলো।

_ তোমার সাহস তো কম না। আমার সামনে দাড়িয়ে তুমি। আমার বোন কে থ্রেট করছো। তুমি যে কোন টাইপের ছেলে। বুঝতে বাকি নেই। খবরদার যদি আমার বোন কে কিছু করো। তাহলে আমার থেকে খারাপ কেউ হবেনা।

_ তাই নাকি কি করবেন আপনি?
ভাইয়া আমাকে নিয়ে চলে আসতে গিয়েছিলো। ফরিদ’র কথা শুনে পেছনে তাকালো। এরপর সাইনগ্লাসটা পড়ে নিয়ে। আবার সামনে তাকিয়েই বললো।

_ বেশী কিছু করবো না। আজই আমেরিকা থেকে এসেছি। এখন থেকে বাংলাদেশেই থাকবো। তুমি আমার বোনের সাথে। উল্টা পাল্টা কিছু করেছো যদি শুনি। তৃশে’র আরেক ভাইয়া আবির কি করবে আমি সেটা জানিনা। কিন্তু আমি তোমাকে জেলে ঢুকিয়ে দেবো। এখন ভেবোনা আমি পুলিশে কেস করবো আর। ওরা তোমার বাবার ভয়তে। তোমাকে শুরশুর করে ছেড়ে দেবে।

আই এম ইন্সপেকটর জনী আহমেদ। যা করার আমি করবো গট ইট? ভাইয়া আমার হাত ধরে নিয়ে যাচ্ছে। পাশে লিমাও আছে আমি আর লিমা। দুজনই অবাক হলাম ভাইয়ার কথা শুনে। ভাইয়া ইন্সপেকটর কবে হলো? আর এখানে কি করে এলো? যাইহোক লিমা বাড়ি চলে গেলো এরপর। আমরাও আমাদের বাড়ি চলে এলাম। আর ফরিদ? সে তো রাগে ফোস ফোস করছে।

_ ছাড়বো না আমি এই মেয়ে কে। ওর এমন হাল করবো। দেখবো এই জনী আমার কি করে? এত সাহস হয় কি করে? আমাদের ভার্সিটিতে এসে আমাকে ভয় দেখায়?
ফরিদ’র কথা শুনে ওর ফ্রেন্ড সাব্বির বললো।

_ ভয় দেখায় মানে? তুই কি ভয় পাচ্ছিস নাকি? মাই গড ফরিদ তুই ভয় পাচ্ছিস?
সাব্বির’র কথায় ফরিদ অগ্নিদৃষ্টি তে তাকালো। ভয় পেয়ে সাব্বির চুপ হয়ে গেলো। ফরিদ ফোস ফোস করতে করতেই বললো।

_ জাস্ট সাট আপ সাব্বির। তুই কি করে ভাবলি? আমি ওই ছেলের কথায় ভয় পাবো। তুই তোরা সবাই শুধু দেখে যা। ওই মেয়েটা কি নাম? হুম মিম ওর আমি কি করি। শয়তানি হাসি দিয়ে বললো ফরিদ।
বাড়িতে এসে আগে আমি চেন্জ করে নিলাম। তারপর জনী ভাইয়ার কাছে এসে জিগ্যেস করলাম।

_ জনী ভাইয়া ভার্সিটিতে কি করে গেলে? আর তুমি এলে কখন?
জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।

_ কাল রাতের ফ্লাইটে এসেছি। আসতে আসতে সকাল হয়ে গিয়েছে। তারপর এখানে এসে জানলাম তুই ভার্সিটিতে। তোকে চমকে দেবো ভেবেছিলাম। গিয়ে তো আমিই।
আমি আর বলতে না দিয়ে আবার জিগ্যেস করলাম।

_ জনী ভাইয়া তুমি পুলিশ কবে থেকে? জনী ভাইয়া এমন ভাব করলো। যেন আকাশ থেকে পড়লো। পাশেই আমার গুনধর ভাইয়া। তার মুখেরও একই হাল। জনী ভাইয়া করুন গলায় বললো।

_ তৃশ তুই জানিস না? জনী ভাইয়া ছোট থেকেই আমাকে। তৃশ বলে ডাকে আগে রেগে যেতাম। কিন্তু রেগে কোনো লাভ হয়নি উল্টো। আমার এনার্জি নষ্ট হয়েছে। তাই আমি রাগা বাদ দিয়ে দিয়েছি। আমি ভ্রু কুঁচকে বললাম।

_ আমি কি করে জানবো? আমাকে তে কেউ বলেনি। আমি আজই জানলাম। তুমি বললে তাই জানলাম নাহলে তো। আজও জানতে পারতাম না। আর এই গুনধরের কথা শুনে মনে হচ্ছে। পুরো ব্যাপারটা ও জানতো। আমি কেন জানলাম না? ঠোট উল্টে মুখ ফুলিয়ে বললাম। ততক্ষণে বাবা, মা ও চলে এসেছে। বাবা মুচকি হেসে বললো!

_ জনী তো ১ বছর আগে থেকেই পুলিশের চাকরী করে।
সবাই কে বাদ দিয়ে এবার। আমিই আকাশ থেকে পড়লাম। মানে আমার খালামনির ছেলে। আমার এত আদরের ভাইজান। ১ বছর আগে থেকে এই লাইনে আছে। আর আমি তার বোন হয়ে জানিনা। এটা তো মেনে নেয়া যায়না। কিছুতেই মানা যায়না নো। আমিও মানবো না। গলা খেকিয়ে বললাম।

_ মানে টা কি হ্যা? তোমরা সবাই জানো। আর আমি একা জানিনা কেন? আর জনী ভাইয়া তুমিও বললে না?
পাশেই মা বসা এবার মা বললো।

_ তুই কি জানিস? তোর খালামনিও জানেনা?
মা জননীর কথায় আরেকবার শকড হলাম। হা করেই বলে উঠলাম।

_ এগুলো কি বলো আম্মু? আম্মু একটু হেসে দিয়ে বললো।

_ তুই তো জানিস জনী তোর খালামনির। একমাএ ছেলে তোর আঙ্কেল চেয়েছিলো। জনী ওদের ব্যবসা দেখুক। ওদের অফিসে ওর বাবার পরে। ও বসুক কিন্তু জনী’র স্বপ্ন পুলিশ হওয়া। কিন্তু তোর খালামনি ভয় পায়। পুলিশ হলে তো অনেক বড় বড় ক্রিমিনাল ধরতে হয়। তখন যদি কিছু হয়?

এর জন্য জনী কাউকে না জানিয়ে। নিজে একা একা সব করেছে। আর অনেক কায়দা করে। আমেরিকা গিয়েছিলো এতদিন ওখানেই। নিজের কাজ করেছে। কিন্তু এখন সবাই কে বলতে চায়। আর আমাদের ও কিছুদিন আগে বলেছে। এবার বল তোকে কি করে বলতো?

এবার আমি বুঝলাম। সত্যিই তো যেখানে কেউ জানেনা। এমনকি খালামনি আঙ্কেলও জানেনা। সেখানে আমি কি করে জানবো? আর সত্যি বলতে আমাকে বললে। আমি খালামনি কে বলে দিতাম। কারন এসব আমারও ভয় লাগে। কখন কি হয় আল্লাহ মালুম। আমি সবসময় চাই আমার ফিউচার স্বামী। আর যাইহোক যেন আর্মি, পুলিশ। ইনফ্যাক্ট এই লাইনের কেউ না হয়। জনী ভাইয়া ভাবছে আমি এখনো। মেবি রেগে আছি আস্তে করে বললো!

_ সরি তৃশ আর এমন হবে না। আমি ভেবেছিলাম তুই জানিস।
জনী ভাইয়ার কথায় ফিক করে হেসে দিলাম। তারপর ভাইয়ার গাল টেনে বললাম।

_ আমি আর রেগে নেই ভাইয়া। তুমি তো ইচ্ছে করে লুকিয়ে রাখোনি। আমি তো জানতাম না তাই রেগে ছিলাম। এখন তো জানি তাই রেগে নেই। কিন্তু হ্যা আমার একটা শর্ত আছে। যদি না মানো তাহলে রেগে যাবো!
ভাইয়া পাশ থেকে ফোরন কেটে বললো।

_ দেখো ভাইয়া এই সুযোগে। এই পেত্নী কি হাতিয়ে নেয়।
ভাইয়ার কথায় রেগে বললাম, তোর মতো নাকি?

_ আচ্ছা ওকে তৃশ তুই বল কি শর্ত?
জনী ভাইয়ার কথায় মুচকি হেসে বললাম।

_ রাতে আমি তুমি আর এই গুনধর। আমরা আইসক্রিম খেতে যাবো।
জনী ভাইয়াও মুচকি হেসে বললো!

_ অবশ্যই যাবো তবে আবির কে কেন নিবি? ও তো তোকে জ্বালায়।
আমি ভাইয়ার কান ধরে বললাম!

_ ও জ্বালায় বলেই তো ওকে নেবো।

_ তোরা দুই ভাই, বোনই পাগল।
জনী ভাইয়ার কথায় দাত কেলিয়ে। আমি আর ভাইয়া বললাম। ।

_ ঠিক তোমার মতো।

জনী ভাইয়া মুখ ফুলিয়ে নিজের রুমে গেলো। আমিও নিজের রুমে চলে এলাম। কখন রাত হবে সেই অপেক্ষা। রাতে রাস্তার পাশে হেটে আইসক্রিম খাওয়ার। মজাটাই একদম আলাদা। আমরা সব কাজিনরা একসাথে হলেই। রাতে আইসক্রিম খেতে বেরিয়ে পড়ি।

এটা বেশী ইন্জয় করি নানু বাড়িতে গেলে। যাইহোক রুমে এসে ল্যাপটপ নিয়ে বসে পড়লাম। একটা গান শুনতে লাগলাম। অনেক পছন্দের একটা গান। তবে কেউ যদি জানে এটা আমার ভাল লাগে। তাহলে ভাববে নির্ঘাত আমি ছ্যাকা খেয়েছি। আপনারাও শুনে থাকবেন এপয়েনমেন্ট লেটার নাটকের গান। ফেরাতে পারিনি আমি, পারিনি তোমার হতে।

_ কি রে পেত্নী ছ্যাকা খেয়েছিস?
ভাইয়ার কথায় গা পিত্তি জ্বলে যাচ্ছে। জানতাম এমন বলবে। তার নমুনা এই হাদাটা। আমি রাগী গলায় বললাম।

_ শোন ভাইয়া সুন্দরী না হতে পারি। তাই বলে প্রেম করে ছ্যাকা খাবোনা। যার সাথে প্রেম করবো তাকেই বিয়ে করবো। বিয়ে করে তোকে দেখিয়ে দেবো। এখন তুই বল তো। তুই এখানে কেন এলি? কি চাই তোর?
ভাইয়া ৩২ দাত বের করে বললো।

_ প্রানের বোন তোর এই সুন্দর। ল্যাপটপ আমার চাই।
আমি ভ্রু কুঁচকে বললাম।

_ তোর ল্যাপটপ কি করেছিস? টিভির সাথে ল্যাপটপ ও খেয়ে ফেললি নাকি?
ভাইয়া সাথে সাথে মুখটা অসহায় করে ফেললো। বুঝলাম ল্যাপটপ ও খেয়ে ফেলেছে।

এই ছেলে যে হবু ডাক্তার। এটা ভাবলে আমি নিজেই অবাক হই। ওর কর্মের কথা যদি ওর পেশেন্টরা জানে। তারা তো মনে হয় হার্ট এ্যাটাক করবে। ভাইয়ার ওমন ইনোসেন্ট ফেস দেখে। ল্যাপটপ দিয়ে দিলাম। তবে একেবারে দেইনি হু। বলেছি কাজ শেষ হলে চুপচাপ দিয়ে যেতে!

অবশেষে রাতে আমরা। আইসক্রিম খেতে বের হলাম। আমি দুটো কোন আইসক্রিম নিয়েছি। আর ভাইয়া আর জনী ভাইয়া। ওরা একটা করেই নিয়েছে। আমাদের বাড়ি থেকে। এই রাস্তাটা বেশ খানিকটা দুরে। তাতে আমার কি?

আমি তো আইসক্রিম খেতে আসবোই। আমি আইসক্রিম খেতে খেতে। রাস্তার পাশ দিয়েই হাটছিলাম। বিকেল বেলা বৃষ্টি হয়েছে। যার কারনে পানি জমে গিয়েছে। এরমাঝে হঠাৎ একটা গাড়ি। আমাকে ক্রস করে গেলো। আমার ড্রেস নোংরা হয়ে গিয়েছে। রেগে পাশ থেকে একটা ইট নিয়ে। সোজা গাড়িতে লাগালাম আর ইটটা। সুন্দর করে গাড়িতে লেগে। গাড়ির পিছনের কাচ। ধপাস করে ভেঙে পড়লো। ভাইয়া আর জনী ভাইয়া।

আমার কাছে চলে এলো। গাড়িটা ব্রেক করে পিছনে এলো। গাড়ির ভেতরে দেখে আমি অবাক। সাথে ঘৃনাও লাগছে এই ছেলেটা এত খারাপ কেন? গাড়ির ভেতরে ফরিদ। সাথে ৩টা মেয়ে। গাড়ির কাচ নামানোতে বুঝলাম। মেয়েগুলো ছোট ছোট পোশাক পড়া। এরা ৪জনই যে ক্লাব থেকে। ড্রিংক করে মাতাল হয়ে এসেছে। সেটা বুঝতে বাকী রইলো না। ফরিদ আমাকে দেখে রাগে গজগজ। করতে করতে বেরিয়ে এলো। এসেই ধমক দিয়ে বললো।

_ ইউ স্টুপিড তোমার সাহস কি করে হয়? আমার গাড়ির কাচ ভাঙার।
আমি জাস্ট অবাক। এই শয়তান ছেলে কখনো নিজে ভুল করে। সেটা স্বীকার করেনা। আমি ও পাল্টা ধমক দিয়ে বললাম।

_ চোখ কি পকেটে রেখে গাড়ি চালান নাকি? আপনি দেখেননি? যে রাস্তার পাশে একটা মেয়ে আছে। আপনার তো উচিত ছিলো। ঠিকমত গাড়ি চালানো। অবশ্য ড্রিংক করে গাড়ি ড্রাইভ করলে তো। এমন অঘটন ঘটবেই!

ফরিদ তেড়ে এসে বললো।

_ ইউ চিপ গার্ল ডোন্ট ক্রস ইউআর লিমিট। আমি কি করবো সেটা আমি বুঝবো।
এবার ভাইয়া রেগে গেলো। রেগে গিয়ে আমাকে সরিয়ে। ফরিদ’র সামনে গিয়ে বললো!

_ মেয়েদের সাথে কি করে কথা বলতে হয়। সেই শিক্ষা কি তোমার নেই? তুমি জানোনা? মেয়েদের সাথে কি করে কথা বলতে হয়? দোষ তোমার গলাবাজি ও তুমি করছো। জনী ভাইয়া ফরিদ কে চেনে। আর সকালে তো ভাল করেই চিনেছে। জনী ভাইয়া সব বললো ভাইয়া কে। ভাইয়া রেগে ফরিদ কে বললো।

_ আমার বোনের থেকে দুরে থাকবে। নাহলে আমি তোমাকে ছাড়বো না। তোমার এত সাহস তুমি আমার বোন কে অসম্মান করো? ফরিদ ও রেগে গেলো। এরকম চলতে থাকলে খারাপ কিছু হবে। তাই ভাইয়া কে সিফাত হতে বললাম। আমি চাইনা কোনো ঝামেলা হোক। গাড়ির ভেতর থেকে এক নেকা। নেকামী করে বললো।

_ ফরিদ বেবী কাম হেয়ার।
আমি হো হো করে হেসে দিয়ে বললাম!

_ যান আপনি বেবী মানুষ। এতরাতে বাইরে থাকা ঠিক না। ফরিদ কিছু বলতে চাইলো। কিন্তু বলার সুযোগ না দিয়ে। আমরা ওখান থেকে চলে এলাম। ফরিদ ও গাড়িতে বসে। গাড়ি ড্রাইভ করছে আর ভাবছে। আমাকে কি করে ছোট করবে?

_ মিস মিম তুমি ঠিক করলে না। এই নিয়ে ৩বার আমাকে ইনসাল্ট করলে। এবার আমি তোমার এমন হাল করবো। সমাজে তুমি মুখ দেখাতে পারবে না। তারপর আমিও দেখবো। তোমার ওই দুই ভাই আমার কি করে।

কথাগুলো মনেমনে বলে। ফরিদ শয়তানি হাসি দিলো। আর আমি হাটছি আর ভাবছি। একটা ছেলে এত খারাপ। কি করে হয়? এই ছেলের বউ যে হবে। তার কপালে খুব দুঃখ আছে। আল্লাহ মালুম কোন মেয়ে হবে।


পর্ব ৩
.
ফরিদ কে নিয়ে ভাবা বাদ দিলাম। ওই শয়তান কে নিয়ে আমার ইন্টারেস্ট নেই। আমি আমার লাইফে ওমন ছেলে দেখিনি। আমরা হাটতে হাটতে বাড়ি চলে এলাম। তারপর আমি রুমে এসে শুয়ে পড়লাম। তবে একটু ভয় লাগছে। ফরিদ কি এমনি এমনি আমাকে ছাড়বে? এসব ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়লাম। হু এখন সিফাতির ঘুম কেন নষ্ট করবো?

এদিকে ফরিদ ঢলতে ঢলতে বাড়ি ঢুকলো। ফরিদ’র বাবা,মা। দুজনই ড্রয়িংরুমে বসে ছিলো। ফরিদ কে এই অবস্থায় দেখে। ফরিদ’র বাবা রেগে গেলো। ফরিদ’র মা চুপ করে আছে। ফরিদ’র বাবা রেগে বললো।

_ এসব কি ফরিদ?

_ কোন সব পাপা? ঢুলতে ঢুলতেই ফরিদ বললো। ফরিদ’র কথা শুনে ওর বাবা আরো রেগে গেলো। একদম সামনে এসে বললো।
_ তুমি ড্রিংক করেছো?
ফরিদ হেসে দিলো। যেন কোনো জোকস শুনেছে। হাসি থামিয়ে বললো।

_ পাপা এটা কি নতুন নাকি? ইউ নো না পাপা? তোমার ছেলে কেমন? আই লাভ দিস লাইফ। সো প্লিজ ডোন্ট স্টপ মি। ওপস ডোন্ট ট্রাই টু স্টপ মি। বিকস ইউ কান্ট পাপ্পা। বাই মাম্মা, বাই পাপা গুড নাইট। এন্ড সুইট ড্রিম।

ফরিদ হেলেদুলে নিজের রুমে গিয়ে। ঠাস করে ওই অবস্থাতেই। বিছানায় শুয়ে ঘুমের রাকিব্যে পাড়ি জমালো। ফরিদ’র বাবা সোফায় বসে পড়লো। ফরিদ’র মা পাশে এসে বসলো। ফরিদ’র বাবা করুন ভাবে বললো।

_ ছেলেটা এত খারাপ কেন হলো? কোনো বাবা তার নিজের ছেলে কে। খারাপ বলবে না কিন্তু আমি বলছি। কারন আমার ছেলে সত্যিই খারাপ হয়ে গিয়েছে।

ফরিদ’র মা কিছুক্ষণ চুপ থেকে বললো।

_ ছোট থেকে ওকে শাসন করলে। আজ ও এমন তৈরী হতো না। আমরা ওকে শাসন না করে। বেশী আদর দিয়ে এমন করে ফেলেছি। কিন্তু আমরা কি করতাম? আমাদের এক ছেলে কে হারিয়ে। আমরা বেশী উত্তেজিত হয়ে গিয়েছিলাম। এসবের চক্করে আমরা ফরিদ কে। শাসন করার কথা ভুলেই গিয়েছিলাম। আল্লাহ জানে আমার ছেলে কবে ঠিক পথে আসবে।

দুজনেই মন খারাপ করে বসে রইলো। ফরিদ’র বাবা ফরিদ’র মা কে বুঝিয়ে। রুমে নিয়ে গেলো উনি তো মা। ওনার এসব ভাবলে কষ্ট হয়। দুজনই যদি ভেঙে পড়ে। তাহলে কি করে হবে? এসব ভেবেই ফরিদ’র বাবা। নিজেকে নিজেই সিফাত করলো।

সকাল ৮টায় আমার ঘুম ভাঙলো। আগে ফজরের সময় উঠে। নামাজ পড়ে নিয়েছি কিছুক্ষণ। কোরান শরীফ পড়ে। পড়ে আবার ঘুমিয়েছি। যদি বেশী ঘুম পায়। সেদিন ঘুমিয়ে থাকি আবার। আর যদি ঘুম না পায়। তাহলে একটু হাটাহাটি করি। ছাদে যাই নাহলে বাগানে।

যাইহোক ৮টায় ঘুম থেকে উঠে দেখি। আমার বিছানার পাশে। এক বক্স চকলেট আর তার পাশে। বক্সের আইসক্রিম আহা। মনটা খুশিতে নেচে উঠলো। নিশ্চই জনী ভাইয়া রেখেছে। ছোট থেকে চকলেট, আইসক্রিম। আমার খুব খুব প্রিয়। আর জনী ভাইয়াও যখন আসে। আমার জন্য নিয়ে আসে।

নাহলে আমি ঘুমানোর পর। চুপিচুপি আমার বিছানার পাশে রেখে যায়। দৌড়ে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে এসে। কয়েকটা চকলেট খেয়ে নিলাম। এরপর কিছুটা আইসক্রিম খেয়ে। আমার রুমের ছোট ফ্রিজে রেখে দিয়ে। চেন্জ করে নিচে নেমে এলাম। বাহ সবাই ব্রেকফাস্ট করতে বসে পড়েছে। আমি মুখ ফুলিয়ে বললাম।

_ বলি আমাকে কেউ চেনো? সবাই একসাথে বললো, না। কেমন লাগে মেজাজ গরম করে দিলো। যা খাবোই না ধাপধুপ রুমে চলে এলাম। একটু পর দেখি ভাইয়া আর। জনী ভাইয়া এসেছে। ভাইয়ার হাতে প্লেট প্লেটে ভাত। আর জনী ভাইয়ার হাতে পানির গ্লাস।

আমি মুখ ঘুরিয়ে নিলাম। দুজন আমার দুপাশে বসলো। আমি ভ্রু কুঁচকে বললাম।

_ কি চাই এখানে? তোমরা কি আমাকে চেনো?
দুজনই একসাথে হেসে দিলো। জনী ভাইয়া বললো।

_ না তোকে তো চিনিনা। আমরা আমাদের সুইট গুলুমুল। পিচ্চি বোন কে চিনি।
তবুও কোনো রিয়েক্ট করলাম না। এরপর ভাইয়া বলে উঠলো।

_ জনী ভাইয়া ভাবছি বিকেলে ঘুরতে যাবো। তো কেউ যদি যেতে যায়। তাহলে আমাদের সাথে যেতে পারে।
আহ ঘুরতে যাবে শুনে। মনটা খুশিতে বাকুম বাকুম করে উঠলো। ঘুরতে যাওয়া আমার দূর্বলতা। কিন্তু রাগও তো করেছি। ধুর রাগ ভার মে যায়। খুশিতে গদগদ হয়ে বললাম।
_ এই ভাইয়া আমাকে নিবি?
ভাইয়া মুখ ঘুরিয়ে বললো, না। আমিও রেগে বললাম, কেন নিবিনা? জনী ভাইয়া আমার সামনে বসে আমার মুখের সামনে। এক লোকমা ভাত ধরে বললো।
_ খাবার ফিনিশ কর তাহলে নেবো।

ঘুরতে যাবো বলে খেয়ে নিলাম। খাওয়া শেষ করে কিছুক্ষণ আড্ডা দিয়ে। ভার্সিটির উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়লাম। রাস্তা থেকে টুপ করে লিমা কে তুলে নিলাম। তারপর দুজনে একসাথে চলে এলাম।
ফরিদ ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে। চেন্জ করে গাড়ির চাবি। হাত দিয়ে ঘোরাতে ঘোরাতে নিচে নামছিলো। ওর মায়ের রুমের কাছে এসে দাড়িয়ে গেলো। সাথে সাথে ওর মায়ের রুমে ঢুকলো।

_ এসব ড্রামা রোজ না করলে কি হয়? ফরিদ’র রাগী কন্ঠ আর কথা শুনে। ফরিদ’র মা, আর বাবাও রেগে গেলো। ফরিদ’র মা সহজে রাগে না কিন্তুু। ফরিদ যখন ওনার হারিয়ে যাওয়া ছেলে কে নিয়ে। আজে বাজে কিছু বলে তখন রেগে যায়। আর এখনও উনি ওনার হারিয়ে যাওয়া। ৬ মাসের ছেলের ছবি। বুকে নিয়ে কান্না করছিলো। হ্যা ফরিদ’র আগে ওনাদের একটা ছেলে হয়েছিলো। কিন্তু যখন সেই ছেলের বয়স ৬ মাস। তখন কোনো ভাবে হারিয়ে যায়। সেটা পরে বলবো। আর ফরিদ এই ছেলে কে নিয়ে। ভাল কিছু সহ্য করতে পারেনা। ফরিদ’র মা ধমক দিয়ে বললো।

_ এসব কথার মানে কি ফরিদ? আর ড্রামা মানে?
ফরিদ সামনে এসে ওর মায়ের থেকে। ছবিটা টান দিয়ে নিয়ে বললো।
_ ড্রামা নয়তো কি মাম্মা? সেই বাচ্চা বয়সে এই ছেলেটা হারিয়েছে।

ফরিদ’র বাবা ঝাঝালো গলায় বললো।
_ এই ছেলেটা মানে কি? ও তোমার বড় ভাই ফরিদ। রেসপেক্ট দিয়ে কথা বলো।
ফরিদ হু হা করে হেসে দিয়ে বলে উঠলো।

_ লাইক রিয়েলি পাপা? হি ইজ মাই ব্রাদার? আই থিংক তোমাদের ভুল হচ্ছে। এই ছেলে কে আমি ভাই বলে মানিনা। আমার তো মনে হয়। হি ইজ মাই এনেমি। ইনফ্যাক্ট এ বিগ এনিমি। এর জন্য তোমরা আমাকে বকো মাঝে মাঝেই। আর আমার তো মনে হয়। তোমাদের এই সো কল্ড ছেলে। এতদিনে মরে ভুত হয়ে গিয়েছে। ফরিদ’র রোজ রোজ এই কথা। শুনতে শুনতে ফরিদ’র বাবা। বিষিয়ে গিয়েছে আজ আর সহ্য হলোনা ফরিদ কে। ঠাস করে এক থাপ্পর মারলো। আবার মারতে গেলেই। ফরিদ’র মা ধরে ফেললো।

_ কি করছো তুমি?
ফরিদ’র মায়ের প্রশ্ন শুনে উনি আরো রেগে বললো।
_ তোমার এই ছেলে। দিনের দিন খারাপ হয়েই যাচ্ছে। আজ যেটা করলাম। সেটা আমার আগেই করা উচিত ছিলো। তাহলে ও আমার বড় ছেলে কে নিয়ে। এসব বলার সাহস করতো না।
ফরিদ তো রেগে বোম। হুংকার ছেড়ে বললো।

_ এই মরে যাওয়া ভুতের জন্য। তুমি আমাকে মারলে তো? আর তোমরা আমাকে বকো তাইনা? এ যদি বেঁচে থাকে। আর তোমরা যদি ওকে পাও তাহলে তো। তোমরা আমাকে চিনবেই না।

ফরিদ বলে কেউ তোমাদের ছেলে। তোমরা দুজনেই সেটা ভুলে যাবে। সো আউ উইশ তোমরা যেন। কোনদিন ইয়েস মাম্মা ইয়েস পাপা। আই সেইড আই উইশ। কোনদিনও তোমরা ওকে খুজে না পাও। বলে ফরিদ হনহন করে নিচে নেমে এলো। ফরিদ’র মা ওখানেই কান্না করতে লাগলো। আর ফরিদ’র বাবা সামলাচ্ছে। ফরিদ নিচে আসতেই ওদের ড্রাইভার এলো।

_ ছোট স্যার চলুন আমি দিয়ে আসি। ফরিদ এমনিই রেগে আছে। ড্রাইভারের কথায় আরো রেগে বললো।
_ ইউ ইডিয়ট আমি কি বলেছি? আমাকে দিয়ে আসতে? আমার সাথে হাত, পা আছে। আমি নিজেই যেতে পারি। এসব ঢং আমার সাথে করবি না। গেট লস্ট ডিজগাস্টিং পাবলিক। ড্রাইভার কষ্ট পেলো। কিন্তু তাতে ফরিদ’র কি? ফরিদ গাড়ি নিয়ে চলে গেলো। ফরিদ’র বাবা সব দেখছিলো। উনি নিচে এসে ড্রাইভার কে সরি বললো।

আমি আর লিমা আড্ডা দিচ্ছিলাম। হঠাৎ দেখলাম ফরিদ ঢুকছে। না দেখার ভান করে রইলাম। একে দেখলেও রাগ লাগে। ফরিদ আড়চোখে আমাকে দেখে। ওর ফ্রেন্ডদের কাছে এলো। আমি আর লিমা সোজা ক্লাসে চলে এলাম। ক্লাস শেষে আমি আর লিমা মাঠের দিকে এলাম। ফরিদ কোথা থেকে এসেই আমার ওরনা টান দিলো। ছিঃ এই ছেলেটা এত নোংরা কি করে?

মাঠের সবাই তাকিয়ে আছে। আমি আর কি? আগেরদিনের মতো আজও থাপ্পর মারলাম। ফরিদ আমার ওরনা ছেড়ে দিলো। কিন্তু রাগী দৃষ্টিতে তাকালো। আমি চেচিয়ে বললাম!

_ আপনি এত খারাপ কেন হ্যা? ছিঃ লজ্জা সরম আছে বলে তো মনে হয়না। সবাই কে কি তেমন মনে করেন? নাকি আপনার রাতের আড়ালের। ওই চিপ মেন্টালিটির। গার্লফ্রেন্ড গুলোর মতো মনে করেন? আপনার সাহস কি করে হয়? আমার ওরনা ধরার হ্যা। ক্যারেক্টারলেস ছেলে একটা।

আমার শেষের কথা শুনে। ফরিদ’র মাথায় মনে হয় আগুন ধরে গেলো। ফরিদ আমার দু বাহু চেপে ধরলো। আমি ভয় পেয়ে গেলাম। ফরিদ দাতে দাত চেপে বললো।

_ না জেনে না বুঝে। আজ যেটা করলে ঠিক করলে না। আমি ক্যারেক্টারলেস তাইনা?
আমি ধাক্কা দিয়ে ফরিদ কে সরিয়ে বললাম।
_ হ্যা হ্যা আপনি একটা ক্যারেক্টারলেস! ফরিদ এবার শয়তানি হাসি দিয়ে বললো।

_ এবার আমিও দেখবো। এই ক্যারেক্টারলেসের থেকে। তুই কি করে বাঁচিস। যদি পারিস তাহলে নিজের। সম্মান বাঁচিয়ে রাখিস! বলে ফরিদ চলে গেলো। এদিকে আমি খুব ভয় পেয়ে গেলাম। কি করতে চাইছে ফরিদ? ভাবতে ভাবতে বাড়ি চলে এলাম। বিকেলে ঘুরতে যাওয়ার কথা ছিলো। ভাল লাগছে না কিছু। তাই আর ঘুরতে গেলাম না।

সন্ধ্যায় একটু বাড়ির বাইরে এলাম। এটা আমার প্রতিদিনের অভ্যাস। কিন্তু আমি কি আর জানতাম? ভার্সিটিতে ফরিদ কে ক্যারেক্টারলেস বলা আর। আমার সন্ধ্যার পর বাড়ির বাইরে আসা অভ্যাস। আমার কাল হয়ে দাড়াবে। অন্যমনস্ক হয়ে হাটতে হাটতে। খানিকটা দুরে চলে এলাম। পেছনে ঘুরে বুঝলাম।

আমি অনেক দুরে চলে এসেছি। যেই আবার ঘুরে আসতে যাবো। ওমনি কেউ আমাকে টান দিয়ে। গাড়িতে উঠিয়ে চোখ বেধে দিলো। আমি তো ভয়ে মরে যাচ্ছি। কলিজা শুকিয়ে যাচ্ছে কে হতে পারে? বারবার বলছি কে? কিন্তু কোনো কথা বলছে না কেউ। আল্লাহ কে ডাকছি বারবার।

অনেকক্ষণ পর গাড়ি থামলো। লোকটা আমাকে টানতে টানতে নিয়ে যাচ্ছে। হঠাৎ দরজা খোলার শব্দ পেলাম। লোকটা আমাকে ছুড়ে ফেলে দিলো। সাথে সাথে আমি চোখের কাপড় খুলে ফেললাম। আর সামনে তাকিয়ে আমি অবাক। সাথে ঘৃনা লাগছে আর ভয়তো আছেই। কাঁপা গলায় বললাম।

_ শু ফরিদ আ আপনি? ফরিদ বাঁকা হেসে দরজা আটকে দিলো। এবার আমি ভয়ে কাঁপছি। ফরিদ হেলেদুলে এগিয়ে আসছে। ও যে ড্রিংক করেছে আজও। বুঝতে বাকি রইলো না। কিন্তু আমি ভাবছি। আমাকে কেন এনেছে? ওর হাবভাব ভাল লাগছে না। তাও বলে উঠলাম!

_ আমাকে কেন এনেছেন?
ফরিদ আমার দিকে এগিয়ে আসছে আর বলছে।

_ মনে আছে ভার্সিটিতে কি বলেছিলাম? পারলে নিজের সম্মান বাঁচিয়ে নিতে। কিন্তু তুমি তো পারলে না। এবার তো সম্মান হারাতে হবে। আর একটা কথা। আমি তো এতদিন খেয়ালই করিনি। ইউআর লুকিং সো হট।
আমার আত্মা বেরিয়ে যাচ্ছে এসব শুনে। ফরিদ এগিয়ে আসছে। আমি বিছানা থেকে নেমে দৌড় দিতে গেলাম। ফরিদ খপ করে আমার হাত ধরে। ধাক্কা দিয়ে বিছানায় ফেলে। একটানে আমার ওরনা নিয়ে ফেলে দিলো। ফরিদ রেগে ফোস ফোস করে বললো।

_ জাস্ট ওরনা ধরেছিলাম। তাই ক্যারেক্টারলেস বলেছিলি তাইনা? এখন তো ওরনা নিয়ে ফেলেও দিলাম। এবার বল কি বলবি। আমি আকুতি মিনতি করছি। আমাকে ছেড়ে দিতে। ফরিদ হুট করে আমার ঠোটে ওর ঠোট চেপে ধরলো। আমি কিল ঘুষি দিয়েই যাচ্ছি। ফরিদ ঠোট ছেড়ে গলায় মুখ ডুবিয়ে দিলো। হাজার চেষ্টা করেও কিছু করতে পারছি না। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। এবার একটা ভাবনা।

তাহলে কি কাল আমারও সুইসাইড করতে হবে? আমি যে বাঁচতে পারবো না। সেটা বুঝে গিয়েছি। কাল নিশ্চই পএিকায়। বড় করে লেখা থাকবে আমার নাম। আর তারপাশে থাকবে ধর্ষিতা। আর এসব সহ্য করতে না পেরে। আমাকে ও সবার মতো সুইসাইড করতে হবে। আর এই ফাহিম চৌধুরী। সমাজে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেরাবে। সত্যিই কি তাই? সত্যিই কি আমি ফাহিম চৌধুরী কে। বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেরাতে দেবো?
এসব হাজার ভাবনা ভাবতে ভাবতে। মাথাটা ঘুরে উঠলো। সেন্সলেস হয়ে গেলাম এক সময়। আর কিছু মনে নেই।


পর্ব ৪

সেন্সলেস হয়ে যাবার পর। আমার আর কিছু মনে নেই। যখন সেন্স এলো আস্তে আস্তে। চারপাশে চোখ বুলাচ্ছি। সামনে তাকিয়ে যা দেখলাম। আমার দুনিয়াটা থমকে গেলো। তাহলে আমার ভাবনা সত্যি হবে? সত্যি আজ পএিকায় বড় করে। হেডলাইন হবে আমার কথা। আমার সামনে প্রেস, মিডিয়া। আরো অনেক মানুষ। ভাল করে তাকিয়ে দেখলাম এটা। কালকের সেই রুম না।

এটা তো বাইরে কিন্তু এখানে। ওহ এবার বুঝলাম ফরিদ এখানে রেখে চলে গিয়েছে। নিজের দিকে তাকিয়ে দেখলাম। আমার ওরনা টা পাশে। খপ করে ওরনা পড়ে নিলাম। এরা একের পর এক। প্রশ্ন করেই যাচ্ছে। আমার চিৎকার করে কাঁদতে ইচ্ছে করছে। হায়রে মানুষ একটা মেয়ের এই অবস্থা। কেউ এসে একটু সিফাতনা দিচ্ছেনা এরা তো।

নিজেরা নিউস করে নিজেদের প্রমোশন বাড়াতে ব্যস্ত। আমি আস্তে উঠে দাড়ালাম। ভাষাহীন হয়ে গিয়েছি। গলা দিয়ে কোনো আওয়াজ বের হচ্ছেনা। উঠে সামনের দিকে পা বাড়ালাম। কোনো রকম নিজেকে ঢাকলাম। জামা হাতার কাছ দিয়ে ছেড়া। আল্লাহ বারবার ভাবছি। কেন হলো এটা? আমার সাথে ফরিদ কেন করলো এমন? হঠাৎ সামনে তাকিয়ে দেখলাম। জনী ভাইয়া তাকিয়ে আছে। হয়তো টিভি তে দেখে এসেছে। জনী ভাইয়া কে দেখে নিজেকে ধরে রাখতে পারলাম না।

একরকম দৌড়ে গিয়ে জড়িয়ে ধরে। হাউমাউ করে কেঁদে দিলাম। জনী ভাইয়াও আমাকে। শক্ত করে জড়িয়ে ধরেছে। কাঁদতে কাঁদতে আবার সেন্স হারালাম। এরপর আর কিছু মনে নেই। সেন্স আসার পর দেখলাম আমার পাশে। মা, বাবা ভাইয়া, জনী ভাইয়া। নিজেকে কেমন একটা লাগছে। কোনো রকম ওদের বললাম।

_ তোমরা একটু যাবে প্লিজ? মা কান্নাজড়িত কন্ঠে বললো।

_ মা তোর কাছে আমি থাকি। ওদের দিকে তাকিয়ে ভীষন কান্না পাচ্ছে। সবার চোখ মুখ ফুলে আছে। আর আমি নিজেও অবাক হলাম আমি। এতক্ষণ সেন্সলেস ছিলাম? এবার বলেই ফেললাম।

_ আমি এতক্ষণ সেন্সলেস ছিলাম?
জনী ভাইয়া আর ভাইয়া। ঝাঝালো কন্ঠে বললো।

_ এসব কে করেছে? আমি আবারও হাউ মাউ করে কেঁদে দিলাম। এবার চিৎকার করে কাঁদছি। কি করবো আমি এখন? আমার সব তো শেষ হয়ে গেলো। এই আমি গতকাল কত ভাল ছিলাম। আর আজ আমার নামও ধর্ষিতার লিস্টে। ইস ভাবলেই মরে যেতে ইচ্ছে করছে। এরপর তো বাইরে গেলেও সবাই বলবে। তখন কি করবো? কি করে সহ্য করবো? সবাই কে জোড় করে বাইরে পাঠিয়ে দিলাম। মরে যাবো আমি এসব মানতে পারবো না। কেন হলো এমন?

দরজা বন্ধ করে বিছানায় বসে পড়লাম। আয়নাতে নিজেকে দেখে আতকে উঠলাম। বিছানার তোশকের নিচ থেকে। ধারালো নতুন ব্লেড হাতে নিয়ে। হাতের শিরা বরাবর ধরে। যেই না টান দিতে যাবো। ওমনি ভাবলাম আমি তো দূর্বল নই। আমার কি দোষ? আমি কেন সুইসাইড করবো? আমাকে ধর্ষন করেছে তাই। আজ আমি ধর্ষিতা। ইচ্ছে করে তো আমি ধর্ষিতা হইনি। আমি কেন শাস্তি পাবো? শাস্তি যদি কেউ পায়। তাহলে পাবে ওই ফাহিম চৌধুরী। ইয়েস ছাড়বো না আমি ওকে। এসব ভেবে ব্লেডটা জানালা দিয়ে। নিচে ছুড়ে ফেলে দিলাম। ওরা বাইরে থেকে ডাকছে। আমি একটু চুপ থেকে বললাম।

_ তোমরা যাও আমি ঘুমাবো। আর কাল সকালে সব বলবো।
তারপর বিছানায় শুয়ে পড়লাম। আর ভেবে নিলাম এবার। আমার কি করতে হবে। এদিকে আমাকে নিয়ে নিউস। ফরিদও টিভিতে দেখলো। দেখেই ড্রয়িংরুম থেকে ছাদে চলে গেলো। একটা দীর্ঘশ্বাস নিয়ে বললো।

_ ধর্ষিতাদের বদনাম হয়, দোষ হয়। ধর্ষকদের না তাই তো আমি নির্দোষ। আমি খারাপ খুব খারাপ। তোমার উচিত হয়নি মিম। একদম উচিত হয়নি আমার সাথে টক্কর নেয়া। তাই তো দেখো আজ তোমার কি অবস্থা। হাহ এবার তুমি কি করবে? মরে যাবে? হ্যা ওটাই করতে হবে। কারন ফাহিম চৌধুরী’র কিছু হবেনা। তুমি কিছু করতে পারবে না।

ফরিদ কিছুক্ষণ চুপ করে রইলো। এরপর সাথে করে নিয়ে আসা। ওয়াইনের বোতল খুলে। সেটা খেতে শুরু করলো। কিছু একটা ভাবছে। আর হাতের বৃদ্ধা আঙুল দিয়ে। নিজের চোখের জ্বল মুছছে। ফরিদ প্রায় ৩ ঘন্টা ছাদে থেকে। নিচে নেমে এলো। এরপর রুমে গিয়ে শুয়ে পড়লো।

আমি সকালে ঘুম থেকে উঠে। সবাই কে সবটা বলে দিলাম। যে কে এটা করেছে? এসব শুনে ভাইয়া তো পারেনা। ফরিদ কে পেলে খুন করতে। আমি জানি এবার জনী ভাইয়া কি করবে। হ্যা জনী ভাইয়া সেটাই বললো। যেটা আমি চেয়েছিলাম।

_ ওর এত বড় সাহস। ও তোর সাথে এটা করলো। ওকে তো আমি ছাড়বো না। ওকে আমি জেলে ঢোকাবো। জনী ভাইয়া কথাগুলো বলে। রেগে বাড়ি থেকে বের হয়ে গেলো। জনী ভাইয়া এখন এখানকার থানার ইন্সপেক্টর। আমিও আম্মু কে বুঝিয়ে বাড়ি থেকে চলে এলাম। পথে অনেক কথা শুনেছি। সেসবে পাত্তা দেইনি। কারন এরপর আর বলার সুযোগ পাবেনা। সোজা কোর্টে চলে এলাম। প্রয়োজনীয় পেপারস নিয়ে চলে এলাম।

জনী ভাইয়া নিজের ইউনিফর্ম গায়ে জড়িয়ে। থানা থেকে এরেস্ট ওয়ারেন্ট বানিয়ে। সোজা ফরিদ’র বাসায় চলে গেলো। গিয়ে ঝাঝালো কন্ঠে ফরিদ কে ডাকতে লাগলো। জনী ভাইয়ার কন্ঠ শুনে ফরিদ না এলেও। ফরিদ’র বাবা, মা ড্রয়িংরুম চলে এলো। আর এসে পুলিশ থেকে অবাক হলো। আবার জনী ভাইয়া কে দেখেই যাচ্ছে। জনী ভাইয়াও তাকিয়ে আছে। এরপর বেশ রাগী ভাবে বললো।

_ হয়ার ইজ ফরিদ? আপনাদের ছেলে কোথায়? ওনারা একটু অবাক হয়ে বললো।
_ কেন ফরিদ কে দিয়ে কি করবেন? জনী ভাইয়া সিফাত ভাবে বললো।
_ প্লিজ ওকে ডেকে দিন। ফরিদ এবার নিচে নেমে এলো। জনী ভাইয়া কে দেখে রেগে বললো!

_ হে ইউ এখানে কি চাই? তোমার ডিউটি কি এখানে? জনী ভাইয়া এবার হেসে বললো।
_ অফ কোরস এখানে। তোমাকে নিয়ে যেতে এসেছি। থানায় নিয়ে জামাই আদর করতে। ফরিদ’র বাবা, মা এবার চেচিয়ে বললো।
_ ওকে নিতে এসেছেন মানে? কি করেছে ও?

জনী ভাইয়া দাতে দাত চেপে বললো।
_ ধর্ষন আপনার এই ছেলে। আমার বোন কে কাল রাতে। তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষন করেছে। আর তাই আমি এসেছি। ওকে এরেস্ট করতে। আর ওকে নিয়েই আমি যাবো।
ওনাদের মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। ফরিদ’র বাবা, মা বলে উঠলো।

_ শেষে কি না ধর্ষন?
ফরিদ এগিয়ে এসে ওর মা কে বললো।
_ মাম্মা লিসেন টু মি। ওই মেয়েটা খুব খারাপ আর তাই। আমি ওকে শিক্ষা দিতে।
ওনারা এতটুকু শুনেই বুঝে গেলো। জনী ভাইয়া যা বলেছে সব সত্যি। ফরিদ’র মা ঠাস করে এক থাপ্পর মারলো। কেঁদে কেঁদে বললো!

_ ছিঃ ছিঃ এর জন্যই। অত সকালে যখন তুই এলি তখন। তোর ঠোটে লিপস্টিক ছিঃ। আল্লাহ এই দিনও দেখতে হলো? জনী ভাইয়া একটানে ফরিদ কে। নিজের দিকে ঘুরিয়ে শার্টের। বোতাম খুলে পিঠের দিকে। শার্ট নামিয়ে দিলো এরপর বললো।

_ আর পিঠের এই দাগ। এই ছেলেটা এতটাই অমানুষ। আমার বোন বারবার বলার পরেও ওকে ছাড়েনি। আমি ওকে নিয়ে যাচ্ছি। ফরিদ এক ঝটকায় নিজেকে ছাড়িয়ে বললো।

_ তোমার সাহস তো কম না। তুমি আমাকে এরেস্ট করতে চাও? পাপা তুমি কিছু বলছো না কেন? ফরিদ’র বাবা ধমক দিয়ে বললো।
_ তুই যেটা করেছিস। এটাই তোর প্রাপ্য আদর দিয়ে বিগড়ে দিয়েছি। আমি আর কি বলবো? ফরিদ চেচিয়ে বললো।

_ ওয়াট? পাপা ওয়াট আর ইউ সেয়িং?
জনী ভাইয়া টানতে টানতে ফরিদ কে নিয়ে এলো। থানায় এনে এক ধাক্কায় লকাবে ঢুকিয়ে দিলো। ফরিদ রাগে ফোস ফোস করে বললো।
_ আই উইল নট স্পেয়ার ইউ। লিভ মি, আই সেইড লিভ মি, ড্যাম ইট।

জনী ভাইয়া জাস্ট অবাক হয়ে যাচ্ছে। নিজেকে সামলে নিয়ে বললো।
_ তোমার কি লজ্জা সরম নেই? ফরিদ হু হা করে হেসে দিয়ে বললো।
_ লজ্জা? ওয়াট ইস দিস লজ্জা? লজ্জার “ল”ও নেই আমার। আমি ভাল ভাবে বলছি। আমাকে যেতে দাও।
জনী ভাইয়ার রাগ আর কন্ট্রোল হলো না। নিজে ভেতরে ঢুকে। ঠাস করে ফরিদ কে থাপ্পর মারলো। আরেক থাপ্পর দিতে যাবে। এমন সময় ফরিদ’র বাবা,মা এলো। ফরিদ তো ওর বাবা,মা কে দেখে। খুশিতে গদগদ। কিন্তু ওনাদের সাথে আমাকে কে দেখে। মুখের হাসি উড়ে গেলো। নিজে বিরবির করে বললো।

_ এই মেয়েটা এখানে? ফরিদ আমার ভাবনা বাদ দিয়ে। ওর বাবা,মা কে বললো।
_ মাম্মা,পাপা আমাকে বের করো। আমি সামনে এসে হাসি দিয়ে বললাম!
_ ওনারা না তোমাকে একমাএ। আমি বের করতে পারি। ফরিদ আমার মুখে তুমি শুনে অবাক হলো। কিন্ত শেষের কথা শুনে রেগে বললো।
_ কি বলতে চাও তুমি? আমি সেই পেপারস দেখিয়ে বললাম।

_ এটা তে সাইন করে দাও। তাহলে এখান থেকে বের হতে পারবে।
জনী ভাইয়া আমার কথা শুনে অবাক হলো। ফরিদ পেপারস দেখে বললো!
_ কিসের পেপারস এটা? আর আমি কেন সাইন করবো?
ফরিদ’র মা পাশ থেকে বললো।

_ সাইন করতে তুই বাধ্য। এই পেপারসে সাইন করলেই। তুই এখান থেকে যেতে পারবি।
ফরিদ বাইরে বের হতে বললো।
_ ওকে ফাইন আমি সাইন করবো। আমি মুচকি হেসে জনী ভাইয়া কে বললাম।
_ জনী ভাইয়া ওকে বের করো!
জনী ভাইয়া ফরিদ কে বের করলো। আমি পেপারস সামনে দিয়ে বললাম।

_ এটাতে সাইন করো। আর হ্যা সাইন করার পর জানবে এটা কি।
ফরিদ রেগে গিয়ে বলে উঠলো।
_ মানে কি হ্যা? আমি কি না দেখে সাইন করবো?
আমি ফরিদ’র মায়ের দিকে তাকালাম। উনি সামনে এসে ফরিদ’র হাত ধরে। নিজের মাথায় রেখে বললো।

_ এটাতে চুপচাপ সাইন কর। নাহলে আমার মরা মুখ দেখবি।
ফরিদ’র বাবাও বললো।
_ শুধু তোর মাম্মার না আমারও! ফরিদ হাত নামিয়ে রাগে গজগজ করতে করতে সাইন করে দিলো। আমি অবাক এতেই কাজ হলো? তাতে আমার কি? ফরিদ’র সাইন করার পর। আমি একটানে পেপারস নিয়ে। জোড়ে হেসে দিলাম ফরিদ আর জনী ভাইয়া। ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছে। আমি হাসি থামিয়ে বললাম।

_ সো মিস্টার হাজবেন্ড। এখন বাড়ি চলে যাও। এইযে শ্বশুর মশাই আর শাশুড়ী আম্মু। আপনাদের এই বখাটে ছেলে নিয়ে বাড়ি যান। ফরিদ কিছু না বুঝে বললো।
_ হাজবেন্ড মানে? আর কিসের শ্বশুর শাশুড়ি? আমি মুচকি হেসে বললাম।

_ তুমি আমার হাজবেন্ড। আর তোমার বাবা, মা শ্বশুর শাশুড়ি।
ফরিদ হো হো করে হেসে বললো।
_ পাগল নাকি? আমি কেন তোমার হাজবেন্ড হবো?
আমিও বাঁকা হেসে বললাম।

_ পেপারসে সাইন করলে যে। ওটা বিয়ের রেজিস্ট্রি পেপারস।
মুহূর্তেই ফরিদ’র মুখের হাসি উড়ে গেলো। ঝাঝালো কন্ঠে বললো।
_ ওয়াট দা হেল আর ইউ সেয়িং? মাম্মা কি বলছে ও? ফরিদ’র মা আর বাবা একসাথে বললো।
_ ও ঠিকই বলেছে। জনী ভাইয়া মনে হয় ঘোরে ছিলো। হঠাৎ বলে উঠলো।

_ তৃশ এসব কি? কি বলছিস তুই?
আমি জনী ভাইয়া কে পেপারস দিলাম। ভাইয়া দেখে বললো।
_ তুই এই লম্পট কে কেন বিয়ে করলি? ও তো তোর সম্মান।
আমি ভাইয়া কে থামিয়ে বললাম।

_ আমার সম্মান ও নষ্ট করেছে। ওর জন্য যেমন আমার সম্মান হারিয়েছে। ঠিক তেমন ৩দিনের মধ্যে। এই ফরিদ’ই আমার সম্মান ফিরিয়ে দেবে।
ফরিদ চেচিয়ে বললো।

_ কখনো না এই বিয়ে আমি মানিনা। আর তোর সম্মান? হা হা কোনদিন ফিরে পাবিনা।
ফরিদ’র বাবা রেগে বললো।

_ ফিরিয়ে দিতে তুই বাধ্য। তুই মানতেও বাধ্য। যখন আজেবাজে কাজ করলি। তখন মাথায় আসেনি ওর কি হবে? তুই ওর সম্মান নষ্ট করেছিস। এখন তুই ওর হাজবেন্ড। খবরদার ফরিদ এ নিয়ে আর কোনো কথা হবেনা। আমি যা বলবো তুই সেটা করতে বাধ্য।
আমি ফরিদ’র বাবার সামনে গিয়ে বললাম।

_ উহুম ভুল বললেন। ও ঠিক সেটা করবে যেটা আমি চাই। এন্ড ইউ বেশী বাড়াবাড়ি করলে। সারাকিবীবন এই লকাবে পচে মরতে হবে। সো মিস্টার হাজবেন্ড ৩দিন পর। বর সেজে চলে এসো ওকে?
ফরিদ রাগে গজগজ করতে করতে বেরিয়ে গেলো। ফরিদ’র বাবা,মা আমার কাছে ক্ষমা চাইলো।

আমার মাথায় হাত বুলিয়ে। ওনারাও চলে গেলো। জনী ভাইয়া আর আমি বাড়ি এসে। সবাই কে সবটা বুঝিয়ে বললাম। ফরিদ’র বাবা আমার বাবা’র সাথে কথা বলে। ৩দিন পর আমার আর ফরিদ’র বিয়ে ঠিক করলো। সেখানে প্রেস, মিডিয়াও থাকবে। সবাই কি ভাবছেন?

কেন বিয়েটা করছি? ফাহিম চৌধুরী’র জীবন নরক করতে। সবার সাথে কথা বলে। রুমে এসে ওয়ারড্রবে। রেজিস্ট্রি পেপারস রেখে। বিছানায় বসে জয়ের হাসি দিলাম। আর প্রমিস করলাম। ফাহিম চৌধুরী’র ঘুম হারাম করে দেবো। আমার সাথে যেটা করেছে। তার শাস্তি ওকে পেতে হবে। সবসময় মেয়েরা একা। কেন সব সহ্য করবে? ওর লাইফটা আমি জাস্ট হেল করে দেবো। ইয়েস ইটস মাই প্রমিস।


পর্ব ৫

পরেরদিন থেকে সবাই বিজি। যেহেতু ৩দিন পর বিয়ে। তাই হাতে সময় নেই। আমি আমার বাবা, মায়ের একমাএ মেয়ে। তাই তারা কোনোকিছু কমতি রাখবে না। গায়ে হলুদের আয়োজন করেছে। আগামীকাল গায়ে হলুদ। সব রিলেটিভ চলে এসেছে। বাবা, মা, ভাইয়া আমাকে সাপোর্ট করেছে। এতে আমি খুশি এবার যা করার আমি করবো। বিয়ের শপিং করার জন্য। ফরিদ’র মা মানে এখন তো।

আমার শাশুড়ি ফোন দিয়ে যেতে বলেছে। ভাল লাগছে না এসব কিন্তু যেতে তো হবেই। নাহলে আমি কি করে আমার টার্গেট পুরন করবো। তাই চলে গেলাম ফরিদ ও আছে। কেউ কারো সাথে কথা বলছি না।

ফরিদ রাগী দৃষ্টিতে তাকাচ্ছে বারবার। আমি ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে আছি। এতে ফরিদ’র রাগ আরো বাড়ছে। বিয়ের শপিং শেষ করে। বাড়িতে চলে এলাম ক্লান্ত লাগছে খুব। তাই বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম। ফরিদ’রা ও বাড়ি চলে গিয়েছে। ফরিদ মানতে পারছে না এখনো যে। আমি এভাবে ওকে জব্দ করবো। ফরিদ রাগে ফোস ফোস করে বলছে।

_ ওই মেয়েটা আমার বউ? লাইক সিরিয়াসলি? নো ওয়ে এই বিয়ে আমি মানবো না। আমাকে বিয়ে করার ফল। তোমার ভুগতে হবে মিস মিম। ওহ এখন তো মিসেস মিম চৌধুরী। মিসেস মিম চৌধুরী হওয়ার খুব শখ না? ওকে ফাইন আমি তোমার এই শখ ঘুচিয়ে দেবো।

ঘুমের মাঝে টের পাচ্ছি। কেউ আমার কানে সুরসুরি দিচ্ছে। আর এটাও বুঝতে পারছি। ইনি আর কেউ না। ইনি হচ্ছে আমার বেষ্টু। লাফ দিয়ে ঘুম থেকে উঠলাম। শয়তান মেয়ে দাত কেলিয়ে আছে। এক বস্তা বিরক্তি নিয়ে বললাম!
_ ওই আমার এত স্বাধের ঘুমটা। তুই এভাবে নষ্ট করলি কেন? লিমা দাত কেলিয়েই বলে উঠলো।

_ পরশু তোর বিয়ে। আর তুই এখন এভাবে ঘুমাচ্ছিস?
আজিব ওর কথা শুনে মনে হচ্ছে। বিয়ের আগে ঘুমাতে নেই। মুখ খিচে বললাম।

_ তোর কথা শুনে মনে হচ্ছে। বিয়ের আগে ঘুমাতে নেই। ড্যাং ড্যাং করে লাফাতে হয়। শোন ঘুম পেয়েছে ঘুমিয়েছি। তোর যদি আমার ঘুম সহ্য না হয়। তাহলে এক কাজ কর। তুইও আমার পাশে ঘুমিয়ে পড়।
আমার কথায় লিমা আহম্মক বনে গেলো। ওর মুখের রিয়েকশন দেখে। আমি হু হা করে হেসে ফেললাম। লিমা এবার ধমক দিয়ে বললো।

_ যা গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নে। আন্টি তোকে ডাকছে!
আল্লাহ আম্মু ডেকেছিলো। আমি দৌড়ে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে বেরিয়ে এলাম। এরপর নিচে নেমে এলাম। আম্মুর পাশে গিয়ে বসে জিগ্যেস করলাম।

_ আম্মু তুমি আমাকে ডেকেছো? আম্মু আমার হাতে। একটা বক্স তুলে দিলো। বোঝা যাচ্ছেনা কিসের বক্স। তাই আবার আম্মু কে বললাম।

_ আম্মু এটা কিসের বক্স? আম্মু মুচকি হাসি দিয়ে বললো। খুলে দেখ! বক্সটা খুলে দেখলাম। অনেকগুলো গয়না গলার নেকলেস। কানের ঝুমকো, টিকলি। আংটি, হাতের মোটা বালা। সবগুলো দেখতে খুব সুন্দর। এগুলো আগে তো দেখিনি।

_ আম্মু এগুলো কার? আম্মু আমার কথা শুনে হাসলো। হেসে হেসেই বললো!
_ তোর হাতে দিয়েছি। তাহলে কি অন্যকারো? আর আমাদের কি আরেকটা মেয়ে আছে? এইসব গয়না তোর। তোর বিয়েতে দেবো বলে বানিয়েছিলাম।

আমি গয়নাগুলো ভাল করে দেখে আম্মুর কাছে দিলাম। এখন এগুলো দিয়ে কি করবো? ভাইয়া আমার পাশে বসে। এটা ওটা বলছে এতক্ষণে খেয়াল করলাম। জনী ভাইয়া নেই থানা থেকে আসার পর। জনী ভাইয়া কে একবারও দেখিনি। ভাইয়া কে জিগ্যেস করলাম।

_ ভাইয়া জনী ভাইয়া কোথায়? ভাইয়া ফোনে গেমস খেলতে খেলতে বললো।
_ জনী ভাইয়া ছাদে আছে। কেমন একটা লাগছে। জনী ভাইয়া তো সেকেন্ডে সেকেন্ডে এক হিসেবে। আমার রুমে আসে। রোজ চকলেট, আইসক্রিম দেয়। আজ একবারও এলোনা আর আমাকে। চকলেট, আইসক্রিমও দিলোনা। আমি পা টিপে টিপে ছাদে গেলাম।

একপাশে এখনো রোদ আছে। তাই অন্যপাশে দাড়ানো। আমি পিছন থেকে জনী ভাইয়ার। কাধে হাত রাখলাম। ভাইয়া চট করে পিছনে তাকালো। জনী ভাইয়া কে দেখে অবাক হলাম। চোখ মুখ ফুলে আছে। মুখটা মলিন চুলগুলো উস্কো খুস্কো। জনী ভাইয়া আমাকে দেখে। ঠোটের কোনায় হাসি ঝুলিয়ে রাখলো। এটা যে জোড় পূর্বক হাসি। আমার সেটা বুঝতে বাকি নেই। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে। জনী ভাইয়ার কি হয়েছে? প্রশ্ন নিজের মনে চেপে রাখতে পারলাম না। তাই প্রশ্ন করেই ফেললাম।

_ জনী ভাইয়া কি হয়েছে তোমার? জনী ভাইয়া স্লান হাসলো। এরপর শার্টের হাতা ঠিক করতে করতে বললো।
_ কই আমার কি হবে? কিছু হয়নি তো। আমি বিশ্বাস করতে পারলাম না। কি করে বিশ্বাস করবো? স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি তাই বললাম।
_ তাহলে তোমার চোখ মুখ ফোলা কেন? জনী ভাইয়া আবারও স্লান হেসেই বললো।

_ আসলে কি হয়েছে বল তো? তোর বিয়ে নিয়ে বেশী এক্সাইটেড। আর এক্সাইটেড এর জন্য। রাতে ঠিক করে ঘুম হয়নি। এখন গিয়ে একটা কড়া ঘুম দিতে হবে। নাহলে তোর বিয়ের দিন তো। আমাকে আর দেখা যাবেনা। আমার দিকে কেউ ফিরেও তাকাবে না। আমি এবার মুখ ফুলিয়ে বললাম।

_ আজ আমাকে চকলেট, আইসক্রিম দিলেনা কেন?
_ এখন তো তোর বিয়ে হয়েছে। তোর স্বামী তোকে দেবে। এখন এমন করলে তোর স্বামী সন্দেহ করবে।

জনী ভাইয়া কথাটা বলেই হু হা করে হাসি দিলো। এরপর ছাদ থেকে চলে গেলো। তবুও আমার কেমন একটা লাগছে। ধুর এত চাপ আর ভাল লাগেনা। আমিও ছাদ থেকে নেমে চলে এলাম!
এদিকে রাতে ফরিদ ক্লাবে ইচ্ছেমত ড্রিংক করছে। পাশে ওর কামিনা ফ্রেন্ডরা। তার মধ্যে থেকে তুলি নেকামী করে বললো।

_ বেবী ওয়াট হ্যাপেন্ড? ফরিদ যেন সবটা মানতে পারছে না। রেগে বললো!
_ তুমি জানোনা কি হয়েছে? আরে ওই মেয়েটার সাথে আমার বিয়ে। আমি জাস্ট নিতে পারছি না এসব।
_ তাহলে বিয়ে করছিস কেন? সাব্বির’র প্রশ্ন শুনে ফরিদ অগ্নিদৃষ্টি তে তাকিয়ে বললো।
_ বিয়ে কি আর স্বাধে করছি? বিয়ে তো হয়েই গিয়েছে। আমার মাম্মা, পাপা কে ভুলিয়ে ভালিয়ে। আমাকে দিয়ে তো আগেই। বিয়ের রেজিস্ট্রি পেপারস সাইন করিয়ে নিয়েছে। তুলি শয়তানি হাসি দিয়ে বললো।

_ বেবী বিয়ে যেমন আছে। তেমন ডিভোর্স ও কিন্তু আছে। ফরিদ এবার খুশি হয়ে বললো, ইয়াহ ইউআর রাইট।
_ বিয়ের পর ওই মেয়েটার জীবন বিষিয়ে দাও। এমন ভাবে বিষিয়ে দেবে। মেয়েটা বাধ্য হয়ে নিজে থেকেই। তোমাকে ডিভোর্স দিয়ে দেবে। তুলি’ র কথায় ফরিদ বাঁকা হাসি দিলো। এরপর ক্লাব থেকে গাড়ি নিয়ে বাড়ি চলে এলো। ফরিদ’র বাবা, মা অবাক হলো। কারন ফরিদ এত তাড়াতাড়ি কখনোই বাড়ি ফেরেনা। ফরিদ নিজের রুমে গিয়ে শুয়ে পড়লো।

আজ আমার গায়ে হলুদ। সকাল থেকেই সবাই বিজি। কাউকে হাতের কাছে পাচ্ছিনা। রাগ লাগছে লিমা দুহাতে। সুন্দর করে মেহেদী পড়িয়ে দিয়েছে কিন্তু। আমার খুব বিরক্ত লাগছে। এভাবে কতক্ষণ বসে থাকা যায়?

বিছানা থেকে নেমে গুটিগুটি পায়ে। দরজা পর্যন্ত গেলাম। তখনই কোথা থেকে লিমা ঝড়ের গতিতে রুমে এলো। আমি একরাশ বিরক্তি নিয়ে বললাম!
_ এভাবে আমাকে বসিয়ে রেখে। তুই কোথায় চলে গিয়েছিলি?

লিমা আমাকে নিয়ে আবার। বিছানায় বসিয়ে দিলো। এবার আমার বিরক্তি রাগে পরিনত হলো। দিলাম এক ধমক। বেচারী এভাবে হঠাৎ ধমক দেয়ায়। কিছুটা ভরকে গেলো। তাতে আমার কি? আমি রেগে কটকট করে বললাম।

_ তুই এখান থেকে যাবিনা। যদি এক পা নড়েছিস তাহলে। তোর পা ভেঙে দেবো।
লিমা টুপ করে আমার পাশে বসে পড়লো। গল্প করতে করতে মেহেদী শুকিয়ে গেলো। মেহেদী উঠিয়ে নিচে নেমে গেলাম। এভাবে বসে থাকতে বোরিং লাগে। সবার সাথে কথা বলে চলে এলাম। রাতে আমাকে সাজানো হচ্ছে। হলুদ একটা লেহেঙ্গা পড়িয়ে দিয়েছে। কাচা ফুলের গয়না সব।

আমাকে সাজিয়ে স্টেজে। যেখানে হলুদ দেবে। সেখানে নিয়ে এসেছে। স্টেজে চোখ বুলিয়ে নিলাম। সুন্দর করে সাজানো হয়েছে। আমাকে নিয়ে স্টেজে বসিয়ে দিলো। এরপর এক এক করে সবাই হলুদ দিলো। একেবারে হলুদ ভুত বানিয়ে ফেলেছে।

ওদিকে ফরিদ’দের বাড়িতেও। গায়ে হলুদের রিচুয়েলস চলছে। ফরিদ কে ও গায়ে হলুদ দিচ্ছে। ফরিদ শুধু ফোস ফোস করছে। কিছু বলতেও পারছে না!

গায়ে হলুদ শেষে রুমে এসে। শাওয়ার নিয়ে শুয়ে পড়লাম। আজ আর চোখে ঘুম ধরা দিচ্ছেনা। খুব কান্না পাচ্ছে। কাল এই বাড়ি এই ঘর। এসব ছেড়ে অন্য বাড়িতে যেতে হবে। এটা ভেবেই কলিজা ছিড়ে যাচ্ছে। কাল থেকে আর ভাইয়ার সাথে। ঝগড়া হাসি মজা করতে পারবো না।

আম্মুর কোলে মাথা দিয়ে। আম্মুর শৈশব শুনতে পারবো না। বাবা অফিস থেকে আসার পর। মুখ ফুলিয়ে গিয়ে বলতে পারবো না। বাবা আমার চকলেট দাও। বাবাও আর আমাকে রাগানোর জন্য বলবে না। চকলেট তো আনিনি প্রিন্সেস। এসব ভেবে দম বন্ধ হয়ে আসছে। এগুলো ছেড়ে কি করে থাকবো? না আর ভাবতে পারছি না। এক দৌড়ে রুম থেকে বেরিয়ে ভাইয়া কে গিয়ে।

জড়িয়ে ধরে কেঁদে দিলাম। আমার কান্না শুনে বাবা, আম্মু ও চলে এসেছে। হয়তো বুঝেছে কেন কান্না করছি। কিন্তু নিজেদের স্ট্রং রেখে আমাকে। সিফাত করে রুমে পাঠিয়ে দিলো। সারারাত বিছানায় এপাশ ওপাশ করে। শেষ রাতের দিকে ঘুম পেয়ে গেলো।

ভারী লেহেঙ্গা গা ভর্তি গয়না পড়ে। বিছানায় বসে আছি। আজ আমার বিয়ে। লালের মধ্যে গোল্ডেন স্টোনের লেহেঙ্গা। মেকআপ করতে চাইনি। বিয়েতে নাকি এভাবে সাজে। আমাকে সাজিয়ে বসিয়ে দিয়েছে। ফরিদ’রা চলে এসেছে এবার আমাকে নিচে নিয়ে এলো। আমাকে ফরিদ’র পাশে নিয়ে এসেছে। একবার শয়তানটা কে দেখে নিলাম। মাশা আল্লাহ দেখতে। কিন্তু মনটা তো নাউজুবিল্লা। আমি সকলের সামনেই বললাম।

_ বিয়ে পড়ানোর আগে। আমি ফরিদ’র সাথে কথা বলবো। বিয়ের কনে যদি বিয়ের দিন। এমন কিছু বলে তাহলে সবাই অবাক হবে। এখানেও অবাক হলো। অনেক বলে ফরিদ কে নিয়ে আমার রুমে এলাম। ফরিদ রাগে গজগজ করে বললো।

_ কি বলবে হ্যা? আমি বাঁকা হেসে বললাম।
_ মিস্টার হাজবেন্ড এখন তুমি। নিচে গিয়ে প্রেস মিডিয়ার সামনে। ঠিক সেটাই বলবে। যেটা এখন আমি তোমাকে বলতে বলবো। ফরিদ চেচিয়ে বললো।

_ ওয়াট? আর ইউ লস্ট ইউআর মাইন্ড? আমি কিছু বলবো না। আমি পেপারসটা বের করলাম। এরপর হাতে নিয়ে ঘোরাতে ঘোরাতে বললাম।
_ তাহলে কি জেলে যাবে? এই পেপারসে লেখা আছে। আমি যা বলবো তুমি সেটা করবে।
ফরিদ একটানে পেপারস নিয়ে পড়লো। যখন দেখলো সত্যি। তখন পেপারস ছিড়ে ফেললো। আমি জোড়ে হেসে দিলাম। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে তাকালো। আমি হাসতে হাসতে বললাম।

_ আমি জানতাম তুমি এমন করবে। তাই গতকাল এমন আরো। ১০টা পেপারস কপি করে রেখেছি। আর ওটাও কপি। সো টাইম ওয়েস্ট না করে। আমি যা শিখিয়ে দিচ্ছি। নিচে গিয়ে সেটাই বলবে। তুমি নিশ্চই চাওনা তোমার বাবা, মা। তোমার জন্য মরে যাক। মানে কাল তো কসম দিলো। ফরিদ রেগে বোম হয়ে বললো।

_ কি বলতে হবে? আমি জয়ের হাসি দিয়ে বললাম।
_ তুমি নিচে গিয়ে মিডিয়া কে বলবে। সেদিন রাতে তুমি আমার সাথে। কিছু করোনি তুমি ড্রিংক করে ছিলে। আর তোমার নিজের উপড় কন্ট্রোল ছিলোনা। তাই তুমি আমাকে গাড়ি থেকে ফেলে দিয়েছিলে।
ফরিদ তাচ্ছিল্যের হাসি দিয়ে বললো।
_ এসব বললেও সত্যিটা তো বদলে যাবেনা। তুমি একজন ধর্ষিতা। আমি রেগে বললাম।

_ তোমাকে যেটা বলতে বলেছি। সেটা গিয়ে বলবে চলো।
এরপর আমি আর ফরিদ। নিচে নেমে এলাম। কাজী আবার আমাদের বিয়ে পড়ালো। এবার ফরিদ মিডিয়া কে সেটাই বললো। যেটা আমি বলতে বলেছি। এসব শুনে মিডিয়া প্রশ্ন করলো!

_ তারমানে আপনি সেই ছেলে? এটা নিয়ে রীতিমত হৈ চৈ পড়ে গেলো। আমাকে রেখে সবাই ফরিদ কে নিয়ে পড়লো। আমি বাঁকা হেসে ফরিদ’র দিকে তাকালাম। এটাই তো চেয়েছিলাম। আমি আরেকটু রাগ বাড়িয়ে দিতে বললাম।

_ হ্যা ফাহিম চৌধুরী সেই ছেলে। আসলে ওর নিজের উপড় কন্ট্রোল ছিলোনা। তাই আমাকে তুলে নিয়েছিলো। আর ভার্সিটির রাগ ঝাড়তে। চলন্ত গাড়ি থেকে ফেলে দিয়েছিলো।

সবাই ফরিদ কে কথা শোনাচ্ছে। বাবা আর ফরিদ’র বাবা সিফাত করলো। এবার চলে এলো আমার বিদায়ের পালা। বুক ফেটে যাচ্ছে সবাই কে ধরে কান্না করছি। চিৎকার করে বলতে ইচ্ছে করছে। বাবা, আম্মু, ভাইয়া। আমি তোমাদের ছেড়ে যাবোনা। কিন্তু গলা দিয়ে কোনো কথা যেন আজ বের হচ্ছেনা।

গলাতেই কথাগুলো দলা পাকিয়ে যাচ্ছে। আমাকে গাড়িতে ওঠানো হলো। সারা পথ কান্না করে এসেছি। সব নিয়ম সেরে আমাকে একটা রুমে বসিয়ে দিয়ে গিয়েছে। ফুল দিয়ে সাজানো বাসর ঘর হয়তো। ভেবেই তাচ্ছিল্যের হাসি দিলাম। একটু পর ফরিদ এলো। ফরিদ এসেই দরজা ধপাস করে বন্ধ করলো। আমি বিছানা থেকে নেমে। সালাম করতে গেলাম। ততক্ষণাক ফরিদ পিছনে সরে গেলো। ঝাঝালো গলায় বললো।

_ আমার থেকে দুরে থাকবে। আমি আবার বিছানায় চলে এলাম। ফরিদ আমার হাত ধরে নামিয়ে। একটা বালিশ ছুড়ে মারলো। এরপর রেগেই বললো।

_ এই বিছানা আমার। এখানে আমি থাকবো একদম। আমার বউ হবার চেষ্টা করবে না। তোমাকে আমি মানিনা। তাই এটা ভেবোনা এখানে। তোমার আর আমার বাসর হবে। আমি হনহন করে গিয়ে। ফরিদ’র কলার ধরে দাড় করালাম। ফরিদ দাতে দাত চেপে বলে উঠলো।

_ কলার ছাড়ো বলছি। আমি আরো শক্ত করে ধরে বললাম!
_ নিজেকে কি মনে করো? তুমি কি ভেবেছো? আমি এখানে তোমার সাথে। এই বিছানায় বাসর করার জন্য বিয়ে করেছি? লিসেন আমার জাস্ট এসবে ইন্টারেস্ট নেই। ইয়েস মিস্টার ফাহিম চৌধুরী।

আই হ্যাব নো ইন্টারেস্ট ইউ। এন্ড ইউআর লো এটিটিউড। ফরিদ কলার ছাড়িয়ে আমাকে থাপ্পর মারতে হাত ওঠালো। আমি ওর হাত ধরে পিছনে মুছড়ে ধরলাম। খুব রাগ লাগছে। ফরিদ বারবার হাত ছাড়তে বলছে।

_ আমার হাত ছাড়ো বলছি। পাশে চোখ গেলো। ওমা ছুড়িও আছে দেখছি। ফরিদ কে বিছানায় ফেলে। ছুড়িটা হাতে নিয়ে ওর গলায় ধরলাম। ফরিদ চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে বললো।
_ এটা কি করছো তুমি? এটা সরাও এটা ধারালো অনেক। আমি হাসি দিয়ে বললাম।

_ মরতে এত ভয় পাও?
_ মরতে সবাই ভয় পায় এটা সরাও। ফরিদ’র কথা শুনে ছুড়ি দিয়ে। নিজের হাতে একটা টান দিলাম। ফরিদ অবাক হয়ে বললো।

_ ওয়াট আর ইউ ডুয়িং? পাগল নাকি? আমি রাগী ভাবে ওর দিকে তাকিয়ে বললাম।
_ নিজের হাতে যদি টান দিতে পারি। তাহলে তোমার গলায়ও টান দিতে পারি। যে বালিশ আমাকে দিয়েছো। ওটা নিয়ে হয় ফ্লোরে নাহলে সোফায় শুয়ে পড়ো। তোমার বাবা, মা কে ডাকতে বাধ্য করো না।
ফরিদ রাগে ফুসতে ফুসতে গিয়ে সোফায় শুয়ে পড়লো। আমিও চেন্জ করে বিছানায় শুয়ে পড়লাম। আর নিজেই ভাবছি। এবার দেখো কেমন লাগে। এটাতো সবে শুরু।


পর্ব ৬

সকালে ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। একটা লাল রঙের শাড়ি পড়েছি। বিয়ের পর নাকি শাড়ি পড়তে হয়। আয়নার সামনে গিয়ে চুল আচরাচ্ছিলাম। চোখ গেলো সোফায়। ফরিদ এখনো ঘুমিয়ে আছে। ওর ঘুম আমার সহ্য হলোনা। কিছু করতে হবে। যেই ভাবা সেই কাজ। ওয়াসরুমে গিয়ে এক বালতি পানি এনে। ফরিদ’র উপড় ঢেলে দিলাম। ওমনি ফরিদ হুড়মুড় করে উঠলো। আমার হাতে বালতি দেখে। রাগী ভাবে বললো।

_ এটা কি করলে তুমি?
_ আসলে তোমার ঘুম। আমার সহ্য হচ্ছিলো না তাই। এত সুন্দর করে তোমাকে জাগালাম।
ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে বললাম। ফরিদ হুট করেই আমার গলা চেপে ধরলো।

_ খুব ভুল করছো তুমি। আমি শুধু মাএ মাম্মা, পাপার জন্য চুপ আছি। নাহলে তোমাকে কি করে শায়েস্তা করতে হয়। আমার ভাল ভাবে জানা আছে। সো ইউ জাস্ট স্টে ইন ইউআর লিমিট।
ওর কথাশুনে রাগ লাগছে। তার উপড় এভাবে গলা চেপে ধরায়। রীতিমত আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে। কিন্তু ফরিদ ধরেই রেখেছে। শরীরের সমস্ত শক্তি দিয়ে ধাক্কা মারলাম। এতে ফরিদ পিছিয়ে গেলো। ঠাস করে এক থাপ্পর বসিয়ে দিলাম। এটা ভেবেই রাগ লাগছে ও কি মানুষ? ফরিদ আমার দিকে রাগী দৃষ্টি তে তাকালো। আমিও রাগী ভাবেই বললাম।

_ তুমি যে কোনদিন চেন্জ হবেনা। এটা বোঝা হয়ে গিয়েছে। অবশ্য কি করে হবে? দেখতে হবে তো ধর্ষক বলে কথা। অমানুষ একটা নাহলে কি আর? রাতের আধারে একটা মেয়ে কে।
আমার মুখ থেকে কথা কেড়ে নিয়ে ফরিদ বলে উঠলো।
_ হ্যা করেছি আমি ধর্ষন। হ্যা আমি ধর্ষক তোমাকে ধর্ষন করেছি। আমাকে ক্যারেক্টারলেস বলেছিলে না? ক্যারেক্টারলেস রা তো এটাই করে। সো কি করবে তুমি?

আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। একটা মানুষ এতটা নিচ কি করে হয়? ছিঃ আবার বড় গলায় বলছে। আবার এ কি না আমার স্বামী। সব কিছুর উপযুক্ত শাস্তি আমি একে দেবো। তারপর এখানে থাকলে থাকবো। না থাকলে নেই চলে যাবো। হঠাৎ দরজা ধাক্কানোর আওয়াজ হলো। আমি গিয়ে দরজা খুলে দিলাম। একটা মেয়ে দাড়ানো। দেখে আমার থেকে বড় মনে হচ্ছে। কিন্তু আমি তো চিনিনা। তাই বললাম!

_ আপনি কে?
মেয়েটা মুচকি হেসে বললো।
_ আমি তোমার ননদ গো ভাবী।
ফরিদ মেয়েটা কে দেখে এগিয়ে এলো। সিউলী বলে জড়িয়ে ধরলো। বুঝলাম মেয়েটার নাম সিউলী। কিন্তু ফরিদ’র তো বোন নেই। কিছু বুঝতে পারছি না মেয়েটাই বললো।

_ বুঝতে পারছো না তো? ওকে আমি বলছি আমি সিউলী। ফরিদ ভাইয়ার ফুপির মেয়ে। রাতেই এসেছি এতদিন। মুম্বাই তে ছিলাম।
আমি মুচকি হেসে বললাম।

_ আপু এখানে বসুন না!
_ তুমি আমাকে আপু বলবে না। আমি তোমাকে ভাবী বলবো। তুমি নাম ধরেই বলো।
সিউলীর কথা শুনে বুঝলাম। মেয়েটা ভাল অনেক গল্প করলাম। আমাকে নিচে নিয়ে যেতে বলছে।

সিউলী আমাকে নিচে নিয়ে এলো। ফরিদ’র মা সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে। সবাই কে সালাম করলাম। সবাই এতে খুশি হলো। সিউলীর মা আমাকে। ওনার পাশে বসিয়ে আমার গলায়। একটা চেইন পড়িয়ে দিলো। মুচকি হেসে বললো।

_ বাহ ভারী মিষ্টি মেয়ে তুমি। সবাই কে কি সুন্দর সালাম করলে। আজকাল তো এমন মেয়ে হাজারে ২জন।
এমন সময় ফরিদ নেমে এলো। একটা কালো জিন্স প্যান্ট। আর লাল শার্ট গায়ে। চুলগুলো ভেজা টপটপ করে পানি পড়ছে। আমি হা করে কিছুক্ষণ তাকিয়ে রইলাম। চোখ পড়লো ওর ডান হাতে। হাতে গাড়ির চাবি। ফরিদ নিচে এসে ফুপির সাথে কথা বলে। বাড়ি থেকে বের হবে। তখন ওর মা বললো।

_ ফরিদ কোথায় যাচ্চিস?
ফরিদ প্রশ্ন শুনে পিছনে তাকালো। চোখে মুখে বিরক্তি ফুটে উঠেছে। বিরক্তি নিয়ে বললো।
_ এরকম স্টুপিড কোশ্চেনের মানে কি?

আমি জাস্ট হতভম্ব মায়ের সাথে। কেউ এভাবে কথা বলে। আমার জানা ছিলোনা। কিন্তু নিজেই ভাবলাম। কথা যখন ফাহিম চৌধুরী’র। তাহলে এবরিথিং ইজ পসিবল। ফরিদ’র মা রাগী গলায় বললো।
_ তুই এখন কোথাও যাবিনা। কাল তোর বিয়ে হয়েছে। আজ কোথাও যাওয়া চলবে না।

_ মাম্মা তুমি খুব ভাল করে জানো। আমি তোমার কথা শুনবো না। তাহলে নিজের টাইম কেন ওয়েস্ট করছো?
_ শুনতে তুমি বাধ্য। আর সহ্য হলোনা। তাই ফরিদ কে বললাম। ফরিদ আমার কথা শুনে কটকট করে তাকালো। ওর সামনে গিয়ে আবার বললাম।

_ উনি তোমার মা তাই। তোমার উচিত ওনার সব কথা শোনা। আর তুমি শুনবে বুঝেছো? ফরিদ দাতে দাত চেপে বললো।
_ তুমি কি আমাকে অর্ডার করছো? তোমার কি মনে হচ্ছেনা? তুমি বেশী বাড়াবাড়ি করছো। আমি হাসি দিয়ে বললাম!

_ না আমার মোটেও মনে হচ্ছেনা। তুমি ওনার ছেলে আর উনি তোমার মা। উনি তোমাকে ভালবাসে ফরিদ। সেই হিসেবে তো ওনার কথা শুনতে পারো। আমার কথা শুনে ফরিদ পাগলের মতো হাসতে লাগলো। হঠাৎ এভাবে কেন হাসলো বুঝলাম না। হ্যা এই হাসির মানে আমি বুঝলাম না। তবে এতটুকু খেয়াল করলাম। হাসার মাঝেই ফরিদ’র চোখের কোনে। পানি জমে আছে ফরিদ সেটা আড়াল করে বলে উঠলো।

_ আমি বাইরে যাচ্ছি আমাকে আটকাবে না।
ফরিদ গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়লো। আমিও আর কিছু বুঝতে পারলাম না। সবার সাথে কথা বলে রুমে চলে এলাম। বারবার ভাবছি ফরিদ’র চোখে। পানি কেন ছিলো?

এসব ভাবছিলাম এমন সময় ফোন বেজে উঠলো। হাতে নিয়ে দেখলাম ভাইয়া। চট করে ফোন রিসিব করলাম।
_ ভাইয়া কেমন আছিস?

_ ভাল আছি তোকে মিস করছি রে। ভাইয়ার কথায় খুব খারাপ লাগছে। মনটা খারাপ হয়ে গেলো। কাঁদো কাঁদো ভাবে বললাম।

_ আমিও মিস করছি ভাইয়া। তোদের সবাই কে মিস করছি। আচ্ছা জনী ভাইয়া কোথায়? ভাইয়া কে জিগ্যেস করলাম।

_ এইতো এখানেই আছে! ভাইয়ার কথায় মুখে হাসি ফুটে উঠলো। ভাইয়া কে বললাম জনী ভাইয়া কে দিতে। ভাইয়া জনী ভাইয়া কে দিলো। আমি রেগে বললাম।

_ জনী ভাইয়া তুমি একটুও ভাল না। তুমি আসলেই পচা। তুমি গতকাল কোথায় ছিলে? তুমি নাকি আমার বিয়ে নিয়ে এক্সাইটেড? তাহলে তোমাকে দেখলাম না কেন? তুমি আমাকে একটুও ভালবাসো না।
বুঝলাম না কি হলো। জনী ভাইয়া ফোনটা ভাইয়া কে দিয়ে দিলো। খুব খারাপ লাগছে জনী ভাইয়া কেন এমন করছে? আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না। হঠাৎ করে কি হলো?

ওদিকে জনী ভাইয়া ছাদে চলে গেলো। ছাদে গিয়ে দেখলো লিমা। জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো!
_ তুমি এখানে?
লিমা জনী ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে স্লান হাসলো। এরপর অন্যদিকে ঘুরে বললো।
_ হ্যা কাল চলে যেতে চেয়েছিলাম। আন্টি যেতে দেয়নি। আগামীকাল তো মিম’র রিসেপশন। তারপর চলে যাবো।

জনী ভাইয়া ছাদের রেলিং ঘেসে দাড়ালো।
_ এখনো কি আমাকে মানা যায়না?
লিমাে’র প্রশ্নে জনী ভাইয়া ঘুরে দাড়ালো। অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে লিমাে’র দিকে।
_ অবাক হওয়ার কিছু নেই। ভালবাসি তো তোমাকে। তাই ভুলতে পারিনি।
জনী ভাইয়া গম্ভীর ভাবে বললো!

_ ১ বছর আগেও বলেছিলাম। এখনো বলছি ভুলে যাও আমাকে। কারন আমি তোমাকে ভালবাসি না।
_ জানি মিম কে ভালবাসো। কিন্তু ওর তো বিয়ে হয়ে গিয়েছে।
জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।
_ বিয়ে হয়েছে তাতে কি? আমার ভালবাসা একি আছে। ভালবাসলেই যে পেতে হবে এমন কোনো চুক্তি নেই। শুধু মাএ ভালবেসে এই পৃথিবীতে হাজারও মানুষ। এখনো বেঁচে আছে।
কথা বলতে বলতে। জনী ভাইয়ার চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়লো। জনী ভাইয়া চুপ করে দাড়িয়ে রইলো!

_ তুমি কি সারাকিবীবন একা থাকবে? লিমাে’র কথায় জনী ভাইয়া আবার বললো।
_ হয়তো একা থাকবো। যেই মিম কে আগলে রাখলাম। আমার ধারা কোনদিন কষ্ট পেতে দেইনি। সে তো অন্যকারো হলো। দোষ আমার ভালবাসি এটা বলতে পারিনি। তাই তো হারিয়ে ফেললাম। হ্যা একাই থাকবো।
লিমা মাথা নিচু করে ফেললো। জনী ভাইয়া তাচ্ছিল্য হাসলো।

বিছানায় বসে আছি সিউলী ডাকলো। ফরিদ’র মা নাকি ওনার রুমে যেতে বলেছে। মাথায় ঘোমটা টেনে গেলাম।
_ আসবো আন্টি? আমার কথা শুনে উনি মুখটা কালো করে বললো।
_ না আসবি না। আমি অবাক হলাম কিছুটা। উনি মুচকি হেসে বললো।
_ আন্টি কেন বললি? আমি তো তোরও মা। আর মা’র রুমে মেয়ে আসবে। এতে পারমিশন নেবে কেন?
আমি ওনার পাশে গিয়ে বসলাম।

_ ওকে আমি আপনাকে আম্মু বলবো।
_ তুমি করে বলতে হবে! ফরিদ’র বাবা বললো। এরপর আমার হাতে একটা পেপারস দিলো। আমি বুঝলাম না কিসের? আমাকে দেখতে বললো। দেখে তো আমি শকড। আমি অবাক হয়ে বললাম।
_ বাবা এটা তো প্রপার্টি পেপারস।

_ হ্যা যেগুলো আমি তোর নামে লিখে দিয়েছি। শ্বশুর বাবা’র কথায় তো আমি থ। আমি উত্তেজিত হয়ে বললাম।
_ এগুলো আমার নামে কেন দিয়েছেন? শাশুড়ি আম্মু কেঁদে দিলো। কেঁদে কেঁদেই বললো।
_ মা রে আমার ফরিদ খারাপ হয়ে গিয়েছে। ওকে একমাএ তুই ঠিক করতে পারিস। তোর ভেতরে আমি সেটা খুজে পেয়েছি। কিন্তু ফরিদ যেমন ও যে কোন সময়। তোকে বাড়ি থেকে বের করে দিতে চাইবে। তাই আমি আর তোর বাবা। এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এখন ও চাইলেও। তোকে এ বাড়ি থেকে বের করতে পারবে না।
আমার ইতস্তত লাগছে। আমি এটা কি করে নেবো? আমি বলেই ফেললাম।

_ আম্মু আমি এটা নিতে পারবো না। এটা তোমাদের কাছেই থাক।
বাবা উঠে আরেকটা পেপারস আনলো। এনে আমার হাতে দিয়ে বললো।

_ তাহলে এটা রাখ। আমি জিগ্যেস করলাম, এটা কি?
_ এটা এই পেপারসের কপি। ফরিদ তোকে বাড়ি থেকে বের করতে চাইলে। তুই তখন এটা দেখাবি। বাবার কথায় কিছু একটা ভাবলাম। এরপর কপি পেপারস নিয়ে রুমে চলে এলাম। ফরিদ কে শাস্তি দেয়ার হাতিয়ার পেয়ে গেলাম। এবার উঠতে বসতে ওকে জ্বালাবো। রাতে ব্যালকনি তে দাড়িয়ে আছি। হঠাৎ দরজা আটকানোর শব্দ পেলাম। বুঝলাম ফরিদ এসেছে রুমে চলে এলাম। আমাকে দেখেই ফরিদ রেগে বললো।

_ এতক্ষণ তো রুমে ছিলেনা। আমাকে দেখেই আসতে হলো? আমি বিছানায় পা তুলে বসে বললাম।
_ এতরাত করে বাড়ি ফেরা চলবে না। এখন থেকে তাড়াতাড়ি চলে আসবে। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ তুমি এটা কি করে এক্সপেক্ট করো? যে আমি তোমার কথা শুনবো? কিছু বললাম না শুধু হাসলাম। বিছানায় শুয়ে মনে মনে বললাম। কাল তো রিসেপশন এরপর ওই বাড়ি যাবো। ওখান থেকে এসে তোমাকে আমি ঠিক করবো। যদি না পারি আমিও মিম না।

শাড়ি গয়না পড়ে বসে আছি। পাশে ফরিদ নানান ধরনের মানুষের আমদানি। কারন আজ আমাদের রিসেপশন। আমি ওয়েট করছি বাবা, মা কখন আসবে। হঠাৎ ওদের দেখে দৌড়ে গেলাম গিয়ে জড়িয়ে ধরলাম। সবার সাথে কথা বললাম। এরমাঝে জনী ভাইয়া এলো। জনী ভাইয়া কে দেখে রাগ লাগছে। কেন এমন করছে? ওমা আজও কথা বললো না। সবাই আমার শ্বশুর, শাশুড়ির সাথে কথা বলছে। একটা জিনিষ আমি খেয়াল করেছি। আমার শ্বশুর,শাশুড়ি জনী ভাইয়া কে দেখলেই তাকিয়ে থাকে। এই তাকানো তে শুধু মায়া। কিন্তু কেন?

অতঃপর আমরা আমাদের বাড়ি এলাম। ফরিদ আসতে চায়নি। ওকে জোড় করে পাঠিয়েছে। আর আমি তো আছিই। আমার বাড়ির লোক ফরিদ’র সাথে এমন বিহেব করছে। যেন এই ছেলেটা কত ভাল। ফরিদ নিজেও অবাক হচ্ছে। রুমে এসে চেন্জ করে নিলাম। বিছানায় ঠাস করে শুয়ে পড়লাম। সেম টাইমে ফরিদ ও ঠাস করে শুয়ে পড়লো। হঠাৎ এমন হওয়ায় আমরা দুজন। দুজনের দিকে চোখ বড় বড় তাকালাম।


পর্ব ৭

আমরা দুজন দুজনার দিকে। চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে আছি। আমি চোখ ছোট ছোট করে বললাম!
_ এভাবে কেউ শোয়?
_ সেম কোশ্চেন আমিও করতে পারি। ফরিদ’র কথা শুনে লাফ দিয়ে উঠে বসে বললাম।
_ আমার বাড়ি আমার বিছানা। আমি যেভাবে ইচ্ছে শুতে পারি। তাই বলে তুমি পারবো না ওকে? ফরিদ ও ধপ করে উঠে রাগী ভাবে বললো।

_ ও রিয়েলি? তুমি যখন আমার বাড়িতে। আমার পুরো বেড দখল করেছিলে তখন?
_ আমি করতেই পারি তুমি পারোনা। ফরিদ আমার কথায় দাতে দাত চেপে বললো!
_ লিসেন আই এম সো মাচ টায়ার্ড। সো প্লিজ ডোন্ট ডিস্টার্ব মি। আমার ঘুমানো দরকার। আমি ভেংচি দিয়ে চলে এলাম। জনী ভাইয়ার সাথে কথা বলা দরকার। এমন কেন করছে জানতে হবে। সোজা জনী ভাইয়ার রুমে চলে এলাম। কপালে এক হাত দিয়ে শুয়ে আছে। কোমরে হাত দিয়ে বললাম।

_ জনী ভাইয়া কি হয়েছে তোমার? জনী ভাইয়া কপাল থেকে হাত সরিয়ে। এক পলক আমাকে দেখলো। এরপর আবার আগের মতো রইলো। আমি ফ্লোরে বসে জনী ভাইয়ার শার্ট টেনে ধরলাম। আসলে এটা ছোটবেলায় করতাম। যখন জনী ভাইয়া রেগে যেত। আর কথা না বলতো। তখনই এটা করতাম। এবার জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে তাকালো। ব্যাপারটা বোঝার চেষ্টা করছে হয়তো। কারন তখন ছোট ছিলাম। এখন তো ১৮ রানিং। আবার বিয়েও হয়ে গিয়েছে। জনী ভাইয়া শোয়া থেকে উঠে বসলো!

_ এমন কেন করছো জনী ভাইয়া? ঠোট উল্টে বললাম। জনী ভাইয়া ফিক করে হেসে দিয়ে বললো।
_ তুই কি আর বাচ্চা আছিস? এমন বাচ্চাদের মতো কেন করছিস?
_ এখন তো আমি পর হয়ে গিয়েছি। এখন তো আমি বড় হয়ে গিয়েছি। ভাল আর কথা বলতে হবেনা তোমার। এতটা পর হয়ে গিয়েছি। আমার সাথে কথাই বলা যায়না। জনী ভাইয়া আমার কথা শুনে। আমার কান টেনে উঠিয়ে বসালো। কতক্ষণ হেসে তারপর বললো!

_ তৃশ বেবী তুই তো বিজি ছিলি। আর দেখ তুই আমার পর না। আর কোনদিন হবিও না। যদি হোস তো আপন হবি। আর এসব বলবি না ওকে? আমি ভেংচি কেটে বললাম।
_ হু আর এমন করলে। কখনোই তোমার সাথে কথা বলবো না।

_ ওকে বলিস না! আমার গাল টেনে জনী ভাইয়া বললো। এদিকে ফরিদ আমাদের দেখছিলো। আর নিজে নিজেই বলছে!
_ এত ঢং কিসের ভাই, বোনের? বাই দা ওয়ে এই জনী কি মিম’র আপন ভাই? হঠাৎ ফরিদ আমার আম্মু কে দেখলো। ফরিদ আম্মু কে গিয়ে জিগ্যেস করলো।
_ আন্টি এই জনী মানে। জনী ভাইয়া কি আপনার ছেলে? আম্মু মুচকি হেসে বললো।

_ মিম আর আবিরে’র থেকে। জনী কে আমি আলাদা চোখে দেখিনি। ও আমার বোনের ছেলে কেন বলো তো?
ফরিদ ইতস্তত হয়ে বললো, না তেমন কিছুনা। ফরিদ আবার রুমে চলে গেলো। কিছুক্ষণ পর আমিও চলে এলাম। ফরিদ আমি রুমে আসতেই বলে উঠলো!

_ কাজিনের সাথে এত ঢলাঢলি কিসের হ্যা? আমি বুঝতে পারলাম না তাই বললাম।
_ এক্সকিউজ মি, ওয়াট ডু ইউ মিন বাই ঢলাঢলি। ওটা তোমার হ্যাবিট। নিজেরটা অন্য কারো ঘাড়েকেন চাপাচ্ছো? আর তুমি একচুয়েলি কি মিন করছো? ফরিদ চোখ মুখ শক্ত করে বললো।

_ একদম নেকামো করবে না। আমি যে কি মিন করছি। সেটা তুমি খুব ভাল করে বুঝতে পারছো। জনী তো তোমার কাজিন। তাহলে ওর সাথে তোমার এত কি হ্যা? আমি জাস্ট অবাক সাথে রাগও লাগছে। জনী ভাইয়া কে নিয়ে এসব বলছে রাগী গলায় বললাম!

_ জনী ভাইয়া কে নিয়ে। একটাও খারাপ কথা বলবে না। আর এসব বলার তুমি কে হ্যা? ফরিদ কিছু বলতে চেয়েও থেমে গেলো।
_ কেউনা আমি তোমার কেউনা। আর তুমিও আমার কেউনা। তবে একটা পরিচয় আমার আছে!
ফরিদ’র কথায় ভ্রু কুঁচকে তাকালাম।

_ আমি তোমার রেপিস্ট। এটা বলে ফরিদ বের হয়ে গেলো। রাগে আমার মাথা ফেটে যাচ্ছে। রেপ করেছে সেটা বারবার বলার কি আছে? এরমত নিচ আমি সত্যিই দুটো দেখিনি।

বসে একটা ম্যাগাজিন পরছিলাম। তখন আম্মু এলো। আম্মু কে দেখে ম্যাগাজিন রেখে দিয়ে আম্মু কে বললাম।

_ আম্মু কিছু বলবে?
_ হ্যা রে ফরিদ কোথায়? আম্মুর কথায় ভাবলাম। আসলে সেই যে সন্ধ্যায় বের হলো। রাত এখন ১১টা এখনো তো এলোনা। কিন্তু আম্মু কে কি বলবো? সেটা ভাবছি আম্মু আবার জিগ্যেস করলো।
_ আম্মু শোনো ও একটা কাজে গিয়েছে। আমাকে বলে গিয়েছে। তোমার ভাবতে হবেনা। তুমি যাও আমি আছি তো। আম্মু কে বুঝিয়ে পাঠিয়ে দিলাম। বিরক্ত লাগছে আমার এখন।

কতক্ষণ ওয়েট করলাম। এখানে থাকলে তো বুঝবো না। তাই ড্রয়িংরুমে এসে সোফায় বসে আছি। ফরিদ’র কোনো খবর নেই। চোখটা লেগে এলো আমার। তখন কলিংবেল বেজে উঠলো। গিয়ে দরজা খুলে দেখি ফরিদ। আমাকে পাশ কাটিয়ে চলে গেলো। ইচ্ছে তো করছে মাথা ফাটিয়ে দেই। আমিও রুমে চলে এলাম। ওমা এ দেখি আমার বিছানায় শুয়েছে। আমি কোমরে হাত দিয়ে বললাম!

_ আমার বিছানায় শুয়েছো কেন? তোমার তো সোফায় শোয়ার কথা।
_ শোনো আমার মাথা গরম আছে। তাই একদম বাড়াবাড়ি করবে না। তোমার যদি বিছানায় শুতে ইচ্ছে করে। তাহলে তুমি আমার পাশে শুয়ে পড়ো। আমি কিন্তু তোমাকে কোলবালিশ বানাবো। নাহলে নিজে সোফায় শুয়ে পড়ো, গুড নাইট!

এই ছেলে বলে কি? আমি নাকি এরসাথে ঘুমাবো। আবার আমাকে কোলবালিশ বানাতে চায়। রাগে গজগজ করতে করতে সোফায় শুয়ে পড়লাম। কারন এ ছেলের বিশ্বাস নেই।
ফজরে ঘুম থেকে উঠে নামাজ পড়ে নিলাম। একটু হাটাহাটি করলাম। আস্তে আস্তে সূর্য মামা উকি দিলো। আম্মু রান্না করছে আমি হেল্প করছি। রান্না শেষে সবাই খাবার টেবিলে আছে। কিন্তু ফরিদ নেই থাকবে কি করে? নবাবজাদা তো ঘুমে বিজি। দাড়া বের করছি তোর ঘুম। আগের বারের থেরাপী দিতে হবে। রুমে এসে দেখি সিফাতিতে ঘুমিয়ে আছে।

আমি ঠিকমত খেয়াল করলাম। আস্তে ফরিদ’র মাথার পাশে বসলাম। কি নিষ্পাপ লাগছে। জানালা দিয়ে হালকা বাতাস আসছে। ফরিদ’র চুলগুলো হালকা উড়ছে। কেন জানিনা নিজের মন কে। নিজেই প্রশ্ন করতে ইচ্ছে করছে। এই নিষ্পাপ মুখের অধিকারী ছেলেটা। সত্যিই কি রেপ করতে পারে?

হঠাৎ ফরিদ’র করা সব কথা মনে পড়লো। সাথে সাথে নিজেকে সামলে। এক বালতী পানি এনে ঢেলে দিলাম। ফরিদ আগের মতোই লাফ দিয়ে উঠলো। আমি শক্ত ভাবে বললাম!
_ সবাই ব্রেকফাস্ট করছে। ফ্রেশ হয়ে নিচে চলো।

ফরিদ রাগে কটকট করতে করতে। ওয়াশরুমে ঢুকে গেলো। ফিরে এসে ড্রেস নিয়ে আবার গেলো। কতক্ষণ পর বেরিয়ে এলো। ব্লাক টি শার্ট ব্লাক পেন্ট পড়েছে। আমি কিছুক্ষণ তাকিয়ে রইলাম। এরপর একসাথে নিচে নেমে এলাম। সবাই ফরিদ’র সাথে মিশে গিয়েছে। কিন্তু জনী ভাইয়া ছাড়া। এরা মনে হচ্ছে সাপ, নেউল। যদিও তেমন কামড়াকামড়ি করছে না। বাট এই মুহূর্তে আমার মনে হচ্ছে।

আজই চলে যেতে হবে। তাই রেডি হয়ে নিলাম। একটা রেড কালার চুরিদার পড়েছি। ফরিদ আগেই সবার সাথে কথা বলে। গাড়িতে গিয়ে বসে আছে। আমিও সবাই কে বিদায় দিয়ে। চলে এলাম ফরিদ তাকিয়ে আছে। কেমন একটা লাগছে। তাই টুপ করে গাড়িতে বসে পড়লাম।

_ আমাকে কি তোমার ড্রাইভার মনে হয়? ফরিদ’র কথায় চোখ ছোট ছোট করে তাকালাম।
_ পেছনে বসেছো কেন? সামনে এসে বসো নাহলে রেখে চলে যাবো। ফরিদ’র কথা বলার ধরন দেখে। সামনে এসে বসলাম। যদি সত্যি রেখে চলে যায়। ফরিদ গাড়ি স্টার্ট দিলো। সিটে হেলান দিয়ে চোখ বন্ধ করে আছি। ৩ ঘন্টার মধ্যে চলে এলাম। গাড়ি থেকে নেমে সবার সাথে কথা বলে। রুমে চলে এলাম টায়ার্ড লাগছে। আর কি? ঠাস করে শুয়ে পড়লাম!

পরেরদিন ড্রয়িংরুমে বসে আছি। আমি, সিউলী, ফুপ্পি মানে ফরিদ’র ফুপ্পি। আম্মু আর বাবাও আছে ফরিদ নেমে এলো। বাবা’র কাছে গিয়ে একটা চেক ধরলো।
_ কি করবো? বাবার প্রশ্ন শুনে ফরিদ রেগে বললো।
_ ওয়াটস রং উইথ ইউ পাপা? তুমি জানোনা কি করতে হবে? এটাতে সাইন করো আমার টাকা লাগবে।
_ কিন্তুু এখন তো আমি সাইন করলে হবেনা। বাবার কথায় ফরিদ অবাক হয়ে বললো, মানে কি? বাবা আমার দিকে তাকিয়ে বললো।

_ মিম সাইন করলেই তুমি টাকা পাবে।
_ ওয়াট? ও সাইন করলে পাবো মানে?
_ কারন আমি আমার সব প্রপার্টি। মিম’র নামে করে দিয়েছি! এবার যেন ফরিদ’র রাগ মাথায় উঠে গেলো। চেচিয়ে বললো!

_ এসব কি বলছো পাপা? মাম্মা পাপা কি বলছে? আম্মুও হ্যা বললো। আমি চুপ করে বসে আছি। এখন ফরিদ রেগে বাবা, আম্মু কে কথা শোনাবে। তাই আমি ফরিদ’র কাছে গিয়ে বললাম।
_ ফরিদ তুমি চেঁচামেচি করো না। আমাকে দাও আমি সাইন করে দিচ্ছি।
_ না লাগবে না আর তোমরা। আমার সো কল্ড মাম্মা, পাপা। তোমাদের আর কি বলবো? তোমরা তো কোনদিন আমাকে। সিফাতিতে থাকতে দাওনি। আর দেবেও না। লাগবে না আমার টাকা। ইউ গাইস জাস্ট গো টু হেল।

ফরিদ রেগে বেরিয়ে গেলো। আমি হা হয়ে আছি ওর কথায়। বাবা, আম্মু ওকে কোনদিন সিফাতি দেয়নি মানে? ফরিদ কে মাঝে মাঝে অন্যরকম লাগে। ৩দিন আগে ও কথা বলতে বলতে। ওর চোখে পানি দেখেছিলাম। আর আজ এটা বললো। কেন জানি মনে হয়। ফরিদ’র মনে কোনো চাপা কষ্ট আছে। যেটা থেকে ফরিদ আজ এত খারাপ। এসব ভাবতে ভাবতে রুমে চলে এলাম।

রাতে শুয়ে আছি তখন ফরিদ এলো। হেলেদুলে রুমে ঢুকলো। বুঝলাম ড্রিংক করেছে। কিছু একটা বিরবির করছে। কি বলছে শুনতে কাছে গেলাম। আমাকে দেখেই ফরিদ রেগে গেলো। চোখগুলো রক্তের মতো লাল হয়ে গিয়েছে। আমি আমতা আমতা করে বললাম।

_ ফরিদ আম আমার কথা শোনো।
ওমনি ফরিদ ঠাস করে আমাকে থাপ্পর মারলো। আমি বুঝলাম না আমি কি করেছি?
_ তোর জন্য সব হয়েছে আজ। আমার মাম্মা, পাপা কে ভুলিয়ে ভালিয়ে। আমাদের সব প্রপার্টি নিজের করেছিস। তোকে মেরেই ফেলবো!

বলে ফরিদ আবার থাপ্পর মারতে হাত ওঠালো। এবার হাত ধরে নিজে ওর গালে। থাপ্পর বসিয়ে দিলাম। মিথ্যে সহ্য হয়না। ওর বাবা, মা নিজেই তো দিয়েছে। ভেবেছিলাম আজ জানতে চাইবো। ও ওসব কেন বললো? ওসব কথা শুনে মনে হয় কোনো কষ্ট আছে ওর। এখন রাগ লাগছে থাক কষ্ট তাতে আমার কি?


পর্ব ৮

ফরিদ ওইভাবেই শুয়ে পড়লো। আমিও আর রাগে কিছু বললাম না। রাগে শরীর জ্বলে যাচ্ছে। শয়তান ছেলে একটা। কয়েকদিন পর। । সকালে ব্রেকফাস্ট করছি সবাই। ভাবছি আজকে ভার্সিটি যাবো। তাই আম্মু কে বললাম!
_ আম্মু আমি ভার্সিটি যাবো। আম্মু মুচকি হেসে বললো।
_ আচ্ছা যা সাবধানে যাবি। আর গাড়ি নিয়ে যাবি! আমরা ব্রেকফাস্ট করছি। কিন্তু এখানে ফরিদ নেই। আর আম্মু বা বাবা। কেউই একবারও জিগ্যেস করছে না। ব্যাপারটা ভাল লাগলো না। এমন সময় দেখি ফরিদ। ঝড়ের গতিতে সিরি দিয়ে নেমে। গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়লো।

এত তাড়াতাড়ি কোথায় গেলো? আমার ও সময় নেই। আমিও ভার্সিটির উদ্দেশ্য বেরিয়ে এলাম। ১ ঘন্টা পরই ভার্সিটি চলে এলাম। গাড়ি থেকে নেমে ভেতরে গিয়ে। আমার চোখ ছানাবড়া। ফরিদ একটা ছেলে কে ইচ্ছেমতো মারছে। আর সবাই হা করে দেখছে। বুঝতে পারছি না কিছু। কিন্তু এভাবে আর কিছুক্ষণ মারলে। ছেলেটা নির্ঘাত মারা যাবে। তাই আমি দৌড়ে কাছে গেলাম। কাছে গিয়ে আটকানোর চেষ্টা করছি।
_ ফরিদ কি করছো? ছাড়ো ওকে।

কে শোনে কার কথা। ফরিদ মেরেই যাচ্ছে। আমি ওর ফ্রেন্ডদের বললাম।
_ তোমরা দাড়িয়ে দেখছো? ওকে আটকাও প্লিজ। আরে ছেলেটা তো মরে যাবে।
_ মরুক তাতে আমরা কি করবো? তুলি নামের মেয়েটার কথা শুনে রাগ উঠে গেলো। চেচিয়েই বললাম।
_ তোমরা না ওর ফ্রেন্ড? আমার তো মনে হয় তোমরা সবাই। ফরিদ’র নামের ফ্রেন্ড।
_ তোমরা এত লাগছে কেন? ফরিদ’র ফ্রেন্ড রনি বললো। সিফাত ভাবে বললাম।

_ ফরিদ আমার হাজবেন্ড। তাই আমার লাগবে এটাই স্বাভাবিক। কারন ছেলেটা মরলে ফরিদ’র ক্ষতি হবে।
এদের সাথে ফালতু কথা বলে লাভ নেই। তাই ফরিদ কে আটকানোর চেষ্টা করছি। না পেরে পেছন থেকে টেনে ধরলাম। ফরিদ ছেলেটা কে ছেড়ে দিয়ে। আমার দিকে রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে চিৎকার করে বললো।
_ আমাকে আটকালে কেন?

_ ফরিদ ও মরে যাবে। আমার কথায় ওর রাগ যেন আরো বেড়ে গেলো। দাতে দাত চেপে বলে উঠলো।
_ মরলেই ভাল হতো। ওর সাহস হয় কি করে? তোমাকে।
তোমাকে বলে ফরিদ থেমে গেলো। আর আমি ভ্রু কুঁচকে তাকালাম। ফরিদ কিছু না বলে মুখ ফিরিয়ে নিলো। আমি বুঝতে পারছি। ফরিদ কিছু বলতে চাইছে। তাই জিগ্যেস করলাম।
_ আমাকে কি?

_ কিছুনা ক্লাসে যাও। আর ক্লাস করে সোজা বাড়ি যাবে।
বলে হনহন করে চলে গেলো। আমি আহম্মকের মতো দাড়িয়ে আছি। তখন আমার বেষ্টু লিমা এলো। লিমা ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ কি রে ক্লাসে যাবিনা? আমি একবার তাকিয়ে বললাম, চল যাই। ক্লাস করে বাইরে এসে। আমি আর লিমা গল্প করছি। যদিও ফরিদ চলে যেতে বলেছে। আমার বয়েই গিয়েছে ওর কথা শুনতে। ক্লাস শেষ হয়েছে অনেকক্ষণ। লিমাে’র সাথে এখন তেমন দেখা হয়না। আগে আমাদের বাড়ি যেতো। তখন দেখা হয়ে যেতো। এখন তো আমি শ্বশুর বাড়ি থাকি। তাই দেখা হয়না ভার্সিটি তেও কম আসা হয়। এই তো বিয়ের পর আজই এলাম। যাইহোক কথা বলছিলাম। হুট করে কোথা থেকে ফরিদ এলো। তাকিয়ে দেখলাম রাগী ভাবে তাকিয়ে আছে। আমি বিরক্তি নিয়ে বললাম।

_ কি হয়েছে?
_ তোমাকে না চলে যেতে বলেছিলাম। মেজাজ গরম লাগে না কার। গলা খাকারী দিয়ে বললাম।
_ দেখছো না? লিমাে’র সাথে কথা বলছি।
_ লিমা আমাদের বাড়ি গিয়ে গল্প করবে। এখন আমার সাথে চলো!
বলেই আমার হাত ধরলো। এরপর একপ্রকার টানতে টানতে এনে। গাড়িতে বসিয়ে নিজে বসে গাড়ি স্টার্ট দিলো। ভাল লাগছে না বিরক্তি নিয়ে বললাম।

_ এমন করছো কেন?
_ কি করেছি? এই ছেলে কে বলে লাভ নেই কিছু। তাই চুপ করে আছি তবে ভাবছি। আজ এর হলো কি? এত ঢং করছে কেন? ছিটে মাথা হেলিয়ে দিলাম। এসব ভাবনা মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। এভাবে বাড়ি চলে এলাম। আমি আর ফরিদ দুজন আমাদের রুমে যাচ্ছিলাম। এমন সময় ফরিদ দাড়িয়ে গেলো। আর দাড়ালো আম্মুর মানে শাশুড়ির রুমের সামনে। কেমন একটা রাগী ভাব চেহারায়। ফরিদ আম্মুর রুমে ঢুকে গেলো। ব্যাপারটা কি দেখতে আমিও গেলাম। ফরিদ ভেতরে গিয়ে চেচিয়ে বললো।

_ আবার এই ছবি নিয়ে কাঁদছো? খেয়াল করে দেখলাম আম্মুর হাতে। একটা বাচ্চা ছেলের ছবি। ভাবতে লাগলাম এটা কে? আর ফরিদ রেগে গেলো কেন?
_ হ্যা কাঁদবো যতদিন না ওকে পাবো। ও আমার প্রথম সন্তান। আমার বড় ছেলে তোর ভাই! আমি অবাক হয়ে বললাম।

_ তোমার ছেলে?
_ হ্যা রে মা আমার বড় ছেলে। জানিস ওকে হারিয়ে ফেলেছি। সেই ৬ মাস বয়সে। আল্লাহ আর কতদিন ওকে দুরে রাখবে? আম্মু কাঁদতে কাঁদতে বললো। আম্মুর কথায় ফরিদ তাচ্ছিল্য হেসে বললো।
_ আমি আগেই বলেছি। তোমার এই বড় ছেলে। ও আগেই মরে ভুত হয়ে গিয়েছে। নাহলে এতদিনে তো ফিরে পেতে। ফরিদ’র কথা শুনে কিছুটা রাগ লাগলো। ওরই তো ভাই তাই রেগে বললাম!

_ এভাবে বলছো কেন? ও তোমার নিজের ভাই। ফরিদ চেচিয়ে চোখ মুখ শক্ত করে বললো!
_ ভাই না এনিমি। যে হারিয়ে গিয়েও আমাকে সিফাতি দেয়নি। আর আমার কি মনে হয় জানো? ও যদি বেঁচে থাকে। আর যদি ফিরেও আসে। তাহলে আমার থেকে সব কেড়ে নেবে।
বলে ফরিদ আম্মুর হাত থেকে। ছবিটা নিয়ে ফ্লোরে ফেলে দিলো। কাচের ফ্রেম হওয়ায়। কাচ ভেঙে ছড়িয়ে ছিটিয়ে গেলো। আম্মু রেগে ফরিদ কে থাপ্পর মারতে গেলে। ফরিদ খপ করে হাত ধরে বলে উঠলো।

_ নো মাম্মা আজ না। ইনফ্যাক্ট আর কখনোই। এই ছেলেটার জন্য। তুমি বা পাপা আমাকে কিছু বলবে না। আমি তো তোমাদের সামনে আছি। আমাকে নিয়ে হ্যাপি থাকতে পারোনা? দুজন কে একসাথে কেন চাও? যে কি না তোমাদের কাছে নেই। মাম্মা এমন যেন না হয়। ওকে ফিরে পেয়ে আমাকে হারিয়ে ফেললে।

কথা বলার সময়। ফরিদ’র চোখ ছলছল করছিলো। কে জানিনা ওর শেষের কথায়। আমার বুকটা ধক করে উঠলো। আম্মু কিছু বলতে চেয়েছিলো কিন্তুু। ফরিদ বলতে না দিয়ে চলে গেলো। আম্মু কে সিফাত করে আমিও চলে এলাম। রুমে এসে দেখি ফরিদ মাথায় হাত দিয়ে বসে আছে। কিছু বললাম না। চুপচাপ বসে রইলাম। এভাবে আরো কিছুদিন কেটে গেলো। ফরিদ এখন আর আগের মতো।

আমার সাথে বাজে বিহেব করেনা। তবে যখন ওর কোনো কিছু নিয়ে ইন্টারফেয়ার করি। তখন প্রচুর রেগে যায়। আমি ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে থাকি। এতে ফরিদ আরো রেগে যায়। একদিন সকালে আমাদের বাড়ি যাবো তাই। আয়নার সামনে দাড়িয়ে রেডি হচ্ছি। অলমোষ্ট রেডি কানে ঝুমকো পড়া শেষ। তখন রুমে ফরিদ এলো। এসে আমাকে পা থেকে মাথা অবদি দেখছে। ব্যাপারটা আমার জন্য। চরম আকারে অসস্তিকর। ভ্রু কুঁচকে বললাম!

_ আজব এভাবে দেখছো কেন?
_ এরকম পেত্নী সেজে কোথায় যাচ্ছো? মুহূর্তে মেজাজ বিগরে গেলো। এই ছেলে এমন কেন? আমাকে সাজতে দেখলেই পেত্নী বলে। বিছানা থেকে বালিশ নিয়ে। দিলাম এক বারি ফরিদ চোখ বড় করে ফেললো। আমি ফোস ফোস করে বললাম।

_ তুই পেত্নী, আস্ত একটা হনুমান। ফরিদ হা করে বললো।
_ তুমি আমাকে তুই করে বলছো? আবার হনুমান বলছো? বলে ফরিদ একটা বালিশ তুলে নিলো। দুজন ইচ্ছেমতে একজন আরেকজন কে। মারতে শুরু করলাম। মারতে মারতে বিছানায় উঠে বসে। মনের সুখে মারামারি করছি। এদিকে একটা সময় দুজনের বালিশ ছিড়ে। তুলো দিয়ে রুম ছড়াছড়ি হয়ে গেলো। ফরিদ আমার দিকে আর আমি ফরিদ’র দিকে। ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছি। রুমে এই মুহূর্তে নিরবতা বিরাকিব করছে। হঠাৎ একসাথে দুজন হু হা করে হেসে উঠলাম।

আমাদের হাসির আওয়াজে সবাই চলে এলো। এসে হা করে তাকিয়ে আছে। সিউলী হাসতে হাসতে বললো।
_ একি ভাবী এটা কে করলো? ফরিদ আমাকে দেখিয়ে দিলো। আমি কি কম নাকি? আমি ফরিদ কে দোষ দিলাম। একজন আরেকজন কে দোষ দিতে ব্যস্ত। তখন আম্মু বললো!
_ বুঝেছি দুজনই করেছিস।
_ তোরা কি বাচ্চা আছিস? ফুপ্পির কথায় ফরিদ বললো।

_ আরে ফুপ্পি কি বলো? ২দিন পর বাচ্চার বাবা, মা হয়ে যাবো। ফরিদ’র কথা শুনে আকাশ থেকে পড়লাম। আম্মুর দিকে তাকিয়ে বুঝলাম। কথাটা শুনে আম্মুও অবাক হয়েছে।
_ আচ্ছা সারভেন্ট কে বলছি। এগুলো পরিষ্কার করে দিতে। বলে আম্মু চলে গেলো। ফুপ্পি আর সিউলীও চলে গেলো। এবার আমি ফরিদ কে বললাম!

_ বাচ্চার বাবা, মা হবো মানে?
_ কিছুনা। ফরিদ মুখ দিয়ে সিটি বাজাতে বাজাতে বেরিয়ে গেলো। আমিও আমাদের বাড়ি চলে এলাম। সবার সাথে কথা বলে। আমার রুমে চলে এলাম। ইস কতদিন পর এলাম। জনী ভাইয়া বাড়ি চলে গিয়েছে। বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম। ফরিদ কে না বলেই এসেছি। অবশ্য বললেই কি হতো? একদিন ভালই কাটলো। পরেরদিন বিকেলে আবার চলে এলাম। কিছুটা সন্ধ্যা হয়ে গিয়েছে। ফরিদ কে দেখলাম না। হয়তো বাড়ি নেই। সিউলীর রুমে গেলাম।

_ আরে ভাবী এসো!
_ কি করছিলে? বলতে বলতে সিউলীর পাশে বসলাম।
_ গেমস খেলছিলাম।
_ তাহলে তো ডিস্টার্ব করলাম!
আমার কথায় সিউলী ফোন রেখে বললো।
_ কি যে বলো তুমি। সিউলীর সাথে অনেকক্ষণ গল্প করে রুমে চলে এলাম। দেখলাম ফরিদ বসে আছে। আমি আস্তে আস্তে কাছে গেলাম। দু-হাতে মাথা চেপে ধরে বসে আছে। তাই জিগ্যেস করলাম!

_ তোমার কি মাথা ব্যথা করছে? আমার কথা শুনে ফরিদ মুখ তুলে তাকালো। ফরিদ কে এভাবে দেখে ভয় পেয়ে গেলাম। চোখগুলো অসম্ভব লাল হয়ে আছে। ঢোক গিলে বললাম।
_ কি হয়েছে ফরিদ? ওমনি ফরিদ বসা থেকে উঠে আমার গালে। ঠাস করে থাপ্পর মারলো। মনে হয় শরীরের সমস্ত শক্তি দিয়ে মেরেছে। ঠোট কেটে রক্ত বেরিয়ে গিয়েছে। আমি তো কিছু করিনি তাহলে? ফরিদ আবারও হাত ওঠালো। আমি চেচিয়ে বললাম।

_ স্টপ ইট, হাউ ডেয়ার ইউ ফরিদ? তোমার সাহস কি করে হয়। আমাকে থাপ্পর মারার?
_ কোথায় গিয়েছিলে তুমি? আমি অবাক হলাম এরজন্য মারলো। মেজাজ গরম হয়ে গেলো। চিৎকার করে বললাম।
_ আমি যেখানে ইচ্ছে যাই। তাতে তোমার কি? তুমি বলার কে? না আমি তোমাকে হাজবেন্ড বলে মানি। আর না তুমি আমাকে। নিজের ওয়াইফ বলে মানো? তাহলে এমন কেন করছো? লিসেন তুমি একদম নিজের লিমিটে থাকবে। আমি কিন্তু ভুলিনি তুমি একজন রেপিষ্ট। তুমি একটা অমানুষ। বুঝেছো তুমি একটা অমানুষ। ঘৃনা করি আমি তোমাকে।

ফরিদ মুচকি হাসলো। এরপর কিছু না বলে রুম থেকে বেরিয়ে গেলো। আমি অবাক হলাম। এতকিছু বললাম আর কিছু বললো না। তাতে আমার কি? ঠোট জ্বালা করছে। ওভাবেই বসে রইলাম। একসময় ঘুমিয়ে পড়লাম। কোনো কিছুর আওয়াজে ঘুম ভেঙে গেলো। উঠে বসলাম খেয়াল করলাম ফরিদ নেই। ছাদ থেকে আওয়াজ এসেছে। তাই রুম থেকে বেরিয়ে। ছাদে চলে এলাম। ছাদে এসে যা দেখলাম। আর যা শুনলাম। আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো।


পর্ব ৯

ছাদে এসে যা শুনলাম আর যা দেখলাম। আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। কিছুক্ষণ স্থির হয়ে দাড়িয়ে রইলাম। এরপর আমি এক দৌড়ে ফরিদ’র কাছে চলে এলাম। হাত থেকে কাচের বোতলের অংশ। একটানে ফেল দিয়ে বললাম।
_ আর ইউ ক্রেজি? এটা কি করছো তুমি? আর এক্ষুণি কি বলছিলে? ফরিদ ঢুলতে ঢুলতে বললো।
_ আমি কিছু বলিনি। আমার প্রচন্ড রাগ লাগছে। এতগুলো দিন এভাবে কেন মিথ্যে বললো? ফরিদ’র শার্টের কলার ধরে বললাম।

_ কেন ফরিদ? কেন মিথ্যে বললে? কেন এতগুলো দিন নিজেকে ধর্ষক বলতে? যেখানে তুমি আমাকে ধর্ষন করোনি। আর আমাকেই বা কেন ধর্ষিতা বলতে?
হ্যা একটু আগে যখন আমি ছাদে আসি। তখন দেখি ফরিদ’র হাতে। ড্রিংক এর বোতল কিন্তু ভাঙা। আর ভাঙা বোতলের টুকরোটা। বাম হাতে ধরে সেটা দিয়ে ডান হাতে। অনবরত আঘাত করছে আর বলছে!

_ আমি ধর্ষক না আমি। তোমাকে সেই রাতে ধর্ষন করিনি। হ্যা আমি খারাপ বাট আমি। সেই রাতে অতটা খারাপ হতে পারিনি। যে কি না একটা মেয়ের। সবচেয়ে দামী তার সম্মান কেড়ে নেবো। কিন্তু আমি তোমাকে বলবো না। ফরিদ কে টেনে রুমে নিয়ে এসে। হাতে ব্যান্ডেজ করে দিলাম। ফরিদ মাথা নিচু করে আছে। আমি সিফাত ভাবে জিগ্যেস করলাম।

_ এবার আমাকে বলো। সেই রাতে কি হয়েছিলো? আর এতদিন মিথ্যে কেন বললে?
ফরিদ আগের মতো বসে আছে। রাগটা এবার মাথায় চড়ে বসলো। কিন্তু তবুও কন্ট্রোল করার চেষ্টা করছি। ফরিদ কে আবার জিগ্যেস করলাম। এবারও ফরিদ আগের মতো বসে আছে। এবার চেচিয়ে বললাম।

_ কি হলো হ্যা? এভাবে চুপ করে আছো কেন? আজ আমাকে সব বলবে তুমি। এতদিন মিথ্যে কেন বললে? আর তোমার মনে এত কিসের কষ্ট?
ফরিদ এবার মাথা তুলে তাকালো। ওর চোখগুলো ছলছল করছে। আবার মাথা নিচু করে বললো।
_ আমার কোনো কষ্ট নেই। ইচ্ছে করছে ওর মাথা ফাটিয়ে দেই। একটা প্রশ্ন কতবার করা যায়? এবার চিৎকার করে বললাম।
_ তুমি কিছু বলবে না তাইতো? ওকে ফাইন বলো না আমি। এই রাতে এক্ষুণি আমাদের বাড়ি চলে যাবো। জানি তাতে তোমার কিছু যাবে আসবে না। কিন্তু এখানে থাকবো না। বলে দরজা পর্যন্ত চলে এলাম। ফরিদ’র কথায় দাড়িয়ে পড়লাম।

_ তোমার সত্যিই মনে হয় মিম? যে আমার কিছু যায় আসেনা।
পিছনে তাকালাম দেখলাম ওভাবেই বসা। ফরিদ উঠে এসে আমার হাত ধরে। বিছানায় বসিয়ে বলতে শুরু করলো।
_ ভার্সিটি তে সেদিন যখন। তুমি আমাকে থাপ্পর মেরেছিলে। রাগের সাথে সাথে আমি মুগ্ধও হয়েছিলাম। যেখানে ভার্সিটির কেউ। আমার সাথে চোখ তুলে কথা বলার সাহস পায়না। সেখানে তোমার মত পিচ্চি মেয়ে। আমাকে থাপ্পর মারলো এটা ভেবে। নিজের মুগ্ধতা কে সাইডে রেখে। নিজের রাগটা কে প্রিয়োরিটি দেই। তাই তোমার সাথে ওমন করি। আর ওইদিন যে তোমার ওরনা ধরে টান দিয়েছিলাম। তুমি হয়তো খেয়াল করোনি। তোমার ওরনা মাটি ঘেষে গিয়েছিলো। আর মাটিতে জলন্ত সিগারেট ছিলো।

জানিনা কে ফেলছিলো তাও ভার্সিটিতে। তাকে পেলে মেরে ফেলতাম। তোমার ওরনা তো জর্জেট ছিলো। তাই আগুন ধরতে টাইম লাগতো না। আর তুমি না জেনেই। আমাকে থাপ্পর দাও। আর ক্যারেক্টারলেস ও বলো!
আমি হা করে ফরিদ’র কথা শুনছি। তবে এটা ভেবে খারাপ লাগছে। সেদিন বিনা কারনে ফরিদ কে থাপ্পর মেরেছিলাম। ফরিদ আবার বলতে শুরু করলো।

_ এরপর আমার মাথায় রাগ চড়ে যায়। আর ভাবী তোমাকে শাস্তি দেবো। আমাকে বারবার ইনসাল্ট করার। রাতে তোমাকে রাস্তায় দেখি। তখন আমি ড্রাংক ছিলাম। তোমাকে দেখেই গাড়িতে তুলে নিয়ে যাই। এরপর তোমাকে কিস করার পর তুমি সেন্সলেস হয়ে যাও। আর আমি তোমাকে ছেড়ে দেই। আমি আমার কাছে রাখা ক্লিপ দিয়ে। তোমার শরীরে আঘাত করি।

আর তোমার ড্রেস ছিড়ে ফেলি। এরপর তোমাকে নিয়ে রাস্তায় শুইয়ে দেই। তোমার শরীরে আঘাত। ঠোটের আঘাত আর ড্রেস ছেড়া থাকায়। সবাই ভাবে তুমি ধর্ষনের স্বীকার। যেটা আমি চেয়েছিলাম। আমার উদ্দেশ্য ছিলো প্রতিশোধ নেয়া। আর প্রেস, মিডিয়ার লোক। ওনাদের আমি ফোন করে পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু ওনারা জানতো না আমি। কিন্তু এরপরের চালটা তুমি

আমি অবাক হয়ে বললাম।
_ তাহলে আমাকে ধর্ষিতা কেন বলতে? আর নিজেকে ধর্ষক কেন বলতে? ফরিদ স্লান হেসে বললো।
_ তোমাকে ধর্ষিতা বলতাম কষ্ট দিতে। বিকজ আই নো একটা মেয়ের কাছে। নিজেকে ধর্ষিতা ভাবা কষ্টের। আর আমি তো খারাপই। তাই ধর্ষক তকমা পেলে কি হবে?

শেষের কথাটা বলার সময়। ফরিদ’র গলা ধরে আসছিলো। এটা আমি বুঝতে পারছিলাম। এটা ভেবে সিফাতি লাগছে। সেদিন মিডিয়া কে ফরিদ কে দিয়ে। যেটা বলিয়েছিলাম সেটা সত্যি। আমি ধর্ষিতা নই। তবে ফরিদ’র কেন এত কষ্ট? এটা জানতে ফরিদ’র হাত ধরে বললাম।

_ ফরিদ প্লিজ আমাকে বলো। আমি জানি তোমার মধ্যে। অনেক চাপা কষ্ট আছে। তুমি সবার কাছে নিজেকে যতটা খারাপ দেখাও। ততটা খারাপ তুমি না। নাহলে তো তুমি আমাকে সত্যিই ধর্ষন করতে।
ফরিদ করুন চোখে আমার দিকে তাকালো। কেন জানিনা খুব কষ্ট হচ্ছে। ফরিদ করুন ভাবেই বললো!
_ আমি তোমার কোলে মাথা রাখি?

ফরিদ’র এভাবে বলাতে। আমি না করতে পারলাম না। বিছানায় হেলান দিয়ে বসে। পা দুটো সটান করে দিলাম। ফরিদ তাড়াতাড়ি আমার কোলে মাথা রাখলো। এরপর আবার বলতে শুরু করলো!

_ রাকিব হারিয়ে যাওয়ার ২ বছর পর আমি জন্মাই। আমার নাম রাখে ফরিদ। এরপর আস্তে আস্তে আমি বড় হই। আমার মাঝে মাম্মা, পাপা। সবসময় রাকিব কে খুজতো। যখন আমি একটু বুঝতে শিখি। মাম্মা, পাপা একবার আমাকে ফরিদ। তো একবার রাকিব বলে ডাকতো। একবার বলতো আমি ওদের বড় ছেলে। তো একবার বলতো ছোট ছেলে। তাই আমি একদিন জিগ্যেস করি। রাকিব কে? সেদিন জানতে পারি রাকিব আমার বড় ভাই। কিন্তু সে হারিয়ে গিয়েছে।

আমি বড় হতে থাকি। কিন্তু এই একবার রাকিব। একবার ফরিদ বড় ছেলে, ছোট ছেলে। এসবের জন্য নিজের অস্তিত্ব যেন হারাতে বসেছিলাম। আমি নিজেই ভাবতাম আমি আসলে কে? রাকিব নাকি ফরিদ? বাড়িতে কেউ এলে। ওদের কাছে যদি কেউ জিগ্যেস করতো। আমার নাম কি? ওরা না ভেবে বলে দিতো রাকিব। আমার বড় ছেলে। অথচ এই আমাকেই আরেকজনের কাছে বলতো। ফরিদ আমার ছোট ছেলে। আমার খুব খারাপ লাগতো এসব। ওরা কখনো ভাবেনি। এতে আমি কতটা কষ্ট পাবো।

আমার ব্রেইনে কি এফেক্ট পড়বে। কিন্তু এসব আমি সহ্য করেছি। কলেজ লাইফ পর্যন্ত। সব জায়গায় নাম ফাহিম চৌধুরী। ওরা আমাকে বলতো রাকিব চৌধুরী। জাস্ট বিষিয়ে গিয়েছিলাম। তাই একদিন বলে দেই। আমি আর ২টা ক্যারেক্টারে রোল প্লে করতে পারবো না। সেদিন থেকে ওই ছবি নিয়ে কাঁদে ওরা। আর আমি ওদের থেকে দুরে সরে যাই। রাকিব হয়ে যতক্ষণ থাকতাম।

ততক্ষণ ওরা আমার কাছে থাকতো। যেদিন থেকে আমি শুধু ফরিদ। ঠিক সেদিন থেকে আমি দুরে সরে গেলাম। আমি ওদের সামনে আছি। কিন্তু ওরা আমার থেকে। ওই হারিয়ে যাওয়া ছেলেটা কে। বেশী প্রিয়োরিটি দেয় বেশী ভালবাসে। আমাকে না করতো শাসন। আর না করতো ততটা কেয়ার। আস্তে আস্তে খারাপ হয়ে যাই। ক্লাব, ড্রিংক মারামারি। এসব হয়ে যায় নিত্যদিনের পেশা। এবার বলো আমি কি করবো? তুমি সেদিন বলেছিলে ওরা আমাকে ভালবাসে। না ওরা আমাকে ভালবাসে না। মাঝে মাঝে মনে হয়। আমি কেন জন্মেছি?

আর যখন জন্মেছি। তাহলে মরে কেন যাইনা? আমার চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি পড়ছে। সত্যিই তো এটা কতটা কষ্টের। এবার ভাবছি আম্মু, বাবা এটা কি করে করলো? এতে ফরিদ’র কি দোষ? ওর তো দোষ নেই। না ওর জন্য রাকিব ভাইয়া হারিয়েছে। মানছি ওনাদের বড় ছেলে হারিয়েছে। তাই ওনারা ড্রিপেশনে ছিলেন। তাই বলে ওই টুকু বাচ্চার উপর এসব চাপিয়েছে? খুব খারাপ লাগছে।

একটা ছেলে ঠিক কতটা কষ্ট। বাবা, মা’র থেকে পেলে। সে বলে কেন জন্মেছি? কেন মরে যাইনা? ফরিদ কতটা কষ্ট পেয়েছে। কতটা মানসিক যর্ন্তনা সহ্য করেছে। কখনো রাকিব তো কখনো ফরিদ। ফরিদ আমার কান্নার আওয়াজ পেয়ে। উঠে বসলো ফরিদ ও কাঁদছে। আমি ফুপিয়ে কাঁদছি। ফরিদ আমার চোখের পানি মুছে দিয়ে বললো।

_ মিম তুমি কাঁদছো কেন? আমার কথায় কষ্ট পেয়েছো? তাহলে সরি প্লিজ কেঁদোনা। আমি তোমাকে আর কষ্ট দিতে চাইনা। কিন্তু আমি তো খারাপ। ঠিক কোনো না কোনো ভাবে তোমাকে কষ্ট দিয়ে ফেলি।
আমি ফরিদ হুট করে জড়িয়ে ধরলাম। ফরিদ হয়তো অবাক হয়েছে। ফরিদ ও আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমি ফুপিয়ে কেঁদেই যাচ্ছি। কেন জানি আজ খুব কান্না পাচ্ছে।

এতদিন ফরিদ কে জ্বালিয়েছি। কত খারাপ ভেবেছি। কতকিছু বলেছি এসব ভেবে। কান্না করতে করতেই বললাম।
_ আই এম সরি ফরিদ। আই এম রিয়েলি সরি। প্লিজ ফরগিভ মি। আমি না জেনে তোমাকে। কত খারাপ ভেবেছি। কত খারাপ কথা বলেছি। আমাকে ক্ষমা করে দাও। ফরিদ আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে বললো।

_ সরি তো আমার বলা উচিত। আমি তোমাকে অনেক কষ্ট দিয়েছি। একচুয়েলি আমি না পারিনা। পারিনা কারো সাথে ঠিকমত কথা বলতে। ঠিক তাকে হার্ট করে ফেলি। আমি তোমাকেও কষ্ট দিতে চাইনা। জানো ভার্সিটিতে ওই ছেলে কে মেরেছিলাম। কারন আমি যখন ভার্সিটিতে ঢুকি। তখন শুনতে পাই ও তোমাকে নিয়ে। আজেবাজে কথা বলছে। সহ্য হয়নি আমার। তাই ওকে ইচ্ছেমতো মেরেছি। কারন ও তোমাকে নিয়ে বলেছে। আমি কি করে সহ্য করবো? কারন আমি তোমাকে।

ফরিদ’র এসব কথা আমার কানে এলোনা। কারন আমি গভীর ঘুমে তলিয়ে গিয়েছি। সকালে নিজেকে আবিষ্কার করলাম। ফরিদ’র বুকে কি লজ্জাজনক ব্যাপার। আজও ফরিদ কে দেখছি। চোখ মুখ এখনো কিছুটা ফোলা। কোনোমতে উঠে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। ফরিদ কে না বলে ভার্সিটি চলে এসেছি। ভার্সটিতে ক্লাস শেষ করে যাচ্ছিলাম। রাস্তায় জনী ভাইয়া কে দেখে। গাড়ি থামিয়ে জনী ভাইয়া’র কাছে গিয়ে গলায় ঝুলে গেলাম। জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ কি রে পেত্নী এভাবে। বানরের মতো ঝুলে পড়লি কেন? আমি ভেংচি কেটে বললাম।
_ চকলেট, আইসক্রিম কিনে দাও। বাড়ি যেতে হবে তাড়াতাড়ি। একবার বলাতে জনী ভাইয়া কিনে এনে দিয়ে বললো।
_ আচ্ছা যা মেবি আবির তোর শ্বশুর বাড়ি যেতে পারে। আমি খুশি হয়ে বললাম, তুমিও চলে এসো!

জনী ভাইয়া মুচকি হাসলো। আমি আবার গাড়িতে উঠে বাড়ি চলে এলাম। ভাবতে খুশি লাগছে। এখন রুমে বসে মনের সুখে। চকলেট, আইসক্রিম খাবো। রুমে এসে আমি থ। রুমের এই অবস্থা কেন সেটা ভাবছি। রুমের জিনিষ পএ ভাঙা। একুরিয়াম টা ভেঙে কাচ ছড়িয়ে আছে। কিছু কাচ সোজা হয়ে আছে। এর উপর পড়লে নির্ঘাত পেটে ঢুকে যাবে। পাশে দেখলাম ফরিদ দাড়ানো।

ফরিদ কে দেখে তো। আমার জান যায় যায় অবস্থা। ফরিদ’র চোখগুলো রক্তের মতো লাল হয়ে আছে। হাত মুঠো করে রেখেছে। বুঝলাম এখানে থাকলে। আমার কপালে দুঃখ আছে। কাল না বলে গিয়েছিলাম বলে মেরে ঠোট কেটে ফেলেছে। আজ যে কেন না বলে গেলাম। এটা ভেবে চুল ছিড়তে ইচ্ছে করছে। আজ নিশ্চই আরো মারবে। ভেবে পালাবো বলে দরজা পর্যন্ত এলাম। ওমনি ফরিদ হ্যাচকা টান মেরে বিছানায় ফেলে দিলো। হাতে ব্যথা পেয়ে বললাম।

_ ফরিদ কি কি হ হয়েছে? ফরিদ দাতে দাত চেপে বললো।
_ জনী’র সাথে এত ঢলাঢলি কিসের? এবার অবাক হলাম। আমি তো ভেবেছিলাম। না বলে ভার্সিটিতে গিয়েছি। তাই এত রেগে আছে। তারমানে ফরিদ জনী ভাইয়ার সাথে আমাকে দেখেছিলো। আমি ফরিদ’র সামনে গিয়ে বললাম!

_ ফরিদ এভাবে কেন বলছো? উনি আমার ভাইয়া। ফরিদ এতে যেন আরো রেগে গেলো। ঠাস করে আমাকে থাপ্পর মারলো। আমি এবার টাল সামলাতে না পেরে। ফ্লোরে পড়ে গেলাম আমার মুখ দিয়ে বেরিয়ে এলো, আহহ!
জানিনা ফরিদ শুনলো কি না। ফরিদ থাপ্পর মেরে রুম থেকে চলে গেলো। কিছুক্ষণ পর আবার ফিরে এলো। আমার চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। ফরিদ হয়তো ভাবেনি। আমাকে এভাবে দেখবে। কানে ভেসে এলো ফরিদ’র মিম বলে চিৎকার। এরপর কি হলো জানিনা।


পর্ব ১০

আমার চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। ফরিদ’র মিম বলে চিৎকার। আমার কানে ভেসে এলো। এরপর কিছু জানিনা। কিছুক্ষণের জন্য সেন্সলেস হয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু ফরিদ’র আমাকে ধরে ঝাকুনির জন্য। আবার সেন্স এলো। ফরিদ’র দিকে তাকিয়ে দেখি। ফরিদ’র চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। ফরিদ পাগলের মতো করছে আর বলছে।

_ মিম তোমার কিছু হবেনা। এটা কি করলাম আমি? তুমি চোখ বন্ধ করবে না ওকে? আমি এটা করতে চাইনি। আমি তোমার কিছু হতে দেবোনা। তুমি চোখ বন্ধ করবে না। আমাকে ছেড়ে যাবেনা প্লিজ।
আমি কিছু বলতে পারছি না। অসহ্য যর্ন্তনা হচ্ছে পেটে। যখন ফরিদ আমাকে থাপ্পর মারে। আর আমি টাল সামলাতে না পেরে। ফ্লোরে পড়ে যাই তখন ফ্লোরে পড়ে থাকা। একুরিয়ামের লম্বা একটা কাচ।

আমার পেটে ঢুকে যায়। এখনো পেটে বিধে আছে। ফরিদ কান্না করে যাচ্ছে। বাড়ির সবাই চলে এসেছে। তারাও ভাবেনি আমাকে এভাবে দেখবে। ফরিদ কথা বলতে বলতে। আমার পেট থেকে একটানে কাচটা বের করলো। আমার কলিজা যেন কেউ বের করে নিলো মনে হলো। ফরিদ’র শার্ট চেপে ধরে। জোড়ে চিৎকার করলাম। এরমাঝে ভাইয়া রুমে এলো। ভাইয়া তো আমাকে এভাবে দেখে। কান্নাকাটি শুরু করে দিয়েছে।

_ মিম এটা কিভাবে হলো?
ভাইয়ার প্রশ্নে একবার ফরিদ’র দিকে তাকালাম। এরপর কোনোভাবে বললাম।
_ আমি এখানে পড়ে গিয়েছিলাম। পেটের ব্যথাটা বাড়ছে। এবার চোখ খুলে রাখতে পারলাম না। ফরিদ’র শার্ট ছেড়ে দিয়ে। চোখদুটো বন্ধ করে নিলাম। জানিনা কতক্ষণ পর? বা কতদিন পর সেন্স এলো। সেন্স আসার পর দেখি। আম্মু, বাবা, ভাইয়া, লিমা।

এখানে সবাই আছে কিন্তু ফরিদ নেই। মনটা খারাপ হয়ে গেলো অজান্তে। আমার সেন্স আসার পরই। সবাই জিগ্যেস করছে কেমন লাগছে? কিন্তু আমার চোখ ফরিদ কে খুজছে। আমার ভাবনা তখন তো ফরিদ। আমার জন্য পাগলের মতো করলো। তাহলে এখন এখানে নেই কেন। আমি সবাই কে বাইরে যেতে বললাম। সবাই গেলেও লিমা থেকে গেলো। সবাই যেতেই লিমা বললো।

_ জিজু কে খুজছিস? আমি কিছু বললাম না। লিমা’ই আবার বললো।
_ ৪দিন পর তোর সেন্স এলো। এবার আমি চোখ বড় বড় করে তাকালাম। মানে আমি ৪দিন সেন্সলেস ছিলাম। লিমাে’র দিকে তাকালাম। লিমা আবার বলে উঠলো।

_ আবির ভাইয়া বলার পরই আমরা চলে আসি। আমি তখন তোদের বাড়ি ছিলাম। আবির ভাইয়া ফোন করে বললো। তোকে সিটি হসপিটালে নিয়ে আসছে। আমরা তাড়াতাড়ি চলে আসি। আর তখনই জিজু। তোকে কোলে করে হসপিটালে ঢোকে। আমি অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। জিজু পাগলের মতো করছিলো। বারবার বলছিলো তোকে ঠিক করে দিতে।

তোর যেন কিছু না হয়। জিজুর গায়ের শার্ট। তোর রক্তে লাল হয়ে গিয়েছিলো। ডক্টর তোকে নিয়ে যখন ওটিতে যায়। তখন জিজুর একটাই কথা। জিজুও তোর সাথে যাবে। ডক্টর যদি তোকে ব্যথা দেয়। অনেক কষ্টে জিজু কে ধরে রেখেছে। জিজু চিৎকার করে কান্না করছিলো। আমরা সবাই অবাক হয়েছি। তোর জন্য এতটা পাগলামি করেছে।

আমি নিজেই অবাক। ফরিদ আমার জন্য এমন করেছে? তাহলে ফরিদ কোথায়? লিমা কে জিগ্যেস করলাম।
_ ফরিদ কোথায়? লিমা করুন ভাবে বললো।
_ পাশের কেবিনে। ফরিদ পাশের কেবিনে শুনে। বুকটা ধক করে উঠলো।
_ মানে?

_ আরে শোন তেমন কিছু হয়নি জিজুর। তোর তো ৪ দিন পর সেন্স এলো। তোর পাগলা স্বামী খুব পাগলামী করেছে। ওটি থেকে বের করে তোকে যখন কেবিনে দিলো। তখন সব ঠিকই ছিলো। ডক্টর বলেছিলো তোর সেন্স চলে আসবে। জিজুর চোখে মুখে তখন খুশি দেখেছি। কিন্তু তোর সেন্স আসেনা তখন। জিজু আবার পাগলামী করে। তোর সেন্স কেন আসছে না। তুই জিজুর সাথে কথা কেন বলছিস না। ডক্টর তখন বলে যে তুই ছোট।

তাই তুই আঘাতটা নিতে পারিসনি। টেনশন না করতে তোর সেন্স চলে আসবে। এভাবে ৩ দিন কেটে যায়। জিজু এক মুহূর্তের জন্য। তোর পাশ থেকে সরেনি। তোর হাত ধরে বসেছিলো। কাল যখন তুই ঘন ঘন নিঃশ্বাস নিচ্ছিলি। ব্যস জিজু আবার পাগলামি শুরু করে। যেমন তেমন পাগলামি না। ডক্টর কে ধরে মেরেছে। তাই বাধ্য হয়ে জিজু কে। ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে। পাশের কেবিনে রেখেছে। সত্যি মিম জিজু তোকে অনেক ভালবাসে। যাকে বলে পাগলামি টাইপ ভালবাসা। হাউ লাকি ইউআর।

আমি হা হয়ে বসে আছি। ফরিদ ডক্টর কে মেরেছে? ইস বেচারা ডক্টর। তবে ফরিদ আমার জন্য এমন করেছে। এসব ভেবে আমার অনুভূতি গুলো। মনের ভেতর যেন খেলা করছে। একটা ভাললাগা কাজ করছে। কিন্তু ফরিদ’র জন্য এমন হয়েছে। এটা ভেবে মন খারাপ হয়ে গেলো। তখন কেবিনে ঝড়ের গতিতে কেউ প্রবেশ করলো। তাকিয়ে দেখি ফরিদ। চোখ মুখ ফুলে আছে। ফরিদ লিমাে’র সামনেই আমাকে জড়িয়ে ধরলো। ফরিদ’র এভাবে জড়িয়ে ধরাতে। হাতে স্যালাইন দেয়া তাতে টান লাগলো। আমি শব্দ করে উঠলাম। ফরিদ আমাকে ছেড়ে বললো।

_ আই এম সরি খেয়াল করিনি। তুমি ঠিক আছো? পেটে ব্যথা নেই তো? ওয়েট আমি ডক্টর কে ডাকি।
বলে ফরিদ উঠতে গেলো। আমি হাত টেনে বসিয়ে দিয়ে বললাম।
_ আমি ঠিক আছি আমার ব্যথা নেই। তুমি ডক্টর কে কেন মেরেছো? ফরিদ চোয়াল করে শক্ত করে বললো।
_ বেশ করেছি মেরেছি। ওরা কি ট্রিটমেন্ট করছিলো? যে তোমার সেন্সই আসছিলো না। আমি মুচকি হেসে বললাম।

_ আমি তো এখন সুস্থ। আমি এখানে আর থাকবো না। আমি আজই বাড়ি যাবো।
তখন কেবিনে ডক্টর এলো। সাথে সবাই এলো। ফরিদ’র মা আমার পাশে বসে বললো। ডক্টর হাতের স্যালাইন খুলে দিলো।

_ এখন কেমন লাগছে মা? আমি হেসে বললাম।
_ আম্মু আমি এখন ঠিক আছি। আমি আজই বাড়ি যাবো।
_ কিন্তুু আপনি তো আজ যেতে পারবেন না। আপনি এখনো অসুস্থ। তাই আপনাকে থাকতে হবে।
ডক্টরের কথায় ফরিদ চোখ রাঙিয়ে তাকালো। বেচারা ডক্টর মনে হলো ভয় পেলো। তাই চুপ হয়ে গেলো। জনী ভাইয়া আমার সামনে এসে বললো।

_ সত্যি করে বল তৃশ। তোর পেটে কাচ কি করে ঢুকলো? আমি চুপ করে আছি। ফরিদ’ই বলে উঠলো।
_ আমার জন্য আমি ওকে চর মেরেছিলাম। আর ও গিয়ে ফ্লোরে পড়ে। আর ওর পেটে কাচ ঢুকে যায়। আমার বাড়ির লোক এবার রেগে যায়। বাবা চেচিয়ে বললো।

_ তোমার সাহস তো কম না। তুমি এটা কি করে করলে? ফরিদ মাথা নিচু করে বললো।
_ আমি জানি আমি ঠিক করিনি। কিন্তু আমি এটা করতে চাইনি। জনী ভাইয়া রেগে বলে উঠলো।
_ আবির তো বললো তোমার রুমে ফ্লোরে। কাচ ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিলো। তোমার তো বোঝা উচিত ছিলো। নিচে পড়লে ওর ক্ষতি হতে পারে।

সবাই ফরিদ কে কথা শোনাচ্ছে। ফরিদ মাথানিচু করে রেখেছে। আমার খুব খারাপ লাগছে। চুপ করতে বলেছি সবাই কে। কিন্তু কেউ শুনছে না। এবার তো আমাকে। বাবা, আম্মু নিয়ে যেতে চাইছে। ফরিদ’র সাথে রাখবে না বলছে। ফরিদ আর চুপ করে থাকলো না। ফরিদ আমার ডান হাত ধরে বললো।

_ মিম আমার ওয়াইফ। আর আমি আমার ওয়াইফ কে। কোথাও যেতে দেবোনা। ও আমার সাথে আমার বাড়ি যাবে এখনি। বলেই ফরিদ আমাকে কোলে তুলে নিলো। আমি আহম্মকের মতো তাকিয়ে আছি। শুধু আমি না সবাই শুধু লিমা ছাড়া। লিমা মুচকি মুচকি হাসছে। ইচ্ছে করছে মাথা ফাটিয়ে দিতে। কি লজ্জাজনক পরিস্থিতি।

ফরিদ আমাকে কোলে নিয়ে হনহন করে হাটছে। হসপিটালের সবাই তাকিয়ে আছে। আমি হাত দিয়ে মুখ ঢেকে রেখেছি। ফরিদ আমাকে গাড়িতে বসিয়ে। গাড়ি স্টার্ট দিলো কিছুক্ষণ পর বাড়ি চলে এলাম। ফরিদ আবার আমাকে কোলে নিয়ে বাড়ি ঢুকলো। রুমে এসে আমাকে বিছানায় বসিয়ে দিলো। ঘটনাটা এত দ্রুত ঘটলো যে। আমি আবালের মতো তাকিয়ে আছি। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ এভাবে তাকিয়ে আছো কেন? আমি রাগী ফেস করে বললাম।
_ এটা কি হলো? এভাবে নিয়ে এলে কেন? ইস কি লজ্জাজনক ব্যাপার।
_ আমার বউ আমি নিয়ে এসেছি কার কি? ফরিদ’র কথায় মুখ ভেংচি কেটে শুয়ে পড়লাম। ফরিদ আমার পাশে বসে। আমার হাত ধরলো। আমি মাথা তুলে তাকালাম। ফরিদ করুন ভাবে বললো।

_ আই এম সরি মিম। আমি বুঝতে পারিনি এরকম কিছু হয়ে যাবে। আমি যদি জানতাম এমন করতাম না। তখন এতটা রেগে ছিলাম। তোমাকে কোনো ছেলের সাথে সহ্য হয়না। তুমি জনী’র গলায় ঝুলে ছিলে। আমার রাগ লাগছিলো। রাগটা কন্ট্রোল করতে পারিনা। আমি আর কখনো এমন করবো না। তোমার গায়ে হাত তুলবো না। প্লিজ ক্ষমা করে দাও।

আমি মুখ অন্যদিকে ঘুরিয়ে। মুচকি হাসি দিলাম এরপর। মুখটা গম্ভীর করে বললাম।
_ ফরিদ আমাকে একা থাকতে দাও। ফরিদ অসহায়ের মতো তাকালো। কিন্তু এই মুহূর্তে ওকে বোঝাতে হবে। আমি খুব রেগে আছি। তাই তেমন ব্যবহার তো করতে হবে। কিন্তু এরমাঝে হুরমুর করে সবাই রুমে এলো। এসেই আমাকে নিয়ে যেতে চাইছে। শাশুড়ি আম্মু বলছে আমি যেন না যাই। মনে মনে ভাবছি আমি তো এমনিই যাবোনা। তাই বাবা, আম্মু কে বললাম।

_ আমি এখন যেতে পারবো না। ফরিদ ইচ্ছে করে ওমন করেনি। দোষ আমারই ছিলো। তাই আমাকে নিতে চেয়োনা। আমি যেতে পারবো না। সুস্থ হই বেরাতে যাবো। বাবা, আম্মু, ভাইয়া বোঝালো। কিন্তু আমি তো যাবোনা। তাই ওরা চলে গেলো। শাশুড়ি আম্মুও কপালে চুমু দিয়ে চলে গেলো। ফরিদ খুশি হয়ে এসে আমার হাত ধরে বললো।

_ তারমানে তুমি আমাকে ক্ষমা করে দিয়েছো? আমি হাত ছাড়িয়ে বললাম।
_ মোটেও না আমি আম্মুর জন্য রয়ে গেলাম। তুমি এটা ভেবোনা। আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিয়েছি ওকে? আমি তোমাকে ক্ষমা করতে পারবো না। বলে শুয়ে পড়লাম। বুঝলাম ফরিদ কষ্ট পেয়েছে হু তাতে কি? একটু কষ্ট পাও তারপর ক্ষমা করবো। সবাই আমার খেয়াল রাখে। ফরিদ কে চেয়েও দুরে রাখতে পারিনা। ফরিদ আমার সম্পূর্ণ যত্ন নেয়। পেটে ব্যথা তো আছে। যতই বলি ব্যথা নেই।

একা হাটতে পারিনা। যেখানে যাই ফরিদ কোলে নিয়ে যায়। ফ্রেশ হওয়া থেকে শুরু করে। সবকিছু ফরিদ করে দেয়। ব্রাশও ফরিদ করিয়ে দেয়। এতটা অচল নই কিন্তু ওর জেদের জন্য। বাধ্য হয়ে কিছু বলতে পারিনা। ওয়াসরুমের দরজা পর্যন্ত কোলে নিয়ে যায়। আবার নিয়ে আসে। ড্রয়িংরুমে যেতে চাইলেও কোলে নিয়েই যায়। পুরো সুস্থ হতে ১৫ দিন কেটে গিয়েছে। এই ১৫ দিন ফরিদ আমার এমনভাবে খেয়াল রেখেছে। মনে হয়েছে আমি কোনো বাচ্চা। এটা সেটা বলে ঔষুধ খাইয়েছে।

কারন আমি ঔষুধ খেতে চাইনি। ফরিদ’ই আমাকে খাইয়ে দিয়েছে। বলতে গেলে ফরিদ’র প্রতি ডিপেনডেন্ট হয়ে গিয়েছি। কিন্তু আমি সবসময় মুখ ফুলিয়ে থেকেছি। ফরিদ অনেক কথা বলেছে। আমি চুপ করে থেকেছি। বেচারা আমার জামাই অসহায় হয়ে চেয়ে থাকে। ওর এভাবে তাকানো দেখলে হাসি পায়। এ কদিনে বুঝে গিয়েছি। আমি ফরিদ কে ভালবেসে ফেলেছি। হ্যা ভালবাসি আমি ফরিদ কে। এখন আমি একদম সুস্থ। প্রায় অনেক রাতে ড্রয়িংরুমে সবার সাথে গল্প করে। রুমে এসে দেখি বিছানায় ২টা শপিং ব্যাগ। হাতে নিয়ে খুলে দেখি। নীল শাড়ি, নীল কাচের চুরি, নীল ঝুমকো, নীল নেকলেস।

বুঝলাম ফরিদ রেখেছে। পাশে একটা চিরকুট। তাতে লেখা এগুলো পড়ে। ছাদে চলে এসো প্লিজ। মনটা খুশিতে নেচে উঠলো। আজ নিশ্চই ফরিদ আমাকে বলবে। আমার মতো ফরিদ ও আমাকে ভালবাসে। চট করে শাড়িটা পড়ে নিলাম। চোখে কাজল দিয়েছি। ঠোটে হালকা লাল লিপস্টিক। আর ফরিদ’র দেয়া জুয়েলারি। আয়নায় একবার নিজেকে দেখে। পা বাড়ালাম ছাদের দিকে। যত এগিয়ে যাচ্ছি তত বুক ধুকধুক করছে।

অবশেষে ছাদে চলে এলাম। ছাদে এসে আমি থ। পুরো ছাদ সাজানো। আর চারপাশে মোমবাতি প্রদীপ। বেলুন দিয়ে ভরপুর ছাদের ঠিক মাঝে। একটা টেবিল দুপাশে দুটো চেয়ার। টেবিলে একটা কেক আর ফুলের বুকি। এবার চোখ গেলো ফরিদ’র দিকে। ফরিদ কে দেখে হা করে তাকিয়ে আছি। নীল একটা পান্জাবী গায়ে। কালো জিন্স প্যান্ট। পান্জাবীর দুটো বোতাম খোলা। চুলগুলো স্পাইক করা। কিছু অবাধ্য সিল্কি চুল কপালে এসে পড়েছে। হাতে ব্যান্ডের নীল বেল্টের ঘড়ি। ডার্ক রেড ঠোটের কোনে। হাসিটা ঝুলিয়ে রেখেছে। আমি রীতিমত ক্রাশ খেলাম। ফরিদ আমাকে দেখে এগিয়ে এলো। বুকের বাম পাশে হাত রাখলো। আমি ভ্রু কুঁচকে তাকালাম।

_ হায় মিষ্টিপাখি ইউআর লুকিং সো হট। বলে ফরিদ চোখ টিপ মারলো। আমি চোখ বড় বড় করে তাকালাম। তারপর ভ্রু নাচিয়ে বললাম।
_ এই মিষ্টিপাখি কে? ফরিদ আমার হাত ধরে চেয়ারে বসিয়ে বললো।
_ এখানে তো তুমিই আছো। তুমিই মিষ্টিপাখি।
_ আজ কি কারো জন্মদিন? আমার কথায় ফরিদ হু হা করে হাসলো। ঠিক তখনি ঘড়িতে ১২টা বাজলো। সাথে সাথে ফরিদ বলে উঠলো।

_ হ্যাপি বার্থ ডে ডিয়ার মিষ্টিপাখি। মেনি মেনি হ্যাপি রিটার্নস অফ দ্যা ডে। আমি লজ্জা পেয়ে গেলাম। আজ আমার জন্মদিন আর আমি ভুলে গিয়েছি। ফরিদ মুচকি হেসে বললো!
_ আর লজ্জা পেতে হবেনা। ১৮ শেষ ১৯ এ পা দিলে এখন থেকে নো বাচ্চামী। এখন কেক কাটো। কেক কেটে ফরিদ কে খাইয়ে দিলাম। ফরিদ ও আমাকে খাইয়ে দিলো। ধুর এবার রাগ লাগছে। মনটাও খারাপ হয়ে গেলো। ভেবেছিলাম ফরিদ বলবে আমাকে ভালবাসে। গাল ফুলিয়ে বললাম।

_ তুমি তো আমাকে ভালবাসো না। তাহলে এসব কেন করলে?
_ আরে ভালবাসি না তাতে কি? তুমি আমার একমাএ পিচ্চি বউ। এটুকু তো করতেই পারি। ফরিদ’র কথা শুনে কান্না পাচ্ছে। একেবারে হাত, পা ছড়িয়ে কাঁদতে ইচ্ছে করছে। মনে মনে ভাবছি তারমানে ফরিদ আমাকে ভালবাসে না। থাকবো না এখানে। তাই হাটা দিলাম তখনই ফরিদ বলে উঠলো।

_ আই লাভ ইউ মিষ্টিপাখি। ওমনি আমি দাড়িয়ে গেলাম। ফরিদ হেটে আমার সামনে এসে। ফুলের বুকি আর রিং নিয়ে হাটু গেরে। আমার সামনে বসে আবার বলে উঠলো।
_ আই রিয়েলি লাভ ইউ। আই কান্ট লিভ ইউ মিষ্টিপাখি। আই কান্ট লিভ উইথআউট ইউ। আই লাভ ইউ মিষ্টিপাখি। আই উইল শেয়ার। অল ইউআর সররউস এন্ড পেইন। ইফ উই ফেস এনি প্রবলেম। আই’ল ডেল উইথ ইট। ইউআর মাই এব্রিথিং। ইউআর এ লাইট অফ মাই লাইফ। আই লাভ ইউ সো মাচ। উইল ইউ বি মাই লাইফ লাইন প্লিজ?

আমার চোখ দিয়ে দুফোটা পানি গড়িয়ে পড়লো। তবে এটা কষ্টের না আনন্দের। আমি ফরিদ’র হাত থেকে। ফুলের বুকি নিয়ে হাত বারিয়ে দিলাম। ফরিদ খুশি হয়ে আমার আঙুলে রিং পড়িয়ে। উঠে দাড়ালো আমি ফরিদ কে জড়িয়ে ধরে বললাম।

_ আই লাভ ইউ টু ফরিদ। ইয়েস আই’ল উইল বি ইউআর লাইফ লাইন। এন্ড আই কান্ট লিভ ইউ।
ফরিদ শক্ত করে আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমি ফরিদ’র বুকের সাথে মিশে আছি। কিছুক্ষন পর ফরিদ বলে উঠলো।
_ মিষ্টিপাখি আমি কি তোমাকে। সম্পূর্ণ আমার করে নিতে পারি? আমি কি স্বামীর অধিকার পেতে পারি?
আমার বুক ঢিপঢিপ করছে। আমিও চাই ফরিদ কে। আমি ফরিদ’র পান্জাবী চেপে ধরলাম। ফরিদ আবার বলে উঠলো।

_ মে আই মিষ্টিপাখি? ফরিদ’র দিকে তাকিয়ে। চোখ বন্ধ করে ফেললাম। ফরিদ আমার ঠোটে ওর ঠোট ছুইয়ে। আমাকে কোলে তুলে নিলো। রুমে এনে বিছানায় নামিয়ে দিলো। আমি চোখ বন্ধ করে আছি। ফরিদ আমার গলায় মুখে গুজে দিলো। আর পাঁচটা হাজবেন্ড, ওয়াইফের মতো।
আমাদের সম্পর্ক ও পূর্নতা পেলো।
সকালের মিষ্টি রোদ। জানালা দিয়ে চোখে পড়তেই। আমার ঘুম ভেঙে গেলো। নিজেকে আবিষ্কার করলাম ফরিদ’র বুকে। ফরিদ শক্ত করে আমাকে জড়িয়ে ধরে আছে। আজ নিজেকে খুব ভাগ্যবতী মনে হচ্ছে। যাকে সহ্য করতে পারতাম না। আজ মনে হচ্ছে তাকে ছাড়া বাঁচবো না। আর সেও তাই আল্লাহ চাইলে সব হয়। কবুল বলার জোড়ে সব সম্ভব হলো মেবি।


পর্ব ১১

ফরিদ’র মুখের দিকে তাকিয়ে। কথাগুলো ভাবতে ভাবতে। ফরিদ’র কপালে চুমু একে দিলাম। ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি ৯টা বাজে। আমার তো চোখ কপালে। এত বেলা করে উঠেছি আজ। তাড়াতাড়ি উঠতে গেলাম। কিন্তু পারছি না ফরিদ আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে ধরে আছে। অনেক চেষ্টা করেও উঠতে পারছি না। তাই ফরিদ কে ডাকতে শুরু করলাম।

_ ফরিদ ওঠো, ছাড়ো আমাকে। ফরিদ আমাকে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো। এবার মনে হচ্ছে। হাড্ডি, মাংস পাউডার হয়ে যাবে। জোড়ে ডাক দিলাম।
_ ফরিদ ছাড়ো আমাকে।
_ উম ডিস্টার্ব করো না ঘুমাতে দাও। ফরিদ’র কথা শুনে রাগ লাগলো। দিলাম জোড়ে এক চিমটি। ওমা এতেও তো কিছু হলো না। ফরিদ মুচকি হাসতে হাসতে বললো।

_ ওয়েল মিম তোমার কি। আরো রোমান্স করতে ইচ্ছে করছে? আমি চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে বললাম।
_ মানে? আমার কেন রোমান্স করতে মন চাইবে?
_ এইযে আমি ঘুমিয়ে আছি। এই সুযোগে তুমি আমাকে কিস করছো। আমতা আমতা করতে করতে বললাম।
_ তারমানে তুমি জেগে ছিলে?

_ জেগে না থাকলে তো জানতামই না। আমার বউ আমার ঘুমের সুযোগ নেয়। আচ্ছা চলো আরেকটু রোমান্স করি।
ফরিদ আমার গলায় মুখ গুজে দিলো। আমি জোড়ে চিমটি কাটলাম। ফরিদ আমাকে ছেড়ে ভেংচি কেটে বললো।
_ যখন আমার ঘুমের সুযোগ নাও? ইচ্ছে করছে চুল ছিড়তে। ফরিদ কে ছাড়িয়ে উঠে গেলাম। আমি ওয়াসরুমে ঢুকতে যাবো। ওমনি ফরিদ আমাকে চুমু দিয়েই। ড্রেস নিয়ে এক দৌড়ে ওয়াসরুমে ঢুকলো। আমি বেক্কলের মতো বসে আছি। ঠিক বুঝতে পারছি না। এত তাড়াহুড়ো করে কেন গেলো? যাইহোক বিছানায় বসে আছি। ফরিদ রোজ যত টাইম নেয়। আজ তারথেকে বেশী টাইম নিয়ে শাওয়ার নিচ্ছে। ইচ্ছে করে করছে বুঝতে পারছি।

_ ফরিদ বের হও বলছি। তুমি ইচ্ছে করে লেট করছো।
_ ও বেবী আর ১০ মিনিট লাগবে। ওর কথায় মেজাজ গরম হয়ে গেলো!
_ ১ মিনিটের মধ্যে বের হও। নাহলে আমি কিন্তু নিচে চলে যাবো। ওমনি ফরিদ বেরিয়ে এলো। গায়ে একটা ব্লু টি শার্ট। আর কালো থ্রি কোয়াটার প্যান্ট। পায়ের পশম গুলো লেপ্টে আছে। চুল থেকে পানি পড়ছে। খোচা খোচা দাড়িতেও পানি। ঠোট কামড়ে ধরে রেখেছে। আমি হা করে তাকিয়ে আছি। ধ্যান এলো ফরিদ’র কথায়।

_ এই নো মিষ্টিপাখি। তুমি আজকে রুম থেকে বের হবেনা। আমি ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে বললাম।
_ রুম থেকে বের হবোনা কেন?
_ যেটা বলছি সেটা করো। আর যাও ঝটপট শাওয়ার নিয়ে নাও। আমি তোমার জন্য খাবার নিয়ে আসছি।
_ আমি শাওয়ার নিয়ে নেই। এরপর নিচে গিয়ে খাবো। মুচকি হেসে বললাম। ফরিদ রাগী দৃষ্টিতে তাকালো। কিছু না বলে ওয়াশরুমে চলে এলাম। এসে ওর গুষ্টি উদ্ধার করছি। বকবক করতে করতে শাওয়ার নিয়ে বের হলাম। দেখি ফরিদ সোফায় ভাত নিয়ে বসে আছে।

_ মিম কাম ফাস্ট আমার কাজ আছে। তোমাকে খাইয়ে বের হতে হবে। চোখ ছোট ছোট করে বললাম।
_ কি এমন মহান কাজ আছে? আর কোথায় যাবে? ফরিদ এবার ধমক দিয়ে বললো।
_ এত প্রশ্ন করো কেন? এখানে আসতে বলেছি না? ১ সেকেন্ডে এসো। ভেংচি কেটে ফরিদ’র পাশে বসলাম। ফরিদ আমাকে খাইয়ে দিচ্ছে।

_ তুমি খেয়েছো? ফরিদ কে জিগ্যেস করলাম। ফরিদ মুচকি হেসে বললো।
_ আমি নিচে গিয়ে খেয়ে নেবো।
_ না এখান থেকে খাও। ফরিদ নিচে গিয়ে আর খাবেনা জানি। তাই খেতে বলছি। ও বারবার বলছে নিচে গিয়ে খাবে। আমার জোড়াজুড়ি তে খেলো। একা খায়নি আমি খাইয়ে দিয়েছি। ফরিদ খাওয়া শেষ করে আমার মুখ মুছে দিলো।

বিছানায় পা দুলিয়ে। গাল ফুলিয়ে বসে আছি। সেই সকাল থেকে। আর এখন প্রায় সন্ধ্যা। দুপুরেও ফরিদ খাইয়ে দিয়ে গিয়েছে। কিন্তু রুম থেকে বের হতে দেয়নি। কেন বের হতে দিচ্ছেনা জানিনা। বসে আছি তো আছি। এমন সময় সিউলী এলো রুমে। হাতে কয়েকটা শপিং ব্যাগ। আর সিউলীও সেজে আছে। সিউলী আমার সামনে ব্যাগগুলো রাখলো। আমি জানিনা এতে কি। তাই হেসে বললাম।

_ সিউলী এতে কি আছে?
_ ভাবী এতে তোমার ড্রেস আছে। তোমাকে এখন প্রিন্সেস সাজাবো।
বলেই সিউলী ব্যাগ থেকে একটা গাউন বের করলো। গাউনটা সম্পূর্ণ সাদা। তারমাঝে সাদা স্টোন বসানো। যেগুলো চিকচিক করছে। অনেক ঘের আর ফোলা। অসম্ভব সুন্দর লাগছে। আমি তো গাউন দেখেই ফিদা। তাই কোনো প্রশ্ন না করে পড়ে এলাম। সিউলী আমাকে আয়নার সামনে বসালো।

এরপর বাকী ব্যাগ থেকে। জুয়েলারি বের করলো। ডায়মন্ড ঝুমকো কানে পড়িয়ে দিলো। ডায়মন্ড নেকলেস, হাতে চিকন ডায়মন্ড চুরি। এরপর চোখে মোটা করে কাজল। আর লিপস্টিক পড়িয়ে। সবশেষে মাথায় ক্রাউন পড়িয়ে দিলো। নিজেকে আয়নায় দেখছিলাম। তখন কেউ দরজায় নক করলো। সিউলী গিয়ে দরজা খুলে দিলো। ফরিদ রুমে এলো। আমি অপলক তাকিয়ে দেখছি ফরিদ কে।

ফরিদ সাদা শার্ট পড়েছে। সাদা প্যান্ট শার্টের উপরে সুট। চুলগুলো স্পাইক করা। হাতে ব্যান্ডের ঘড়ি। ঠোটের কোনায় চিরচেনা সেই হাসি। ফরিদ আমার দিকে এগিয়ে এসে। আমার দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে বললো।

_ মিষ্টিপাখি ইউআর লুকিং সো হট। চোড় গরম দিয়ে বললাম।
_ তোমার মুখে কি এটা ছাড়া আর কিছু আসেনা?
_ অনেক কিছু আসে সোনা। সিউলী না থাকলে এপ্লাই করতাম। তবুও যখন চাইছো বলছি। আমি হাত দিয়ে ফরিদ’র মুখ চেপে বললাম।

_ থাক আর কিছু বলতে হবেনা। ফরিদ হাত ছাড়িয়ে আমাকে নিয়ে এলো। সিরির কাছে এসে আমি অবাক। পুরো বাড়িটা অসম্ভব সুন্দর করে সাজানো। আর অনেক মানুষজন। এবার চোখ গেলো কেকের দিকে। মিনি টেবিলটা সাজানো। আর তার উপর বড় একটা কেক।

এবার বুঝলাম ফরিদ আমার। জন্মদিন তাই পার্টি রেখেছে। আমি আর ফরিদ নিচে নেমে এলাম। আমার বাড়ির লোকও আছে। লিমা ও এসেছে সবার সাথে কথা বলছি। সবাই আমাকে উইশ করছে। ফরিদ আমাকে কেক কাটার জন্য নিয়ে গেলো। কেক কেটে সবাই কে খাইয়ে দিলাম। আম্মু কে জিগ্যেস করলাম।
_ আম্মু জনী ভাইয়া এলোনা?

_ না রে তোর শ্বশুর, শাশুড়ি আসতে বলেছিলো। কিন্তু জনী এলোনা। বললো ওর নাকি কি কাজ আছে।
আম্মুর কথায় ভাবলাম। আমার শ্বশুর, শাশুড়ি জনী ভাইয়া কে নিয়ে। একটু বেশীই ভাবছে কিন্তু কেন? এমন সময় ফরিদ আমাকে নিয়ে এলো। নিয়ে এসে সবাই কে উদ্দেশ্য করে বললো।

_ সো লেডিস এন্ড জেন্টলম্যান। এখন আমাদের গান গেয়ে শোনাবে। আজকের বার্থ ডে গার্ল। আমার লাভিং ওয়াইফ। মিসেস মিম চৌধুরী। ফরিদ’র কথায় আকাশ থেকে পড়লাম। এখন আমার গান গাইতে হবে? ইচ্ছে করছে ওর মাথা ফাটাতে। দাত কেলিয়ে দাড়িয়ে আছে। আমার কাছে এসে চোখ টিপ মেরে বললো।

_ বেবী গান গাও তাড়াতাড়ি। লিমা এসে তাল মেলাচ্ছে। সবাই গান গাইতে বলছে। ফরিদ কে বললাম ওর গিটার এনে দিতে। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে আছে। সিউলী গিয়ে গিটার এনে দিলো। একটা চেয়ার নিয়ে বসে গিটারে সুর তুললাম।

বুকের ভেতর নোনা ব্যথা
চোখে আমার ঝড়ে কথা
এপাড় ওপাড় তোলপাড় একা
বুকের ভেতর নোনা ব্যথা
চোখে আমার ঝড়ে কথা
এপাড় ওপাড় তোলপাড় একা
চেয়ার ছেড়ে উঠে আবার গাইতে লাগলাম।
যাও পাখি বলো তারে
সে যেন ভোলেনা মোরে
সুখে থেকো ভাল থেকো
মনে রেখো এই আমারে
[বাকীটা নিজ দায়িত্বে শুনবেন। ]

গান গাওয়া শেষে সবাই হাততালি দিলো। আহা তারমানে ভাল গান গেয়েছি। দেখতে দেখতে পার্টি শেষ হয়ে গেলো। ড্রেস চেন্জ করে ফ্রেশ হয়ে আয়নার সামনে বসে। চুল বাধছি আর ফরিদ কে দেখছি। ফরিদ কে দেখে প্রচুর হাসি পাচ্ছে। মুখ ফুলিয়ে বসে আছে। ফরিদ’র সামনে গিয়ে গাল টেনে বললাম।

_ কি হয়েছে সোনা? ফরিদ ভেংচি কেটে শুয়ে পড়লো। আসলে ফরিদ ভেবেছিলো। আমি গান গাইতে পারিনা। ও আমাকে গান গাইতে বললে। আমি ওকে বলবো আমি পারিনা। তুমি সবাই কে বলে দাও। তখন ও আমাকে শর্ত দেবে। আমি সবাই কে বলতে পারি। তোমার নিজে থেকে আমার সাথে। রোমান্স করতে হবে। ভাবা যায় কি লুচু পোলা? বেচারার এই ইচ্ছে পূরন হলো না। তাই গাল ফুলিয়ে আছে। আমি ফরিদ’র পাশে শুয়ে। ফরিদ কে জড়িয়ে ধরলাম!

_ ছাড়ো আমাকে। ফরিদ’র কথায় পেট ফেটে হাসি পাচ্ছে। আমি টুপ করে ফরিদ কে চুমু দিলাম। ফরিদ মুচকি হেসে আমার ঠোটে ঠোট ছোয়ালো। দেখতে দেখতে ১ মাস কেটে গিয়েছে। ভালভাবেই কাটছে আমাদের দিন। ফরিদ আমাকে অনেক ভালবাসে। কিন্তু বেশী কোনো কিছু নাকি ভালো না? এখন আমার তাই মনে হয়। ফরিদ আমাকে একা ছাড়তেই চায়না। যেখানে যাই সাথে নিয়ে যায়। এখানে যাবেনা, ওখানে যাবেনা। এটা করবে না, ওটা করবেনা।

আম্মুর রুমে বসে আছি। আম্মু সেই ছবি নিয়ে কাঁদছে। আম্মু কে জিগ্যেস করলাম।
_ আচ্ছা আম্মু রাকিব ভাইয়া যদি আসে। তোমাদের সামনে চিনতে পারবে?
_ হ্যা পারবো। আমি কৌতুহল নিয়ে বললাম।
_ বুঝবে কি করে? রাকিব ভাইয়া তো এখন বড় হয়ে গিয়েছে। আম্মু চোখের পানি মুছে বললো।

_ ওর পিঠে স্টার আকাঁ আছে। ওটা দেখেই আমি চিনতে পারবো। স্টারটা আমি সখ করে আর্টকরিয়েছিলাম। ফরিদ’র পিঠেও আছে সেম স্টার। আম্মু কে বুঝিয়ে রুমে চলে এলাম।
২দিন পর সবাই মিলে প্লান করেছে। একটু দুরে কোথাও পিকনিকে যাবে। আমার তো সেই খুশি লাগছে। ব্যাগ প্যাকিং করছিলাম। ফরিদ রুম কাঁপিয়ে হাসছে। ওর হাসির রিজন খুজে পাচ্ছিনা। ভ্রু কুঁচকে বললাম।

_ এত হাসছো কেন? ফরিদ হাসতে হাসতে বললো।
_ তুমি পিকনিকে যাবে বলে। ব্যাগ প্যাকিং করছো? রাগে গা জ্বলে যাচ্ছে।
_ আজিব এতে হাসার কি আছে? ফরিদ হাসি থামিয়ে বললো।

_ মিম আমরা আজ রাতে যাবো। কালকে থেকে পরশুদিন চলে আসবো। তোমার ব্যাগ প্যাকিং দেখে মনে হচ্ছে। আমরা ১ মাসের জন্য যাচ্ছি। এবার আমি লজ্জা পেলাম। আসলেই আমার তো মনে ছিলোনা। ফরিদ আবার হেসে দিলো। ভেংচি কেটে চলে এলাম। রাতে গাড়িতে বসে আছি। সামনের গাড়িতে আমি, ফরিদ। ফুপ্পি, সিউলী, শ্বশুর বাবা, শাশুড়ি আম্মু। পেছনের গাড়িতে আম্মু, বাবা। ভাইয়া, লিমা, জনী ভাইয়া। জনী ভাইয়া এখানেও আসতে চায়নি। আমি আর ভাইয়া জোড় করে এনেছি। যাইহোক দেখতে দেখতে চলে এসেছি। এটা ফরিদ’দের অন্য বাসা। ১ ঘন্টার রাস্তা তাই তাড়াতাড়ি পৌছে গেলাম। রাত বেশী হওয়ায় সবাই ঘুমিয়ে পড়লাম।

পরেরদিন রাতে সবাই ছাদে বসে। ট্রুথ অর ডেয়ার খেলছি। তবে রাত যে মনে হচ্ছেনা। কারন পুরো ছাদে লাইট দেয়া। নিচে বড়রা আছে। বাবূর্চি রান্না করছে। ওনারা দেখিয়ে দিচ্ছে। বোতল ঘোরানোর পর। বোতল লিমাে’র দিকে থামলো। আমি জিগ্যেস করলাম। ট্রুথ নাকি ডেয়ার? লিমা ট্রুথ নিলো।
_ কাউকে ভালবাসিস? লিমা একবারেই বলে দিলো, হ্যা। আমরা সবাই অবাক চোখে তাকালাম। লিমা কাউকে ভালবাসে। আর আমি জানিনা? যাইহোক আবার বোতল ঘুরালো। এবার বোতল থামলো জনী ভাইয়ার দিকে। এবারও আমি জিগ্যেস করলাম।

_ ট্রুথ নাকি ডেয়ার?
_ ডেয়ার। আমি জোড়ে বললাম।
_ সত্যি তো? যা বলবো করতে হবে। জনী ভাইয়া হয়তো আনমনে বলেছে। এবার যখন বুঝলো। তখন ট্রুথ নিতে চেয়েছিলো। আমরা চেন্জ করতে দেইনি। জনী মুখ ফুলিয়ে বললো!

_ কি করতে হবে? আমার ভাইয়া ডেয়ার দিলো। জনী ভাইয়ার শার্ট খুলে। শার্ট মাথায় বেধে ছবি তুলে। ফেসবুকে আপলোড দিতে হবে। ডেয়ার শুনে আমি আর লিমা হাসতে হাসতে। রীতিমত গড়াগড়ি খাচ্ছি। ফরিদ ও মুখ টিপে হাসছে। জনী ভাইয়া অসহায় ভাবে তাকিয়ে আছে। মুখ কাঁচুমাচু করে বললো।

_ আবির অন্য কোনো ডেয়ার দে। এটা ফেসবুকে দিলে। আমার মান সম্মানের ফালুদা হয়ে যাবে।
আবির ভাইয়া মানলো না। বাধ্য হয়ে জনী ভাইয়া শার্ট খুললো। জনী ভাইয়ার পিঠ আমার দিকে ছিলো। পিঠে চোখ পড়তেই আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। আকাশ থেকে পড়লাম। এটা কি করে সম্ভব?


পর্ব ১২

জনী ভাইয়ার পিঠে চোখ পড়তেই। আমি জাস্ট অবাক। মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়লো। শুধু ভাবছি এটা কি করে সম্ভব? আম্মুর বলা কথাগুলো কানে বাজছে। আমি বসা থেকে উঠেই। জনী ভাইয়ার কাছে এসে। পিঠে ভাল করে দেখছি। না আমি ভুল দেখিনি।

জনী ভাইয়ার পিঠে সেম স্টার। যেটা আমি ফরিদ’র পিঠে দেখেছি। সবাই আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি ফরিদ কে টেনে দাড় করিয়ে শার্ট খুলতে বললাম।
_ আমি শার্ট খুলবো কেন? ফরিদ কে থামিয়ে আমিই খুলতে গেলাম। তাই ফরিদ নিজেই খুললো। জনী ভাইয়ার কাছে দাড় করিয়ে দেখলাম। এবার ভাইয়া আর লিমাও দেখলো। ভাইয়া অবাক হয়ে বললো।

_ ওদের দুজনের পিঠে সেম স্টার? কিন্তু কি করে সম্ভব? তাও একদম সেম জায়গায়?
_ ওয়াট? বলেই ফরিদ ঘুরে গিয়ে। জনী ভাইয়ার পিঠে তাকালো। জনী ভাইয়াও ফরিদ’র পিঠ দেখছে। আমি নিচে গিয়ে আম্মু কে ডেকে আনলাম। আম্মু কিছুটা ঘেমে গিয়েছে। ঘাম মুছতে মুছতে বললো।
_ কি রে এভাবে আনলি কেন? আমি সিফাতভাবে বললাম।

_ আম্মু জনী ভাইয়ার পিঠে তাকাও। আম্মু চট করে জনী ভাইয়ার পিঠের দিকে তাকালো। আম্মুর চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। আম্মু দৌড়ে গিয়ে জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। জনী ভাইয়া কিছু বুঝতে পারছে না। এটা মুখ দেখে বোঝা যাচ্ছে। এবার আমার মাথায় ঘুরছে। জনী ভাইয়া তো আসলে রাকিব। তাহলে খালামনি কি করে পেলো?

ততক্ষণে ছাদে সবাই চলে এসেছে। ফরিদ এক কোনায় দাড়িয়ে আছে। শ্বশুর বাবা শাশুড়ি আম্মু কে বললো।
_ তুমি জনী কে ধরে কাঁদছো কেন? আম্মু কাঁদতে কাঁদতে বললো।

_ না ও জনী না ও রাকিব। আমাদের হারিয়ে যাওয়া ছেলে। এবার জনী ভাইয়া অবাক হয়ে বললো।
_ মানে কে রাকিব? আন্টি আপনার ভুল হচ্ছে কোথাও। আমি আপনার ছেলে রাকিব না। আমি তো জনী আহমেদ। আম্মু চোখ মুছে বলে উঠলো।
_ না তুই রাকিব তোর পিঠের এই স্টার। এটাই বলে দিচ্ছে তুই রাকিব চৌধুরী। জনী ভাইয়া এবার আরো অবাক হয়ে বললো।

_ স্টার বলে দিচ্ছে মানে?
_ ফরিদ’র পিঠে স্টার দেখেছিস? এই স্টার আমি সখ করে আর্ট করিয়েছিলাম। তোর যখন ৩ মাস বয়সতখন। জনী ভাইয়া সিফাত কন্ঠে বললো।

_ আমি যদি আপনাদের ছেলে হই। তাহলে আমি হারিয়ে গেলাম কিভাবে? আম্মু আবারও কেঁদে দিলো।
_ তখন তোর ৬ মাস বয়স। তোর ঠান্ডা লেগেছিলো খুব। শ্বাস নিতে কষ্ট হতো। তাই আমি আর তোর বাবা। তোকে হসপিটালে নিয়ে যাই। হসপিটালে নেয়ার পর। তোর বাবার জরুরী মিটিং পড়ে। তাই বাধ্য হয়ে অফিসে যায়। আর বলে যায় মিটিং শেষ করে। আমাদের নিয়ে বাড়ি যাবে। তোর বাবা চলে যাওয়ার পর। ডক্টর আমার কোল থেকে তোকে নিয়ে। ভেতরে চলে যায়।

আমি যেতে চেয়েছিলাম। বলেছিলো আমি ৫মিনিট পর যেতে পারবো। ওটাই ছিলো কাল। আমি বাইরে গিয়ে বসতেই। ওই কেবিনে একজন গুন্ডা ঢুকে যায়। আর গিয়েই ডক্টরের কাছ থেকে। তোকে টেনে নিয়ে যায়। ওর হাতে বন্ধুক ছিলো। ওকে নাকি পুলিশ তাড়া করেছিলো। আমি তোকে নিতে গেলেই। আমাকে ভয় দেখায়।

তোকে মেরে ফেলবে। আমি হাত জোড় করে বলেছিলাম। তোকে আমার কাছ দিতে দেয়নি। নিজেকে বাঁচাতে তোকে নিয়ে বেরিয়ে যায়। আমি পিছনে গিয়েছিলাম। কিন্তু ওই শয়তানের দৌড়ের সাথে পারিনি। তোকে নিয়ে কোথায় চলে গেলো। আর পেলাম না কিন্তু আল্লাহর উপর। আমার বিশ্বাস ছিলো। তোকে আমি একদিন পাবো।

আমরা সবাই স্তব্ধ হয়ে গিয়েছি। আম্মু কাঁদছে আর কথাগুলো বলছে। এদিকে আমি ভাবতে পারছি না। মানুষ এত খারাপ কি করে হয়? বাবা এসে জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। জনী ভাইয়া চুপ থেকে বলে উঠলো।
_ আমি এসব বিশ্বাস করিনা। স্টার আছে তাতে কি হয়েছে? আমি রাকিব না আমি জনী। আম্মু এবার জোড়ে কেঁদে দিলো। জনী ভাইয়া আমার আম্মু কে বললো।

_ খালামনি তুমি কিছু বলছো না কেন? তুমি তো জানো তাইনা? আমি তোমার বোনের ছেলে।
_ না রে বাবা আমি তো কিছু বুঝতে পারছি না।
আমি অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললাম।

_ আম্মু তুমি কি বলছো? তোমার তো জানার কথা। পাশ থেকে বাবা বললো।
_ আমার মনে হয় এখন এসব থাক। কাল তো আমরা ফিরছি। তারপর বড় আপা (খালামনি) কে আসতে বলবো। আর উনি এলেই জানা যাবে। সবাই বাবার কথায় সায় দিলো। এরপর আবার নিচে গেলো। আম্মু কে বাবা কে অনেক খুশি লাগছে। কিন্তু এসবের ভেতর। ফরিদ একবারও কিছু বললো না। ওই কোনাটা তে দাড়িয়ে আছে। আমি গিয়ে ওর কাধে হাত রাখলাম। কারন ফরিদ উল্টো দিকে ঘুরে দাড়িয়ে আছে।

আমার হাত দেয়ায় ফরিদ ফিরলো। ফিরে স্লান হেসে নিচে নেমে গেলো। আমিও ফরিদ’র পিছনে চলে এলাম। ফরিদ রুমে এসে বিছানায় শুয়ে। কপালে হাত দিয়ে আছে। হয়তো ফরিদ মানতে পারছে না। জনী ভাইয়া ওর বড় ভাই। আমিও আর কিছু বললাম না।

পরেরদিন সবাই চলে এসেছি। তবে আমরা আমাদের বাড়ি এসেছি। কারন খালামনি সবটা বলতে পারবে। খালামনির জন্য ওয়েট করছি। ফরিদ আসতে চায়নি। আমার জন্য এসেছে। অতঃপর অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে। খালামনি আর আঙ্কেল এলো। খালামনি এসেই জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। খালামনি জনী ভাইয়া কে অনেক ভালবাসে। আমার শাশুড়ি আম্মু গিয়ে। খালামনি কে বললো।

_ ও আমার ছেলে রাকিব। আপনি সব জানেন প্লিজ ওকে বলুন। তাহলে ও বিশ্বাস করবে। খালামনি সাথে সাথে চমকে গেলো। কাঁপা গলায় বলে উঠলো।
_ আপনার ছেলে মানে? শাশুড়ি আম্মু কেঁদে বললো।

_ আপনি খুব ভাল করে জানেন। ও আপনার নিজের ছেলে না। ওকে কোথায় আর কিভাবে পেয়েছেন?
_ আ আপনার ভু ভুল হচ্ছে। অ জনী আ আমার ছেলে। খালামনির এভাবে কথা বলা শুনে। জনী ভাইয়া খালামনির হাত। নিজের মাথায় রেখে বললো।
_ মা সত্যি করে বলো আমি কে? আমি কি সত্যিই তোমার ছেলে? তাহলে তুমি এত ভয় পাচ্ছো কেন? এবার আমার খালামনি কেঁদে দিয়ে বললো।

_ তোকে হয়তো আমি পেটে ধরিনি। কিন্তু তুই আমার ছেলে। খালামনির কথায় সবাই চমকে গেলো। আর জনী ভাইয়া পিছিয়ে গেলো। আমার আম্মু অবাক হয়ে বললো।
_ আপা কি বলছিস তুই? এসব আমরা জানিনা কেন? কেন বলিসনি তুই?
_ আমি আর তোর দুলাভাই। একটা বিয়েতে গিয়েছিলাম। আসার সময় হঠাৎ দেখি। একটা লোক একটা বাচ্চা ছেলে কে। রাস্তার পাশে বসিয়ে চলে যাচ্ছে।

আমরা গাড়ি থামিয়ে কাছে যাই। ততক্ষণে লোকটা চলে গিয়েছে। বাচ্চাটা খুব কাঁদছিলো। আমরা ওকে কোলে নিয়ে চলে আসি। আমাদের কোনো সন্তান ছিলো না। তাই ওকে নিজেদের কাছে রেখে দেই। আর ওর নাম রাখি জনী। আর কেউ যাতে না বোঝে। ও বড় হলে ওকে বলতে না পারে। যে ও আমাদের পালক ছেলে।

তাই সেই রাতেই আমরা লন্ডন চলে যাই। কোনো সমস্যা হয়নি কারন। আমাদের পাসর্পোর্ট করা ছিলো। ওর যখন ৬ বছর হয় তখন ফিরে আসি। আমার জনী’র যাতে কষ্ট না হয়। ওর ভালবাসায় কম না পড়ে। তাই আমি আর সন্তান নেইনি।

খালামনির কথায় সবার চোখেই পানি। জনী ভাইয়া খালামনি কে জড়িয়ে ধরে বললো।
_ তুমিই আমার মা, তোমরা আমার বাবা, মা। খালামনি জনী ভাইয়া কে। ছাড়িয়ে মুখে হাত দিয়ে বললো।
_ আমি তোর মা আর উনি। তোকে জন্ম দিয়েছে। তুই ওনার ছেলে। এতগুলো বছর তো উনি কষ্ট পেয়েছে। ওনাকে জড়িয়ে ধরে মা বল।

জনী ভাইয়া খালামনি কে ছেড়ে। আম্মুর কাছে গিয়ে জড়িয়ে ধরলো। আম্মু নিজের ছেলে কে জড়িয়ে ধরে। হাজারও চুমু দিচ্ছে মুখে। আমি ফরিদ কে দেখছি। ফরিদ সোফায় বসে তাচ্ছিল্যের হাসি হাসছে। জনী ভাইয়া জড়িয়ে বললো।
_ তুমি আমার মাম্মা ওকে?

আম্মু কে ছেড়ে বাবার কাছে গেলো। বাবাও জনী ভাইয়া কে আদর করছে। জনী ভাইয়া এবার বলে উঠলো।
_ আমি তোমাদের মা, বাবা বলবো না। ফরিদ তো মাম্মা, পাপা বলে। আমিও তাই বলবো আর ওনারা মা, বাবা। আর আমি জনী হয়েই থাকবো। আমাকে রাকিব বলবে না। যেই রাকিব হারিয়ে গিয়েছে তো গিয়েছে। আমি মা, বাবার কাছেও থাকবো। তোমাদের কাছেও থাকবো।

আম্মু, বাবা আপত্তি করলো না। কারন খালামনি জনী ভাইয়া কে। সেই ছোট থেকে বড় করেছে। নিজে সন্তান নেয়নি। এমন কয়জন পারে?

জনী ভাইয়া এবার ফরিদ’র কাছে গেলো। ফরিদ সিফাতভাবে তাকিয়ে আছে। জনী ভাইয়া ফরিদ কে ধরতে গেলেই। ফরিদ হাত দিয়ে থামিয়ে বললো।
_ ইউ জাস্ট স্টে এওয়ে ফ্রম মি। আমি তোমাকে ভাই বলে মানিনা। বসা থেকে উঠে দাড়িয়ে। আমার হাত ধরে বললো।

_ আমি মিম কে নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি। তোমাদের ড্রামা শেষ হলে চলে এসো। বলে আমাকে টেনে নিয়ে গাড়িতে বসিয়ে। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে চলে এলো। রুমে বসে ছিলাম নিচে কথা শুনতে পারলাম। গিয়ে দেখলাম জনী ভাইয়া এসেছে। জনী ভাইয়া কে আম্মু রুমে নিয়ে গেলো। আমি দেখছিলাম ফরিদ আমাকে টেনে আবার নিয়ে এলো। এবার ফরিদ কে বললাম।

_ ফরিদ এমন কেন করছো? জনী ভাইয়া তোমার ভাই। এভাবে দুরে সরিয়ে রাখছো কেন? ফরিদ দাতে দাত চেপে বললো।
_ ওর জন্য আমি মাম্মা, পাপার থেকে দুরে। তুমি আজ দেখলে না? আজই তো মাম্মা, পাপা আমাকে ভুলে গিয়েছে।

আমি আর কিছু বললাম না। এভাবেই দিন কাটছে। ফরিদ একদম জনী ভাইয়া কে মানতে পারেনা। তবে এটা না যে বেয়াদবি করে। শুধু দুরে দুরে থাকে। তবে এটাও ঠিক আম্মু, বাবা। ফরিদ কে একদম টাইম দেয়না। এভাবে ২ মাস কেটে গিয়েছে। কিন্তু ওদের দূরত্ব দুর হয়নি।
আমি আর ফরিদ ভার্সিটি এসেছি। হঠাৎ তুলি বলে মেয়েটা এলো। এসেই ফরিদ কে বললো।
_ ফরিদ বেবী শেষে তুমি এই মেয়ে কে মেনে নিলে? মেজাজটা গরম হয়ে গেলো। আমি কিছু বলবো তার আগে ফরিদ বললো।

_ সি ইজ মাই ওয়াইফ। সো রেসপেক্ট দিয়ে কথা বলো।
_ রেসপেক্ট মাই ফুট। এই বেহেনজির কি যোগ্যতা আছে? যে আমি ওকে।
এতটুকু বলতে না বলতে। ফরিদ ঠাস করে তুলি কে থাপ্পর মারলো। তুলি গালে হাত দিয়ে দাড়িয়ে আছে। আর আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। ফরিদ চেচিয়ে বললো।

_ হাউ ডেয়ার ইউ তুলি? তোমার সাহস হয় কি করে? আমার সামনে দাড়িয়ে। আমার ওয়াইফ কে বেহেনজি বলো? ও তোমার মতো বেহায়া না।
তুলি ন্যাকামি করে বললো।

_ আমি তোমাকে ভালবাসি ফরিদ। ইচ্ছে করছে ওর চুল ছিড়তে। কিন্তু ফরিদ আমাকে নিয়ে এলো। ক্লাস করা আর হলো না। সন্ধ্যার দিকে ড্রয়িংরুমে বসে আছি। জনী ভাইয়া এসে ফরিদ কে ধরে বললো।
_ তুই আমার সাথে কথা বলিস না কেন ফরিদ? আমি তো তোর ভাই। মাম্মা, পাপার রাগ আমাকে কেন দেখাস?
ফরিদ ঝটকা মেরে হাত সরিয়ে বললো।
_ তুই তো ভাল আছিস। মাম্মা, পাপা কে নিজের করে নিয়েছিস। তারা এখন আমাকে ভুলে গিয়েছে। তাহলে এই ন্যাকামি কেন করিস?

আম্মু ফরিদ কে চর মেরে দিলো। আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। আম্মু রাগী ভাবে বললো।
_ বড় ভাইয়ের সাথে কিভাবে কথা বলে জানিস না? ফরিদ আমার দিকে তাকিয়ে বললো।
_ বলেছিলাম না? ও যেদিন ফিরবে মাম্মা, পাপা আমাকে ভুলে যাবে। বলে ফরিদ বেরিয়ে গেলো। ফরিদ গাড়ি নিয়ে বেরিয়েছে। আমিও অন্য গাড়ি নিয়ে ফরিদ’র পিছনে এলাম। কারন ফরিদ কথা বলার সময়। ওর চোখ ছলছল করছিলো।

আমার অনেক খারাপ লেগেছে। তাই আমিও চলে এসেছি। আমি জানি ফরিদ এখন কোথায় যাবে। গাড়ি নিয়ে ফরিদ ব্রিজের কাছে থামলো। মন খারাপ হলেই ফরিদ এখানে আসে। তবে ব্রিজের নিচে যদি কেউ পড়ে। তার বাঁচার সম্ভাবনা কম। ব্রিজের নিচে গভীর তলদেশ। ফরিদ ব্রিজের উপড়ে বসেছে। আমি ড্রাইভার কে যেতে বলে। ফরিদ’র কাছে এসে ফরিদ কে নামালাম। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ তুমি এখানে কেন এসেছো? আমি ফরিদ’র গলা জড়িয়ে বললাম।
_ তুমি এসেছো তাই এসেছি। ফরিদ হাত সরিয়ে দিয়ে বলে উঠলো।
_ প্লিজ চলে যাও আমি একা থাকবো!

মেজাজ গরম হয়ে গেলো। তাই উল্টো দিকে ব্রিজের রেলিং ঘেসে হাটা ধরলাম। একটু দুরে আসতেই ফরিদ ডাকতে লাগলো। আমি ইচ্ছে করে শুনলাম না। হঠাৎ ফরিদ দৌড়ে এসে আমাকে। একটানে সরিয়ে দিলো। আর একটা গুলি এসে ফরিদ’র বুকে লাগলো। ফরিদ ব্যালেন্স রাখতে না পেরে। ব্রিজ থেকে নিচে পড়ে গেলো। আমি স্তব্ধ হয়ে গিয়েছি। সারা দুনিয়া যেন ঘুরছে।

কথা বলার শক্তিটুকু আমার নেই। রাস্তায় গাড়ির শব্দে ধ্যান এলো। দৌড়ে গিয়ে ফরিদ বলে চিৎকার করছি। মন বলছে এভাবে আমার ফরিদ কে পাবোনা। তাই কোনো কিছু না ভেবে লাফ দিতে গেলাম। ওমনি কেউ আমাকে ধরে ফেললো। তাকিয়ে দেখি জনী ভাইয়া। হাউমাউ করে কেঁদে বললাম।

_ আমার ফরিদ পড়ে গিয়েছে। ওকে বাঁচাতে হবে ছাড়ো আমাকে।
_ তৃশ সিফাত হয়ে যা ওর কিছু হবেনা। বারবার মনে পড়ছে ব্রিজের নিচে পড়লে। তার বাঁচার সম্ভাবনা কম। ফরিদ বলে একটা চিৎকার দিলাম। চোখের সামনে সব ঝাপসা দেখছি। এরপর সেন্সলেস হয়ে গেলাম!
৪মাস পর।


পর্ব ১৩

৪ মাস পর।
রেডি হয়ে নিচে নেমে এলাম। ড্রয়িংরুমে সবাই বসে আছে। আমি আর সিউলী রেডি হয়ে এসেছি। বের হচ্ছিলাম আম্মু বললো।

_ মিম কোথায় যাচ্ছিস? আম্মুর প্রশ্নে শুনে দাড়িয়ে বললাম।
_ আম্মু হসপিটালে যাচ্ছি। আজ তো চেকআপ আছে।
_ ওহ তাহলে জনী কে নিয়ে যা। আম্মুর কথা শুনে হেসে বললাম।
_ আম্মু আমি আর সিউলী যাচ্ছি। আমরা ঠিক চলে যাবো।
_ মিম তুই হসপিটালে যাচ্ছিস। জনী তোর স্বামী আর। তোর বাচ্চার বাবা তাই ওকে নিয়ে যা। সিউলীও না হয় যাবে।

_ কিন্তু আম্মু জনী তো মাএ অফিস থেকে এলো। তাই বলছিলাম আর কি। আমার কথায় সিউলী বলে উঠলো।
_ ভাবী তুমি কি ভুলে গেলে? ভাইয়ার কাছে ওর বাচ্চা আগে। বাকী সব কাজ পরে।
_ জনী তোর সাথে যাবে ওকে?

আম্মুর কথায় মাথা নেড়ে বললাম।
_ জনী তাহলে চলো।
_ তৃশ তুমি গিয়ে গাড়িতে বসো। আমি চাবি নিয়ে আসছি। বলে জনী চাবি আনতে গেলো।

আমি আর সিউলী গাড়িতে বসলাম। একটুপর জনী এসে গাড়ি স্টার্ট দিলো। প্রতি সপ্তাহে চেকআপ করি। এটা বাড়ির সবাই বলেছে। এতে বেবী সুস্থ কি না বোঝা যায়। তাই আর না করিনি। জনী ড্রাইভ করতে করতে গাড়ি থামিয়ে ফেললো। চোখ বন্ধ করে ছিলাম। গাড়ি থামানো তে তাকিয়ে বললাম।

_ গাড়ি থামালে কেন?
_ আরে সামনে তাকিয়ে দেখো। এত ভীর কেন ওখানে? জনী’র কথায় সামনে তাকালাম। সত্যিই প্রচুর ভীর জমে আছে। তবে ভীরে মেয়েরা বেশী। কিন্তু বুঝলাম না কি হচ্ছে। জনী একটা লোক কে ডেকে জিগ্যেস করলো।

_ এখানে এত ভীর কেন?
_ সামনে নিশাতে’র গাড়ি এসেছে। লোকটার কথায় আমরা ভ্রু কুঁচকে তাকালাম। জনী কিছুটা রেগে গিয়ে বললো।
_ নিশাত কে?

_ আরে ভাই নিশাত কে চেনেন না? নামকরা কন্ঠ শিল্পি এখনকার। উনি গত ৫ বছর বিদেশ ছিলো। আজই বিদেশ থেকে এসেছে। নিশাত নাম আমি শুনেছি। কিছুদিন আগে গানও শুনেছি। তবে এত মেয়ে দেখে বললাম।

_ এত মেয়ে কেন?
_ নিশাত সব মেয়ের ক্রাশ। ওনার বউ আছে ৩ বছরের। একটা ছেলেও আছে তবুও মেয়েরা পাগল।
লোকটার কথায় ভ্যাবাচ্যাকা খেলাম। জনী বলে উঠলো।
_ মাই গড তাকে তো দেখা উচিত। সিউলী হাসতে হাসতে বললো।

_ ভাইয়া তুই অবাক হচ্ছিস কেন? তোর বউ আছে কয়দিন পর। তুইও এক ছেলের বাবা হবি। তোর পিছনে ও তো মেয়েরা ঘুরঘুর করে। জনী মুখ ভেংচি কেটে বললো।
_ ছেলের না মেয়ের বাবা হবো। বাই দ্যা ওয়ে এই ভীর কখন কমবে? অনেকক্ষন ওয়েট করলাম। ভীর কমার নাম নেই কোনো। জনী গাড়ি থেকে নেমে। পুলিশ কে গিয়ে বললো।

_ ওয়াট দ্যা হেল অফিসার? আপনারা থাকতে পাবলিক প্লেসে এত ভীর কেন? রাস্তায় কত গাড়ি আটকে আছে। এই ভীর কমান আমার ওয়াইফ প্রেগন্যান্ট। আমি ওকে হসপিটালে নিয়ে যাচ্ছি। এরকম আরো মানুষের প্রবলেম আছে। তাদেরও তাড়া আছে তাইনা?

_ আপনি বললে কমাবো নাকি? আপনি কে এসব বলার? পুলিশের কথায় জনী রেগে বললো।
_ হাউ ডেয়ার ইউ? আমি কে হ্যা তাইনা? আই এম জনী চৌধুরী। সন অফ বিসনেস টাইকুন আরসাল চৌধুরী। আমি নিজেও একজন পুলিশ অফিসার। আপনি জানেন? আমি চাইলে এই মুহূর্তে আপনাকে সাসপেন্ড করতে পারি।

জনী নিজের কার্ড দেখালো। এবার পুলিশটা ভয় পেয়ে বললো।
_ আই এম সরি স্যার। আমি বুঝতে পারিনি। ক্ষমা করবেন প্লিজ।
_ সরি মাই ফুট আপনারা পুলিশ কেন হয়েছেন? এখানে শুধু শুধু বসে আছি। আমি আমার ওয়াইফ এন্ড। আমার বেবী কে নিয়ে খারাপ কিছু টলারেট করিনা। আর এখানে এসব ভীরের জন্য। প্রায় ১ ঘন্টা রোদে বসে আছি।

বুঝলাম জনী রেগে গিয়েছে। তাই বুঝিয়ে নিয়ে এলাম। পুলিশ এক পাশে ভীর কমিয়ে দিলো। আর বললো বাকী ভীরও কমিয়ে দেবে। আমরা হসপিটালে চলে এলাম। ডক্টর আমার চেকআপ করে জনী কে ডাকলো। আমি উঠে চেয়ারে বসলাম। এরপর ডক্টর বললো।
_ মিস্টার জনী চৌধুরী। আপনার ওয়াইফ এবং বেবী। দুজনই একদম ঠিক আছে। ২ মাস পর এসে আলট্রা করে যাবেন।

ডক্টর আরো কিছু পরামর্শ দিলো। এরপর আমরা বেরিয়ে এলাম। আমরা বেরিয়ে আসার পর। কেউ ডক্টরের কেবিনে গেলো। আমরা বাড়ি চলে এলাম। ভাল লাগছে না কিছু। আমি ফরিদ’র রুমে চলে এলাম। ফরিদ’র ছবির সামনে দাড়িয়ে আছি। চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি পড়ছে। ৪ মাস আগের ঘটনায়। আমার পুরো জীবন বদলে গিয়েছে। ফরিদ কে অনেক খোজা হয়েছে।

কিন্তু পাওয়া যায়নি। শুধু ফরিদ’র টি শার্ট এর উপরে। যে শার্টটা গায়ে ছিলো সেটা পেয়েছিলো। পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছিলো। আমি সবসময় কাঁদতাম। হঠাৎ কি থেকে কি হয়ে গেলো। কে গুলি করেছে আজও জানিনা। এসব ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে গেলাম।

এদিকে কেউ জয়ের হাসি হাসছে আর বলছে।
_ আই এম সাক্সেস নাউ। ফাহিম চৌধুরী তো শেষ। কেউ কোনদিন জানবে না। কে খুন করলো ফরিদ কে। আর কেনই বা খুন করলো। আমার যা চাওয়া ছিলো। আমি তা পেয়ে গিয়েছি। হা হা কেউ জানতেই পারলো না। এত কাছের মানুষ এভাবে ফরিদ কে সরিয়ে দিলো। অনেক জ্বালিয়েছিলি ফরিদ তাই মরতে হলো তোর।
বলে রাগে ফোস ফোস করতে লাগলো।

ঘুম থেকে উঠে দেখি রাত। ফ্রেশ হয়ে নিচে নেমে এলাম। ডিনার করার ইচ্ছে নেই। কিন্তু আমার বেবীর জন্য খেতে হবে। তাকিয়ে দেখলাম জনী নেই। একটু পর নেমে এলো। চোখগুলো লাল হয়ে আছে। তাই জিগ্যেস করলাম।

_ তোমার চোখ লাল হয়ে আছে কেন? জনী কেমন আমতা আমতা করে বললো।
_ আব কই কিছুনা এমনি।
_ আরে অনেক লাল তো।
_ আহ মাম্মা বলছি তো কিছুনা। কিছুটা রেগে বললো। বুঝলাম না রাগের কি হলো। তবে আমরা কেউ কথা বাড়ালাম না। ডিনার শেষ করে আমি আর জনী রুমে চলে এলাম।

সকালে আজ অফিসে মিটিং আছে। যেহেতু বাবা সবকিছু। আমার নামে করে দিয়েছে। তাই আমারও যেতে হবে। আজ আমি আর জনী যাবো। তাই ব্রেকফাস্ট করে চলে এলাম। মিটিং রুমে বসে আছি। সবাই এসেছে শুধু একজন ছাড়া। কিছুটা বিরক্তি নিয়ে বসে আছি। তখন সেই লোকটা কেবিনে ঢুকলো। আমি আর জনী অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। পাশ থেকে একজন বললো।
_ ও মাই গড নিশাত।


পর্ব ১৪

আমি আর জনী ওনাকে দেখে অবাক হলাম। তখন পাশ থেকে একজন বলে উঠলো!
_ ও মাই গড নিশাত?
আমি ভ্রু কুঁচকে বললাম।
_ আপনি কি করে জানলেন? যে উনি নিশাত? না মানে উনি নিজেকে। যেভাবে কাভার করে রেখেছে। তাতে বোঝা পসিবল না।

আসলে লোকটা রুমাল দিয়ে। নিজের মুখ বেধে রেখেছে। চোখে কালো চশমা দিয়ে রেখেছে।
_ ম্যাম আমি গাড়ি পার্কিং করার সময়। ওনাকে দেখেছিলাম। তখন ওনার মুখ ঢাকা ছিলো না।
এবার আমি নিশাত কে দেখলাম। যদিও বোঝা যাচ্ছেনা ফেস। শুধু কপালে বাম পাশে। মিচমিচে কালো একটা তিল দেখা যাচ্ছে। তিলটা বেশ বড়।
_ মিসেস চৌধুরী আমাকে দেখা শেষ হলে। এবার আমরা মিটিং শুরু করতে পারি। ওনার এমন কথায় হচকচিয়ে গেলাম।

_ আমার ওয়াইফ আপনাকে কেন দেখবে? জনী বলে উঠলো জনী কে থামিয়ে। মিটিং শুরু করলাম। মিটিং শেষে একজন বললো।
_ মিস্টার খাঁন আপনার কপালে এটা কি? আজব কোশ্চেন বোঝা যাচ্ছে তিল।
_ এটা জন্ম তিল। সবাই প্রজেক্ট নিয়ে কথা বলছিলাম। তখন একজন ক্লায়েন্ট বললো।
_ শিকদার গ্লিমাের ফাইলটা কোথায়?
_ ওটা তো কেবিনে আছে আমি নিয়ে আসছি। বলে আমি উঠলাম তখন জনী থামিয়ে দিলো।

_ তুমি বসো আমি নিয়ে আসছি।
_ আরে ঠিক আছে আমি আনছি।
_ আমি যেটা বলেছি সেটাই করো। । বলে জনী ফাইল আনতে গেলো। আর আমি বসে পড়লাম। তখন চোখ গেলো আরেকটা ফাইলে।

_ জনী এটা নিয়ে যাও। এটা তো আর লাগবে না এটা রেখে এসো। জনী ফাইলটা নিয়ে গেলো। একটুপর ফাইল নিয়ে ফিরে এলো। এরপর মিটিং শেষ করে আমরা বাড়ি চলে এলাম। ওদিকে রবিন ও বাড়ি গেলো।
_ ইয়ে পাপা।
_ এইতো আমার ছেলে কি করছিলে?
_ তোমাকে মিস করছিলাম পাপা।

_ রোহান তার পাপা কে মিস করেছে। আর পাপা বুঝি মিস করেনি?
_ আই নো পাপা ও মিস করেছে। তখন নিতু এলো।
_ রবিন চলে এসেছো?
_ হ্যা মিটিং শেষ।
_ আচ্ছা ফ্রেশ হয়ে নাও। আমি খাবার দিয়ে দিচ্ছি।
_ আচ্ছা তুমি যাও। আমি আর রোহান আসছি।

আমি আর জনী বাড়ি চলে এলাম। আজ আমাদের বাড়ি যাবো। বিকেলে যাবো তাই ফ্রেশ হয়ে। একটু রেস্ট নিচ্ছি। শুয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। ইদানিং একটু বেশী ঘুম পায়। তবে বেশীক্ষণ ঘুমাতে পারলাম না। কারন জনী এলো খাবার নিয়ে এলো।
_ আগে খাবার শেষ করো। এরপর যত পারো ঘুমাও।
এখন আমার খেতে ইচ্ছে করছে না।
_ আমি এখন খাবোনা তুমি যাও।

কে শোনে কার কথা? নাছোর বান্দা তাই খাইয়ে গেলো। খেয়ে আবার ঘুমিয়ে গেলাম। বিকেলে ঘুম থেকে উঠে। ফ্রেশ হয়ে চেন্জ করে। আমাদের বাড়ি চলে এলাম। অনেকদিন আসা হয়নি। আম্মু, বাবা, ভাইয়া খুশি হলো। আসতে না আসতে আমার গুনধর। ভাইয়ের শয়তানি শুরু হয়ে গেলো। এক নাম্বারের ফাজিল।

_ কি রে পেত্নী কেমন আছিস? মেজাজ গরম হয়ে গেলো।
_ তুই পেত্নী তোর বউ পেত্নী। ফাজিল ছেলে একটা। আসতে না আসতে শুরু হয়ে গেলি?
_ তুই তো জানিস তোকে জ্বালাতে। আমার সেই লেভেলের ভাল লাগে।
_ চুপ বজ্জাত। আম্মু ভাইয়ার কান টেনে বললো।

_ আসলেই তো আবির। মেয়েটা মাএ এলো আর তুই। ওর পিছনে লাগছিস? একটু রেস্ট নিতে দে।
জনী হাসতে হাসতে বললো।
_ খালামনি তুমি তো জানো। তোমার ছেলে মেয়ে। দুজনেই বাচ্চা এখনো। ভাইয়া কান ছাড়িয়ে বললো।
_ তোমার বউ ২ দিন পর। নিজে বাচ্চার মা হয়ে যাবে। ওর বাচ্চামী মানায় না। এখানে থাকলে ওর মাথা ফাটাবো। তাই রুমে চলে এলাম।

এখানে ৩ দিন থেকে আবার চলে এলাম। আম্মুর রুমের সামনে দিয়ে যাচ্ছি। আসলে আজ ফরিদ’র বলা কথা মনে পড়ছে। ফরিদ বলেছিলো এমন যেন না হয়। বড় ছেলে কে পেয়ে আমাকে হারিয়ে ফেললে। আজ আম্মুর বড় ছেলে আছে। কিন্তু ছোট ছেলে নেই। আগে বড় ছেলের ছবি নিয়ে কাঁদতো। আর এখন ছোট ছেলের। আম্মুর কাছে গিয়ে কাধে হাত রাখলাম। ওমনি আম্মু হাউ মাউ করে কেঁদে বললো।

_ আমার ফরিদ ঠিক বলেছিলো রে মা। ছেলেটা কে আমরা এত কষ্ট দিয়েছি। কখনো ওর দিকে খেয়াল করিনি। ও কাছে ছিলো তবুও রাকিব রাকিব করতাম। সব দোষ আমার। সেই রাতে যদি ওকে চর না মারতাম। তাহলে আজ ও আমাদের সাথে থাকতো। এত কষ্ট কেন দিলাম? কেন ওকে বুঝলাম না? আমার ছেলেটা চলে গেলো। একেবারে চলে গেলো রে মা।

আমার চোখ দিয়েও পানি পড়ছে। আম্মু কে কোনোরকম বুঝিয়ে চলে এলাম। হ্যা এটা তো ঠিকই সেই রাতে। আম্মু যদি ফরিদ কে চর না মারতো। তাহলে ও বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসতো না। আর না ওভাবে গুলি লাগতো। বিছানায় বসে কাঁদতে শুরু করলাম। বুকটা ফেটে যাচ্ছে কষ্টে। আমি যে ভুলে যাইনি ফরিদ কে। পরিস্থিতির স্বীকার।

৩ দিন পর আবার চেকআপ করতে এসেছি। চেকআপ করে গাড়ি নিয়ে বের হলাম। এদিকে আমাদের কেউ দেখছে। আমাদের অজান্তেই বলছে।

_ ওয়াও খুব সুখে আছিস? আমার থেকে সব কেড়ে নিয়ে। আমার মাম্মা, পাপা কে কেড়ে নিলি প্রথমে। এরপর আমার বউ কে। অবশ্য বউ তো দিব্যি আছে। নিজের স্বামীর বড় ভাই কে বিয়ে করে। তার বাচ্চা পেটে নিয়ে। ঘুরে বেরাচ্ছে ছাড়বো না কাউকে। আমার সাথে হওয়া এক একটা। অন্যায়ের প্রতিশোধ নিতে। আমি ফিরে এসেছি জনী চৌধুরী। আই নো তুই আমাকে খুন করতে চেয়েছিলি। মিম কে পাওয়ার জন্য। কারন তুই মিম কে ভালবাসিস। আর মিম তুমি কি করলে? এই তোমার ভালবাসা? তোমাদের কাউকে আমি ছাড়বো না। ফাহিম চৌধুরী ইজ ব্যাক। এবার দেখবে আমার খারাপ লিমাটা। জাস্ট ওয়েট এন্ড ওয়াচ।


পর্ব ১৫

আমরা বাড়ি এসে পড়লাম। আম্মু ড্রয়িংরুমে বসে আছে। আমি গিয়ে আম্মুর পাশে বসলাম। তখন আম্মু বলে উঠলো।
_ মিটিং কেমন হলো?
_ জ্বি আম্মু ভাল।

_ ডক্টর কি বললো? বেবী ঠিক আছে?
_ হ্যা আম্মু আলহামদুলিল্লাহ বেবী ঠিক আছে। আম্মু মুচকি হেসে বললো।
_ ভাবা যায়? তোর মতো বাচ্চা মেয়ে। কদিন পর বাচ্চার মা হয়ে যাবে। আম্মুর কথায় আমিও হাসলাম।
_ একদম ঠিক মাম্মা। বলতে বলতে জনী ও বসলো।
_ তা বেবীর নাম কি রাখবি? আম্মুর কথায় হালকা হেসে বললাম।

_ আম্মু কি বেবী হয়। সেটা দেখে না নাম রাখবো। তাই এখনো ঠিক করিনি। বাট আমার মনে হয় ছেলে বেবী হবে। আমার তো অনেক ইচ্ছে। একটা গুলুমুলু ছেলে হবে আমার!
_ নো ওয়ে মেয়ে বেবী হবে। আমি আমার মেয়ে কে নিয়ে। ওয়ার্ল্ড ট্যুর করবো আর। মেয়ে হলে সুন্দর সুন্দর ড্রেস কিনবো। ওয়াও সুপার এক্সাইটেড। জনী’র কথায় ভেংচি কাটলাম। আম্মু হেসে দিয়ে বললো।
_ আর যদি টুইন বেবী হয়? তখন কেমন হবে? আমি তো সেই খুশি। টুইন বেবী একটা ছেলে একটা মেয়ে। কিন্তু জনী উত্তেজিত হয়ে বললো।

_ নো মাম্মা টুইন দরকার নেই! আমি ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে বললাম।
_ কেন দরকার নেই কেন?
_ দেখো তৃশ টুইন বেবী হলে। তোমার কষ্ট বেশী হবে। এমনিই তো কষ্ট হয়। আবার যদি টুইন বেবী হয়। তাহলে তো আরো বেশী কষ্ট। না লাগবে না ছেলেই হোক। একটা বেবী নিয়েই হ্যাপি থাকবো।

জনী’র কথা শুনে সিউলী। সোফায় বসতে বসতে বললো!
_ ওয়াও কি ভালবাসা বাট ভাইয়া। এখন না হয় একটা বেবী নিয়ে হ্যাপি থাকলি। তাই বলে ফিউচারে ও কি বেবী নিবিনা? আম্মু তাল মিলিয়ে বললো।
_ সেটাই তো জনী।
_ মাম্মা ফিউচারেরটা ফিউচারে ভাববো!

_ ইস ভাইয়া তুই তোর বউ কে কত ভালবাসিস রে।
সিউলী’র কথায় কিছু বললাম না। ভাল লাগছে না ফরিদ’র রুমে চলে এলাম। সন্ধ্যা হয়ে এসেছে ব্যালকনিতে দাড়ালাম। এসে গোলাপ ফুল গাছ ধরলাম। গাছটাতে ফুল ফুটেছে। হঠাৎ মনে পড়লো ৪ মাস আগের কথা। ৪ মাস আগে!
_ ফরিদ কি করছো?
_ কাতুকুতু দিচ্ছি বেবী।
_ ফরিদ ছাড়ো খুব সুরসুরি লাগছে।

না ছাড়ার কোনো নাম নেই। একবার ওকে কাতুকুতু দিয়েছিলাম। তার জন্য গত ৫ মিনিট ধরে। আমাকে কাতুকুতু দিয়ে যাচ্ছে। আমার তো হাসতে হাসতে হালুয়া টাইট। এবার আর না পেরে। ফরিদ কে ধাক্কা দিয়ে ব্যালকনিতে চলে আসি। একটুপর ফরিদ ও এসে আমাকে। পেছন থেকে জড়িয়ে গলায় মুখ ডুবিয়ে দেয়। আমিচোখদুটো বন্ধ করে ফেলি। কিছুক্ষন পর বলে উঠি।
_ তুমি এখন রাতে বাইরে যাও না যে? ফরিদ মুচকি হেসে বললো।

_ তুমি আছো যে তাই যাইনা। আর হ্যা যখন আমার বেবী। তোমার পেটে আসবে। তখন তো একদম যাবোনা। আর যখন এই গুড নিউস পাবো। তখন তো আমি ৭ দিন। এই বাড়ি থেকেই বের হবোনা। ফরিদ’র এমন পাগলামি কথা শুনে। জোড়ে হেসে দিলাম। ফরিদ গাল ফুলিয়ে বললো।

_ কাম অন মিষ্টিপাখি। এতে হাসার কি আছে? আমি গাল টেনে বললাম।
_ নাথিং মিস্টার হাজবেন্ড।
_ ওয়েট এখানে থাকো।
_ কেন? তুমি কোথায় যাবে?
_ জাস্ট যাবো আর আসবো।

_ বলে ফরিদ বাইরে যায়। আমি ব্যালকনিতে দাড়িয়ে এই। রাতের শহরটা অনুভব করছি। দুর দূরান্ত পর্যন্ত শুধু বিল্ডিং। যতদুর চোখ যায়। রাস্তায় ল্যাম্পপোস্টের আলোতে। রাস্তাটাকে অন্যরকম লাগছে। এরমাঝে ফরিদ ফিরে এলো। হাতে একটা টব তাতে ফুল গাছ। ভালভাবে দেখলাম গোলাপ ফুল গাছ। ফরিদ এনে আমার হাতে দিয়ে বললো!

_ মিষ্টিপাখি এই গাছটা তুমি। ব্যালকনির যেখানে ইচ্ছে রাখো। আমি ভ্রু নাচিয়ে বললাম।
_ তুমিও তো রাখতে পারো।

_ নো তুমি রাখবে চলো! এরপর আমি গাছটা নিয়ে। ব্যালকনির ডানপাশে আরো গাছ আছে। ওখান থেকে একটু আলাদা রাখি। ফরিদ একটু অবাক হয়ে বললো।
_ আলাদা রাখলে কেন? আমি ফরিদ’র গলা জড়িয়ে ধরে বললাম!
_ কারন এটা তুমি আমাকে দিয়েছো। আর তুমি আমি একসাথে রেখেছি। তুমি আমার সাথে আছো। তাই এটা আলাদা রাখলাম। আগের গুলো তো তুমি একা রেখেছো।

ফরিদ আমাকে জড়িয়ে ধরলো। এরপর আমাকে কোলে তুলে নিলো। আমি ফরিদ’র বুকে মুখ লুকালাম।
হঠাৎ বিদ্যুৎ চমকানোতে। অতীত থেকে ফিরে এলাম। আকাশে মেঘ জমেছে খুব। হয়তো বৃষ্টি নামবে। মনে একটা প্রশ্ন জেগে উঠলো। আচ্ছা আকাশেরও কি।

পর্ব ১৬

আজ আমার মত মন খারাপ? আজ চিৎকার করে কাঁদতে ইচ্ছে করছে। এরমাঝে আকাশ থেকে। বৃষ্টির ফোটা পড়তে শুরু করলো। ফোটাগুলো ক্রমশও বড় হচ্ছে। প্রচুর বৃষ্টি শুরু হলো। সেই সাথে আমার চোখের পানি। এরপর চিৎকার করে কাঁদলাম। কান্নারা যেন আজ থামতে চাইছে না।

_ ফরিদ কেন চলে গেলে? আমাকে একা রেখে কেন চলে গেলে? তুমি ছাড়া এক একটা দিন। আমার কাছে একযুগ মনে হয়। আল্লাহ কেন এটা করলো? সময় কেন এত খারাপ যায়? সময়ের ব্যবধানে আজ আমি অন্যকারো বউ। কিন্তু আমি তোমাকে ভুলিনি। তুমি আমার ভালবাসা ফরিদ।
এরপর আরো কিছু বললাম। কখন কাঁদতে কাঁদতে চোখ লেগে গেলো। ঘুমিয়ে পড়লাম ওইভাবেই। সকালে দরজায় শব্দ পেয়ে উঠলাম। ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি ৮টা বাজে।

উঠে গিয়ে দরজা খুলে দিলাম। জনী রাগী ফেস করে দাড়িয়ে আছে। বুঝলাম রাতে ডিনার করিনি তাই। জনী ধমক দিয়ে বললো।
_ ওয়াট দ্যা হেল তৃশ? তোমাকে বলেছি না? খাবার ঠিকমত খাবে। তুমি রাতে ডিনার না করে ঘুমিয়ে ছিলে কেন? চুপচাপ দাড়িয়ে আছি!

_ এখন চুপ করে আছো কেন? তৃশ বেবীর কথা ভাববে তো নাকি? এখন ফ্রেশ হয়ে খেয়ে নেবে যাও।
আমি ফ্রেশ হয়ে নিচে এলাম। আম্মুও রাগারাগি করলো। আমি কোনোরকম খেয়ে নিলাম। আজ বাবা অফিসে যাবে। জনী একটা সিদ্ধ ডিম খেয়ে থানায় চলে গেলো। আর বাবা খেয়ে অফিসে গেলো। সিউলী ও বাড়িতে নেই। আমি আম্মু আর ফুপ্পি। অনেকদিন লিমাে’র সাথে কথা হয়না। তাই ফোনটা নিয়ে ওকে ফোন দিলাম। ২ বার রিং হওয়ার পর ধরলো।

_ হ্যালো লিমা কেমন আছিস?
_ হুম ভালো তুই?
_ ভালো আমাকে ভুলে গিয়েছিস? এরমাঝে কল দিয়েছিলাম ধরেনি তাই বললাম।
_ আরে না ভুলবো কেন? তোর বেবী কেমন আছে?
_ আলহামদুলিল্লাহ ভালো! লিমা কিছুক্ষণ চুপ থেকে বললো।
_ আর তোর হাজবেন্ড? আমি ও চুপ থেকে বললাম।
_ হ্যা ভাল আছে!

লিমা কিছু না বলে ফোন কেটে দিলো। লিমা আগের মতো কথা বলেনা। না আগের মতো ফান করে। আমাকে কেমন এড়িয়ে চলে। আমি বুঝতে পারিনা। ও কেন এমন করে? আমার সাথে কথা না বলে থাকতে পারতো না। আর এখন কথাই বলেনা। ভার্সিটিতে দেখা হলেও কথা বলেনা। খুব কষ্ট হয় নিজেই ভাবছি। লিমা কি বোঝেনা আমার কষ্ট হয়? সেই ছোট থেকে একসাথে বড় হয়েছি। আমি যদি কোনো ভুল করি। আমাকে সেটা বললে আমি বুঝবো। না বললে কি করে বুঝবো?

এসব ভেবে মনটা খারাপ হয়ে গেলো। অবশ্য আর মন খারাপ। ভাল লাগছে না তাই টিভি চালু করলাম। তখন টিভি তে দেখাচ্ছে। এখন এই সময়ের জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পি। নিশাতে’র একটা গান শুনে নিন। তবে ভাবার বিষয় এইযে। উনি এই গানটা যখন করেছে। তখন ওনার মুখ ঢাকা ছিলো। আমি একটু অবাক হলাম। তবে গান শুনতে লাগলাম। উনি গান গাইছে!

ভালবাসা নিয়ে গেছে মৃত্যুর কাছাকাছি
ভালবাসা নিয়ে গেছে মৃত্যুর কাছাকাছি
তবুও আমি তোর কারনে বেঁচে আছি
তোর কারনে বেঁচে আছি
ওনার কন্ঠটা অনেক সুন্দর। কিন্তু এরকম গান কেন গাইছে?
ঝড় নেমে এলে জীবনে ভাগ্যটা হয়ে যায় মন্দ
কষ্টের অশ্রু নদীতে দুটি চোখ হয়ে যায় অন্ধ
ঝড় নেমে এলে জীবনে ভাগ্যটা হয়ে যায় মন্দ
কষ্টের অশ্রু নদীতে দুটি চোখ হয়ে যায় অন্ধ
হবে আবার দেখা দুজনার একদিনও বেশী যদি বাঁচি
তবুও আমি তোর কারনে বেঁচে আছি
[বাকিটা নিজ দায়িত্বে শুনবেন। ]

আমি কিছুটা অবাক হলাম। গানটা উনি মন থেকে গেয়েছে। গলা শুনে মনে হলো। ওনার মাঝে সত্যিই কোনো কষ্ট আছে। কেমন ভাঙা গলায় গাইছিলো গানটা। আচ্ছা ওনার বউ কি ওনাকে কষ্ট দিয়েছে? তাই কি উনি এই গান গাইলো? নিজে নিজে এসব ভাবছিলাম। হঠাৎ মনে হলো ওনাকে নিয়ে কেন ভাবছি? এটা ওনার নিজের লাইফ। বিকেলে বসে আপেল খাচ্ছি। বাবা অফিস থেকে এসে বসলো। কিছুক্ষণ পর বলে উঠলো।

_ মিম কাল এই বাড়িতে নিশাত আসবে। সাথে ওনার বউ আর ছেলে। অবাক হয়ে বললাম।
_ হঠাৎ আমাদের বাড়ি তে কেন আসবে?
_ বাড়িটা ওনারও তাই উনি আসবে। আর কাল থেকে এখানেই থাকবে। আর হ্যা এই নিয়ে কোনো কথা হবেনা।

বলে বাবা চলে গেলো। আর আমি বোকার মতো বসে আছি। বুঝলাম না বাড়িটা ওনার কি করে হলো? তাছাড়া এখন বাড়ির মালিক আমি। আর আমিতো ওনাকে এই বাড়ি দেইনি। রাতে বাবা সবাই কে বলে দিলো। আর এটাও বললো এই বিষয়ে উনি কারো কথা শুনবে না।

সকালে আমরা বসে আছি। নিশাত আসবে তাই। অতঃপর নিশাত এলো। সাথে একটা মেয়ে। খুব কিউট দেখতে। আর একটা ছোট ছেলে। ছেলেটা পুরো কিউটের ডিব্বা। আজও উনি মুখে রুমাল বাধা। আম্মুর থেকে শুনেছি। নিশাত নাকি নিজেকে আড়ালেই রাখে। ৩ বছর আগে হঠাৎ শোনা যায়। নিশাত নিখোজ। এরপর নাকি আবার হাজির হলো। যাইহোক ওরা বাড়িতে ঢুকলো।

বাড়িটা দেখছে ঘাড় ঘুড়িয়ে। হঠাৎ রবিন ফরিদ’র ছবির সামনে দাড়িয়ে বলে উঠলো!
_ ও মাই গড হু ইজ হি? এন্ড হাউ ইজ দ্যাট পসিবল? এরকম কোশ্চেন শুনে অবাক হয়ে বললাম।
_ হোয়াই মিস্টার রবিন? আর কিসের কথা বলছেন? তখনই উনি সাইনগ্লাস খুলে। মুখ থেকে রুমাল খুলে ফেললো। আমরা সবাই হা করে তাকিয়ে আছি। আমি নিজের চোখ কে বিশ্বাস করতে পারছি না। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। আম্মু গিয়ে ওনাকে জড়িয়ে ধরলো। আমি কেঁদে বললাম!

_ ফরিদ তুমি? উনি আম্মু কে সরিয়ে ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ ফরিদ কে ফরিদ? আমি গিয়ে জড়িয়ে ধরে বললাম।
_ তুমি আমার ফরিদ! মুখে বিরক্তি নিয়ে জনী কে বললো!
_ মিস্টার জনী এসব কি? আপনার ওয়াইফ আপনার সামনে। বাইরের একটা ছেলে কে জড়িয়ে ধরছে। আবার আরেকজন কি ফরিদ? ওনার নাম নিচ্ছে। জনী আমাকে সরিয়ে বললো।
_ তুই ফরিদ না?

_ ওয়াট দ্যা এই ছবিটা কি ফরিদ’র? আম্মু মাথা নাড়লো মানে হ্যা। তখন ও বলে উঠলো।
_ আমি নিজেও শকড। এনার সাথে আমার ফেস মিল আছে। বাট ওনার তো ঠোটের নিচে তিল আছে। আমার ঠোটের নিচে তিল নেই। আর কপালে বড় একটা তিল আছে। তাহলে আমাকে কেন ফরিদ বলছেন?
এবার সিউলী বললো।

_ কন্ঠও মিল নেই আবার বউ, ছেলে আছে। এরমাঝে ছোট ছেলেটা বললো!
_ পাপা আমি ঘুমাবো।
_ আমাদের রুম কোনটা? বাবা দেখিয়ে দিলো ওরা উপরে চলে গেলো। তখন বাবা বলে উঠলো।
_ উনি নিশাত ফরিদ না! আমি অবাক হয়ে বললাম।
_ এটা কি করে সম্ভব?


পর্ব ১৭

আমি অবাক হয়ে বললাম।
_ এটা কি করে সম্ভব? দুটো মানুষ একদম এক দেখতে। কিন্তু কি করে হতে পারে? বাবা ও ফরিদ তুমি বিশ্বাস করো।

_ ও কি করে ফরিদ হবে? ফরিদ’র কন্ঠ কি তুই চিনিস না? নাকি ভুলে গিয়েছিস? আর ফরিদ’র কপালে তিল ছিলো নাকি? তার থেকে বড় কথা। ফরিদ যদি হবে তাহলে বউ, ছেলে কি করে এলো? বাবার কথায় সব গুলিয়ে যাচ্ছে। ভাবতে পারছি না কিছু। এবার বাবা কে বললাম!

_ বাবা তুমি কাল বললে। এই বাড়ি নিশাতে’র ও। কিন্তু সেটা কি করে? না মানে এখন তো এই বাড়িরমালিক আমি। আর প্রপার্টির যে দলিল ছিলো। ওটার মুল কপিও তুমি। ৬ মাস আগে আমাকে দিয়ে দিয়েছো। তাহলে আমার সাইন ছাড়া। এই বাড়ি ওনার কি করে হয়?
_ আমি তোকে দিয়ে সাইন করিয়েছি। আমি আকাশ থেকে পড়লাম। আমাকে দিয়ে সাইন করিয়েছে। আর আমি জানিনা?

_ কই আমি তো এমন কিছুতে সাইন করিনি। বাবা চুপ থেকে বলে উঠলো।
_ পরশুদিন তুই যেই ফাইল। না দেখেই সাইন করে দিয়েছিলি। তার মধ্যে এই বাড়ির পেপারস ও ছিলো।
জনী রেগে বললো।
_ বাট পাপা আমাদের বাড়ি। তুমি ওনার নামে কেন দিলে?
_ পুরো দেইনি ৫০% দিয়েছি।

_ বাট হোয়াই পাপা? বাবা কিছু না বলে চলে গেলো। আর আমি ভাবছি এটা ফরিদ। কিন্তু ওই বাচ্চা ছেলে আর মেয়েটা কে? আর ছেলেটা পাপা কেন বলছে? আর ফরিদ রবিন হয়ে কেন আছে? আবার এটাও ঠিক হাটাচলা। কথা বলা কন্ঠ কিছু মিল নেই। কিন্তু একটা মানুষের সাথে। আরেকটা মানুষের ফেস এত মিল? তেমন এটাও ঠিক। এই পৃথিবীতে একরকম দেখতে মানুষ নাকি আছে। কেমন যেন সব অমিল লাগছে। না আর ভাবতে পারছি না। মাথাটা খুব ব্যথা করছে। রুমে চলে এলাম।

বিকেলের দিকে নিতু’রা বাইরে গেলো। বাইরে বলতে ফাইভ স্টার হোটেলে গেলো। আজ নাকি রোহানে’র জন্মদিন। আমাদের যেতে বলেছিলো বাট যাইনি। ছাদে দাড়িয়ে ছিলাম। হঠাৎ একটা মেসেজ এলো। মেসেজটা দেখে আমি ভয় পেয়ে গেলাম। রীতিমত কাঁপতে শুরু করলাম। কোনোকিছু না ভেবে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়লাম। উদ্দেশ্য ফাইভ স্টার হোটেল। তবে এটা বুঝতে পারছি না। এখান থেকে কে আমাকে মেসেজ করলো। প্রায় সন্ধ্যা হয়ে এসেছে। রাস্তায় গাড়ি খারাপ হয়ে যায়।

তাই কিছু না ভেবে হাটা শুরু করি। একসময় এখানে পৌছে যাই। ভেতরে এসে দেখি অনেক মানুষ। রোহানে’র জন্মদিন তাই। খুব ক্লান্ত লাগছে। একটা মেয়ে আমাকে জুস দিয়ে গেলো। গলাটা শুকিয়ে আসছিলো। তাই পুরো জুসটা খেয়ে নিলাম। একটু পর বুঝলাম। আমার মাথাটা ঘুরছে। সব কেমন উল্টা পাল্টা লাগছে। হঠাৎ চোখ গেলো সামনে। চুপ করে থেকে বললাম!

_ ফরিদ আমার কাছে এসো। এই মুহূর্তে নিজের উপর কন্ট্রোল নেই। হেলেদুলে ওর সামনে গেলাম। এরপর জড়িয়ে ধরে বললাম।

_ তুমি কোথায় ছিলে ফরিদ? তুমি জানো? আমি তোমাকে কত মিস করেছি। তুমি আমাকে মিস করোনি? আমি জানি তুমি রবিন না। তুমি আমার ফরিদ। ও আমাকে সরিয়ে দিয়ে বললো।
_ এসবের মানে কি হ্যা? আর আপনি ড্রিংক করেছেন? আপনার হাজবেন্ড কোথায়?
_ এমন কেন করছো ফরিদ? তুমি না আমাকে ভালবাসো?

_ আপনাকে বলেছি না? আমি ফরিদ না নিশাত। মাথাটা প্রচুর ঘুরছে। দাড়িয়ে থাকার শক্তি নেই। সব ভর ছেড়ে পড়ে যেতে গেলাম। ওমনি রবিন ধরে ফেললো। চোখ দুটো বুঝে এলো আমার। সেন্স আসার পর দেখি। আমি ড্রয়িংরুমের সোফায় পাশে। আম্মু, জনী, বাবা এক কথায় সবাই। জনী রেগে বললো।

_ তুমি ড্রিংক কেন করেছো? তুমি জানো প্রেগন্যান্ট অবস্থায়। ড্রিংক করা উচিত না। আর তুমি তো ড্রিংক করো না। তাহলে আজ ওখানে গিয়ে কেন করলে?

আমার মনে পড়লো আমি যখন ছাদে ছিলাম। তখন ফোনে আননোন নাম্বার থেকে। একটা মেসেজ আসে যেটাতে লেখা ছিলো। ফাইভ স্টার হোটেলে সিউলী গিয়েছে। ওকে কিছু ছেলে ধরে রেখেছে। আমি না গেলে ওর ক্ষতি করবে। আমি তাড়াতাড়ি নিচে চলে আসি। আর এসে দেখি সিউলী বাড়ি নেই। তাই কিছু না ভেবে বেরিয়ে যাই। ওখানে গিয়ে জুসটা খাওয়ার পর মাথা ঘোরে। তারমানে জুসে ড্রিংক ছিলো। আমি জনী কে বললাম।

_ আমি ড্রিংক করিনি জনী।
_ তুমি জানো? তুমি রবিন কে জড়িয়ে ধরেছো। ফরিদ বলে চেঁচামেচি করেছো। সবাই আজেবাজে কথা বলছে। ইনফ্যাক্ট ওখানে মিডিয়ার লোক ছিলো। এটাতো নিউসে দেখাচ্ছে।
জনী’র কথায় আকাশ থেকে পড়লাম। রিমোট নিয়ে টিভি চালু করলাম। আর টিভি দেখে আমি জাস্ট থ। আমি সেন্সলেস হওয়ার পর। রবিন আমাকে এনেছে। কিন্তু আমি তো ড্রিংক করিনি। তাই চেচিয়ে বললাম!

_ আমি ড্রিংক করিনি। কেউ ইচ্ছে করে করিয়েছে।
_ মানে? কে করাবে এটা? এরপর আমি সব খুলে বললাম।

_ কিন্তু সিউলী তো বাড়ি ছিলো। আম্মু বললো এবার আমি অবাক। সিউলী সিরি দিয়ে নেমে বললো।
_ হ্যা ভাবী আমি তো বাড়ি ছিলাম।
_ আপনার কি ব্রেইনে প্রবলেম আছে? রবিনে’র কথা শুনে রেগে বললাম।
_ ওয়াট ডু ইউ মিন?

_ আপনি যেমন করছেন তাই বলছি। প্রেগন্যান্ট অবস্থায় ড্রিংক করছেন। আমাকে ফরিদ বলছেন। সিউলী বাড়ি অথচ আপনি বলছেন বাড়ি না। তাই আমার মনে হচ্ছে।
_ আপনার মনে হলে কি হবে?

তখন নিতু মেয়েটা বললো।
_ রবিন আমাদের রুমে যাওয়া উচিত!
_ ইয়াহ সিওর রোহান কাম উইথ মি।
_ লেটস গো পাপা। ওরা চলে গেলো। আমি কিছু বুঝতে পারছি না। একচুয়েলি কি হলো এটা? পরেরদিন রান্না করলাম। আম্মু বারন করেছিলো শুনিনি। হসপিটালে গিয়ে চেকআপ করে এসেছি। আজ যাওয়ার কথা ছিলো না। কিন্তু কাল ড্রিংকের এফেক্ট। আমার বেবীর উপর পড়লো কি না।

তাই সকালে গিয়ে চেকআপ করে এসেছি। বেবী ঠিক আছে বলেছে। রান্না করে রুমে এসে। শাওয়ার নিয়ে এরপর নিচে এলাম। সবাই চলে এসেছে। নিতু’রা ও আমাদের সাথে বসেছে। যেহেতু এক বাড়ি আছি। সবাই কে খেতে দিয়ে দিলাম। জনী খাবার মুখে দিয়েই কাশতে শুরু করলো। আমি পানি এগিয়ে দিয়ে বললাম।

_ কি হলো কাশি দিচ্ছো কেন এভাবে? জনী’র মুখ মুহূর্তে লাল হয়ে গেলো। জোড়ে শ্বাস নিতে শুরু করলো। আমি খাবার একটু মুখে দিলাম। প্রচুর ঝাল কিন্তু আমি এত ঝাল দেইনি তো। আর জনী’র তো ঝালে এলার্জি। জনী চেয়ার থেকে নিচে পড়ে গেলো। তাকিয়ে দেখি সেন্সলেস হয়ে গিয়েছে।

_ ও মাই গড উনি তো সেন্সলেস হয়ে গিয়েছে। বাবা আর আম্মু ছুটে এলো। আমি ও ডাকলাম বাট সারা নেই। রবিন আবার বলে উঠলো।
_ ওয়েট আমি ডক্টর কে কল করছি। বলে ডক্টর কে কল করলো। কিছুক্ষণ পর ডক্টর চলে এলো। জনী কে দেখে বললো।

_ ওনার ঝালের জন্য এমন হয়েছে। আরো বেশী কিছু হতে পারতো। খেয়াল রাখবেন এমন যেন না হয়। এরপর ঔষুধ দিয়ে চলে গেলো।
_ মিসেস চৌধুরী আপনি। আপনার হাজবেন্ড ঝাল খায়না। ঝালে ওনার ক্ষতি হয় জানেন না?

রবিনে’র কথায় আম্মু বললো।
_ ও তো জানে হ্যা রে মিম। কি হয়েছে তোর বল তো? আমি বারন করলাম। রান্না না করতে কিন্তু তুই গেলি। কিন্তু এত ঝাল কেন দিলি?
_ আমি তো ঝাল দেইনি।

_ আপনি রান্না করেছেন। ঝাল কি অন্য কেউ দিয়েছে? স্বামীর খেয়াল রাখতে পারেন না? নিতু মেয়েটা বললো। কি বলবো বুঝতে পারছি না!
_ সেটা না হয় ওর স্বামী বুঝবে। জনী বললো আম্মু জনী কে ধরে বললো।
_ এইতো তোর সেন্স এসেছে। তুই ঠিক আছিস?
_ ইয়াহ মাম্মা আই এম ওকে। আর এসব কথা বাদ দাও। তৃশ তুমি রুমে যাও!

রুমে এসে ভাবছি। এসব কি হচ্ছে? প্রথমে ড্রিংক এর ব্যাপারটা। আবার আজকে রান্নার ব্যাপারটা। এসব বেশী ভাবলে চাপ বাড়বে। যেটা আমার বেবীর জন্য ভালো না। তাই আর ভাবলাম না। পরেরদিন অফিসে এলাম। আজ নিশাতে’র সাথে ডিল ফাইনাল হবে। আমি ফাইলটা দেখেছি। উনি ফাইল চাইলো আমি দিয়ে দিলাম। হঠাৎ উনি রেগে বলে উঠলো!
_ ওয়াট ইজ দিস?

আমি জিগ্গাসু দৃষ্টিতে তাকালাম। উনি ফাইল ছুড়ে দিলো। ফাইল দেখে আমার চোখ কপালে। সারা ফাইলে শুধু ফরিদ, ফরিদ লেখা। কিন্তু আমি নিজে সব ঠিক করে রেখেছিলাম। তাহলে এটা কি করে হতে পারে? জনী ফাইল নিয়ে দেখে বললো।
_ এসব কি?

_ আমি তো ঠিক করে রেখেছিলাম। এটা কি করে হলো জানিনা। একজন বলে উঠলো।
_ মিসেস চৌধুরী আপনার থেকে এটা আশা করিনি। আমি লেখাটা আবার দেখলাম। দেখে চমকে গেলাম। আমি যেভাবে লেখি। ঠিক সেভাবে লেখা। কিন্তু আমার লেখা কপি করতে। একমাএ ফরিদ পারতো তাহলে? এবার চিন্তায় পড়ে গেলাম। আমার সাথে কি হচ্ছে এসব?


পর্ব ১৮

আমি ভাবতে পারছি না কিছু। তবে একটা কথা আমি বুঝে গিয়েছি। এই রবিন হচ্ছে ফরিদ। কিন্তু ও নিজের পরিচয় কেন লুকিয়েছে? আর এমন কেন করলো? সবাই রেগে গিয়েছে। এদের কি করে বোঝাবো? আমি এটা করিনি তাই চুপ করে আছি। একটুপর সবাই বেরিয়ে গেলো। আমি আর জনীও চলে এলাম। মাথায় একটা কথা ঘুরপাক খাচ্ছে। রবিন ফরিদ হলে আমি। ওকে সবার সামনে আনবো। ও নিজেকে আড়াল কেন করছে?
বাড়ি এসে ভাবছি কি করে প্রুফ পাবো? নিশাত ফরিদ কি না?

এরমাঝে জনী এলো এসে বলে উঠলো।
_ আচ্ছা কি হয়েছে তোমার? এরকম ভুল ভাল কাজ কেন করছো? মাথা নিচু করে বললাম।
_ আমি এসব কিছু করিনি। আমি জানিনা এসব কি হচ্ছে। আর কে বা কেন করছে? আমার মনে হচ্ছে নিশাত ফরিদ। কিন্তু ও তো লুকিয়ে আছে রবিন হয়ে। তাহলে আমি কি করে প্রুফ করবো?

বলে জনী কে ধরে কেঁদে দিলাম। এদিকে একজোড়া চোখ আমাদের দেখছে। আর রাগে ফোস ফোস করছে। পরেরদিন সকালে জনী রেগে আছে বাবার উপর। কারন ৫০% নিশাত কে দিয়েছে। কিন্তু কেন দিয়েছে সেটা বলেনি। বাবা বুঝতে পারলো তাই জনী কে সোফায় বসিয়ে বললো।
_ আমি সত্যিটা বলবো কিন্তুু। তুই কোনোরকম রিয়েক্ট করবি না ওকে?
জনী ভ্রু কুঁচকে তাকালো। বাবা আবার বললো।
_ রিয়েক্ট না করলে বলো।

জনী সত্যিটা জানতে রাকিবি হলো। এরপর বাবা বলতে শুরু করলো।
_ তুই তো জানিস জনী। ফরিদ কে হারানোর পর আমরা। সবাই কতটা ভেঙে পড়েছিলাম। ঠিকমত অফিস করতে পারিনি। সেই সময় অফিসে প্রচুর লস হয়েছে। ৫ দিন আগে আমি অফিসে ছিলাম। তখন নিশাত আমার অফিসে আসে। এসে আমার সাথে ডিল করতে চায়।

আর ওনার অফিস এখন আমার থেকে বড়। তাই আমি রাকিবি হয়ে যাই। কিন্তু উনি বলে উনি ডিল করবে। যদি আমি এই বাড়ির ৫০% ওনাকে দেই। উনি এটাও বলেছে যে এখানে বেশীদিন থাকবে না। আমি রাকিবি হয়েছি কারন ডিলটা দরকার ছিলো খুব। বোঝার চেষ্টা কর জনী। জনী থম মেরে বসে রইলো কিছুক্ষণ। হয়তো ভাবছে কি করা উচিত এরপর বললো।

_ আই এম সরি পাপা আমি বুঝিনি।
একটুপর সবাই অফিসে চলে গেলো। রবিন ও গেলো সাথে বাচ্চা ছেলে, আর নিতু। রবিনে’র নাম্বার বাবার ফোন থেকে নিয়েছিলাম। ভেবে নিলাম কি করতে হবে আমার। বিকেলের দিকে ওই নাম্বারে ফোন দিলাম। কয়েকবার রিং হওয়ার পর ধরলো। কন্ঠ চেন্জ করে বললাম!

_ আপনি কি ফাহিম চৌধুরী? যদি ফাহিম চৌধুরী হয়ে থাকেন। তাহলে এক্ষুণি আপনাদের বাড়ি চলে আসুন। আপনাদের বাড়িতে আগুন লেগেছে। আর বাড়ির ভেতরে আপনার পরিবার।

বলে ফোন কেটে দিলাম। এবার দেখতে হবে আসে কি না? মনে মনে আল্লাহ কে ডাকছি। যাতে আসে তাহলে বুঝবো ও ফরিদ। বাড়িতে কেউ নেই শুধু আমি আর আম্মু। কিন্তু আম্মু এখন গভীর ঘুমে। আমি পায়চারী করছি। কিন্তু না কেউ আসছে না। মন খারাপ হয়ে গেলো। মনে মনে ভাবছি তাহলে কি সত্যি এটা রবিন? হঠাৎ দরজা খোলার শব্দ পেলাম। শব্দ পেয়ে লুকিয়ে পড়লাম।
_ মিম কোথায় তুমি? আগুন কো।

বলতে বলতে থেমে গেলো। আমি ওনার সামনে গিয়ে দাড়িয়ে বললাম।
_ আপনি এসময় এখানে?
উনি হয়তো বুঝতে পারলো। যে ফোনটা আমি করেছিলাম। তাই বলে উঠলো!
_ হ্যা কেন আসতে পারিনা?
_ আমি তো ফরিদ কে আসতে বলেছি। তা আপনি এলেন যে? তাহলে কি আপনি ফরিদ?
আমার কথা শুনে দাতে দাত চেপে বললো।

_ লিসেন আই এম টেলিং ইউ। আই এম নট ফাহিম চৌধুরী। তাই বারবার ফরিদ বলা বন্ধ করুন। আমি আমার ওয়াইফ। এন্ড আমার ছেলে বলেছে বলেই। তাড়াতাড়ি চলে এসেছি ওকে?
দরজায় তাকিয়ে দেখলাম। সত্যি সত্যি ওরাও এসেছে। ওরা আমাকে পাশ কাটিয়ে উপরে চলে গেলো। আর আমি সেখানে দাড়িয়ে রইলাম। তবে আমি হাল ছাড়বো না। পরেরদিন বাড়ির লোকের সামনে। রবিনে’র কলার ধরে বললাম।

_ তুমি ফরিদ তাই বলছি এটা স্বীকার করো। উনি রেগে গিয়ে বললো।
_ আরে এসবের মানে কি হ্যা? এবার হাতে একটা ছুড়ি ধরলাম। বাড়ির সবাই ভয় পেয়ে গেলো। জনী এক জায়গায় দাড়িয়ে আছে। আমি ওটা হাতে ধরে বললাম।

_ তুমি যদি স্বীকার না করো। যে তুমি রবিন না তুমি ফরিদ। তাহলে আমি হাত কেটে ফেলবো।
এই মুহূর্তে একটা ভাবনা। আর সেটা হচ্ছে রবিন কে দিয়ে বলানো। যে ও হচ্ছে ফরিদ বিকজ আমার মন বলছে হি ইজ ফরিদ। কিন্তু আমার হাতে ছুড়ি দেখেও। ওর কোনো হেলদোল নেই। বুকের ভেতরে কষ্ট হচ্ছে।

আমার হাতে নকল ছুড়ি। ভেবেছি এটা দিয়ে ভয় দেখালেই বলবে। ভয় দেখানোর জন্যই হাতে টান দিলাম। এরপর যেটা হলো আমি আকাশ থেকে পড়লাম। আমি তো নকল ছুড়ি রেখেছিলাম। তাহলে এটা কি করে হলো? হাত থেকে গলগল করে রক্ত পড়ছে। আমি চেচিয়ে উঠলাম। মাথা ঘুরছে ঝাপসা লাগছে সব। পড়ে যেতে গেলে কেউ একজন ধরলো। চোখ হালকা ভাবে খুলে দেখলাম রবিন। এরপর সেন্সলেস হয়ে গেলাম।

সেন্স আসার পর নিজেকে। হসপিটালে আবিষ্কার করলাম। আমার বাড়ির লোকও এসেছে। সবাই আমাকে বকছে। কিন্তু ছুড়িটা আসল কি করে হলো? ডক্টর ও রাগারাগি করলো। কারন প্রেগন্যান্ট অবস্থায় এটা ঠিক হয়নি। আমি নিজেও সেটা জানি। আর তাই নকল ছুড়ি রেখেছিলাম।

ডক্টর বলেছে কাল রিলিজ দেবে। রাতে ঘুুমিয়ে আছি হঠাৎ। কারো গরম নিঃশ্বাস আমার মুখে অনুভব করলাম। মনে হচ্ছে কেউ তাকিয়ে আছে। ঘুম বেশী হওয়ায় তাকাতে পারছি না। অনেক কষ্টে কোনোরকম চোখে খুললাম। কিন্তু আশেপাশে তো কেউ নেই। আমার তো স্পষ্ট মনে হলো।

কেউ এখানে ছিলো। তাহলে কি ফরিদ এসেছিলো? পরেরদিন আমাকে বাড়ি নিয়ে এলো। সাথে আমার আম্মু এসেছে। আমি সবাই কে বোঝানোর চেষ্টা করছি এটা ফরিদ। কিন্তু কেউ বিশ্বাস করছে না। সবাই ধমক দিচ্ছে কি করবো এবার? এরমাঝে বাবা চেচিয়ে বাড়ি এলো। জনী কে ডাকছে কিন্তু চেচিয়ে কেন?

তাই আমিও নিচে নেমে এলাম। বাবা একটা ফাইল জনী’র দিকে ছুড়ে বললো।
_ এত বড় ভুল তুই কি করে করলি?
_ পাপা কি করেছি আমি?
জনী’র কথায় বাবা আরো রেগে বললো।

_ তোকে এই ফাইল দিয়েছিলাম। সবকিছু ঠিক করে রাখতে। তুই সেখানে সব উল্টা পাল্টা করে রেখেছিস। প্রজেক্টের জন্য যেই পেপারস এই ফাইলে ছিলো সেগুলো কোথায়?
জনী ফাইলটা নিয়ে অসহায় ভাবে তাকালো। ওর কাছ থেকে নিয়ে আমি দেখলাম। এখানে কি সব আর্ট করা আছে। বাবা চেচিয়ে বলে উঠলো।

_ তোর জন্য আমার ৫ কোটি টাকা লস গেলো। এতটা দায়িত্বহীন কি করে হতে পারলি জনী?
_ পাপা আমি জানিনা এসব কি করে হলো। ট্রাস্ট মি পাপা আমি সব দেখেছিলাম।
জনী’র বলায় ও বাবা বিশ্বাস করছে না। করার কথাও না। আমি ভাবছি এসব কে করছে? আমাদের এত লস কে করাতে পারে?

জনী বাড়ি নেই। আজ আসতে আসতে রাত হবে। বাড়ি আমি, আম্মু, বাবা, ফুপ্পি। আর আমার ভার্সিটি ফ্রেন্ডরা। ওদের সাথে আড্ডা দিচ্ছি। আর আমার শাশুড়ি আম্মু। আমার ফুপ্পি শাশুড়ি কাজ করছে। ওদের দিয়ে আমিই কাজ করাচ্ছি। চা আনতে বলেছি আরো আগে। কিন্তু এদের তো আসার নাম গন্ধ নেই চেচিয়ে বললাম।

_ আম্মু, ফুপ্পি চা কি আজকে পাবো? কিছুক্ষণ পর চা নিয়ে এলো। সবাই কে আম্মু চা দিচ্ছিলো। ইচ্ছে করে পা বাধিয়ে দিলাম। আর চা গিয়ে পড়লো। আমার একটা ফ্রেন্ডের গায়ে। রেগে বলে উঠলাম।
_ ওয়াট দ্যা হেল আম্মু? একটা কাজ ঠিকমত করতে পারোনা? অবশ্য পারবে কি করে? সারাদিন তো বসে বসে গিলতে থাকো। এখন হা করে কি দেখছো? ওর ড্রেসে চা পড়েছে।

তোমার ওরনা দিয়ে মুছে দাও। আম্মুর চোখগুলো ছলছল করছে। আমার অনেক খারাপ লাগছে। কিন্তু আমি ফরিদ কে রাগাতে এসব করছি। যে কি না এখন রবিন সেজে আছে। নিজের বাড়ির লোক কে এভাবে দেখে। নিশ্চই ও রেগে এসে আমাকে বকবে। তাহলে সবাই বুঝবে ও ফরিদ। এরা আমার ফ্রেন্ড ততটা না।

শুধু আজকের জন্য ওদের এনেছি। ও উপরে দাড়িয়ে দেখছে সব। চোখেমুখে রাগ স্পষ্ট ফুটে উঠেছে। পাশে ওই মেয়েটা আছে। একটুপর দেখলাম বাবা এলো। বাবা কে ডেকে বললাম।
_ বাবা আমার ফ্রেন্ডদের জুস সার্ভ করে দাও।
বাবা আকাশ থেকে পড়লো রেগে বললো।

_ মিম এসব কি বলছিস তুই?
_ ও কাম অন পাপা। এত রেগে যাচ্ছো কেন? আমি যখন বলেছি তখন করো। ভুলে যেওনা এই বাড়ির মালিক আমি। তাই চুপচাপ কাজ করতে থাকো।

_ বাট এই বাড়ির ৫০% আমার। তাই আমি বলছি ওনারা আর কোনো কাজ করবে না।
তাকিয়ে দেখলাম রবিন। মনে মনে খুশি হলেও উপরে রাগ দেখিয়ে বললাম।

_ হেই হু আর ইউ? এসব বলার আপনি কে? ওনারা কি করবে কি করবে না। সেটা ঠিক করার আপনি কে? আমার লাইফ এরা আমার পরিবার। আপনি কেন মাঝে কথা বলছেন? আপনি আমার পরিবারের কেউ না। সো ইউ জাস্ট স্টে এওয়ে ফ্রম মি, এন্ড মাই ফ্যামিলি, গট ইট?
দেখলাম বাবা দাড়িয়ে আছে তাই বললাম।
_ কি হলো বাবা? তুমি এখানে হা করে দাড়িয়ে আছো কেন? তোমাকে না বললাম ওদের জুস দিতে?

কিন্তু এতেও কাজ হলোনা। ওই নিতু মেয়েটা ওকে নিয়ে চলে গেলো। মন খারাপ হয়ে গেলো। সবার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলাম। হয়তো অবাক হয়েছে কিন্তু রেগে নেই। কয়েকদিন কেটে গেলো এরকম হয়ে আসছে। কখনো জনী’র সাথে উল্টা পাল্টা হচ্ছে। কখনো আমার সাথে যার কারনে বেশী কথা শুনতে হয়।

এইতো মাঝে সবাই কে কেউ। আইস ফ্যাক্টরী তে আটকে দিয়েছিলো। আর সব দোষ হয়েছে জনী’র। আমার কেন জানিনা মনে হচ্ছে। এইসব রবিন হয়ে থাকা ফরিদ করছে। শুধু বুঝতে পারছি না কেন করছে?
রাত ১ টা ছাদে দাড়িয়ে আছে একজন। যার চোখগুলো লাল হয়ে আছে। হাত মুঠ করে রেখেছে। ফোস ফোস করছে রাগে।

_ আমার সাথে তোমরা যেটা করেছো। তার কাছে এটুকু তো কিছুই না। খুব কম শাস্তি আমি দিয়েছি তোমাদের। মাম্মা, পাপা তোমরা কখনো আমাকে ভালবাসোনি। মিম তুমিও আমাকে ভালবাসোনি। আর জনী সে তো খুনি। তুই আমার বউ কে পেতে। আমাকে খুন করতে চেয়েছিলি।

নাহলে আমি গুলি খাওয়ার। পর পরই মিম কে বিয়ে কেন করলি? আর মিম তুমি কি করে পারলে? আমাকে ভুলে ওর সাথে সংসার করতে? এখন তো তুমি ওর বাচ্চার মা। ভেবেছিলাম হয়তো বাচ্চাটা আমার। কিন্তু ডক্টরের কাছে গিয়ে জানলাম। তুমি ৩ মাসের প্রেগন্যান্ট। যেখানে আমি নিখোজ ৪ মাস। ভেবেছিলাম ৪ মাস আগে। সেই রাতের জন্য হয়তো
আল্লাহ।

আমার বাচ্চা তোমার গর্ভে দিয়েছে। ডক্টর যদি বলতো ৪ মাসের প্রেগন্যান্ট। ট্রাস্ট মি সব ভুলে যেতাম। জনী’র থেকে তোমাকে ছিনিয়ে নিতাম। কিন্তু না তুমি তো দিব্যি আছো। কাউকে ক্ষমা করবো না। এখন তো আমার মনে হয়। সবাই কে ভালবাসার জন্য। আমার জন্ম হলেও। আমাকে ভালবাসার জন্য কারো জন্ম হয়নি। হ্যা ফরিদ কে কেউ ভালবাসে না।

পরেরদিন রবিন আমাকে ডাকলো। কি নাকি সত্যি বলতে চায়। ভাবলাম আজ হয়তো সব স্বীকার করবে। তাই চুপিচুপি ওর রুমে গেলাম। রুমের কাছে আসতেই। কেউ হ্যাচকা টানে ভেতরে নিয়ে গেলো। তাকিয়ে দেখি রবিন। ওর হাত আমার কোমরে। যেহেতু স্বীকার করেনি ও ফরিদ তাই বললাম।

_ কি করছেন আপনি?
_ কেন? তুমি তো আমাকে জড়িয়ে ধরো। আমি না তোমার ফরিদ? আমি তো তোমাকে টাচ করতেই পারি।
স্লো ভয়েসে বলে। আমাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে। গলায় মুখ ডুবিয়ে দিলো। আমি ওর হাত চেপে ধরলাম। হুট করেই বিছানায় শুইয়ে দিয়ে জড়িয়ে ধরলো। আমি সরিয়ে দিয়ে বললাম।

_ তাহলে তুমি স্বীকার করছো তুমি ফরিদ?

_ কখন বললাম?
বিছানা থেকে উঠে বললো। আমি রেগে গিয়ে বললাম।
_ মানে কি ফরিদ? একদম মিথ্যে বলবে না। আমি জানি তুমি ফরিদ। আজই সবাই কে বলবে। আর ওই বাচ্চাটা কে? তোমাকে পাপা কেন বলে?

_ আমার ছেলে তাই পাপা বলে।
বলে রুম থেকে বেরিয়ে গেলো। আমি থম মেরে বসে রইলাম। আমিও ওই রুম থেকে চলে এলাম। কিন্তু একটা রুমের কাছে এসে। যা শুনলাম আমার পায়ের তলার মাটি সরে গেলো। মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। মানুষ এত খারাপ কি করে হয়? এত বিশ্বাসঘাতক কি করে হয়? বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে এভাবে ঠকালো?

তুমি আমার ভালবাসা


পর্ব ১৯

এমন কিছু কোনোদিন ভাবিনি। মানুষ এত নিচ কি করে হয়? রুমে এসে থম মেরে বসে রইলাম। আমার থেকে আমার স্বামী কে সরিয়েছে। আমার ফরিদ কে মারতে চেয়েছে। তাকে আমি কিছুতেই ক্ষমা করবো না। এদিকে নিতু এসে রবিনে’র কাধে হাত রাখলো। রবিন কান্না করছে আসলে তো ফরিদ।

_ থ্যাংকস নিতু তুমি না থাকলে। আমি এসব কিছু করতে পারতাম না। সেদিন যদি তুমি না বাঁচাতে। তাহলে আমি মরেই যেতাম।
নিতু সোফায় বসে বললো।

_ এটা আমার দায়িত্ব। রবিন কে তো আমি ৩ বছর আগে হারিয়েছি। তোমাকে পেলাম মাজারের কাছে। মাজারের পাশে নদীর কিনারে তুমি ছিলে। আসলে প্রতিবার যেতাম ওখানে। তোমাকে হসপিটালে নেওয়ার পর ডক্টর ট্রিটমেন্ট করে। রবিন তো ৩ বছর নিখোজ ছিলো। রোহানে’র জন্মের পরই হঠাৎ নিখোজ হয়। পাগল হয়ে গিয়েছিলামকিন্তু পাইনি। ৩ বছর পর মৃত দেহ পাই।

তোমার সেন্স এলেও সাময়িক সময়ের জন্য। তোমার মেমোরি লস হয়ে যায়। ২ মাস পরে সব মনে পড়ে। তুমি এখানে চলে আসো। এরপর আবার আমাদের ওখানে যাও। রোহান কে নিজের সন্তানের মত দেখো। রোহান রবিন কে না পেলেও। তোমাকে তো পেয়েছে।
ফরিদ চোখমুখ খিচে বললো।

_ এখানে এসে তো জানি। মিম জনী কে বিয়ে করেছে। তাই ভাবি সবাই কে শাস্তি দেবো। তুমি না থাকলে কিছুই হতো না।
_ তুমি আমার ছেলে কে। বাবার ভালবাসা দিয়েছো। এটুকু তো করতেই পারি।

রবিন অলওয়েজ নিজেকে কাভার করে রাখতো। খুব কম মানুষ ওকে চিনতো। তাই এটা সম্ভব হয়েছে। ফরিদ বলে উঠলো।
_ এবার আসল চাল দেবার পালা।

রুমে বসে ছিলাম। এরমাঝে আম্মু ডাক দিলো। তাই নিজেকে স্বাভাবিক রেখে। নিচে নেমে এলাম। আমার আম্মুও আছে। জনী’র গায়ে পুলিশের ইউনিফর্ম। দেখে বোঝা যাচ্ছে। থানায় যেতে রেডি হয়েছে। রবিন নামক ফরিদ ও আছে। ইনফ্যাক্ট সবাই আছে। সবার মুখ দেখে মনে হচ্ছে। অতিরিক্ত রেগে আছেকিন্তু কেন? আসতে না আসতে আমার আম্মু। ঠাস করে আমাকে থাপ্পর মারলো। আমি কিছু বুঝতে পারছি না। তাই জিগ্যেস করলাম।

_ কি হয়েছে আম্মু? তোমরা এত রেগে আছো কেন?
এরমাঝে আম্মু আমার সামনে। ফোন বের করে ধরলো। যেটাতে একটা ভিডিও। ভিডিও দেখে আমি জাস্ট শকড। এটা তখনকার ভিডিও। যখন এই ফরিদ আমাকে ওর রুমে যেতে বলেছিলো। আর আমি যাওয়ার পর। ও আমার গলায় মুখ ডুবিয়েছিলো। আমাকে জড়িয়ে ধরেছিলো। এরপর নিতু বলে উঠলো।

_ ছিঃ আপনি এত খারাপ? আমার অগোচরে আমার। স্বামীর সাথে এসব করলেন?
আমি কি বলবো বুঝতেছি না। ফরিদ এটা কি করে করতে পারলো?

_ মিস্টার জনী আই থিংক। আপনার ওয়াইফের ক্যারেক্টারে দোষ আছে।
কথাটা কলিজায় এসে লাগলো। এটা কি সত্যি আমার ফরিদ? আমার ফরিদ আমাকে চরিএহীন বলবে? রাগে গা জ্বলে যাচ্ছে। ধীর পায়ে ওর সামনে গিয়ে দাড়ালাম। ওর মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। কোনোকিছু না ভেবে ঠাস করে থাপ্পর বসিয়ে দিলাম। সবাই হয়তো অবাক হয়েছে। আর ও রাগী দৃষ্টিতে তাকালো। কলার চেপে ধরে বললাম।

_ তুমি আমার ফরিদ হতেই পারোনা। ও বিষ্ময় চোখে তাকালো। আমি ওকে ধাক্কা মেরে সরিয়ে বললাম।
_ তুমি আমার ফরিদ হলে। আর যাই হোক আমার সাথে এটা করতে না। কারন ফরিদ’র কাছে আমার সম্মান সবার আগে। আর তুমি কি করে করতে পারলে বলো? এত নিচে নেমে গিয়েছো?

কিসের শাস্তি দিচ্ছো আমাকে? আমার কি অপরাধ বলো? আর এই বাড়ির লোকের কি অপরাধ? আমি জানি এতদিন ধরে। আমাদের সাথে যা খারাপ হচ্ছে। এই সব তুমি করেছো। প্রথমে আমার জুসে ড্রিংক মিলিয়েছো। যেখানে তুমি জানতে আমি প্রেগন্যান্ট। এরপর অফিসের ফাইলে।

নিজের নাম লিখে রেখেছো। আমার লেখা একমাএ তুমি কপি করতে পারো। এরপর খাবারে ঝাল মিলিয়েছো। যেখানে তুমিও জানো। তোমার নিজের ভাই ঝাল সহ্য করতে পারেনা। এই পরিবার এরা তোমার পরিবার। অথচ তুমি এদের আইস ফ্যাক্টরী তে লক করে। সব দোষ তোমার নিজের ভাইয়ে’র উপড় চাপিয়েছো। ওকে সবার সামনে খারাপ বানিয়েছো। আর আজ আমাকে চরিএহীন করলে। কেন হ্যা? কিসের এত ক্ষোভ তোমার?

_ হ্যা হ্যা আমি ফরিদ কোনো রবিন না। আর এতদিন ধরে এসব আমি করেছি। আর যা করেছি যা শাস্তি দিয়েছি। সেটা তোমাদের জন্য খুব কম।
ফরিদ চিৎকার করে বললো। এবার সবাই আকাশ থেকে পড়লো। আম্মু, বাবা, ছলছল চোখে তাকালো। আমি চেচিয়ে বললো।

_ কি করেছি আমরা? কেন করছো এসব?
ফরিদ তাচ্ছিল্য হেসে বললো।
_ রিয়েলি? এটা আমাকে বলতে হবে? আরে কি করোনি তোমরা? আমি গুলি খেয়ে নিখোজ হতে না হতে। তুমি এই জনী কে বিয়ে করে নিলে। আর তার বাচ্চা পেটে নিয়ে ঘুরে বেরাচ্ছো। এই তোমার ভালবাসা? লজ্জা করলো না এটা করতে? আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি মিম। তোমার লজ্জা বলতে কিছু নেই।

_ স্টপ ইট ফরিদ, না জনী ভাইয়া আমার স্বামী। আর না আমার বাচ্চার বাবা।
সবাই আকাশ থেকে পড়লো। সবাই জানে বাচ্চাটা জনী ভাইয়ার না। কিন্তু জনী ভাইয়া যে আমার স্বামী না। এটা কেউ জানতো না। আম্মু বলে উঠলো।

_ জনী তোর স্বামী না মানে? তোরা যে কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করলি?
_ ও ঠিকই বলেছে মাম্মা। আমাদের কোনো বিয়েই হয়নি। শুধু মাএ তোমাদের জন্য। আমরা গত ২ মাস ধরে। এই নাটক করে আসছি।
জনী ভাইয়ার কথা শুনে ফরিদ বললো।

_ তাহলে কি বিয়ে ছাড়াই বাচ্চা।
আবারও থাপ্পর মারলাম। আমি ভাবতে পারছি না ফরিদ এসব বলছে? চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। চেচিয়ে বললাম।
_ এই বাচ্চা তোমার ফরিদ। কি করে বলতে পারছো এসব?
_ আমার কি করে হলো? আমি নিখোজ ছিলাম ৪ মাস। আর তুমি প্রেগন্যান্ট ৩ মাস।
ওর কথায় অবাক হয়ে গেলাম। শুধু আমি না সবাই অবাক হয়ে গেলো। আম্মুই আবার বললো।

_ তুই এসব কি বলছিস ফরিদ? মিম ৩ মাসের প্রেগন্যান্ট কে বললো? মিম’র প্রেগন্যান্সি ৪ মাস গিয়ে। ৫ মাসে পড়লো গতকাল।
_ ওয়াট? এসব কি বলছো?
_ বাচ্চাটা তোমার ফরিদ। ৪ মাস আগে যখন তোমার গুলি লাগলো। তুমি ব্রিজের নিচে পড়ে গিয়েছিলে। আমিও লাফ দিতে চেয়েছিলাম। এরপর জনী ভাইয়া আমাকে ধরে ফেলে। আমি সেখানে সেন্সলেস হয়ে যাই আর তারপর।

অতীত।
আস্তে আস্তে আমি চোখ খুলি। চোখ খুলে দেখি আমি বিছানায়। আশেপাশে সবাই আছে শুধু ফরিদ নেই। ফরিদ কে দেখতে না পেয়ে। আমি ফরিদ বলে চেচিয়ে উঠি। তখন ডক্টর আমাকে বলে।
_ আপনি এভাবে হাইপার হবেন না। এতে আপনার বেবীর প্রবলেম হবে।
বেবীশুনে আমি বুঝতে পারিনা। কার বেবী কিসের বেবী? তাই বলে উঠি।

_ বেবী মানে?
_ মিম তোর বেবী তুই প্রেগন্যান্ট।
অজান্তে পেটে হাত দেই। মনে পড়ে যায় ফরিদ বলেছিলো। যখন ও জানবে আমি প্রেগন্যান্ট। তখন ১ সপ্তাহ ও বাড়ি থেকে কোথাও যাবেনা। এখন মনে হচ্ছে যদি কাল জানতাম। তাহলে ফরিদ আজ কোথাও যেতোনা। চিৎকার করে কাঁদতে থাকি।

_ আম্মু আমার ফরিদ কে এনে দাও। আমার বাচ্চার ওর বাবা কে দরকার। জনী ভাইয়া এনে দাও ফরিদ কে।
সবাই কাঁদছে আমার কলিজা মনে হচ্ছে। কেউ বের করে নিয়ে যাচ্ছে।
_ দেখ তৃশ ফরিদ কে খোজা হচ্ছে। আমরা ঠিক ওকে পাবো।

জনী ভাইয়া বলছে হঠাৎ মনে হলো। কেউ সুচ ফোটালো। বুঝলাম ইনজেকশন দিচ্ছে। কিছুক্ষণের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়লাম। যখন ঘুম ভাঙলো কাউকে পেলাম না। ড্রয়িংরুম থেকে কান্নার আওয়াজ আসছে। মনের মধ্যে ভয় ঢুকে গেলো। ধীর পায়ে নিচে নেমে এলাম। এসে দেখলাম সবাই কাঁদছে আর। আম্মু হাউমাউ করে কাঁদছে। আম্মুর হাতে ফরিদ আজ। যেই শার্ট পড়েছিলো সেটা। আমি আম্মুর সামনে গিয়ে। শার্ট নিয়ে বললাম।

_ এটা তো ফরিদ’র ফরিদ কোথায়?
কেউ কিছু বলছে না। তাই চিৎকার করে বললাম।
_ কি হলো? তোমরা কেউ কিছু বলছো না কেন? কোথায় আমার ফরিদ? ওর তো গুলি লেগেছে। ওকে হসপিটালে নিতে হবে। ও তোমরা ওকে হসপিটালে নিয়েছো? তাহলে আমাকে নিয়ে চলো।
বলে সামনের দিকে পা বাড়ালাম।

_ ফরিদ নেই তৃশ ওকে পাইনি। পুলিশ বলেছে ও যেখানে পড়েছে। ওখানে পড়লে কেউ বাঁচেনা।
জনী ভাইয়ার কথায় স্তব্ধ হয়ে গেলাম। মুখ দিয়ে কোনো কথা বের হচ্ছেনা। মনে হচ্ছে কথাগুলো গলায় দলা পাকিয়ে গিয়েছে। মনে মনে বলছি।
_ কেন আল্লাহ এটা কেন হলো? আজ ফরিদ’র সাথে এটা হলো। আর আমি আজই জানলাম আমি প্রেগন্যান্ট। কি করে থাকবো ফরিদ কে ছাড়া? মরতেও তো পারবো না। আমি তো এখন একা না। আমার গর্ভে আমার ফরিদ’র সন্তান। কি করবো আমি এখন?

এভাবে কেটে যায় ১ মাসের বেশী। জনী ভাইয়া অলওয়েজ আমার খেয়াল রাখতো। আমি সবসময় কাঁদতাম। এটা আমার বাচ্চার জন্য ঠিক ছিলো না। এ অবস্থায় নাকি হাসি খুশি থাকতে হয়? কিন্তু আমি তো পারিনা থাকতে। হঠাৎ একদিন আম্মু এসে বললো।

_ জনী কে বিয়ে কর মিম।
আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। অবাক চোখে বললাম।
_ এসব কি বলছো আম্মু?
_ দেখ মিম আমি তোর আর তোর সন্তানের জন্য বলছি।
_ মানে কি এসবের?

_ ফরিদ কে হয়তো আমরা আর পাবোনা। কিন্তু তোর সন্তানের জন্য। ওর বাবার খুব দরকার মা। তুই একবার ভেবে দেখ। ও যখন পৃথিবীতে আসবে আর বড় হবে। ওকে তো স্কুলে ভর্তি করবি। ও যখন সবাই কে দেখবে। তাদের বাবা আছে তাদের ভালবাসে। তখন ওর ওইটুকু মনে। সেটার কত খারাপ এফেক্ট পড়বে।
আম্মু যেটা বলেছে সেটা ঠিক। কিন্তু আমি কাউকে বিয়ে করতে পারবো না। কিছুতেই না আমার ফরিদ আসবে। আমি ফরিদ কে ছাড়া কাউকে স্বামী হিসেবে মানবো না।
_ মাম্মা এসব কি বলছো তুমি?
দরজায় তাকিয়ে দেখি জনী ভাইয়া।

_ মিম আমাকে কেন বিয়ে করবে? আর আমি বা ওকে কি করে বিয়ে করবো?
রুমে ঢুকতে ঢুকতে বললো।
_ কেন বিয়ে করতে পারবি না? তুই পারবি না ফরিদ’র সন্তান কে। তোর সন্তান বলে মেনে নিতে? মিম কে সুখে রাখতে? মেয়েটা যে কষ্ট পাচ্ছে।

আম্মু রীতিমত কান্নাকাটি শুরু করে দিলো।
_ মাম্মা ও ফরিদ’র বউ। ফরিদ’র সন্তান কে নিজের সন্তান ভাবতে পারি। কিন্তু তৃশ ওর বউ আমি কি করে?
_ আমিও চাই তোরা বিয়ে কর।
আমার আম্মু বললো আম্মু ও চলে এসেছে। সবাই মিলে এক কথা বলছে। এরপর তো কসম দিয়ে দিলো। নিজেকে খুব অসহায় লাগছে। জনী ভাইয়া বলে উঠলো।

_ ঠিকাছে আমি বিয়ে করবো। কিন্তু তারআগে তৃশে’র সাথে। আমি একটু কথা বলবো।
সবাই খুশি হয়ে রুম থেকে চলে গেলো। আমি রেগে বললাম।
_ এসব কি বলছো তুমি?
_ নকল বিয়ে তো করতে পারি।

আমি অবাক হয়ে বললাম, মানে?
_ দেখ তৃশ আমি জানি। তুই ফরিদ কে কত ভালবাসিস। আমিও এই বিয়ে করতে চাইনা। কিন্তু এখন যদি আমরা নকল বিয়ে না করি। তাহলে সবাই মিলে আমাদের বিয়ে সত্যি দিয়ে দেবে।
ভেবে দেখলাম কথাটা ঠিক তাই বললাম।
_ নকল বিয়ে কি করে করবো?

তুই আর আমি কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করে আসবো। আর ওখানে গিয়ে কাজী কে বলবো। যদি কেউ জানতে চায়। আমরা আসলে বিয়ে করেছি কি না? উনি যাতে হ্যা বলে। এতে সবাই জানবে আমরা হাজবেন্ড, ওয়াইফ।

উপায় না পেয়ে রাকিবী হয়ে গেলাম। এরপর জনী ভাইয়ার কথামত সেটা বললাম। সবাই রাকিবী হলেও বললো। আমাদের রিসেপশন করবে। এরপর হলো নকল বিয়ে। আর রিসেপশন সবাই জেনে গেলো। আমি জনী চৌধুরীর বউ। আমি শুধু তাচ্ছিল্য হাসলাম। জনী ভাইয়া কে ভাইয়া বলতে আম্মু বারন করলো। আর জনী ভাইয়া কে বললো যেন তুই না বলে। তাই আমি জনী বলতাম আর জনী ভাইয়া তুমি। এভাবে আরো ২ মাস কেটে গেলো।

বর্তমান।
ফরিদ কিছুক্ষণ চুপ থেকে হেসে দিলো। এ হাসির কারন অজানা। হাসি থামিয়ে ফরিদ বললো।
_ তুমি কি জানো? জনী তোমাকে ভালবাসে?
আমি শকড হয়ে বললাম।
_ এসব কি বলছো তুমি?

ফরিদ দাতে দাত চেপে বললো।
_ আমি ঠিকই বলেছি আর তোমাকে যাতে ও পায়। তাই ৪ মাস আগে এই জনী। আমাকে গুলি করেছিলো।
বাড়িতে থমথম পরিবেশ চলছে। জনী ভাইয়া বসা ছিলো। ধীর পায়ে ফরিদ’র সামনে এসে বললো।
_ তুই কি বললি ফরিদ? আ আমি তোকে গুলি করেছি?
_ হ্যা তুই আমাকে মারতে চেয়েছিলি। তোকে তো আমি।

বলে ফরিদ হাত ওঠাতে গেলে। আমি থামিয়ে দিয়ে বললাম।
_ না জেনে কাউকে ব্লেম করা ঠিক না। জনী ভাইয়া কিছু করেনি। আরে কি করে বলছো এসব? এই লোকটা ৪ মাস। নিঃস্বার্থ ভাবে আমার। আমার সন্তানের খেয়াল রেখেছে। আমি খেয়েছি কি না? আমি না খেলে আমার সন্তানের ক্ষতি হবে। তোমার সন্তান কে নিজের সন্তান ভেবে এসেছে। তাকে তুমি খুনি বলছো?
_ মিম তুমি জানোনা।

ফরিদ কে থামিয়ে বললাম।
_ আমি সব জানি কে তোমাকে মারতে চেয়েছে? আর কেন মারতে চেয়েছে। হয়তো কেউ বিশ্বাস করবে না। কিন্তু আমি আজ সব জেনেছি।
জনী ভাইয়া উত্তেজিত হয়ে বললো।

_ তুই জানিস? তাহলে ফরিদ কে বল তৃশ। ও আমাকে দোষী ভাবছে। আমি তো দোষী না প্লিজ বল।
এবার শক্তভাবে বললাম।
_ তুমি নিজে সব স্বীকার করবে? নাকি আমি লাইভ দেখাবো?
_ এসব আমি করেছি।
কেউ হয়তো ভাবেনি ও এমন করতে পারে। এ আর কেউ না সিউলী। হ্যা সেই সিউলী যাকে এত ভালবাসতাম। ফরিদ অবাক হয়ে বললো।

_ সিউলী তুই? তুই তো আমাকে এতদিন হেল্প করলি। তুই আমাকে মারতে চেয়েছিলি?
_ হ্যা মারতে চেয়েছি আমি তোকে। সেই ছোট থেকে আমি তোকে ভালবাসি। কিন্তু তুই কি করলি? মিম কে বিয়ে করে নিলি। আমি দাতে দাত চেপে সহ্য করেছি। তোদের নেকামি দেখতে দেখতে হাপিয়ে গিয়েছিলাম। তাই ডিসাইড করে ফেলি। তুই আমার না হলে।

তোকে আমি আর কারো হতে দেবোনা। তাই সেইরাতে তুই যখন বের হলি। আমি জানতাম তুই ওই ব্রিজে যাবি। মিম বের হওয়ার পর আমিও বের হই। আর তুই রেগে ছিলি তাই জনী ভাইয়া বের হয়। সুযোগ বুঝে গুলি তাক করি। তখন মিম সামনে ছিলো। তাই ভাবি আগে ওকে মারি তারপর তোকেও মারবো। কিন্তু তুই রোমিও ওকে সরিয়ে নিজে গুলি খেয়ে পড়ে গেলি।

এরপর তোর বউ লাফ নিতে চায়। আর তখন জনী ভাইয়া ওকে বাঁচায়। ও সেন্সলেস হয়ে যায় জনী ভাইয়া। ওকে কোলে নিয়ে গাড়িতে ওঠায়। আমি ছবি তুলে রাখি। জানিনা কেন মনে হয়েছিলো। বাই এনি চান্স যদি তুই বেঁচে যাস। তাহলে এগুলো দিয়ে তোর মন বিষিয়ে দেবো। তারআগে তো এরা বর, বউয়ের ড্রামা করে। এতে তুই এমনিই রেগে গেলি। আমি আগেই বুঝেছিলাম তুই ফরিদ। তাই তোকে ওগুলো দেখিয়ে হেল্প করার ড্রামা করি। মিম’র পেটে তোর বাচ্চা। ডক্টর যে বলেছিলো ৩ মাসের প্রেগন্যান্ট। আমার কথাতেই বলেছিলো। হ্যা আমি করেছি এসব আর বেশ করেছি।

সিউলী’র কথা শুনে আমরা জাস্ট থ এত প্লান? ফুপ্পি গিয়ে থাপ্পর মেরে বললো।
_ এটা কে ভালবাসা বলে না। জেদ বলে বুঝেছিস? তুই এত নিচ কি করে হলি? ছোট ভাই কে মারতে চেয়ে। বড় ভাই কে ফাঁসিয়ে দিলি।
আমি নিজেও ভাবছি। সিউলী এত খারাপ কি করে হলো?

_ আই এম সরি মিম। আই এম রিয়েলি সরি। আমি বুঝতে পারিনি। তোমার সাথে অনেক অন্যায় করেছি। আমার সন্তান কে অন্য কারো ভেবেছি। তোমাকে বিলিভ করিনি। প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দাও।
ফরিদ’র হাত সরিয়ে বললাম।
_ ক্ষমা চাওয়ার হলে জনী ভাইয়ার কাছে চাও। যে আমাদের প্রটেক্ট করলো। তোমার বউ কে তোমার সন্তান কে। আর তুমি তাকে খুনি বানিয়ে দিলে?

_ না তৃশ ওর ক্ষমা চাইতে হবেনা। আর কেন ক্ষমা চাইবে? আমি ওর উপর রেগেই নেই। ওর জায়গায় আমি হলে। হয়তো এই কাজটাই করতাম।
জনী ভাইয়ার কথায় ফরিদ। অবাক চোখে জনী ভাইয়ার দিকে তাকালো। এরমাঝে পুলিশ এলো।
_ পুলিশ কে ডাকলো?

_ আমি পুলিশ আসতে বলেছি। আমার ভাই কে খুন করার দায়ে। মিস সিউলী কে এরেস্ট করতে।
জনী ভাইয়ার কথা শুনে। সিউলী চেচামেচি করতে লাগলো। কেউ ওর হয়ে কথা বলছে না। ওর নিজের মা ও না। হঠাৎ সিউলী পুলিশের কোমর থেকে বন্ধুক নিয়ে। ফরিদ’র দিকে তাক করে বললো।
_ বলেছিলাম না ফরিদ? তুই আমার না হলে কারো হবিনা।

আমি আর ফরিদ কে হারাতে পারবো না। এটা ভেবে ফরিদ’র সামনে দাড়ালাম। সিউলী গুলি চালিয়ে দিলো। চোখ বন্ধ করে ফেললাম। কিন্তু আমার কিছু হলোনা তাই চোখ খুললাম। চোখ খুলে আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। আমার সামনে জনী ভাইয়া দাড়ানো। বুকে হাত দিয়ে আছে। ওভাবেই জনী ভাইয়া নিচে পড়ে গেলো। ইউনিফর্ম রক্তে লাল হয়ে আছে। জনী ভাইয়া নিজের কোমর থেকে বন্ধুক বের করে। সিউলী’র পায়ে গুলি করে বললো।

_ অফিসার ওকে নিয়ে যান।
_ জনী ভাইয়া।
ফরিদ কাঁপা গলায় বললো, ভা ভা ভাই ভাইয়া।
সবাই জনী ভাইয়ার কাছে এলো। ফরিদ জনী ভাইয়ার মাথা নিজের কোলে নিলো। আমি কাঁদতে কাঁদতে বললাম।
_ তুমি আমার সামনে কেন এলে?

জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।
_ ৪ মাস তোকে আর তোর সন্তান কে। আগলে আগলে রেখেছি। চোখের সামনে আজ কি করে ক্ষতি হতে দিতাম? আর ৪ মাস পর ফরিদ তোদের ফিরে পেয়েছে? আবার কি করে হারাতে দিতাম?
জনী ভাইয়া জোড়ে শ্বাস নিতে নিতে বললো।

_ ফরিদ ছোটবেলায় আমি হারিয়েছি। এরপর মাম্মা, পাপা কি করেছে। আমি জানিনা কি কিন্তু । তা তার দোষ কি আ আমার? তুই আমার থেকে কেন দুরে থাকিস? আমি হয়তো থাকবো না। আমার মেয়ে সরি। তোর মেয়ে আর তৃশে’র খেয়াল রা রাখিস।
বলতে বলতে জনী ভাইয়া জোড়ে একবার শ্বাস নিলো। এরপর চোখ দুটো বন্ধ করে নিলো।
_ ভাইয়ায়ায়ায়া।

বলে ফরিদ জোড়ে চিৎকার করলো। আমরা স্তব্ধ হয়ে গিয়েছি।


পর্ব ২০

ফরিদ, ভাইয়া ভাইয়া বলে কাঁদছে। এটাকেই হয়তো রক্তের সম্পর্ক বলে। একদিন ঠিক ভুল বুঝাবুঝি দুর হয়। কিন্তু জনী ভাইয়া কে হসপিটালে নিতে হবে। তাই তাড়াতাড়ি সবাই কে বললাম। আর দেরী না করে হসপিটালে চলে এলাম। আল্লাহ কে ডাকছি যেন জনী ভাইয়া ঠিক হয়ে যায়। যে মানুষটা নিঃস্বার্থ ভাবে। গত ৪টা মাস আমার পাশে থেকেছে। আমার এবং আমার সন্তানের খেয়াল রেখেছে। আর আজ আমাদের জন্য নিজে মরতে বসেছে। আল্লাহ যেন তাকে ফিরিয়ে দেয়। ডক্টর জনী ভাইয়া কে ওটিতে নিয়ে গেলো। ফরিদ অনবরত কেঁদে যাচ্ছে। আম্মু কাঁদছে তাই আম্মুর কাছে গেলাম। কি বলবো বুঝতে পারছি না। তবুও আম্মুর কাধে হাত রেখে বললাম।

_ আম্মু প্লিজ কেঁদোনা সব ঠিক হয়ে যাবে। আল্লাহ কে ডাকো জনী ভাইয়া ঠিক হয়ে যাবে।
সবাই কাঁদছে কাকে সামলাবো? আম্মু তো জনী ভাইয়ার মা। আর এই মুহূর্তে আম্মু বেশী কষ্ট পাচ্ছে। তাই আম্মু কে সিফাত করতে চাইছি। ফরিদ’র উপর রাগ লাগছে। এতদিন এতকিছু ভেবেছে। ২ মাস আগে চাইলে সব ঠিক করতে পারতো ও। কিন্তু না ও প্রতিশোধ নিতে ব্যস্ত ছিলো। ২ ঘন্টা পর ডক্টর বেরিয়ে এলো। ওনার মুখটা কালো করে আছে। এটা দেখে সবাই ভয় পাচ্ছে।

ডক্টর কে দেখে ফরিদ আগে এসে বললো।
_ ডক্টর আমার ভাইয়া কেমন আছে? ও ঠিক হয়ে গিয়েছে না? আমরা দেখা করবো কোথায় ও?
আমি ফরিদ কে দেখে হা হয়ে আছি। ও কি না জনী ভাইয়া কে দেখতে পারতো না। ডক্টর মুখ বেজার করে বললো।
_ আসলে পেশেন্টের গুলিটা। প্রায় হার্টের কাছে লেগেছে। আমরা গুলিটা বের করে দিয়েছি। কিন্তু ওনার এখনো সেন্স আসেনি। অবস্থা খুব ক্রিটিকাল আগামী ২৪ ঘন্টায়। ওনার যদি সেন্স না আসে। তাহলে উনি কোমায় চলে যাবে। আমরা আমাদের সাধ্যমত করেছি। বাকীটা আল্লাহর হাতে। আপনারা আল্লাহ কে ডাকুন।

ফরিদ সাথে সাথে ধপ করে বসে পড়ে। বাচ্চাদের মতো কেঁদে দিলো। আমি অবাক হয়ে ফরিদ কে দেখছি। কেন জানিনা এখন মনে হচ্ছে। আজ যেন ফরিদ বেশী কষ্ট পাচ্ছে। গুটি গুটি পায়ে ফরিদ’র কাছে গিয়ে বসলাম। ওমনি ফরিদ আমার হাত ধরে। হাতের উপর কপাল ঠেকিয়ে বলতে লাগলো।

_ মিম ভাইয়ার কিছু হবেনা তাইনা? ভাইয়া ঠিক হয়ে যাবে। আমি কখনো ভাইয়া কে বুঝিনি। কখনো ভাবিনি ছোট থেকে। আমার সাথে যা হয়েছে সত্যি এতে ভাইয়ার দোষ নেই। ও তো আমাদের সাথে ছিলো না। না জেনে কত কষ্ট দিয়েছি। কত ছোট করেছি। আজ যখন বুঝতে পারলাম। তখন ভাইয়ার এই অবস্থা হয়ে গেলো। আমাদের জন্য নিজে গুলি খেলো। ভাইয়ার কিছু হলে আমি নিজেকে ক্ষমা করতে পারবো না। আমি তো ক্ষমাও চাইতে পারলাম না।

ফরিদ’র কথাগুলো শুনে ওর হাত ধরে বললাম।
_ ফরিদ আল্লাহ যেমন বিপদ দেয়। ঠিক তেমন আল্লাহ’ই রক্ষা করে। আল্লাহ’র উপর ভরসা রাখো। জনী ভাইয়া ঠিক হয়ে যাবে।

এদিকে অনেকক্ষণ একভাবে বসে আছি। তার জন্য আমার খারাপ লাগছে। মাথাটা কেমন যেন ঘুরছে। উঠে দাড়াতে গিয়ে আবার বসে পড়লাম। দাড়িয়ে থাকার শক্তি নেই। ফরিদ এসে আমাকে ধরে ফেললো। আমি ওর হাত সরিয়ে দিলাম। ও বুঝতে পারলো। কিন্তু তবুও আবার হাত ধরে বললো।
_ চলো তোমাকে বাড়ি দিয়ে আসি।

_ আমি একা চলে যেতে পারবো।
বলে উঠে দাড়ালাম। কিন্তু আবার পড়তে গেলেই। ফরিদ হুট করে আমাকে কোলে তুলে নিয়ে হাটা শুরু করে। আমি রেগে নামাতে বললাম। কিন্তু ফরিদ আমাকে নিয়ে গাড়িতে বসিয়ে। কিছু না বলে গাড়ি স্টার্ট দিলো। তাই বাধ্য হয়ে চুপ করে রইলাম।
_ আই এম রিয়েলি ভেরী সরি। আমি জানি আমি ভুল করেছি। আমার তোমার সামনে আসা উচিত ছিলো। কিন্তু আমি আসিনি মিম প্লিজ।

হাত দিয়ে ফরিদ কে থামিয়ে বললাম।
_ চুপচাপ গাড়ি চালাও নাহলে নেমে যাবো।
ফরিদ জোড়ে একটা শ্বাস ছাড়লো। যাকে বলা হয় দীর্ঘশ্বাস। কিন্তু তবুও আমি কিছু বললাম না। বাড়ির কাছে গাড়ি থামালো। সিটবেল্ট খুলে গাড়ি থেকে নেমে। কোনোকথা না বলে রুমে চলে এলাম। আমার পিছনে ফরিদ ও এলো। এসে ঘুরে ঘুরে রুম দেখছে। বুঝলাম ৪ মাস পরে এই রুমে তাই দেখছে। তবুও গম্ভীর কন্ঠে বললাম।

_ তোমার রুম আগের মতোই আছে।
_ আমার না আমাদের ওকে?
বলে ফরিদ ওয়াসরুমে ঢুকলো। আমার খুব খারাপ লাগছে। ইচ্ছে করছে ফরিদ কে শক্ত করে জড়িয়ে ধরতে। কিন্তু পারছি না কারন। ফরিদ আজ আমাকে চরিএহীন বলেছে। সবার সামনে বলেছে। সব মেনে নিতাম নিয়েছিও। কিন্তু এটা মানতে পারছি না। কি করে পারলো? এরকম করতে কি করে? ভাবতে ভাবতে চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়লো।

এরমাঝে ফরিদ বেরিয়ে এলো। তাড়াতাড়ি চোখের পানি মুছে ফেললাম। ফরিদ লাল টি শার্ট আর সাদা প্যান্ট পড়েছে। চুল দিয়ে পানি পড়ছে। মানে শাওয়ার নিয়েছে। একবার দেখে চোখ নামিয়ে নিলাম। ফরিদ আমাকে নিচে নিয়ে এলো। দেখলাম আম্মুও চলে এসেছে। কেঁদে চোখ ফুলে গিয়েছে।

_ মাম্মা ওকে দেখে রেখো। আমি হসপিটালে যাচ্ছি।
এরপর ফরিদ চলে গেলো। আমি বারবার ফোন দিয়ে জেনেছি। জনী ভাইয়ার সেন্স এসেছে কি না। প্রতিবার বলেছে আসেনি। পরেরদিন আবার হসপিটালে চলে এলাম। এসে দেখলাম লিমা ও এসেছে। কথা বলতে গিয়েও বললাম না। লিমা এসেছিলো আমার কাছে। আমি কথা বলিনি আর বলবোও না। ২৪ ঘন্টা হতে চললোকিন্তু সেন্স আসেনি। ডক্টর কে দেখে বাবা বললো।

_ ডক্টর আমার ছেলের সেন্স আসেনি?
_ আই থিংক পেশেন্ট কোমায় চলে গিয়েছে। তাই এখনো সেন্স আসেনি। আমি গিয়ে দেখছি।
হঠাৎ কেউ চিৎকার করে উঠলো। তাকিয়ে দেখলাম খালামনি। কাল বলতে বারন করেছিলাম আম্মু কে। তাহলে কি করে জানলো? কাছে গিয়ে বললাম।
_ খালামনি তুমি এখানে? তুমি কি করে জানলে?

_ আমি তো ওর আরেক মা তাইনা? তাহলে আমাকে কেন বললি না মিম? আমি যদি তোর আঙ্কেল কে নিয়ে না আসতাম। তাহলে তো জানতেই পারতাম না।
বলে খালামনি কান্না করছে। একটুপর একজন নার্স আসলো।
_ মিস্টার জনী’র সেন্স এসেছে। আপনারা দেখা করতে পারেন।

মুহূর্তে সবার চোখ মুখে আনন্দ ফুটে উঠলো। আম্মু আর খালামনি আগে গেলো। আম্মু ফরিদ কে ডাক দিলো। আমরা ও ভেতরে চলে এলাম। ফরিদ আস্তে গিয়ে জনী ভাইয়ার। মাথার পাশে দাড়ালো। জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।

_ আমার কাছে বসবি না?
ফরিদ সাথে সাথে জনী ভাইয়ার পাশে বসলো।
_ আমার জন্য তোকে কষ্ট পেতে হয়েছে না?
ফরিদ জনী ভাইয়ার হাত ধরে। কেঁদে দিয়ে বললো।
_ আই এম সরি ভাইয়া। আমি না বুঝে না জেনে তোকে। অনেক বেশী কষ্ট দিয়েছি। আমাকে ক্ষমা করে দে প্লিজ।

_ না তোকে আমি ক্ষমা করবো না।
জনী ভাইয়ার কথা শুনে অবাক হয়ে গেলাম। আর ফরিদ ও হাত ছেড়ে দিয়ে বললো।
_ আমি বুঝতে পারছি। আমি তোকে হার্ট করেছি। কিন্তু এভাবে বলিস না ভাইয়া।
_ আমি তোকে ক্ষমা করবো না বিকজ। আমি তোর উপর রেগেই নেই।
বলে জনী ভাইয়া হেসে দিলো। আর ফরিদ জনী ভাইয়া কে। জড়িয়ে ধরতে গিয়ে সরে গেলো।
_ সরলি কেন?
_ তোর বুকে গুলি লেগেছে তো। আগে সুস্থ হয়ে যা এরপর জড়িয়ে ধরবো।

এভাবে দুই ভাই হাসাহাসি করছে। ডক্টর জনী ভাইয়া কে বারন করেছে। ফরিদ ও বারন করেছে। কিন্তু ইনি খুচিয়ে খুচিয়ে কথা তুলছে। আর হাসছে ফরিদ ও তাল মেলাচ্ছে। সবার সাথে কথা বলেছে জনী ভাইয়া। আমরা সবাই ওদের দেখছি। হঠাৎ মাম্মা বলে উঠলো।

_ আজ আমি তোর বাবা স্বার্থক রে। আমার দুই ছেলে মিলে গিয়েছে। আমার ফরিদ ফিরে এসেছে। আমরা আর কখনো ওকে কষ্ট দেবোনা। জনী হারিয়ে যাওয়ার পর। ফরিদ কে অনেক কষ্ট দিয়ে ফেলেছি আর না। এখন থেকে আমরা হ্যাপি পরিবার হয়ে থাকবো।
আল্লাহ’র কাছে শুকরিয়া জানালাম। ৪ দিন পর জনী ভাইয়া কে। বাড়িতে নিয়ে আসা হলো। বাড়িতে এসে দেখলাম নিতু কোথাও যাচ্ছে। হাতে ট্রলি ব্যাগ ও আছে। ফরিদ এসব দেখে বললো।
_ নিতু কোথায় যাচ্ছো?

_ আমরা চলে যাচ্ছি ফরিদ। আর আজকে আমরা লন্ডন চলে যাবো।
রোহান পাশ থেকে বললো।
_ পাপা আমি যাবোনা তুমি মাম্মা কে বলো।
বলে রোহান ফরিদ’র কাছে চলে এলো। ফরিদ রোহান কে কোলে নিয়ে বললো।
_ না বাবা তুমি পাপার কাছেই থাকবে।

নিতু রোহান কে নিয়ে বলে উঠলো।
_ না ফরিদ এটা হয়না হতে পারেনা। রোহান তোমার ছেলে না। মিম তোমার ওয়াইফ। আর ও প্রেগন্যান্ট তোমার উচিত। নিজের ওয়াইফ নিজের সন্তানের খেয়াল রাখা।
কেন জানিনা রাগ লাগছে তাই বললাম।

_ লিসেন নিতু যদি ফরিদ’র। ওর বউ, বাচ্চার খেয়াল রাখতে ইচ্ছে হয়। তাহলে সেটা ও নিজে থেকে রাখবে। তোমার কথাতে আমি তো ফরিদ কে। আমার বা আমার বাচ্চার। খেয়াল রাখতে দেবোনা।
বলে রুমে চলে এলাম। রুমে এসে পায়চারী করছি। এরমাঝে গাড়ির শব্দ পেলাম। তাই জানালা দিয়ে নিচে তাকালাম। দেখলাম নিতু চলে যাচ্ছে। মনে মনে খুশি হলাম। তবে ফরিদ’র উপর থেকে রাগ যায়নি।

যাইহোক আস্তে আস্তে জনী ভাইয়া সুস্থ হলো। ১০ দিন পর রুম থেকে চেঁচামিচি শুনে নিচে এলাম। নিচে এসে বুঝলাম রান্নাঘর থেকে আওয়াজ আসছে। রান্নাঘরে এসে আমার চোখ ছানাবড়া। আম্মু কে ডেকে আনলাম। আম্মুর ও আমার মতো অবস্থা। আম্মু আর আমি একজন আরেকজনের দিকে তাকিয়ে। শব্দ করে হেসে দিলাম। ফরিদ ছোট চোখ করে বললো।
_ ওয়াট হ্যাপেন্ড হাসছো কেন?

আমি ওর সাথে কথা বলিনা তাই আম্মু বললো।
_ তোরা দুজন কি করেছিস এসব? ময়দা দিয়ে সাদা ভুত সেজেছিস কেন?
আসলেই তাই রান্নাঘরে এসে দেখি। দুজনের একেবারে ময়দা দিয়ে। খুব বাজে অবস্থা জনী ভাইয়া বলে উঠলো।

_ আমরা তো রান্না করতে চেয়েছিলাম।
আমি আর আম্মু আবার হেসে দিলাম।
_ তোমরা করবে রান্না? সিরিয়াসলি জনী ভাইয়া। আমার কাছে মনে হচ্ছে। আমি যেন কোনো জোকস শুনলাম।

বলে হু হা করে হেসে দিলাম। ফরিদ রাগী গলায় বললো।
_ জাস্ট সাট আপ ওকে? আর তুমি এত হাসছো কেন?
_ তোমাকে বলতে বাধ্য নই। বলে আর এক মুহূর্ত না থেকে চলে এলাম। এভাবেই চলছে ফরিদ আর জনী ভাইয়া। এরা একসাথে থাকলে পুরো বাড়ি মাথায় তুলে নেয়। ফাজিল কারো থেকে কেউ কম না।

আমার সাথে কথা বলে ফরিদ। আমি কোনোকিছু বলিনা। রাতে আমি ঘুমানোর পর। ফরিদ বাবুর সাথে কথা বলে। যদিও বাবু তো পেটে তবুও ফরিদ কথা বলে। আমি অনেক সময় জেগে থাকি তাই শুনে। এইতো দুই দিন আগে রাতে। আমি চোখ বন্ধ করে ছিলাম। হঠাৎ পেটে ফরিদ হাত রেখে বলতে শুরু করলো।

_ বেবী তুই দেখতে পাচ্ছিস? তোর মাম্মা তোর পাপার উপর। কি পরিমান রেগে আছে। মনে হচ্ছে এই রাগ দিয়ে। আমাকে পুড়িয়ে মারবে। তুই তো পেটে আছিস। তুই আর কি বলবি?
বলে পাশে শুয়ে পড়লো। গম্ভীর ভাবে বললাম।

_ এখানে কি করছো? তোমার তো সোফায় থাকার কথা।
ফরিদ মুখ ফুলিয়ে সোফায় চলে গেলো। এটাই করি ওকে সোফায় থাকতে বলেছি। এভাবে আরো ৫ দিন চলে গিয়েছে। রাতে ব্যালকনিতে দাড়িয়ে আছি। আমার ভাল লাগছে না। ফরিদ কে এভাবে দুরে সরিয়ে রাখতে। হঠাৎ কেউ পেছন থেকে জড়িয়ে ধরলো। বুঝলাম এটা ফরিদ ওকে ছাড়িয়ে। চলে আসতে গেলে হাত টেনে ধরে বললো।

_ কোথায় যাচ্ছো?
আমি হাত ছাড়িয়ে বললাম।
_ পারছি না আমি ফরিদ। সব মানতে পারলেও। তুমি আমাকে চরিএহীন বলেছো। এটা মেনে নিতে পারছি না। তোমার জায়গা কাউকে দিতে পারিনি। আমি রাতে জনী ভাইয়ার রুমে যেতাম ঠিকই। সবাই কে দেখানোর জন্য। কারন সবার চোখে আমরা হাজবেন্ড, ওয়াইফ ছিলাম।

কিন্তু আবার এই রুমে চলে আসতাম। এমন একটা রাত নেই যে আমি এখানে থাকিনি। আমার শুধু একটা কষ্ট। তুমি আমার কাছে এসে জানতে চাইতে। কিন্তু না তুমি করলে না সেটা।

_ আমি মানছি আমি ভুল করেছি। তার জন্য আমি ক্ষমাও চেয়েছি। আচ্ছা তুমি বলো তো আমার দোষ কি? কোন ছেলে সহ্য করতে পারবে? যে তার বউ সে মরার। পরেই আরেকজন কে বিয়ে করছে এটা শুনতে? নিজের চোখে রিসেপশন দেখতে? আমি ও পারিনি মানতে।

আর আমি কি জানতাম নাকি? এটা তোমার আর ভাইয়ার নাটক ছিলো। আর সিউলী ওই ছবি দেখিয়েছিলো। এখন তুমি ভাবো সবটা। এরপরও যদি তোমার মনে হয়। আমাকে ক্ষমা করা যায়না। তাহলে আমাকে ক্ষমা করতে হবেনা। আমাকে শুধু আমার বেবীর থেকে দুরে রেখোনা।

ভাঙা গলায় বললো ফরিদ। এবার আমি ভাবছি সত্যিই তো। এতে ওর কি দোষ? ওর জায়গায় যে কেউ থাকলে। হয়তো একই কাজ করতো। আমিই একটু বেশী করে ফেলছি। ৪ মাস পর ওকে ফিরে পেয়েছি। আর দুরে সরিয়ে রাখবো না। ফরিদ চলে যেতে গেলেই জড়িয়ে ধরে বললাম।
_ এখন তুমি কেন যাচ্ছো?

_ তুমি তো আমাকে ক্ষমা করোনি।
_ না ক্ষমা করিনিকিন্তু রেগেও নেই। তোমাকে দুরে সরিয়ে রাখতে পারবো না।
ফরিদ ও আমাকে শক্ত করে বুকে জড়িয়ে ধরলে। মনে হচ্ছে এই জায়গাটা সবচেয়ে নিরাপদ। এভাবে মরন হলেও সিফাতি। ৪ মাস পর ফরিদ’র বুকে মাথা রাখার সৌভাগ্য হলো। পরেরদিন রুমে বসে আচার খাচ্ছি। তখন লিমা হুরহুর করে রুমে এলো।

_ তুই এখানে কেন এসেছিস?
লিমা আমাকে থামিয়ে গরগর করে। জনী ভাইয়া কে ভালবাসে। আমার সাথে কেন কথা বলেনি সব বললো। সব শুনে আমি থ একটুপর খুশিতে গদগদ হয়ে বললাম।
_ ও মাই গড লিমা তুই আমার জা হবি।
লিমা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। তবে বেচারী লজ্জা পেলো। পরে আবার কাঁদো কাঁদো হয়ে বললো।
_ জনী তো আমাকে ভালবাসে না।

আমি ভাব নিয়ে বললাম।
_ আমি আছি না? আমি জনী ভাইয়া কে বোঝাবো। তুই আরেকবার বলবি জনী ভাইয়া কে ওকে?
লিমা রাকিবি হয়ে গেলো। আমি জনী ভাইয়া কে বোঝালাম। এখন তো বিয়ে করতে হবে। সেটা প্রেম করে করুক। বা পারিবারিক ভাবে করুক। আর লিমা যে জনী ভাইয়া কে। অনেক ভালবাসে এটাও বোঝালাম। একটু নরম তো হয়েছে। পরেরদিন গিয়ে রাতে। আমি আর ফরিদ রুমে বসে আছি। ফরিদ তো বেবী আর বেবী। বেবী ছাড়া কথা নেই। তখন লিমা ফোন দিলো। আমি রিসিভ করেই বললাম।
_ ওই বলেছিলি?

_ হ্যা রে বলেছিলাম।
_ কি বললো? তাড়াতাড়ি বল।
_ বললো একটু সময় লাগবে। আমি খুশি হয়ে বললাম।
_ একটু সময় যখন বলেছে। তারমানে জনী ভাইয়া গলছে। আইসক্রিমের মতো গলছে। এবার পুরোটা গললেই। তুই আমার জা হয়ে যাবি। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ এই এসব কি বলছো তুমি? ফোন রেখে ফরিদ কে সব বললাম।
_ বাহ শালিকা আমার ভাবী হয়ে যাবে।
বলে ফরিদ হো হো করে হেসে দিলো। আমিও হেসে দিলাম। আর ভাবছি বেষ্টু আমার ভাবী হবে।


পর্ব ২১

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। ফরিদ এখনো বেঘোরে ঘুমাচ্ছে। অনেকবার ডেকেছি হু করে আবার ঘুম। এবার অন্য উপায় করে উঠাতে হবে। গ্লাসে পানি নিয়ে পাশে বসলাম। লাস্ট আবার ডাক দিলাম। ফলাফল একই তাই গ্লাসের পানি। সম্পূর্ণ ওর মুখে ঢেলে দিলাম। ওমনি ফরিদ লাফ দিয়ে উঠে বসলো। রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে আমার দিকে। আর আমি হেসে কুটিকুটি হচ্ছি। মুখ আর চুল ভিজে গিয়েছে। ফরিদ গাল ফুলিয়ে বললো।

_ এটা কি করলে?
_ তো কি করতাম? তুমি ঘুম থেকে উঠছিলে না। তাই এভাবে ওঠাতে হলো।
_ সবার বউ কি রোমান্টিক। কত রোমান্টিক ভাবে তাদের স্বামী কে জাগায়। আর আমার বউ আস্ত ডাইনি।
আমি চোখ গরম করে তাকালাম। ফরিদ তা দেখে আমতা আমতা করে বললো।
_ ইয়ে মানে তুমি রোমান্টিক হতে পারোনা?

_ না পারিনা ওকে?
বলে রুম থেকে বের হতে গেলাম। ফরিদ বিছানা থেকে নেমে। হ্যাচকা টানে ওর বুকের সাথে মিশিয়ে নিলো। ভ্রু কুঁচকে বললাম।
_ আরে কি করছো?
ফরিদ মুখে বিরক্তি ফুটিয়ে বললো।

_ এইযে দেখলে তো? আমি তোমাকে ধরেছি। কোথায় তুমি লজ্জা পেয়ে। লজ্জা মাখা মুখ নিয়ে বলবে। এই ফরিদ ছাড়ো কি করছো? তা না ভ্রু কুঁচকে বলছো। এই তুমি আর ভ্রু কুঁচকাবে না ওকে?
আমি হো হো করে হেসে দিলাম। ফরিদ ভেংচি কেটে ওয়াসরুমে গেলো। যাওয়ার আগে আমার পেটে চুমু দিয়ে গেলো। এটা নাকি আমাকে না ওর মেয়ে কে দিয়েছে। জনী ভাইয়া ও মেয়ে মেয়ে করে। আর ফরিদ ও তাই বুঝিনা। এরা কি করে বুঝলো ছেলে নাকি মেয়ে। বাট আমি তো ছেলেই চাই। আবার ভাবি আল্লাহ যা দেয় তাতেই আলহামদুলিল্লাহ।

আমি নিচে চলে এলাম। আজকে ভার্সিটিতে যাবো ভাবছি। ওখান থেকে আসার সময় চেকআপ করে আসবো। নিচে এসে দেখলাম জনী ভাইয়া মুখে হাত দিয়ে বসে আছে। আমি পাশে বসে কাশি দিয়ে বললাম।
_ কি ভাবছো ভাসুর মশাই?
জনী ভাইয়া ভ্রু নাচিয়ে বলে উঠলো।
_ এই এটা কেমন নাম?

_ ওমা তুমি তো আমার ভাসুর হও তাইনা?
_ তাই নাকি? হ্যা এটা ঠিক বলেছিস। আমি তো তোর ভাসুর হই। তা ভাসুর কে তুমি করে বলছিস কেন? এখন থেকে আপনি করে বলবি।
হেসে বললো জনী ভাইয়া। টেবিল থেকে একটা আপেল নিয়ে। খেতে খেতে বললাম।
_ হা হা সো ফানি বয়েই গিয়েছে। আমার তোমাকে আপনি বলতে।

_ ভাইয়া তুই কি ওর সাথে পারবি? এই মেয়ে এক নাম্বারের ফাজিল।
ফরিদ শার্টের হাতা ফোল্ড করছে। আর সিরি দিয়ে নামতে নামতে বললো। জনী ভাইয়া না বুঝতে পেরে বললো।

_ কেন ও আবার কি করলো?
_ আরে তুই জানিস না। ও সকালে আমার মুখে পানি মেরে। এরপর ঘুম থেকে উঠিয়েছে।
জনী ভাইয়া হু হা করে হেসে দিলো। আমিও আরেকদফা হাসলাম। ফরিদ মুখ ফুলিয়ে বললো।
_ সবগুলো শয়তান শুধু একটার থেকে আরেকটা বেশী।

_ হ্যা যেমন আমাদের থেকে তুমি বেশী।
বলেই আবার হেসে দিলাম। ফরিদ এবার ধমক দিয়ে বললো।
_ জাস্ট সাট আপ মিম। এত হাসি আসছে কেন? আর এত হাসা ভাল না ওকে? এতে আমার বেবী ব্যথা পাবে।
হঠাৎ জনী ভাইয়ার হাসি মুখ। বেজার হয়ে গেলো জনী ভাইয়া উঠে চলে গেলো। বুঝলাম না কেন? আমি ফরিদ কে ভার্সিটি যাওয়ার কথা বললাম।

_ ওকে তুমি ব্রেকফাস্ট করো। এরপর তুমি আর আমি যাবো।
আমি ব্রেকফাস্ট করতে চলে এলাম। এদিকে জনী ভাইয়া রুমে এসে। ফ্লোরে বসে পড়লো। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে।
_ মানুষ চাইলে কেন সব হয়না? কিছু না হতো অন্তত স্মৃতি তো ভুলতে পারতো। তাহলে আমি সব ভুলে যেতাম। ভুলে যেতাম তোকে তৃশ। ভুলে যেতাম যে আমি। তোর বেবী কে নিজের বলে মেনে নিয়েছিলাম। আমি যে ওকে নিজের সন্তান ভাবি। আমি জানি ফরিদ ওর বাবা।

কিন্তু এই ৪ মাসে ওকে নিজের বলে মেনেছি। তুই সবার সামনে আমার মিথ্যে বউ হলেও। সবাই কে মিথ্যে বউ বললেও। তোর বেবী কে তো সত্যি আমার বেবী বলেছি। আমি তো ভেবেছি ও আমাকে বাবা বলবে। কিন্তু এখন আর বলবে না। এই ৪ মাস তুই যত কষ্ট পেয়েছিস। ঠিক তত কষ্ট আমিও পেয়েছি। সেদিন তুই জিগ্যেস করেছিলি। আমার চোখ লাল কেন? কি করে বলতাম? না চাইতেও চোখ দিয়ে অশ্রু ঝরে। তোকে ভোলার চেষ্টা করছি। কিন্তু বাবা হওয়ার অনুভূতি কি করে ভুলবো?

জনী ভাইয়া কাঁদতে কাঁদতে বললো। আমি আর ফরিদ বেরিয়ে পড়লাম। অনেকদিন হলো ভার্সিটি আসা হয়না। লিমা কে বলে দিয়েছি আসতে। ভার্সিটি আসার পর সবাই। ফরিদ কে ঘিরে ধরেছে। কারন ৪ মাস পর এলো। মেয়েরাও আছে তাই রাগে গা জ্বলছে।
_ ফরিদ বেবী তুমি এতদিন কোথায় ছিলে?

বেবী শুনে তাকালাম। তাকিয়ে দেখলাম সেই তুলি। ভাবছি মেয়েটা এত বেসরম কেন? ফরিদ এর আগে যে থাপ্পর মারলো। তাও আবার সবার সামনে। আবার সেই মুখ উঠিয়ে চলে এসেছে। সবাই কে সরিয়ে সামনে গিয়ে বললাম।

_ তুমি এত বেসরম কেন? লজ্জা সরম কি চা দিয়ে গুলিয়ে খেয়েছো? আর কে বেবী হ্যা? আমার হাজবেন্ড কে তোমার। কোনদিক দিয়ে বেবী মনে হয়? লিসেন মিস তুলি। আই এম মিসেস মিম চৌধুরী। ওয়াইফ অফ ফাহিম চৌধুরী। সো ইউ জাস্ট স্টে এওয়ে ফ্রম মাই হাজবেন্ড।
তুলি ফোস ফোস করছে। মুখ ভেংচি কেটে ফরিদ কে নিয়ে চলে এলাম। লিমা আর ফরিদ হাসছে ফরিদ হাসতে হাসতে বললো।

_ স্বাধে কি আর ডাইনি বলি? বাপরে ডাইনির মতো নিয়ে এলো আমাকে।
রাগে গা জ্বলছে আবার এরা হাসছে চেচিয়ে বললাম।
_ ওই চুপ করবি তোরা? আর এইযে আপনি মিস্টার হাজবেন্ড। আপনাকে যেভাবে মেয়েরা ঘিরে রেখেছিলো। আবার ওই তুলি এসেছে বেবী দিতে। তাইতো নিয়ে এলাম। এই ওয়েট ওয়েট তোমার কি ওখানে। আরো কিছুক্ষণ থাকার ইচ্ছে ছিলো?

ফরিদ চোখ বড় বড় করে বললো।
_ ইস কি যে বলো তুমি। ওখানে থাকতে মন চাইবে কেন? তুমি নিয়ে এসেছো ভাল করেছো।
এবার লিমা কে বলে উঠলো।

_ কি শালিকা শুনলাম তুমি শালিকা থেকে। আমার ভাবী হওয়ার পরিকল্পনা করছো।
লিমা কাশতে শুরু করলো। চোখ গরম করে আমার দিকে তাকালো। আমি সুন্দর করে দাত কেলিয়ে দিলাম। যার অর্থ আমি বলে দিয়েছি। লিমা এবার আমতা আমতা করে বললো।

_ আসলে হয়েছে কি জিজু।
_ হয়নি হবে তুমি আমার ভাবী।
লিমা মনে হলো শকড হয়েছে। একটুপর কাঁদো কাঁদো হয়ে বললো।
_ কি করে হবো জিজু? তোমার ভাই আমাকে পাত্তা দেয়না।
আমি হেসে দিয়ে বললাম।

_ আরে নো টেনশন ঠিক দেবে। আর ভাল ও বাসবে ওকে? আমাকে আর ফরিদ কে দেখ। আমরা তো আগে টম এন্ড জেরী ছিলাম। এখন কি সুন্দর মটু পাতলু হয়ে গিয়েছি।
ফরিদ বিরক্তি নিয়ে বললো।

_ উফ সাট আপ মিম। এটা কোনো লজিক? অলওয়েজ কার্টুন দিয়ে লজিক কেন দাও?
_ দেবো দেবো কার্টুন আমার ফেবারিট। তাই এটা দিয়ে লজিক দেবো।
বলে হনহন করে ক্লাসে চলে এলাম। আমার পেছনে লিমা ও চলে এলো। ক্লাস শেষ করে লিমা বাড়ি চলে গেলো। আর আমরা অন্য ডক্টরের কাছে গিয়ে। চেকআপ করে বাড়ি এলাম।

এভাবে আরো কয়েকদিন কেটে গিয়েছে। এখন আমার প্রেগন্যান্সির ৬ মাস রানিং। বেচারী লিমা কে জনী ভাইয়া এখনো কিছু বলেনি। বিকেলে আমি, ফরিদ, জনী ভাইয়া ছাদে দাড়িয়ে আছি। বাড়ি আর কেউ নেই। বাবা অফিসে আছে। ফুপ্পি আর আম্মু শপিং করতে গিয়েছে। সেটাও আমার বেবীর জন্য। যে কি না এখনো পেটে আছে। এরা পারেও বটে আম্মু তো এখন থেকে প্লান করেছে।

তার নাতি হবে তাকে নিয়ে ঘুরতে যাবে। যাইহোক আমরা ছাদে ছিলাম। আমি দোলনায় গিয়ে বসলাম। ওমনি লিমা ছাদে এলো। লিমা কে দেখে চমকে গেলাম। আমাকে তো বলে আসেনি। আর ওর চোখ মুখ ফোলা। লিমা সোজা এসে জনী ভাইয়ার শার্টের কলার ধরলো। আমি আর ফরিদ হা করে তাকিয়ে আছি।

_ আর কত অপেক্ষা করবো আমি জনী? আমাকে কেন ভালবাসতে পারোনা? প্রায় ২ বছর আগে থেকে তোমাকে ভালবাসি। ২ বছর আগে না হয় আমাকে ভাল না বাসার কারন ছিলো। কিন্তু এখন কি কারন? তুমি তো বললে টাইম লাগবে। আমি তো টাইম দিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম তুমি বলবেকিন্তু না আমি ভুল। আমি আরো অপেক্ষা করতাম জনী। আমি আজ এখানে আসতাম না।

বাবা আমার বিয়ে ঠিক করেছে জনী। বলে লিমা কাঁদতে লাগলো। আমি তো অবাক হয়ে গিয়েছি। ফরিদ অবাক হয়ে বললো।
_ এই মিম ও কি বলে? তুমি ভাবতে পারছো? আমার ভাবীর বিয়ে ঠিক। ফরিদ কে চিমটি কেটে থামিয়ে দিলাম। জনী ভাইয়াও অবাক হয়ে বললো।

_ ওয়াট? এটা সত্যি?
_ হ্যা সত্যি আমি তোমাকে ভালবাসি। তোমাকে ছাড়া কাউকে বিয়ে করবো না। তুমি বলো তুমি আমাকে বিয়ে করবে। যদি না বলো নিজেকে আজই শেষ করে দেবো।
লিমা এসব কি বলছে? জনী ভাইয়া ও চুপ করে আছে। লিমা একটু দুরে গিয়ে পার্স থেকে। একটা বোতল বের করলো। বোতল থেকে আমরা ভয় পেয়ে গেলাম। কারন এটা বিষের বোতল। আমি ধমক দিয়ে বললাম।
_ লিমা আর ইউ ক্রেজি? ওয়াট আর ইউ ডুয়িং ড্যাম ইট?

_ ইয়েস আই এম ক্রেজি। জনী যদি না বলে আমাকে বিয়ে করবে। তাহলে আমি মরে যাবো। আমি আর পারছি না মিম।
_ ভাইয়া প্লিজ ওকে বলে দে ওকে আটকা।
জনী ভাইয়া লিমা কে থামতে বলছে। কিন্তু লিমা যেটা শুনতে চায়। সেটা বলছে না লিমা মুচকি হাসি দিলো। আমার হাত, পা ঠান্ডা হয়ে আসছে। লিমা মুচকি হেসে বোতল খুলে। মুখের কাছে নিয়ে নিলো। জনী ভাইয়া লিমা বলে চিৎকার করলো। লিমা ঠাস করে নিচে পড়ে গেলো। আমি আর ফরিদ শকড হয়ে তাকিয়ে আছি।


পর্ব ২২

লিমা নিচে পড়ে গেলো আমি আর ফরিদ শকড। বিকজ যখন লিমা বিষের বোতল। মুখের কাছে নেয় জনী ভাইয়া। ঝড়ের গতিতে গিয়ে লিমা কে থাপ্পর মারে।
_ কি করছিলে এটা? আর ইউ ম্যাড?

চেচিয়ে বলে ওঠে জনী ভাইয়া। রেগে পুরো বোম হয়ে গিয়েছে। আমি আর ফরিদ চুপ করে আছি। লিমা বেচারী ভয়ে কাঁচুমাচু হয়ে গিয়েছে। হঠাৎ জনী ভাইয়া লিমাে’র হাত চেপে ধরে।
_ এই ভাইয়া কি করছিস?
ফরিদ’র কথা শুনে জনী ভাইয়া। রাগী দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলে।

_ চুপচাপ ওখানেই থাকবি গট ইট?
ফরিদ তাড়াতাড়ি মাথা নাড়ায় মানে হ্যা। জনী ভাইয়া লিমা কে টানতে টানতে। নিজের রুমে নিয়ে বিছানায় ছুড়ে মারে। লিমা ভয়ে ভয়ে বলে।
_ অ জনী কি কি কর করছো?

জনী ভাইয়া হুট করেই। লিমা কে টেনে তুলে লিমাে’র ঠোটে ঠোট ডুবিয়ে দেয়। লিমা চোখ বড় বড় করে ফেলে। লিমা ছাড়ানোর চেষ্টা করতে থাকে। কিন্তু জনী ভাইয়া লিমাে’র দুই হাত। জোড় করে পিছনে ধরে রেখেছে। কিছুক্ষণ পর ছেড়ে দিয়ে বলে।

_ এখনো আমাকে বিয়ে করবে?
লিমা জিগ্যাসু দৃষ্টিতে তাকায়।
_ এইযে জোড় করে তোমাকে কিস করলাম।
লিমা মুচকি হেসে বলে।
_ সো ওয়াট? আমি তো তোমারই।

জনী ভাইয়ার রাগ যেন আরো বেড়ে যায়। একটানে লিমাে’র ওড়না ফেলে। গলায় চুমু দিয়ে একটা কামড় দেয়। লিমা ব্যথায় আহ করে ওঠে। জনী ভাইয়া ছেড়ে দেয়। লিমাে’র চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। জনী ভাইয়া আবার বলে।
_ এখনো বিয়ে করবে আমাকে?

_ বিয়ে আমি তোমাকেই করবো জনী। লাইফে শুধু তোমাকেই ভালবেসেছি। তোমাকে ভালবেসে বুঝেছি ভালবাসা কি। তুমি আমার সাথে যা ইচ্ছে করো না কেন। আমি না মরা অবদি একটা কথা বলবো। তোমাকে ভালবাসি তোমাকে চাই। আমি শুধু তোমার বউ হতে চাই। আমাকে ভালবাসতে হবেনা জনী। শুধু বিয়ে করে তোমার বউ করো। বিশ্বাস করো আমি তাতেই খুশি।

জনী ভাইয়া মনে হয় স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে। নিজে নিজেই ভাবছে। এই মেয়েটা তাকে এত ভালবাসে? লিমা ওড়না নিয়ে দরজা দিয়ে আসতে গেলেই।
_ লিমা আমি তোমাকে বিয়ে করবো।

লিমা দাড়িয়ে পড়ে। লিমা যেন নিজের কান কে বিশ্বাস করতে পারছে না। চট জলদী পিছনে ঘুরে তাকায়। জনী ভাইয়া মুচকি হেসে আবার বলে।
_ আমি তোমাকে বিয়ে করবো। তোমাকে ভাল ও বাসবো। জাস্ট একটু টাইম দাও।

লিমা দৌড়ে গিয়ে জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরে। নিজের অজান্তে জনী ভাইয়া ও জড়িয়ে ধরে।
আমি আর ফরিদ নিজেদের রুমে বসে আছি। ফরিদ আমার দিকে। আর আমি ফরিদ’র দিকে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে আছি। একটুপর ফরিদ বলে উঠলো।
_ আল্লাহ কি দেখলাম?

মুখে বিরক্তি নিয়ে ধমক দিয়ে বললাম।
_ সাট আপ ফরিদ কেন এককথা বলছো বারবার?
ফরিদ দাত কেলিয়ে বলে উঠলো।
_ হাউ লাকি আই এম রাইট? বড় ভাইয়ের রোমান্স দেখলাম।

বলে হু হা করে হাসতে লাগলো। একচুয়েলি জনী ভাইয়া যখন। লিমা কে গরুর মত টেনে নিয়ে গেলো। তখন পিছু পিছু আমরাও যাই। আর গিয়ে আমরা জানালা দিয়ে সব দেখেছি। আর এই ফরিদ সেটা বারবার বলছে। এরমাঝে ফরিদ বললো।

_ এই মিম আমরা তো চলে এলাম। ভাইয়া যদি বিয়ে ছাড়া। বাসর করে ফেলে?
আমি চোখ গরম করে তাকালাম। ফরিদ আমতা আমতা করে বললো।
_ না আমি বলতে চাইছি। যে পরিমান রেগে আছে। ভাবা যায় বলো? কতকিছু করে ফেললো।
রাগে এবার গা জ্বলছে। চেচিয়ে বলে উঠলাম।

_ এত ঢং করছো কেন ফরিদ? তুমি কি ধোয়া তুলসি পাতা? তুমি ও তো কতকিছু করো।
বলে নিজের মুখে নিজে হাত দিলাম। কি বলে ফেললাম এটা? ফরিদ দাত ৩২ টা বের করে আছে। ওই অবস্থাতেই বললো।

_ ওহ মিম বেবী তুমি আমার বউ। আমি যা করি নিজের বউয়ের সাথে করি। লিমা তো এখনো ভাইয়ার বউ হয়নি তাইনা?
উফ আবার সেই এককথা। রেগে গজগজ করতে করতে বললাম।
_ হয়নি তো কি হয়েছে? হয়ে যাবে এখন হাফ বউ। তাই যা করেছে হাফ করেছে। বিয়ের পর ফুল করবে হ্যাপি?

ফরিদ হয়তো ভাবেনি। আমি এমন কিছু বলবো তাই হা করে তাকিয়ে আছে। আমি ভেংচি কেটে ব্যালকনিতে চলে এলাম। ওর কাছে থাকলে আবার সেই এককথা বলবে। একটুপর মনে হলো জনী ভাইয়া ডাকছে। তাই ব্যালকনি থেকে এলাম। ফরিদ আমতা আমতা করে বললো।
_ মিম রাগ করো না একটা কথা বলি?

বিরক্তি নিয়ে বললাম, বলে ফেলো কি কথা?
_ ভাইয়া আমাদের ডাকছে কেন? আমার মনে হয় বাসর করে ফেলেছে। তাই ভয় পেয়ে এখন আমাদের ডাকছে।

আমি আকাশ থেকে পড়লাম। এই ছেলে এসব কি বলছে? রাগী দৃষ্টিতে তাকালাম। ফরিদ কাঁচুমাচু করে বললো।
_ তুমিকিন্তু বলেছো রাগ করবে না।
একটা জোড়ে শ্বাস নিয়ে বললাম।
_ রাগ করছি না চলো নিচে যাই।

নিচে এসে দেখলাম আম্মু আর ফুপ্পি। বাবা ও অফিস থেকে এসেছে। লিমা মাথা নিচু করে দাড়িয়ে আছে। নিচে আসতেই জনী ভাইয়া বললো।
_ মাম্মা আমি সবাই কে একটা কথা বলতে চাই।
ওমনি ফরিদ আগ বাড়িয়ে বলতে গেলো।

_ এই ভাইয়া তুই কি লিমাের সাথে।
আমি ওর মুখ চেপে ধরলাম। জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ তৃশ ও কি বলতে চাইলো? আর তুই ওর মুখ চেপে ধরলি কেন?
ফরিদ কে চোখ গরম দিলাম। এরপর জনী ভাইয়া কে বললাম।

_ ও কিছু বলবে না তুমি বলো। সবাই কে কি বলবে?
_ মাম্মা, পাপা আমি বিয়ে করবো।
সবার মুখ খুশিতে জলজল করছে। আর আমি ভাবছি কাকে বিয়ে করবে? প্রশ্ন মনে চেপে রাখতে না পেরে বলেই ফেললাম।
_ জনী ভাইয়া কাকে বিয়ে করবে?

জনী ভাইয়া মুচকি হেসে। নিজের ডান হাত দিয়ে। লিমাে’র বাম হাত ধরে বললো।
_ লিমা কে বিয়ে করবো।
আমার খুশিতে নাচতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু আমি তো নাচতে পারবো না। তবুও কয়েক লাফ দিলাম। ফরিদ ধরে নিয়ে সোফায় বসিয়ে দিলো। মুখ ভেংচি দিয়ে বসে রইলাম। লিমাে’র রিয়েকশন দেখছি। বাববা বেষ্টু আমার লজ্জায়। লাল, নীল, গোলাপী, বেগুনি হচ্ছে। আম্মু খুশিখুশি বললো।

_ বাহ এতো ভাল কথা। লিমা কে আমার খুব পছন্দ। আমি তো ভাবছিলাম। ওকে আমি তোর বউ করবো।
জনী ভাইয়া আর লিমা। অবাক করা চাহনি দিলো। আর আমি ভাবছি শাশুড়ি আমার। আমাদের চেয়ে এক ধাপ উপরে।
_ আমি কালই লিমাে’র বাড়িতে যাবো।
লিমা কাঁদো কাঁদো হয়ে বললো।

_ ওরে শাশুড়ি আম্মু আমার তো বিয়ে ঠিক।
আম্মু মুখটা আমসত্ত করে বললো।
_ কি বলছো বউমা? তোমার বিয়ে ঠিক হলে আমার। জনী তো দেবদাস হয়ে যাবে।
জনী ভাইয়া হা করে তাকিয়ে আছে। আমি জাস্ট ভাবতে পারছি না। আম্মু এসব বলছে? একটুপর হু হা করে হেসে দিলাম।


পর্ব ২৩

জনী ভাইয়া হা করে তাকিয়ে আছে। আমি জাস্ট ভাবতে পারছি না। আম্মু এসব বলছে? একটুপর হু হা করে হেসে দিলাম। সবাই আমার দিকে তাকিয়ে আছে। কোনোরকম হাসি থামিয়ে বললাম।
_ বাববা আম্মু তুমি তো এক কাঠি উপরে।
_ হ্যা সে তো থাকবোই। আফটার অল আমি তোদের বড়।

আম্মুর কথায় বিষম খেলাম। জনী ভাইয়া কাঁদো কাঁদো হয়ে বললো।
_ বাট মাম্মা লিমাে’র তো নাকি বিয়ে ঠিক?
_ তাতে কি হয়েছে? আমরা কাল যাবো ওদের বাড়ি। ওর বাবা, মা কে বলবো তোদের কথা। ভালমত রাকিবি হলে ভাল নাহলে তুলে নিয়ে আসবি।

আমরা সবাই আম্মুর মুখে এমন কথা শুনে। মনে হলো আকাশ থেকে ধপাস করে পড়লাম। ফরিদ হা করে তাকিয়ে আছে। একটুপর বলে উঠলো।
_ এই ভাইয়া এটা আমাদের মাম্মা তো?
আম্মু ভ্রু কুঁচকে তাকালো। ফরিদ আমতা আমতা করে বললো।
_ না তুমি আজ যেসব ডোজ। আমাদের মত নাদান শিশুদের দিচ্ছো। তাতে আমার যথেষ্ট সন্দেহ হচ্ছে।
জনী ভাইয়া ফরিদ’র কান ধরে বললো।

_ তুই আর নাদান শিশু? ২ দিন পর নাদান শিশুর বাপ হবি।
_ সে তো তুইও হবি এখন কান ছাড়।
লিমা নেকামি করে বললো।
_ শাশুড়ি আম্মু আমার কি হবে? আমিকিন্তু অন্য কাউকে বিয়ে করবো না।
_ খামুশ বউমা তুমি আমার ছেলের বউ হবে। হাজার হোক আমি তো আর। আমার ছেলে কে দেবদাস হতে দিতে পারিনা।

আমি একেবারে ড্রয়িংরুম কাঁপিয়ে হেসে দিলাম। সবার নজর এবার আমার দিকে। ফরিদ আমাকে নিয়ে রুমে চলে এলো। সিদ্ধান্ত হলো কাল আমরা লিমা’দের বাড়ি যাবো। রুমে এসে বিছানায় বসে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিলাম। অবশেষে লিমা জনী ভাইয়া কে পাবে। তবে জনী ভাইয়া বলেছে। আমার ডেলিভারীর আগে বিয়ে করবে না। লিমা ও তাতে সম্মতি জানিয়েছে। আমি বারন করেছিলাম। কিন্তু এরা দুজনই এক টাইপ। তাই আর কি বলবো?

পরেরদিন আমরা লিমা’দের বাড়ি এলাম। লিমা’দের বাড়ি বেশী বড় না। আবার ততটা ছোটও না। আন্টি আমাকে দেখে খুশি হলো। তবে আমার সাথে বাকীদের দেখে অবাক হলো। আমি মুচকি হেসে বললাম।
_ আন্টি আমাদের জরুরী কথা আছে।
_ হ্যা আয় বস লিমা কে ডাকছি।

আন্টি লিমা কে ডেকে আনলো। আমি আন্টির হাত ধরে বললাম।
_ আন্টি আমার কথাগুলো শোনো। জনী ভাইয়া কে তো চেনো। আগে ছিলো খালাতো ভাই। এখন ভাসুরও হয়। যাইহোক জনী ভাইয়া আর লিমা। দুজন দুজন কে ভালবাসে। আমরা ওদের বিয়ের কথা বলতে এসেছি।

আন্টি প্রথমে খুশি হলেও। পরে মুখ কাঁচুমাচু করে বললো।
_ কিন্তু মিম লিমাে’র তো বিয়ে ঠিক করেছি।
_ আরে তাতে কি? যেমন বিয়ে ঠিক করেছেন। তেমন বিয়ে ভেঙে দিন। ওদের বলে দিন লিমা অন্য কাউকে ভালবাসে।
_ একদম ঠিক বলেছো জিজু।

আমরা সবাই ফরিদ আর লিমাে’র দিকে ভ্রু কুঁচকে তাকালাম। দুজনে মুখে হাত দিয়ে বসে রইলো।
এরমাঝে আঙ্কেল বলে উঠলো।
_ কিন্তু এখন এটা কি করে সম্ভব?

_ আঙ্কেল বিয়ে শুধু বিয়ে না। বিয়ে মানে দুটো মনের মিল হতে হয়। সারাকিবীবন তো একসাথে থাকবে। আর এখানে যদি ভালবাসা না থাকে। তাহলে কি করে সুখী হবে? আর লিমা জনী ভাইয়া কে ভালবাসে। ওর সুখ জনী ভাইয়ার সাথে। এখন আপনি ভাবুন আপনি কি করবেন? আপনি নিশ্চই চাইবেন আপনার মেয়ে সুখী হোক।
আঙ্কেল কিছুক্ষণ চুপ থেকে বললো।

_ ঠিক আছে জনী’র সাথেই লিমাে’র বিয়ে হবে।
আমরা হাফ ছেড়ে বাঁচলাম। আঙ্কেল আবার বললো।
_ আমি ওদের বারন করে দেবো। আমার মেয়ে যেখানে সুখী। সেখানেই আমি ওর বিয়ে দেবো। তাহলে বিয়ের তারিখ কবে ঠিক করবি মিম?

_ বাবা আমি আর জনী চাই। মিম’র বেবী হয়ে যাক। এরপর আমরা বিয়ে করবো।
ভেবেছিলাম আঙ্কেল রাকিবি হবেনা। কিন্তু আঙ্কেলও রাকিবি হয়ে গেলো। সত্যি খুব খুশি লাগছে। আমার বেষ্টু আমার সাথে থাকবে। মুচকি হেসে বললাম।
_ বাট আমার মনে হয়। এখন এংগেজমেন্ট করে রাখলে ভাল হয় তাইনা?

সবাই সম্মতি জানালো। সামনের সপ্তাহে এংগেজমেন্ট ডেট ফিক্স করা হলো। লিমা কে দেখে বোঝা যাচ্ছে কত খুশি। আমরা বাড়ি চলে এলাম। পরেরদিন থেকে শপিং শুরু করে দিয়েছে। এক জায়গায় বসে থাকতে রাগ লাগছে। পেট আগের থেকে বড় হয়ে গিয়েছে। লজ্জা লজ্জা লাগে আর এই ফরিদ।

সারাদিন কিছু না কিছু খেতে বলে। না খেলে জোড় করে খাওয়ায়। এতে নাকি ওর বেবী হেলদি হবে। মিম এটা খাও ওটা খাও। দৌড়াদৌড়ি করবে না। এখানে যাবেনা ওখানে যাবেনা। এবার ভাবছি কবে বেবী হবে। আবার আগের মত চলতে পারবো।

দেখতে দেখতে এংগেজমেন্টের দিন চলে এসেছে। কমিউনিটি সেন্টার বুক করা হয়েছে। এংগেজমেন্ট সন্ধ্যায়। সবাই নিজেদের মতো বিজি। আমি সবার সাথে আড্ডা দিচ্ছিলাম। কোথা থেকে ফরিদ এসে রুমে নিয়ে এলো। বিছানায় মুখ কাঁচুমাচু করে বসে আছি। আর ফরিদ রাগী লুকে সোফায় বসে আছে। আমতা আমতা করে বললাম।
_ শু ফরিদ শোনো না।

_ সাট আপ মিম। তুমি এত কেয়ারলেস কেন?
আবার মুখ ফুলিয়ে বসে রইলাম। ফরিদ এক গ্লাস দুধ। একটা ডিম আর প্লেটে কিছু ফল এনে। আমার সামনে দিয়ে গম্ভীর ভাবে বললো।

_ এখন এগুলো সব ফিনিশ করবে। নাহলে মার একটাও মাটিতে পড়বে না।
কাঁদো কাঁদো হয়ে বললাম।
_ কি বললে? তুমি আমাকে মারবে?

_ এগুলো খেতে বলেছি রাইট নাউ।
গাল ফুলিয়ে খাওয়া শুরু করলাম। একচুয়েলি সকাল থেকে কিছু খাইনি। আর ফরিদ কে দেখলে লুকিয়ে থেকেছি। এর জন্য এত রেগে আছে। একটু খানি বললাম।

_ ফরিদ আর খাবোনা প্লিজ।
_ মানে কি মিম? দুধ তো এখনো খাওনি।

চোখ গরম দিয়ে বললো। নাক মুখ শিটকে অর্ধেক দুধ খেলাম। ফরিদ এখনো রাগী লুকে তাকিয়ে আছে। এবার কান্না পেয়ে গেলো। ভ্যা ভ্যা করে কেঁদে দিলাম। ফরিদ হঠাৎ আমি এভাবে কাঁদায় ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। কাছে এসে থামানোর জন্য বললো।

_ মিষ্টিপাখি কাঁদছো কেন? আরে আমি তো তোমাকে বকিনি। তোমাকে তো খেতেই বলেছি জাস্ট।
নাক টানতে টানতে বললাম।

_ তুমি আর আমাকে ভালবাসো না। অলওয়েজ শুধু বেবী বেবী করো। তুমি খুব পচা ফরিদ।
ফরিদ আমাকে বুকে টেনে নিয়ে বললো।

_ আমার কাছে আগে তুমি। এরপর বাকী সব ওকে? না খেলে তো তুমি উইক হয়ে যাবে সোনা। তুমি টাইমলি খেলে তো আমি কিছু বলি না তাইনা?

কান্নার আওয়াজ বাড়িয়ে দিলাম। মানে হলো আমি খাবোনা। ফরিদ মুখটা মিনি বিড়ালের মত করে বললো।
_ আচ্ছা ঠিক আছে কান্না অফ করো। আমি আর জোড় করে খাওয়াবো না।

তাড়াতাড়ি চোখের পানি মুছে নিলাম। ফরিদ চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে আছে। হু তাতে আমার কি?
সন্ধ্যায় লিমা কে সাজানো শেষ। ব্লাক একটা গাউন পড়িয়েছে। গলায় ব্লাক ডায়মন্ড নেকলেস। কানে ঝুমকো, হাতে চিকন চুরি। চোখে মোটা করে কাজল। ঠোটে লাল লিপস্টিক। একদম পুতুলের মতো লাগছে। আমার আর লিমাের জুয়েলারি একই। এগুলো আম্মু দিয়েছে।

আমি ব্লাক শাড়ি পড়েছি। লিমা কে স্টেজে নিয়ে এলাম। স্টেজে এসে আমার চোখ আটকে গেলো। ফরিদ ব্লাক পান্জাবী পড়েছে। ব্লাক প্যান্ট, হাতে ব্লাক ঘড়ি। চুলগুলো স্পাইক করা। চোখে ব্লাক সাইনগ্লাস। মনে মনে ভাবছি। আমার হাজবেন্ড কে জোশ লাগতেছে। পাশে জনী ভাইয়া। দুই ভাইয়ের সাজ একরকম। সব মেয়েরা হা করে দেখছে। রাগে গা জ্বলে যাচ্ছে লিমা কে স্টেজে রেখে। ফরিদ কে নিয়ে চলে এলাম।
_ কি হলো নিয়ে এলে কেন?

ফরিদ’র কথা শুনে চোখ গরম দিয়ে বললাম।
_ আজ কি তোমার এংগেজমেন্ট? এত সাজুগুজু করার কি আছে?
_ সাজুগুজু কোথায় করলাম?
ভেংচি কেটে বললাম।

_ সাজুগুজু করোনি তো কি? সব মেয়েরা চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছে।
ফরিদ ভাব নিয়ে বলে উঠলো।
_ কাম অন মিম বেবী। ইউ নো না? তোমার হাজবেন্ড কিউট, হট। তাই তো সবাই তাকিয়ে থাকে।
অগ্নি দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি। ফরিদ কাঁচুমাচু করে বললো।

_ মুখ ফসকে বেরিয়ে গিয়েছে।

বলে কেটে পড়লো আর আমি হেসে দিলাম। এরপর স্টেজে গেলাম। এবার রিং পড়াবে রিং পড়াতে গিয়ে। জনী ভাইয়া হঠাৎ করে মাথা চেপে ধরলো। ফরিদ তাড়াতাড়ি কাছে গিয়ে বললো।

_ ভাইয়া আর ইউ ওকে?
জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।
_ ইয়েস আই এম ওকে। দেখছিলাম তুই কি করিস?

ফরিদ গাল ফুলিয়ে দাড়িয়ে রইলো। আমরা সবাই হেসে দিলাম। অতঃপর রিং পড়ানো হয়ে গেলো। সবাই ওদের ফরিদেচ্ছা জানালো। আমরা বাড়ি চলে এলাম। দেখতে দেখতে ২ মাস কেটে গিয়েছে। জনী ভাইয়া লিমা কে চোখে হারায়। টাইম পেলেই দেখা করতে চলে যায়। তবে এখনো লিমা কে ভালবাসার কথা বলেনি। ইদানিং শরীরটা খারাপ লাগে আমার। হাটতে চলতে কষ্ট হয়।

নিচে যাচ্ছিলাম ফরিদ যেতে বারন করেছে। কিন্তু আমার ভাল লাগছে না। তাই নিচে যাচ্ছিলাম তখন। শুনতে পেলাম জনী ভাইয়া বলছে।
_ ইয়েস আমিও ভালবাসি লিমা কে। আই লাভ ইউ লিমা। আই লাভ ইউ সো মাচ। আমি কালকেই বলে দেবো তোমাকে।

কথাগুলো শুনে ভাল লাগলো। যাক কাল তাহলে বলবে। হেটে হেটে সিরি দিয়ে নামছি। পেটে কিছুটা ব্যথা করছে। যত সিরি দিয়ে নামছি ব্যথা যেন বাড়ছে। ড্রয়িংরুমে দেখলাম কেউ নেই। কিন্তু এখানেই তো থাকার কথা। এখন সন্ধ্যা হয়ে গিয়েছে। সন্ধ্যায় তো সবাই এখানেই থাকে। এসব ভাবতে ভাবতে। শেষ সিরিতে এসে পা স্লিপ কেটে পড়ে গিয়ে। চিৎকার করে ফরিদ কে ডাকলাম।

ফরিদ রান্নাঘর থেকে দৌড়ে এলো। ফরিদ’র হাতে একটা কেক। কেকটা হাত থেকে পড়ে গেলো। মনে পড়লো আজ আমার জন্মদিন। তারমানে এই জন্য ফরিদ কেক বানাতে গিয়েছিলো।

এদিকে আমার চিৎকারে সবাই চলে এসেছে। আমি ব্যথায় ছটফট করছি। ফরিদ ও পাগলের মতো করছে। মনে হচ্ছে কেউ কলিজা বের করে নিচ্ছে। মনে হচ্ছে আমি আর বাঁচবো না। প্রচুর ব্লিডিং হচ্ছে ফরিদ’র কলার চেপে ধরে বললাম।
_ ফরিদ আমি মনে হয় বাঁচবো না। ডক্টর যদি বলে যে কোন একজন বাঁচবে। তাহলে তুমি আমাদের সন্তান কে বাঁচাবে বলো।

_ চুপ তোর কিছু হবেনা। তুই ঠিক হয়ে যাবি। আমার শুধু তোকে চাই আর কাউকে না। কেউ আমার ভালবাসা না মিম। শুধু। আমার তোমাকে চাই।

এবার যেন নিঃশ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছে। জোড়ে একটা শ্বাস নিয়ে। ফরিদ’র কলার ছেড়ে চোখ বন্ধ করে নিলাম। চোখ বন্ধ করতে করতে শুনতে পেলাম। ফরিদ’র মিম বলে করা চিৎকার। আর ভাবতে লাগলাম। জন্মদিন কি তাহলে আমার মৃত্যুদিন হবে?


পর্ব ২৪

ওটিতে শুয়ে ছটফট করছি। প্রচন্ড ব্যথা করছে তবুও ভাবছি। আমার বেবী যেন সুস্থ থাকে। ফরিদ’র কান্না ফরিদ’র চিৎকারে। বেশীক্ষণ সেন্সলেস হয়ে থাকতে পারিনি। ফরিদ ওটির দরজা ধাক্কাচ্ছে বুঝতে পারছি। এরমাঝে আমাকে ইনজেকশন দিলো। তারপর আর কিছু মনে নেই।

কতক্ষণ পর সেন্স এসেছে জানিনা। আস্তে আস্তে চোখ খুললাম। চোখ খুলে দেখলাম পাশে আম্মু, লিমা, আর শাশুড়ি আম্মু। আমি আমার বেবী কে খুজছি। কোনোরকম বলে উঠলাম।
_ আমার বেবী কোথায়?

একটুপর জনী ভাইয়া তোয়ালে জড়ানো। একটা ফুটফুটে বেবী নিয়ে এলো। পাশেই ফরিদ আমার কাছে দৌড়ে এলো ফরিদ। এসেই আমার হাত ধরে চুমু দিয়ে বললো।
_ মিম তুমি ঠিক আছো? ব্যথা নেই তো?
_ আমার বেবী কে দাও।

জনী ভাইয়া বেবী কে আমার কোলে দিলো। ওকে কোলে নিয়ে মনে হলো। আমার কলিজা ঠান্ডা হয়ে গেলো। ভুলেই গেলাম ওর জন্য কষ্ট পেতে হয়েছে। লিমা মুচকি হেসে বললো।
_ ১ দিন পর তোর সেন্স এলো। আর তুই জানিস? তোর বেবী কে তোর স্বামী। এখনো কোলে নেয়নি।

ফরিদ মাথা নিচু করে ফেললো। আমি চোখ গরম করে তাকালাম। লিমা আবার বলতে শুরু করলো।
_ তোর কন্ডিশেন খারাপ ছিলো। বেবী হয়ে যাওয়ার পরও। তোর সেন্স আসছিলো না। তুই জোড়ে জোড়ে শ্বাস নিচ্ছিলি। জিজু তো রীতিমত ভাংচুর করেছে। নার্স বেবী কে বাইরে এনে বললো।

_ বেবী’রবাবা কে?
ফরিদ জনী ভাইয়া কে দেখিয়ে দিলো। জনী ভাইয়া অবাক চোখে তাকিয়ে আছে। ফরিদ জনী ভাইয়ার কাছে গিয়ে বললো।

_ অবাক হচ্ছিস কেন ভাইয়া? এই বেবীর বাবা তোর হওয়ার কথা ছিলো। আই মিন আমি মরে গেলে। ও তো তোকেই বাবা বলতো। আর আমি জানি তুই ওকে নিজের সন্তান ভাবিস। আর এমনি তে আমার মিম’র কিছু হলে।

ওকে আমি কোনদিন ছুয়েও দেখবো না।
লিমা এতটুকু বলে থামলো। এরপর আবার বললো।

_ তারপর জনী বেবী কে কোলে নিয়েছে। ভাবতে পারবি না। জনী তো খুশি তে কেঁদে ফেলেছে। সবার কাছে বলেছে ওর ছেলে হয়েছে।
আমি মুচকি হেসে ফরিদ কে বললাম।
_ নিজের ছেলে কে কোলে নেবে না?

ফরিদ আমার কাছ থেকে নিয়ে। বেবী কে চুমু খেতে খেতে বললো।
_ এই বেবীর বাবা ভাইয়া। আর ওর পাপা আমি। তুমি মাম্মা আর লিমা মামনি ওকে? জনী ভাইয়া আবার বেবী কে কোলে নিলো।
_ ও আমার ছেলে? আমার ছেলে থ্যাংক ইউ সো মাচ ফরিদ।

ফরিদ গাল ফুলিয়ে বললো।
_ নিজের ভাই কে কেউ থ্যাংস বলে?
সবাই হেসে দিলো। জনী ভাইয়া বেবী কে নিয়ে বাইরে গেলো। সাথে সবাই গেলো এবার আমি বললাম।
_ তুমি এটা কেন বললে?

_ কি বললাম? মানে কিসের কথা বলছো?
_ আমাদের বেবী জনী ভাইয়া কে বাবা বলবে কেন?

_ তাহলে শোনো সেদিন মনে আছে? আমি বলেছিলাম যে তুমি হেসো না। তাহলে বেবী ব্যথা পাবে?
আমি মনে করে হ্যা বললাম। এরপর জনী ভাইয়া সেদিন রুমে গিয়ে কেঁদেছিলো। আর কি বলেছিলো সব বললো। সব শুনে আমার খারাপ লাগছে। তাই আমিও আর কিছু বললাম না। ৩ দিন পর আমাকে বাড়ি নিয়ে এলো। হাটতে চলতে অসুবিধা হয়। তাই রুমেই থাকি সারাদিন।

তবে লিমা আমার কাছে থাকে। আর ফরিদ আর জনী ভাইয়া। এরা তো বেবী কে নিয়ে। সারা বাড়ি ঘুরে বেরায়। ৭ দিন পর বেবীর নাম রাখা হলো সিফাত। সিফাত তে “শ” ও আছে “ত” ও আছে। দেখতে দেখতে ২০ দিন কেটে গিয়েছে।

এখন আমি কিছুটা সুস্থ। দুপুরে গোসল করবো তাই সিফাত কে। ফরিদ’র কাছে রেখে ওয়াসরুমে এসেছি। সিফাত অবশ্য ঘুমিয়ে আছে। তবুও ফরিদ কে থাকতে বলেছি। বলা তো যায়না কখন উঠে পড়ে। এরমাঝে শুনতে পেলাম সিফাত’র কান্না। আর ফরিদ’র কথা।

_ বাবা কাঁদেনা মাম্মা আসুক। এরপর যত ইচ্ছে কাঁদিস।
সিফাত আরো জোড়ে কেঁদে দিলো। আমি হেসে কুটিকুটি হচ্ছি। এবার বোঝো ঠ্যালা সামলাও। সেদিন রাতে যখন কেঁদেছিলো। তখন বলেছিলো বেবী সামলাতে পারোনা? আমি তাড়াতাড়ি গোসল করে নিলাম। দরজা আস্তে খুলে বের হয়ে শুনলাম।

_ আরে বাপ আমার চুপ কর। আমার তো এবার আফসোস হচ্ছে। তোর নাম সিফাত কেন রাখলাম? আসলে তো তুই অসিফাত। তাই তোর নাম অসিফাত রাখা উচিত ছিলো।
ফরিদ’র কথা শুনে রেগে বললাম।
_ হ্যা যেমন তোমার নাম। ফরিদ না রেখে অফরিদ রাখা উচিত ছিলো।

ফরিদ মুখ কাঁচুমাচু করে বললো।
_ একচুয়েলি আমি ওটা বলতে চাইনি। বাট মিম তুমি দেখো। ও কত কান্না করে কেন করে?

আমি গিয়ে সিফাত কে কোলে নিলাম। সিফাত সাথে সাথে চুপ হয়ে গেলো। ফরিদ ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে বললো।
_ কত বড় ফাজিল ছেলে। এতক্ষণ ভ্যা ভ্যা করছিলো। আর তুমি কোলে নিতেই চুপ?
মুখ ভেংচি কেটে বললাম।

_ তুমি নিশ্চই ওকে মারছিলে?
_ এসব কি বলছো? ওকে আমি মারবো? এই মিম ওকে কোথায় মারবো আমি?
আসলেই সিফাত তো ছোট। আবার ভ্যা ভ্যা করে কেঁদে দিলো। বুঝলাম ক্ষিদে পেয়েছে। তাই খাইয়ে দিলাম খাওয়া শেষ হতেই। জনী ভাইয়া এসে নিয়ে গেলো। ফরিদ আমাকে জড়িয়ে ধরলো। চোখ গোল গোল করে বললাম।

_ তোমার আবার কি হলো?
বলতে বলতে ফরিদ। আমার ঠোটে ওর ঠোট ছুয়ে দিলো। আমি চুপ করে ফরিদ কে জড়িয়ে ধরলাম। সন্ধ্যা বেলা সবাই গল্প করছি। আমাদের রুমে আমি, ফরিদ। জনী ভাইয়া, আবির ভাইয়া। সিফাত সবার দিকে তাকাচ্ছে। হয়তো বোঝার চেষ্টা করছে। এরমাঝে হুট করে জনী ভাইয়া চলে গেলো। আমরা কিছু না বুঝে তাকিয়ে রইলাম। ভাবলাম পরে আসতে পারে।

কিন্তু জনী ভাইয়া এলোনা। ওদের বলে গুটিগুটি পায়ে। জনী ভাইয়ার রুমের কাছে এলাম। দেখলাম মুচকি হেসে ফোনে কথা বলছে। বুঝলাম আসল কারন। ইনি তো লিমাে’র সাথে কথা বলছে। আমি আবার চলে এলাম। আরো ২ মাস কেটে গিয়েছে। সিফাত এখন কিছুটা বড়। বাড়ির সবার চোখের মনি। আমার আর কোলে নিতে হয়না। সারাদিন কারো না কারো কোলে থাকে। ফরিদ এখন অফিসে যায়। আর নিজের নামেই গান করে। সবাই এখন ফরিদ কে ওর আসল নামে চেনে। নিশাত হয়ে আর গান করে না।
পরেরদিন সকালে সবাই ব্রেকফাস্ট করছি। এরমাঝে আম্মু বললো।

_ মিম’র বেবী তো হলো। বাড়ি আলো করে দাদুভাই এলো। এবার তাহলে লিমাে’র সাথে। জনী’র বিয়েটা দিয়ে দিতে হবে।
জনী ভাইয়া খেতে খেতে বললো।
_ মাম্মা তাহলে এক কাজ করি। আজকে আমরা গিয়ে ডেট দিয়ে আসি?

ফরিদ বিষম খেলো আমি পানি দিলাম। ফরিদ পানি খেয়ে বললো।
_ তোর নিজের বিয়ের ডেট। তুই নিজে দিতে যাবি?

জনী ভাইয়া ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে বললো।
_ হ্যা এতে অবাক হওয়ার কি আছে? লিমা কে সারপ্রাইজ দেবো।
আমরা মুচকি মুচকি হাসছি। কিন্তু জনী ভাইয়া কেমন রহস্যময় হাসি দিলো। সবার চোখ এড়ালে ও না। আমার চোখ এড়ালো না। রুমে এসে লিমা কে ফোন করে বলে দিলাম।

বিকেলে আমরা ওদের বাসায় গেলাম। আজ আমি, ফরিদ, আম্মু, বাবা। জনী ভাইয়া, ফুপ্পি এসেছি। আর আমাদের গুলুমুলু সিফাত। আন্টি আঙ্কেল বাবা’র সাথে কথা বলছে। লিমা আমার পাশে বসা। এরমাঝে জনী ভাইয়া বললো।

_ ওয়েট পাপা এই বিয়ে হবেনা।
লিমা বসা থেকে দাড়িয়ে গেলো। আমরা সবাই অবাক হয়ে গিয়েছি।
_ জনী ভাইয়া তুমি মজা করছো কেন?

জনী ভাইয়া আমার কথা শুনে হেসে দিয়ে বললো।
_ মজা লাইক রিয়েলি? ওয়েল তৃশ একটা কথা কি জানিস? মজা আমি এতদিন করেছি।
আঙ্কেল এবার রেগে বললো।
_ এসবের মানে কি জনী?

জনী ভাইয়া মুখে বিরক্তি নিয়ে বললো।
_ হেই রাগ দেখাচ্ছেন কাকে? আচ্ছা আপনি বলুন তো। আপনার মেয়ের কি যোগ্যতা আছে। আমার বউ জনী চৌধুরী’র ওয়াইফ হওয়ার? ২ বছর আগে থেকে আমার পিছনে পড়ে আছে। অনেকবার বারন করেছি। ওকে বলেছি যে ওকে ভালবাসি না। সেই তবুও আমার পেছনে পড়ে ছিলো। ভুলেই গিয়েছিলো ও কে? আর আমি কে?

এবার আমার অবাক লাগছে ব্যাপারটা। সেদিন তো জনী ভাইয়া বললো। যে লিমা কে ভালবাসে তাই বললাম।
_ তুমি যদি লিমা কে ভাল না বাসো। তাহলে নিজের রুমে দাড়িয়ে একা বললে যে?
জনী ভাইয়া হু হা করে হাসি দিয়ে বললো।

_ গুড কোশ্চেন তুই শুনেছিলি। বিকজ আমি তোকে শুনিয়েছিলাম। আমি তোকে আসতে দেখেই। ওই নাটক করেছিলাম। বিকজ আমি জানতাম তুই লিমা কে বলবি। আর এই মিডল ক্লাস লিমা। আমার প্রতি আরো উইক হয়ে পড়বে। হলো ও তাই বলেছিলি তো রাইট?

আমি চুপ করে আছি আমি তো বলেছিলাম। আর লিমা তখন কত খুশি হয়েছিলো। জনী ভাইয়া এটা কি করে করতে পারলো?
_ এই মিডল ক্লাস মেয়ে কে। আমি জনী কিছুতেই বিয়ে করবো না। কি যোগ্যতা আছে ওর? এই তোমার কি যোগ্যতা আছে? শুধু ফেস হলেই হয়না ওকে? না আছে ভাল বাড়ি আর না আছে গাড়ি। তোমার তো ওয়েট।

বলে জনী ভাইয়া হাতের রিং খুলে। লিমাে’র দিকে ছুড়ে মারলো। লিমা চোখ বন্ধ করে ফেললো। লিমা যেন পাথর হয়ে গিয়েছে। আম্মু গিয়ে জনী ভাইয়া কে। ঠাস ঠাস করে দুটো থাপ্পর মারলো। থাপ্পর খেয়ে জনী ভাইয়া। চোখমুখ লাল করে বললো।

_ মাম্মা এই মিডল ক্লাস। মেয়েটার জন্য আমাকে মারলে? পাপা তুমি কিছু বলবে না?
_ চুপ কর জনী তুই এত নিচ? যখন তোর মনে এই ছিলো। তাহলে এখানে ডেট দিতে এলি কেন?
_ এই স্টুপিড মেয়েটা কে ওর জায়গা দেখাতে। কোথায় ও আর কোথায় আমি। তৃশে’র সাথে থেকে ও নিজেকে তৃশ ভাবছিলো। তাই ওকে বুঝিয়ে দিলাম ও কি?

_ ছিঃ তোকে নিজের ছেলে ভাবতে লজ্জা করছে।
বাবার কথা শুনে জনী ভাইয়া। রেগে ফোস ফোস করতে করতে বেরিয়ে গেলো। আমাদের কারো মুখে কথা নেই। লিমা ধপ করে বসে পড়লো।


পর্ব ২৫

আমাদের কারো মুখে কোনো কথা নেই। লিমা ধপ করে বসে পড়লো। আমি সিফাত কে ফরিদ’র কোলে দিয়ে। লিমা’কে বসা থেকে উঠিয়ে দাড় করালাম। লিমা কিছু বলছে না ঠিক। কিন্তু ওর চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ছে। ঠোটগুলো ভীষন রকম কাঁপছে। যেন কিছু বলতে চাইছে। কিছুক্ষণ পর লিমা চিৎকার করে কেঁদে উঠলো। আমরা সবাই হতবাক হয়ে তাকিয়ে আছি।

লিমা আমাকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদছে। আমার চোখে ও পানি বুঝতে পারছি ওর কষ্ট। ভালবাসার মানুষটা ছেড়ে গেলে কত কষ্ট হয়। সেটা আর কেউ না জানুক আমি জানি। আমার ফরিদ ও তো দুরে ছিলো। তখন প্রতিটা দিন আমার বিষের মত লেগেছে। সিফাত আমার পেটে না থাকলে হয়তো মরেই যেতাম। জনী ভাইয়া কাছে থেকেও লিমাে’র থেকে দুরে। লিমা কাঁদতে কাঁদতে বললো।

_ মিম আমার কি দোষ বল? জনী কেন এমন করলো? যখন ভালবাসে না আমাকে। তাহলে কেন স্বপ্ন দেখালো? মিম সবাই বলে ভালবাসা নাকি বাঁচতে শেখায়? তাহলে সেই ভালবাসাই যে একটা সময়। মানুষ কে তিলে তিলে যর্ন্তনা দেয়। এটা কেন বলে না? ভালবাসা মানুষ কে স্বপ্ন দেখায়। তাহলে সেই স্বপ্ন যে ভেঙে চুরমার করে দেয়। এটা মানুষ কেন বলে না? বললে আমি ভালবাসতাম না জনী কে।

মিম এখন আমি কি করবো? আমার খুব কষ্ট হচ্ছে রে। আমাকে মেরে ফেল প্লিজ। প্লিজ আমাকে মেরে ফেল। বলতে বলতে লিমা সেন্সলেস হয়ে গেলো। আমরা ওকে ধরে সোফায় শুইয়ে দিলাম। আন্টি কান্নাকাটি করছে। আর করারই কথা একটা মেয়ে। লিমাে’র মুখে পানি ছেটানোর পর সেন্স এলো। বাবা, আম্মু জনী ভাইয়ার হয়ে ক্ষমা চাইলো। লিমা কে বুঝিয়ে রেখে চলে এলাম। আমি থাকতাম বাট সিফাত’র জন্য চলে এসেছি।

ড্রয়িংরুমে বসে আছি আমরা। বাড়িতে পিনপনতা বিরাকিব করছে। অথচ কাল ও আমরা এই বিয়ে নিয়ে কত আনন্দ করেছি। এক নিমিষে সব শেষ হয়ে গেলো। আচ্ছা মানুষের জীবন এমন কেন? আমি এখন ভাবছি। আমি যদি পারতাম সব ঠিক করে দিতাম। অনেকক্ষণ হলো বসে আছি। সিফাত কে খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিয়েছি আরো আগে। বাবা গম্ভীর হয়ে বললো।

_ আমি ভাবতে পারছি না। জনী এতটা নিচ কি করে হলো? ওই মেয়েটার সাথে এটা কি করে করলো?
আমি নিজেও ভাবতে পারছি না। আসলে কি জনী ভাইয়া নাটক করেছে? আমি তো এই জনী ভাইয়া কে চিনিনা।
বাবা, আম্মু কে বুঝিয়ে রুমে পাঠিয়ে দিলাম। কারন রাত হয়ে গিয়েছে। আমরা গিয়েছিলাম সেই বিকেলে। জনী ভাইয়া সেই যে ওখান থেকে বেরিয়েছে। আর এখনো বাড়িতে ফেরেনি। আমি আর ফরিদ রুমে চলে এলাম। এরপর আন্টি কে ফোন করে। লিমাে’র খবর জেনে নিলাম। মেয়েটা একদম ভেঙে পড়েছে।

রাত ১২ টা ব্যালকনিতে দাড়িয়ে। আজকের ঘটে যাওয়া কথা ভাবছি। মনটা খুব বেশী খারাপ। হঠাৎ কাধে কেউ হাত রাখলো। বুঝলাম এটা ফরিদ ছাড়া কেউ না।

_ এরকম কেন হলো ফরিদ? সবকিছু ঠিক থাকলে আজ বাড়িতে। আনন্দের বন্যা বয়ে যেতো। আমরা সবসময় যেটা ভাবি। সেটা কেন হয়না ফরিদ? কেন তার উল্টোটা হয়?

বলতে বলতে আমার চোখ দিয়ে। কয়েকফোট অশ্রু গড়িয়ে পড়লো। ফরিদ আমাকে ওর দিকে ঘুরিয়ে। শক্ত করে জড়িয়ে ধরে বললো।

_ মিম দেখো এটা হয়তো হওয়ার ছিলো। আমরা তো কিছু হওয়া আটকাতে পারিনা। আর তুমি না বলো? আল্লাহ যা করে ভাল’র জন্য করে।

কিছু বললাম না ফরিদ’র বুকে মুখ লুকিয়ে ভাবছি। হ্যা আল্লাহ যা করে সেটা। আমাদের ভাল’র জন্যই করে। কিন্তু আজকের এই ঘটনায় কার ভাল হলো?

এমন সময় ড্রয়িংরুম থেকে। বাবা আর আম্মুর কথা শুনতে পেলাম। ফরিদ’র দিকে তাকিয়ে নিচে চলে এলাম। আমার সাথে ফরিদ ও এলো। ড্রয়িংরুমে এসে একদফা শকড হলাম। জনী ভাইয়া হেলতে দুলতে হাটছে। কিন্তু ঠিকমত হাটতে পারছে না। তারমানে জনী ভাইয়া ড্রিংক করেছে? বাবা চেচিয়ে বললো।
_ এসবের মানে কি জনী?

জনী ভাইয়া ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে বললো।
_ ওফ পাপা কোন সব?
আম্মু ও রেগে গিয়ে বললো।
_ জনী তুই ড্রিংক করেছিস?

জনী ভাইয়া হো হো করে হেসে। মাতালদের মত বললো। অবশ্য মাতালই তো এখন।
_ ও সুইট মাম্মা এন্ড পাপা। ওয়াটস রং উইথ ইউ গাইস? এটা কি নতুন নাকি? এমন তো না এই বাড়িতে এটা নতুন হচ্ছে। ফরিদ ও তো আগে এটাই করতো। ড্রিংক করতো লেট নাইট পার্টি রাইট? সো তোমরা এত চমকাচ্ছো কেন?

ফরিদ মাথা নিচু করে ফেললো। হয়তো কষ্ট পেয়েছে। ফরিদ তো এখন এটা করেনা। আমি সামনে গিয়ে বললাম।
_ জনী ভাইয়া তুমি ড্রিংক করেছো?
_ হ্যা করেছি বেবী তুই কি রেগে যাচ্ছিস?

জনী ভাইয়ার কথা শুনে অবাক হয়ে বললাম।
_ এভাবে কথা বলছো কেন? আর তুমি আগে তো ড্রিংক করতে না।
জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।

_ আগে করতাম না এখন করছি করবো। আগের জনী আর এই জনী। আকাশ পাতাল ডিফরেন্স। এনিওয়ে বাই গাইস, গুড নাইট।

আমরা হতবাক হয়ে দেখছি। একটা মানুষ এত চেন্জ কি করে হলো? সেটাও মাএ একদিনে। এই একদিনে কি এমন হলো? তবে হতাশ হওয়া ছাড়া আর কি করবো? জনী ভাইয়া তো ছোট বাচ্চা না। ওকে কি করে বোঝাবো? একরাশ হতাশা নিয়ে রুমে চলে এলাম। এমন কেন হচ্ছে?

সকালে ঘুম থেকে উঠে। আগে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। ফরিদ আর সিফাত দুই বাপ ব্যাটা ঘুমে আছে। আমি এটা বুঝতে পারিনা। সব বাচ্চারা ফজরের সময় উঠে আর নাকি ঘুমায় না। আর আমার ছেলে এ তো একদম ফরিদ’র মত।

দুজন এক টাইমে ওঠে। আয়নার সামনে দাড়িয়ে। লম্বা চুলগুলো খোপা করছিলাম। হঠাৎ ফরিদ জড়িয়ে ধরেই গলায় মুখ ডুবালো। চুপচাপ দাড়িয়ে আছি। একে মাএ দেখলাম ঘুমানো। আর এখন এসেই শুরু হয়ে গিয়েছে। বিরক্তি নিয়ে বলে উঠলাম।

_ তুমি না মাএ ঘুমানো ছিলে?
_ হ্যা সোনা মাএ ঘুমানো ছিলাম। মাএই ঘুম থেকে উঠলাম। আর মাএই রোমান্স স্টার্ট করবো।
বলে ফরিদ ঠোট কামড় দিলো নিজের। আমি বুঝতে পারলাম। এনার মনে আসলে কি চলছে।

তাই যেই সরতে যাবো ওমনি। ফরিদ আমাকে টেনে ধরলো। এরপর একটু একটু করে। আমার ঠোটের দিকে আগাতে লাগলো। আমি চোখ বন্ধ করে ফেললাম। এরমাঝে সিফাত কান্না শুরু করলো। ফরিদ কে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে। তাড়াতাড়ি সিফাত কে কোলে নিলাম।

_ এই যে বাবা কাঁদেনা। মাম্মা চলে এসেছে সিফাত তো গুড বয় তাইনা?
_ গুড বয় না ছাই ব্যাড বয়।

ফরিদ’র কথায় ভ্রু কুঁচকে তাকালাম। ফরিদ গাল ফুলিয়ে বললো।
_ এই ছেলেটা অলওয়েজ। নিজের মাম্মা, পাপার রোমান্সে। ঘোরতর বাধা সৃষ্টি করে।
আমি হু হা করে হেসে দিলাম। ফরিদ ভেংচি কেটে ওয়াসরুমে গেলো। আমি সিফাত কে ফ্রেশ করিয়ে নিচে নিয়ে এলাম।

নিচে আসতেই জনী ভাইয়া ওকে কোলে নিয়ে। হনহন করে নিজের রুমে চলে গেলো। আমি ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম। বিকজ অন্য সময় আগে কথা বলে। এরপর সিফাত কে কোলে নেয়। আর আজ কিছু না বলে নিলো। জনী ভাইয়ার ভাবগতি বুঝতে পারছি না। ফরিদ নিচে এসে বললো।

_ মিম সিফাত কোথায়?
_ জনী ভাইয়া নিয়ে গিয়েছে।
বলে সোফায় বসে পড়লাম। আজকে ভার্সিটি যেতে হবে। একটা ইমপরটেন্ট নোট দেবে। সামনের পরিক্ষায় কাজে লাগবে। আর নোট দিয়ে ক্লাসও করাবে। কিন্তু যাওয়ার মুড নেই। কারন আমি জানি লিমা আসবে না। মুখ ফুলিয়ে বসে আছি ফরিদ বললো।

_ মিম কি ভাবছো?
_ ফরিদ আজ ভার্সিটি যেতে হবে।
_ ওকে দেন চলো আমি নিয়ে যাচ্ছি।
_ কিন্তু সিফাত ওকে রেখে কি করে যাবো?
_ ওকে রেখে যাবোনা তো নিয়ে যাবো।

ফরিদ’র সাথে কথা বলে। সিফাত কে নিয়েই ভার্সিটি তে এলাম। ভার্সিটি তে এসে আমি অবাক। লিমা হাসি মুখে দাড়িয়ে আছে। আমাদের দেখে ছুটে এসে সিফাত কে নিলো।

_ বাবা মামনি কে মিস করোনি? মামনিকিন্তু অনেক মিস করেছে তার ছেলে কে।
আমি আর ফরিদ দুজন দুজনের দিকে তাকাচ্ছি। লিমা মুচকি হেসে বললো।
_ মিম চল আমরা ক্লাসে যাই।

সিফাত কে ফরিদ’র কাছে রেখে ক্লাসে যাচ্ছি। ভার্সিটির প্রায় সবাই সিফাত কে আদর করছে। হঠাৎ চোখ গেলো তুলি’র দিকে। মুখে কেমন রাগ ফুটে আছে। এই রাগের মানে আমার অজানা নয়। নোট নিয়ে ক্লাস করে বাড়ি চলে এলাম।

এভাবে কয়েকদিন কেটে গিয়েছে। জনী ভাইয়া রোজ রাতে ড্রিংক করে বাড়ি আসে। বাবা, আম্মু অতিষ্ট হয়ে গিয়েছে। বাবা তো জনী ভাইয়া কে একদম সহ্য করতে পারেনা। জনী ভাইয়া বাড়ি বসেও ড্রিংক করে। রাত ১১:৩০ টা ড্রয়িংরুমে বসে আছি। আজ বাবা প্রচুর রেগে আছে। তাই কি না কি করে বসে এরজন্য বসে আছি। এরমাঝে জনী ভাইয়া হেলতে দুলতে বাড়ি ঢুকলো।

জনী ভাইয়া কে দেখে আকাশ থেকে পড়লাম। চুলগুলো উস্কো খুস্কো শার্টের বোতাম কয়েকটা খোলা। বুকে লিপস্টিকের দাগ। ঠোটের দিকেও লিপস্টিক স্পষ্ট। বাবা গিয়ে জনী ভাইয়া কে থাপ্পর মেরে বললো।
_ এসব কি জনী? কি করে এসেছিস তুই?

জনী ভাইয়া হেলতে দুলতে বললো।
_ ইনজয় উইথ গার্লস ড্যাড। এটা এমন কি বলো? আফটার অল আই এম জনী চৌধুরী। ওয়েট বাইরে একজন আছে। হেই বেবী কাম প্লিজ।

জনী ভাইয়া বলতেই একটা মেয়ে ঢুকলো। যার পড়নে শর্ট টপস। যার কারনে হাটু বেরিয়ে আছে। পায়ে হাই হিল মেয়েটার লিপস্টিক ছড়ানো। মেয়েটাও হেলতে দুলতে ঢুকে এসে। জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। জনী ভাইয়া ও জড়িয়ে ধরলো। আমি জাস্ট থ হয়ে দেখছি।

বাবার আর সহ্য হলো না। বাবা মেয়েটা কে বের করে দিয়ে। একটানে জনী ভাইয়া কে সোফায় ফেলে। প্যান্টের বেল্ট দিয়ে মারতে লাগলো। আম্মু নিঃশব্দে কেঁদে যাচ্ছে। জনী ভাইয়া চুপচাপ আছে। ফরিদ গিয়ে আটকালো বাবা কে। আমি বুঝতে পারছি না এসব কেন হচ্ছে? কার নজর লাগলো আমাদের সংসারে?


পর্ব ২৬

আমি ভাবছি কেন এমন হচ্ছে? আমাদের সুখের সংসারে। কার কু নজর পড়লো? বাবার চিৎকারে ভাবনা থেকে ফিরলাম। আর সামনে দেখে তো আমি অবাক। জনী ভাইয়া বাবার হাতের বেল্ট ধরে রেখেছে। বাবা ছাড়িয়ে আবার বারি দিতে গেলো। জনী ভাইয়া আবারও বেল্ট ধরে। চোখ মুখ লাল করে বললো।

_ ব্যাস এনাফ আই সেইড এনাফ ইজ এনাফ পাপা। ওয়াট ইউ থিংক এবাউট মি? তুমি যা করবে আমি সেটাই মেনে নেবো? যদি তুমি এটা ভেবে থাকো। দেন আই এম টেলিং ইউ। ইউআর রং এন্ড ইউআর আইডিয়া ইজ। এবসুলিউটলি রং গট ইট? নেক্সট টাইম আমাকে মারার ট্রাই করবে না। ডোন্ট ইউ ট্রাই টু ডু দিস। ডিসগাস্টিং পাবলিক।

বলে জনী ভাইয়া হেলে দুলে চলে গেলো। বাবা ওখানেই থম মেরে আছে। বুঝতে পারছি বাবা কষ্ট পাচ্ছে। নিজের ছেলে যদি এমন করে। চোখের সামনে একটু একটু করে এভাবে বদলে যায়। সেটা কোনো বাবা, মা সহ্য করতে

পারবে না। বাবা ও পারছে না। বাবা ধপ করে সোফায় বসে পড়লো। ফরিদ গিয়ে বাবা কে বললো।
_ পাপা তুমি কষ্ট পেয়োনা। দেখবে সব ঠিক হয়ে যাবে। আমরা সবাই আগের মতো থাকবো। এই বাড়িটা আবার আগের মতো হয়ে যাবে। ভাইয়া ও ঠিক ওর ভুল বুঝবে।

ফরিদ’র কথা বলার মাঝে। বাবা উঠে চলে গেলো। বাবার পিছু পিছু আম্মু ও চলে গেলো। ফরিদ একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে। আমার দিকে তাকিয়ে রুমে চলে গেলো। ফরিদ’র সাথে আমিও চলে এলাম। সবকিছু কেমন বিষাদ লাগছে। অথচ কয়েকদিন আগেও সব ঠিক ছিলো।

সকালে সিফাত কে নিয়ে। ড্রয়িংরুমে বসে আছি সিফাত আ আ করছে। হয়তো কথা বলার চেষ্টা করছে আমার ছেলেটা। বাবা ব্রেকফাস্ট করছিলো। এমন সময় জনী ভাইয়া নেমে এলো। গায়ে পুলিশের ইউনিফর্ম। সব ঠিক আছেকিন্তু হাতে সিগারেট। সিগারেট খেতে খেতেই সিরি দিয়ে নামছে। আমি হা করে তাকিয়ে আছি।

এই কি সেই জনী ভাইয়া? যে কি না সিগারেট সহ্য করতে পারতো না। আজ কি না নিজে সিগারেট খাচ্ছে। জনী ভাইয়া এসে সিফাত কে নিতে চাইলো। কিন্তু আমি দিলাম না। জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ ওয়াট হ্যাপেন্ড তৃশ? সিফাত কে দিলি না কেন?
রাগী কন্ঠে বলে উঠলাম।

_ আমার ছেলে কে আমি তোমার কাছে দেবো না।
জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।
_ ও বুঝি আমার ছেলে না?

_ না ও তোমার ছেলে না। আর যাইহোক তোমার মত একজন। আমার ছেলের বাবা হতে পারেনা। আর তুমি কি হ্যা? এই সিফাত’র প্রতি তোমার ভালবাসা? যে তুমি সিগারেট নিয়ে ওর সামনে এসেছো?
জনী ভাইয়া আমার কথা শুনে। হু হা করে হেসে দিয়ে বললো।

_ তো তোর কি মনে হয়? তোর ছেলের জন্য আমি এই। সিগারেট ফেলে দেবো?
বলে আবারও হেসে দিলো। আর আমি শুধু অবাক হয়ে দেখছি। জনী ভাইয়া সিগারেট টানতে টানতে চলে গেলো। আমি আবার বসে পড়লাম। ভাবছি আসলেই জনী ভাইয়া চেন্জ হয়ে গিয়েছে।

২দিন পর আমরা বসে আছি। জনী ভাইয়া একপাশে বসে সিগারেট টানছে। এরমাঝে লিমা এসে হাজির হলো। লিমা কে দেখে আমরা অবাক হলাম। লিমা মুচকি হেসে ভেতরে এসে। আম্মু আর বাবা কে সালাম করলো। জনী ভাইয়া লিমা কে দেখে রেগে এসে বললো।

_ তুই এত বেহায়া কেন হ্যা? এতকিছু হয়ে গেলো তোকে এত ইনসাল্ট করলাম। সেই আবার মুখ উঠিয়ে চলে এলি?
জনী ভাইয়ার মুখে তুই শুনে। লিমা কিছু বললো না শুধু হাসলো। হেসে দিয়েই বললো।

_ আমি এখানে থাকতে আসিনি ভাইয়া।
লিমা জনী ভাইয়া কে ভাইয়া বলছে। এটা শুনে জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ এই মেয়ে কে তোর ভাইয়া?

_ বাহ বেশ ভাল অধঃপতন হয়েছে আপনার। যাইহোক আন্টি এটা রাখুন।
একটা কার্ড দিয়ে বললো। কার্ডটা দেখে আম্মু বলে উঠলো।

_ এটা কিসের কার্ড?
_ আন্টি আমার বিয়ের কার্ড। ৩দিন পর আমার বিয়ে। কালকে এংগেজমেন্ট পরশু গায়ে হলূুদ। আর তারপরের দিন বিয়ে। আপনাদের সবার আসতে হবে। সেই কমিউনিটি সেন্টারেই। যেখানে আমার আগে এংগেজমেন্ট হয়েছিলো। সবাই আসবেন আমার রিকোয়েস্ট।

আম্মু ছলছল চোখে লিমাে’র গালে হাত রাখলো।

_ আমরা অবশ্যই আসবো মা। আমি তো তোকে মেয়ের মতো ভালবেসেছি। মিম কে যেমন ভালবাসি। তোকেও তেমন ভালবেসেছি। তুই যে সব ভুলে নতুন করে। নিজের জীবন গুছিয়ে নিয়েছিস এতেই খুশি আমরা।

আম্মুর কথায় লিমা হাসলো। এরপর জনী ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে বললো।
_ আপনিও আসবেন ভাইয়া। মিম’র বেষ্ট ফ্রেন্ড হিসেবে। আমার বিয়েতে আপনিও থাকবেন। আজ আমি আসছি বাই।

লিমা বাড়ি থেকে চলে গেলো। কার্ডটা খুলে হাতে নিলাম। ছেলের নাম দেখে অবাকই হলাম। কারন এই ছেলের সাথে লিমাে’র বিয়ে ঠিক হয়েছিলো। যেটা জনী ভাইয়ার জন্য ভেঙে দিয়েছিলো। তাহলে সেখানেই লিমাে’র বিয়ে। ডক্টর আহানে’র সাথে। জনী ভাইয়ার দিকে তাকালাম। জনী ভাইয়ার কোনো হেল দোল নেই। একমনে সিগারেট টানছে। কিছু না বলে রুমে চলে এলাম।

পরেরদিন রেডি হয়ে নিচে এলাম। আজ লিমাে’র এংগেজমেন্ট। আন্টি আঙ্কেলও ফোন করে যেতে বলেছে। আমাদের বাড়ি থেকেও আম্মু, বাবা, ভাইয়া যাবে। ফরিদ নেমে আসতেই আমরা বেরিয়ে গেলাম। জনী ভাইয়া ড্রয়িংরুমে সিগারেট টানছে। গাড়ি নিয়ে পৌছে গেলাম কমিউনিটি সেন্টারে। ভেতরে গিয়ে বাড়ির সবার সাথে দেখা হলো। ভাইয়া এসেই সিফাত কে কোলে নিলো। কোলে নিয়ে চলে গেলো।

আমি বাবা আর আম্মুর সাথে কথা বলে। লিমাে’র কাছে চলে এলাম। আজও লিমা কে পুতুল লাগছে। লিমা আমাকে জড়িয়ে ধরলো। তবে এই লিমা কে দেখে বোঝা যাচ্ছেনা। ওর মনে আসলে কি চলছে তাই বললাম।
_ লিমা তুই নিজের ইচ্ছেতে বিয়ে করছিস?

লিমা মুচকি হেসে দিয়ে বললো।
_ অবভিয়েসলি কেন বল তো?
_ তুই তো জনী ভাইয়া কে ভালবাসিস। তাহলে আহান কে কি করে বিয়ে করছিস?

লিমা মুখে রাগ ফুটিয়ে বলে উঠলো।
_ ভুল বললি মিম ভালবাসতাম। এখন আমি নিজের উডবি হাজবেন্ড কে ভালবাসি।
_ আমি চাই তুই সুখে থাক।

বলে সিফাত কে খুজতে চলে এলাম। খুজতে খুজতে একদিকে তাকিয়ে। আমার চোখ ছানাবড়া হয়ে গেলো। আমার গুনধর ভাইয়া একটা মেয়ের সাথে। হাত ধরে হেসে হেসে কথা বলছে। আর মেয়েটা সিফাত কে আদর করছে। পা টিপে টিপে কাছে গিয়ে কর্কশ গলায় বললাম।

_ এখানে কি করিস ভাইয়া?
ভাইয়া ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে বললো।

_ দেখতে পারছিস না প্রেম করছি।
ভাইয়ার কথা শুনে আমি থ। আর মেয়েটা কাশতে শুরু করে দিলো। আমি মুখ চুপসে বললাম।
_ এই আপুটা কে ভাইয়া?
_ ও ডক্টর আহানিতা খাঁন। লিমাে’র উডবি হাজবেন্ড। ডক্টর আহান খাঁনে’র বোন। আমরা একই হসপিটালে আছি এখন।

ভাইয়া’র ডাক্টারী পড়া শেষ হয়ে গিয়েছে। মেয়েটা আসলেই কিউট অনেক। কয়েক মিনিটি ওর সাথে মিশে গেলাম। আপু করে বলছি ভাইয়া গলা খাকারী দিয়ে বললো।

_ আপু কি হ্যা? সি ইজ মাই গার্লফ্রেন্ড সো ভাবী বল।
_ আবির মিথ্যে কেন বলছো? মিম আমরা বেষ্ট ফ্রেন্ড।

আহানিতা আপুর কথায় আমি হেসে দিলাম। ভাইয়া সিফাত কে আমার কাছে দিয়ে। গাল ফুলিয়ে চলে গেলো। আহানিতা আপুও পিছনে পিছনে গেলো। এরমাঝে ফরিদ এসে রাগী ভাবে বললো।
_ কোথায় থাকো হ্যা? কখন থেকে খুজছিলাম।

_ কেন খুজছিলে?
ফরিদ আমার কোল থেকে। সিফাত কে নিয়ে চুমু দিয়ে বললো।
_ আমার ছেলে কে মিস করছিলাম।
ভেংচি কেটে বললাম।

_ এখন তো ছেলেকেই মিস করবে। বউ তো পর হয়ে গিয়েছে।
ফরিদ আমাকে টান দিয়ে। ওর বুকের সাথে মিশিয়ে বললো।

_ আগেই বলেছি আগে তুৃমি এরপর সব।
_ ফরিদ এখানে সবাই আছে।
বলে সরে এলাম এরপর স্টেজে গেলাম। আহান কে আর লিমা কে পাশাপাশি বসানো হয়েছে। ছেলেটা যথেষ্ট হ্যান্ডসাম আছে। দেখতে দেখতে ওদের এংগেজমেন্ট হয়ে গেলো।

আমরাও বাড়িতে চলে এলাম। আসতে আসতে রাত হয়ে গিয়েছে। সিফাত গাড়িতেই ঘুমিয়ে পড়েছে। সিফাত কে রুমে শুইয়ে দিলাম। আমি আর ফরিদ ফ্রেশ হয়ে নিচে এলাম। নিচে এসে টিভি চালু করে চ্যানেল পাল্টাচ্ছি। একটা চ্যানেলে দিতেই শকড হয়ে গেলাম। সবার মনে হয় পায়ের তলার মাটি সরে গেলো।

বিকজ টিভি তে ব্রেকিং নিউস দেখাচ্ছে। সেটাও জনী ভাইয়া কে নিয়ে।
_ আজকের ব্রেকিং নিউস। শহরের বিখ্যাত বিজনেস টাইকুন। আরসাল চৌধুরী’র বড় ছেলে। ইন্সপেক্টর জনী চৌধুরী কে। নাইট ক্লাব থেকে ড্রিংক করে বাজে মেয়েদের সাথে। রাত কাটানোর জনীযোগে পুলিশ এরেস্ট করেছে।

পুলিশ গিয়েছিলো তাদের কাজে। কিন্তু সেখানে গিয়ে জনী চৌধুরী কে। একটা মেয়ের সাথে ঘনিষ্ট অবস্থায় পাওয়া যায়। জানা গিয়েছে মেয়েটা এর আগেও। অনেক ছেলের সাথে রাত কাটিয়েছে। জনী চৌধুরী কি করে এটা করলো? যেখানে জনী চৌধুরী নিজেই একজন পুলিশ অফিসার।

এতটুকু শুনে টিভি অফ করে দিলাম। বাবার ফোনে অলরেডি কলের ঝড় বইছে। বাবা ফরিদ কে নিয়ে বেরিয়ে গেলো। আমি আর আম্মু পায়চারী করছি। আম্মু কান্না করছে খুব। ৩ ঘন্টা পর বাবা আর ফরিদ এলো। সাথে জনী ভাইয়া আম্মু গিয়ে জনী ভাইয়া কে থাপ্পর মারলো।

বাবা জনী ভাইয়া কে টান দিয়ে সোফায় ফেলে বললো।
_ তোকে আমার ছেলে ভাবতে ঘৃনা হচ্ছে। যখন তুই হারিয়ে গেলি। তখন ভাবতাম কবে তোকে পাবো? আর আজ মনে হচ্ছে কেন তোকে পেলাম? তোকে ছাড়িয়ে এনেছি নিজের সম্মানের জন্য। আমরা সবাই তোকে ঘৃনা করি। তোর মতো ছেলে থাকার থেকে না থাকা ভাল।
বলে বাবা আম্মু কে নিয়ে চলে গেলো। আমি আর ফরিদ ও চলে এসেছি।


পর্ব ২৭

আমরা সিরির উপরে আসতেই। জনী ভাইয়া কাশতে শুরু করলো। আমি দাড়িয়ে পড়লাম এভাবে কেন কাশি দিচ্ছে দেখতে। জনী ভাইয়া কাশতে কাশতে দুই হাত। নিজের মুখের কাছে নিয়ে গেলো। এরপর হাত দুটো সামনে এনে মুচকি হাসলো। উপর থেকে ঠিকমত বোঝা যাচ্ছেনা। নিচে যেতে চাইলামকিন্তু ফরিদ আমাকে। রুমে এনে দরজা বন্ধ করে দিলো। আমি রুমে বসেই ভাবছি।

জনী ভাইয়া হাত দেখে হাসলো কেন?
সকালে লিমা বারবার ফোন করছে। ওর গায়ে হলুদ সন্ধ্যায়। অথচ এখনি যেতে বলছে। ফরিদ এখন যেতে বারন করেছে। অত মানুষের ভীরে সিফাত ভয় পায়। লিমা কে বুঝিয়ে বললাম সন্ধ্যার আগে পৌছে যাবো। তাছাড়া বাড়ির পরিবেশ ও তো ভাল না। কারো মন মেজাজ ঠিক নেই।

কেমন থমথমে হয়ে গিয়েছে। যেটুকু হাসি আছে তা সিফাত’র জন্য। এমন সময় দেখলাম খালামনি এসেছে। খালামনি জনী ভাইয়া কে ডাকতে শুরু করলো। জনী ভাইয়া সিরি দিয়ে। মুখ দিয়ে সিটি বাজাতে বাজাতে নেমে এলো। খালামনির সামনে গিয়ে বললো।

_ কি হলো? এভাবে ডাকছো কেন?
ওমনি খালামনি জনী ভাইয়া কে থাপ্পর মারলো।
_ ওয়াট দ্যা হেল? যার যখন ইচ্ছে হচ্ছে। আমাকে থাপ্পর মেরে যাচ্ছে। আমি ওয়ার্নিং দিচ্ছি নেক্সট টাইম। কেউ আমাকে থাপ্পর মারাতো থাক দুরে। আমাকে টাচ করারও ট্রাই করবে না।

জনী ভাইয়া রাগে ফুসতে ফুসতে বললো। সবাই তো জানে জনী ভাইয়া। কতটা পাল্টে গিয়েছে আজ খালামনিও জানলো।

_ এর জন্য তোকে মানুষ করেছিলাম জনী?
খালামনির কথায় মুখে বিরক্তি নিয়ে। জনী ভাইয়া বলে উঠলো।
_ নট জনী রাকিব চৌধুরী ওকে? সন অফ আরসাল চৌধুরী। এখন আপনি আসুন যান এখান থেকে।
খালামনি কাঁদতে কাঁদতে চলে গেলো। সন্ধ্যায় হাটতে হাটতে ছাদে গেলাম।

_ জাস্ট সাট আপ তুলি। তোমার সাহস কি করে হয়? আমার সাথে এমন করার? আমার পরিবারের সম্মান নিয়ে খেলার? ইউ ব্লাডি ফুল আই উইল নট স্পেয়ার ইউ। আই জাস্ট ফিনিশ ইউ। তোমার বলা সব কথা রেকর্ড হয়ে গিয়েছে। এটা দিয়ে আমি সবাই কে বুঝিয়ে দেবো। আমি কোনো মেয়ের সাথে রাত কাটাতে যাইনি। আমাকে ফাঁসিয়ে আমার পরিবার কে ছোট করতে। তুমি এসব করেছো সো বি রেডি। কাল আমি নিজে তোমাকে এরেস্ট করবো। এরপর জেলে পচে মরবে রাবিশ।

জনী ভাইয়ার কথা শুনে আমি থ। তারমানে তুলি এসব করেছে। আমাদের পরিবার কে ছোট করতে। আমি গিয়ে জনী ভাইয়ার কাধে হাত রাখলাম। জনী ভাইয়া ভুত দেখার মত চমকে উঠলো।

_ তুমি কাল বাবা কে কেন বললে না? যে তুমি এসব কিছু করোনি।
জনী ভাইয়া আমতা আমতা করে বললো।
_ কোন সব? কিসের কথা বলছিস তুই?
_ তোমার এতক্ষণ বলা সব কথা আমি শুনেছি।

_ কাল বলিনি বিকজ প্রুফ ছিলোনা। আর আজও বলবো না। আগামীকাল আমি সবাই কে প্রুফ দেবো। ইন্সপেক্টর জনী চৌধুরী এমন কিছু করতে পারেনা।
বলতে বলতে জনী ভাইয়া কাশতে শুরু করলো। কাশতে কাশতে অন্য দিকে ঘুরে গেলো।
_ তৃশ তুই যা এখান থেকে।

জনী ভাইয়ার কথায় খটকা লাগলো। অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে মুখে হাত দিয়ে রেখেছে।
_ তৃশ আই সেইড লিভ মি এলোন।

আমি জনী ভাইয়ার সামনে গিয়ে বললাম।
_ কাল রাতেও তুমি এমন করছিলে। আর আজও তুমি এমন করছো। তোমার কি হয়েছে জনী ভাইয়া?
_ আমার কিছু হয়নি তুই যা প্লিজ।

আমি জোড় করে হাত সরিয়ে ফেললাম। হাত সরিয়ে আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। জনী ভাইয়ার নাকে মুখে রক্ত। আর দুটো হাত রক্তে লাল হয়ে গিয়েছে। জনী ভাইয়া মাথা নিচু করে দাড়িয়ে আছে। আমি কাঁপা গলায় বললাম।
_ অ জনী ভাইয়া এ এসব কি?

জনী ভাইয়া রুমাল দিয়ে রক্ত মুছে বললো।
_ বলছি তো কিছুনা যা এখান থেকে।
_ না সত্যিটা না জেনে আমি যাবোনা।

_ কোন সত্যি জানবি তুই? এটাই তো যে এই রক্ত কেন? তাহলে শোন আমার ব্রেইন ক্যান্সার। আমি একজন ব্রেইন ক্যান্সারের পেশেন্ট।
বলে জনী ভাইয়া আবার মুখ ঘুরিয়ে নিলো। আর আমি থম মেরে আছি। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে আমার। এসব কি শুনছি আমি?

_ কবে জানতে পেরেছো?
কান্না করে বললাম।
_ যেদিন লিমা কে ভালবাসার কথা বলতে চেয়েছিলাম। বাড়ি থেকে বেরও হয়েছিলাম সেদিনই জানি। মনে আছে তোর তৃশ? আমাদের এংগেজমেন্টের দিন আমি মাথা চেপে ধরেছিলাম। ওই দিন আমার মাথায় পেইন হচ্ছিলো। আমি বুঝতে পারিনি কেন এমন হচ্ছে।

এরপর তোদের রুমে আড্ডার মাঝে উঠে চলে এসেছিলাম। ওই দিন ও মাথায় পেইন হচ্ছিলো। ভেবোছিলাম হয়তো এমনি। কিন্তু দিনে দিনে যেন বাড়ছিলো। তাই হসপিটালে গিয়ে টেস্ট করি।

ডক্টর বলেছিলো পরেরদিন রিপোর্ট আনতে। ওই দিন লিমা কে বলতে চেয়েছিলাম। আমি লিমা কে ভালবাসি অনেক ভালবাসি। গাড়ি ড্রাইভ করছিলাম হঠাৎ আবার মাথায় পেইন ওঠে। আর নাক মুখ দিয়ে রক্ত পড়ছিলো। আমি গাড়ি ব্রেক করে ফেলি। এরপর ডক্টর কল করে রিপোর্ট আনতে যেতে বলে।

ভাবি রিপোর্ট নিয়ে আসি এরপর লিমাে’র কাছে যাবো। কিন্তু রিপোর্ট পেয়ে আমার পায়ের তলার মাটি সরে গিয়েছিলো। কারন রিপোর্টে আমার ব্রেইন ক্যান্সার এসেছিলো। আমি বারবার বলেছি এই রিপোর্ট ভুল।

তাই ডক্টর টেস্ট ও ৩ বার করেছে। কিন্তু ৩ বারই সেম রিপোর্ট। শুধু তাই না আমি লাস্ট স্টেজে চলে এসেছি। আমার হাতে খুব বেশী হলে ২ মাস সময় আছে। আমি চাইনি আমার এই জীবনের সাথে লিমা কে জড়াতে। তাই আমি ওকে সরিয়ে দিয়েছি। বিশ্বাস কর তৃশ আমি লিমা কে ভালবাসি খুব ভালবাসি।

আমি ওর সাথে যা করেছি। ওর ভাল’র জন্য করেছি। নাহলে ও আমাকে ঘৃনা করতো না। ও যদি জানতো আমার ব্রেইন ক্যান্সার। তবুও ও আমাকে বিয়ে করতে চাইতো। আমাকে বিয়ে করলে ওর পুরো জীবন শেষ হয়ে যেতো। আমি এটা কি করে হতে দিতাম? তাই আমি ওকে সরিয়ে দিয়েছি। আমার থেকে আমার জীবন থেকে।

আমি স্তব্ধ হয়ে গিয়েছি। আল্লাহ এটা কি করলো?
_ এর জন্য তুমি সবার চোখে খারাপ হচ্ছো না?

জনী ভাইয়া মুচকি হেসে বললো।
_ হ্যা যাতে আমি মরলে কেউ কষ্ট না পায়।
_ আমি এক্ষুণি সবাই কে বলে দেবো।

বলে পা বাড়ালাম।
_ সিফাত’র কসম তৃশ তুই কাউকে বলবি না।
আমি থমকে দাড়ালাম। এখন আমি কি করবো? মাথায় জেদ উঠে গেলো। জনী ভাইয়ার সামনে গিয়ে। ঠাস করে এক থাপ্পর মেরে বললাম।

_ কেন করছো এমন? সবাই কে কেন বলে দিচ্ছোনা? জনী ভাইয়া তুমি ঠিক হয়ে যাবে। প্লিজ সবাই কে বলে দাও। আমরা বেস্ট ডক্টরের কাছে তোমাকে নিয়ে যাবো প্লিজ বলে দাও।
_ আমি যা বলার বলে দিয়েছি।

জনী ভাইয়ার কথা শুনে কষ্ট লাগছে। এক পা দু পা করে চলে এলাম। এদিকে জনী ভাইয়া ও কাঁদছে।
_ আমার সাথে কেন এমন হলো আল্লাহ? কি পাপ করেছিলাম আমি? যখন তৃশ কে ভালবাসলাম। ও আমার হলো না। আর এখন যখন আমি লিমা কে ভালবাসি।

তখন তুমি আমাকে লিমাে’র থেকে কেড়ে নিলে। যখন আমাকে নেয়ারই ছিলো। তাহলে তখনই নিয়ে নিতে। যখন তৃশে’র বিয়ে হয়ে গিয়েছিলো। আমি কি কারো ভালবাসার যোগ্য না?

আবারও জনী ভাইয়ার নাক মুখ দিয়ে। রক্ত পড়তে শুরু করলো। জনী ভাইয়া মুচকি হাসলো। রুমে বসে আছি আমি। এতটা কষ্ট লাগছে জনী ভাইয়া কে ভুল বুঝলাম। ফরিদ এসে আমাকে রেডি হতে বললো। আমার যেতে ইচ্ছে করছে না। সবার কথায় গেলাম। তবে গিয়ে হলুূদ ছুয়ে চলে এলাম। জনী ভাইয়ার রুমের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলাম। রুমের দিকে জানালা দিয়ে তাকালাম। জনী ভাইয়া ফ্লোরে বসে আছে।

একহাতে সিগারেট এক হাতে ড্রিংকের বোতল। ইচ্ছেমতো ড্রিংক করছে। চুলগুলো উস্কো খুস্কো। না চাইতেও চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। ফরিদ আমাকে নিয়ে চলে এলো। পরেরদিন জনী ভাইয়া প্রুফ করে দিলো। যে জনী ভাইয়া কোনো মেয়ের সাথে রাত কাটায়নি। যা করেছে তুলি করেছে। আমাদের পরিবার কে ছোট করতে।
_ এটা হয়তো মিথ্যেকিন্তু খারাপ তো তুই হয়ে গিয়েছিস।

বাবার কথায় জনী ভাইয়া। স্লান হেসে রুমে চলে গেলো। আমি এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি। আমি তো জানি জনী ভাইয়া খারাপ না। আজ লিমাে’র বিয়ে জনী ভাইয়া লিমা কে ভালবাসে। যত দুরে সরিয়ে রাখুক। পারবে তো নিজেকে সামলাতে?


পর্ব ২৮

জনী ভাইয়া স্লান হেসে উপরে চলে গেলো। এবার ভাবছেন তো? কি করে কি হলো? চলুন বলি কিছুক্ষণ আগে কি হলো?

কিছুক্ষণ আগে।
আমরা প্রতিদিনের মতো ড্রয়িংরুমে বসে আছি। এমন সময় জনী ভাইয়া। হাতে পিস্তল নিয়ে বেরিয়ে গেলো। বাবা আর আম্মু না বুঝে আটকাতে চেয়েছিলো। বাট আমি যেহেতু জানি সব তাই আটকাইনি। প্রায় অনেক সময় পর জনী ভাইয়া আমাকে কল করে। আমি রিসিব করতেই আমাকে টিভি অন করতে বলে। আর টিভিতে নিউসে সেই রেকর্ড শোনাচ্ছে।

_ হ্যা আমি করেছি সব। আমি জনী চৌধুরী কে ফাঁসিয়েছি। চৌধুরী পরিবারের মান সম্মান নষ্ট করতে। জনী চৌধুরী’র ছোট ভাই ফাহিম চৌধুরী কে আমি ভালবাসতাম। কিন্তু ও মিম নামের মেয়েটা কে বিয়ে করে নিলো। আর ওই মেয়েটার জন্য ফরিদ আমাকে। ভার্সিটির সবার সামনে থাপ্পর মেরেছিলো।

আমার সামনে ফরিদ বউ ছেলে নিয়ে মাতামাতি করে। যা আমার সহ্য হয়না। তাই ওইদিন ক্লাবে আমি জনী কে। ওর ড্রিংকে ড্রাগস দিয়ে আর ওই মেয়েটা কে টাকা দিয়ে। ওই রুমটাতে পাঠিয়ে দেই। আর পুলিশ গিয়ে জনী কে এরেস্ট করে। হ্যা আমি এসব করেছি আর বেশ করেছি।

টিভি তে এসব শুনে আমি থ। এই মেয়েটা এত খারাপ? আর বাবা, আম্মু ও কিছু বলছে না।
_ ইউআর আন্ডার এরেস্ট মিস নেহা। আমাকে ইন্সপেক্টর জনী চৌধুরী কে। ড্রাগস দেয়ার অপরাধে। মিথ্যে অপবাদে ফাঁসানোর জনীযোগে। আমি তোমাকে এরেস্ট করলাম।

জনী ভাইয়া বাঁকা হেসে। নেহা কে হেন্ডকাফ পড়ায়। নেহা সমানে চেঁচামেচি করছে। ফরিদ এসে টিভি অফ করে দিয়ে। রাগে ফোস ফোস করতে বলে।

_ এই নেহা এত খারাপ? একে তো ইচ্ছে করছে খুন করতে। বেয়াদব রাস্কেল মেয়ে একটা।
এরপর জনী ভাইয়া বাড়ি আসে। আর বাবা জনী ভাইয়া কে ওসব বলে।

আয়নার সামনে বসে রেডি হচ্ছি। লিমাে’র বিয়ে আজ ওখানেই যাচ্ছি। রেডি হয়ে ড্রয়িংরুমে এলাম। যেতে ইচ্ছে করছে না একটুও। কিন্তু কি বলবো সবাই কে? ড্রয়িংরুমে এসে দেখি বাবা। জনী ভাইয়া কে রাগারাগি করছে। জনী ভাইয়া মুখে বিরক্তি নিয়ে দাড়িয়েছে। আসলে তো এটা বিরক্তি না এটা কষ্ট। বুকের ভেতরের কষ্টটাকে। বাইরে বিরক্তিকর লিমা দিয়েছে। যাতে সবাই খারাপ ভাবে।

ফরিদ সিফাত কে নিয়ে নিচে এলো। এরপর আমরা বেরিয়ে গেলাম। যেতে যেতে একবার পিছনে তাকালাম। জনী ভাইয়ার চোখগুলো ছলছল করছে। এই মুহূর্তে আমার মতো কেউ যদি পিছনে তাকাতো। তাহলে এই অসহায় চেহারা দেখতে পারতো। আমার ইচ্ছে করছে সবাই কে বলে দিতে। কিন্তু আমি যে চাইলেও পারছি না। জনী ভাইয়া নিজে আমার হাত পা বেধে দিয়েছে।

_ হা হা হা খুশি হয়েছো না তুমি? তুমি অনেক খুশি তাইনা আল্লাহ? এটাই তো চেয়েছিলে তুমি। এই জনী কে সবাই ঘৃনা করবে। জনী’র থেকে সবাই দুরে সরে যাবে। লিমা অন্যকারো হয়ে যাবে। এটাই চেয়েছিলে না? দেখো সব হচ্ছে লিমা আজ অন্যকারো হয়ে যাবে।

বলে কাঁদতে কাঁদতে জনী ভাইয়া। হাটু গেরে ফ্লোরে বসে পড়লো। আমি এসেছিলাম সিফাত’র প্যামপার্স নিতে। তখন এসব শুনি আর দেখি। আমি গিয়ে জনী ভাইয়ার সামনে দাড়াই। জনী ভাইয়া আমাকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে দেয়। আমিও কাঁদছি কাঁদতে কাঁদতে বললাম।

_ জনী ভাইয়া প্লিজ সবাই কে বলি?
জনী ভাইয়া আমাকে ছেড়ে। রাগী লুক দিয়ে বলে।

_ একবার বলেছি না? সিফাত’র কসম তৃশ তুই বলবি না।
একটা দীর্ঘশ্বাস নিয়ে চলে আসি। গাড়িতে চুপচাপ ছিলাম। ২ ঘন্টা পর আমরা এসে পৌছাই। মানুষ দিয়ে ভরপুর। ভাইয়া কে দেখলাম আহানিতা আপুর সাথে কথা বলছে।

আমরা ভেতরে চলে এলাম। এসব কেন জানি ভাল লাগছে না। সিফাত অলরেডি কান্না শুরু করে দিয়েছে। ফরিদ সিফাত কে নিয়ে একটু দুরে গেলো। আমি পা টিপে টিপে লিমাে’র কাছে এলাম।

লিমা কে সাজানো শেষ। লাল আর গোল্ডেন লেহেঙ্গা। লেহেঙ্গা তে গোল্ডেন স্টোন বসানো। গা ভর্তি গয়না চোখে কাজল। ঠোটে টকটকে লাল লিপস্টিক। একদম পুতুল পুতুল লাগছে। তবে লিমাে’র মুখে আজ আর হাসি নেই। এতেই বোঝা যাচ্ছে লিমা মুখে যা বলুক। লিমা জনী ভাইয়া কে এখনো ভালবাসে। কারন ভালবাসা ভোলা যায়না। একটুপর লিমা কে স্টেজে নিয়ে যাওয়া হলো। লিমা কে আহানের পাশে বসানোর পরই। কারো মাতাল কন্ঠে গান ভেসে এলো।

জানি একদিন আমি চলে যাবো সবি ছেড়ে
যত বুক ভরা দুঃখ কষ্ট নিয়ে ওহহহহ
জানি একদিন আমি চলে যাবো সবি ছেড়ে
যত বুক ভরা দুঃখ কষ্ট নিয়ে
ফিরবো না কোনোদিন এই পৃথিবীতে
কোনোকিছুর বিনিময়ে এই পৃথিবীতে
একদিন চলে যাবো
[বাকিটা নিজ দায়িত্বে শুনবেন। আমার প্রিয় একটা গান। ]

লোকটা আর কেউ না জনী ভাইয়া। জনী ভাইয়া হেলতে দুলতে এগিয়ে এলো। জনী ভাইয়া কে দেখে লিমা স্টেজ থেকে নেমে। জনী ভাইয়ার সামনে দাড়িয়ে বললো।
_ সেদিন আমাকে কি যেন বলেছিলেন? ওহ হ্যা মনে পড়েছে। আমাদের বাড়িতে মুখ উঠিয়ে চলে এলি? তা আপনার কি লজ্জা সরম নেই? এতকিছু হওয়ার পরও ইনভাইট করেছি। আর আপনিও বেহায়ার মতো চলে এলেন?

আচমকা জনী ভাইয়া লিমা কে জড়িয়ে ধরলো। বিয়ের স্টেজে বিয়ের কনে কে। অন্য কেউ এভাবে জড়িয়ে ধরলে। সবাই অবাক হবে এখানেও তাই। কানাঘুষা শুরু হয়ে গিয়েছে। লিমা জনী ভাইয়া কে ছাড়িয়ে। ঠাস করে এক থাপ্পর মারলো।

_ আপনার সাহস কি করে হলো? আমাকে এভাবে জড়িয়ে ধরার? খারাপ লোক একটা।
জনী ভাইয়া লিমাে’র কথায় পাত্তা না দিয়ে। লিমাে’র হাত ধরে বলে উঠলো।

_ লিমা একবার আমাকে আই লাভ ইউ বলো প্লিজ। তুমি তো অন্যকারো হয়ে যাচ্ছো। জাস্ট একবার বলো।
লিমাে’র বাবা এসে লিমা কে নিয়ে গেলো।

আর বাবা কে কথা শোনালো। বাবা জনী ভাইয়া কে থাপ্পর মারলো। আমার আর সহ্য হচ্ছে না এসব। এরমাঝে জনী ভাইয়া কাশতে শুরু করলো। কাশার মাঝে মাথা চেপে ধরলো। একহাত দিয়ে মাথা চেপে ধরেছে। আরেকহাত মুখে দিয়ে রেখেছে।

আজও কাউকে বুঝতে দিতে চাইছে না। সবাই জনী ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে আছে। জনী ভাইয়া এবার দুই হাত দিয়ে মাথা চেপে। জোড়ে চিৎকার করে উঠলো। নাক মুখ দিয়ে গলগল করে রক্ত পড়ছে। এমন কিছু দেখার জন্য কেউ প্রস্তুত ছিলোনা। সকলে স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে। জনী ভাইয়া ঠাস করে মাটিতে পড়ে গেলো। মাথা চেপে ধরে পাগলের মতো করছে।

_ আহহহহ, আহহহহহ।
লিমা স্টেজ থেকে দৌড়ে আসতে গেলো। কিন্তু ওর বাবা হাত ধরে ফেললো। হঠাৎ আহান মাথার পাগড়ী খুলে এরপর বললো।
_ ওকে যেতে দিন আঙ্কেল।
লিমা হাত ছাড়িয়ে দৌড়ে চলে এলো। সবাই জনী ভাইয়ার কাছে এলো। আহান নিজেও জনী ভাইয়ার কাছে এসে বললো।
_ জনী ডোন্ট ওয়ারী ওকে? তোর কিছু হবেনা।

আহানে’র মুখে তুই শুনে অবাক হলাম। তাহলে কি আহান জনী ভাইয়া কে চেনে?
_ ওর কি হয়েছে? কি হয়েছে আমার ছেলের?
আম্মুর প্রশ্নে আর কিছু লুকাতে পারলাম না। সবটা বলে দিলাম। সবাই কান্নাকাটি করছে। আর জনী ভাইয়া ছটফট করতে করতে লিমা কে বললো।

_ রু লিমা আ আমি আর বাঁ বাঁচবো না। তু তুমি প্লিজ আ আহান কে বি বিয়ে ক করে নি নি নিয়ো। আ আর এ একটা ক কথা। আ আমি তো তোমাকে ঠ ঠকাইনি রু লিমা।
বলতে বলতে জনী ভাইয়া চোখ বন্ধ করে নিলো। জনী ভাইয়া কে নিয়ে হসপিটালে চলে এসেছি। এবার আহান বললো।

_ জনী আমার ফ্রেন্ড। ও বিদেশ থেকে চলে এসেছিলো। আর আমি থেকে গিয়েছিলাম। তাই তেমন একটা কথা হয়নি। লিমাে’র সাথে আমার বিয়ে ভেঙে যাওয়ার পর। বাবা তার ফ্রেন্ডের মেয়ের সাথে আমার বিয়ে ঠিক করে। হঠাৎ একদিন জনী আমাকে ফোন করে দেখা করতে বলে। আর ওর ব্যাপারে সবটা বলে। লিমাে’র কথাও বলে তখন আমি অবাক হই। এরপর জনী বললো ও জানতো না আমি সেই ছেলে। জনী আমাকে রিকোয়েস্ট করে লিমা কে বিয়ে করতে। আর ওর এই ব্রেইন ক্যান্সারের কথা কাউকে না জানাতে।

_ আন্টি আপনারা সবটাই শুনেছেন। একচুয়েলি জনী’র বাঁচার সম্ভাবনা আছে। বাট সেটা ১০০% এর ৫%। অপারেশন করলে ও বাঁচতেও পারে। আবার না বাঁচতে পারে।

আপনারা ওর অপারেশন করার অনুমতি দিন। তাহলে ডক্টররা অপারেশন করতে পারবে। আর আমি আবির আছি তো। আমরা জনী কে ফিরিয়ে আনবো।
অনুমতি দেয়ার পর বন্ড পেপারস নিয়ে এলো। বাবা কাঁপা হাতে সাইন করলো।

সবাই কাঁদছে শাশুড়ি আম্মু তো প্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েছে। লিমা স্থির হয়ে বসে আছে। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে ওর। আম্মুর কোলে সিফাত ঘুমিয়ে আছে। ৪ ঘন্টা পর আহান বেরিয়ে এলো। সাথে ভাইয়া ও আছেকিন্তু ওদের মুখ কালো হয়ে আছে। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে ওদের এভাবে দেখে। হাত পা ঠান্ডা হয়ে এলো। সবাই ভয়ে ভয়ে আছে। আহান কান্না করে দিয়ে বললো।

_ আই এম সরি আন্টি। আমরা পারলাম না জনী কে ফেরাতে।
আম্মু সাথে সাথে সেন্সলেস হয়ে গেলো। লিমা আগের মতোই আছে যেন পাথর হয়ে গিয়েছে। ফরিদ ধপ করে বসে পড়লো। হসপিটাল যেন থমকে গিয়েছে। আমি নিজের কান কে বিশ্বাস করতে পারছি না। একটুপর লিমা পাগলের মতো কান্না করতে লাগলো।

_ আল্লাহ এটা কি করলে তুমি? আমার জনী কে কেন আমি বুঝলাম না?
লিমাে’র কান্নায় সবাই চলে এসেছে। হসপিটালের সবার চোখে পানি এসে গিয়েছে।
৩ মাস পর।
ফেরাতে পারিনি আমি পারিনি তোমার হতে

হ্যা লিমা গান গাইছে লিমাে’র মুখে। সবসময় এইটুুকু শোনা যায়। আমি সিফাত কে কোলে নিয়ে দাড়িয়ে শুনছি। আর চোখের পানি ফেলছি। আল্লাহর কাছে মনে মনে প্রশ্ন করছি। এটা হওয়া কি খুব দরকার ছিলো?


পর্ব ২৯

আমি দাড়িয়ে ভাবছি ৩ মাস আগের কথা।
৩ মাস আগে।
আহানে’র কথা শুনে আম্মু সেন্সলেস হয়ে যায়। ফরিদ উঠে গিয়ে আহানে’র কলার ধরে বলে।
_ তুমি এসব কি বলছো? আমার ভাইয়া কোথায়? আমার ভাইয়ার কিছু হয়নি হতে পারেনা।
ভাইয়া এসে ফরিদ কে ছাড়িয়ে বলে।

_ ফরিদ রিল্যাক্স জাস্ট কাম ডাউন। আমাদের পুরো কথা আগে শোনো। জনী ভাইয়া কে আমরা ফেরাতে পারিনি। তারমানে এটা নয় যে জনী ভাইয়া বেঁচে নেই। একচুয়েলি জনী ভাইয়ার কন্ডিশন খুব খারাপ ছিলো। অপারেশন সাকসেসফুল হয়নি আর তাই। জনী ভাইয়া কোমায় চলে গিয়েছে। কোমা থেকে কবে ফিরবে আমরা জানিনা।

আহান আর ভাইয়া মাথা নিচু করে ফেলে। এরপর জনী ভাইয়া কে অনেক ডক্টর দেখানো হয়। বাবা বিদেশে নিতে চেয়েছিলো। কিন্তু ডক্টর তখন নিতে দেয়নি।

কারন ওই অবস্থায় নিলে লাইফ রিস্ক হতো। লিমা আমাদের সাথেই থাকে। কারো সাথে তেমন কথা বলেনা। সারাদিন জনী ভাইয়ার রুমে থাকে। জনী ভাইয়া কে বাড়িতে। অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। বাড়িতেই ট্রিটমেন্ট করা হয়। জনী ভাইয়ার কিছু হলে লিমা বাঁচতো না। সিফাত কে ফরিদ’র কাছে দিয়ে লিমাে’র কাছে এলাম।

_ লিমা সারাদিন তো কিছু খাসনি। প্লিজ চল কিছু খেয়ে নিবি।
_ না না আমি এখান থেকে কোথাও যাবোনা। আমার জনী উঠে আমাকে না দেখলে। অনেক রেগে যাবে আমি যাবোনা।
পাগলের মতো করছে আর বলছে।

_ লিমা তুই কি চাস জনী ভাইয়া কষ্ট পাক? জনী ভাইয়া কোমা থেকে ফিরে। তোকে যদি এভাবে দেখে তাহলে কষ্ট পাবে। এটা তুই কেন বুঝিস না?
লিমা আমাকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে দিলো। একটুপর আহান আর ভাইয়া এলো। ওরা প্রতিদিন জনী ভাইয়া কে দেখে যায়। লিমা কে কাঁদতে দেখে আহান বললো।

_ লিমা বি স্ট্রোং ওকে? তুমি এভাবে ভেঙে পড়লে চলবে না। তোমাকে সুস্থ থাকতে হবে প্লিজ ট্রাই টু আন্ডারস্ট্যান্ড।

আহান আর ভাইয়া লিমা কে বোঝালো। লিমা চুপ করে বসে আছে। আমি খাবার এনে ওকে খাইয়ে দিলাম। কোনোরকম একটু খেলো। একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে চলে এলাম। সিফাত কান্না করছে ফরিদ’র কাছ থেকে নিয়ে। আগে ওকে খাইয়ে নিলাম।

_ লিমা খেয়েছে মিম?
সিফাত কে খাইয়ে বিছানায় বসিয়ে দিলাম। ৬ মাস চলছে ওর। ঠিকমত বসতে পারেনা তাই পাশ দিয়ে টেডিবিয়ার দিয়ে দিয়েছি। এগুলো সব ফরিদ এনেছে নিজের ছেলের জন্য। সিফাত কে বসিয়ে বললাম।
_ হ্যা খাইয়েছি তবে না খাওয়ার মতো।
_ কি থেকে কি হয়ে গেলো?

এরমাঝে লিমাে’র চিৎকার কানে এলো। ফরিদ দৌড়ে বেরিয়ে গেলো। সিফাত কে কোলে নিয়ে আমিও চলে এলাম। আম্মু, বাবা, লিমা কান্না করছে। আহান আর ভাইয়া জনী ভাইয়া কে দেখছে। জনী ভাইয়া জোড়ে শ্বাস নিচ্ছে।
_ ও মাই গড এটা কি করে হলো? এত মাস তো ঠিক ছিলো।
আহানে’র কথা শুনে ফরিদ বললো।

_ কেন কি হয়েছে? আর ভাইয়া এমন করছে কেন?
_ ফরিদ কথা বলার টাইম নেই। জনী কে ইমিডিয়েটলি হসপিটালে নিতে হবে।
জনী ভাইয়া কে নিয়ে হসপিটালে চলে এলাম। ডক্টররা যা বললো তা শুনে। সবার অবস্থা খারাপ হয়ে গেলো। এখানে জনী ভাইয়ার ট্রিটমেন্ট করতে পারবে না। কারন কন্ডিশন খুব বেশী খারাপ।

এখানে থাকলে হয়তো কোনদিন কোমা থেকে ফিরবে না। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সিঙাপুর নিয়ে যেতে। আম্মু আর লিমা পুরোপুরি ভেঙে পড়েছে। সবাই ভেঙে পড়েছেকিন্তু প্রকাশ করছে না। ঠিক হলো সবাই সিঙাপুর যাবে। আমি, ফরিদ, বাবা, আম্মু, ভাইয়া আর আহান।

১০ দিন পর সিঙাপুর হসপিটালে আমরা। জনী ভাইয়া আগের মতোই কোমায় আছে। ডক্টররা বলেছে সেন্স আসবে খুব তাড়াতাড়ি। সবাই একটু হলেও সিফাতি পেয়েছে।

সেন্স আসার অপেক্ষা এখন। ফরিদ আমাকে হোটেলে নিয়ে এসেছে। সিফাত কে নিয়ে হসপিটালে থাকা ঠিক হবেনা। সিফাত তো ছোট অনেক। এসবে আমার ছেলেটা ভয় পেয়ে যাচ্ছে। প্লেনে প্রচুর কান্না করছিলো। হসপিটালেও কান্না করেছে। হোটেলে এসেই নিরব হয়ে গিয়েছে। ও ভীর সহ্য করতে পারেনা।

লিমাে’র বাবা, মা তো আসতে দিতে চায়নি ওকে। কিন্তু লিমা জোড় করে এসেছে। কেউ আটকাতে পারেনি ওকে। পারবে কি করে? ভালবাসা তো এমনই কিন্তু । এত কষ্ট যে ওদের পেতো হবে। এটা কোনদিন ভাবিনি। হাসি, খুশি প্রানজ্জল জনী ভাইয়া ছিলো।

অথচ ভাগ্যের পরিহাসে প্রায় ৪ মাস হতে চললো। একভাবে পড়ে আছে অক্সিজেন মুখে থাকে। যার দিন রাত ২৪ ঘন্টা। আল্লাহ জানে কবে সব ঠিক হবে। কবে জনী ভাইয়া ঠিক হবে। আর কবে সবার চোখের পানি। লিমাে’র বুকফাটা চিৎকার কান্না। এসব কিছুর অবশান হবে।

মাঝে মাঝে ভাবি ভালবাসা এমন কেন? কেন এত কষ্ট ভালবাসায়? কেন কষ্টবিহীন ভালবাসা হয়না? আমিও তো কম কষ্ট পাইনি। আমার ফরিদ কে তো সবাই মৃত ধরে নিয়েছিলো। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে ওকে ফিরে পেয়েছি। এখন আল্লাহ চাইলে লিমা ও আবার। আগের মতো হাসবে সুখে থাকবে।

১ মাস পর ডক্টর পাঠিয়ে দিলো বাংলাদেশে। কারন জনী ভাইয়ার সেন্স না এলেও। কিছুটা রিকভার করেছে। তাই বাড়িতে আগের মতো ট্রিটমেন্ট চলছে। ড্রয়িংরুমে বসে আছি সিফাত ফ্লোর বসে খেলছে। আমি ওর সামনে সোফায় বসে আছি। তার অপজিটে ফরিদ আর আম্মু। বাবা ও পাশেই বসা।

এমন সময় লিমা সবাই কে ডাক দিলো। আমরা তাড়াতাড়ি উপরে গেলাম। উপরে গিয়ে আমরা অবাক। মনে মনে আল্লাহ কে শুকরিয়া জানালাম। জনী ভাইয়া চোখ খুলেছে সেন্স এসেছে। জনী ভাইয়া নিজেই উঠে বসলো। আহান আর ভাইয়া ও চলে এসেছে। সবার চোখ মুখ খুশিতে উজ্জল হয়ে গিয়েছে। লিমা জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। জনী ভাইয়া ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছে। একটুপর লিমা কে ধাক্কা মেরে সরিয়ে দিলো। লিমা অসহায় ভাবে তাকিয়ে আছে।

_ কে আপনি? আমাকে জড়িয়ে ধরলেন কেন?
জনী ভাইয়ার কথা শুনে। সবাই চাওয়াচাওয়ি করছে। আম্মু জনী ভাইয়া কে ধরে বললো।
_ জনী এসব কি বলছিস?
_ জনী? কে জনী? আপনারা কারা?

_ জনী আমি তোর মাম্মা।
_ কে মাম্মা? আমি আপনাদের কাউকে চিনিনা।
বলে জনী ভাইয়া মাথা চেপে ধরলো। এবার সবার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো।


পর্ব ৩০

জনী ভাইয়ার কথা শুনে সবার মাথায়। যেন আকাশ ভেঙে পড়লো। বাবা এগিয়ে গিয়ে বললো।
_ জনী বাবা এসব কি বলছিস? আমাদের চিনতে পারছিস না? আমাকে চিনতে পারছিস? আমি তোর পাপা।
_ কে পাপা? আপনারা কারা? এটা কোথায়? আমার কিছু মনে পড়ছে না কেন?
লিমা আবার গিয়ে জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে বললো।

_ জনী প্লিজ এমন বলো না। তুমি মজা করছো তাই না? নয়তো আমাকে শাস্তি দিতে চাইছো। সবাই কে শাস্তি দিতে চাইছো। আমরা আগে তোমাকে বুঝিনি তাই ঠিক না?
জনী ভাইয়া ধাক্কা মেরে। লিমা কে নিচে ফেলে দিলো। লিমা ছলছল চোখে তাকালো।

_ আমি বললাম না? আমি আপনাদের কাউকে চিনিনা। তবুও আপনি আমাকে জড়িয়ে ধরলেন কেন?
জনী ভাইয়া বিছানা থেকে নেমে এলো।
_ আমি এখানে থাকবো না। এখানকার সবাই পাগল।

বলে জনী ভাইয়া হাটা ধরলো। আহান পিছন থেকে ইনজেকশন দিয়ে দিলো। জনী ভাইয়া সাথে সাথে লুটিয়ে পড়লো। আহান আর ভাইয়া মিলে শুইয়ে দিলো। লিমা রেগে আহান কে বললো।
_ এটা কি করলেন আপনি? জনী কে কি করলেন?

_ লিমা রিল্যাক্স এটা ছাড়া উপায় ছিলো না।
আহানে’র কথা শুনে ফরিদ বললো।
_ ভাইয়া এমন করছে কেন আহান?
ভাইয়া একটা দীর্ঘশ্বাস নিয়ে বললো।

_ কারন জনী ভাইয়া সব ভুলে গিয়েছে। জনী ভাইয়া’র মেমোরি লস হয়েছে। ব্রেইন অপারেশনে জনী ভাইয়া। কোমা থেকে ফিরলেও সব ভুলে গিয়েছে। এমনকি নিজেকেও আর তাই বলছে কে জনী?
সবাই বাকরুদ্ধ হয়ে গেলো। লিমা কিছু বলছে না কি বলবে ও? কি বলার আছে ওর? এই মেয়েটা আর কত কষ্ট পাবে? লিমা কাঁপা গলায় বললো।

_ জনী কবে ঠিক হবে? কবে সবাই কে চিনবে? কবে আমাকে চিনবে ওর লিমা কে? কবে আমি আমার জনী কে পাবো? কবেএএএএএএ।
লিমা হাউ মাউ করে কাঁদতে লাগলো। আমি সিফাত কে ফরিদ’র কাছে দিয়ে। লিমা কে জড়িয়ে ধরে সিফাতনা দিতেছি। যদি ও জানি এতে ওর কষ্ট কমবে না। মন খুলে কাঁদুক ও মন হাল্কা হবে।

ড্রয়িংরুমে বসে আছি ৫ ঘন্টা হলো। আহান আর ভাইয়ার সাথে কথা বলছি।
_ আন্টি এটা ওর ব্রেইন অপারেশনের জন্য হয়েছে। ওর ব্রেইন এই প্রেশার নিতে পারেনি। তাই কোমায় চলে গিয়েছে। আর রিপোর্ট দেখে যেটা বুঝলাম। জনী’র ব্রেইনের নার্ভ ছিড়ে গিয়েছে। যার জন্য ওর মেমোরি লস হয়েছে। আমি অন্য কিছুর ভয় পাচ্ছি।

ভাইয়ার কথায় সবাই ভিতু দৃষ্টিতে তাকালো। আহান এবার বলে উঠলো।
_ একচুয়েলি আন্টি জনী নিজেকে চিনতে পারছে না। সবাই কে না চিনলে হয়তো এই ভয় পেতাম না। বাট ও নিজেকেও চিনতে পারছে না। ওর পা পাগল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।
কথাটা বলে আহান চোখ বন্ধ করে ফেললো। লিমা পাগলের মতো হাসতে শুরু করলো। আমরা অবাক দৃষ্টিতে লিমা কে দেখছি। হাসার মাঝেই লিমা কেঁদে কেঁদে বললো।

_ দেখলে তো তোমরা? আমার সুখ আল্লাহ আমাকে সুখী দেখতে চায়না। তাই তো জনী কে আমার জীবনে একবার দিয়ে। ব্রেইন ক্যান্সার দিয়ে কেড়ে নিতে চাইলো। যখন আমার জনী ফিরে এলো। তখন তো ও আমাকেই চিনতে পারছে না। কেন এমন হচ্ছে আমার সাথে? আমি কি পাপ করেছি?

শুধু ভালবেসেছি জনী কে।
লিমাে’র বুকফাটা চিৎকার দেখে। সবাই কাঁদছে এরমাঝে জনী ভাইয়া নেমে এলো। জনী ভাইয়া কে দেখে অবাক হলাম। একটা ব্লাক টি শার্ট পড়েছে। তার উপরে সাদা জ্যাকেট। সাদা জিন্স প্যান্ট প্যান্টের একপাশে। বড় লম্বা মোটা চেন ঝোলানো এটা ডিজাইন। চোখে কালো সাইনগ্লাস। হাতে ব্যান্ডের ঘড়ি। চুলগুলো জেইল দিয়ে সেট করা। হাতে গাড়ির চাবি ঘোরাতে ঘোরাতে সিরি দিয়ে নামছে। আমরা সবাই খুশি হয়ে গেলাম। লিমা দৌড়ে গিয়ে বললো।

_ জনী তোমার মনে পড়েছে সব?
জনী ভাইয়া বিরক্তি নিয়ে বললো।

_ আমি জানিনা আমি কে? বাট ওনারা তো বললো ওনারা আমার মাম্মা, পাপা। আর ওই রুমে দেখলাম দেয়ালে আমার ছবি। আর তাতে লেখা জনী চৌধুরী। তাই বুঝলাম যে আমি জনী চৌধুরী। কিন্তু আমার কিছু মনে নেই। আর এই বাড়িটা বেশ সুন্দর। তাই আমি এখান থেকে যাবোনা।

আম্মু বসা থেকে উঠে জনী ভাইয়ার হাত ধরে বললো।
_ তোর কিছু মনে করতে হবেনা বাবা। তুই এখানে থাকলেই আমি খুশি।
জনী ভাইয়া হাত সরিয়ে বলে উঠলো।
_ ওকে থাকবো বাট আমাকে বলুন তো। আমার হাতের চাবির গাড়ি কোনটা? আপনারা তো বিশাল বড়লোক। বাইরে কয়েকটা গাড়ি তাই বলছিলাম।

ফরিদ বলে দিলো জনী ভাইয়া। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে বেরিয়ে গেলো। ফরিদ আহান কে বললো।
_ আহান এটা কি হলো?
_ আই থিংক ওর নাম মনে পড়েছে। বাট ওকে কখনো প্রেশার দিয়ে। কিছু মনে করাতে যেয়ো না। তাহলে ও ১০০% সিওর পাগল হয়ে যাবে।

আহানে’র কথায় সবাই ভয় পেয়ে গেলো। লিমা ভিতু কন্ঠে বললো।
_ না না কেউ প্রেশার দেবে না। প্লিজ কেউ প্রেশার দেবেন না।

আম্মু গিয়ে লিমা কে ধরলো। লিমা আম্মু কে জড়িয়ে ধরে কাঁদছে। ভাইয়া আর আহান আজ থেকে গিয়েছে। জনী ভাইয়া কখন কি করে বসে তাই আম্মু ওদের রেখে দিয়েছে। সিফাত ঘুমিয়ে পড়েছে তাই ওকে নিয়ে। আমি আমাদের রুমে যাচ্ছিলাম।

_ আহানিতা প্লিজ ট্রাই টু আন্ডারস্ট্যান্ড। আই রিয়েলি লাভ ইউ। প্লিজ আহানিতা ইউ কান্ট ডু দিস টু মি। হোয়াই ডোন্ট ইউ আন্ডারস্ট্যান্ড? ইউআর মাই লাভ ইয়েস। # তুমি_ আমার_ ভালবাসা। আমি ভালবাসি তোমাকে। সেটাও অনেক আগে থেকে। আর এটা তো তুমি জানতে তাইনা? তাহলে তুমি কি করে এটা করতে পারো? আই কান্ট লিভ উইথআউট ইউ।

ভাইয়ার কথা শুনে বুঝলাম। ভাইয়া আহানিতা আপুর সাথে কথা বলছে। আর ও সত্যিই আহানিতা আপু কে ভালবাসে। কিন্তু এটা মাথায় আসছে না। ভাইয়া এসব কেন বললো? ফোন কেটে ভাইয়া ধপ করে। মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়লো।

_ কিছুতো একটা হয়েছেকিন্তু কি?
মনে মনে ভাবতে লাগলাম। এরপর রুমে চলে এলাম। সিফাত কে শুইয়ে দিয়ে ভাবছি। আর কি কি সহ্য করবে সবাই? ফরিদ রুমে এসে আমাকে এমন মনমরা দেখে।

আমার পাশে বসে আমার হাত ধরে বললো।
_ তুমি না স্ট্রোং লেডি? তাহলে এভাবে মনমরা হয়ে আছো কেন?
_ আমার খুব খারাপ লাগছে ফরিদ।

বলতে বলতে চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়লো। ফরিদ সেটা মুছে দিয়ে জড়িয়ে ধরে বললো।
_ আমার মিষ্টিপাখি এমন হতে পারেনা। তুমি না বলো? পরিস্থিতি ফেস করা শিখতে। এবং সেটা হ্যান্ডেল করতে। ডোন্ট ওয়ারি সোনা সব ঠিক হয়ে যাবে।

রাতে সবাই বসে আছি। ১১ টা বাজে জনী ভাইয়া ফেরেনি। এরমাঝে দরজায় কলিং বেল বাজালো কেউ। লিমা দৌড়ে গিয়ে খুলে দিলো। জনী ভাইয়া ঢুলতে ঢুলতে ভেতরে ঢুকলো। আর মাতাল কন্ঠে গান গাইছে।
আমায় ভন্ড ভেবে পন্ড করে দিয়োনা এই ভালবাসা
আগের মতো চলতে দাও তোমার কাছে যাওয়া আসা

ভন্ড হলাম প্রেমের কারনে
মন মানেনা নিষেধ বারনে
[বাকিটা নিজ দায়িত্বে শুনবেন। ]
জনী ভাইয়া আবার সেই ড্রিংক করেছে? বাবা এগিয়ে গিয়ে বললো।
_ জনী তুই আবার ড্রিংক করেছিস?

_ আরে মিস্টার চৌধুরী ওপস সরি পাপা। আমি তো তোমার ছেলে তাইনা? তুমি তো এত বড়লোক। তোমার ছেলে হয়ে এটা করা কোনো ব্যাপার নাকি? বড়লোকের ছেলে আমি। ড্রিংক করতেই পারি।

জনী ভাইয়ার কথা শুনে ফরিদ বললো।
_ বাট ভাইয়া এটা ঠিক না।

ফরিদ কে খুটিয়ে দেখতে দেখতে। জনী ভাইয়া বিরক্তি নিয়ে বললো।
_ কে কার ভাইয়া? তুমি কে?
আম্মু এগিয়ে এসে বললো।
_ ও তোর ছোট ভাই ফাহিম চৌধুরী।

_ ফরিদ হোক আর যে হোক। আই রিয়েলি ডোন্ট কেয়ার।
জনী ভাইয়া রুমে চলে গেলো। এরমাঝে কেটে গিয়েছে ১ মাস। আমরা সবাই বাইরে এসেছি। সিফাত কে মুখে ভাত দিয়েছি। তাই সবাই এসেছি লিমা ও আছে। হঠাৎ জনী ভাইয়া কে একটা মেয়ে এসে জড়িয়ে ধরে বললো।
_ ওহ জনী বেবী কেমন আছো তুমি? ইউ নো আই মিস ইউ। এন্ড আই লাভ ইউ।
_ আই লাভ ইউ টু বেবী।

জনী ভাইয়ার মুখে মেয়েটা কে। আই লাভ ইউ টু বলতে শুনে। ছুটে মেয়েটা কে ছাড়িয়ে থাপ্পর মারতে গেলো। তার আগে জনী ভাইয়া লিমাে’র হাত ধরে বললো।

_ হাউ ডেয়ার ইউ? তোমার সাহস কি করে হয়? আমার জিএফ কে মারতে চাওয়ার?
_ জনী আমি তোমার উডবি।
ছলছল চোখে বললো লিমা।

_ জাস্ট সাট আপ চিনিনা জানিনা। নিজেকে আমার উডবি বলতে লজ্জা করছে না? একে কে এনেছে আমাদের সাথে? এন্ড ইউ জাস্ট গেট আউট।
লিমা কাঁদতে কাঁদতে দৌড়ে বেরিয়ে গেলো। আমার মেজাজ গরম হয়ে গেলো। রেগে গিয়ে বললাম।
_ এটা কি করলে জনী ভাইয়া? তোমার কি কিছু মনে নেই? এই লিমা কে না তুমি ভালবাসো? নিজের ভালবাসা কে কি করে ভুলে গেলে?

জনী ভাইয়া ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে দাড়িয়ে আছে। এদিকে একটু সামনে তাকাতে। আমার চোখ ঝাপসা হয়ে এলো। লিমা রাস্তার মাঝ দিয়ে হাটছে। আর কিছুটা দুরে একটা ট্রাক।

_ ও মাই গড লিমা প্লিজ সরে যা।
আমার বলা লিমাে’র কানে গেলো কি না জানিনা। লিমা একভাবেই হেটে যাচ্ছে। জনী ভাইয়া আমার কথা শুনে সামনে তাকালো। তাকিয়ে লিমা বলে চিৎকার করে। সামনে দৌড় দিয়ে গেলো। আর সবাই লিমা বলে চেচিয়ে উঠলো।


পর্ব ৩১

জনী ভাইয়া লিমা বলে চেচিয়ে দৌড়ে গেলো। এই মুহূর্তে চরম অবাক হয়ে দাড়িয়ে আছি আমি। জনী ভাইয়া না সব ভুলে গিয়েছে? তাহলে লিমা বলে চেচিয়ে কেন গেলো? এই প্রশ্নটা মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। চেচানো শুনে সামনে তাকালাম। তাকিয়ে থমকে গেলাম। রাস্তার মাঝে ভীর জমে গিয়েছে। জনী ভাইয়া বা লিমা।

কাউকেই দেখা যাচ্ছেনা। আমরা সবাই ভীর ঠেলে ভীতরে গেলাম। ভীতরে গিয়ে মাথায় আকাশ ভেঙে পড়লো। জনী ভাইয়ার কোলে লিমাের মাথা। লিমাে’র শরীর পুরো রক্তাক্ত। জনী ভাইয়ার মাথা থেকে রক্ত পড়ছে অনবরত। ফরিদ গিয়ে জনী ভাইয়া কে ধরলো।

_ লিমা প্লিজ কথা বলো। আমি আর তোমাকে কষ্ট দেবোনা। লিমা দেখো আমি আর এমন করবো না। আই এম সরি প্লিজ লুক এট মি। এব্রিথিং ইজ ফাইন। প্লিজ ওপেন ইউআর আইস। লিমা।
জনী ভাইয়া পাগলের মতো কান্না করছে। জনী ভাইয়ার নিজের যে।

মাথা থেকে রক্ত পড়ছে সেদিকে কোনো খেয়াল নেই। লিমা কে বুকে জড়িয়ে কাঁদছে। জনী ভাইয়া কে বুঝিয়ে। লিমা কে নিয়ে হসপিটালে চলে এলাম। লিমাে’র নিথর দেহটা দেখে বুকটা ফেটে যাচ্ছে। ডক্টর লিমা কে ওটি তে নিয়ে গেলো। এদিকে জনী ভাইয়া লিমা বলে কান্না করছে।

ডক্টর জনী ভাইয়া কে ও নিতে চেয়েছিলো। কিন্তু জনী ভাইয়া যায়নি। একটু পর জনী ভাইয়া ও সেন্সলেস হয়ে যায়। ডক্টর এসে জনী ভাইয়া কে নিয়ে গিয়েছে। সবার অবস্থা খারাপ। লিমাে’র বাবা, মা চলে এসেছে। সবাই কান্নাকাটি করে অবস্থা খারাপ করে ফেলেছে। ২ ঘন্টা হয়ে গিয়েছে ডক্টর আসেনি। প্রায় ৩ ঘন্টা পর ডক্টর এলো।

_ ডক্টর ওরা কেমন আছে?
ফরিদ’র প্রশ্নে ডক্টর মুখটা কালো করে বললো।
_ দেখুন মিস্টার জনী ঠিক আছে। কিন্তু আমরা ওনাকে ঘুমের ইনজেকশন দিয়েছি। কারন উনি পাগলামি করছিলো।
আমি অবাক হয়ে বললাম।
_ পাগলামি করছিলো মানে?

_ মেয়েটার অবস্থা বেশী ভাল না। শরীর থেকে অনেক ব্লাড বেরিয়ে গিয়েছে। ওনাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। আর মিস্টার জনী সেন্স আসার পর। বারবার লিমা বলে চেঁচামেচি করছিলো। মেবি ওই মেয়েটার নাম। তাই ওনাকে ঘুমের ইনজেকশন দিয়েছি।

মেয়েটার অবস্থা খারাপ শুনে। লিমাে’র মা হাউ মাউ করে কান্না করতে লাগলো। আমি কোনোরকম ভাবে বললাম।
_ ডক্টর লিমা ঠিক হয়ে যাবে তো?

_ আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। বাকীটা আল্লাহর হাতে।
বলে ডক্টর চলে গেলো। একমাএ আল্লাহ পারে সব ঠিক করতে। তাই মনে প্রানে আল্লাহ কে ডাকছি। এভাবে অনেকক্ষণ কেটে গিয়েছে। এরমাঝে জনী ভাইয়া বেরিয়ে এলো।

আই সি ইউ তে ঢুকতে চাইছে। কিন্তু ডক্টররা ঢুকতে দিচ্ছে না। জনী ভাইয়া কাঁদতে কাঁদতে মেঝেতে বসে পড়লো।
_ এটা কি করলাম আমি? কেন আজকে ওমন করলাম?

আমি তো বুঝতে পারিনি। লিমা ওটাকে সিরিয়াসলি নেবে। কেন আমি আগেই বলে দিলাম না? যে আমার সব মনে পড়ে গিয়েছে। লিমাে’র কিছু হলে আমি কি করবো? কি নিয়ে বাঁচবো আমি? আর কত হারাবো আমি? আর কতো? আল্লাহ আমার লিমা কে ঠিক করে দাও। আমি আর কিছু চাইনা প্লিজ।

জনী ভাইয়ার কথা শুনে থ হয়ে গিয়েছি। মানে জনী ভাইয়ার আগেই সব মনে পড়েছে? ফরিদ জনী ভাইয়ার কাধে হাত রেখে বললো।
_ ভাইয়া এসব কি বলছিস?
_ আমার আগেই সব মনে পড়েছে। তবে সেটা মাএ ৮দিন আগে। আমি জানতাম আজ সিফাত’র মুখে ভাত। তাই ভেবেছিলাম লিমা কে আজ সব বলবো।

আমি যে কেন এভাবে ওকে বললাম? নাহলে ও এমন করতো না।
জনী ভাইয়ার কথায় রাগ লাগছে এবার।
_ আগেই বলেছিলাম এটা করা ঠিক হবেনা।

মেয়েলী কন্ঠে পিছনে তাকালাম। তাকিয়ে দেখলাম সেই মেয়েটা। মেয়েটা কে দেখে রাগ লাগছে তাই তেড়ে গেলাম।
_ তুমি এখানে কি করছো?

_ রিল্যাক্স মিম আমি শুধু এটা বলতে এসেছি। যে আমি জনী’র জিএফ না। আমিও একজন পুলিশ অফিসার। একচুয়েলি জনী আমাকে তখন। ওভাবে ওখানে এন্ট্রি নিতে বলেছিলো। ও চেয়েছিলো মজা করে লিমা কে সবটা বলতে। কিন্তু এমন হবে কেউ ভাবিনি আমরা। আমি জনী কে বারনও করেছিলাম। বাট ও তো শুনলো না।

রাগে গা পিত্তি জ্বলে যাচ্ছে। এই মজার জন্য আজ লিমা মরতে বসেছে। জনী ভাইয়ার সামনে গিয়ে বললাম।
_ হয়েছে সিফাতি পেয়েছো? কি দরকার ছিলো সারপ্রাইজ দিতে চাওয়ার? সারপ্রাইজ দিতেকিন্তু এমন কেন করলে?
জনী ভাইয়া মাথা নিচু করে দাড়িয়ে আছে। অনেকক্ষণ হসপিটালে থাকায়।

সিফাত এবার কান্নাকাটি করছে। ফরিদ আমাকে নিয়ে বাড়ি চলে এলো। সিফাত কে খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিলাম।
পরেরদিন আবার হসপিটালে এলাম। লিমাে’র সেন্স এসেছে ওকে কেবিনে দিয়েছে। কেবিনে গিয়ে দেখলাম সবাই আছে। মাএই সেন্স এসেছে লিমাে’র। জনী ভাইয়া এক সাইডে দাড়িয়ে আছে।
_ জনী তুমি ঠিক আছো?

লিমাে’র এমন প্রশ্নে। জনী ভাইয়া নিজেকে সামলাতে পারলো না। দৌড়ে গিয়ে সবার সামনে লিমা কে জড়িয়ে ধরলো। আর কাঁদতে কাঁদতে বললো।

_ আই এম সরি লিমা। আমার এমন করা ঠিক হয়নি। আই এম রিয়েলি ভেরী সরি। প্লিজ ফরগিভ মি আই লাভ ইউ।
লিমা অবাক হয়ে বলে উঠলো।

_ জনী তুমি আমাকে চিনতে পারছো?
_ তোর জনী তোকে আগেই চিনতে পেরেছে। ও তো ইচ্ছে করে তোকে কষ্ট দিয়েছে।
লিমাে’র মা রেগে বললো। লিমা না বুঝতে পেরে বললো।
_ মা তুমি এসব কি বলছো?

এরপর আন্টি লিমা কে সব বললো। সব শুনে লিমা থমকে গেলো। জনী ভাইয়া লিমাে’র হাত ধরে বললো।
_ লিমা প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দাও। আমি আর কখনো এমন করবো না।

_ আমাকে একটু একা থাকতে দাও। আই এম সো টায়ার্ড।
জনী ভাইয়া এমন কথা শুনে ভয়ে ভয়ে বললো।
_ লিমা প্লিজ আমি থাকি?

_ আই সেইড লিভ মি এলোন।
চেচিয়ে বললো লিমা। বুঝলাম লিমা অনেক কষ্ট পেয়েছে। পাবারই কথা জনী ভাইয়া এটা ঠিক করেনি। লিমা কে আগেই বলে দেয়া উচিত ছিলো। আর সারপ্রাইজ যদি দেয়ার ছিলো। তাহলে এটা না করলেই পারতো। ২দিন পর লিমা কে বাড়ি নিয়ে গেলো। ২দিনে জনী ভাইয়া অনেকবার।

লিমাে’র সাথে কথা বলতে চেয়েছে। কিন্তু লিমা একবারও বলেনি। কেটে গিয়েছে ২০ দিন। লিমা এখনো জনী ভাইয়ার সাথে কথা বলেনি। আমি সিফাত কে খাওয়াচ্ছিলাম। এরমাঝে লিমা এলো আমাদের বাড়ি। লিমা কে দেখে জনী ভাইয়া টেনে নিয়ে গেলো। রুমে নিয়ে দরজা বন্ধ করে দিলো। লিমা রেগে গিয়ে বললো।

_ এটা কোন ধরনের অসভ্যতামি?
জনী ভাইয়া দাতে দাত চেপে বললো।
_ অসভ্যতামি এখনো শুরু করিনি আমি।

কেন আমাকে দুরে সরিয়ে রেখেছো? আমি বলেছি তো আমাকে ক্ষমা করে দাও। কতবার কতভাবে ক্ষমা চেয়েছি। কিন্তু ু তুমি অলওয়েজ আমাকে ইগনোর করছো। লিমা আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি। প্লিজ একটু বোঝো। আমাকে আর দুরে সরিয়ে রেখোনা।

বলতে বলতে জনী ভাইয়া কেঁদে দিলো। লিমা দরজা খুলে বেরিয়ে আসতে গেলো।
_ আমি কারো ভালবাসার যোগ্যনা তাইনা? তাইতে যাকে ভালবাসি। সেই আমাকে দুরে সরিয়ে দেয়। তাকে নিজের করে রাখতে পারিনা। দেখোনা তোমাকেও কষ্ট দিয়ে ফেললাম।

ওকে ফাইন তুমি নিজের মতো থাকো। যদি কোনদিন আমাকে ক্ষমা করতে পারো। তাহলে সেদিন আমাকে বলো। আমি ছুটে চলে আসবো। তবে তার আগে যেন আমি মরে না যাই।

জনী ভাইয়ার এমন কথায় লিমা থমকে গেলো। দৌড়ে গিয়ে জনী ভাইয়া কে জড়িয়ে ধরলো। জনী ভাইয়ার বুকে মুখ লুকিয়ে বললো।

_ এমন কথা আর বলবে না তুমি। তোমার কিছু হবেনা জনী। আই লাভ ইউ।
_ আই লাভ ইউ টু লিমা।

এসেছিলাম জনী ভাইয়ার রাগ দেখে। দুই ভাইয়ের যে রাগ কি না কি করে তাই। এসে দেখলাম ওদের মধ্যে সব ঠিক হয়ে গিয়েছে। মনে মনে ভাবছি জনী ভাইয়া এটা কেন বললো?

যাকে ভালবাসি সেই দুরে সরে যা। আজকে ওই বাড়ি যাবো। বিকেলে ফরিদ কে নিয়ে চলে এলাম। সবার সাথে কথা বলছি। বাট ভাইয়া কে দেখতে পেলাম না। আগে তো আমাদের আসার কথা শুনলে। এই ড্রয়িংরুমেই থাকতো তাহলে আজ? আম্মুর কাছ থেকে জানলাম রুমে আছে। আর আহানিতা আপুও আছে। তাই রুমের কাছে এলাম।

_ আহানিতা প্লিজ এমন করো না। আমি বাঁচবো না তোমাকে ছাড়া। ইউ কান্ট ডু দিস টু মি।
_ জাস্ট সাট আপ আবির। আমি তোমাকে আমার ফ্রেন্ড ভাবি। আমি আয়াশ কে ভালবাসি।

বলে আহানিতা আপু বেরিয়ে গেলো। আর ভাইয়া ধপ লরে ফ্লোরে বসে পড়লো। আহানিতা আপু অন্য কাউকে ভালবাসে। এটা ভাবতেই কেমন একটা লাগছে। আর ভাইয়া তো বললো ওকে ছাড়া বাঁচবে না। তাহলে ভাইয়া কি করবে এখন? কে এই আয়াশ?


পর্ব ৩২

গুটি গুটি পায়ে ভাইয়ার রুমে এলাম। ভাইয়া ফ্লোরে বসে আছে। চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়ছে নোনা জল। ভাইয়ার কাধে হাত রাখতেই। ভাইয়া আমাকে জড়িয়ে ধরে। ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাঁদতে লাগলো।

_ আমি ওকে অনেক ভালবাসি মিম। ওকে ছাড়া বাঁচবো না। ও আগে কেন বললো না? যে ওর লাইফে অন্য কেউ আছে। তাহলে তো আমি ওর রাস্তায়। কখনোই নিজের পা বাড়াতাম না। যখন পা বাড়িয়ে দিয়েছি। তখন জানতে পারলাম। এই রাস্তায় আমার জায়গা নেই। কারন সেখানে অন্যকেউ পৌছে গিয়েছে। আর সে পৌছানোর পর রাস্তাটা কাটা দিয়ে ভরপুর হয়ে গিয়েছে।

বলে ভাইয়া আবারও কাঁদছে। আর আমি ভাবছি এখন কি করবো?
_ ভাইয়া তুই আহানিতা আপু কে ভালবাসিস। কিন্তু আহানিতা আপু তো বাসেনা। ও অন্যকাউকে ভালবাসে। তাহলে তুই কেন পারবি না ওকে ভুলতে? তুই বললি তুই ওকে ছাড়া বাঁচবি না। তুই কি জানিস না? ভালবাসা মরতে নয় বাঁচতে শেখায়। শুধুমাএ ভালবেসে এই পৃথিবীতে। এরকম হাজারও মানুষ বেঁচে আছে।

তারা তো চাইলে মরতে পারতো। ভালবাসার আরেক নাম সেক্রিফাইস। তুই আমাদের কথা ভাববি না?
আমার কথায় ভাইয়া কান্না বন্ধ করে দিলো। এরপর আমার মুখের দিকে তাকিয়ে। নিজের চোখের পানি মুছে নিয়ে। মুচকি হেসে বলে উঠলো।

_ তোদের আগে আমার কাছে কিছু নেই। একচুয়েলি আই এম বিগ ফুল। তাই ক্ষণিকের জন্য সেলফিস হয়ে গিয়েছিলাম। যাইহোক চল নিচে যাই।

ভাইয়া আগে হাটছে আর আমি পিছনে। অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। ভাইয়া এত ইজিলি সব মেনে নিলো? আমার কথাগুলো এত এফেক্ট করলো? এসব ভাবতে ভাবতে নিচে নেমে এলাম। ভাইয়া সিফাত কে নিয়ে খেলছে। সিফাত এখন বসতে পারে। ফ্লোরে বসিয়ে দিয়েছে। চারপাশে খেলনা দিয়ে ভরপুর। এগুলো বাবা, ভাইয়া কিনে রেখেছে। যাতে সিফাত এলে খেলতে পারে।

রাতে আড্ডা দিচ্ছি ছাদে। আমি, ফরিদ আর ভাইয়া সিফাত ঘুমিয়ে পড়েছে। হঠাৎ ফরিদ ভাইয়া কে বললো।
_ ভাইয়া কাউকে ভালবাসো না?

ফরিদ’র এমন প্রশ্নে ভাইয়ার হাসি মুখ। এক নিমিষে কালো হয়ে গেলো। তবুও ভাইয়া আবার মুখে হাসি ফুটিয়ে বললো।
_ হুম বাসি তবে পরিবার কে।

বলে ভাইয়া নিচে নেমে গেলো। ফরিদ ভ্যাবলাকান্ত হয়ে তাকিয়ে আছে। তাই ফরিদ কে সবটা বললাম।
_ ওহ শিট ভাইয়া তো তাহলে হার্ট হলো।

ফরিদ মুখটা পেচার মতো করে বললো। আমি একপাশে গিয়ে দাড়ালাম। ফরিদ আমাকে পিছন থেকে জড়িয়ে ধরলো। ঘাড়ে চুমু দিয়ে বললো।
_ তুমি কি রাগ করেছো?

অবাক হয়ে বলে উঠলাম।
_ এমা রাগ করবো কেন?
_ ভাইয়া আমার জন্য হার্ট হলো তাই।

_ না ফরিদ তুমি তো জানতে না।
ফরিদ’র দিকে ঘুরে গলা জড়িয়ে ধরে বললাম। আরো কিছুক্ষণ থেকে রুমে চলে এলাম। এরপর পাড়ি জমালাম ঘুমের দেশে।

দাত দিয়ে নখ কাটছি আর ভাবছি। কি হতে চলেছে? আসলে বাড়ি চলে এসেছি গতকাল। আর আজ লিমা’দের বাড়ি এসেছি। ওদের বিয়ের কথা বলতে। লিমাে’র বাবা বেঁকে বসে আছে।

একপাশে গাল ফুলিয়ে দাড়িয়ে আছে লিমা। তার অপজিটে জনী ভাইয়া। বেচারা তো রীতিমত ঘামছে। আঙ্কেল কে অনেক বোঝানো হচ্ছে। এত বেশী বোঝানো হচ্ছে যে। আমার এবার মনে হচ্ছে। আঙ্কেল কে বুঝিয়ে এরা শহীদ করে ফেলবে।

_ আমি সবাই কে একটা কথা বলছি। আর এটাই আমার ফাইনাল ডিসিশন।
গম্ভীর মুখে বললো আঙ্কেল। এদিকে এত গম্ভীর ভাবে বলায়। সবাই আঙ্কেলের দৃষ্টি আকর্ষন করলো। আর আমি নক কাটা বাড়িয়ে দিয়েছি। জনী ভাইয়া এবার বেশী করে ঘামছে।

ফরিদ আমার মুখের দিকে তাকাচ্ছে। আঙ্কেল গম্ভীর ভাবে বললো।
_ আমি লিমাে’র বিয়ে দেবো তবে সেটা।

জনী ভাইয়া লাফ দিয়ে দাড়িয়ে বললো।
_ প্লিজ শ্বশুর বাবা আমি আপনার জামাই। আই মিন মেয়ের জামাই হতে চাই। এমনি তে আমি তো লিমাে’র উডবি। আর আপনি আমার সামনে বসে। আমার বউ আই মিন হবু বউ কে। আরেক জায়গায় বিয়ে দেওয়ার কথা বলছেন? দিস ইজ নট ফেয়ার রাইট?

আঙ্কেল ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ আমি লিমা কে কখন অন্য জায়গায়। বিয়ে দেওয়ার কথা বললাম? আমি তো তোমার কথাই বলতে চাইলাম।

জনী ভাইয়া আমতা আমতা করে বললো।
_ একচুয়েলি ভয় পেয়ে ভুল হয়ে গিয়েছে।
আমরা সবাই হেসে দিলাম। জনী ভাইয়া মাথা চুলকে বসে পড়লো। অতঃপর ওদের বিয়ে ঠিক হলো। আজ ৪ তারিখ ১০ তারিখে বিয়ে। বিয়েতে খুব বেশী দেরী নেই।

তাই সবাই আগামীকাল শপিং করে ফেলবো।
পরেরদিন আমরা শপিং করতে এসেছি।

সিফাত কে বাড়ি রেখে এসেছি। আমি আসতাম না লিমা জোড় করলো তাই। লিমাে’র জন্য লাল লেহেঙ্গা কিনেছে জনী ভাইয়া। লালের মাঝে গোল্ডেন স্টোন বসানো। আর গায়ে হলুদের জন্য হলুদ লেহেঙ্গা। আরো অন্য অন্য ড্রেস শাড়ী। আমি নিজের জন্য কালো শাড়ী নিয়েছি। ফরিদ কালো পান্জাবী। জনী ভাইয়ার জন্য লাল পান্জাবী।

আর হলুদে পড়ার জন্যও সবাই ড্রেস নিয়েছি।
আজ লিমাে’র গায়ে হলুদ। কমিউনিটি সেন্টারে মানুষ দিয়ে ভরপুর। লিমা কে পার্লারের মেয়েরা সাজাচ্ছে। কাচা ফুলের গয়না। ঠোটে লাল লিপস্টিক চোখে কাজল। একদম পুতুল পুতুল লাগছে। আমি হলুদ একটা শাড়ি পড়েছি। কানে কাচা ফুলের ঝুমকো। ঠোটে লাল লিপস্টিক চোখে কাজল।

লম্বা বেনীতে ফুল গুজে দিয়েছি। লিমা কে নিয়ে স্টেজে এলাম। জনী ভাইয়া আর ফরিদ হলুদ পান্জাবী পড়েছে। দুজনের একই সাজ। আর বাকীরা সবুজ পান্জাবী। আর মেয়েরা পড়েছে সবুজ শাড়ী। গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান শুরু হয়ে গিয়েছে। লিমা কে জনী ভাইয়ার পাশে বসানো হয়েছে। সবাই হলুদ লাগাচ্ছে হলুদ শেষে। লিমা কে ওর রুমে নিয়ে এলাম।

লিমা কে সাজানো শেষ। লাল শাড়ীতে বউ বউ লাগছে। অবশ্য লিমা তো বউই জনী ভাইয়ার বউ। লাল শাড়ি গা ভর্তি গয়না। একটুপর লিমা কে স্টেজে নিতে বললো। তাই ওকে নিয়ে স্টেজে বসিয়ে দিলাম। প্রেস মিডিয়া ও উপস্থিত আছে। কাজী বিয়ে পড়ানো শুরু করলো।

জনী ভাইয়া গড়গড় করে কবুল বলে দিলো। এরপর লিমা কে বলতে বললো। লিমা ও কবুল বলে দিলো। এবার এলো বিদায়ের পালা। লিমা হাউ মাউ করে কাঁদছে। আমি জানি এই মুহূর্ত কতটা কষ্টের। লিমা কে জনী ভাইয়ার গাড়িতে বসিয়ে। গাড়ি স্টার্ট দিয়ে দিলো।

দরজার সামনে দাড়িয়ে আছি আমরা। জনী ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।
_ এখানে দাড়িয়ে আছিস কেন?

দাত কেলিয়ে বললাম।
_ টাকা দিয়ে তারপর বউয়ের কাছে যাও।

_ আমি না তোর ভাশুর হই? আর ফরিদ তোর বড় ভাই হই আমি। যা ভাগ এখান থেকে।
আমরা ঠায় দাড়িয়ে আছি। অতঃপর ২০ হাজার টাকা নিয়ে রুমে এলাম। আর জনী ভাইয়াও রুমে গেলো।


পর্ব ৩৩

আমি আর ফরিদ রুমে চলে এসেছি। এক বস্তা বিরক্তি নিয়ে বসে আছি। বিকজ অফ ফরিদ, ওখান থেকে আসার পর থেকে। বারবার বলে যাচ্ছে আবার ওই রুমের সামনে যাবে। জনী ভাইয়া কে ডিস্টার্ব করতে।

_ মিম বেবী চলো প্লিজ।

এবার এক ধমক দিয়ে বললাম।

_ এই তোমার প্রবলেম কি? লজ্জা সরম নেই নাকি? আরে জনী ভাইয়া তোমার বড় ভাই।

_ ভাইয়া বলেই তো যাবো। আর তুমিও যাবে চলো।

বলে ফরিদ আমার হাত ধরে। এক প্রকার টানতে টানতে নিয়ে এলো। এই মুহূর্তে আমরা রুমের দরজার সামনে দাড়িয়ে আছি। জনী ভাইয়া লিমা কে কাছে টেনে। ওর ঠোটে ঠোট ডুবিয়ে দিলো। এরপর লিমা কে কোলে নিয়ে। বিছানায় শুইয়ে দিলো। একচুয়েলি এটা জানালায়। ছোট করে ছিদ্র আছে ওখান দিয়ে দেখেছি। এতটুকু দেখে ফরিদ কে নিয়ে চলে এলাম।

ফরিদ দাত কেলিয়ে তাকিয়ে আছে। বুঝলাম সেদিনের মতো বকবক শুরু করবে। তাই আগেই চোখ রাঙিয়ে বললাম।

_ শোনো ফরিদ চুপচাপ ঘুমাও। এখন যদি তুমি সেদিনের মতো। বকবক শুরু করেছো না? তাহলে তোমাকে রুম থেকে বের করে দেবো।

আমার কথায় ফরিদ মুখটা। একদম বাংলার পাচের মতো করে ফেললো। মুখ ভেংচি কেটে শুয়ে পড়লাম। মাঝরাতে সিফাত’র কান্নায় ঘুম ভেঙে গেলো। তাড়াতাড়ি লাফ দিয়ে উঠলাম। ফরিদ ও ততক্ষণে উঠে গিয়েছে। সিফাত কে কোলে নিয়ে থমকে গেলাম। চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। ফরিদ ভয় পেয়ে বললো।

_ মিম কি হয়েছে তোমার? কাঁদছো কেন?

_ ফরিদ সিফাত’র তো অনেক জ্বর।

ফরিদ সিফাত কে ধরে চমকে গেলো। কারন সিফাত’র প্রচুর জ্বর। জ্বরে গা রীতিমত পুড়ে যাচ্ছে। সিফাত কেঁদেই যাচ্ছে। কি করবো বুঝতে পারছি না। হঠাৎ জ্বর কেন এলো? খাওয়ানোর চেষ্টা করলাম। কিন্তু কেঁদেই যাচ্ছে। ফরিদ’র কোলে দিয়ে পানি নিয়ে এলাম। এখন জলপট্টি দিতে হবে। পানি এনে জলপট্টি দিতেছি। তবুও কান্না বন্ধ হচ্ছেনা। এবার আমার ভয় লাগছে।

_ মিম ডোন্ট ওয়ারী কিছু হবেনা।

ফরিদ’র কথায় ফুপিয়ে কান্না করে বললাম।

_ সন্ধ্যায় ও তো ঠিক ছিলো। তাহলে এখন জ্বর কেন এলো? দেখোনা কত কষ্ট পাচ্ছে ও। আমার ছেলের কষ্ট হচ্ছে ফরিদ। এখন কি করবো বলো? দেখো কিভাবে কাঁদছে। ওর অনেক কষ্ট হচ্ছে।

সিফাত’র কান্না শুনে সবাই চলে এসেছে। এত জোড়ে কান্না করছে। দরজায় নক করছে ফরিদ গিয়ে দরজা খুলে দিলো। আম্মু, বাবা, জনী ভাইয়া, লিমা। সবাই আমাদের রুমে চলে এসেছে।

_ তৃশ ও কাঁদছে কেন এভাবে?

জনী ভাইয়া প্রশ্ন করলো। আমি কান্নায় কিছু বলতে পারছি না। ফরিদ একটু চুপ থেকে বললো।

_ ভাইয়া সিফাত’র অনেক জ্বর।

জনী ভাইয়া সহ সবাই চমকে গেলো। জনী ভাইয়া কাছে এসে। সিফাত কে কোলে নিয়ে অবাক হয়ে বললো।

_ মাই গড ওর তো অনেক জ্বর।

আমি কান্না করতে করতে বললাম।

_ হ্যা এখন কি করবো? ও তো অনেক কষ্ট পাচ্ছে।

লিমা আমার কাছে এসে বললো।

_ মিম একটু সিফাত হ। এতরাতে হঠাৎ জ্বর কেন এলো?

আম্মু সিফাত কে কোলে নিয়ে। ওর কান্না থামানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু সিফাত সমানে কেঁদে যাচ্ছে।

_ এতরাতে তো ডক্টরও আসবে না।

আমি আর ফরিদ একসাথে বললাম।

_ আমরা হসপিটালে যাবো এক্ষুণি।

এদিকে সিফাত কাঁদতে কাঁদতে। এবার জোড়ে জোড়ে শ্বাস নিচ্ছে। আমি চিৎকার করে ওকে কোলে নিলাম। সবাই ভয় পেয়ে গেলো। নিজেকে পাগল পাগল লাগছে। সবকিছু গুলিয়ে যাচ্ছে কি করবো এবার? ফরিদ তাড়াতাড়ি সিফাত কে কোলে নিলো। এত চাপ নিতে না পেরে। আমি সাথে সাথে সেন্সলেস হয়ে গেলাম।

আস্তে আস্তে চোখ খুললাম। চোখ খুলে নিজেকে হসপিটালে আবিষ্কার করলাম। চারপাশে দেখছি হয়তো সকাল হয়ে গিয়েছে। কাল রাতের কথা মনে পড়তেই। হুরমুর করে উঠে বসলাম। আমার পাশে লিমা, আর আম্মু। আমি কান্না করতে করতে বললাম।

_ আমার ছেলে কোথায়? আর আমি এখানে কি করছি?

লিমা আমার হাত ধরে বললো।

_ মিম সিফাত একদম ঠিক আছে। গরম সহ্য করতে পারেনা ও জানিস তো। আর ভীরও সহ্য করতে পারেনা তোর ছেলে। আর এসব কাল আমার বিয়েতে ছিলো। গরম এবং ভীর একসাথে। আর এর জন্যই সিফাত’র জ্বর এসেছে। আর তুই সেন্সলেস হয়ে গিয়েছিলি। সিফাত কে ওভাবে দেখে। ডক্টর সিফাত কে ইনজেকশন দিয়েছে। সিফাত এখন ঠিক আছে।

ডক্টর সিফাত কে ইনজেকশন দিয়েছে শুনে। চমকে গিয়ে বললাম।

_ ইনজেকশন দিয়েছে? তাহলে তো ও অনেক ব্যথা পেয়েছে। লিমা তুই ওকে নিয়ে আয় প্লিজ।

লিমা গিয়ে সিফাত কে নিয়ে এলো। ফরিদ আর জনী ভাইয়া ও এলো। সিফাত কে কোলে নিয়ে চুমু খেলাম। কালকে এক মুহূর্তের জন্য। আমার দুনিয়া থমকে গিয়েছিলো। নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে আসছিলো। সিফাত আমার জীবন। ওর কিছু হলে মরেই যাবো। সিফাত ও গুটিশুটি মেরে আছে আমার বুকে শুয়ে আছে।

_ মিম আর ইউ ওকে? তোমার কষ্ট হচ্ছেনা তো?

ফরিদ’র কথায় মুচকি হেসে বললাম।

_ না কষ্ট হচ্ছেনা আমার ছেলে। আমার কাছে আছে ঠিক আছে। আমি একদম ঠিক আছি ফরিদ।

ডক্টর এসে আমাকে দেখে গেলো। আর বললো আমি বাড়ি যেতে পারবো। ফরিদ আমাকে বাড়ি নিয়ে এলো। সিফাত আমার কাছেই ছিলো।

পরেরদিন বাড়ি সাজানো হচ্ছে। কারন আজ জনী ভাইয়া। আর লিমাে’র রিসেপশন। আমাদের বাড়ির সবাই চলে এসেছে। খালামনি আঙ্কেল ও এসেছে।

জনী ভাইয়া ওদের সাথে গল্প করছে। দেখতে দেখতে বিকেল হয়ে গেলো। লিমা কে সাজানো হচ্ছে। লালের মাঝে সবুজ একটা শাড়ি পড়িয়েছে। কানে বড় ডায়মন্ড ঝুমকো। গলায় ডায়মন্ড নেকলেস। হাতে চিকন চুরি কপালে টিপ। ঠোটে লাল লিপস্টিক। চোখে মোটা করে কাজল। দারুন লাগছে লিমা কে। আমাদের দুজনের একই সাজ। শুধু শাড়ির কালার ভিন্ন। আমি পড়েছি পিংক কালার শাড়ি।

লিমা কে নিয়ে স্টেজে এসে। ফরিদ কে দেখে হা করে তাকিয়ে আছি। ফরিদ পিংক কালার পান্জাবী পড়েছে। সামনের দুটো বোতাম খোলা। ব্লাক কালার প্যান্ট।

চুলগুলো নরমাল আছে বাতাসে উড়ছে। হাতে ব্লাক বেল্টের ঘড়ি। চোখে সাইনগ্লাস সিফাত’র ও একই সাজ। শুধু সাইনগ্লাসটা নেই। সিফাত’র হাতে সোনার ব্রেসলেট। দুই বাপ বেটার এক সাজ। ফরিদ’র কোলে সিফাত ফরিদ কি যেন বলছে। আর সিফাত হাসছে ওরা দুরে তাই শুনতে পারছি না।

একটুপর জনী ভাইয়া এলো। কারো থেকে কেউ কম না। জনী ভাইয়া আর লিমা কে বসানো হলো। সবাই ফটো তুলতে ব্যস্ত। লিমা কে সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে। লিমাে’র মা, বাবা ও এসেছে। আজ ওদের লিমা’দের বাড়ি যাওয়ার কথা। তাই আমাকে আর ফরিদ কেও যেতে বলছে।

আমি প্রথমে রাকিবি হইনি। কিন্তু সবার জোড়াজোড়িতে রাকিবি হলাম। উপরে এসেছি চেন্জ করতে। কারন এই শাড়ি পড়ে বিরক্ত লাগছে। সিরি দিয়ে উপরে যাচ্ছি। এমন সময় চোখ গেলো সিরির পাশে। আমি নিজের চোখ কে বিশ্বাস করতে পারছি না।

ভাইয়া সিরির পাশে দাড়িয়ে। সিগারেট টানছে হা করে তাকিয়ে আছি। ভাইয়া আমার সেই ভাইয়া। যে কি না সিগারেট খায় তো না। আর সিগারেট খাওয়া লাইক করেনা। আর আজ সে সিগারেট খাচ্ছে? বুঝতে বাকী রইলো না কেন। ভাইয়ার পাশে গিয়ে দাড়িয়ে বললাম।

_ এভাবে কষ্ট কমাতে পারবি?

আমার কথায় ভাইয়া হতদন্ত হয়ে। হাতের সিগারেট লুকিয়ে ফেললো।

_ এখন লুকিয়ে কি হবে? আমি দেখেছি তোকে সিগারেট খেতে। কেন সিগারেট খাচ্ছিস সেটাও জানি।

ভাইয়া আমতা আমতা করে বললো।

_ আরে মিম আমি তো এমনিই।

ভাইয়া কে থামিয়ে দিয়ে বললাম।

_ আমাকে মিথ্যে বোঝাতে পারবি না। কারন আমি জানি তুই। সিগারেট একদম লাইক করিস না। তাই এমনি খাওয়ার প্রশ্ন আসেনা।

ভাইয়া এবার মাথা নিচু করে ফেললো। হয়তো শব্দহীন কান্না করছে। আমি কিছু বললাম না চলে এলাম। কাঁদুক না যদি মনটা হাল্কা হয়। শাড়ি চেন্জ করে নিচে নেমে এলাম। এরপর লিমা’দের বাড়ি এলাম। ভাইয়া কে ও যেতে বলেছিলো। ভাইয়া মানা করে দিয়েছে।

লিমা’দের বাড়ি আসার পর রুম দেখিয়ে দিলো। আমরা রুমে এসে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। রাতে ডিনার করতে এসে। জনী ভাইয়ার অবস্থা দেখে হেসে কুটিকুটি হচ্ছি। নতুন জামাই তাই ইচ্ছে মতো খাওয়াচ্ছে। ডিনার শেষে রুমে চলে এলাম। এখানে ২দিন থাকার কথা। কিন্তু সেটা আর থাকা হলোনা। জনী ভাইয়ার কোন ফ্রেন্ড নাকি আসছে। আমেরিকা থেকে তাই বাড়ি চলে এলাম।

ড্রয়িংরুমে বসে আছি সেই ফ্রেন্ডের জন্য। ছেলেটা হোটেলে থাকতে চেয়েছিলো। জনী ভাইয়া বলেছে আমাদের বাড়ি থাকতে। অতঃপর সবার অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে।

বাড়িতে ঢুকলো একটা ছেলে। বয়স বেশী না মেবি ২৬ হবে। দেখতে বেশ হ্যান্ডসাম। স্টাইলই আলাদা একদম ব্লাক ড্রেস। হয়তো ব্লাক লাভার ফর্সা শরীরে কালো ড্রেস। বেশ মানিয়েছে জনী ভাইয়া গিয়ে জড়িয়ে ধরলো। এরপর আমাদের সামনে এনে বললো।

_ হি ইজ মাই ফ্রেন্ড ডক্টর ইয়াকুব খাঁন। আমরা একসাথেই ছিলাম আমেরিকা তে। ও ডক্টর হলেও আমরা অলওয়েজ একসাথে থেকেছি। ওর আরেকটা ভাইও আছে।

_ হেই জনী ভাইয়ের কথা ছাড়। এখন বল কে তোর কি হয়?

জনী ভাইয়া কে থামিয়ে বললো ইয়াকুব। এরপর সবার সাথে পরিচয় হয়ে নিলো। ইয়াকুবে’র ঠোটের কোনে কেমন রহস্যময় হাসি। আমি ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে আছি।


পর্ব ৩৪

ইয়াকুবে’র হাসি দেখে খটকা লাগলো। ইয়াকুব আমার সাথেও পরিচয় হলো। সিফাত কে দেখে জিগ্যেস করলো।

_ মিম আই মিন ভাবী ও কে?

_ আমি যেহেতু ম্যারিড আমার ছেলে হবে তাইনা?

মুখটা গম্ভীর করে উত্তর দিলাম। জনী ভাইয়া ইয়াকুব কে নিয়ে। উনি যেই রুমে থাকবে নিয়ে গেলো। আমি সিফাত কে নিয়ে রুমে চলে এলাম। কেন জানিনা কিছু ভাল লাগছে না। মনে হচ্ছে কোনো বিপদ হবে। এরমাঝে লিমা এলো রুমে।

_ মিম কিছু ভাবছিস নাকি?

লিমাে’র কথায় ভাবনা থেকে বেরিয়ে বললাম।

_ না কিছু ভাবছি না। তোর নিশ্চয় মন খারাপ তাইনা?

_ ওমা মন খারাপ হবে কেন?

_ এই যে তোদের বাড়ি থেকে চলে এলাম।

লিমা মুচকি হেসে সিফাত কে কোলে নিয়ে বললো।

_ মোটেও আমার মন খারাপ না। তোরা আছিস জনী আছে। আর আমার এই পিচ্চি বাবা আছে। তাহলে কেন মন খারাপ হবে?

লিমাে’র কথায় আমিও মুচকি হাসলাম। খুব ভাল লাগছে আমার বেষ্টু আমার জা। তবে আমি আর লিমা। আমরা ছোট থেকেই বেষ্ট ফ্রেন্ড কম বোন বেশী। একসাথে থেকেছি সবসময়। এক স্কুল, এক কলেজ, এক ভার্সিটি।

_ কি করা হচ্ছে শুনি?

তাকিয়ে দেখি ফরিদ আর জনী ভাইয়া। আর জনী ভাইয়া’ই প্রশ্ন করেছে। লিমা ভেংচি কেটে বললো।

_ চোখ কি ড্রয়িংরুমে রেখে এসেছো নাকি?

জনী ভাইয়া ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। আমতা আমতা করে বললো।

_ মানে চোখ তো সাথেই আছে।

_ তাহলে তো দেখতেই পাচ্ছো তাইনা?

লিমাে’র কথা শুনে জনী ভাইয়া গাল ফুলিয়ে বললো।

_ হ্যা আর জিগ্যেস করবো না।

আমরা হু হা করে হেসে দিলাম। ফরিদ দাত কেলিয়ে বললো।

_ এবার বুঝবি ভাইয়া বউ কি জিনিষ?

আমি চোখ গরম করে তাকালাম। ওমনি ফরিদ কাঁচুমাচু করে বললো।

_ ইয়ে মানে আমি বলতে চেয়েছি। ভাইয়া এবার বুঝবে বউ কত ভাল। সিফাত শিষ্ট লেজ বিষি।

আর কিছু বলার আগে। দাত কিড়কিড় করে তাকালাম। ফরিদ মুখে হাত দিয়ে সোফায় বসে পড়লো। আমি মুখ চেপে হাসছি। জনী ভাইয়া আর লিমা জোড়ে হেসে দিলো। ওদের হাসতে দেখে সিফাত ও হেসে দিলো। কি বুঝলো সেটা সিফাত জানে। এবার আমি জোড়ে হেসে দিলাম। ফরিদ ভেংচি কেটে বিছানায় এসে বসলো। আমরা কথা বলছিলাম তখন ইয়াকুব এলো।

_ জনী আমি একটু বাইরে যাচ্ছি।

জনী ভাইয়া বসা থেকে উঠে বললো।

_ এখন বাইরে কেন? একটু আগেই তো এলি।

ইয়াকুব মুচকি হেসে বললো।

_ ভাবছি বাংলাদেশে পার্মানেন্ট থেকে যাবো। যেহেতু আমি একজন ডক্টর। তাই এভাবে শুধু শুধু বসে থেকে কি করবো? পাপা কে বলেছি আমি এখানকার হসপিটালে জয়েন হবো। আর তার জন্য বাইরে যাচ্ছি। আর নানাভাইয়ের হসপিটাল আছে তো। এখন দেখি কোনটায় জয়েন হই। আর আমাদের বাড়িটাও মেবি ময়লা হয়ে গিয়েছে। ওটাও তো ক্লিন করতে হবে। আমি ওখানেই থাকবো।

_ এক থাপ্পর খাবি শালা। তুই আমাদের সাথেই থাকবি ওকে? একা একা তোদের বাড়ি থাকতে হবে না। হসপিটালে জয়েন হবি হ। বাট আমাদের সাথে থাকবি এটাই ফাইনাল।

জনী ভাইয়ার কথায় ইয়াকুব হেসে বললো।

_ ওকে আই উইল ট্রাই মাই বেষ্ট।

জনী ভাইয়া বুঝতে না পেরে বললো।

_ মানে কি ইয়াকুব?

ইয়াকুব থতমত খেয়ে বললো।

_ আব আই মিন আমি ট্রাই করবো। নাউ আই হ্যাব টু গো। বাই জনী বাই এফরিওয়ান।

বলে ইয়াকুব রুম ত্যাগ করলো।

_ জনী তোমার এই বিদেশী ফ্রেন্ড। এটাকিন্তু সেই লেভেলের হ্যান্ডসাম। একদম কিউটের ডিব্বা যাকে বলে।

লিমাে’র কথায় জনী ভাইয়া। রেগে ওর দিকে তাকালো। আর আমি ভ্রু কুঁচকে বললাম।

_ কেন রে তাতে তোর কি? আর তোর হাজবেন্ড কি কম কিউট?

_ অবশ্যই কম একদম কম।

বুঝলাম জনী ভাইয়া কে রাগাতে বলছে। কিন্তু তিনি কি আর বুঝবেন? উহুম মোটেও না লিমা কে টেনে নিয়ে গেলো। ফরিদ কিটকিট করে হাসছে। ওর হাসির মানে খুজে না পেয়ে বললাম।

_ কি হলো কি হ্যা? এভাবে হাসছো কেন?

ফরিদ দাত কেলিয়ে বললো।

_ ওরা নিশ্চয় রোমান্স করবে। চলো আমরাও রোমান্স করবো।

ফরিদ’র কথা শুনে চোখ বড় বড় করে তাকালাম। ফরিদ হুট করে আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমি ও ফরিদ কে জড়িয়ে ধরলাম। সিফাত আমার শাড়ীর আচল ধরে টানছে। তাই ফরিদ কে ছেড়ে ওকে কোলে নিলাম। ফরিদ মুখটা কাঁদো কাঁদো করে বললো।

_ ছেলে আমার হয়েছে একটা। আমার রোমান্সে ব্যাঘাত ঘটায়।

আমি হো হো করে হেসে দিলাম। ফরিদ মুখটা অসহায়ের মতো করে রেখেছে। বিকেলে দেখলাম বাবা, আম্মু এসেছে। সাথে ভাইয়া ও আছে ওদের দেখে খুশি হলেও। ভাইয়া কে দেখে কান্না পেয়ে যাচ্ছে। একি হাল হয়েছে ওর? চুলগুলো এলোমেলো। চেহারার কোনো হাল নেই। ভাইয়া কে গিয়ে বললাম।

_ ভাইয়া তোর এই অবস্থা কেন?

_ হেই ব্রো ছ্যাকা খেয়েছো নাকি?

ভাইয়া কিছু বলবে তার আগে। বাড়ি ঢুকতে ঢুকতে ইয়াকুব বললো। আমি রাগী দৃষ্টিতে তাকালাম। ইয়াকুব হাসতে হাসতে বললো।

_ আরে ভাবী জাস্ট চিল ওকে? দেখুন আবির কে দেখে। শুধু আমি না যে কেউ এটাই বলবে।

আমি অবাক হয়ে বললাম।

_ আপনি তো ভাইয়া কে দেখেননি। আর আপনি কি করে জানলেন? আমার ভাইয়ার নাম আবির।

ইয়াকুব হাসি মুখ কালো করে ফেললো। এরপর আবার হেসে বললো।

_ দেখেছি বাড়িতে ঢোকার সময়। আর নাম জেনেছি হসপিটাল থেকে। আমি যেই হসপিটালে জয়েন হয়েছি। আবিরও সেই হসপিটালে। জনী’র নাম বলাতে ওনারা আবিরে’র নামও বললো। খুব ভাল ডক্টর আবির রাইট?

ভাইয়া ইয়াকুবের সামনে গিয়ে বললে।

_ আপনি সিটি হসপিটালে জয়েন হয়েছেন?

ইয়াকুব ভাইয়ার হাত ধরে বললো।

_ কামঅন আবির আমরা সেম এইজ। সো আপনি করে বলো না। তুমি আমাকে তুমি করেই বলবে ওকে? আর হ্যা আমি সিটি হসপিটালে জয়েন হয়েছি।

এরপর ওরা অনেক কথা বললো। এইটুকু সময়ের মধ্যে মিশে গেলো দুজন। আমি আর কিছু বললাম না। আমি আম্মু আর বাবার সাথে কথা বলছি। শ্বশুর বাবা আর শাশুড়ি আম্মুও আছে। ফরিদ ও ইয়াকুবে’র সাথে কথা বলছে। ইয়াকুব কে দেখে মিশুক মনে হচ্ছে। এখন মনে হচ্ছে হয়তো আমি ভুল ভাবছিলাম।

রাতে ভাইয়ার রুমে এলাম। ভাইয়া সিগারেট খাচ্ছে। ভাইয়ার কাধে হাত রাখলাম। ভাইয়া আমার দিকে একবার তাকিয়ে। আবার সিগারেট খাওয়ায় মন দিলো। অবাক হয়ে বললাম।

_ ভাইয়া এমন করছিস কেন?

ভাইয়া সিগারেট ফেলে দিয়ে বললো।

_ কেন কি করলাম আমি?

_ তুই সিগারেট খাচ্ছিস কেন? তুই আহানিতা আপু কে ভালবাসিস। ও যদি তোর সব হয় তাহলে ওকে বোঝা।

রেগেই বললাম কারন। ভাইয়া কে এভাবে দেখতে ভাল লাগছে না। ভাইয়া স্লান হেসে বললো।

_ আহানিতা কে কোথায় পাবো?

কিছুটা অবাক হয়ে বললাম।

_ কোথায় পাবি মানে?

_ আহানিতা চলে গিয়েছে। আমেরিকা চলে গিয়েছে।

বলে ভাইয়া কান্না করে দিলো। আমি থ হয়ে গিয়েছি। আহানিতা আপু কবে চলে গেলো? এরমাঝে ভাইয়া বললো।

_ মিম আমাকে একটু একা থাকতে দিবি?

_ বাট ভাইয়া আমার কথা শোন।

_ আই সেইড লিভ মি এলোন।

চেচিয়ে বললো ভাইয়া তাই চলে এলাম। পরেরদিন বাবা, আম্মু, ভাইয়া চলে গেলো। দেখতে দেখতে ৪ মাস কেটে গিয়েছে। সিফাত’র আর ১ মাস পর ১ বছর হবে। ইয়াকুব কে শুধু শুধু ভুল ভাবছিলাম। কারন এই ৪ মাসে খারাপ কিছুই হয়নি। শুধু ভাইয়া কষ্ট পাচ্ছে আহানিতা আপুর জন্য। কিন্তু এতে তো ইয়াকুবের দোষ নেই। আমি আর লিমা সিফাত’র পিছনে ছুটছি।

ইয়াকুব, জনী ভাইয়া, ফরিদ গল্প করছে। ইয়াকুব এখন খুব কম আসে আমাদের বাড়ি। এরমাঝে লিমা সেন্সলেস হয়ে গেলো। জনী ভাইয়া ছুটে এসে লিমা কে ধরলো। আর তখন বাড়িতে আহানও ঢুকলো।

জনী ভাইয়া লিমা কে ড্রয়িংরুমের সোফায় শুইয়ে। পাগলের মতো ডাকতে লাগলো। আমি তাড়াতাড়ি রান্নাঘর থেকে পানি এনে। লিমাে’র চোখে মুখে ছিটিয়ে দিলাম। লিমা পিটপিট করে চোখ খুললো। জনী ভাইয়া লিমা কে উঠিয়ে বসিয়ে বললো।

_ আহান, ইয়াকুব তোরা তো ডক্টর। দেখনা লিমা সেন্সলেস কেন হলো?

দুজন লিমাে’র দুহাত ধরলো। লিমা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। এদিকে আহান আর ইয়াকুব মুচকি মুচকি হাসছে। জনী ভাইয়া ধমক দিয়ে বললো।

_ ওই তোদের হাসতে বলেছি?

ইয়াকুব মুচকি হেসে বললো।

_ দোস্ত মিষ্টি খাওয়াবি না?

জনী ভাইয়া রেগে বললো।

_ আমার বউ অসুস্থ আর তুই। মিষ্টি খাওয়ার কথা বলছিস?

ইয়াকুব আর আহান একসাথে বললো।

_ ইয়েস বিকজ তোর বউ প্রেগন্যান্ট।

জনী ভাইয়া খুশিতে কি করবে। হয়তো নিজেই ভেবে পাচ্ছেনা। আমরা ও খুশি আমি লিমা কে জড়িয়ে ধরলাম। এই বাড়িতে আরেকটা পিচ্চি আসবে। ভাবতেই লাফাতে ইচ্ছে করবে। ফরিদ আর জনী ভাইয়া। সাথে আহান আর ইয়াকুব। সাথে সাথে মিষ্টি কিনতে চলে গিয়েছে। বাবা, আর আম্মুও খুব খুশি। ওরা সবাই কে মিষ্টি বিলিয়েছে।

পরেরদিন স্টুডিওতে এসেছি। আমি আসতে চাইনি ফরিদ নিয়ে এসেছে। সিফাত কে আনতে চেয়েছিলাম। লিমা আর জনী ভাইয়া রেখে দিয়েছে। ফরিদ’র গান রেকর্ড আছে। ফরিদ গান গাইতে শুরু করলো। কিছুটা গাওয়ার পর হঠাৎ। ফরিদ কাশতে শুরু করলো।

আমি দৌড়ে ফরিদ’র কাছে গেলাম। ফরিদ’র মুখ দিয়ে রক্ত পড়ছে। ভয় পেয়ে গেলাম এমন কেন হলো? দেরী না করে ফরিদ কে নিয়ে হসপিটালে চলে এলাম। ডক্টর বললো ফুড পয়জেন থেকে হয়েছে। ডক্টর দেখিয়ে বাড়ি চলে এলাম। এদিকে আমাদের অজান্তে কেউ। শয়তানি হাসি দিয়ে বললো।

_ দ্যা গেম ইজ স্টার্ট নাউ। তোমাদের সবার ধ্বংসের খেলা। আমি শুরু করে দিয়েছি। এবার দেখো কি হয়। জাস্ট ওয়েট এন্ড ওয়াচ। কাউকে ছাড়বো না আমি। সবাই কে শাস্তি পেতে হবে।


শেষ পর্ব

ফরিদ কে বাড়ি নিয়ে এসে। ড্রয়িংরুমে বসিয়ে পানি এনে দিলাম। ফরিদ অনেকটা উইক হয়ে গিয়েছে। আমি বসতেই লিমা সিফাত কে নিয়ে এলো। সিফাত আমাকে দেখেই কেঁদে দিয়েছে। সিফাত কে কোলে নিয়ে হাটছি। আম্মু এসে বললো।

_ ফরিদ কি হয়েছে তোর?

_ জানিনা মাম্মা গান গাইছিলাম। গান গাওয়ার মাঝে হঠাৎ। গলা দিয়ে রক্ত পড়তে শুরু করলো। ডক্টর বললো ফুড পয়জেনিং।

আম্মু কিছুটা চমকে গিয়ে বললো।

_ আমাদের বাড়িতে ফুড পয়জেনিং? এসব কি বলছিস ফরিদ? এরকম তো হয়নি আগে কখনো।

আম্মুর পাশে বসতে বসতে বললাম।

_ রাইট আম্মু আমিও সেটাই ভাবছি।

এরমাঝে ইয়াকুব এলো বাড়িতে।

_ তাহলে কি হতে পারে?

ইয়াকুবে’র কথায় জনী ভাইয়া বললো।

_ কেউ কি ইচ্ছে করে এটা করেছে?

_ বাট কেউ এটা কেন করবে? আমার সাথে কার কি শএুতা? যে আমার খাবারে পয়জেন দেবে।

সবাই চিন্তায় পড়ে গেলো।

_ গাইস ডোন্ট ওয়ারী। যদি কেউ এটা ইচ্ছাকৃত করে থাকে। আই হোপ তাকে পেয়ে যাবো।

ইয়াকুবে’র কথায় কিছুটা চিন্তামুক্ত হলাম। এরপর যে যার রুমে চলে এলাম। দুপুরে সিফাত কে গোসল করিয়ে। খায়িয়ে ঘুম পাড়িয়ে লিমাে’র রুমে এলাম। জনী ভাইয়া থানায় গিয়েছে।

আর ফরিদ অফিসে চলে গিয়েছে। স্টুডিওতে গিয়েছিলাম অনেক সকালে। লিমাে’র সাথে অনেকক্ষণ আড্ডা দিয়ে। আবার রুমে চলে এলাম। এখন সবার ঘুমানোর টাইম। দুপুরে সবাই ঘুমায়। তাই আমিও সিফাত’র পাশে ঘুমিয়ে পড়লাম।

পরেরদিন ব্রেকফাস্ট করছি। জনী ভাইয়া এখনো আসেনি। ফরিদ জনী ভাইয়া কে ডাক দিলো। জনী ভাইয়া শিরিতে পা রাখতেই। শিরি থেকে পড়ে গেলো। আমরা ছুটে এলাম তাড়াতাড়ি। জনী ভাইয়া মাথায় হাত দিয়ে আছে। লিমা হাতটা সরিয়ে ফেললো। সবাই আতকে উঠলাম।

কপাল অনেকটা কেটে গিয়েছে। জনী ভাইয়া কে ধরে সোফায় বসিয়ে দিলো ফরিদ। এরপর ইয়াকুব ব্যান্ডেজ করে দিলো। ব্যান্ডেজ করার সময় ইয়াকুব হাসছিলো।

আর একটু আগে ইয়াকুব এলো শিরি দিয়ে। তখন তো ইয়াকুব পড়লো না। তাহলে জনী ভাইয়া কেন পড়লো? ইয়াকুব কে আবার সন্দেহ হচ্ছে আমার। আর কালকে ফরিদ’র সাথে। আজকে জনী ভাইয়ার সাথে। যে অঘটন ঘটলো এগুলো কি কাকতালীয়?

লিমা কান্নাকাটি করছে। জনী ভাইয়া থামতে বলছে। কারন এই অবস্থায় কান্নাকাটি ঠিক না। লিমা কেঁদেই যাচ্ছে। তাই জনী ভাইয়া লিমা কে রুমে নিয়ে গেলো।

এদিকে ইয়াকুব আজ আবার। প্রথমদিনের মতো রহস্যময় হাসি দিলো। আর কেউ খেয়াল না করলেও। আমি ঠিকই খেয়াল করলাম। তাই মনে মনে ভেবে নিলাম। এই ইয়াকুবে’র উপর নজর রাখতে হবে।

এভাবে ১ মাস চলে গিয়েছে। ১ মাসে রোজ কিছু না কিছু হয়েছে। ইয়াকুব কে সন্দেহ হলেও তেমন কোনো প্রুফ পাইনি। তাই কিছু বলতেও পারছি না। সবাই মিলে বসে আছে। আমি শিরি দিয়ে নামতে নামতে শুনলাম।

_ আগেও বলেছি এখনো বলছি। যে এসব করছে তাকে আমরা পেয়ে যাবো।

ইয়াকুবে’র কথায় মাথায় আগুন ধরে গেলো। চেচিয়ে বলে উঠলাম।

_ ইউআর রাইট ইয়াকুব। তাকে আমরা পেয়ে যাবো। আমার তো মনে হয় পেয়ে গিয়েছি।

আমার কথা শুনে সবাই। অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো।

_ পেয়েছিস মানে? কে সে?

আমি ইয়াকুবে’র সামনে দাড়িয়ে বললাম।

_ কি ইয়াকুব নিজে বলবেন? নাকি কষ্ট করে আমাকে বলতে হবে?

ইয়াকুব আমতা আমতা করে বললো।

_ মানে কি ভাবী? আ আমি কি বলবো?

ঠাস করে ইয়াকুব কে থাপ্পর মেরে বললাম।

_ আর কত নাটক করবেন আপনি? সেই প্রথমদিন থেকে নাটক করছেন। সবাই কে কত আপন ভাবেন সেই নাটক। আপনার সব জাড়িজুড়ি শেষ মিস্টার ইয়াকুব খাঁন। আমি জেনে গিয়েছি এসব আপনি করেছেন। এতদিন ধরে যা হচ্ছে সব আপনি করেছেন। এবার বলুন কেন করেছেন? আমরা কি ক্ষতি করেছি আপনার?

ইয়াকুব চোখ মুখ লাল করে তাকিয়ে আছে। জনী ভাইয়া বসা থেকে উঠে বললো।

_ তৃশ এসব কি বলছিস তুই? ইয়াকুব কেন এসব করবে? তোর কোথাও ভুল হচ্ছে।

_ না জনী ভাইয়া আমার ভুল হচ্ছে না। আমি এই লোকটা কে ফোনে। কারো সাথে কথা বলতে শুনেছি। আমি যদি ভুল না হই সে একটা মেয়ে। আর তোমার এই ফ্রেন্ড ইয়াকুব। ওনার জিএফ হবে তার সাথে কথা বলছিলো। আর এই বোতল পেয়েছি।

বিষের বোতল দেখিয়ে বললাম। ইয়াকুব চমকে গিয়ে বললো।

_ এটা কোথায় পেয়েছেন?

মুচকি হেসে বললাম।

_ আপনার রুমে আপনার ব্যাগে।

_ হাউ ডেয়ার ইউ? তোমার সাহস কি করে হলো? আমার ব্যাগে হাত দেয়ার?

ইয়াকুব চোখ রাঙিয়ে বললো। ওর চোখ রাঙানি দেখে রেগে বললাম।

_ একদম চোখ রাঙাবেন না। কেন করলেন এসব?

ইয়াকুব কিছুক্ষণ চুপ থেকে বলে উঠলো।

_ হ্যা আমি করেছি এসব। এতদিন যা হয়েছে সব আমি করেছি। প্রতিশোধ নিতে করেছি তোমরা যা করেছো। তার তুলনায় এসব তো কিছুনা। তোমাদের ধ্বংস করতেই আমি এসেছি।

সবাই আকাশ থেকে পড়লো। জনী ভাইয়া চমকে গিয়ে বললো।

_ ইয়াকুব তুই এসব করেছিস? কিন্তু কেন করেছিস? কিসের প্রতিশোধ? কি করেছি আমরা বল?

ইয়াকুব চেচিয়ে বলে উঠলো।

_ কি করিসনি তোরা? আমার ভালবাসা কে কষ্ট দিয়েছিস। ওকে জেলে দিয়েছিলি মনে নেই? কি করেছিলো ও বল? শুধু একটা থাপ্পর মেরেছিলো তোকে জনী। তার জন্য ফুল ফ্যামিলি মিলে ওকে জেলে দিয়ে দিলি? কি ভেবেছিলি ওকে জেলে রাখতে পারবি? না পারিসনি আমি ওকে আমি বের করেছি।

ইয়াকুবে’র কথা আমরা কেউ বুঝতে পারছি না। ফরিদ সামনে এসে বললো।

_ কে তোমার ভালবাসা? কার কথা বলছো তুমি?

_ সিউলী কে মনে আছে? নাকি জেলে দিয়ে ভুলে গিয়েছো? সিউলী আমার ভালবাসা। সিউলী কে আমি ভালবাসি। তোমাদের জন্য ও কষ্ট পেয়েছে। তাই আমি এসেছি প্রতিশোধ নিতে।

_ তাহলে আমি কে আয়াশ?

কারো কথা শুনে দরজায় তাকালাম। তাকিয়ে দেখলাম আহানিতা আপু। আর সাথে ভাইয়াও আছে। আয়াশ নাম শুনে অবাক হলাম। তারমানে ইয়াকুব’ই আয়াশ?

ইয়াকুব চমকে গিয়ে বললো।

_ আহানিতা তুমি এখানে? তুমি না আমেরিকা ছিলে?

আহানিতা আপু কাঁদতে কাঁদতে বললো।

_ আমাকে এভাবে ঠকালে? কেন করলে এমন তুমি? আমি কি দোষ করেছিলাম? আমি তো তোমাকে সত্যি ভালবেসেছি। তুমি আমাকে কেন ঠকালে বলো?

এবার ইয়াকুব রেগে বললো।

_ কিসের ভালবাসা? আমি তোমাকে ভালবাসি না। ইনফ্যাক্ট কখনো বাসিনি। তুমি ইমোশনাল ফুল তাই তোমার সাথে। ভালবাসার গেম খেলেছি। তোমাকে আবিরে’র থেকে সরাতে। আমার উদ্দেশ্য ছিলো এদের কষ্ট দেয়া। আমি দিতে পেরেছি বাট।

বাট বলেই গান বের করলো। আমরা সবাই ভয় পেয়ে গেলাম।

_ যার জন্য সিউলী জেলে গিয়েছে। যেই পরিবারের জন্য। বিশেষ করে ফরিদ আর জনী। এদের আমি ছাড়বো না।

বলেই ইয়াকুব ট্রিগার চাপতে গেলো। তার আগে ফুপ্পি এসে থাপ্পর মারলো। ইয়াকুব অবাক হয়ে বললো।

_ আন্টি আপনি কেন মারলেন আমাকে? আপনার তো খুশি হওয়ার কথা। ওরা আপনার মেয়ের সাথে অন্যায় করেছে। তাই ওদের তো শাস্তি পাওয়া উচিত তাইনা?

_ অন্যায় ওরা না সিউলী করেছে।

ইয়াকুব পিস্তল নামিয়ে বললো।

_ মানে কি বলছেন আপনি?

ফুপ্পি সবটা বললো ইয়াকুব কে। ইয়াকুব ধপ করে সোফায় বসে পড়লো। দু হাত দিয়ে মাথা চেপে ধরে বললো।

_ সিউলী আমাকে মিথ্যে বললো? আর আমি কি না এত অন্যায় করলাম?

_ বেবী সবাই কে শেষ করেছো?

বলতে বলতে সিউলী ঢুকলো। আমরা অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি। সিউলী একটা শর্ট টপস পড়া। যেটাতে হাটু দৃশ্যমান। সিউলী ও হয়তো শকড হয়েছে। ইয়াকুব অগ্নি দৃষ্টিতে তাকালো সিউলী’র দিকে। সিউলী ঢোক গিললো। ইয়াকুব সিউলী কে ঠাস করে থাপ্পর মারলো। সিউলী গালে হাত দিয়ে তাকিয়ে আছে। ইয়াকুব সিউলী’র দু বাহু ধরে বললো।

_ লজ্জা করলো না এই নাটক করতে? আমাকে মিথ্যে কেন বললে? কেন আমাকে দিয়ে এসব করালে? এত ভালবাসতাম তোমাকে আমি। যে তোমার সব কথা শুনেছি। তোমার জন্য আমেরিকা থেকে চলে এসেছি। একজন ডক্টর মানুষের জীবন বাঁচায়। কিন্তু তোমার জন্য তোমাকে ভালবেসে। আমি জীবন নিতে চেয়েছি। আমার ব্রেষ্ট ফ্রেন্ড কেও মারতে চেয়েছি। আহানিতা কে ঠকিয়েছি কেন করলি বল?

ইয়াকুব সিউলী’র গলা চেপে ধরলো। সিউলী এক ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে বললো।

_ যা করেছি বেশ করেছি। আমি জানতাম ফরিদ কে পাবোনা। তাই ফরিদ কে সরিয়ে ফেলতে চেয়েছিলাম। ফরিদ কে গুলি করে তোমার সাথে নাটক করি। ভালবাসার নাটক তুমিও বোকা। তাই আমার জ্বালে ফেসে যাও। ওরা সব জেনে আমাকে জেলে দেয়। ওখানকার একজনের ফোন নিয়ে তোমাকে বলি। সব মিথ্যে বলি তুমিও ফেসে যাও মিথ্যের জ্বালে। আমার মিথ্যে কান্নার মায়ায় পড়ে যাও। আমার কথাতে প্রতিশোধ নিতে চলে আসো। আর ডক্টর থেকে ভিলেন হয়ে যাও।

ইয়াকুব হাটু ভেঙে ফ্লোরে বসে পড়লো। চোখ থেকে টপটপ করে পানি পড়ছে। জনী ভাইয়া ইয়াকুবে’র কাধে হাত রাখলো। ইয়াকুব কাঁদতে কাঁদতেই বললো।

_ আই এম সরি জনী। না জেনে অনেক অন্যায় করেছি। তোদের মারতেও চেয়েছি। প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দে। চাইলে আমাকে এরেস্ট করতে পারিস। আমার কোনো আফসোস নেই।

জনী ভাইয়া ইয়াকুব কে উঠিয়ে বললো।

_ তোর প্রতি কোনো রাগ নেই। আসল কালপ্রিট তো সিউলী। তাই শাস্তি ও পাবে তুই না।

পুলিশ কে কল করলে। ওনারা এসে সিউলী কে নিয়ে যায়। ইয়াকুব আহানিতা আপুর সামনে গিয়ে বলে।

_ পারলে ক্ষমা করে দিও। আবির তোমাকে অনেক ভালবাসে। ওর সাথে নতুন করে সব শুরু করো। অনেক ভাল থাকবে।

আহানিতা আপু চোখের পানি মুছে বললো।

_ হ্যা ভাল থাকবো। আবির কে নিয়েই ভাল থাকবো। আর তোমাকে ক্ষমা করবো না। মিস্টার আয়াশ খাঁন ইয়াকুব।

ইয়াকুব কিছু বললো না। রুমে গিয়ে ব্যাগ নিয়ে নেমে এলো। জনী ভাইয়া বলে উঠলো।

_ কোথায় যাচ্ছিস?

ইয়াকুব স্লান হেসে বললো।

_ আমেরিকা চলে যাবো আমি। তার আগে নানা ভাইয়ের কাছে যাবো।

_ না তুই যেতে পারবি না।

_ প্লিজ জনী আমাকে আটকাস না। আই হ্যাব টু গো নাউ প্লিজ।

বলে ইয়াকুব চলে গেলো। ওনার মনে যে ঝড় বইছে। সেটা সবাই বুঝতে পারলো।

১ মাস পর আহানিতা আপু। না এখন তো ভাবী আহানিতা ভাবী কে সাজানো দেখছি। একদম পুতুল লাগছে। বউ সাজে সবাই কে পুতুল লাগে মেবি। আজ ভাইয়া আর আহানিতা ভাবীর বিয়ে। একটুপর তাড়া দিলো। ভাবী কে স্টেজে নিয়ে যাওয়ার জন্য। তাই স্টেজে নিয়ে গিয়ে।

ভাইয়ার পাশে বসিয়ে দিলাম। আর ভাবতে লাগলাম। আল্লাহ চাইলে সব হয়। তাইতো ভাবীও এখন ভাইয়া কে ভালবাসে। এরমাঝে ওদের বিয়ে পড়ানো শেষ হয়ে গেলো। আমরা ভাবী কে ভাইয়ার রুমে বসিয়ে। আমি আর লিমা দরজায় দাড়িয়ে আছি। ভাইয়া ভ্রু কুঁচকে বললো।

_ যা এখান থেকে টাকা পাবিনা।

আমি দাত কেলিয়ে বললাম।

_ টাকা না পেলে যাবো না।

অনেকক্ষণ পর ভাইয়া টাকা দিলো। এরপর রুমে গেলো। আমাদের মত ওদের ভালবাসাও পূর্নতা পেলো।

৪ বছর পর।

পুরো বাড়ি সাজানো হয়েছে। আজকে সিফাত’র জন্মদিন। শুধু সিফাত’র না আমারও। সিফাত’র আজকে ৫ বছর হবে। আর আমার ২৫ বছর। দেখতে দেখতে কতগুলো বছর কেটে গেলো।

এরমাঝে ভাইয়া ভাবী আর। ওদের ছোট্ট ছেলে রিয়ান চলে এলো। একটুপর আহান ওর বউ আর ২ বছরের মেয়ে। আয়ানা কে নিয়ে ওরাও চলে এলো। ভাইয়ার ছেলের ৩ বছর।

ভাইয়ার বিয়ের পরই আহান বিয়ে করেছে। আহানে’র বউয়ে’র নাম মিলি। অধরা কে নিয়ে লিমা নেমে এলো। অধরা কে দেখেই সিফাত ছুটে গেলো। অধরা লিমা আর জনী ভাইয়ার মেয়ে। সিফাত তো অধরা বলতে পাগল। সিফাত অধরা কে গিয়ে বললো।

_ ওয়াও ইউআর লুকিং প্রিটি।

অধরা ভাব নিয়ে বললো।

_ আই নো ভাইয়া।

সিফাত গাল ফুলিয়ে বললো।

_ ডোন্ট কল মি ভাইয়া স্টুপিড।

একটুপর জনী ভাইয়া। আর ফরিদ নেমে এলো। ফরিদ কে দেখেই সিফাত গিয়ে কোলে উঠে বললো।

_ পাপা ওকে বারন করো। আমাকে যেন ভাইয়া না বলে।

_ বাট তুমি তো ওর ভাইয়া হও বাবা।

জনী ভাইয়ার কথায় সিফাত ভেংচি কেটে বললো।

_ নো বাবা ইউআর রং। আমি ওর ভাইয়া না জামাই হই।

আমরা সবাই হেসে দিলাম। অধরা দু হাত দিয়ে মুখ ঢাকলো। এরমাঝে রিয়ান বললো।

_ তাহলে কি আয়ানা আমাল (আমার) বউ?

ওদের কথায় হাসতে হাসতে শেষ। কেক কাটার সময় হয়ে গেলো। এরপর আমি আর সিফাত কেক কাটলাম। কেক কেটে সবাই কে খাইয়ে দিলাম। ফরিদ গান গাইছে আর আমি ভাবছি। সারাকিবীবন যেন এভাবেই হাসি খুশি থাকি।

সমাপ্ত

পাঠক আপনাদের জন্যই আমরা প্রতিনিয়ত লিখে থাকি। আপনাদের আনন্দ দেয়াই আমাদের প্রধান লক্ষ। তাই এই পর্বের “ভালোবাসার গল্প কথা গল্প” টি আপনাদের কেমন লাগলো পড়া শেষে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

আরও পড়ুন – ভালোবাসার কষ্টের গল্প

Related posts

ছলনাময়ী ভালোবাসার গল্প – ধোঁকা ও ভ্রম | Sad Love Story

valobasargolpo

রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প – ভাইয়ের বন্ধু বর পর্ব ৭ | Love Story

valobasargolpo

Leave a Comment

error: Content is protected !!